Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - Md. Abul Bashar

Pages: 1 2 [3] 4 5 ... 9
31
How changing what you eat could reduce your stress
What you eat could improve how your body responds to stress, according to experts. Introducing some new foods while cutting back on others may reduce the impact stress has on your body and day-to-day life. Here are four dietary changes designed to help you handle stress better.

Eat more fruit and veg

As well as feeding you, the food you eat feeds the trillions of bacteria that live in your gut. Some studies find regulating gut bacteria via diet can have a positive impact on anxiety symptoms. The amount and types of bacteria in your gut are affected by your diet, and good dietary choices can “communicate calm to the brain”, according to Dr Rangan Chaterjee.

“The cheapest and simplest thing you can do to diversify and optimise the 'good' bacteria in your gut is to increase the variety of foods you eat.... Try to eat five different coloured vegetables every day”, says Dr Chaterjee. That’s because “minimally processed wholefoods – fibre” are best for your gut bacteria.

How does it work? The body cannot digest some fibre, including that found in many fruits and vegetables, so it’s fermented in the gut. Here it supports the growth of helpful microbes. As part of the fermentation process, the bacteria release essential chemicals and acids that interact with all the cells in your body. This interaction influences brain and immune health, according to Felice Jacka, Head of the Food and Mood Centre at Deakin University in Australia.

Jacka recommends eating foods from the Mediterranean diet, such as “fruit, vegetables, legumes and wholegrains, which all contain plant fibre”. She says fermented foods such as sauerkraut, kimchi, kombucha and kefir can nurture bacteria and yeasts in the gut, as well as being good for your wider health.

Step away from the sugar
If your idea of dealing with stress is downing a pint of ice cream, you’re probably familiar with the concept of a 'sugar high', and possibly the 'crash' that comes afterwards. When you eat lots of sugar, your body releases insulin to absorb the excess glucose and regulate your blood-sugar levels. This journey of ups and downs may have negative side-effects, such as lack of concentration and tiredness, which can “hinder your ability to cope with stressful situations”, according to dietitian Sophie Medlin.

Work out when you've had enough caffeine
Positive and negative effects of caffeine on anxiety have been recorded. Most studies are based on research done with people already diagnosed with anxiety, but dietician Medlin says the results can often be applied to people suffering from everyday stress.

“The way you react may depend on your genetic sensitivity to caffeine, your gender and how much you drink, as well as existing anxious feelings”, says Medlin. Drinking caffeine can affect your sleep, which may impact the way you deal with stress. If drinking or eating caffeine negatively affects you, it’s a good idea to switch to decaf (although do this slowly, as caffeine withdrawals are no joke!).

Don’t mix hunger and stress
“Never go into any stressful situation hungry... we’ve long recognised that hunger leads to irritability”, says Medlin. When you’re hungry, your blood sugar drops and your cortisol and adrenaline – those fight-or-flight hormones – rise. This is because the neuropeptides, secreted by neurons to control the chemicals in the brain, are the same for hunger as for anger. “Your body is pretty much still a caveman”, says Medlin. This explains why we often become irritable when peckish.

Adding 'hanger' to a stressful situation can enhance negative emotions. Have a few healthy snacks at hand to keep hunger pangs at bay, especially if you’re expecting a trying day.

32
Parents Guidance / What leader are you? It depends on your parents
« on: April 07, 2020, 12:48:31 PM »
What leader are you? It depends on your parents
Your parents’ good intentions might have undermined your confidence – but you can do something about it.

You’ve probably noticed how some of your colleagues take to leadership roles like a duck to water. They’re confident telling others what to do, and happy taking on an ever-growing number of responsibilities. It couldn’t be more different for others: bossing around people feels awkward, and a nagging self-doubt shadows every decision.

If you’re in the latter group, you might wonder why the thought of being a leader fills you with dread, and why you find it so hard to even see yourself as a manager.

As with almost any aspect of human nature, some of the answer comes down to your genetically inherited disposition. If your parents were shrinking violets, the odds are increased that you will be too. But that’s far from the whole story. Increasingly, psychologists are realising the important part that early life experiences play. And key here is the way your parents behaved toward you.
In particular, if they were overly protective they might have undermined your chances of becoming a future leader. Colloquially, this parenting approach is known as ‘helicopter parenting’ in reference to the idea of hovering nearby whether needed or not.

Your parents likely had good intentions, such as ensuring you didn’t face uncomfortable challenges. Unfortunately this might have had some inadvertent, unhelpful effects, including “making you less confident and less capable of facing difficulties, therefore [leading you to] exhibit poorer leadership skills”, says Dr Judith Locke, a clinical psychologist in private practice and visiting fellow at Queensland University of Technology.

Locke’s research has involved surveying parenting professionals, including psychologists and school counsellors, to establish exactly what they mean by helicopter parenting or overparenting.
Her findings suggest this is an approach characterised by a mixture of three factors: being extremely responsive to the child, being extremely undemanding in some contexts, yet being highly demanding in others. For instance, a helicopter parent is likely to be overprotective, overly attentive and believe their child is always right. They will try to do everything for their child (rather than expecting the child to handle it themselves), and might expect their child’s peers and school to bend over backwards to accommodate their child’s needs too. At the same time, this kind of parent will be highly demanding, in the sense of having high expectations for their child’s achievements, overscheduling their child’s time and wanting their child to be their friend and in constant contact.

Supervised into submission

The latest research on how this extreme coddling can stifle leadership skills comes from China. Psychologists surveyed nearly 1,500 teenagers – average age 14 – at 13 schools in Beijing. Yufang Bian at Beijing Normal University and her colleagues assessed the teenagers’ leadership potential comprehensively. First they quizzed the teenagers’ peers, teachers and parents to get a sense of whether they were seen by others as being a good leader. Second, they checked whether the teenagers were actually in any leadership roles, such as being a team leader in a class science group or a president in a student club.
Meanwhile, the teenagers rated how much their parents had been overprotective by agreeing or disagreeing with statements such as ‘My parents supervised my every move growing up’ and ‘My parents often stepped in to solve life problems for me’. The teens also took quizzes measuring their self-esteem and how confident they felt about being a leader.
After controlling for the influence of a number of other factors, such as family socioeconomic background and the teenagers’ academic achievements, Bian and her team found a clear pattern. The more overprotective their parents, the less the teens were perceived as having leadership potential by others, and the less likely they were to actually be in leadership roles. Statistically, this link was explained by the fact that the teens with helicopter parents tended to have lower self-esteem, which in turn was associated with being less confident about being a leader.
Bian and her team said their findings support the idea that too much of a good thing can be harmful: “In the same way that a lack of proper parenting harms a child’s development, overparenting, with its restriction of the child’s development of autonomy and problem-solving skills, also has a negative impact on psychosocial development.”

Overparenting may also create this undermining effect because it signals to children that they are not capable of independence and that their parents don’t trust them to look after themselves, let alone others.
It is worth mentioning that these new findings should be interpreted with caution because the observational design of the study means it hasn’t proved that helicopter parenting causes a lack of emerging leadership potential. The research relies on teenagers retrospectively recalling their parents’ behaviour, and it’s possible that teens with lower self-esteem might be tempted to rate their parents unfavourably as a way to explain their current feelings. However, the results are consistent with a causal interpretation and the researchers build on a wealth of earlier research, which has consistently shown the apparent detrimental effects of having overprotective parents, albeit that these studies have also featured an observational design.

For instance, psychologists at Florida State University surveyed nearly 500 undergraduates and found that those who had helicopter parents also tended to be less confident in their own abilities. A different team at Miami University quizzed hundreds of undergraduates and found similar results. Those who described having helicopter parents also tended to have more emotional problems, struggled with making decisions and performed worse in their exams.

Your future as a leader

If you run a mile from leadership opportunities and recognise the description of having helicopter parents, you don’t have to accept that you’ll never be a leader or exhibit qualities of one.
“Many readers will have parents still wanting to be highly involved in their lives. Work out a way where you manage your own life more and cease to rely on your parents as much,” she says. Of course, these changes on their own won’t transform you into a leader, but they will help you to see yourself as independent and to be more comfortable making autonomous decisions, which will serve you well if and when leadership opportunities arise in your career.   

You can also make changes at work, including trying to be more open to criticism, and being proactive in seeking feedback. “My work shows that those who have been overprotected have often been overpraised as a matter of course, and don’t cope as well with constructive criticism,” says Locke. “For you to improve you need to be open to suggestions of what you need to do to progress.”

It won’t happen overnight, but through practising being more independent and taking the time and effort to build your emotional and decision-making skills, you will find that you can slowly build your confidence – and even start to see yourself as a potential boss.
First, remember your parents’ approach was likely well intentioned, and you won’t benefit from feeling resentful. You’re in control now and, with dedication and effort, it’s possible to shape your own traits and attitudes at any time of life.

Locke, who is also the author of The Bonsai Child (a parenting book to help parents develop their child’s potential by not overparenting), recommends beginning to take more control over your own life, including being more financially independent if you can, and avoiding the temptation to call your parents each time you have a problem.

33
করোনাভাইরাস: চা, কফি বা গরম পানি খেয়ে কি ভাইরাস দূর করা যায়?

করোনাভাইরাস থেকে কীভাবে নিরাপদে থাকা যায়, তা নিয়ে অনেক ধরণের পরামর্শ ভেসে বেড়াচ্ছে ইন্টারনেটে। বিবিসি ফিউচার যাচাই করে দেখেছে যে, এসব পরামর্শের পেছনে আসলেই কোন বাস্তবতা রয়েছে কিনা:

এক কাপ গরম পানীয় হয়তো কিছুটা স্বস্তি বা আরামবোধ তৈরি করতে পারে, বিশেষ করে ঠাণ্ডা একটা দিনে।

হয়তো বিক্ষিপ্ত মনকে কিছুটা ঠাণ্ডা করতে পারে, অন্য মানুষজনের কাছাকাছি অনুভব করার বোধ তৈরি করতে পারে।

কিন্তু করোনাভাইরাস বা কোভিড-১৯ এর মতো কঠিন সময়ে কি এটি কোন সহায়তা করতে পারে?

