Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - Maruf Reza Byron

Pages: 1 2 [3] 4 5
31
Each age has its own identification. There are distinct trends for different generations. If you consider the example of Bangladesh you will see that in the decades of seventies and eighties of the last century people wanted to be BCS cadres.  It was their dream profession. In the decade of nineties, the then youngsters of this bright country were dreaming to be corporate executives. And finally, in the first decade of this twenty first century, the young minds of our nation were passionate to settle in a foreign developed nation. These are the special characteristics of those generations of our beloved country. However, the future leaders of today’s Bangladesh want to be something different from all their precedents.  They want to conquer the unexplored chapters of their dream. Today’s generation is more adventurous. They dream to be the change-makers rather trend-followers. They dream to be leaders with vision. With the diffusion of information and communication technologies, the young minds of Bangladesh aim to explore their unlimited potentials. Yes, this is the age of entrepreneurs. This is the time of the doers, the innovators. This is the time to bring creative destruction to the society by inventing new innovative ideas. As a future leader, as a visionary person if you want to create your own distinct position in this turbulent environment you have to be a successful entrepreneur. To reach your goal you must follow the following twelve rules which will ensure your success as a creative business leader. These twelve rules will make you understand what does entrepreneur really mean. Let’s have a look of the meaning of the term ENTREPRENEUR:
 
E = Extra effort
N = New ways of doing business
T = Tactics
R = Revolutionary outlook
E = Empowerment
P = People-orientation
R = Rational
E = e-solution for customers
N = Next best alternative
E = Equity
U = You-first approach
R = Reassessment of decisions
 
Bottom Line: If you really understand the meaning of this term ENTREPRENEUR and follow these twelve rules as guiding principles you will definitely be a successful entrepreneur.

33
Most of the people of our society have a dream to study in a university. A few of them get the chance. There are two types of universities in our country: public universities and private universities. However, how many of us know the inherent meaning of a university? There are about one hundred public and private universities in Bangladesh. How many of those are really playing the role of a university? I am afraid that most people do not think even regarding these issues. Okay, let me ask you few questions: What is the purpose of a true university? How will you judge the performance of a university?

I know in answer to the first question you may differ with each other. Some of you may think that the goal of a university is to develop human resources for the growing need of the economy of a country while others may focus on different issues e.g. to help in career building of the young stars etc.

To get the answer of the second question people may differ more, I guess. In answer to this question some may point out that the quality of a university depends on the quality of its faculty members. Some other may think that students’ quality is the determinant factor to judge the quality of a university. Yet, there may be another group who may focus on the issue that a good university must have a large good campus with state-of-the-art facilities. Moreover, there may be some other corner of the society that may think that the level of a university depends on the response of the job market. Apparently, all of you are correct. Good faculties, good students, good campuses and good placements- these are treated as the four basic variables to judge the quality of a university.

However, I do differ with you all. I want to raise some questions. What is the use of all these variables unless they produce new spheres of knowledge? Do the universities utilize their ‘good’ faculties, ‘talented’ students, and ‘fabulous’ campuses? Do the teachers devote themselves in knowledge creation or they are happy with their ‘foreign degrees’? Do they love to guide their students to create new horizon of knowledge or advise them only to build up their ‘safe’ career? Do the ‘quality’ faculties themselves love to quest for excellence in respective fields of research or engage themselves in money making processes? Considering all these issues we can conclude that having ‘quality’ faculties-students-campuses will not ensure the quality of a university. The bottom line is their contribution to the academic arena as well as to the society.

It’s also mentionable that students’ role is not less important at all. What is the role of the students in the learning process? Do they have the courage to challenge the knowledge-base of their faculties? Do they love to raise critical questions in the classroom or enjoy ‘useless’ clashes with the teachers? Do they dare to dream of innovating ideas or just have the daydream to be a ‘sincere executive’? Students should behave responsibly with no exceptions.

