Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Topics - Humayun Kabir Polash

Pages: [1]
1
যদি আপনি আইটি সিস্টেম, ডিজিটাল মার্কেটিং, বিজনেস রিসার্চ এবং বিজনেস ম্যানেজমেন্টের উপর দক্ষ হয়ে থাকেন তাহলে একজন মার্কেট অ্যানালিস্ট হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করতে পারেন। যদি আপনি জটিলতর টেকনিক্যাল কনসেপ্টগুলোকে অরগানাইজেশন ও কোম্পানির উন্নতির খাতিরে পরিবর্তন করতে পারেন, তাহলে মার্কেট অ্যানালিস্টের বাজারে আপনার এই দক্ষতার অনেক চাহিদা রয়েছেI একজন মার্কেট অ্যানালিস্ট মূলত যেকোনো অরগানাইজেশন বা কোম্পানির স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যানিং এবং টেকনিক্যাল ও মার্কেট এক্সপার্টাইজের উপর কাজ করে থাকেন। মার্কেট ইন্টেলিজেন্সের সাথে সম্পৃক্ত সব ধরণের ডেটা ও ডকুমেন্ট ইন্টারপ্রেট ও অ্যানালাইসিস করার কাজও করে থাকেন। চলুন জেনে আসি, কীভাবে একজন মার্কেট অ্যানালিস্ট হিসেব ক্যারিয়ার গড়া সম্ভবl
মার্কেট অ্যানালিস্ট মূলত বিভিন্ন কোম্পানির মার্কেটিং, প্রমোশন, স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যানিং এবং ডেটা রিসার্চ ও অ্যানালাইসিসের কাজ করে থাকেন। চলুন জেনে নেওয়া যাক একজন মার্কেট অ্যানালিস্টের কাজগুলো:

১. অরগানাইজেশন বা কোম্পানির অন্যান্য কর্মচারীদের সাথে দলগতভাবে মার্কেটিং প্ল্যান ও স্ট্র্যাটেজি তৈরি করা।
২. ক্লায়েন্ট ও অন্যান্য কোম্পানির সাথে রিলেশনশিপ তৈরি করা।
৩. সার্ভিস ডেভেলপ করার জন্য স্টেক হোল্ডার ও ক্লায়েন্টেদের থেকে ফিডব্যাক নেওয়া।
৪. অ্যাডভান্সড ডেটা অ্যানালাইসিস, স্ট্র্যাটেজিক সাজেশন ও পটেনশিয়াল ইম্প্রুভমেন্টের কাজ করা।
৫. আইটি রিসোর্সের সার্ভে করা।
৬. আইটি প্রসেস ইমপ্লিমেন্টেশন ও রেকোমেন্ডেশন পরিবর্তন করা।
৭. সিনিয়র ম্যানেজমেন্টের সাথে যেকোনো বিষয়ে কোলাবোরেশন করা।
৮. অন্যান্য ডিপার্টমেন্টকে অনগোয়িং সাপোর্ট দেওয়া।
৯. কী-স্টেক হোল্ডারদের কাছে প্রেজেন্টেশন, রিপোর্ট, ডকুমেন্ট এবং সাজেশন পাঠানো।
১০. বিভিন্ন ধরণের ডেটা অ্যানালাইসিস টুলস দ্বারা প্রজেক্ট অ্যানালাইজ করা।
১১. রিপোর্টিং কোয়ালিটি ডেভেলপ করা।
১২. ইন্টিগ্রেশন এবং এক্সেপ্টেন্স টেস্টিংয়ে অন্যান্য বিভাগকে সহায়তা করা।
১৩. ট্রেইনিং মেটেরিয়াল ও সাজেশন ডেভেলপ করা।
১৪. মার্কেট ও টেকনোলজির মধ্যে ইন্টারপ্রেটার হিসেবে কাজ করা।
১৫. বিভিন্ন বিভাগকে প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্টে সহায়তা করা।