সামাজিক মাধ্যম এবং ব্যক্তিগত যোগাযোগ বার্তাগুলোয় এখন এ ধরণের অনেক দাবি, পরামর্শ ঘুরে বেড়াচ্ছে।

স্বাস্থ্য সম্পর্কিত যেসব ভুয়া বার্তা ঘুরে বেড়াচ্ছে এগুলো তারই অন্যতম।

একটিতে দাবি করা হয় যে, গরম পান পান করলে করোনাভাইরাস থেকে মুক্ত থাকা যেতে পারে।
ই বার্তা এতোটাই ছড়িয়ে পড়ে যে, ইউনিসেফ এ বিষয়ে একটি বিবৃতি জারি করতে বাধ্য হয় যে, এরকম কোন ঘোষণা তারা দেয়নি।

যুক্তরাজ্যের কার্ডিফ বিশ্ববিদ্যালয়ের বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ রন একেলিস বলেছেন, ‘’গরম পানীয় ভাইরাসের বিরুদ্ধে সুরক্ষা দিতে পারে, এমন কোন প্রমাণ এখনো পাওয়া যায়নি।‘’

ঠাণ্ডা এবং ফ্লুতে ভোগার সময় ঠাণ্ডা পানি খেলে কি ঘটে, তা নিয়ে অতীতে গবেষণা করেছেন একেলিস।

তিনি দেখতে পেয়েছেন যে, ঠাণ্ডা লাগলে গরম পানীয় হয়তো খানিকটা স্বস্তি দিতে পারে।

এর কারণ হয়তো গরম পানীয় মুখ ও নাকের লালা এবং শ্লেষ্মা এর নিঃসরণ বাড়িয়ে দিতে পারে, যা প্রদাহ কমিয়ে দিতে পারে।

কিন্তু তিনি এটাও তবে তিনি এই সিদ্ধান্তেও পৌঁছেছিলেন যে এর মধ্যে হয়তো রোগী গ্রহণ করা কিছু ওষুধের মানসিক প্রভাবও থাকতে পারে।
ন্তু যেসব কারণে সংক্রমণ হয়ে থাকে, সেই ভাইরাস মুক্ত করতে পারে না গরম কোন পানীয়।

সার্স-কোভ-২, যে করোনাভাইরাস কোভিড-১৯ রোগের জন্ম দিয়েছে, সেটির ক্ষেত্রে বিবিসি ফিউচার পরীক্ষা করে দেখতে পেয়েছে যে, নতুন ধরণের এই করোনাভাইরাসের বিপক্ষে কোন ধরণের প্রতিরক্ষাই দিতে পারে না খাবার পানি।

পানি খেলে বা গার্গল করলেও এই ভাইরাস ধুয়ে যায় না।

অন্য ব্যক্তিদের কাশি বা হাঁচির মাধ্যমে ক্ষুদ্র আকারে এটি নাক বা মুখ দিয়ে শরীরে প্রবেশ করার পর মানুষজনকে সংক্রমিত করে থাকে।

প্রথমত এটি মানুষের ফুসফুসের কোষগুলোকে আক্রমণ করে। সেখানকার কোষগুলো এমন একটি এনজাইম ব্যবহার করে, যা ব্যবহার করে ভাইরাস ফুসফুসের ভেতরে প্রবেশ করে।

শ্বাসের সঙ্গে সঙ্গে এসব ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র ফোঁটা ফুসফুসের গভীরে পৌঁছে যায়- যেখান মুখ থেকে যাওয়া যেকোনো তরল পৌঁছানো সম্ভব।

গরম পানির গার্গলে গলার ভেতরের ভাইরাস মেরে ফেলা যায় না

একবার শরীরে প্রবেশ করার পর ভাইরাস খুব দ্রুত মানব শরীরের কোষের ভেতরে চলে গিয়ে নিজের অনেকগুলো কপি করতে তৈরি করে।
ফলে এটিকে মুছে বা ধুয়ে ফেলার যেকোনো চেষ্টা থেকেই সেটা নিজেকে রক্ষা করতে পারে।

প্রথমদিকের কিছু গবেষণায় বলা হয়েছে যে, প্রথম কোষটি সংক্রমিত করার পরে অন্য কোষে ছড়িয়ে পড়তে ভাইরাসের প্রায় ৩০ ঘণ্টা সময় লাগে।

একইভাবে, আমাদের শরীরের কোষে প্রবেশ করার পর বাইরের যেকোনো রকম তাপমাত্রা থেকে ভাইরাসটি নিজেকে রক্ষা করতে পারে।

মানবশরীরের স্বাভাবিক তাপমাত্রা থাকে ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস (৯৮.৬ ডিগ্রি ফারেনহাইট), যা ভাইরাসের প্রতিলিপি তৈরি ও বিস্তারের জন্য আদর্শ।

ফলে গলার মধ্যে গরম পানির গড়গড়া করো কোষের ভেতরে থাকা ভাইরাস হত্যা করা যায় না।

এজন্য ৫৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা অথবা তার বেশি তাপমাত্রা দরকার, যা সার্সের মতো করোনাভাইরাস হত্যা করতে পারে।

অবশ্য কিছু পরীক্ষায় বলা হয়েছে যে, এই তাপমাত্রা হওয়া উচিত ৬০-৬৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের বেশি।

তবে যে ভাইরাসের কারণে কোভিড-১৯ সংক্রমণ হয়েছে, সেই ভাইরাসটি কত ডিগ্রি তাপমাত্রা পর্যন্ত টিকে থাকতে পারে, তা নিয়ে এখনো কোন গবেষণা প্রকাশিত হয়নি।

ধারণা করা হয়, এটি অন্য করোনাভাইরাসগুলোর মতোই হতে পারে।
ভাইরাস হত্যা করতে ৭০ ডিগ্রি বা তার চেয়ে বেশি তাপমাত্রায় রান্না করা যেতে পারে, কিন্তু এ ধরণে তাপে মানব ত্বক পুড়ে যাবে এবং ক্ষতের সৃষ্টি করবে।

অনেক ভুয়া পরামর্শে যেমন গরম পানিতে গোসল করতে বলা হয়।

কিন্তু এরকম পানির পানির পাত্রে নেমে বেশিক্ষণ টিকে থাকা কঠিন।

আর কেউ যদি সেরকম পানিতে টিকে থাকতেও পারেন, সেটা তার শরীরের ভেতরে থাকা ভাইরাস ধ্বংস করতে পারে না। এর কারণ হলো, আপনি বাইরে যত তাপমাত্রায় থাকুন না কেন, আপনার শরীর তার তাপমাত্রা ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসেই সীমাবদ্ধ রাখবে।

ফলে ভাইরাস হত্যা করতে গিয়ে বাইরের তাপমাত্রা বাড়িয়ে আপনি হয়তো আপনার শরীর পুড়িয়ে ফেলবেন এবং শরীরের মারাত্মক ক্ষতি করে ফেলবেন।

আপনার শরীরের ভেতরের তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়া মানে আপনার হার্ট অ্যাটাক হতে পারে।

এর চেয়ে বেশি তাপমাত্রা হলে আর তখন দ্রুত চিকিৎসা দেয়া না হলে, মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে।

অনেক ভুল পরামর্শে দাবি করা হয় যে, চায়ের মধ্যে বেশ কিছু উপাদান মিশ্রিত করা হলে সেটি কোভিড-১৯ ভাইরাসের বিরুদ্ধে সুরক্ষা দিতে পারে।

কিন্তু এর পক্ষে বিজ্ঞানসম্মত কোন প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

সুতরাং গরম পানীয়ের হয়তো অনেক ভালো দিক থাকতে পারে।

কিন্তু কোভিড-১৯ থেকে নিজেকে রক্ষার সবচেয়ে ভালো উপায় হলো সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিত করা, নিয়মিতভাবে সাবান ও পানি দিয়ে হাত ধোয়া এবং স্বাস্থ্য সম্পর্কিত সর্বশেষ নির্দেশাবলী অনুসরণ করা।

34
করোনাকালে পারিবারিক সহিংসতা হু হু করে বাড়ছে: গুতেরেস
বিশ্ব যখন করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক আবিষ্কারের চেষ্টাসহ নানাভাবে এটি মোকাবিলা করছে, তখন ভিন্ন একটি বিষয়ের প্রতি সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন জাতিসংঘের মহাসিচব আন্তোনিও গুতেরেস। সেটি হলো, এই দুর্যোগের সময় নারীর প্রতি পারিবারিক সহিংসতার ঘটনা হু হু করে বাড়ছে। যেখানে তাদের সবচেয়ে নিরাপদে থাকার কথা এই সময়ে, সেটি নারীদের জন্য বিভীষিকাময় হয়ে ওঠছে। করোনাভাইরাস মোকাবিলা কৌশলে এটিও যুক্ত করতে রাষ্ট্রগুলোর প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এক বিবৃতিতে জাতিসংঘের মহাসচিব এ আহ্বান জানিয়েছেন বলে আজ সোমবার বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়েছে। একাধিক ভাষায় সেই ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে। জাতিসংঘের মহাসচিব এই দুর্যোগকালে যুদ্ধবিরতির ঘোষণা দিতে বিবদমান পক্ষগুলোর প্রতি আবারও আহ্বান জানিয়েছেন।
জাতিসংঘের মহাসচিব বলেন, গত কয়েক সপ্তাহে অর্থনৈতিক ও সামাজিক চাপ বেড়েছে। মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বেড়েছে। সেই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে পারিবারিক সহিংসতার ঘটনা। সরকারগুলো করোনাভাইরাস মোকাবিলায় জাতীয় যে পরিকল্পনা নিচ্ছে, তাতে নারীর প্রতি পারিবারিক সহিংতা রোধের বিষয়টিও যেন থাকে।
জাতিসংঘের মহাসচিব ওষুধের দোকান ও মুদিদোকানগুলোতে জরুরি সতর্ক ব্যবস্থা চালুর ওপর জোর দেন, নারীরা যেন তাদের নির্যাতকদের এড়িয়ে রাষ্ট্রের কাছে জরুরি সেবা চাইতে পারেন। তিনি বলেন, 'করোনা মোকাবিলায় আমরা যেমন ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করছি, যেভাবে কাজ করলে আমরা যুদ্ধক্ষেত্র থেকে শুরু করে মানুষের বাড়ি পর্যন্ত সর্বত্র সহিংসতা ঠেকাতে পারব। বিশ্বব্যাপী ঘরে ঘরে শান্তির জন্য এটা আমাদের করতেই হবে।'

35

হাসপাতালে যাবেন কখন
ঋতু পরিবর্তনের এই সময়ে অনেকেরই সর্দি-কাশি, জ্বর হচ্ছে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থাকায় অনেকেই ভয় পেয়ে যাচ্ছেন। তবে ভয় না পেয়ে সতর্কতার সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবিলা করা জরুরি। একই সঙ্গে নিজের উপসর্গগুলো সতর্কভাবে লক্ষ করতে হবে।

যা লক্ষ করবেন
নভেল করোনাভাইরাস নতুন। তাই এখন পর্যন্ত তথ্য–উপাত্ত অনুযায়ী, করোনাভাইরাসের সংক্রমণে বেশির ভাগ রোগীর ক্ষেত্রে উপসর্গ হলো জ্বর ও শুকনো কাশি। কারও কারও ডায়রিয়াও হতে পারে। দুর্বলতা ও ক্লান্তও লাগতে পারে। শুধু এসব উপসর্গ থাকলে আপনার হাসপাতালে না গেলেও চলবে। গুরুতর কোনো উপসর্গ দেখা দিচ্ছে কি না, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