We must not forget that university is neither a school nor a college. It is not a coaching center or a training institute. University does not refer to professors with foreign degrees or lecturers having foreign publications. It neither means the ‘obedient’ students without thirst of knowledge nor stands for a good campus or well performed extra-curricular activities. Furthermore, university is not the Dane of SELFISH career-lovers. Last but not the least university is not the hatchery of future ‘money-making-machines’.

My dream university is such an educational institution where people will go with full devotion to LEARN the unknowns; where people will dedicate themselves to NOURISH new spheres of knowledge for the welfare of the entire society; where the teachers and students will create continuous waves of new ideas and share together without any self-interest; where people will have an open mind to embrace all ODD innovations. In my opinion, a true university must act as the Light House for the society to show the path for the future generations.

How long will we need to wait to have such a university in our beloved Bangladesh!


May 5, 2013 at 11:26am

34
এখনকার বিশ্বে মেধাসম্পদ খুব জরুরী একটা বিষয়। এ বিষয়ে সঠিক ধারণা ছাড়া ব্যবসা করা বেশ কঠিন। এমন দরকারী একটা লেখা শেয়ার করার জন্য তোমাকে ধন্যবাদ, সুজন।

35
Department of Innovation & Entrepreneurship / Re: NEW ASIAN TIGER
« on: May 24, 2017, 03:04:59 PM »
Dear Mam, thank you for sharing this informative write up with us!

36
[This is not my note. I have collected this note from Seth Godin's Blog. To get to the original site please click here: http://sethgodin.typepad.com/...... Maruf Reza Byron]
 
 
   > Mistakes! A series of failures as you follow a path of persistent long-term effort characterized by
      ongoing learning and a reputation that improves over time.   
   > The giant flame out   
   > Giving up in the dip   
   > Shortcuts   
   > Not starting   
   > The critic, on the sidelines   
   > Empty hype   
   > The scam, the short-sighted selfish pitch
 
It's the flame outs and the scams that get all the publicity, but it's the long-term commitment that pays off. I have nothing but applause for those brave enough to fail, and fail again. It's not so much a failure as it is one more thing that won't work.
 
And the critics and the non-starters? They will get little respect from me.
 
Some say, "go big or stay home," but I prefer, "keep going." Drip by drip.

37
[মোঃ নজীবুল্লাহ খান সম্পাদিত ‘বাজারজাতকরণ’ পত্রিকার সেপ্টেম্বর ২০১৩ সংখ্যায় প্রকাশিত প্রবন্ধ, পৃষ্ঠাঃ ৩-৫]
 
 
অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান। নামেই যাঁর পরিচয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের নামকরা শিক্ষক। আমার শ্রদ্ধেয় শিক্ষক। অনেক গবেষণা নিবন্ধের রচয়িতা আমাদের মীজান স্যার পিএইচডি হোল্ডার, ফুল প্রফেসর। একই সাথে তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের পদ অলংকৃ্ত করে আছেন। ছাত্র-ছাত্রীদের কাছে জনপ্রিয় এই অধ্যাপক মার্কেটিং সাব্জেক্টের অন্যতম সেরা শিক্ষক হিসেবে সারা দেশে পরিচিত। ভক্তকূল এবং সুবিধাপ্রাপ্ত ও সুবিধাপ্রত্যাশীদের কাছে তিনি “বাংলাদেশের কটলার” হিসেবে খ্যাত। তো, এহেন বিখ্যাত ডাকসাইটে অধ্যাপকের লেখা প্রকাশিত হয়েছে মোঃ নজীবুল্লাহ খান সম্পাদিত একেবারেই গড়পড়তামানের মাসিক পত্রিকা ‘বাজারজাতকরণ’ এর সেপ্টেম্বর ২০১৩ সংখ্যায়, পৃষ্ঠাঃ ৩-৫। এতে অবশ্য দোষের কিছু নেই। বিখ্যাত লোকেরা মাঝে মাঝে যদি অখ্যাতদের না দেখেন তাহলে তাঁদের মাহাত্ম বোঝা যাবে কিভাবে!
 
