Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - Sharmina Hoque

Pages: [1]
1
Journalism / 13 Ways to Motivate Yourself at Work
« on: July 29, 2020, 10:50:26 PM »
13 Ways to Motivate Yourself at Work

1. CREATE A BIG GOAL
Let's create a large goal first. This is your ideal, your "five-year plan" if you will. Start by setting a SMART goal for yourself. According to Edwin Locke's goal-setting theory of motivation, goal-setting is linked to task performance. By setting specific and clear goals, individuals experience greater output and better performance.

2. START WITH SMALL STEPS
If you're taking the steps to make SMART goals, you will start with the specific. When you get specific with your goals, you are much more likely to achieve them. To set the specificity of your goals, let's start with the five Ws.
Who: Who is involved in this goal?
What: What do I want to accomplish
Where: Location of goal
Why: What's the specific reason, purpose, or benefit from setting this goal?
When: What's the time frame in which I want to achieve this goal?
By breaking up a large goal into smaller pieces, you can intentionally chip away at your larger goal, piece by piece
3. FRONTLOAD YOUR DAYS WITH YOUR LEAST FAVORITE WORK
We all have days where we get bogged down by details. We all have work that we hate doing. This is advice we all need to write on a post-it and stick to our monitors.
Do your least favorite work first. When you let your to-do list pile up with tasks that you despise doing, it can turn into a motivation killer. Start your day by ticking annoying, repetitive, or labor-intensive tasks off of your to-do list. Instead of repeatedly pushing it to the side, get the work done—and get back to doing what you love to do. 
4. LEARN NEW SKILLS
When was the last time you learned an entirely new skill? If this question brings you back to your first weeks at work or worse—your undergraduate career—it might be time to learn a new skill.
There are plenty of places to learn new work-related skills. Maybe this is the day you finally take that UX design class. Go for it. Inquire as to whether your company has educational stipends—and take full advantage of them!
5. SCHEDULE WEEKLY CHECK-INS WITH A MANAGER
If you're really struggling with motivation at work, maybe it's time for a job makeover. That doesn't mean you need a new job—it might just mean you need to re-work your responsibilities and workload with your boss. To begin, schedule a weekly check-in with your direct manager. Use this time to work out the kinks or the boredom you're experiencing.
These 1-1s don't have to last forever. Come into the first meeting with a game plan. Voice your concerns, make some tentative plans, and arrive with an open mind for feedback and direction.
6. FIND A MENTOR
Here at Career Contessa, we are all about mentorship. Find a mentor within your industry and swap stories. A great mentor will have actionable advice on how to propel your career forward. Whether you want to eventually move up in your company, take your current position to the next level, amp up your skills, or make a big career pivot—there's a mentor out there for you.
7. PRACTICE GRATITUDE
You have a job. You're receiving a paycheck and benefits (or, at least you should be!)
Try to shift your perspective. Rather than drudging through another Tuesday, recognize the good things about your job, your company, and your coworkers. Studies on practicing gratitude at work have linked it to reduced stress, more positivity at work, and increased goal-setting. If gratitude works for you, spread it. Positive feedback and words of encouragement can be just as contagious as negativity is in a toxic workplace. Pay it forward.
8. MAKE A PASSION DIAGRAM
Here's a fun one for you. Let's get together to make a passion diagram. What do you love to do? Is it writing? Do you love burying yourself in research?
By creating a passion diagram, you create a visual representation of what you love to do, what you do at work, and the places in which the two might intersect. If you're not happy with the intersection—or if there is no intersection at all—find ways to infuse your job with more of what you love. For example, if you love to take photos but you're a copywriter, reach out to your social media team. Is there any help they need in creating stories or other content?
Find ways to marry what you love doing with your day-to-day work.
9. REWARD YOURSELF FOR ACCOMPLISHED GOALS
We've been talking about this point a lot lately—and we're guilty of it, too. We all need to slow down for a second and celebrate our accomplishments. This doesn't mean skipping out of work for bottomless margaritas because you surpassed your monthly traffic goal. Rather, it's taking a beat—and sharing the news with another coworker, your mom, or your significant other.
We work hard every day. It's easy to get so lost in a comparison trap and forget to celebrate our own accomplishments. Try it out. Go back over your last year and point out your accomplishments. What did you achieve in your first three months at your position? Your first six months? Take note. It's never too late to celebrate—even retroactively.

But seriously, get in the habit of celebrating—or at least acknowledging—your successes. Write them down. Share them. Give yourself the pat on the back that you deserve.
10. SURROUND YOURSELF WITH MOTIVATED PEOPLE
We all know that misery loves company. If you're feeling unmotivated at work, there's a pretty big chance that you've already complained about it aloud—maybe even to a colleague.
Avoid the work colleagues that tend to neg on the company. Better yet, challenge their negativity with a positive reply. See if you can channel positivity from a throwaway negative comment.
Instead, surround yourself with the coworkers who are motivated and lively. Bounce ideas off each other and work together on new and exciting projects. Start a club or organization to foster more inter-team collaboration.
11. GET FEEDBACK
Make the time to get feedback—whether from your manager, a coworker, or maybe a mentor within your industry. Examining your frustrations with someone else could (and usually does) give you perspective on what you can do to improve or change your outlook.
Listen, really listen, to feedback. Make a game plan for how to address any feedback—negative or otherwise—in the coming weeks.
12. TAKE A BREAK
If you've gone through all of the above steps and you're still feeling completely unmotivated, maybe it's time for a break. Maybe it's a break from the industry you're in, the toxic work culture you're experiencing, or maybe it's as simple as finally taking those vacation days. Heck, it might be as simple as turning your phone off for three hours on a Saturday. Give yourself permission to take a break—then take it.
Taking time—whether on vacation or a hiatus from work—is like taking a long shower. Suddenly, your thoughts become clearer and more lucid. By giving yourself a break, you can open yourself to ideas and inspiration you were simply to busy to see.
13. STAY POSITIVE
This should probably be tip number one. Keep positivity around your work. Remember that you are in control of your career—only you can make the changes to reward and stimulate you—both professionally and personally. You've got this.

https://www.careercontessa.com/advice/how-to-motivate-yourself/

2
1. Communication Skills
Communication skills are one of those vague things that people write on their resume that make you think, what does that really mean? And while you may get away with it on a resume or in passing in an interview, communication skills are not something you can fake in real life.
They are the tangible, hard skills that you need to work with other people and this includes:

Verbal – This type of communication is the easiest to understand: It’s what you say. To improve this skill, use a confident voice while speaking, avoiding filler words such as “um,” “hmmm,” etc., and be conscious about how you choose your words.

Non-Verbal – This includes anything that you are saying without words. It includes body language, tone of voice, facial expressions. If you’re to improve non-verbal communication skills, the best way to do it is just to be intentional and conscious of your non-verbal actions such as if someone is telling something stressful, look them in the eyes to show empathy instead of looking upwards or away which shows that you’re annoyed. This one is a tough one to understand, but one of the best defaults is to copy the body language and tone of voice of the other person.

Written – Being able to effectively write out your intentions is a skill that takes tact because it can depend on the person. The most common written skill in the workplace is sending emails. because no matter what you do in life, you have to write emails. Good written skills comes down to word choice, punctuation, and tone. And the real difficulty in this skill is that it depends on the other person. In verbal communications, it’s pretty easy to convey your emotions. If you raise your voice, you’re angry, and it’s easy to tell by tone if a person is upset, but not so easy over email.

Working on developing your communication skills, unfortunately, comes down to practice. So start being consciously aware of what words and body language people respond to best, and write it down.

 

2. People Skills
In my opinion, most “people skills” can be determined by one thing: listening skills.
es, people skills can also include a whole list of other soft skills such as teamwork, leadership, patience, but at the end of the day, it all boils down to listening to other people and understanding where they are coming from.

It is the skill that most personal development writers like Dale Carnegie in the classic book “How To Win Friends and Influence People.” So the next time you are considering how to improve your people skills, try active listening. Trust me, people love talking about themselves and even though some things come naturally to others like humour or having charisma, everyone likes someone who can actively listen, empathize, and who tries to understand their point of view in conflict.

 

3. Self-Management Skills
Being able to take initiative in any job makes a world of difference. Don’t wait for someone to ask you to do something. When you get comfortable enough in a position and know something needs to be done, take the initiative projects and come up with new ideas. If you are in a role where you aren’t sure of the company’s priorities or know the job well it’s always okay to ask your supervisor. If you have some downtime, simply asking “could I get started on this for you?” is a game-changer for developing this soft skill.

 

4. Managing Your Boss And Employees
Even if you are not a manager, you still manage people. One of the most important tasks you will ever have is to manage the expectations of your boss and your employees. This means that you are effectively communicating with your team. More so, it’s about understanding the priorities of people that are not you. One of the most game-changing advice I’ve ever received is learning not just how to please your boss, but learn how he/she needs to please their boss. everyone has someone that they need to be accountable to.
To learn what the priorities of others and challenges others are facing and help them. If your employees are struggling with a particular task, understand why and come up with solutions.

Lastly, it is always important to keep open 2-way communication with the people you work with. So if you do not see them daily, schedule check-ins to talk about work or anything else. It’s so easy to put your head down at your desk and think that’s all there is to work, but to get ahead, you need other people. No one builds up their career on their own and vice versa. So while managing employees, remember that you should be ensuring that they are growing and developing their skills as well. Not only does it make your team better as a whole, but it also shows that you’re someone who can help another person which is how people become successful in their careers. People want to be around people that can make companies better.

 

5. Leadership
And that brings us to our next point. Leadership skills are invaluable in a company because it’s not something that anyone can truly teach. It’s something you need to act upon and demonstrate. Developing people and communication skills are a huge part of leadership, but leadership skills encompass more than that. It’s the ability to inspire and motivate people; knowing when to listen and when to act.
Leadership skills can look different in different industries, but it’s a soft skill that derives from the ability to plan and delegate work, inspiring people through creative solutions, and being a person of integrity and trustworthy that people want to work for. Developing leadership skills can be tough if you aren’t already in a supervisory or management role, but you don’t need to be given the opportunity to be a leader; you can choose to be one. Volunteer to take the lead in a project at work or, volunteer in leadership positions outside of work for a local organization or charity you wish to support. The one thing about leadership skills is that it is super transferable and so the exact project or industry you worked in isn’t as relevant when you starting off developing these skills.