• লক্ষণ দেখা দেওয়ার প্রায় শুরু থেকেই প্রচণ্ড পেটব্যথা, শ্বাস নিতে কষ্ট, প্রচণ্ড ক্লান্তি আর তীব্র মাথাব্যথা থাকা উদ্বেগজনক।

• শ্বাসপ্রশ্বাসে সমস্যা, খাবার খেতে বা পানি পান করতে অসুবিধা। মিনিটে শ্বাসপ্রশ্বাসের হার নির্ণয় করুন। শ্বাসপ্রশ্বাসের গতি ২৪ থেকে ৩০ বার বা তার বেশি হলে সতর্ক হোন।

• প্রথম উপসর্গ দেখা দেওয়ার পর দ্বিতীয় সপ্তাহটি খুব গুরুত্বপূর্ণ। গবেষকেরা বলছেন, এ সময়ই হঠাৎ করে কারও কারও অবস্থার অবনতি ঘটে। তাই এক সপ্তাহ পার হয়ে যাওয়ার পর হঠাৎ শ্বাসকষ্ট, অসুস্থতা বা অসংলগ্নতা দেখা দিলে দেরি না করে কাছের সরকারি হাসপাতালে যান কিংবা সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) হটলাইন নম্বরে যোগাযোগ করুন।

• যাঁদের ডায়াবেটিস ও হৃদ্‌রোগ আছে, যাঁদের কিডনি ট্রান্সপ্লান্ট করা হয়েছে কিংবা কেমোথেরাপি নিচ্ছেন, তাঁরা করোনার সংক্রমণের ঝুঁকিতে রয়েছেন। যুক্তরাষ্ট্রের সিডিসি বলেছে, স্থূলতা, ফুসফুসের যেকোনো রোগে (যেমন হাঁপানি, ব্রংকাইটিস) ভুগছেন যাঁরা, তাঁরাও ঝুঁকিতে রয়েছেন। এ ধরনের ব্যক্তিদের অবশ্যই সতর্ক থাকতে হবে।

বাড়িতে যা করবেন

• করোনার উপসর্গ দেখা দিলে নিজেকে আর সবার থেকে আলাদা করে ফেলুন। আলাদা কক্ষ ও টয়লেট ব্যবহার করা ভালো। যদি তা সম্ভব না হয়, তাহলে মুখে মাস্ক পরুন, থালাবাটি আলাদা করুন। বিছানাও আলাদা করে ফেলুন।

• প্যারাসিটামল সেবন করতে পারেন। প্রচুর পানি পান করুন। গরম চা বা পানীয় পান করতে পারেন। জ্বরের জন্য জলপট্টি বা ঠান্ডা সেঁক দেওয়া যাবে।

• উপুড় হয়ে কিছুক্ষণ পাকস্থলীর ওপর চাপ দিয়ে শোবেন, আর ফুসফুস ভরে শ্বাস নেবেন। শ্বাসপ্রশ্বাস বাড়ানোর ব্যায়াম করুন।

• পুষ্টিকর খাবার খান। বিশ্রামে থাকুন।

• প্রতিদিন দিনে দুই-তিনবার শরীরের তাপমাত্রা, শ্বাসপ্রশ্বাসের হার নির্ণয় করে ছক করে লিখে রাখুন।

• পরিবারের সদস্য ও অন্যদের সঙ্গে বারবার যোগাযোগ করুন, নিজের সর্বশেষ পরিস্থিতি তাদের জানান।

মেডিসিন ও বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ


36

করোনা চিকিৎসায় জাপানি ওষুধ তৈরি করছে বেক্সিমকো ও বিকন

করোনাভাইরাস জনিত রোগের (কোভিড-১৯) চিকিৎসায় ব্যবহৃত জাপানি একটি ওষুধ তৈরি করে ফেলেছে বাংলাদেশের দুই ওষুধ উৎপাদনকারী কোম্পানি। কোম্পানি দুটি হলো বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস ও বিকন ফার্মা।

ওষুধটির জেনেরিক নাম ফ্যাভিপিরাভির। জাপানি কোম্পানি ফুজি ফিল্মের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান তোয়ামা কেমিক্যাল ইনফ্লুয়েঞ্জার চিকিৎসার জন্য এটি তৈরি করেছিল। তাদের ওষুধটির ব্র্যান্ড নাম অ্যাভিগান। চীন জানিয়েছে, ওষুধটি করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসায় বেশ কার্যকর।

অবশ্য জাপান এখনো করোনাভাইরাস আক্রান্তদের চিকিৎসায় ওষুধটির চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়নি। তারা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছে।


করোনাভাইরাস জনিত রোগের (কোভিড-১৯) চিকিৎসায় ব্যবহৃত জাপানি একটি ওষুধ তৈরি করে ফেলেছে বাংলাদেশের দুই ওষুধ উৎপাদনকারী কোম্পানি। কোম্পানি দুটি হলো বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস ও বিকন ফার্মা।

ওষুধটির জেনেরিক নাম ফ্যাভিপিরাভির। জাপানি কোম্পানি ফুজি ফিল্মের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান তোয়ামা কেমিক্যাল ইনফ্লুয়েঞ্জার চিকিৎসার জন্য এটি তৈরি করেছিল। তাদের ওষুধটির ব্র্যান্ড নাম অ্যাভিগান। চীন জানিয়েছে, ওষুধটি করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসায় বেশ কার্যকর।

অবশ্য জাপান এখনো করোনাভাইরাস আক্রান্তদের চিকিৎসায় ওষুধটির চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়নি। তারা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছে।

বাংলাদেশে ফ্যাভিপিরাভির ওষুধটি তৈরি করে রেখেছে বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস ও বিকন ফার্মা। বেক্সিমকো শুধু ফ্যাভিপিরাভির নয়, প্রচলিত যেসব ওষুধ করোনা চিকিৎসায় ব্যবহারের পরীক্ষা-নিরীক্ষা হচ্ছে, তার একটি বাদে সবগুলো তৈরি করছে। চাহিদা অনুযায়ী এসব ওষুধ তারা সরকারকে দেবে।


করোনাভাইরাস জনিত রোগের (কোভিড-১৯) চিকিৎসায় ব্যবহৃত জাপানি একটি ওষুধ তৈরি করে ফেলেছে বাংলাদেশের দুই ওষুধ উৎপাদনকারী কোম্পানি। কোম্পানি দুটি হলো বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস ও বিকন ফার্মা।

ওষুধটির জেনেরিক নাম ফ্যাভিপিরাভির। জাপানি কোম্পানি ফুজি ফিল্মের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান তোয়ামা কেমিক্যাল ইনফ্লুয়েঞ্জার চিকিৎসার জন্য এটি তৈরি করেছিল। তাদের ওষুধটির ব্র্যান্ড নাম অ্যাভিগান। চীন জানিয়েছে, ওষুধটি করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসায় বেশ কার্যকর।

অবশ্য জাপান এখনো করোনাভাইরাস আক্রান্তদের চিকিৎসায় ওষুধটির চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়নি। তারা পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছে।

বাংলাদেশে ফ্যাভিপিরাভির ওষুধটি তৈরি করে রেখেছে বেক্সিমকো ফার্মাসিউটিক্যালস ও বিকন ফার্মা। বেক্সিমকো শুধু ফ্যাভিপিরাভির নয়, প্রচলিত যেসব ওষুধ করোনা চিকিৎসায় ব্যবহারের পরীক্ষা-নিরীক্ষা হচ্ছে, তার একটি বাদে সবগুলো তৈরি করছে। চাহিদা অনুযায়ী এসব ওষুধ তারা সরকারকে দেবে।
Lifebuoy Soap

জানতে চাইলে ক্যানসারের ওষুধ তৈরির জন্য সুপরিচিত কোম্পানি বিকন ফার্মার ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ এবাদুল করিম প্রথম আলোকে বলেন, আমরা ফ্যাভিপিরাভির ওষুধটি তৈরি করে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরকে দিয়েছি পরীক্ষামূলক প্রয়োগের জন্য। ওষুধটির কার্যকারিতা পাওয়া গেলে বাণিজ্যিক উৎপাদন করা যাবে। তিনি বলেন, ওষুধটি মূলত ইবোলা ভাইরাসের চিকিৎসার জন্য জাপানের ফুজি তৈরি করেছিল। চীনারা এটি প্রয়োগ করে সুফল পায়। আমরা চীন থেকে অ্যাকটিভ ফার্মাসিউটিক্যালস ইনগ্রিডিয়েন্ট এনেছি।

এবাদুল করিম আরও বলেন, স্বল্পোন্নত দেশ হিসেবে বাংলাদেশের ওষুধ তৈরিতে মেধাস্বত্ব লাগে না।

সাউথচায়না মর্নিং পোস্ট গত ৪ এপ্রিল এক প্রতিবেদনে জানায়, জাপানের দুই প্রতিবেশি ফ্যাভিপিরাভির ওষুধের প্রয়োগ নিয়ে দ্বিমত পোষণ করছে। চীনারা এটির পক্ষে। অন্যদিকে দক্ষিণ কোরিয়া বলছে, ওষুধটির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া অনেক বেশি।
সাউথচায়না মর্নিং পোস্টের খবর অনুযায়ী চীনের ন্যাশনাল সেন্টার ফর বায়োটেকনলজি ডেভেলপমেন্টের পরিচালক ঝ্যাং জিনমিন ১৮ মার্চ বলেন, চীনের দুটি মেডিকেল ইনস্টিটিউশন ফ্যাভিপিরাভির প্রয়োগ করে দেখেছে, এটি করোনাভাইরাসজনিত কিছু লক্ষণ কমাতে কার্যকর। এর মধ্যে রয়েছে নিউমোনিয়া। এর বিশেষ কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। অন্যদিকে দক্ষিণ কোরিয়ার বিজ্ঞানীদের মতামত ভিন্ন। তারা বলছে, এটি বড় ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া তৈরি করতে পারে, যা মৃত্যুও ঘটাতে পারে।

সাউথচায়না মর্নিং পোস্ট জানায়, দক্ষিণ কোরিয়ার খাদ্য ও নিরাপদ ওষুধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় ফ্যাভিপিরাভিরের বদলে যুক্তরাষ্ট্রের একটি কোম্পানির তৈরি রেমডেসিভির নামের একটি ওষুধ করোনা চিকিৎসায় ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে। এটি ইবোলা ভাইরাস চিকিৎসার জন্য তৈরি করা হয়েছিল। তৈরি করেছিল যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষস্থানীয় ওষুধ কোম্পানি জাইলিড সায়েন্স।