যাহোক। আমার এই লেখার মূল উদ্দেশ্য অবশ্য কাউকে ব্যক্তিগতভাবে হেয় করা নয়। বরং বাংলাদেশে “মার্কেটিং থিংকার”দের সম্পর্কে একটা বস্তুনিষ্ঠ পর্যা্লোচনা দাঁড় করানোর উদ্দেশ্য নিয়েই আমার এই প্রচেষ্টা। বাংলাদেশে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে মার্কেটিং সাব্জেক্টের যারা ‘গুরু’ হিসেবে পরিচিত তাঁদেরই একজনের বুদ্ধিবৃত্তিক যোগ্যতা মূল্যায়নের মাধ্যমে এই দেশের মার্কেটিং চিন্তা-চর্চা্র স্বরূপ অণ্বেষণ করা। বলে রাখা ভালো, মীজান স্যারকে ব্যক্তিগতভাবে আমি অত্যন্ত শ্রদ্ধা করি। কিন্তু একই সাথে তাঁর চিন্তা-কাজের আমি একজন নির্মোহ সমালোচক। আমি জানি না স্যার আমার এই লেখা কিভাবে নিবেন। যদি আমার লেখা বা লেখার কোন অংশ তাঁকে কষ্ট দিয়ে থাকে সেজন্য আমি আগেভাগেই তাঁর কাছে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি।
 
এখন লেখার কথায় আশা যাক। লেখার শিরোনাম থেকেই এর বিষয়বস্তু পরিষ্কার হয়ে ওঠে। আর তা হলো মার্কেটিং ও সমাজের সম্পর্ক। লেখাটার সম্ভবত আরো কিস্তি আগের সংখ্যায় প্রকাশিত হয়েছে। আমার হাতে শুধু একটা অংশই আছে এবং তা শেষ অংশ। আগের অংশ না থাকার সীমাবদ্ধতা মেনে নিয়েই আমি আমার মতামত তুলে ধরতে চাই।
 
লেখার শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত গভীর মনোযোগসহকারে পড়ে লেখাটা সম্পর্কে প্রাথমিকভাবে আমার যা উপলব্ধি হয়েছে তা হলোঃ এটা স্ববিরোধী বক্তব্যে ঠাসা নিতান্তই দুর্বল অনুবাদনির্ভর গতানুগতিক ক্লাসনোটধর্মী একেবারেই অগভীর দৃষ্টি্ভঙ্গিসম্মৃদ্ধ একদম কাঁচা একটা লেখা যেখানে চিন্তার স্বকীয়তার ছাপ পুরোপুরি অনুপস্থিত। বিশেষত লেখকের দুর্বল ভাষাজ্ঞান আমাকে দারুণভাবে আহত করেছে। লেখাটা নিয়ে আমার সার্বিক মূল্যায়নের পক্ষে কিছু যুক্তি-তর্ক নীচে উল্লেখ করলাম।
 
লেখার একদম শুরুতেই অধ্যাপক মীজান বলেছেন, “বাজারজাতকরণ সমাজে অনেক ক্ষতিকর মাত্রা সংযোজন করছে বলে প্রায়ই অভিযোগ শুনা যায়।” এ কথার মানে কি? এই অভিযোগের সত্যতা নিয়ে কি আপনার মনে কোন সন্দেহ আছে, স্যার? বাজারজাতকরণ অবশ্যই “সমাজে অনেক ক্ষতিকর মাত্রা সংযোজন করছে” - এই কথা যদি আপনি জোর গলায় না বলেন তাহলে আর কে বলতে পারবে! কিন্ত আপনি যদি বলেন, “অভিযোগ শুনা যায়” তাহলে আপনার বক্তব্য আপনার ভাষাজ্ঞানের মতই অনেক দুর্বল শোনায়, তাই না স্যার?
 