 

6. Productivity/Time Management
The one thing everyone probably wishes for in their career is more hours in the day. It can be hard to keep up with the responsibilities of a role and it can be even tougher to get ahead in your career if you’re constantly trying to complete your own tasks.

Developing time management soft skills at your work will not only make you more productive, but it will also make the quality of your work better. No one works well in a rush and it can be so easy to miss the little details; developing time management skills means that not only do you demonstrate you are able to take on more responsibility, you can ensure that your current workload is also done to a high quality.

The great thing about developing time management skills is unlike other skills, there are lots of tools out there to help you.

Some popular time management skills include:

Time Blocking: Physically block off the time in your calendar to complete the tasks
To-Do Lists: Create a to-do list of everything you need to complete in the day
Creating Checklists/Cheat Sheets: Create checklists of routine tasks so you don’t miss a step or think about the next step
Saving Shortcuts:  Create shortcuts on your desktop for files you need to quickly access to
Creating Templates: Create template responses in your email or templates of things such as report so you don’t have to start from scratch every time.
 

7. Creative Problem Solving
Thinking outside the box and problem-solving is a soft skill that everyone desires. It’s something that not only can’t be taught, but it’s also a skill that there is no one single way to approach. Problem-solving is the ability to make a judgment and think through the best solution. Unfortunately, it is a skill that comes mostly with experience. It can be hard to know how to creatively solve a problem if you’ve never experienced it before and hence, don’t fully know the consequences or results.

The best way to approach problem-solving is usually to listen and learn through experience. However, I have found the best way to develop problem-solving skills is to learn from others. When I’m in a new role, I ask a lot of questions and it’s not necessarily from my supervisors, it’s from the people who have been with the organization or in the role the longest as they’ve seen the results of decisions fully through and truly know their impact. Another way to develop creative problem-solving skills is to read books and listening to career podcasts. I personally love reading about other people’s experiences and how they faced problems in their careers. Some of my favourite books that I’ve read are “Lean In” by Sheryl Sandberg and “Never Split The Difference” by Chris Voss. I’m also reading “Principles” by Ray Dalio. Also, a disclaimer when I say “read” books, I mostly listen to them on audiobooks because I’m an audio learner. Some of my favourite podcasts include SecondLife (that interviews different women who’ve made big career changes in their life) and interviews on the Goal Digger podcast.

The great thing about problem-solving is that you can pull from people of different industries and who’ve had completely different career paths. That’s where the creativity skills develop, it’s through learning from people who have different perspectives or life experiences tell you how they solved a problem in a way you might have never considered. 

 

8. Marketing Skills
Learning to sell yourself is one of the most important skills that you will ever develop for both your personal and professional life. And if you’re like me, the thought of selling yourself feels kind of….icky. I’m not a “bragging” type of person and I tend to shy away from anything that
But I’ve learned that marketing myself isn’t about bragging, it’s about showcasing my achievements to demonstrate that I’m right for the role. Being able to confidently market yourself and effectively communicate your skills impressively and comprehensively is definitely a skill. And it takes getting used to. We all know someone who is cocky and brags about their achievements and people like that can be exhausting to be around.

To develop your marketing soft skills, it takes personal development activities that aren’t always found in the workplace. The first thing is to practice with other people. It’s easy to sit in a room by yourself and practice your personal summary when you introduce yourself, but it’s a whole other experience to actually do it real life. One of the best ways I’ve ever learned to market myself is through networking. Throughout my twenties, I went to so many conferences (sometimes in different provinces) and networking events where I didn’t know a single person by myself. And to be honest, at first, it was really nerve-wracking. I would feel so insecure because everyone else seemed to know someone there and I was just sitting by myself. So I had to learn how to introduce myself and market myself to complete and utter strangers.
Sometimes it was embarrassing. Sometimes it was awkward. But the thing is I got through it every time and I naturally got better and better at it. There is a balance between talking about yourself and the value you bring to an organization and talking about the other person. Marketing yourself isn’t always about you. It’s about having a conversation with the other person to understand their needs as well and it can be difficult to judge a situation, but again, it takes practice.

Another thing I would recommend to develop your marketing skills is looking into social media. People dismiss social media as a part of the career process but social media is just a tool in which you can choose to display yourself. So curate your photos and rework your LinkedIn profile to really showcase the person you want your future employers to see. Lastly, if you’ve ever considered it, I learned a lot about marketing by starting MLA and this business. It’s uncomfortable to promote your own content, but the way that I like to think about it is connecting the right person with the right resources.

 

9. Job Search and Job Interview Skills
Even if you are the most talented person in a role, it doesn’t mean much if you aren’t able to communicate it the job application process. Looking and interviewing for a job is a skill in itself. Not everyone is good at writing a resume or interviewing because these are conventional practices made up by society.

The great thing about this skill though is that there are a ton of resources out there to help (and MLA is one of them!)

Some great resources that Millennial Life Admin provides (if you haven’t already looked to it) are

– MLA Job Search Tracker:  This excel sheet keeps me accountable and organized when going through the job search process (so I don’t end up with a million tabs open and missing deadlines)

– MLA Interview Questions Study Guide:  I created this study guide for job interviews because I get SO NERVOUS during interviews that I feel like I want to throw up. Having this guide not only keeps me organized and prepared, but it also helps calm my nerves because I’m not scared of blanking out during an interview.

– MLA Resume Templates (Coming Soon!):  I’m designing my own line of resume templates that are design AND ATS (applicant tracking system) friendly. After years of having to choose between a boring, generic, resume template and a beautifully designed resume bought on Etsy (that couldn’t be read by computers), I’ve spent months combining the two! They will launch at the end of October 2019. Click here to be placed on the waitlist and receive a discount code!

Some of my other favourite sites also include the Career Contessa, The Financial Diet, and The Typical Twenty Something.

 

10. Career Management
One of the best career quotes I have ever heard is “no one will care more about your career than you do.” And I wish I could tell you where I got that from, but I think it was from one of the dozens of career podcasts I’ve heard. That statement is true for so many reasons.
It is up to you to decide what you want from your career and to go for it. No one is there to do it for you, and no one should. Determining what kind of career and lifestyle you want comes internally and it’s your responsibility to seek out those opportunities.

However, there will be people that help you along the way. Some of my greatest career decisions came at the advice of a manager or mentor, but again, it’s your responsibility to seek those people out. One of the greatest downfalls of newly graduated students is that they end up lost in their career because there is long a counselor or professor or academic adviser advising them of the next step and how to get there. The true mark of adulthood in your career is when you decide for yourself and map out how you get there because even with help, somewhere down the road it will come down to you.

Developing career management soft skills can be tricky and to be honest, it comes with mistakes. I think every single professional has worked in a job that they decided, for one reason or another, was no longer for them. No one has a crystal ball that can tell them exactly how things turn out (and anyone who says they knew exactly how their career was going to turn out meant that they never took on challenges or risk), but it’s the learning experience and how you choose to move forward that will really develop and test this skill. Sometimes it’s right to stay in a job, other times it may be time to leave or pivot careers altogether. Learning how to manage and market your transferable skills will be invaluable in this process so to develop your career management skills, first start by researching and mapping out what it is you want from your career. Read about other people’s experiences and if it doesn’t end well, learn from it.
https://millenniallifeadmin.com/how-to-develop-soft-skills/


3
করোনাভাইরাস থেকে নিরাপদ থাকতে লকডাউনে সবাই আছেন ঘরে। ঘরে থাকায় করোনা থেকে নিরাপদ থাকা গেলেও মৌসুমের কারণে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে ডেঙ্গুতে।

ডেঙ্গুর বাহক এডিস মশা সাধারণত দিনের বেলা কামড়ায়।

শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজের ভাইরোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. জাহিদুর রহমান গতকাল বুধবার দ্য ডেইলি স্টারকে বলেন, ‘ঘরে থাকা মানে ডেঙ্গু হওয়ার সম্ভাবনা বেশি।’

তিনি জানান, ঘরে মশা নিধনে ব্যবস্থা না নিলে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। ডেঙ্গু ও কোভিড-১৯, দুটি রোগেরই সাধারণ লক্ষণ জ্বর।

তিনি বলেন, ‘আমাদের খুবই সাবধান হতে হবে। যদি আমরা জ্বরের কারণ বুঝতে না পারি তাহলে ভুল চিকিৎসা হওয়ার সম্ভাবনা আছে। এ বছর ডেঙ্গু রোগী ইতিমধ্যে হাসপাতালে ভর্তি হতে শুরু করেছেন এবং সামনে এটা আরও বাড়তে পারে।’

সচেতনতার বিষয়ে ডা. জাহিদ বলেন, ‘ঘর পরিষ্কার রাখতে হবে এবং কোথাও যেন পানি জমে থাকতে না পারে সে দিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। করোনাভাইরাসের এই সমস্যার মধ্যে ডেঙ্গু আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়, যা সম্পর্কে সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।’

জাহিদ জানান, গত বছর দেশে সবচেয়ে খারাপ ডেঙ্গু পরিস্থিতি দেখা গেছে এবং কর্তৃপক্ষের উচিত সেই অভিজ্ঞতার পুনরাবৃত্তি এড়াতে অবিলম্বে ব্যবস্থা নেওয়া।

গত বছর মোট এক লাখ এক হাজার ৩৫৪ জন ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছিলেন। যার মধ্যে ৪৯ হাজার ৫৪৪ জন ছিলেন ঢাকার বাইরে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী ডেঙ্গুতে গত বছর মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ১৭৯।

ডা. জাহিদ পরামর্শ দেন, দরজা ও জানালায় মশা আটকানোর নেট লাগাতে এবং বিছানায় মশারি টানাতে। যদি কেউ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয় তাহলে তাকে মশারির নিচে রাখতে হবে যাতে তার মাধ্যমে এডিস মশা সুস্থদের মধ্যে ভাইরাস ছড়াতে না পারে।

Source: https://www.thedailystar.net/bangla/%e0%a6%b6%e0%a7%80%e0%a6%b0%e0%a7%8d%e0%a6%b7-%e0%a6%96%e0%a6%ac%e0%a6%b0/%e0%a6%98%e0%a6%b0%e0%a7%87-%e0%a6%a5%e0%a6%be%e0%a6%95%e0%a7%81%e0%a6%a8-%e0%a6%b8%e0%a7%81%e0%a6%b8%e0%a7%8d%e0%a6%a5-%e0%a6%a5%e0%a6%be%e0%a6%95%e0%a7%81%e0%a6%a8-%e0%a6%a1%e0%a7%87%e0%a6%99%e0%a7%8d%e0%a6%97%e0%a7%81-%e0%a6%a5%e0%a7%87%e0%a6%95%e0%a7%87-%e0%a6%b8%e0%a6%be%e0%a6%ac%e0%a6%a7%e0%a6%be%e0%a6%a8-144601