মার্কেট অ্যানালিস্টের পদটি আপনার জন্যে উপযুক্ত কি?
একজন মার্কেট অ্যানালিস্টকে এক বা একাধিক কোম্পানি বা অর্গানাইজেশনের মার্কেটিংয়ের কাজ করতে হয় এবং একইসাথে মার্কেট অ্যানালাইসিস, রিসার্চ ও ডেভেলপমেনন্টের দিকেও নজর রাখতে হয়। তিনি বিভিন্ন ধরণের স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যানিং ও রিসার্চের মাধ্যমে যেকোনো ব্যক্তির বা কোম্পানির পণ্য বিক্রি বৃদ্ধির জন্য দিকনির্দেশনা দিয়ে থাকেন। একজন মার্কেট অ্যানালিস্টের বাৎসরিক বেতন ২০ লক্ষ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৭০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত হতে পারে।কিন্তু এর বিপরীতে আপনাকে অনেক কষ্ট করতে হবে। সঠিক অ্যানালাইসিসের মাধ্যমে দিকনির্দেশনা প্রদান করা, যেকোনো কোম্পানি ও পণ্যের বিভিন্ন ধরণের অ্যানালিটিক্স সম্পর্কে জানা, যেকোনো সময় মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজি পরিবর্তন করাসহ আরো অনেক ধরণের কাজ রয়েছে একজন মার্কেট অ্যানালিস্টের। সুতরাং ভেবে দেখুন এই পদে আপনি ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন কিনা। এই পদটি আপনার প্যাশন ও দক্ষতার সাথে কতটুকু উপযুক্ত, তা নিয়েও ভেবেচিন্তে সিদ্ধান্ত নিন।
একজন মার্কেট অ্যানালিস্টের ক্যারিয়ার কেমন হতে পারে?
একজন মার্কেট অ্যানালিস্ট হিসেবে ক্যারিয়ার গড়ার পূর্বে আপনি, বিজনেস ম্যানেজমেন্ট, নেটওয়ার্ক মার্কেটার, ডিজিটাল মার্কেটার, বিজনেসম্যান, বিজনেস ম্যানেজার, প্রজেক্ট ম্যানেজার অথবা ডেটা অ্যানালিস্টের চাকরি দ্বারা ক্যারিয়ার শুরু করতে পারেন। উপরোক্ত পদগুলো থেকে অভিজ্ঞতা অর্জন করে মার্কেট রিসার্চার, মার্কেট অ্যানালিস্ট, বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসার, বিজনেস অ্যানালিস্ট, প্রজেক্ট ম্যানেজার, ডিজিটাল মার্কেটার অথবা বিজনেস অ্যাডভাইজার হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে পারবেন।
একজন সিনিয়র লেভেলের মার্কেট অ্যানালিস্ট হওয়ার পূর্বে আপনার অভিজ্ঞতার ঝুলিতে ব্যবসা ও মার্কেটিং খাতের অন্য রকমের কিছু পেশার দক্ষতা ও যোগ্যতা থাকলে, মার্কেট অ্যানালিস্ট হওয়াটা অনেক সহজ হয়ে যাবে আপনার জন্য।

একজন মার্কেট অ্যানালিস্ট হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে চাইলে, আপনাকে যে সকল বিষয়ে পারদর্শী হতে হবে তা হচ্ছে:
১. নন টেকনিক্যাল ডিপার্টমেন্টে টেকনিক্যাল বিষয়গুলো বোঝানোর ক্ষমতা থাকতে হবে।
২. মোটিভেশন করার দক্ষতা থাকতে হবে।
৩. অনেকগুলো প্রজেক্ট একসাথে চালানোর দক্ষতা থাকতে হবে।
৪. সল্যুশন ইমপ্লিমেন্টেশনের অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।
৫. অসাধারণ অ্যানালিটিক্যাল দক্ষতা থাকতে হবে।
৬. সাজেশন কোয়ান্টিফাই করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।
৭. বিজনেস ডেভেলপমেন্ট ও বিজনেস ম্যানেজমেন্ট সম্পর্কে অভিজ্ঞ হতে হবে।
৮. আইটির উপর অসাধারণ দক্ষতা থাকতে হবে।
৯. ডকুমেন্ট অ্যানালাইসিস, প্রসিডিউর অবসার্ভেশন ও কোর ইস্যু রিপোর্টিংয়ের দক্ষতা থাকতে হবে।
১০. মাইক্রোসফট অফিস, লিবরা অফিস ও অন্যান্য অফিস অ্যাপ্লিকেশনের উপর অভিজ্ঞ হতে হবে।
১১. এসকিউএল, ওরাকল, জাভা, ডট নেট ও সি শার্পের মতো রিসার্চ বেইজড প্রোগ্রামিং ভাষায় দক্ষতা থাকতে হবে।
১২. এলিসিটেশন টেকনিক, বিজনেস ডেভেলপমেন্ট টেকনিক ও মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজির উপর পারদর্শী হতে হবে।
১৩. প্রজেক্ট স্টেক হোল্ডার আইডেন্টিফাই ও ম্যানেজমেন্টের দক্ষতা থাকতে হবে।
১৪. স্ট্র্যাটেজি অ্যানালাইসিস ও প্ল্যানিং প্রিভিউ করার দক্ষতা থাকতে হবে।
১৫. ভিজ্যুয়াল মডেলিং, অ্যাডভান্সড প্রসেস ম্যাপিং, ফ্লো চার্ট, মাইক্রোসফট ভিজিও এবং সফটওয়্যার টেস্টিংয়ে পারদর্শী হতে হবে।
শুরুতে ছোটোখাটো কোম্পানিতে মার্কেট অ্যানালিস্ট হিসেবে কাজ করুন
যদি আপনি মার্কেট অ্যানালিস্ট হিসেবে কোনো কোম্পানি থেকে ইন্টার্নি করে থাকেন, তাহলে ছোটোখাটো কোম্পানিতে কাজ করার প্রয়োজন পড়বে না। আর যদি আগে কোথাও ইন্টার্নশিপ না করে থাকেন, তাহলে বড় কোম্পানিতে ডেটা অ্যানালিস্ট বা মার্কেটার হিসেবে কাজ করার পূর্বে ছোটোখাটো কোম্পানিতে কাজ করুন। এতে অভিজ্ঞতা এবং শিক্ষা দুইই লাভ করতে পারবেন।