স্যার, অত্যন্ত লজ্জার সাথে বলতে হচ্ছে আপনার লেখার পরতে পরতে চিন্তার অগভীরতার ছাপ স্পষ্ট। যেমন লেখাটার তিন নম্বর প্যারায় আপনি বলছেন, “বাজারজাতকারীরা নতুন অভাব সৃষ্টির চেয়ে পুরাতন অভাব পূরণের জন্যে বিজ্ঞাপন প্রচার করে বেশি সফল হয়ে থাকে।” কিভাবে বলছেন আপনি এ কথা? কোন গবেষণা করেছেন কি আপনি? অথবা অন্য কারও লেখা থেকে কি পেয়েছেন ধারণাটা? যদি পেয়ে থাকেন তবে সেটা কার লেখা, কোন্ লেখা – তা কিন্তু উল্লেখ করেন নি, স্যার! এটা কি ঠিক হলো? আর ‘সফল’ হওয়া বলতে আপনি আসলে কি বোঝাতে চেয়েছেন তাও কিন্তু পরিষ্কার করেন নি, স্যার!
 
ঠিক পরের প্যারাতেই এরকম ঢালাও মন্তব্য পাওয়া গেল আবার। এবার আপনি বিশ্ব ইতিহাসের সারসংক্ষেপ করে ঘোষণা করেছেন, “যে জাতি যত বেশি বস্তুকেন্দ্রিক হয়েছে তার পিছনে বাজারজাতকরণ ছাড়াও অন্যান্য উপাদান আরো বেশি ভূমিকা রেখেছে।” কোথায় পেলেন আপনার এই তত্ত্ব! অন্য কোন লেখকের লেখার অনুবাদ মনে হচ্ছে। লেখার প্রয়োজনে অন্য কারো লেখার সাহায্য নেয়া খারাপ কিছু না। তবে সেটা স্বীকার করতে না চাওয়া অবশ্যই বুদ্ধিবৃত্তিক চৌর্যবৃত্তির দোষে দুষ্ট হতে বাধ্য। আর আপনার এই কথা দিয়ে কি আপনি বস্তুকেন্দ্রিকতা সৃষ্টি্র জন্য মার্কেটিং এর দায় কমাতে চাচ্ছেন?
 
আপনার লেখার সবচেয়ে কৌ্তুককর অংশ এর পরেই শুরু। সমাজে “সাংষ্কৃতিক দূষণ” সৃষ্টি্র পেছনে বাজারজাতকরণের ভূমিকা আলোচনা করতে যেয়ে আপনি একাধিকবার বিজ্ঞাপন সম্পর্কে সমালোচনামুখর হয়েছেন। আবার একটু পরে বিজ্ঞাপনকেই “টিভির সবচেয়ে ভাল প্রোগ্রাম” হিসেবে অভিহিত করেছেন। কী হাস্যকর স্ববিরোধীতা!
 
বিজ্ঞাপন প্রসংঙ্গে আপনার স্ববিরোধীতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত পাওয়া যায় ঠিক এর পরেই। দ্বিতীয় পৃষ্ঠা্র প্রথম প্যারার শেষে গণমাধ্যমের উপর বিজ্ঞাপণের প্রভাব আলাপ করতে গিয়ে আপনি রায় দিচ্ছেন, “বিজ্ঞাপন থেকে প্রচুর আয় হচ্ছে বলেই গণমাধ্যমগুলো কিছুটা হলেও স্বাধীনতা ভোগ করছে, ...”। আবার, এই কথা বলার ঠিক চার লাইন পরেই বিজ্ঞাপনের সমালোচনা করে বলছেন, “গণমাধ্যমগুলোর উপর বিজ্ঞাপন দাতাদের কর্তৃত্ব এত বেশি যে এর দ্বারা মাধ্যমগুলোর স্বাধীনতা এবং নিরপেক্ষতা দারুণভাবে বিঘ্নিত হচ্ছে।” এটাকে ঠিক কী বলা যাবে, স্যার! চিন্তার দৈনতা কোথায় গিয়ে ঠেকেছে তা কি বোঝা যাচ্ছে?
 