4
করোনাভাইরাসের বর্তমান পরিস্থিতিতে মানুষের সহায়তায় দেশের ৬৯টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ২৪ ঘণ্টা প্রস্তুত আছে। আজ বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস-সংক্রান্ত ব্রিফিংয়ে যুক্ত হয়ে এ কথা বলেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী মো. এনামুর রহমান।

আজকের এ ব্রিফিংয়ের পর প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, ‘জনগণ একটু বিভ্রান্তিতে ছিল। আজ সকালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ডেকে এই অ্যাডভাইস করা হয় যেন আমরা চিকিৎসা দেওয়ার বিষয়টি জানাই। এ ঘোষণা দিলে সবাই আসবে।’

এনামুর রহমান বলেন, ‘আজ আমাদের বলা হয়েছে, পরবর্তীতে যদি সংক্রমণের সংখ্যা বাড়ে, তবে তখন আমাদের হাসপাতালগুলো ব্যবহার করা হবে। আমরা বলেছি ওকে।’

প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক
আজ করোনাভাইরাস-সংক্রান্ত ব্রিফিং চলাকালে যুক্ত হন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ। তাঁর সঙ্গে থাকা প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান এবং বাংলাদেশ প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ অ্যাসোসিয়েশনের (বিপিএমসিএ) সভাপতি মবিন খান এ সময় কথা বলেন।


ব্রিফিংয়ে মবিন খান বলেন, ‘করোনাভাইরাসের ফলে সৃষ্ট এই দুর্যোগে আমরা জাতির পাশে আছি। আমাদের অ্যাসোসিয়েশনভুক্ত ৬৯টি মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা খোলা থাকবে। সেখানে করোনাসহ বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা দেওয়া হবে।’

মবিন খান বলেন, এই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুলোতে প্রায় ২০ হাজার চিকিৎসক ও নার্স রয়েছেন। তাঁরা সব সময় প্রস্তুত রয়েছেন। এসব হাসপাতালের প্রতিটিতে ৩০০ থেকে ৭০০ শয্যা রয়েছে।

মবিন খান আরও বলেন, ‘করোনায় চিকিৎসাসেবা দিতে আমরা কিছু হাসপাতাল ডেডিকেটেড করে এসেছি। প্রয়োজনে আরও বাড়াব। আমাদের সব ডাক্তার ও নার্স প্রস্তুত আছেন।’

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১১২ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এ নিয়ে করোনায় আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা দাঁড়াল ৩৩০। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন আরও একজন। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ২১।


Source: https://www.prothomalo.com/bangladesh/article/1649736/%E2%80%98%E0%A7%A8%E0%A7%AA-%E0%A6%98%E0%A6%A3%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A6%BE-%E0%A6%B8%E0%A7%87%E0%A6%AC%E0%A6%BE-%E0%A6%A6%E0%A6%BF%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A7%AC%E0%A7%AF-%E0%A6%AC%E0%A7%87%E0%A6%B8%E0%A6%B0%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%BF-%E0%A6%B9%E0%A6%BE%E0%A6%B8%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%B2-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A7%81%E0%A6%A4%E2%80%99?fbclid=IwAR2bnPyN9D4c3NdniPIkcFVm-u_gjshXPj2aEjko0ZCSLjLIgLvuKkkRuio

5

করোনাভাইরাস মহামারি ঠেকাতে মানুষ সামাজিক দূরত্বের নিয়ম ঠিকঠাক মানছে কি না, তা দেখাতে নতুন টুল বা প্রোগ্রাম উন্মুক্ত করছে ফেসবুক। ব্যবহারকারীর অবস্থানগত তথ্য বিশ্লেষণ করবে ফেসবুকের এ টুল। সোমবার ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলেছে, তাদের তৈরি ‘ডিজিজ প্রিভেনশন ম্যাপস’ তৈরি হচ্ছে ‘ডেটা ফর গুড’ কর্মসূচির আওতায়। বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষ কীভাবে চলাফেরা করছে, তা এ ম্যাপ থেকে দেখা যাবে। সিএনবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তাদের তৈরি ম্যাপ ও অন্যান্য তথ্য জনস্বার্থ নিয়ে কাজ করা কর্মকর্তাসহ নীতিনির্ধারকেরা কাজে লাগাতে পারবেন। এতে কোন এলাকায় করোনাভাইরাস বেশি ছড়াচ্ছে, তা জানা যাবে।

ফেসবুকের তথ্য অনুযায়ী তাদের জিজ প্রিভেনশন ম্যাপসে থাকবে কো-লোকেশন ডেটা নামের ফিচার, যাতে এক এলাকার মানুষ অন্য কোথাও সংস্পর্শে আসছে কি না, তার পূর্বাভাস দেখা যাবে। এ ছাড়া মানুষের ঘোরাফেরার সীমানার ট্রেন্ড, বিভিন্ন এলাকায় মানুষের সামাজিক সংযুক্ত থাকার সূচক প্রভৃতি ফিচার থাকবে। তবে এতে নির্দিষ্ট ব্যক্তির চলাচলের ধরন দেখানো হবে না।

ফেসবুকের একজন মুখপাত্র বলেছেন, ‘আমরা মনে করি ফেসবুকসহ অন্যান্য বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো মহামারির সময় আরও উদ্ভাবনী পদ্ধতি খুঁজে বের করতে পারে। তবে এ সময় যাতে প্রাইভেসি লঙ্ঘন না হয়, তারও খেয়াল রাখতে হবে।

ফেসবুকে ব্যক্তির অবস্থানগত তথ্য জানতে না দেওয়ার সুযোগও রয়েছে। এ তথ্য শেয়ার করা হবে কি না, তা ব্যবহারকারী নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। তবে, ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলেছে, তারা অন্যান্য ফিচার ব্যবহার করে ব্যক্তির চলাফেরার বিষয়টি ধরতে পারে।

ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ বলেছেন, তাদের এ উদ্যোগ ভালোভাবে এগোলে এটি আরও বিস্তৃত আকারে আসতে পারে। চলতি সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রে এটি শুরু হবে। এরপর পর্যায়ক্রমে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে এটি চালু হবে।

ফেসবুকের একজন মুখপাত্র বলছেন, ব্যক্তিগত পর্যায়ে মানুষ কেন নিয়মকানুন মানছে না, সে তথ্য দেওয়ার পরিবর্তে ওই এলাকায় প্রবণতাগুলো তুলে ধরবে তাদের টুল।

বোস্টন চিলড্রেনস হাসপাতালের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ জন ব্রাউনস্টেইন বলেছেন, ‘এ ধরনের কোম্পানিগুলোর কাছে মানুষের বিস্তারিত তথ্য আছে। তারা তথ্য ব্যবহার করে সামাজিক সংযোগ বা তাদের নেটওয়ার্কের মধ্যে সম্ভাব্য ঝুঁকি সম্পর্কে জানাতে পারে। আশা করছি, তারা বিশ্বজুড়ে জনস্বাস্থ্য–সম্পর্কিত সিদ্ধান্ত গ্রহীতাদের জন্য এ তথ্য তারা জানাবে।’

অবশ্য শুধু ফেসবুক নয়, একই ধরনের ম্যাপ তৈরিতে কাজ করছে গুগল। মাইক্রোসফটের পক্ষ থেকেও চ্যাটবটসহ অন্যান্য টুল তৈরি করা হচ্ছে।

Source: https://www.prothomalo.com/technology/article/1649265/%E0%A6%AB%E0%A7%87%E0%A6%B8%E0%A6%AC%E0%A7%81%E0%A6%95%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E2%80%98%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%A8%E0%A6%BE-%E0%A6%AE%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%AA%E2%80%99-%E0%A6%AF%E0%A7%87-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%9C%E0%A7%87-%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%97%E0%A6%AC%E0%A7%87?fbclid=IwAR0eN62RiLbNJc9GYEROzH0dquaZcqv1VIYWLo_WaCb29mtjcmIVse_3tT4

6
If you're not practicing these practical tips for grocery shopping, opening doors and signing your name when you're out in public, now's a good time to start.

Even though you spend most of your day indoors while quarantined at home, chances are you still leave the house to run errands and get fresh air, setting you on a collision course with other people outside your household -- and a gathering of germs. You're all practicing social distancing and thoroughly washing your hands, and many of you might be wearing homemade face masks, but there are more precautions to take, too, as the US surpasses 320,000 confirmed cases of COVID-19, and there are over 1 million reported cases worldwide.

Remember, the highly contagious new strain of coronavirus can be passed along on by those who appear asymptomatic.

Here are smart, sound tips to follow when you do need to leave the house to run essential errands. And here's the current understanding of coronavirus when it comes to food delivery and mail, such as Amazon packages.

What's this about wearing face masks in public?
On Friday, the CDC reversed its position on who should and shouldn't wear face masks in public. Prior to this latest announcement, the CDC and other health experts maintained that there was no need for the general public to wear a face covering in public.

However, the rapid spread of COVID-19, the disease caused by the new coronavirus, has caused the US authority on infectious disease to change course. The institute now recommends that people who reside in areas with high transmission rates, and those who are going to places where they can't maintain social distancing (e.g., six feet of space between you another person who isn't a household member) drape their nose and mouth with cloth or another type of breathable fabric, including face masks you make at home.

The CDC considers this a voluntary health measure, and a recommendation. While it isn't law, there is a strong grassroots movement that has circulated homemade face mask patterns and tips for weeks, for personal use and for donation to hospitals and other healthcare facilities.

There's certainly nothing wrong with wearing a homemade face mask as long as you're also washing your hands and practicing social distancing, especially from high-risk groups like senior citizens and people with compromised immune systems. Just be aware that homemade face masks might be better at blocking large particles like sneezes and coughs, rather than the small particles that N95 respirator masks (reserved for health care workers) can block.

Moral of the story:  If you feel well and don't have symptoms, wearing a homemade face mask in crowded public settings is recommended by the CDC. Most importantly, keep your distance and wash your hands.

If you're still pressing buttons for walk signs with your fingertips, stop. Any time you have to open a door, push a button, pull a lever or digitally sign for something, use a different body part instead. You have plenty.