বেক্সিমকো ফার্মার প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা রাব্বুর রেজা মনে করেন করোনাভাইরাসের চিকিৎসায় সবচেয়ে কার্যকর হতে পারে আইভারমেকটিন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, এটি সস্তা ও সহজলভ্য।
অস্ট্রেলিয়ার এবিসি নিউজের গতকাল শনিবারের এক খবরে বলা হয়, মোনাশ বায়োমেডিসিন ডিসকভারি ইনস্টিটিউট ও ডোহার্টি ইনস্টিটিউটের এক গবেষণায় জানানো হয়েছে, আইভারমেকটিন শরীরে করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে পারে। যদিও বিষয়টি একেবারেই পরীক্ষার পর্যায়ে রয়েছে।

বেক্সিমকো ফার্মার রাব্বুর রেজা বলেন, বিভিন্ন দেশ বিভিন্ন ওষুধ পরীক্ষা করছে। আমরা রেমডেসিভির বাদে সবগুলোই তৈরি করে মজুত করছি। যাতে যে কোনো একটি কার্যকর প্রমাণিত হলে এবং অনুমোদন দেওয়া হলে আমরা সরকারকে সরবরাহ করতে পারি। তিনি বলেন, আইভারমেকটিনের কাঁচামালও আনা হচ্ছে। এটি তৈরি করা হবে।

এসব ওষুধ ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের অনুমোদন নিয়েই তৈরি হচ্ছে বলে জানিয়েছে কোম্পানিগুলো। বেক্সিমকো ও বিকনের বাইরে আরও দু-একটি কোম্পানি ওষুধগুলো তৈরির অনুমোদন নিয়েছে। এর মধ্যে একটি জিসকা ফার্মাসিউটিক্যালস। জানতে চাইলে জিসকার ব্যবস্থাপনা পরিচালক আমিনুল ইসলাম খান বলেন, প্রয়োজন হলে আমরা ওষুধটি তৈরি করতে পারব।

Source: Prothom Alo

38

করোনার বিস্তার এপ্রিলের শেষে কমে যেতে পারে


প্রতীকী ছবিপ্রতীকী ছবিকরোনাভাইরাসের সংক্রমণ থামছেই না। এরই মধ্যে দ্বিতীয় দফায় করোনার সংক্রমণ ছড়ানোর বিষয়ে সতর্ক করলেন বিজ্ঞানীরা। চীনের উদাহরণ দিয়ে তাঁরা বলেছেন, দেশটি প্রথম ধাক্কা সামলে উঠেছে। কিন্তু সেখানে এখন আবার সংক্রমণ ছড়াতে শুরু করেছে। এ ছাড়া হংকং, সিঙ্গাপুর ও তাইওয়ানে প্রথম দিকে সংক্রমণ ততটা না ছড়ালেও এখন বাড়ছে। পরিস্থিতি মোকাবিলায় সামাজিক দূরত্বের নিয়মকানুন মেনে চলা এবং পরীক্ষার ওপর জোর দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।

বিজ্ঞানবিষয়ক সাময়িকী নেচারের অনলাইনে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এই সতর্কবার্তা দেওয়া হয়েছে।

অবশ্য চীনের শীর্ষস্থানীয় একজন শ্বাসতন্ত্রের রোগবিশেষজ্ঞ আশাবাদ ব্যক্ত করে বলেন, এপ্রিল মাসের শেষ নাগাদ এই মহামারির বিস্তার কমতে শুরু করবে।


হংকংভিত্তিক সংবাদমাধ্যম সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট জানায়, চীনের শীর্ষ শ্বাসতন্ত্রের রোগবিশেষজ্ঞ ঝং নানশান বলেছেন, ‘সব দেশই যেহেতু জোরদার ও কার্যকর পদক্ষেপ নিচ্ছে, কাজেই আমার বিশ্বাস, এপ্রিলের শেষ নাগাদ করোনা মহামারি নিয়ন্ত্রণে আসবে।’ করোনা মহামারি মোকাবিলায় চীনের সরকারকে পরামর্শদাতা বিশেষজ্ঞ দলের প্রধান ঝং নানশান। চীনের শেনজেন টেলিভিশনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি এই আশাবাদের কথা জানান। তবে তিনি সতর্ক করে বলেছেন, এপ্রিলের পর কী ঘটবে, তা কেউ বলতে পারে না। হতে পারে আগামী বসন্তে আরেক দফায় করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়াতে পারে, অথবা পরিবেশের তাপমাত্রা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে এটি বিলুপ্তও হয়ে যেতে পারে।

চীনের উহানে গত ৩১ ডিসেম্বর অজ্ঞাত কারণে মানুষের নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি শনাক্ত করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। গত ৯ জানুয়ারি নতুন ভাইরাসটির জিনোম সিকোয়েন্স করে চীনের বিজ্ঞানীরা জানান, এটি সার্স রোগ ছড়ানো সার্স-করোনাভাইরাসের গোত্রের। এর দুই দিনের মাথায় নতুন করোনাভাইরাসের সংক্রমণে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে। এরপর দ্রুতই ভাইরাসটি বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে। ১১ মার্চ একে বৈশ্বিক মহামারি ঘোষণা করে সংস্থাটি।

চীন সরকারের দেওয়া তথ্যমতে, মার্চের মাঝামাঝি সময় থেকে গোটা দেশে স্থানীয় সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আসতে শুরু করে। কিন্তু বিদেশফেরত ব্যক্তিদের মাধ্যমে এখন সংক্রমণ ছড়াচ্ছে। এই পরিপ্রেক্ষিতে চীনা কর্তৃপক্ষ বিদেশি নাগরিকদের দেশটিতে প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে। বিদেশফেরত চীনা নাগরিকদেরও বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের জনস হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয় করোনার সংক্রমণের সার্বক্ষণিক তথ্য প্রকাশ করছে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সেন্টার ফর সিস্টেমস সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের তথ্যমতে, গতকাল শুক্রবার পর্যন্ত চীনে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ছিল ৮২ হাজার ৫০৯। এর মধ্যে মারা গেছেন ৩ হাজার ৩২৬ জন। সুস্থ হয়েছেন ৭৬ হাজার ৭৬০ জন। ফেব্রুয়ারির ১২ তারিখে দেশটিতে এক দিনে সর্বোচ্চ নতুন রোগী শনাক্ত হন ১৪ হাজার ১০৮ জন। এরপর সংক্রমণ ধারাবাহিকভাবে কমতে থাকে। গত ১৮ মার্চ দেশটিতে প্রথমবারের মতো স্থানীয়ভাবে কোনো সংক্রমণ শনাক্ত হয়নি। পরপর কয়েক দিন নতুন করে কেউ শনাক্ত হয়নি। চীনে গতকাল নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৩১ জন। আরও মারা গেছেন ৪ জন।
চীন, হংকং, সিঙ্গাপুর ও তাইওয়ানে সংক্রমণ বাড়ছে বিদেশফেরত ব্যক্তিদের মাধ্যমে

নেচার সাময়িকীর অনলাইনে গত সোমবার প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, চীনে সংক্রমণ কমে আসায় এখন চলাচলের ওপর বিধিনিষেধ শিথিল করা হচ্ছে। মানুষ ঘর থেকে বের হচ্ছে, কাজে যোগ দিচ্ছে। এই অবস্থায় হংকংয়ের ইউনিভার্সিটি অব হংকংয়ের সংক্রামক ব্যাধি বিশেষজ্ঞ গ্যাব্রিয়েল লিউং মনে করেন, একবার লকডাউন বা অবরুদ্ধ করে এই ভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলা হয়তো সম্ভব নয়। করোনা রুখতে সর্বোচ্চ পর্যায়ের চেষ্টা চালাতে হবে। তিনি বলেন, একটা দেশের ৫০ থেকে ৭০ শতাংশ মানুষ আক্রান্ত হলে তাঁদের শরীরে এই ভাইরাস প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় অ্যান্টিবডি তৈরি হওয়ার কথা। এমনটা হলে ভাইরাসটি আবার ছড়িয়ে পড়া কঠিন হয়ে পড়বে। কিন্তু যে উহানে বিপুলসংখ্যক মানুষ আক্রান্ত হলেন, সেখানে কিন্তু সেরে ওঠা রোগীদের ৯০ শতাংশের বেশি আবার সংক্রমণের ঝুঁকিতে রয়েছেন। তার মানে, করোনা ঠেকাতে প্রতিষেধকই অন্যতম হাতিয়ার হতে পারে। কিন্তু প্রতিষেধক উদ্ভাবনে আরও এক বছরের মতো সময় লাগতে পারে।

যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অব সাউদাম্পটনের রোগবিশেষজ্ঞ অ্যান্ড্রু টাটেম বলেন, কড়াকড়ি শিথিল করলে কী ধরনের ঝুঁকি তৈরি হতে পারে, তা বুঝতে হংকং, সিঙ্গাপুর ও তাইওয়ানের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করতে হবে।

জনস হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্যমতে, হংকংয়ে গতকাল পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত রোগী ছিলেন ৮৪৫ জন। এ পর্যন্ত মারা গেছেন ৪ জন। তবে চীনের আধা স্বায়ত্তশাসিত এই অঞ্চলে নতুন সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। গতকাল নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ৪৩ জন। অথচ চীনের বাইরে যখন বিভিন্ন দেশে ব্যাপকভাবে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ছিল, সে সময়ও এই অঞ্চলে রোগীর সংখ্যা ছিল ১০০-এর কম। সাম্প্রতিক সময়ে তা বাড়তে শুরু করে। সিঙ্গাপুরে গতকাল পর্যন্ত সংক্রমিত রোগী ছিলেন ১ হাজার ১১৪ জন। এ পর্যন্ত মারা গেছেন ৫ জন। গতকাল নগররাষ্ট্রটিতে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৬৫ জন। এর আগের দিন অর্থাৎ বৃহস্পতিবার শনাক্ত হয়েছেন ৩৯ জন। পরিস্থিতি সামাল দিতে গতকাল দেশটির সরকার সামাজিক দূরত্বের নিয়মকানুন কঠোরভাবে মেনে চলার নির্দেশ দিয়েছে। বন্ধ করে দিয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও অফিস-আদালত।

তাইওয়ানের অবস্থা তুলনামূলক এখনো ভালো। তবে এখানেও সংক্রমণ বাড়ছে। জনস হপকিনস বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্যমতে, এই দেশে গতকাল পর্যন্ত সংক্রমিত রোগী ছিলেন ৩৪৮ জন। এ পর্যন্ত মারা গেছেন ৫ জন। গতকাল নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৯ জন।

হংকং, সিঙ্গাপুর ও তাইওয়ানের কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এই অঞ্চলগুলোতেও এখন সংক্রমণ ছড়াচ্ছে বিদেশফেরত ও ভ্রমণকারীদের মাধ্যমে। এ কারণে তিন অঞ্চলই আন্তর্জাতিক ভ্রমণকারীদের প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে। বিদেশফেরত নিজেদের নাগরিকদের বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের কোয়ারেন্টিনে রাখছে। এ বিষয়ে ইউনিভার্সিটি অব সাউদাম্পটনের অ্যান্ড্রু টাটেম বলেন, অতিসতর্ক অবস্থায় থাকতে হবে এবং অত্যন্ত নিবিড় পর্যবেক্ষণ ও নজরদারি চালাতে হবে। অবরুদ্ধ অবস্থা খুব ধীরে ধারাবাহিকভাবে শিথিল করতে হবে। না হলে সংক্রমণ আবারও ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

ইউনিভার্সিটি অব হংকংয়ের রোগতত্ত্ববিদ বেন কাওলিং বলেন, চীন সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে কড়াকড়ি আরোপ করেছিল। দ্রুততর সময়ে বেশ কয়েকটি হাসপাতাল নির্মাণ করেছে। এতেই থেমে থাকেনি তারা। ব্যাপকভাবে পরীক্ষা করেছে তারা। চিকিৎসাকর্মীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে মানুষের শরীরের তাপমাত্রা পরীক্ষা করেছেন। কারও জ্বর পেলেই তাঁকে অন্যদের থেকে আলাদা করে ফেলেছেন। তিনি বলেন, এই অতি তৎপরতার কারণেই তাঁরা ভাইরাসটি নিয়ন্ত্রণে আনতে পেরেছেন। অন্য দেশগুলোও এখন চীনকে অনুসরণ করছে। তবে চীন যেভাবে কাজটা করেছে, তারা সেভাবে পারছে না। কাওলিং বলেন, ‘আমাদের দ্বিতীয় দফায় সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার বিষয়ে এখনই সতর্ক হতে হবে।’

39
করোনাভাইরাস: গরম আবহাওয়ায় কি কোভিড-১৯ বিস্তার লাভ করতে পারে?