তো, এই হলো “বাংলাদেশের ফিলিপ কটলার” এর অবস্থা। মনে রাখতে হবে অন্যদের অবস্থা আরো খারাপ, বৈ ভালো নয়। আমরা কোন যুগে বাস করছি তা কি বোঝা যাচ্ছে, পাঠক?
 
বাংলাদেশে মার্কেটিং থিংকারের বড়ই অভাব। ভাসাভাসা আলোচনা, ক্লাসে ও ক্লাসের বাইরের একাডেমিক কাজে ফাঁকিবাজি করার দারূণ প্রচেষ্টা, বিরক্তিকরভাবে পশ্চিমা চিন্তা-কর্মের দুর্বল অনুকরণ, মেধা-সৃজনশীলতার শূন্যতা, দূর্গন্ধযুক্ত রাজনীতির সাথে লজ্জাহীন সম্পৃক্ততা, মানি-পাওয়ার-পজিশন-প্রমোশনের দুর্বার মোহ – এই সব মিলিয়ে উচ্চশিক্ষার নামে ধাপ্পাবাজি চলছে সারা দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মার্কেটিং বিভাগে। আর এসবের শিকার হচ্ছে আমাদের শিক্ষার্থীরা। এই অচলাবস্থার অবসান হবে কিভাবে!?
 
 
২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৩
রাত ৩টা ৫৩ মিনিট

38
"Otaku is a Japanese term for people with obsessive interests..." (“This City is Full of Otaku” by Nakamori Akio). Otaku subculture began in the 1980s as changing social mentalities. Many people now self-identify as otaku. They are innovation lovers. They set new trends for the rest of the society by adopting new innovative ideas and products. By this way they played an important role in changing the Japanese economy.

The question may arise in your mind how otaku is related with marketing strategy. Please try to remember the concept of "Buyers' response to the innovation" concept. According to the concept there are five types of consumers in the market: innovators (2.5%), early adopters (13.5%), early majority (34%), late majority (34%), and laggards (16%). The traditional marketing strategy will suggest you to target all these consumers but laggards to sell your marketing offer. However, modern marketing strategy does not support this view as early majority and late majority always follow the trend set by the prior two groups of consumers i. e. innovators and early adopters. We may term these two groups of consumers as 'Otaku' as they are very passionate to a new product. They love to take challenges and always welcome an innovative idea. Through them all innovative ideas are defused in the society and rest of the consumers adopt those ideas.

In Bangladesh, if we want to promote new innovative products or ideas we have to find out the "Otaku subculture" of our society and nurture them properly. We should not forget that "Ideas that spread, win." Otaku subculture is important for this "idea diffusion".

39
Feeling blessed to have the opportunity to participate at an auspicious event titled “Youth Dialouge with Dr. A. P. J. Abdul Kalam” at the Ball Room of the Pan Pacific Sonargaon Hotel at last evening. I am amazed to listen to His remarkable speech where He advised to the hundreds of students of fifteen best private and public universities of Bangladesh:
 
“Be the captain of your problems… defeat problems.” He then quoted from Rumi’s poem and get that recited by the audience. He referred the examples of Thomas Alva Edison and Alexander Graham Bell and advised the young minds to dream big… set the goal of their life and fly high… He also suggested the youngsters of our country to transform their dreams into logical thinking and translate that thoughts into positive actions. The acclaimed scientist, Dr. Kalam, emphasized on the importance of the art of managing failures and suggested the students to transform their failures into success. He also pointed out the significance of leadership skills by sharing several real life examples of His 83 years’ journey of life. He also shared a heart touching “Bliss story” and asked the young minds to think of the question everyday - “What I’ll be remembered for?” Finally, He called the generation next to work for their country specially for the poor people of the country with the mission of achieving what He termed “Energy independence”.
 
My heartiest thanks go to MCCI and Grey Advertising Bangladesh Ltd for inviting us to such an event. Last but not the least, I would like to give special thanks to Montasir and Bipul, two of my students, for their nice care!
 
Right now I am truly inspired by Dr. Kalam’s auspicious speech and expecting to transform my dreams into reality.