For example, I'll often tap out a PIN code or make a selection on a digital screen with my knuckle instead of the pad of my finger. I'll push open a door with my shoulder, hip or foot instead of my hands.

You can usually flip on a light switch or sink faucet with your elbow or wrist, and you can wrap the sleeve of your sweater or jacket around the handle of any doors you have to physically pull open. It's easy enough to toss your clothing into the wash later rather than expose your skin now, especially if the chances you'll use your hands to touch food items is high (e.g., you're opening the door to a restaurant to oder takeout).
Distance, distance, distance
Did we mention distance? Social distancing can mean anything from hunkering down at home and refraining from seeing outside friends and family in person to keeping a boundary between you and others when you do go out.

The practice of keeping 6 feet away from those outside your home group extends to waiting in line at the grocery store, going on walks (you can momentarily walk in the bike lane if you're careful about looking out for street traffic) and picking up food to go.

Some states are enforcing social distancing in grocery stores and some businesses are doing that themselves. But if you need to keep more distance between you and someone else while on a walk or when reaching for an item at the store, take a step back and wait or politely ask the person to give you more clearance ("Oh, I'm trying to keep my distance from everyone.

Set aside your reusable tote bags
Increasingly, store policy excludes you from bringing outside tote bags and other bags into grocery stores -- or at least, using them in the bagging area. If you want to lessen your environmental impact, reuse the store's fresh bags at home.

The stores I shop at continue to make baskets and carts available, and only some offer sanitary wipes. Others have assigned gloved staff to wipe down carts and baskets for you with disinfectant, before you shop.

Regardless, it's a good idea to thoroughly wash your hands before you leave home to protect others, bring your own sanitary wipes if you have them and the store doesn't offer that option and be sure to wash your hands when you get home. Really, we can't stress that enough.

Don't sort through produce with your bare hands
At a time when face masks are increasingly common in stores and shoppers will give you the side eye for rummaging through lemons looking for the best one, here's a little advice: Don't poke the bear.

When sorting through food, use a glove or stick your hand inside a fresh, store-supplied bag and use the outside like a glove to pick up and inspect the garlic and bananas you want, so as not to touch every item with your bare hands. It'll make others feel more comfortable, and is just as likely to inspire them to follow suit.
Whatever you do, touching's off limits
Look, if they don't live in your household, don't touch. Most of us are observing this dictum by now, but on the off-chance you see a friend or family member, resist the urge to hug, tap elbows or get anywhere closer than 6 feet. Air huge if you have to. Blow a kiss (minus the actual exhalation). We have 13 clever and satisfying ways to safely greet someone that keeps you and loved ones safe.

Wash your hands every time you get 'home' -- seriously
Along with social distancing, washing your hands thoroughly is one of your best defenses against acquiring coronavirus. Give your hands a thorough scrub each time you get back. 20 seconds is the going recommendation, which may seem like ages, but if you wash slowly, it's easy to do.

I count five long seconds (one-one-thousand) of soaping each hand, in between the fingers and up to the wrists, then count another five seconds for washing each hand thoroughly to get the soap (and any dead germs) off. I often wash the soap dispenser pump and faucet handles, too.

That helps me feel safe enough to adjust my contacts, blow my nose and pick that nagging something or other out of my teeth in the comfort of my own space.

Stop handling cash
While it's believed that the highest risk of acquiring coronavirus comes from person-to-person transmission, we do know that shared surfaces can harbor the virus. Play it safe by setting the cash aside for now and relying more on contactless payments.

A large number of payment terminals accept Google Pay, Apple Pay, Samsung Pay and credit cards with the contactless logo on them. And remember, if a digital signature is required, you can use your knuckle instead of your index finger. For a physical signature, start packing your own pen.

Source: https://www.cnet.com/how-to/coronavirus-tips-13-ways-to-help-keep-yourself-safe-when-you-leave-the-house/

7
করোনাভাইরাস সংক্রমণের লক্ষণ দেখা দিলে বা এমন সন্দেহ হলে প্রথমেই আক্রান্ত ব্যক্তিকে আশপাশের লোকজন থেকে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন করে ফেলতে হবে, এমনটাই বলছেন বিশেষজ্ঞ ও ডাক্তাররা।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের প্রথম লক্ষণ হলো জ্বর এবং শুকনো কাশি। আপনার এরকম লক্ষণ দেখা দিলেই 'সেল্ফ-আইসোলেশনে' চলে যান - অর্থাৎ নিজেকে অন্যদের সংস্পর্শ থেকে সম্পূর্ণ আলাদা করে ফেলুন।

এর উদ্দেশ্য হলো যাতে আপনার বাসা, পরিবার, কর্মস্থল, বা সামাজিক পরিমন্ডলে অন্য যে মানুষেরা আছেন - তাদের মধ্যে ভাইরাস ছড়াতে না পারে।

প্রশ্ন হলো: কি ভাবে এই সেল্ফ আইসোলেন করতে হবে?

ঘরে থাকুন
এক নম্বর: আপনাকে ঘরে থাকতে হবে।

কর্মস্থলে, স্কুলে বা লোকসমাগম হয় এমন যে কোন প্রকাশ্য স্থানে যাওয়া বন্ধ করে দিন।

কোন পাবলিক ট্রান্সপোর্ট - অর্থাৎ বাস, ট্রেন, ট্রাম, ট্যাক্সি বা রিকশা যাই হোক না কেন।

কেমন ঘরে থাকতে হবে?

এমন একটা ঘরে থাকুন যাতে জানালা আছে, ভালোভাবে বাতাস চলাচল করতে পারে।

বাসার অন্য লোকদের থেকে আলাদা থাকুন। আপনাকে কেউ যেন 'দেখতে না আসে' তা নিশ্চিত করুন।

আপনার যদি বাজার-হাট করতে হয়, বা কোন ওষুধ বা অন্য কিছু কিনতে হয় - তাহলে অন্য কারো সাহায্য নিন। আপনার বন্ধু, পরিবারের কোন সদস্য বা ডেলিভারি-ম্যান এটা করতে পারে।

যারা আপনার জন্য খাবার বা জিনিসপত্র নিয়ে আসবে, তাদের বলুন আপনার ঘরের দরজার বাইরে সেগুলো রেখে যেতে।

বাড়ির অন্যদের কী করতে হবে?
ধরুন, আপনি এমন একটি বাড়িতে আছেন যেখানে একটি 'কমন রান্নাঘর' আছে যা সবাই ব্যবহার করেন।

এ ক্ষেত্রে যার করোনাভাইরাস সংক্রমণের লক্ষণ দেখা দিয়েছে তার এমন সময় সেই রান্নাঘরটি ব্যবহার করা উচিত যখন অন্য কেউ সেখানে নেই।
তার উচিত হবে রান্নাঘর থেকে খাবার নিয়ে নিজের ঘরে গিয়ে খাওয়া।

ঘরের মেঝে, টেবিল চেয়ারের উপরিভাগ - এমন 'সারফেস'গুলো প্রতিদিন তরল সাবান বা অন্য কোনো ক্লিনিং প্রোডাক্ট দিয়ে পরিষ্কার করুন।

যদি নিজেকে সম্পূর্ণ আলাদা করা সম্ভব না হয় তাহলে কী করবেন?
যদি এমন হয় যে আপনি নিজেকে পরিবারের অন্য সদস্য বা ফ্ল্যাটের অন্য বাসিন্দাদের থেকে সম্পূর্ণ আলাদা করতে পারছেন না, সে ক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শ হলো একে অপরের সংস্পর্শে আসা যতটা সম্ভব সীমিত করুন।

যদি সম্ভব হয়, বাসার অন্য লোকদের থেকে কমপক্ষে ২ মিটার বা ৬ ফুট দূরে থাকুন।

ঘুমানোর সময় একা ঘুমান।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ যাদের জন্য বেশি বিপজ্জনক হতে পারে - যেমন বয়স্ক মানুষেরা - তাদের থেকে দূরে থাকুন।

বাড়িতে কেউ আইসোলেশনে থাকলে অন্যদের কী করতে হবে?
আইসোলেশনে থাকা কোন ব্যক্তির সাথে যারা এক বাড়িতে বসবাস করছেন, তাদের জন্য পরামর্শ হলো: তাদের ঘন ঘন হাত ধুতে হবে।

হাত ধোয়ার নিয়ম হলো, সাবান ও পানি ব্যবহার করে অন্তত ২০ সেকেন্ড ধরে হাত ধুতে হবে - বিশেষ করে সংক্রমিত কারো সংস্পর্শে আসার পর।

কোন কোন জিনিস 'শেয়ার' করা যাবে না

আপনার বাড়িতে কেউ আইসোলেশনে থাকলে কোন তোয়ালে, টুথপেস্ট, সাবান, শ্যাম্পু, কন্ডিশনার বা এরকম কোন টয়লেট্রিজ সবাই মিলে ব্যবহার করা উচিৎ নয়।

আইসোলেশনে থাকা ব্যক্তির আলাদা একটি বাথরুম ব্যবহার করা উচিৎ। তা সম্ভব না হলে নিয়ম করুন যে যিনি আইসোলেশনে আছে - তিনি বাথরুম ব্যবহার করবেন সবার শেষে, এবং ব্যবহারের পর সম্ভব হলে সেটি ভালোভাবে পরিষ্কার করবেন।

যিনি আইসোলেশনে আছেন তার ফেলা বা সংস্পর্শে আসা সব রকম আবর্জনা একটি বিনব্যাগে ভরে তা আবার আরেকটি ব্যাগে ভরুন।

যদি তার করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিশ্চিত হয় - তাহলে এই আবর্জনা কীভাবে ফেলতে হবে, সে ব্যাপারে ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

Link: https://www.bbc.com/bengali/news-51872568?at_campaign=64&at_medium=custom7&at_custom2=facebook_page&at_custom3=BBC+Bangla&at_custom4=E00FDF3C-6543-11EA-9358-AF00C38169F1&at_custom1=%5Bpost+type%5D&fbclid=IwAR3JS6m01hVR33WPsA69mZwtIoJLI6VvIWhRNabGW48d_EcMg2Ukf87342k

8
দু'হাজার চার সালে বিবিসি বাংলা একটি 'শ্রোতা জরিপ'-এর আয়োজন করে। বিষয়টি ছিলো - সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি কে? তিরিশ দিনের ওপর চালানো জরিপে শ্রোতাদের ভোটে নির্বাচিত শ্রেষ্ঠ ২০জনের জীবন নিয়ে বিবিসি বাংলায় বেতার অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয় ২০০৪-এর ২৬শে মার্চ থেকে ১৫ই এপ্রিল পর্যন্ত।