মার্কেট অ্যানালিস্ট হিসেবে বড় কোম্পানিতে চাকরি খুঁজুন:
ছোটোখাটো কোম্পানিতে চাকরি করার পর, বড় বড় কোম্পানির দিকে চলে আসুন। তবে খেয়াল রাখবেন, যেন কাজের দক্ষতা ও যোগ্যতা দুইই বজায় থাকে। অনেক সময়েই দেখা যায়, ছোটোখাটো কোম্পানিতে কাজ করার জন্যে যেসকল দক্ষতার প্রয়োজন পড়ে, বড় কোম্পানির ক্ষেত্রে তার চেয়ে কয়েকগুণ বেশি দক্ষতার প্রয়োজন পড়ে। কারণ, বড় কোম্পানিগুলোতে কাজের ক্ষেত্রও বড় হয়।

যে কারণে মার্কেট অ্যানালিস্ট হিসেবে ক্যারিয়ার গড়বেন:
প্রযুক্তির এই যুগে ডিজিটাল মার্কেটার এবং মার্কেট অ্যানালিস্টের উপর অনেক কোম্পানিই নির্ভর করছে। আর তাই, প্রতিনিয়তই কোম্পানিগুলোতে ব্যবসা ও মার্কেটিং খাতে বিভিন্ন ধরণের ক্যারিয়ার গড়ার সুযোগ তৈরি হচ্ছে, যার মধ্যে মার্কেটার, ডিজিটাল মার্কেটার, মার্কেট রিসার্চার, এসইও স্পেশালিস্ট, মার্কেটিং ম্যানেজার, মার্কেটিং রিপ্রেজেন্টেটিভ ইত্যাদি অন্যতম.

2
The recent pandemic has forced change on a massive scale. Almost overnight, colleges and workplaces did what many thought was unthinkable and transferred their work from the lecture hall, the conference room, the library, and the office to Zoom, Skype, Google Docs, or Microsoft 365. For people with disabilities, the transition has been both good and bad. This article will discuss what the transition has meant for the National Clearinghouse on Disability and Exchange (NCDE), what it has meant for access in the wider international education field, and how practitioners can make the long-term effects of the transition a net positive for all.

By mid-March, Mobility International USA (MIUSA) had moved all employees to remote work. Staff were instructed to take their work computers and other essentials home. The CFO made several deliveries of necessities like computer monitors and desk chairs. The organization purchased three Zoom business accounts – an upgrade to its previous Pro subscription.
As a blind person, I was astonished at how remote work opened up new ways for me to contribute. I conducted a few training sessions – first to onboard a new employee, and then to demonstrate to all staff how a screen reading program interacts with a website. I’m not very good with a pen, and if I had wanted to scribble out a couple examples of HTML markup on a board or discuss a list of ideas and actually be able to indicate an idea by pointing, I would have probably needed a coworker to help out or I would’ve had to depend on my audience being as good at audible learning as I am. Yet, when I wanted to do the HTML markup demonstration over Zoom, I simply shared my screen, opened a note, and started typing. To point at a piece of code, I simply highlighted the line. The virtual environment allowed me to interact with my coworkers in a new dimension that had never been an option before.