Note: It was written in 2014

40
"বাণিজ্যতে যাবো আমি সিন্দাবাদের মতো" - ছেলেবেলায় পড়া এরকম একটা ছড়া থেকেই কিনা জানি না নিজের ভেতরে ব্যবসার প্রতি একটা আগ্রহ শুরু হয়েছিলো জীবনের প্রথম দিকেই। আমার মেজো ভাই খুব উৎসাহী ছিলেন ব্যবসার প্রতি। মনে আছে, ছোটবেলায়, আমি তখন ক্লাস ওয়ান বা টুয়ে পড়ি আর মেজো ভাই ক্লাস ফাইভ বা সিক্সে পড়ে, ওর সাথে দোকান দোকান খেলতাম আমরা। ও বাজার থেকে আমাদের আগ্রহের অনেক পণ্য যেমন চকোলেট-বিস্কিট-কলা ইত্যাদি কিনে নিয়ে এসে বাসার সামনে দোকান সাজিয়ে বিক্রী করতো। আর আমরা, ছোটরা, অতি আগ্রহের সাথে অবাক হয়ে ওর দোকানের চারপাশে ভিড় করে থাকতাম। সন্ধ্যা বেলায় ও যখন আমাদেরকে বলতো যে ওর কত টাকা লাভ হয়েছে আমরা অবাক হয়ে শুনতাম। তখনও ব্যবসা-লাভ-ক্ষতি-কেনা-বেচা - এই বিষয়গুলো ঠিকমতো বুঝতাম না। কিন্তু মেজো ভায়ের সেই ক্ষুদ্রতম উদ্যোগ ব্যবসা সম্পর্কে আমার মনে এক স্থায়ী ইতিবাচক দাগ কেটে যায়। একটু বড় হয়ে যখন মা বললো কমার্সে পড়তে তখন বেশ খুশী হয়েছিলাম মনে মনে। আমার চেয়ে অনেক 'খারাপ' ছাত্ররাও যখন সায়েন্সে পড়ে ভাব নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে তখন আমি আগ্রহ নিয়েই কমার্সে পড়া শুরু করি। তারপর নারদ আর পদ্মায় অনেক জল বয়ে যায়।
 
স্কুল জীবন শেষে ইন্টারমিডিয়েটে পড়ার সময় ধীরে ধীরে ব্যবসার প্রতি আমার ইতিবাচক মনোভাব পাল্টাতে থাকে। বিভিন্ন কোম্পানির কথা ও কাজের মধ্যে অমিলগুলো আমার মনে দ্বিধার জন্ম দেয়। ধীরে ধীরে বুঝতে পারি কিছু ব্যতিক্রম বাদে বেশিরভাগ কোম্পানিই মানুষকে ঠকিয়ে মুনাফা অর্জন করছে। নকল পণ্যকে আসল পণ্য বলে বিক্রী করা, ওজনে কম দেয়া, অযৌক্তিকভাবে দাম বেশি রাখা, ভেজাল-পচা পণ্য বিক্রী করা ইত্যাদি খবর দেখতে দেখতে শুনতে শুনতে পড়তে পড়তে সেই কলেজ লাইফেই ব্যবসার প্রতি নেতিবাচক মনোভাব জন্ম নেয়। তাদের এইসব কর্মকাণ্ড দেখে মনে হতে থাকে যে ব্যবসা মানেই ধোকাবাজি আর ব্যবসায়ী মানেই খারাপ মানুষ। আফসোস হতে থাকে ক্যানো কমার্সে পড়তে আসলাম!
 
এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগে পড়তে এসে কিছুদিনের মধ্যেই আমার সব দ্বিধা-দ্বন্দ্বের অবসান হয়। ততদিনে ব্যবসার আরও কদর্য রূপ আমার চোখে ধরা পড়ে। আমি বুঝতে পারি খুবই অল্প কিছু মানুষ শুধু নিজেদের মুনাফা অর্জনের স্বার্থে সমাজের সব শুভচিন্তাকে উপেক্ষা করে, পরিবেশ দূষণ করে, সভ্য সমাজের সব রকমের আইন-কানুন, রীতি-নীতিকে বৃ্দ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে, শিশু-নারীসহ সর্বস্তরের সকল পেশার মানুষকে মর্যাদাহীন করে এমন এক সমাজ ব্যবস্থার প্রচলণ করে যেখানে মুনাফাই হচ্ছে একমাত্র ঈশ্বর। আর সবই নগণ্য, তুচ্ছ, গোলাম মাত্র। সময়ের বিবর্তনে ব্যবসার প্রতি আমার নেতিবাচক মনোভাব খুব নিরবে ঘৃণায় পরিণত হয়। নিজের মূল্যবোধের সাথে নিজের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার এই নৈতিক দ্বন্দ্ব ভীষণ যন্ত্রনার সৃষ্টি করে আমার মনে। আমি পরিত্রাণের পথ খুঁজতে থাকি। পালাতে চাই, পারি না।
 
পড়াশোনা শেষে জীবনের প্রয়োজনে এক সময় শিক্ষকতা শুরু করি। দেখতে দেখতে কেটে যায় চৌদ্দ বছর। কিন্তু আজও আমি উত্তর খুঁজে বেড়াই। আজও কোন ক্লাসে পড়ানোর সময় ভেতরে ভেতরে কুণ্ঠিত হয়ে পড়ি। আজও বিভিন্ন কোম্পানির বল্গাহীন লোভী কর্মকাণ্ড প্রতিদিন টিভিতে-পত্রিকায়-ম্যাগাজিনে-বিলবোর্ডে-ইন্টারনেটে দেখে পড়ে শুনে অসুস্থ বোধ করি। ভাবতে থাকি এর শেষ কোথায়?
 
লাভের বাণিজ্য ধীরে ধীরে আমাদের লোভের বাণিজ্যের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। ব্যবসা করলে লাভ হবে এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু লাগামহীন লাভের পিছে ছুটে চলা তো মানুষকে লোভী প্রাণীতে পরিণত করে। তাহলে কি আমরা মানুষ-প্রকৃ্তি-সমাজ সব ভুলে শুধুই অন্তহীন লোভের পিছে ছুটে চলবো? এটাই কি অন্টারপ্রিনিওরশীপ স্পিরিট? এর জন্যই কি দেশে এতো এতো আইন-কানুন! এজন্যই কি আমাদের এতো এতো পড়াশোনা, এতো এতো গবেষণা-পিএইচডি-প্রমোশন তৎপরতা?... আমি তা মনে করি না। যে ব্যবসা বা যে ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ড আমাদের লোভী প্রাণীতে রূপান্তর করছে প্রতিনিয়ত তাকে আমি ব্যবসা বলে মনে করি না। যে ব্যবসা বা যে ব্যবসায়িক কর্মকাণ্ড দেশ-জাতি-ধর্ম-মানবিকতা-সমাজ-সভ্যতা-মানুষ-প্রকৃ্তি'র তোয়াক্কা করে না তাকে আমি সমর্থন করি না। এদের বিরুদ্ধে কথা বলা আমাদের নৈতিক ও মানবিক দায়িত্ব...।