বিবিসি বাংলার সেই জরিপে শ্রোতাদের মনোনীত শীর্ষ কুড়িজন বাঙালির তালিকায় ষষ্ঠ স্থানে আসেন বেগম রোকেয়া। আজ তাঁর জীবন-কথা।

বাঙালির আধুনিক যুগের ইতিহাসে যে নারীর নাম গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করা হয় সেই নাম হচ্ছে রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন - বেগম রোকেয়া।

বাঙালি সমাজ যখন ধর্মীয় প্রতিবন্ধকতা আর সামাজিক কুসংস্কারে আচ্ছন্ন ছিল, সেই সময় বেগম রোকেয়া বাংলার মুসলিম নারী সমাজে শিক্ষার আলো নিয়ে এসেছিলেন। বাঙালি মুসলমান নারী জাগরণের তিনি ছিলেন অন্যতম একজন পথিকৃৎ।

বেগম রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেনের জন্ম ১৮৮০ সালের ৯ই ডিসেম্বর রংপুর জেলার পায়রাবন্দ গ্রামে এক অভিজাত পরিবারে।

মেয়েদের শিক্ষার ব্যাপারে তাঁর পরিবার ছিল খুবই রক্ষণশীল। সেসময় তাঁদের পরিবারে মেয়েদের লেখাপড়া শেখানোর কোন চল ছিল না।

আর তৎকালীন সমাজব্যবস্থায় ঘরের বাইরে গিয়ে মেয়েদের প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষালাভেরও কোন সুযোগ ছিল না।

Link: https://www.bbc.com/bengali/news-50716431?at_custom2=facebook_page&at_custom3=BBC+Bangla&at_medium=custom7&at_campaign=64&at_custom1=%5Bpost+type%5D&at_custom4=7296C088-640D-11EA-BDB1-05D0C28169F1&fbclid=IwAR3kau7xrpXrvkBSdqK4OzYCx5TxLu65m4iNLAqdQPeMmdSBh-cnzk5S8CI

9
সঞ্চয় মানেই ভবিষ্যতের ভাবনা। বিন্দু বিন্দু করেই সিন্ধু তৈরি হয়। তাই অল্প অল্প করে সঞ্চয় করার অভ্যাস তৈরি করুন। যাঁরা চাকরি করছেন তাঁদের জন্য সঞ্চয় করা সহজ। এ ছাড়া যাঁরা ব্যবসা করেন, ফ্রিল্যান্সিং করেন তাঁদেরও সঞ্চয় করা উচিত। সঞ্চয় আসলে সবার জন্যই। এটি সবাইকে নিরাপদ করতে পারে। তাই সঞ্চয়ের জন্য কখনই ‘করি-করছি-করব’ ভেবে সময় নষ্ট করবেন না। কম করে টাকা খরচ করলেই শুধু টাকা বাড়ে না। টাকা বাড়ার জন্য সঠিকভাবে সঞ্চয় করতে হয়।

যা করতে পারেন
১. জীবনযাপনের ধরন পরিবর্তন করুন। হ্যাঁ, সঞ্চয়ের জন্য জীবনযাপনের ধরন পরিবর্তন করা খুবই জরুরি। নইলে আপনি সঞ্চয় করতে পারবেন না। মনে রাখবেন, যখন আপনি চাকরি করছেন তখন আপনার কর্মপরিকল্পনা অন্যদের চেয়ে আলাদা। এটাকে দীর্ঘদিনের জন্য চালিয়ে নিতে আপনার আগের জীবনযাপন খুব একটা কাজ করবে না। আগের মতো চললে প্রচুর খরচ হতে থাকবে এবং মাস শেষে আপনার হাতে প্রায় কিছুই থাকবে না।

২. নিজের জন্য খরচ করুন। হাতে টাকা আছে বলে প্রয়োজনের অতিরিক্ত কিছু কিনে অযথাই টাকা নষ্ট করবেন না। বরং এমনভাবে খরচ করুন যাতে সেই খরচ ভবিষ্যতের জন্য আপনাকে সহায়তা করে।

৩. ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানে সঞ্চয়ের জন্য প্রথমে ভেবে নিন আপনি কীভাবে সঞ্চয় করতে চান, কত দিনের জন্য সঞ্চয় করবেন, কত টাকা করে সঞ্চয় করবেন। আপনার পাওয়া বেতনের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে তারপর ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে খোঁজ নিন। ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপনে ভুলবেন না। প্রকৃত অবস্থার খোঁজ নিন নিজে।

৪. আপনি যে অফিসে চাকরি শুরু করেছেন সে অফিসের সঙ্গে কোনো না কোনো আর্থিক প্রতিষ্ঠান অথবা ব্যাংক যুক্ত আছে। প্রথমে সেসব প্রতিষ্ঠানের খোঁজ করুন। আপনি যে প্রতিষ্ঠানে চাকরি করছেন তার সঙ্গে কোনো ব্যাংকের বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের যদি চুক্তি না থাকে, তাহলে পছন্দসই ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের খোঁজ করে তাদের সেবাগুলো ভালোভাবে দেখে নিন। প্রয়োজনে অভিজ্ঞ কারও পরামর্শ গ্রহণ করুন কোন সেবাটি আপনি নেবেন সে ব্যাপারে।

৫. জরুরি সময়ের জন্য প্রতি মাসে কিছু করে টাকা জমান। এই টাকা আপনার ব্যাংকে রাখা টাকার বাইরে রাখুন। খুব জরুরি প্রয়োজনেই শুধু এই টাকা খরচ করুন। এতে ব্যাংকে রাখা টাকায় হাত দিতে হবে না।

৬. প্রতি মাসের বাজেট তৈরি করুন। মাসের প্রথম দিন থেকে এ বাজেট অনুসরণ করুন। বাজেটের বাইরে প্রয়োজন না হলে টাকা খরচ করবেন না।

৭. প্রথমে এক বছর বা দুই বছর এ রকম স্বল্পকালীন সঞ্চয়ের পরিকল্পনা করুন। স্বল্পকালীন এ সঞ্চয় আপনাকে এককালীন বেশ ভালো পরিমাণ টাকা দেবে। সেই টাকা একসঙ্গে করে দীর্ঘ মেয়াদে সঞ্চয়ের চিন্তা করতে পারেন। কিন্তু স্বল্পকালীন সঞ্চয় বন্ধ করবেন না।

৮. আমাদের দেশে যৌথ সঞ্চয়ের প্রবণতা রয়েছে। যে প্রতিষ্ঠানে চাকরি করছেন সেখানে আপনার সমমানসিকতার সহকর্মীদের একত্রিত করে প্রতি মাসে নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ কোনো ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানে সঞ্চয় করতে থাকুন। প্রতিষ্ঠানের বাইরে এভাবে আপনার বন্ধুদের সঙ্গেও সঞ্চয় করতে পারেন।

৯. বিশ্বের ধনীদের অন্যতম ওয়ারেন বাফেট বলেছিলেন, ‘আপনার সব ডিম এক ঝুড়িতে রাখবেন না।’ এ কথাকে মেনে বিভিন্নভাবে সঞ্চয় করুন। বিভিন্নভাবে সঞ্চয় মানে কিন্তু একাধিক ব্যাংকে টাকা জমানো নয়। প্রতি মাসে আপনার মূল সঞ্চয়ের বাইরেও কিছু টাকা রেখে দিন আপনার কাছে। এ টাকা খরচ করবেন না।

১০. অবজ্ঞা না করে খুচরো পয়সা সঞ্চয়ের অভ্যাস করুন। একটা সময় পর দেখবেন আপনার জমানো খুচরো পয়সা আপনাকে অনেক সাহায্য করবে।

বিন্দু বিন্দু করে সিন্ধু করতে চাইলে দেরি না করে আজকে থেকেই শুরু করুন।

10
মেয়েটির বয়স মাত্র ছয় বছর। কিন্তু এই বয়সেই সে একটি পাঁচতলা বাড়ির মালিক। বাড়িটির দাম প্রায় ৮০ লাখ মার্কিন ডলার, বাংলাদেশি মুদ্রায় যা ৬৭ কোটি টাকার কিছু বেশি। পুরো অর্থই সে জোগাড় করেছে নিজের উপার্জন থেকে। বলা হচ্ছে দক্ষিণ কোরিয়ার জনপ্রিয় ইউটিউব তারকা বোরামের কথা।

ইউটিউবে বোরামের দুটি চ্যানেল রয়েছে। একটিতে বাজারে আসা নতুন নতুন খেলনার রিভিউ পোস্ট করে সে। এই চ্যানেলের সাবস্ক্রাইবার ১ কোটি ৩৬ লাখ। অপরটি ভিডিও ব্লগ। এটির সাবস্ক্রাইবার ১ কোটি ৭৬ লাখ। দুই চ্যানেল মিলিয়ে বোরামের অনুসারী তিন কোটির বেশি। দক্ষিণ কোরিয়ার শিশুরা এখন একনামে চেনে তাকে। ইউটিউবে তার সবচেয়ে জনপ্রিয় ভিডিওটি দেখা হয়েছে ৩৭ কোটি ৬০ লাখ বার। ওই ভিডিওতে প্লাস্টিকের খেলনা রান্নাঘরে ইনস্ট্যান্ট নুডলস বানাতে দেখা যায় তাকে। ক্যামেরার সামনে বোরামের খুব আগ্রহ নিয়ে নুডলস খাওয়া শুধু শিশুদের নয়, বড়দেরও মন কেড়েছে।

সম্প্রতি বোরাম ইউটিউব থেকে হওয়া আয় দিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউলের নামী এলাকা গ্যাংনামে একটি বাড়ি কিনেছে। এ নিয়ে স্থানীয় সংবাদমাধ্যমে সংবাদও প্রচারিত হয়েছে। সিউলের একটি আবাসন কোম্পানির নথি ঘেঁটে দেখা যায়, বোরামের নামে কেনা গ্যাংনামের বাড়িটির দাম ৯৫০ কোটি কোরীয় ওয়ান (৮০ লাখ মার্কিন ডলার)। এই অর্থের উৎস ইউটিউব চ্যানেল থেকে বোরামের আয় বলে নথিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