অনেকে আশা করছেন যে, তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলে করোনাভাইরাসের বিস্তার কমে যাবে। কিন্তু মৌসুমি রোগের প্রাদুর্ভাবের ক্ষেত্রে যা কাজ করে, মহামারির ক্ষেত্রে অনেক সময় তা প্রযোজ্য হয় না। এ বিষয়ে আরও জানার চেষ্টা করেছে বিবিসি ফিউচার:

অনেক সংক্রমণ রোগের প্রকোপ মৌসুম বা ঋতু পরিবর্তনের সঙ্গে কমে যায়। অনেক ইনফ্লুয়েঞ্জা শীতের মৌসুমে দেখা দেয়, যেগুলো গরম শুরু হলে চলে যায়। আবার টাইফয়েডের মতো অনেক রোগের শীর্ষ সময় গ্রীষ্ম।

সুতরাং অনেক মানুষ এখন জানতে চাইছেন, কোভিড-১৯ বা নতুন ধরণের করোনাভাইরাসের ক্ষেত্রেও তাই ঘটবে কিনা।

এই ভাইরাসের সংক্রমণ চীনে গতবছরের মধ্য ডিসেম্বর নাগাদ শুরু হয়েছিল, যখন সেখানে শীত চলছিল। তখন অনেকেই আশা করতে শুরু করেছিলেন যে, গ্রীষ্মকাল শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে করোনাভাইরাসের প্রকোপও কমে যাবে।

কিন্তু এখন অনেক বিশেষজ্ঞ এ ধরণের মতামতের বিরুদ্ধে সতর্কবাণী জানাচ্ছেন।
তাদের এ ধরণের সতর্কবাণীর পেছনে যুক্তিও রয়েছে।

কোভিড-১৯ রোগ সৃষ্টিকারী ভাইরাস, যার আনুষ্ঠানিক নামকরণ করা হয়েছে সার্ক-কোভ-২, একেবারেই নতুন ধরণের একটি ভাইরাস যেটি সম্পর্কে খুব কম তথ্য-উপাত্ত রয়েছে। এটা ঋতুর সঙ্গে কতটা বদলাতে পারে, শুধুমাত্র তাপমাত্রা নয়, মানুষের আচরণ, তাদের মেলামেশা, একটি স্থানে কতো মানুষ অবস্থান করছে, এরকম আরো কিছু বিষয়ের ওপর ভাইরাসে বিস্তার নির্ভর করে।

২০০৩ সালে ছড়িয়ে পড়া সার্স ভাইরাস খুব তাড়াতাড়ি ঠেকিয়ে দেয়া সম্ভব হয়েছিল, ফলে আবহাওয়ার পরিবর্তন সেটার ওপর কতটা প্রভাব ফেলে, সেই তথ্য জানা সম্ভব হয়নি।

তবে আবহাওয়া পরিবর্তনের ফলে কোভিড-১৯ পরিবর্তিত হয় কিনা, সেই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে মানব শরীরে সংক্রমিত হওয়া অন্য করোনাভাইরাসগুলোর মধ্যে বেশ কিছু সূত্র রয়েছে।
ইউনিভার্সিটি অফ এডিনবরার সেন্টার ফর ইনফেকশাস ডিজিজেস এর পক্ষে কেট টেম্পলটনের চালানো একটি গবেষণায় দেখা গেছে ফুসফুসে সংক্রমিত হয়, এমন তিনটি করোনাভাইরাস বিশেষভাবে শীতকালেই সংক্রমিত হয়েছে। এসব ভাইরাসের ডিসেম্বর থেকে এপ্রিল মাসের মধ্যেই বিস্তার দেখা গেছে। আরেকটি ভাইরাসের ক্ষেত্রে কিছুটা বিক্ষিপ্ত প্রবণতা দেখা গেছে।

কোভিড-১৯ এর ক্ষেত্রে আগে ধারণা করা হচ্ছিল এটাও হয়তো ঋতু ভিত্তিক একটি ভাইরাস। যেভাবে নতুন ভাইরাসটি বিশ্বব্যাপী বিস্তৃত হয়েছে, তাতে এটা ঠাণ্ডা এবং শুষ্ক আবহাওয়া পছন্দ করে বলেই ধারণা করা যায়। যদিও উষ্ণ কয়েকটি দেশেও এর বিস্তার দেখা গেছে।

বিভিন্ন আবহাওয়ার বিশ্বের ৫০০ স্থান নিয়ে অপ্রকাশিত একটি বিশ্লেষণে দেখা গেছে যে, কোভিড-১৯ বিস্তারের ক্ষেত্রে ভাইরাস ও তাপমাত্রা, বায়ুপ্রবাহ এবং আর্দ্রতার সম্পর্ক রয়েছে। আরেকটি অপ্রকাশিত গবেষণায় দেখা গেছে, উচ্চ তাপমাত্রা কোভিড-১৯ রোগের বিস্তার কমাতে পারে।

তবে শুধুমাত্র তাপমাত্রা এই রোগের বিস্তারের ওপর প্রভাব ফেলে না।

আরেকটি অপ্রকাশিত গবেষণায় পূর্বাভাস দেয়া হয়েছে যে, নাতিশীতোষ্ণ উষ্ণ এবং ঠাণ্ডা জলবায়ু করোনাভাইরাসের জন্য বেশি ঝুঁকিপূর্ণ। বিশ্বের ক্রান্তীয় অংশ এতে কম আক্রান্ত হতে পারে।

কিন্তু এসব গবেষণার ক্ষেত্রে কয়েক ঋতু পর্যবেক্ষণ করে বাস্তব তথ্যের বদলে কম্পিউটার মডেলিংয়ের ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে গবেষকদের।

সমস্যা হলো, অনেক ক্ষেত্রে মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়া রোগগুলো অন্যান্য ঋতু ভিত্তিক রোগের মতো আচরণ করে না।

উদাহরণ হিসাবে বলা যায়, এর আগে সবচেয়ে বেশি মানুষ মারা যাওয়া মহামারি স্প্যানিশ ফ্লু গ্রীষ্মকালে সবচেয়ে বেশি বিস্তার হয়েছিল।

 করোনাভাইরাসের ওপর আবহাওয়ার প্রভাব আছে কিনা, তা জানতে এখন বেশ কয়েকটি গবেষণা চলছে

ক্যারোলিনস্কা ইন্সটিটিউট অফ স্টকহোমের ইনফেকশাস ডিজিজ কন্ট্রোলের অধ্যাপক জ্যান আলবার্ট বলেছেন, ''এখন সবচেয়ে বড় প্রশ্ন হলো, ঋতু পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে এই ভাইরাসটির ওপর তার প্রভাব পড়ে কিনা। আমরা নিশ্চিতভাবে সেটা জানি না, কিন্তু আমাদের মনে হচ্ছে যে, এটা হতে পারে।''

কেন সেটা আশা করছেন বিজ্ঞানীরা?

করোনাভাইরাস এমন একটি গোত্রের সদস্য যাদের বলা হয় 'এনভেলপড ভাইরাস'। এর মানে হলো, এই ভাইরাসের চারপাশে প্রোটিনের তৈরি একটা তৈলাক্ত আস্তরণ থাকে, যাকে বলা হয় লিপিড বাইলেয়ার।

এ ধরণের অন্য ভাইরাসগুলোর ক্ষেত্রে দেখা গেছে যে, এরকম আবরণ থাকায় শরীরের বাইরে, মুক্ত পরিবেশে থাকা থাকা অবস্থায় উষ্ণ বা উচ্চ তাপমাত্রার আবহাওয়ায় ভাইরাস দুর্বল হয়ে যায়।

অন্যদিকে ঠাণ্ডা আবহাওয়ায় সেটি আরও টেকসই হয়ে ওঠে। রান্না করা মাংস ঠাণ্ডা করা হলে যেমন চর্বির একটা আস্তর তৈরি হয়, অনেকটা তেমন।

এ কারণেই তাপমাত্রা যত বাড়ে, মুক্ত পরিবেশে করোনাভাইরাসের বিস্তার ততো কমতে থাকে।

গবেষণায় দেখা গেছে, সার্স-কোভ-২ ভাইরাস প্লাস্টিকের মতো শক্ত আবরণের ওপর ২১-২৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় এবং ৪০ শতাংশ আর্দ্রতায় ৭২ ঘণ্টা পর্যন্ত টিকে থাকতে পারে।

অন্যান্য তাপমাত্রায় কোভিড-১৯ ঠিক কতক্ষণ টিকে থাকতে পারে এবং কী ধরণের আচরণ করে, তা নিয়ে এখনো পরীক্ষা নিরীক্ষা চলছে।

তবে অন্যান্য করোনাভাইরাসের ওপর চালানো পরীক্ষা থেকে জানা যাচ্ছে, কম তাপমাত্রায়, অর্থাৎ চার ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় মুক্ত পরিবেশে এগুলো ২৮ দিন পর্যন্ত টিকে থাকতে পারে।
২০০৩ সালে সার্স ভাইরাসের ওপর চালানো একটি পরীক্ষায় দেখা গেছে, ঠাণ্ডা, শুষ্ক তাপমাত্রায় এটি ভালোভাবে টিকে থাকতে পারে। যেমন শক্ত আবরণের ওপর ২২ থেকে ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে ওই ভাইরাস পাঁচদিন পর্যন্ত টিকে থাকতে দেখা গেছে।