41
"৫০ বছর ধরে বাংলাদেশের নারীদের সৌন্দর্যচর্চার সঙ্গী হয়ে আছে লাক্স।" - কথাটা দিয়ে শুরু হয়েছে ফিচারটি। পড়তে গিয়ে খটকা লাগলো মনে। কতো বছর ধরে লাক্স ব্যবহার করছি ঠিক মনে নাই। কখনো ভাবি নাই যে লাক্স শুধু মেয়েদের ব্র্যান্ড। এতো দিন পরে এসে জানতে পারলাম যে লাক্স "নারীদের সৌন্দর্যচর্চার সঙ্গী।" প্রথমে ভেবেছিলাম যে এটা প্রতিবেদকের অতি উৎসাহের ফল। পুরো প্রতিবেদন পড়ে আমার ভুল ভাঙলো। এটা প্রতিবেদকের কোন ভুল নয়। বরং ফিচারের শেষে এসে দেখা গেলো খোদ কোম্পানির পক্ষ থেকেই ব্যাপারটাকে খোলাসা করা হয়েছে - "ইউনিলিভার বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্র্যান্ড বিল্ডিং ডিরেক্টর, পারসোনাল কেয়ার জাভেদ আক্তার বলেন, ‘গত ৫০ বছরে লাক্স বাংলাদেশের নারীদের জন্য শুধু সবচেয়ে প্রিয় সাবানই নয়, হয়ে উঠেছে বিউটি এবং গ্ল্যামারের আরেক নাম।'..."

তাহলে বোঝা গ্যালো যে লাক্স একটা "ফিমেল ব্র্যান্ড"। আর বুঝে হোক বা না বুঝে হোক আমার মতো অনেক ছেলে/পুরুষ লাক্স ব্যবহার করছে এবং এক কথায় প্রতারিত হচ্ছে। এতোটুকুই শুধু নয়। একটু খোঁজ নিয়ে দেখা গ্যালো যে পরিস্থিতি আসলে এর চেয়ে আরও খারাপ। বাংলাদেশের বাজারে পাওয়া যায় এমন প্রায় সব বিউটি সোপই (গায়েমাখা সাবান) এক কথায় "ফিমেল ব্র্যান্ড"। তাহলে ছেলে/পুরুষরা কোন সাবান ব্যবহার করবে? আর 'বিউটি' বা 'গ্ল্যামার' শব্দগুলো কি ফেমিনিন জেন্ডারবাচক?

আসলে লাভের নেশায় মত্ত এসব কোম্পানি যে প্রতারণার মায়াবী জালে আমাদের আচ্ছন্ন করে রেখেছে এক শব্দে তার নাম 'ধোকাবাজি' যার ইংরেজি প্রতিশব্দ 'Branding' বা 'Marketing' বললে কি খুব বেশি ভুল বলা হবে?...



http://www.prothom-alo.com/life_style/article/214834/বাংলাদেশে_লাক্সের_৫০_বছর

42
Faculty Sections / Re: সোনালি আঁশে রঙিন
« on: May 07, 2017, 04:40:41 PM »
Good news indeed!

43
Thanks for the information!

44
We all know that in our country, with few exceptions, university teachers are merely academic persons who live in a bookish world. On the other hand, most of the practitioners do not care about the latest theoretical developments. As a result none of these two groups is able to create a positive change in our higher education. That is why we need to focus on the new concept – ‘pracademic’ which is getting popular in the western world in recent times.  A ‘pracademic’ is someone who is both an academic and an active practitioner in their subject area.

The idea of the ‘pracademic’ has become a special type of teaching style for Young Entrepreneurs. A ‘pracademic’ degree is taught by active practitioners who have updated theoretical knowledge to students who want to be entrepreneurs. However, the concept is equally applicable in other fields of study e.g. medical science, engineering, business administration, performing arts, mass communication and journalism etc.
 
It is mentionable that now-a-days, in the western society, many academics describe themselves as ‘pracademics’ on their web sites. We also need to transform our academics into ‘pracademics’.

Through this “Transitional Learning Model” we will surely be able to create a positive change in the higher education industry of our country. For that we need to redefine the philosophy of higher education, and redesign our syllabus, exam format, teaching methodology, and teachers’ development programs radically.

Can we dream to transform our academics, our bookish faculty members, into ‘pracademics’?

45
On this episode, Entrepreneur Network partner Mark Fidelman interviews Konica Minolta North American CEO Rick Taylor about the release of new product Workplace Hub, which uses technology to create IT solutions. Taylor and Fidelman break down how the product came about, what problems it solves and how Konica Minolta received customer input during the process.

Source: https://www.entrepreneur.com/video/293701

Pages: 1 2 [3] 4 5