ইউটিউবে শিশুদের রাতারাতি তারকা বনে যাওয়া অবশ্য নতুন নয়। মার্কিন সাময়িকী ফোর্বস-এর তথ্যমতে, গত বছর ইউটিউবে শীর্ষ আয়কারী রায়ান কাজির বয়স মাত্র সাত বছর। যুক্তরাষ্ট্রের এই শিশু রায়ান টয়সরিভিউ নামের ইউটিউব চ্যানেল থেকে গত বছর ২ কোটি ২০ লাখ ডলার আয় করে। তার সাবস্ক্রাইবার ২ কোটি ৮ লাখ।

11
Life Style / কী খেলে রুচি বাড়বে?
« on: August 18, 2018, 01:24:52 PM »
মুখে মোটেও রুচি নেই, কিছুই খেতে ইচ্ছে করে না। কী খেলে রুচি বাড়বে? এমন প্রশ্ন অনেকের। নানা কারণে অরুচি হয় আমাদের। গ্যাসের সমস্যা, কোষ্ঠকাঠিন্য, যকৃৎ বা কিডনি রোগ, জ্বরের বা সংক্রমণের পর, নানা ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায়, এমনকি মানসিক চাপ বা বিষণ্নতার কারণেও রুচি কমে যায়। গর্ভাবস্থায় ও বাড়ন্ত শিশুদের খাবারে অনীহা দেখা যায়। খাবারে রুচি বাড়ানোর জন্য কিছু কৌশল:

• খাওয়ার শুরুতে বা মাঝখানে পানি পান করবেন না।

• খাবারের স্বাদ, রং, গন্ধ মানুষের রুচিকে প্রভাবিত করে। তাই খাবার আকর্ষণীয় করে পরিবেশন করুন।
• প্রতিদিন কিছু হালকা ব্যায়াম করুন বা হাঁটুন। বিপাকক্রিয়া বাড়বে ও খিদেও বাড়বে। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে বেশি করে আঁশযুক্ত খাবার খান।

• রোগবালাই, জ্বর সংক্রমণের পর কিছুদিন অরুচি থাকে। এ সময় পুষ্টিকর খাবার বেছে নিন। স্যুপ, ফলমূল, ফলের রস, মিল্কশেক, আমিষ ইত্যাদি খান।

• গ্যাসের সমস্যা না থাকলে খাবারে রুচি বাড়াতে নানা ধরনের মসলা যোগ করা যায়। যেমন: গোলমরিচ, এলাচি, আদা, রসুন, ভিনেগার, লেবুর রস, নানা পদের আচার দিয়ে খাবার খেতে পারেন। এগুলো রুচিবর্ধক। কিন্তু গ্যাসের সমস্যা হলে একটু কম মসলা দিয়ে সহজপাচ্য খাবার খান।

• ফাস্টফুড, কোমল পানীয়, চিপস জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলুন। এগুলো রুচি কমিয়ে দেয় ও অনেকক্ষণ পর্যন্ত পেট ভরিয়ে রাখে।

• অতিরিক্ত চা, কফি, ধূমপান খিদে কমিয়ে দেয়। দুগ্ধজাত খাবার, যেমন: পনির, দই ইত্যাদি রুচি বাড়ায়।

• রুচি বাড়াতে কাঁচা আমলকী বা শুকনো আমলকীর গুঁড়ো পানিতে মিশিয়ে, আদাকুচি বা আদার রস গরম পানি বা চায়ের সঙ্গে, পুদিনাপাতা, এলাচিগুঁড়া বা চিনি দিয়ে খেতে পারেন। ডালিমের রস, কমলা বা মালটা, লেবু রুচি বাড়ায়। খাদ্যে ব্রকলি, টমেটো, ধনেপাতা যোগ করুন।

অরুচি দীর্ঘস্থায়ী হলে, ওজন হ্রাস, জ্বর, দুর্বলতা ইত্যাদি থাকলে অবশ্যই চিকিৎসকের শরণাপন্ন হবেন।

https://www.prothomalo.com/life-style/article/1554085/%E0%A6%95%E0%A7%80-%E0%A6%96%E0%A7%87%E0%A6%B2%E0%A7%87-%E0%A6%B0%E0%A7%81%E0%A6%9A%E0%A6%BF-%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A7%9C%E0%A6%AC%E0%A7%87

12
ব্যস্ত জীবনে মানুষের জলখাবারের অনেকাংশই এখন কেক, চিকেন নাগেট আর পাউরুটি-বানের দখলে। এই খাবারগুলো ‘অতি প্রক্রিয়াজাত’ খাবারের তালিকায় পড়ে। ফ্রান্সের গবেষকেরা বলছেন, এসব খাবারের সঙ্গে ক্যানসারের কোনো না কোনো যোগসূত্র থাকতে পারে। ১ লাখ ৫ হাজার মানুষের ওপর গবেষণা চালিয়ে এ সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন তাঁরা। অংশগ্রহণকারীদের অধিকাংশই মধ্যবয়সী নারী। গবেষকেরা জরিপে অংশগ্রহণকারীদের পাঁচ বছর ধরে পর্যবেক্ষণ করেছেন।

গবেষণায় বিজ্ঞানীরা দেখেছেন, খাদ্যতালিকায় অতি প্রক্রিয়াজাত খাবারের উপস্থিতি যত বেশি, ক্যানসারের ঝুঁকিও তত বেশি।

ফ্রান্সের সরবোন প্যারিস সিটি ইউনিভার্সিটির গবেষক দলটি মানুষের খাদ্যাভ্যাসের ওপর ওই জরিপটি চালায়। গবেষণায় প্রাপ্ত ফলাফল ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নালে গত বুধবার প্রকাশিত হয়েছে।

অতি প্রক্রিয়াজাত খাবার কোনগুলো
এ তালিকায় সবার আগে রয়েছে ব্যাপক হারে প্রস্তুত ও বাজারজাত করা পাউরুটি ও বান। রয়েছে চকলেট বার ও মিষ্টান্ন। মিষ্টি অথবা মসলাদার স্ন্যাক্স, সোডা ও মিষ্টি পানীয়, মিটবল, হাঁস-মুরগি ও মাছের নাগেট, ইনস্ট্যান্ট নুডলস ও স্যুপ, হিমায়িত অথবা দীর্ঘ সময় ধরে সংরক্ষিত প্রস্তুতকৃত খাবার এবং চিনি, তেল ও চর্বি দিয়ে তৈরি খাবারও রয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আগেই জানিয়েছে, প্রক্রিয়াজাত মাংস কিছুটা হলেও ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়। এ ছাড়া ধূমপানের পর স্থূলতাকে ক্যানসারের সবচেয়ে বড় প্রতিরোধযোগ্য কারণ হিসেবে চিহ্নিত করেছেন বিজ্ঞানীরা। এ ক্ষেত্রে পরিমিত খাদ্যাভ্যাস ক্যানসারের ঝুঁকি থেকে বাঁচার সবচেয়ে সহজ উপায়।

গবেষণায় প্রাপ্ত ফলাফল
ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নালে প্রকাশিত গবেষণার ফলাফলে দেখা গেছে, খাদ্যতালিকায় অতি প্রক্রিয়াজাত খাবারের পরিমাণ যদি ১০ শতাংশ বাড়ে, তাহলে ক্যানসার আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার হার ১২ শতাংশ বাড়ে। গড়ে ১৮ শতাংশ মানুষ অতি প্রক্রিয়াজাত খাবারের ওপর নির্ভরশীল। আর বছরে গড়ে ১০ হাজার মানুষের ৭৯ জনের দেহে ক্যানসার ধরা পড়ে।

নিবন্ধটির উপসংহারে গবেষকেরা বলেছেন, অতি প্রক্রিয়াজাত খাবারের ওপর নির্ভরশীলতা যে দ্রুত হারে বাড়ছে, তাতে আগামী দশকে ক্যানসার রোগীর সংখ্যা নাটকীয়ভাবে বেড়ে যাবে। তবে এ ব্যাপারে আরও বড় পরিসরে গবেষণা প্রয়োজন বলে উল্লেখ করেছেন তাঁরা।

সতর্কসংকেত
যুক্তরাজ্যের কুয়াড্রাম ইনস্টিটিউটের ইয়ান জনসন বলেছেন, অতি প্রক্রিয়াজাত খাবারের যে সংজ্ঞা ব্যবহার করেছেন গবেষকেরা, তার পরিসর অনেক বড়। কাজেই এই গবেষণায় অতি প্রক্রিয়াজাত খাবারের সঙ্গে ক্যানসারের কার্যকরী সংযোগের বিষয়টি স্পষ্ট নয়।


http://www.prothomalo.com/life-style/article/1432251/%E0%A6%85%E0%A6%A4%E0%A6%BF-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BF%E0%A7%9F%E0%A6%BE%E0%A6%9C%E0%A6%BE%E0%A6%A4-%E0%A6%96%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%87-%E2%80%98%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%9D%E0%A7%81%E0%A6%81%E0%A6%95%E0%A6%BF%E2%80%99

13
গর্ভাবস্থায় হবু মায়েদের অন্যতম একটি সমস্যা হলো ঘুমের সমস্যা। গর্ভাবস্থায় হরমোনের পরিবর্তন ও শারীরিক নানা সমস্যার জন্য স্বাভাবিকভাবেই ঘুম ঠিক মতো হয় না। আর এসবের সাথে রয়েছে হবু মায়ের মানসিক দুশ্চিন্তা, অনাগত শিশুর আগমন নিয়ে উত্তেজিত থাকা, ক্রমাগত বাথরুমে যাওয়া আসা এবং আরও আনুশাংগিক সব সমস্যা। আর এতো সব কিছু মিলিয়ে প্রেগন্যান্ট অবস্থায় প্রতি ১০ জনের প্রায় ৮জন মহিলায় গর্ভাবস্থায় ঘুমের সমস্যায় ভোগেন।