তাপমাত্রা ও আর্দ্রতা যত বেড়েছে, মুক্ত পরিবেশে ভাইরাসের আয়ুষ্কাল ততো কমেছে।

স্পেনের ন্যাশনাল মিউজিয়াম অফ ন্যাচারাল সায়েন্স ইন মাদ্রিদের গবেষক মিগুয়েল আরাজো বলছেন, ''মানব শরীরের বাইরে ভাইরাসের ক্ষেত্রে জলবায়ু একটা গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার। যতক্ষণ ভাইরাস মুক্ত আবহাওয়ায় টিকে থাকতে পারবে, ততক্ষণ সেটা অন্যদের সংক্রমিত করতে পারবে এবং মহামারি হয়ে উঠতে পারবে।''

তিনি বলছেন, করোনাভাইরাসের বিশ্বব্যাপী বিস্তার পর্যালোচনা করলে দেখা যাবে, প্রধানত ঠাণ্ডা এবং শুষ্ক আবহাওয়ায় সেটির বিস্তার বেশি হয়েছে।

তিনি বিশ্বাস করেন, তাপমাত্রা ও আর্দ্রতার সঙ্গে যদি আগের করোনাভাইরাসগুলোর মতো কোভিড-১৯ একই আচরণ করে, তাহলে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানের আবহাওয়ার সঙ্গে তাল রেখে তার বিস্তারের পার্থক্য হবে। তবে এ ক্ষেত্রে মানুষের আচরণও অনেক ক্ষেত্রে ভুমিকা রাখবে।

''তবে সবক্ষেত্রে একই রকম দেখা যাবে না। কারণ একজনের শরীর থেকে আরেকজনের শরীরে এই ভাইরাস ছড়িয়ে থাকে। ফলে যেসব স্থানে বেশি মানুষ থাকবে, তারা যত বেশি মেলামেশা করবে, সেখানে সংক্রমণের হারও বেশি হবে। ''

যদিও ঠাণ্ডা আবহাওয়ার দেশগুলোয় ভাইরাসের বিস্তার বেশি দেখা গেছে, কিন্তু গ্রীষ্মপ্রধান দেশগুলোতেও ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে।

তবে এশিয়ায় ভাইরাসের বিস্তার নিয়ে হার্ভাড মেডিকেল স্কুলের গবেষণায় দেখা গেছে, যতটা ভাবা হয়েছিল, ভাইরাসের ওপর আবহাওয়ার প্রভাব তার চেয়ে কম।
তারা বলছেন, চীনের জিলিন ও হেইলংজিয়াঙ্গ এর মতো ঠাণ্ডা এলাকায় যেমন ভাইরাসের বিস্তার দেখা গেছে, তেমনি গুয়াংজি এবং সিঙ্গাপুরের মতো গ্রীষ্মপ্রধান এলাকাতেও সেরকম বিস্তার দেখা গেছে। সুতরাং বসন্ত বা গ্রীষ্মের মতো আবহাওয়া এই কোভিড-১৯ রোগ সংক্রমণ ঠেকাতে ততটা কার্যকরী নয়।

ফলে তারা জনস্বাস্থ্য সতর্কতার বিষয়গুলো কার্যকরের ওপর বেশি গুরুত্ব দিয়েছেন।

কারণ হিসাবে বলছেন, ভাইরাসটি পরিবেশে কতক্ষণ টিকে থাকতে পারে, শুধু তার ওপর ভাইরাসের বিস্তার নির্ভর করে না। কোভিড-১৯ ভাইরাস যেমন মানুষ থেকে মানুষে ছড়িয়ে পড়ছে। সুতরাং মানুষের আচরণের ওপর ভাইরাসের বিস্তারের বিষয়টি অনেকাংশে নির্ভর করছে।

40
Coronavirus: How to protect your mental health

Coronavirus has plunged the world into uncertainty and the constant news about the pandemic can feel relentless. All of this is taking its toll on people's mental health, particularly those already living with conditions like anxiety and OCD. So how can we protect our mental health?

Being concerned about the news is understandable, but for many people it can make existing mental health problems worse.

When the World Health Organization released advice on protecting your mental health during the coronavirus outbreak, it was welcomed on social media.
As Anxiety UK's Nicky Lidbetter explains, the fear of being out of control and unable to tolerate uncertainty are common characteristics of many anxiety disorders. So it's understandable that many individuals with pre-existing anxiety are facing challenges at the moment.

"A lot of anxiety is rooted in worrying about the unknown and waiting for something to happen - coronavirus is that on a macro scale," agrees Rosie Weatherley, spokesperson for mental health charity Mind.

So how can we protect our mental health?

Limit the news and be careful what you read

Reading lots of news about coronavirus has led to panic attacks for Nick, a father-of-two from Kent, who lives with anxiety.

"When I'm feeling anxious my thoughts can spiral out of control and I start thinking about catastrophic outcomes," he says. Nick is worried about his parents and other older people he knows.

"Usually when I suffer I can walk away from a situation. This is out of my control," he says.

Having long periods away from news websites and social media has helped him to manage his anxiety. He has also found support helplines, run by mental health charities such as AnxietyUK, useful.

    Limit the amount of time you spend reading or watching things which aren't making you feel better. Perhaps decide on a specific time to check in with the news
    There is a lot of misinformation swirling around - stay informed by sticking to trusted sources of information such as government and NHS websites

Have breaks from social media and mute things which are triggering

Alison, 24, from Manchester, has health anxiety and feels compelled to stay informed and research the subject. But at the same time she knows social media can be a trigger.

"A month ago I was clicking on hashtags and seeing all this unverified conspiracy rubbish and it would make me really anxious and I would feel really hopeless and cry," she says.

Now she is careful about which accounts she tunes into and is avoiding clicking on coronavirus hashtags. She is also trying hard to have time away from social media, watching TV or reading books instead.

    Mute key words which might be triggering on Twitter and unfollow or mute accounts
    Mute WhatsApp groups and hide Facebook posts and feeds if you find them too overwhelming

Wash your hands - but not excessively

OCD Action has seen an increase in support requests from people whose fears have become focused on the coronavirus pandemic.

For people with OCD and some types of anxiety, being constantly told to wash your hands can be especially difficult to hear.
Image Copyright @LilyBaileyUK @LilyBaileyUK
Report

For Lily Bailey, author of Because We Are Bad, a book about living with OCD, fear of contamination was one aspect of her obsessive compulsive disorder. She says the advice about hand washing can be a huge trigger for people who have recovered.

"It's really difficult because I now have to do some of the behaviours that I've been avoiding," says Bailey. "I'm sticking to the advice really rigidly but it's hard, considering that for me, soap and sanitiser used to be something comparable to an addiction."

Charity OCD Action says the issue to look out for is the function - for example, is the washing being carried out for the recommended amount of time to reduce the risk of spreading of the virus - or is it being done ritualistically in a specific order to feel "just right"?
Image copyright Emma Russell

Bailey points out that for a lot of people with OCD, getting better means being able to leave the house - so self-isolating can present another challenge.

"If we're forced to stay at home, we have lots of time on our hands, and boredom can make OCD worse," she says.
Stay connected with people

Increasing numbers will join those already in self-isolation so now might be a good time to make sure you have the right phone numbers and email addresses of the people you care about.

"Agree regular check-in times and feel connected to the people around you," says Weatherley.

If you're self-isolating, strike a balance between having a routine and making sure each day has some variety.

It might end up actually feeling like quite a productive two weeks. You could work through your to-do list or read a book you'd been meaning to get to.

void burnout

With weeks and months of the coronavirus pandemic ahead, it is important to have down time. Mind recommends continuing to access nature and sunlight wherever possible. Do exercise, eat well and stay hydrated.

AnxietyUK suggests practising the "Apple" technique to deal with anxiety and worries.

    Acknowledge: Notice and acknowledge the uncertainty as it comes to mind.
    Pause: Don't react as you normally do. Don't react at all. Pause and breathe.
    Pull back: Tell yourself this is just the worry talking, and this apparent need for certainty is not helpful and not necessary. It is only a thought or feeling. Don't believe everything you think. Thoughts are not statements or facts.
    Let go: Let go of the thought or feeling. It will pass. You don't have to respond to them. You might imagine them floating away in a bubble or cloud.
    Explore: Explore the present moment, because right now, in this moment, all is well. Notice your breathing and the sensations of your breathing. Notice the ground beneath you. Look around and notice what you see, what you hear, what you can touch, what you can smell. Right now. Then shift your focus of attention to something else - on what you need to do, on what you were doing before you noticed the worry, or do something else - mindfully with your full attention.

41
Coronavirus symptoms: What are they and how do I protect myself?
How do I protect myself?

The best thing is regular and thorough hand washing, preferably with soap and water.

Coronavirus spreads when an infected person coughs small droplets - packed with the virus - into the air. These can be breathed in, or cause an infection if you touch a surface they have landed on, then your eyes, nose or mouth.

So, coughing and sneezing into tissues, not touching your face with unwashed hands, and avoiding close contact with infected people are important for limiting the spread.

Face masks do not provide effective protection, according to medical experts.
What are the coronavirus symptoms?

Coronavirus infects the lungs. The symptoms start with a fever followed by a dry cough, which can lead to breathing problems.

This is a new, continuous cough and means coughing a lot for more than an hour, or having three or more coughing episodes in 24 hours (if you usually have a cough, it may be worse than usual).

It takes five days on average to start showing the symptoms, scientists have said, but some people will get symptoms much later than this. In fact the World Health Organization (WHO) says the incubation period lasts up to 14 days.

Ear, nose and throat specialists in the UK have also noticed rising reports of anosmia - the term for loss of smell.

And increasing numbers of people on social media have been reporting a lost sense of smell and taste. Some have tested positive for coronavirus.

However, the evidence so far is only anecdotal and viruses behind the common cold often lead to lost senses of smell and/or taste.

42
নতুন করোনাভাইরাসের লক্ষ্মণ ও চিকিৎসা কী, কত দ্রুত ছড়াতে পারে, কতটা উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত?