The virtual environment allowed me to interact with my coworkers in a new dimension that had never been an option before. The crisis also forced us to start thinking about different ways we might engage globally. International internships in language classes became available remotely. I wrote a blog about the ways people could stay globally engaged from home, such as reading literature, watching movies, or talking with international friends.

MIUSA staff observed how virtual exchanges expanded the scope of what we can do with the same resources. Our webinars have been better than ever, allowing us to reach individuals and professionals in places we would likely never visit in person. MIUSA counts 2,300 alumni around the world, with 250 from its Women’s Institute on Leadership and Disability (WILD). A group of staff, including CEO Susan Sygall, was able to get several cohorts of WILD alumni with different disabilities on a single Zoom call to catch up with each other and discuss the urgent needs in their communities around COVID-19. To facilitate communication access, the call included interpreters of American Sign Language and Spanish, along with Certified Deaf Interpreters, to interpret foreign sign languages and real-time captioning in Spanish and English for hard of hearing individuals who don’t use sign language. Sygall noted, "Hearing their dedication, leadership, and insightful recommendations for the COVID-19 pandemic only reinforced for me how critically important it is to recognize and partner with disabled women leaders globally, now more than ever."

The crisis also caused NCDE staff to develop and implement fresh opportunities for aspiring professionals to work with our project while building their résumés. Our first Access to Exchange Externship will allow five individuals across the United States the chance to promote international exchange in their communities. Projects cover a wide array of formats, including webinars, country guides, blogging, and individual advisement. NCDE is reaching out farther than ever before with its message of inclusion through infiltration in international exchange programs.

The transition to remote life was not all smooth. As an article from Inside Higher Ed reported, students with disabilities were being left out as colleges shifted to online classes. Mailing lists like DSSHE and the Association on Higher Education and Disability forum, which are dedicated to supporting practitioners in the disability service field in higher education, filled with chatter about how colleges were to react to the onslaught of faculty questions, accommodation requests, and complaints.

Colleges should ensure their domestic and international exchange offerings are accessible to students with disabilities, allowing the education experience to reach all students who want to participate to enhance the educational experience for all by making the unique viewpoints of students with disabilities available to their nondisabled peers. This also allows students with disabilities to contribute to the economic and social productivity of their communities, because access to employment increases the financial and mental well-being of individuals while enriching societies that can benefit from the taxation and consumerism of a wider base of workers.

As virtual exchange programs expand, they can learn a great deal from the experience of universities providing access to students with disabilities taking online courses. Despite some of the access issues, the virtual world offers a great deal of promise in offering barrier-free experiences. Consult with organizations like MIUSA, the National Deaf Center and your campus’s disability resource center on how to provide the best virtual exchange experiences for all.

Source: https://www.iienetworker-digital.com/iieb/0220_fall_2020/MobilePagedArticle.action?articleId=1623614#articleId1623614

3
Entrepreneurship Development / Business Plan Template
« on: September 09, 2020, 11:46:31 AM »
Entrepreneurship development is now considered one of the key paths to economic growth especially in a developing economy like ours. The rate of industrial development, economic growth and employment generation depend upon entrepreneurship development. Business Plan is a vital tool for entrepreneurs. It is a blueprint which guides the entrepreneurs on appropriate and effective steps to be
taken at each stage of their business. Business plan is not just for a start-up company but also for existing companies to aid their growth and survival. SME entrepreneurs need a roadmap for marketing management, production management, human resource management, sales forecasting, optimum utilization of raw materials and resources, risk assessment, risk management, financial analysis including profit and loss account, productivity improvement and other aspects which can be addressed through a comprehensive business plan. Moreover, business plan can be a major reference document for banks and other financial institutions for assessing the credit worthiness of the entrepreneurs or enterprises. (Sourece-SME)

To get the Business Plan Please click the attached file


4
Statistically, most startups in the world fail. This is due to several factors: the startup didn’t address a real market need, it ran out of cash, it didn’t have the right team, it got outcompeted, or because its go-to-market strategy was insufficient. But in Israel, a culture of innovation and the startup ecosystem infrastructure continue to thrive despite the odds. It has one of the highest concentrations of startups globally and is also the global leader in research and development. What is the driving force behind Israel’s startup and tech success? Uri Adoni says it’s “chutzpah.” Adoni, a veteran venture capitalist with over 20 years in the space, has extensive experience as an investor and an executive in a wide variety of tech companies. In his new book, The Unstoppable Startup: Mastering Israel’s Secret Rules of Chutzpah, he argues that Israeli chutzpah – a bold, can-do, audacious attitude – is what accounts for the nation’s incredible track record of success.