গর্ভাবস্থায় ঘুমের সমস্যা
ঘুম ভালো না হলে শরীর এবং মন কোনটাই ভালো থাকে না। ঘুমের যেসব ওষুধ প্রচলিত আছে গর্ভাবস্থায় সেসবের ব্যবহার অনেক ক্ষেত্রেই নিরাপদ নয়। আপনার গর্ভাবস্থার সময়ের উপর নির্ভর করে মর্নিং সিকনেস, দুঃস্বপ্ন বা লেগ ক্র্যাম্প সবকিছুই আপনার ঘুমকে প্রভাবিত করে। প্রজেসটেরণ, ইস্ট্রজেন, মেলাটোনিন, গর্ভাবস্থায় মহিলাদের শরীরের অনেক সাহায্য করে তবে এর মধ্যে হারিয়ে যায় হবু মায়েদের ঘুম!  প্রজেসটেরণ হরমোন মসৃণ পেশীকে শিথিল করে। তার ফলে নাক বন্ধ হয়ে যায়, বুকে ব্যথা করে এবং একাধিক বার বাথরুম যেতে হয়। তবে এটার কারণে মানুষ স্বপ্ন কম দেখে ও ঘুম খুব তাড়াতাড়ি চলে আসে! অন্যদিকে ইস্ট্রজেন রক্তনালী বিস্তৃত করে! এর জন্য রাতে ঘুমনোর সময় শ্বাসকষ্ট হয় এবং পা ফুলে। তাতে ঘুম আরও কমে যায়।


তবে আশার কথা হলো গর্ভাবস্থায় ঘুমের সমস্যা আপনি কিছু নিয়ম মেনে চলে কাটিয়ে উঠতে পারেন। আমাদের ট্রাইমেস্টার অনুযায়ী গাইড গর্ভাবস্থায় আপনার ঘুমের সমস্যা কিছুটা হলেও কাটিয়ে উঠতে সাহায্য করবে।

গর্ভাবস্থার প্রথমে দিকে সারাদিনই ঘুম ঘুম ভাব থাকে। শরীরে  প্রজেসটেরণ হরমোন এর  বৃদ্ধিই এর কারণ। গর্ভাবস্থায় এ হরমোন খুবই এ গুরুত্বপূর্ণ। এ হরমোনটির কারণে যেমন সব সময় ঘুম আসে তেমনি এটিই আবার আপনার রাতের ঘুম নষ্টও করে ফলে সারাদিন আরও বেশী ক্লান্ত লাগে।

এই সময়ে এমনটি লাগার আরও একটি কারণ হোল- আপনার শরীরের বিপাকীয় পরিবর্তন। ভ্রুনের বৃদ্ধির জন্য এসময় অনেক বেশী শক্তি খরচ হয় যা আপনার শরীরকে ক্লান্ত করে দেয়।

প্রথম ট্রাইমেস্টার এ ঘুমের সমস্যার কারণ-
ঘন ঘন বাথরুম এ যাওয়ার প্রয়োজন- প্রেগন্যান্ট অবস্থায় শরীরে বর্ধিত প্রজেস্টেরন বারবার প্রস্রাব হওয়ার অন্যতম কারণ। প্লাস কিডনি এই সময় স্বাভাবিকের তুলনায় প্রায় ৫০% রক্ত ফিল্টার করে যার মানে হচ্ছে আরও বেশি প্রস্রাবের চাপ হওয়া। তাছাড়া গর্ভাবস্থায় ক্রমবর্ধমান জরায়ু আপনার মূত্রাশয়ের সাথে এতো বেশি লেগে থাকে যার কারণে বারবার বাথরুম অনুভূত হয়। এর কারণে গর্ভাবস্থায় ঘুমের সমস্যা হয়।

শুয়ে কমফোর্টেবল ফিল না করা- প্রেগন্যান্ট মহিলাদের অন্যতম বড় সমস্যা হল ঘুমাতে এসে বিছানায় আরাম না পাওয়া। এর কারণ হিসেবে আপনার শরীরের পরিবর্তন, স্তনের পরিবর্তন, মানসিকভাবে অস্থির থাকা ইত্যাদিকে দায়ী করা যায়। বিশেষ করে আপনার যদি উপুড় হয়ে ঘুমানোর অভ্যাস থাকে তাহলে এ সময় এভাবে ঘুমানো আপনার জন্য অসম্ভব হয়ে দাঁড়াবে ।

সমাধানঃ
ঘুমের রুটিন তৈরি করুন- গর্ভাবস্থায় ঘুমের রুটিন তৈরি করুন। দিনে অন্তত একবার বা দুইবার হালকা ঘুমিয়ে নেয়ার চেষ্টা করুন। তবে তা দুপুর ২ টা থেকে ৪ টার মদ্ধে হলে ভাল। নয়তো রাতে ঘুমের সমস্যা হতে পারে। একবারে বেশী ঘুমানোর চাইতে চেষ্টা করুন দুইবার কম সময় করে ঘুমানোর।

সন্ধ্যার পর পানি কম খান- সারাদিন বেশি করে পানি খেতে হবে। সন্ধ্যার পর পানি খাওয়ার পরিমাণ কমিয়ে দিতে হবে। ফলে বার বার প্রস্রাব হবে না এবং গর্ভবতী স্বাচ্ছন্দ্যে ঘুমাতে পারবেন। আপনার যদি চা বা কফি খাওয়ার অভ্যাস থাকে তবে তা শুধুমাত্র সকালের দিকে খাওয়ার চেষ্টা করুন। চা বা কফি অতিরিক্ত প্রস্রাব এর কারণ। এগুলো কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রকে উত্তেজিত করে। ফলে ভালো ঘুম হয় না।

হাতের কাছে কিছু খাবার রাখুন- সারাদিন যাই খান রাতে অবশ্যই আপনার খুব কাছে হালকা কিন্তু হেলদি এমন কিছু খাবার মজুদ করে রাখুন। যেমন ফ্রেশ ফলমূল, চিজ, সিদ্ধ ডিম, হেলদি স্ন্যাকস, সামান্য কিছু টোষ্ট সাথে বাটার। ক্ষিধা পেলে এগুলো কিছুটা খেয়ে শুয়ে পরুন দেখবেন পরবর্তীতে আরামে ঘুমাতে পারছেন।

ব্যায়াম করুন প্রতিদিন- বিভিন্ন গবেষণায় দেখা যায়, প্রতিদিন ৩০ মিনিট হালকা সাধারন ব্যায়াম সঠিক সময়ে ঘুমাতে সাহায্য করে। তবে খেয়াল রাখা উচিৎ, গর্ভবতী মায়েরা যাতে কোন ধরনের ভারী ব্যায়াম না করেন। প্রতিদিন নিয়ম করে ব্যায়াম করলে তা আরামদায়ক ও গভীর ঘুম আনতে সহায়তা করবে। গর্ভবতী মা ইয়োগা করলে তা অন্যান্য উপকারের পাশাপাশি গর্ভাবস্থায় ঘুমের সমস্যা মোকাবেলায় ভালো ভূমিকা রাখতে পারবে। ব্যায়াম সাধারানত সকালে বা বিকেলে করা উচিত। সন্ধ্যার পর করলে তা ইনসমনিয়ার কারণ হতে পারে।

দ্বিতীয় ট্রাইমেস্টার এ ঘুমের সমস্যার কারণ-
বুক জ্বালা পোড়া করা- গর্ভাবস্থায় শরীরে হরমোনের তারতম্যর কারণে বুক জ্বালা পোড়া হতে পারে। বলতে গেলে গর্ভাবস্থায় বুক জ্বালা পোড়া অন্যতম সাধারণ সমস্যা। প্রেগন্যান্সি হরমোনের কারণে Lower esophagel sphincter শিথিল হয়ে যাই যার ফলে পাকস্থলীর অ্যাসিড গলনালির দিকে বের হয়ে আসে। এছারাও জরায়ুর বৃদ্ধির ফলে অনেক সময় পাকস্থলীতে চাপ সৃষ্টি হয়ে পাকস্থলীর অ্যাসিড উপরের দিকে উঠে আসতে পারে যার ফলে বুক জ্বালা পোড়া করে।

লেগ ক্রাম্পস– প্রেগন্যান্ট মহিলারা বারবার ঘুম ভেঙ্গে যাওয়ার জন্য সবচেয়ে যে সমস্যা ফেস করে থাকেন সেটা হল লেগ ক্রাম্পস বা পায়ে ভীষণ অস্বস্তিকর ব্যথা অনুভূত হওয়া। মূলত এটা পায়ে রক্তসঞ্চালন জনিত সমস্যা ও প্রেগন্যান্ট অবস্থায় শরীরের অতিরিক্ত ওয়জন জনিত কারণে হয়ে থাকে। যদিও এই সমস্যা দিনেও দেখা দেই তবে সবচেয়ে বেশি হয় এটা রাতে আর যার কারণে গর্ভবতী মহিলা ঘুম না হওয়া ও বারবার ঘুম ভেঙ্গে যাওয়া নিয়ে ভোগেন।

দুঃস্বপ্ন দেখা- গর্ভাবস্থায় মানসিক পরিবর্তন ঘটে। এসময় মনের ভেতরে অজানা আশংকা বা ভয় তৈরী হয়। এই কারণেও ঠিকমত ঘুম হয়না।  অনেকেই এ সময় অনেক দুঃস্বপ্ন দেখেন যা ঘুমের সমস্যা সৃষ্টি করে।
সমাধানঃ
খাওয়ার পরপরই না শোওয়া- গর্ভাবস্থায় খাদ্য পরিপাক হতে অনেক সময় লাগে। তাই এ সময় খাওয়ার পর অন্তত চার ঘণ্টা না শোওয়াই ভালো। এতে পাকস্থলী থেকে নির্গত এসিড নিচের দিকেই থাকে। বুক জ্বালাপোড়ার সমস্যা থাকলে সকালে বেশী খেয়ে রাতে কম খেলে এ অবস্থার উন্নতি হতে পারে।

ভাজা পোড়া খাবার পরিহার করুন-  ভাজা পোড়া খাবার পরিহার করুন এবং বেশি মশলাযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলুন।

চা-কফি পান নিয়ন্ত্রন করুন-  চকলেট, চা, কফি বর্জন করতে হবে। এগুলো কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রকে উত্তেজিত করে। ফলে ভাল ঘুম হয়না। খেলেও সকালের দিকে খাওয়া যেতে পারে। সন্ধ্যার পর খাওয়া একবারেই অনুচিত।

ব্যায়াম করন প্রতিদিন- বিভিন্ন গবেষণায় দেখা যায়, প্রতিদিন ৩০ মিনিট হালকা সাধারন ব্যায়াম সঠিক সময়ে ঘুমাতে সাহায্য করে। তবে খেয়াল রাখা উচিৎ, গর্ভবতী মায়েরা যাতে কোন ধরনের ভারী ব্যায়াম না করেন। প্রতিদিন নিয়ম করে ব্যায়াম করলে তা আরামদায়ক ও গভীর ঘুম আনতে সহায়তা করবে। গর্ভবতী মা ইয়োগা করলে তা অন্যান্য উপকারের পাশাপাশি গর্ভাবস্থায় ঘুমের সমস্যা  সমাধানে ভালো ভূমিকা রাখতে পারবে।