চীনে গত ডিসেম্বর থেকে দেখা যাওয়া এই নতুন ভাইরাস মূলত ফুসফুসে বড় ধরণের সংক্রমণ ঘটায়।
চীনা কর্তৃপক্ষ ইতোমধ্যেই নিশ্চিত করেছে যে অন্তত তিনজন এই ভাইরাস সংক্রমণে মারা গেছে এবং আক্রান্ত হয়েছে আরও অন্তত দুশো জন।
যদিও কিছু স্বাস্থ্য বিশ্লেষকের ধারণা যে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা প্রায় দু হাজারের কাছাকাছি।
ভাইরাসটিকে এক ধরণের করোনাভাইরাস হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে এবং এটি একটি কমন ভাইরাস যা নাক, সাইনাস বা গলার উপরিভাগে সংক্রমণ ঘটায়।
কিন্তু এই ভাইরাস সংক্রমণ কতটা উদ্বেগজনক এবং কতটা দ্রুত ছড়ায় এই ভাইরাস?
রহস্যময় ভাইরাস আরো ছড়িয়েছে, বাংলাদেশে সতর্কতা
চীনে করোনাভাইরাস কি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে?
শত শত শিশুর এইডস হওয়ার পেছনের কারণ এখনো অজানা
যৌন ভাইরাস এইচপিভি নিয়ে যত লজ্জা-অজ্ঞতা
 
মাছের বাজার থেকে এই ভাইরাস প্রথম ছড়িয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।
কোথা থেকে এলো এই ভাইরাস?
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ধারণা ভাইরাসটি উৎস কোনো প্রাণী।
যতটুকু জানা যায়, মানুষের আক্রান্ত হবার ঘটনাটি ঘটেছে চীনের উহান শহরে সামুদ্রিক মাছ পাইকারি বিক্রি হয় এমন একটি বাজারে।
করোনাভাইরাস ভাইরাস পরিবারে আছে তবে এ ধরণের ছয়টি ভাইরাস আগে পরিচিত থাকলেও এখন যেটিতে সংক্রমিত হচ্ছে মানুষ সেটি নতুন।
বেশিরভাগ করোনাভাইরাসই বিপজ্জনক নয় কিন্তু আগে থেকে অপরিচিত এই নতুন ভাইরাসটি ভাইরাল নিউমোনিয়াকে মহামারীর দিকে ঠেলে দিতে পারে বলে আশংকা করা হচ্ছে।
 
চীনে এ পর্যন্ত তিনজনের মৃত্যু হয়েছে
কী কী লক্ষ্মণ দেখা যায়:
রেসপিরেটরি লক্ষ্মণ ছাড়াও জ্বর, কাশি, শ্বাস প্রশ্বাসের সমস্যাই মূলত প্রধান লক্ষ্মণ।
করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব অনেককে সার্স ভাইরাসের কথা মনে করিয়ে দিয়েছে যা ২০০০ সালের শুরুতে প্রধানত এশিয়ার অনেক দেশে ৭৭৪ জনের মৃত্যুর কারণ হয়েছিলো ।
নতুন ভাইরাসটির জেনেটিক কোড বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে এটি অনেকটাই সার্স ভাইরাসের মতো।
"আমরা যখন নতুন কোনো করোনাভাইরাস দেখি, তখন আমরা জানতে চাই এর লক্ষ্মণগুলো কতটা মারাত্মক। এ ভাইরাসটি অনেকটা ফ্লুর মতো কিন্তু সার্স ভাইরাসের চেয়ে মারাত্মক নয়," বলছিলেন এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর মার্ক উলহাউস।
 
চীনা নববর্ষকে ঘিরে উদ্বেগ বাড়ছে
কত দ্রুত ছড়াতে পারে এই ভাইরাস?
ডিসেম্বরে উহান শহরে প্রথম এ ভাইরাসটি তার অস্তিত্ব জানান দিয়েছিলো এবং এ পর্যন্ত মারা গেছে তিন জন।
কিন্তু কর্তৃপক্ষের উদ্বেগের কারণ হলো লুনার নিউ ইয়ার বা চান্দ্র নববর্ষ উপলক্ষ্যে যখন লাখ লাখ মানুষ বিশ্বজুড়ে ভ্রমণ করে, সেই সময়ে নতুন এই ভাইরাসে বেশি মানুষ আক্রান্ত হওয়ার আশংকা থাকবে।
দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান ও থাইল্যান্ডও এ নতুন ভাইরাসে আক্রান্ত হবার খবর নিশ্চিত করেছে।
লন্ডনে ইমপেরিয়াল কলেজের এমআরসি সেন্টার ফর গ্লোবাল ইনফেকশাস ডিজিজ এনালাইসিস এর এক রিপোর্টে বলা হয়েছে যে তারা মনে করেছে ইতোমধ্যেই এক হাজার সাতশ মানুষ নতুন ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।
 
মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমিত হয় কিনা সেটি দেখতে কড়া নজরদারি চলছে
এটি কি মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমিত হতে পারে ?
এখন পর্যন্ত বিজ্ঞানীদের ধারণা মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমিত হওয়ার কিছু ঘটনা ঘটেছে।
সিঙ্গাপুরের ডিউক-নুস মেডিকেল স্কুলের ওয়াং লিন ফা সম্প্রতি উহান সফরে করে এসেছেন।
তিনি বলছেন মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমণের লক্ষ্মণগুলোর দিতে তীক্ষ্ণ দৃষ্টি দেয়া হচ্ছে।
"চাইনিজ নিউ ইয়ার আসছে। চীনে অন্তত ৪০ কোটি মানুষ এ সময় ভ্রমণ করবে বিভিন্ন জায়গায়। প্রত্যেকেই উদ্বিগ্ন। এটার দিকে ভালো ভাবে লক্ষ্য রাখতে হবে আমাদের"।
 
বিমানবন্দরগুলোতে অতিরিক্ত পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে
আক্রান্ত হওয়া ঠেকানো যাবে কিভাবে
ইতোমধ্যেই সংক্রমিত ব্যক্তিকে আলাদা করে রেখে চিকিৎসা দিতে হবে অন্যকে সংক্রমিত করার ঝুঁকি পার হওয়া পর্যন্ত।
ইতোমধ্যেই উহান প্রদেশের সেই মাছের বাজার বন্ধ করে দেয়া হয়েছে এবং সেখানে পরিচ্ছন্নতা অভিযান চলছে।
মানুষজনকে অরক্ষিত প্রাণী থেকে সাবধানতার পাশাপাশি ডিম ও মাংস রান্না এবং ঠাণ্ডা বা ফ্লুতে আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে থাকার বিষয়ে সতর্ক করা হয়েছে।
চীনা নববর্ষের সময় যারা ভ্রমন করবে তাদের শরীরের অতিরিক্ত তাপমাত্রা আছে কিনা সেটি দেখা হবে।
উহান থেকে আসা যাত্রীদের স্ক্রীনিং শুরু করেছে সিঙ্গাপুর ও হংকং।
যুক্তরাষ্ট্রও বড় বিমানবন্দরগুলোতে একই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েছে।
চীনের সাথে বাংলাদেশের ভালো যোগাযোগ থাকায় বিশেষ সতর্কতা নেয়া হয়েছে ঢাকার আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরেও।
বিশ্বজুড়ে এটি ছড়িয়ে পড়ার আশংকা নিয়ে হাসপাতালগুলোকে সতর্ক করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।
 

ফেসর জোনাথন বল বলছেন, "আমাদের উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত এ কারণে যে যেকোনো ভাইরাসই মানুষকে আক্রমণ করতে পারে"।
আমার কি উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত
ওয়েলকাম ট্রাস্ট এর ড. জোসি গোল্ডিং বলেন, নতুন করে সংক্রমণের খবর না পাওয়া পর্যন্ত এটা বলা কঠিন যে এ মূহুর্তে আমাদের কতটা উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত।
"সার্সের বিষয়টা আমাদের ভালোভাবেই মনে আছে এবং সেজন্যই বেশি ভয় হচ্ছে। কিন্তু এখন আমরা অনেক বেশি প্রস্তুত এ ধরণের রোগের সাথে লড়াই করার জন্য"।
নটিংহ্যাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর জোনাথন বল বলছেন, "আমাদের উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত এ কারণে যে যেকোনো ভাইরাসই মানুষকে আক্রমণ করতে পারে"।
আর একবার মানুষের শরীরে প্রবেশ করতে পারলে এটি বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারে। ভাইরাসকে সে সুযোগ দেয়া উচিত নয়"।

43
করোনাভাইরাস: যে সাত উপায়ে আপনি ভুল তথ্য ভাইরাল হওয়া থামাতে পারেন

ইন্টারনেটে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত ভুল তথ্য ছড়াচ্ছে ব্যাপক হারে, আর তাই বিশেষজ্ঞরা 'তথ্য স্বাস্থ্যবিধি' মেনে চলার পরামর্শ দিচ্ছেন সবাইকে।
সেক্ষেত্রে ভুল বা বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানো বন্ধ করতে আপনি কী ভূমিকা রাখতে পারেন?

১. থামুন এবং চিন্তা করুন
আপনি আপনার পরিবার ও বন্ধুদের ভাল চান এবং তাদের সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ বজায় রাখতে চান। তাই নতুন কোনো তথ্য যখন আপনি পান - সেটা ইমেইল, হোয়াটসঅ্যাপ, ফেসবুক বা টুইটার যেখানেই হোক না কেন - আপনি তাদের কাছে সেই তথ্য পাঠিয়ে দিতে চান।
কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলেন ভুল তথ্য ছড়ানো বন্ধ করতে আপনি সর্বপ্রথম যা করতে পারেন, তাহলো এমন কাজ থেকে বিরতি নিন এবং চিন্তা করুন।
আপনার যদি কোনো সন্দেহ হয়, তাহলে ওই বিষয়ে আরো তথ্য সংগ্রহ করার চেষ্টা করুন।
 
২. তথ্যের উৎস যাচাই করুন
কোনো পোস্ট আরেকজনের কাছে পাঠানোর আগে তথ্যগুলোর উৎস যাচাই করার চেষ্টা করুন।
উৎস যদি হয়ে থাকে 'এক বন্ধু', 'বন্ধুর আত্মীয়', 'আত্মীয়ের সহকর্মী' অথবা 'সহকর্মীর আত্মীয়'-র মত কেউ, তাহলে অবশ্যই সেই তথ্য শেয়ার করা থেকে বিরত থাকুন।
সম্প্রতি 'মাস্টার্স ডিগ্রিধারী আঙ্কেল'-এর সূত্র দিয়ে প্রকাশিত হওয়া এ রকম একটি বিভ্রান্তিকর তথ্য সম্বলিত পোস্টের উৎস খুঁজে বের করেছে বিবিসি।
ঐ পোস্টটির কয়েকটি তথ্য - যেমন ভাইরাস নিষ্ক্রিয় করতে হাত ধোয়ার উপদেশ - সঠিক থাকলেও অধিকাংশ উপদেশই ছিল ক্ষতিকর। যেমন সেখানে রোগ নিরাময়ের অযাচাইকৃত এবং বৈজ্ঞানিক ভিত্তিহীন কিছু পরামর্শ ছিল।
যুক্তরাজ্য-ভিত্তিক তথ্য যাচাইয়ের প্রতিষ্ঠান ফুল ফ্যাক্টের ডেপুটি এডিটর ক্লেয়ার মিলন বলেন, "স্বাস্থ্য বিষয়ে সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য পরামর্শ দিতে পারে গণস্বাস্থ্য নিয়ে কাজ করা প্রতিষ্ঠানগুলো - যেমন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, যুক্তরাজ্যের ন্যাশনাল হেলথ সিস্টেম (এনএইচএস) বা যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি)।"
এমন নয় যে বিশেষজ্ঞরা সবসময় শতভাগ সঠিক তথ্য দিতে পারেন, তবে তারা নিঃসন্দেহে কারো আত্মীয় বা হোয়াটসঅ্যাপের চেয়ে নির্ভরযোগ্য।
 
