Daffodil International University

Faculty of Humanities and Social Science => Journalism & Mass Communication => Topic started by: Md. Alamgir Hossan on April 11, 2017, 03:45:08 PM

Title: মার্কিন আগ্রাসন রুখতে যুদ্ধের হুঙ্কার উ. কোরিয়ার
Post by: Md. Alamgir Hossan on April 11, 2017, 03:45:08 PM
কোরিয়া উপদ্বীপে মার্কিন রণতরী মোতায়েনের প্রতিক্রিয়ায় উত্তর কোরিয়া জানিয়েছে, যে কোনও ধরনের মার্কিন আগ্রাসন মোকাবিলার জন্য তাদের ‘শক্তিশালী সশস্ত্র বাহিনী’ প্রস্তুত রয়েছে। দেশটির রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম কেসিএনএ-র বরাত দিয়ে এ কথা জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতির বরাত দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, ‘রণতরী মোতায়েনের এ আগ্রাসী পদক্ষেপের নেওয়ায় যে কোনও ধ্বংসাত্মক পরিণতির জন্য মার্কিন কর্তৃপক্ষ দায়ী থাকবে।’ বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যে কোনও পর্যায়ের যুদ্ধের জন্য উত্তর কোরিয়া প্রস্তুত রয়েছে।’

যুক্তরাষ্ট্র ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে সামরিক অনুশীলনকে কোরিয়া উপদ্বীপে আগ্রাসন বলেই বিবেচনা করে উত্তর কোরিয়া। দেশটির পারমাণবিক এবং ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচী নিয়ে যখন আঞ্চলিক ও অন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে উত্তেজনা বিরাজ করছে, তখন কোরীয় উপসাগরে রণতরী মোতায়েন করছে যুক্তরাষ্ট্র।

মার্কিন সেনাবাহিনীর নির্দেশে পাঠানো কার্ল ভিনসন স্ট্রাইক গ্রুপ নামের ওই রণতরীতে রয়েছে একটি বিমানবাহী জাহাজসহ বেশ কয়েকটি যুদ্ধজাহাজ।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প আগেই বলেছেন, উত্তর কোরিয়ায় পারমাণবিক হুমকি মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্র এককভাবেই সিদ্ধান্ত নেবে।

এর আগে মার্কিন প্যাসিফিক কমান্ডের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, রণতরীটি এখন পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগর পারি দিয়ে কোরিয়া উপদ্বীপের দিকে যাচ্ছে। কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, পূর্ণ যুদ্ধ প্রস্তুতি নিয়ে রণতরীটি কোরিয়ার দিকে যাচ্ছে।

এক বিবৃতিতে প্যাসিফিক কমান্ড জানিয়েছে, ‘উত্তর কোরিয়ার ক্রমাগত দায়িত্বহীন পারমাণবিক পরীক্ষা চালানো ও ক্ষেপণাস্ত্রের সংখ্যা বাড়িয়ে চলার মাধ্যমে যে ব্যাপক ঝুঁকি তৈরি হয়েছে, তা মোকাবিলার জন্যই এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।’

৫ এপ্রিল জাপান সাগরে আবারও একটি ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে উত্তর কোরিয়া। এর আগে ৬ মার্চ উত্তর কোরিয়ার চীন সীমান্তের নিকটবর্তী তংচ্যাং-রি অঞ্চল থেকে জাপান সাগরে চারটি ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করা হয়। তখন দক্ষিণ কোরিয়ার বার্তা সংস্থা ইয়োনহ্যাপ জানায়, ক্ষেপণাস্ত্রগুলো সম্ভবত আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র, যা যুক্তরাষ্ট্রের মূল ভূখণ্ডে আঘাত হানতে সক্ষম।

পারমাণবিক ও ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র কার্যক্রম চালানোর জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ পশ্চিমা দেশগুলো এবং জাতিসংঘ বেশ কয়েকবার নিষেধাজ্ঞা জারি করলেও ওই কার্যক্রম থেকে সরে আসেনি উত্তর কোরিয়া।