 

তৃতীয় ট্রাইমেস্টার এ ঘুমের সমস্যার কারণ- 
ব্যাক পেইন- গর্ভাবস্থায় হরমোনের তারতম্যের কারণে এবং ওজন বৃদ্ধির কারণে ব্যাক পেইনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। গর্ভাবস্থার একদম শুরু থেকে শেষ পর্যন্তও কখনও কখনও থাকে ব্যাক পেইন। ৬০ ভাগ মহিলার ক্ষেত্রেই ব্যাক পেইন এর কারণে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটে।

ঘন ঘন প্রস্রাব- জরায়ু আকারে বড় হওয়া এবং বাচ্চার নিচের দিকে নেমে যাওয়ার কারণে এ সময় আবার মুত্রথলির উপর অতিরিক্ত চাপ পড়ে। তাই বার বার প্রস্রাব এর সমস্যা এসময় আবার দেখা দেয়।

শ্বাস প্রশ্বাস এ সমস্যা- গর্ভাবস্থার ১৬ সপ্তাহ পার হয়ে যাবার পর অনেকক্ষণ চিত হয়ে শুয়ে থাকলে আপনার জ্ঞান হারানোর মতো অনুভূতি হতে পারে, কারণ গর্ভস্থ শিশুটির সকল চাপ তখন রক্তনালীগুলোর ওপর পড়ে। এ সময় আপনার নাসারন্দ্রহ বন্ধ হয়ে যেতে পারে যার কারণে নাক ডাকার সমস্যা দেখা দেয়।

রেস্টলেস লেগ সিনড্রোম (RLS) – প্রায় ২০ ভাগ মায়েদের একধরনের অদ্ভুত অনুভূতি হয় যখন তাদের মনে হয় তাদের পায়ের ভেতন পিঁপড়া হাঁটছে। সাধারণ আয়রন এর স্বল্পতার কারণে এমনটা হয় এবং এসব ক্ষেত্রে রাতে ঘুমানোটা অসম্ভব হয়ে ওঠে । 

সমাধানঃ
ব্যায়াম- ব্যাক পেইন দূর করার সবচেয়ে কার্যকরী উপায় হল ব্যায়াম। নিজের পেশীকে শক্তিশালী করার পাশাপাশি শরীরের সর্বস্তরের সুস্থতা খুব সহজেই শিশুকে বহন করার শক্তি যোগায়। তখন ওজন বৃদ্ধির পরও আপনি খুব সহজেই এবং আরামে শিশুকে বহন করতে পারবেন। গর্ভবতী মহিলাদের জন্য শ্রেষ্ঠ ব্যায়াম হল হাঁটা, সাতার কাটা এবং আসতে আসতে সাইকেল চালান। আপনি আপনার ডাক্তারের সাথে আলোচনা করে আপনার জন্য যে ব্যায়ামটি ভাল হয়, সে ব্যায়ামটি করা শুরু করেন।

বাম কাত হয়ে শোওয়া– বাম কাত হয়ে শোয়াটা আপনার বাচ্চার জন্যও ভালো কারণ এতে করে পুষ্টি ও রক্ত প্ল্যাসেন্টা দিয়ে সহজেই বাচ্চার কাছে পৌঁছাতে পারে। আপনার কিডনিও বর্জ্য ও অতিরিক্ত ফ্লুইড আপনার শরীর থেকে বের করে দেয়ার জন্য কাজ করতে পারে। এর ফলে আপনার হাত-পা-গোড়ালি ফুলে যাবার (oedema) সম্ভাবনাও কম থাকে।হাঁটু ভাজ করে বাম কাতে শুয়ে পড়ুন এবং দুই হাঁটুর মাঝখানে নরম বালিশ রাখুন। এতে করে আপনার হিপ ও পেলভিস-এর পেশীর ওপর চাপ কম পড়বে।  পেটের নিচে লম্বা বালিশ দিতে পারলে পিঠের দিকে টান কমায়। রাতে ঘুম ভেঙ্গে গেলে যদি খেয়াল করেন যে আপনি চিত হয়ে ঘুমাচ্ছেন, তাহলে সাথে সাথেই বাম কাতে ফিরে যেতে পারেন। ঘুমানোর সময় পাশে আরেকটা বালিশ দিয়ে নিতে পারেন যার কারণে আপনি ঘুমের মধ্যে খুব বেশি নড়তে পারবেন না।যদি বাম কাতে লম্বা সময় শুয়ে থাকার কারণে আপনার হিপে চাপ পড়ে, তাহলে আপনার ম্যাট্রেসের ওপর দেয়ার জন্য একটা নরম ফোম কিনে নিতে পারেন। এতে আপনি আরাম পাবেন আর বাতাস সঞ্চালনও সহায়ক হবে। ডিপার্টমেন্টাল স্টোর বা অনলাইনেও আপনি মাপ মত ফোম ম্যাট্রেস পাবেন।

গর্ভাবস্থার শেষ দিকে যদি বিছানায় শুয়ে আরাম নাই পান, তাহলে আরামদায়ক আর্মচেয়ারে কিংবা সোফায় এক কাতে শুয়ে ঘুমানোর চেষ্টা করতে পারেন। সমাধান হিসেবে এটা যে সবসময় কার্যকরী হয় তা নয়, তবে ডাক্তার আপনাকে চেষ্টা করে দেখতে বলতে পারেন।

স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহন করুন – ক্যালসিয়াম, আয়রণ ও ভিটামিন গ্রহণ করা উচিত গর্ভাবস্থায়। ফলে হাত পায়ের ব্যথা কমে আসে এবং খিল ধরা বন্ধ হয়। তবে প্রথম তিন মাসে আয়রণ ও ক্যালসিয়াম দেওয়া উচিত নয়।

গর্ভাবস্থায় ঘুমের সমস্যা বড় একটি সমস্যা। ভালো ঘুম না হলে খুব খারাপ লাগে। তখন কোন কিছুই আর ভালো লাগেনা। তাই যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ প্রয়োজন। গর্ভাবস্থায় ঘুমের সমস্যা সমাধানের জন্য উপরেরগুলো ছাড়াও আরও কিছু টিপস অবলম্বন করে দেখতে পারেন-

রাতের রুটিনঃ রাতের খাবার শেষ করার পর কিছু কাজের জন্য আলাদাভাবে রুটিন তৈরী করুন। নিজেকে আনন্দিত ও ব্যস্ত রাখতে পছন্দ অনু্যায়ী লেখালেখি, গান কিংবা সৃজনশীল কাজে সময় দিন। এটি আপনার ঘুম আনতে অবশ্যই সহায়তা করবে।

টিভি/কম্পিউটার ও মোবাইল থেকে বিরতিঃ ঘুমাতে যাবার অন্তত এক ঘন্টা আগে আপনার টিভি, কম্পিউটার সুইচ অফ করুন। এসব ডিভাইস থেকে একটুখানি বিরতির পর ঘুমোতে যান।

বালিশের ব্যবহারঃ ঘুমানোর ক্ষেত্রে মায়ের আরাম সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন। তাই, আপনার যত খুশি বালিশ ব্যবহার করুন। পায়ের নিচে, পিঠে বালিশ আপনার গর্ভকালীন ব্যথা থেকে দিতে পারে কিছুটা স্বস্তি ও আরামের ঘুম। বালিশের অবস্থান এমনভাবে রাখতে হবে যেন তা শুধু মাথা নয়, মায়ের পেট ও পা কেও সমানভাবে আরাম দিতে পারে। এ সময়ের জন্য উপযুক্ত বালিশ কিনতে পাওয়া যায় বা বানিয়ে নেওয়া যায়। তা সম্ভব না হলে পর্যাপ্ত বালিশের সাপোর্ট থাকা জরুরী।

ঠান্ডা পরিবেশঃ ঘুমোনোর সময় আপনার শোবার ঘর ঠান্ডা রাখতে চেষ্টা করুন। বেশ কিছু গবেষণায় দেখা যায় যে, শোবার ঘরের তাপমাত্রা ১৬ থেকে ২০ ডিগ্রী সেলসিয়াস হলে তা ভালো ঘুমের সহায়ক হিসেবে কাজ করে।

হালকা মাসাজঃ ঘুমের আগে শরীরে ম্যাসাজ করলে কিংবা পেটে বডি অয়েল (অবশ্যই গর্ভকালীন সময়ের উপযোগী) ম্যাসেজ মায়ের আরামদায়ক ঘুম আনতে ভালো ভূমিকা রাখবে।

কথা বলুনঃ গর্ভাবস্থায় অনেক কিছুই একজন মায়ের মনে আসতে পারে। এ নিয়ে দুশ্চিন্তা তাঁর রাতের ঘুম নষ্ট হওয়ার অন্যতম কারণ। তাই নিজের ভাবনা-চিন্তা সব আপনার সঙ্গী কিংবা মা-বাবা কিংবা বন্ধুর সাথে শেয়ার করুন। এতে আপনার দুশ্চিন্তা কমবে, ঘুমও ভালো হবে।

এরপরেও কাজ না হলে চিকিৎসকের কাছে যেতে হবে। গর্ভাবস্থায় ঘুমের সমস্যা একটি বড় সমস্যা। তাই এক্ষেত্রে মা নিজে এবং তাঁর কাছের সব মানুষকে ঘুমের ব্যপারে খেয়াল রাখতে হবে। শিশু গর্ভে থাকা অবস্থায় একজন মায়ের ও শিশুর শরীর স্বাস্থ্য ঠিক রাখার জন্য ঘুম অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। একজন গর্ভবতী যদি ভালোভাবে ঘুমোতে না পারেন তবে এটি তাঁর ভবিষ্যৎ মাতৃত্বের জন্য নিজেকে তৈরীর ক্ষেত্রে বাঁধা হয়ে দাঁড়াবে। সুস্থ মা-ই সুস্থ শিশুর জন্ম দেয়। সুতরাং সচেতনতা প্রয়োজন।

http://myfairylandbd.com/%E0%A6%97%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%A5%E0%A6%BE%E0%A7%9F-%E0%A6%98%E0%A7%81%E0%A6%AE%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A6%AE%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE/

Pages: [1]