৩. তথ্যটি কি ভুল হতে পারে?
বাইরে থেকে দেখে বিভ্রান্ত হওয়া খুবই স্বাভাবিক।
দায়িত্বে থাকা কর্তৃপক্ষের কারো আনুষ্ঠানিক অ্যাকাউন্ট বা যেকোনো প্রতিষ্ঠিত সংবাদমাধ্যমের নাম ব্যবহার করে পোস্ট দেয়া খুবই সম্ভব। সেই সব পোস্ট দেখে মনে হতে পারে যে নির্ভরযোগ্য সূত্র থেকেই এসেছে তথ্যগুলো।
স্ক্রিনশট পরিবর্তন করে এমনভাবে তা প্রকাশ করা যায় যা দেখে মনে হয় যে তথ্য বিশ্বাসযোগ্য সূত্র থেকেই এসেছে।
এ রকম ক্ষেত্রে পরিচিত এবং ভেরিফাইড অ্যাকাউন্ট ও ওয়েবসাইটের তথ্যের সাথে মিলিয়ে দেখুন। সেসব জায়গায় যদি সহজে তথ্যগুলো খুঁজে না পান, তাহলে সম্ভবত এগুলো ভুল।
আর পোস্ট, ভিডিও বা লিঙ্ক দেখেই যদি আপনার ভরসা না হয়, তাহলে হয়তো ভরসা না করাই উচিত।

৪. সত্যতা নিয়ে অনিশ্চিত? - শেয়ার করবেন না
কোনো তথ্য 'ঠিক-হতেও-তো-পারে' মনে করে সেগুলো আরেকজনকে পাঠাবেন না।
এ রকম ক্ষেত্রে আপনি কারো ভালো করার মানসিকতা নিয়ে তথ্য দিয়ে হয়তো তাকে ক্ষতির সম্মুখীন করবেন।



৫. প্রতিটি তথ্য আলাদাভাবে যাচাই করুন
হোয়াটসঅ্যাপে একটি ভয়েস বেশ ছড়িয়েছে। ওই ক্লিপে যে নারী কথা বলেন, তিনি সেখানে বলেন যে তার 'সহকর্মীর একজন বন্ধু, যিনি হাসপাতালে কাজ করেন' তার কাছ থেকে তথ্যগুলো জেনে অনুবাদ করেছেন তিনি।
ওই ভয়েস ক্লিপটি সারা বিশ্বের বিভিন্ন জায়গা থেকে বিবিসি'র কাছে পাঠিয়েছেন হাজার হাজার মানুষ।
তবে ভয়েস ক্লিপটির তথ্যগুলো ছিল ভুল এবং সঠিকের সংমিশ্রণে তৈরি করা।
যখন অনেকগুলো উপদেশের তালিকা আপনাকে পাঠানো হবে, তখন অনেক সময় আপনি সবগুলো তথ্যই বিশ্বাস করতে চাইবেন। কারণ তালিকায় থাকা কয়েকটি তথ্য যে সঠিক, সে সম্পর্কে আপনি নিশ্চিত।
কিন্তু অনেক সময়ই কয়েকটি সঠিক তথ্যের সাথে ভুল তথ্য যোগ করে ছড়িয়ে দেয়া হয়।
 
৬. আবেগী পোস্ট থেকে সাবধান
যেসব পোস্ট আমাদের আতঙ্কিত, চিন্তিত অথবা উৎফুল্ল করে তোলে, সে রকম পোস্ট ভাইরাল হওয়ার বেশি সম্ভাবনা থাকে।
অনলাইনে ভুল তথ্য আলাদা করতে সাংবাদিকদের সাহায্য করা প্রতিষ্ঠান ফার্স্ট ড্রাফটের ক্লেয়ার ওয়ার্ডল বলেন, "বিভ্রান্তিকর তথ্যকে টিকিয়ে রাখার সবচেয়ে বড় ভিত্তি মানুষের মধ্যকার ভয়।"
তিনি বলেন, "নিজেদের কাছের মানুষকে সব সময় সাহায্য করতে চায় মানুষ, তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে চায়। তাই 'ভাইরাস প্রতিরোধ করার টিপস' বা 'এই ওষুধগুলো খান' জাতীয় পোস্ট সহজে ভাইরাল হয়। কারণ মানুষ যেভাবে পারে কাছের মানুষকে সাহায্য করতে চায়।"
 
৭. একপেশে চিন্তা সম্পর্কে সাবধানে থাকুন
আপনি যখন একটি পোস্ট শেয়ার করেন, তখন আপনার সেটি শেয়ার করার পেছনে যুক্তিটি কী থাকে?
পোস্টের তথ্যগুলোর সত্যতা সম্পর্কে আপনি নিশ্চিত বলে শেয়ার করছেন, নাকি আপনি শুধুমাত্র তথ্যগুলোকে সমর্থন করছেন?
ডেমোসের সেন্টার ফর দ্য অ্যানালিসিস অব সোশ্যাল মিডিয়ার গবেষণা পরিচালক কার্ল মিলার মনে করেন, আমাদের মধ্যে বিদ্যমান ধ্যান-ধারণার প্রতিফলন যেসব পোস্টে আসে, সেসব পোস্টই আমরা সাধারণত শেয়ার করে থাকি।
তিনি বলেন, "যখন কিছু দেখে আমরা ক্রুদ্ধ হয়ে মাথা ঝাঁকাই, সেই সময়ে আমাদের ভুল তথ্য শেয়ার করার সম্ভাবনা সবচেয়ে বেশি।"
"ঐ সময়টাতে আমাদের অনলাইন কার্যক্রম ধীরগতিতে চালানো জরুরি।"

44
করোনাভাইরাস: বাসায় বসে কাজ করতে কর্মীদের উৎসাহিত করছে অনেক প্রতিষ্ঠান

করোনাভাইরাসের কারণে অনেক প্রতিষ্ঠান কর্মীদের বাসায় থেকে কাজ করতে উৎসাহিত করছে।

এদের মধ্যে রয়েছে গ্রামীণফোন, রবি আজিয়াটা, বাংলালিংক, ইউনিলিভার, রেকিট অ্যান্ড বেনকিজারের মতো প্রতিষ্ঠানগুলো। বন্ধ ঘোষণার পরে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও রিমোট প্রযুক্তি ব্যবহার করে শিক্ষা কার্যক্রম চালানোর ব্যবস্থা নিয়েছে।

যেসব ব্যবস্থা নিয়েছে কোম্পানিগুলো
রবি আজিয়াটা লিমিটেডের চীফ কর্পোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অফিসার শাহেদ আলম বিবিসিকে বলছেন, ''প্রায় দুই বছর আগে থেকেই আমাদের কর্মীদের বাসায় থেকে কাজ করার একটা অপশন দিয়ে রেখেছিলাম। সেটাই এখন আমাদের কাজে লাগছে।''

''আমরা কর্মীদের বলেছি, শারীরিক উপস্থিতির দরকার না হলে অফিসে আসার দরকার নেই। সবার বাসায় কাজ করার সুবিধা আছে। সবাইকে ভিপিএন সংযোগ দিয়েছি, মিটিংগুলো ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে হচ্ছে।"

"এছাড়াও মার্কেটে যে কর্মীরা কাজ করেন, তাদের মুভমেন্ট সীমিত করে দিয়েছি। যাতে প্রোডাক্ট অনলাইনে বিক্রি করা যায়। ফিজিক্যাল মুভমেন্ট কমিয়ে দিয়েছি।''

45
করোনাভাইরাস: লক্ষণ দেখা দিলে কী করবো, কোন হাসপাতালে যাবো, কোথায় ও কোন নম্বরে যোগাযোগ করবো এবং অন্যান্য টিপস

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ যখন একটি দুটি করে বাড়ছে এবং সারা পৃথিবীতে এই রোগের দ্রুত বিস্তারের খবর সংবাদ মাধ্যমে প্রতিনিয়ত প্রচার হচ্ছে, তখন এ নিয়ে মানুষের মধ্যে উদ্বেগ উৎকণ্ঠাও বাড়ছে।

তবে সরকারের দিক থেকে স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে যে জ্বর-ঠাণ্ডা-কাশি এরকম লক্ষণ দেখা দিলেই হাসপাতালে দৌড়ানোর দরকার নেই।

এরকম হলে তাদেরকে প্রথম বাড়িতে স্বেচ্ছা কোয়ারেন্টিনে থাকতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

লোকজন কেন হাসপাতালে দৌড়াচ্ছে?
রোগ তত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউট আইইডিসিআরের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. এ এস এম আলমগীর বলেন, বাংলাদেশে সাধারণত এপ্রিল মাস থেকে মওসুমি ইনফ্লুয়েঞ্জা শুরু হয়, শেষ হয় সেপ্টেম্বর মাসে। কিন্তু এবছর এই মওসুম একটু আগেভাগেই শুরু হয়ে গেছে।

"এই সিজন শুরু হয়ে যাওয়াতে যেটা হয়েছে যে অনেক মানুষের এখন সাধারণ জ্বর, সর্দি কাশি ও গলা ব্যথা হচ্ছে। মানুষজন যেহেতু এখন সচেতন তাই তারা মনে করছে যে এটা হয়তো করোনাভাইরাসের সংক্রমণ।"

আর এজন্যে সাধারণ লোকজন পরীক্ষার জন্য বিভিন্ন হাসপাতালে দৌড়াদৌড়ি করছে বলে তিনি মনে করেন। শুধু লোকজনই নন কিছু কিছু চিকিৎসকও মনে করছেন যে এটা হয়তো এই ভাইরাসেরই সংক্রমণ।

লক্ষণ দেখা দিলে কী করতে হবে?
আইইডিসিআরের প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মি. আলমগীর বলেন, "আপনার যদি এরকম লক্ষণ দেখা দেয় এবং গত ১৪ দিনে আপনার বিদেশ ভ্রমণের কোন ইতিহাস না থাকে, দয়া করে আপনি বাড়িতে থাকুন, ইনফ্লুয়েঞ্জার চিকিৎসা করুন, নিকটস্থ ডাক্তারের কাছে যান।"

তিনি বলছেন, এসব লক্ষণ দেখা দিলেই পরীক্ষা করানোর প্রয়োজন নেই।

বাংলাদেশে এখনও পর্যন্ত ১৪ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তারা বিদেশ থেকে আসা বাংলাদেশি নাগরিক কিম্বা তাদের পরিবারের সদস্য।


Pages: 1 2 [3] 4 5 ... 9