“If you look at high-tech success stories, Israeli or not, there is almost always an important element of chutzpah that made it happen,” Adoni explains. “By mastering these secret rules of Israeli chutzpah, leaders and innovators can unlock the roadmap to success for their business.” According to Adoni, there are six rules of chutzpah:

1. Challenging Reality and The Status Quo. This aspect of Chutzpah is a mental position, a state of mind in which the entrepreneur realizes that current solutions are not good enough and believes they are capable of finding a better, faster, more effective solution, and, that they know how to define it, develop it, and market it.

2. Dominate the Market Category You Are After or Create a New One. It is not enough to just be another face in the crowd. If a startup wishes to succeed, it must aspire to lead its market category eventually. It can do this in one of two ways: challenging an existing category by offering a better way to do something or defining a new category or sub-category that didn’t exist before.

3. Foresee the Future and Innovate to Meet Its Demands. Driven by chutzpah, startup entrepreneurship refuses to believe the adage, “there is nothing new under the sun.” They believe that there is always a better solution, new needs to be met, and constant changes that require constant innovation. The entrepreneur needs to have a hypothesis of where the market is going, foresee the new market needs, and aim to build a solution for these future needs.

4. The Market Needs It (Even If It Doesn’t Know It Yet). It takes chutzpah to say, “even though you don’t feel pain, I know you have one, and even though you’re not suffering yet, I know you will soon.” This happens quite frequently with startups that are offering visionary solutions to new or impending problems. It may take a while for the customer to realize their own need, but once they do, the answer will be ready.

5. Bend the Rules. Chutzpah is about bending the rules. The rules can pertain to what is physically possible or what is considered “good practice.” One implicit rule of commerce is that nothing should be given away. Chutzpah-laden startups have repeatedly turned that rule on its head, declaring that something previously for sale is now free and creating a new business model that didn’t exist before.

6. Show, Don’t Tell. This advice is usually given to fiction writers. In the world of high-tech startups, it’s not enough to tell people what you can do – that won’t convince them. However, if you provide living proof of what your product can do and that your technology works, people believe you, there’s a good chance they will become your clients or investors.  In the cutthroat, ultra-competitive world of entrepreneurship, business owners are always looking for any edge they can get to increase their odds of success. While passion, persistence, and hard work are essential, as Adoni argues, it’s chutzpah that will truly make any startup unstoppable.

Source: https://www.forbes.com/sites/benjaminlaker/2020/09/08/6-rules-of-successful-entrepreneurs-and-startups/#6047f1ac7890

5
Venture Capital / Amazon’s Success History
« on: September 04, 2020, 05:25:46 PM »
Amazon founder and CEO Jeff Bezos in 1997Paul Souders.

Amazon’s success, CEO Jeff Bezos is the richest person in the world, worth $207 billion, according to the Bloomberg Billionaires Index.But when he started Amazon as an online bookseller in 1994, Bezos thought it was likely that his business would fail. “I thought there was a 30% chance that we might build a successful company,” Bezos told John Stofflet in an interview for KING-TVs “Evening Magazine” in 2000. “I never thought we’d build what Amazon has turned into, and I’m the most surprised on the planet.”

In fact, Bezos told his parents — who gave their son $245,573 to help build the business in 1995 — that it was “very likely they’ll lose their entire investment in the company,” he told “Evening Magazine.”Starting Amazon was a gamble for Bezos: He left a stable job at a hedge fund in New York City and moved to Seattle to start Amazon out of his garage at a time when most people did not even know what the internet was.
And even though Bezos’ parents provided financial support, they were also worried about his decision. “Don’t quit your job,” his mother Jacklyn Bezos warned, according to his father Mike Bezos. “Can you do this on the weekends and nights?” she asked.Obviously it all worked out for Bezos. Amazon went public in 1997, and today, the company has a market cap of about $1.7 trillion.
What’s actually happened over the last 25 years [at Amazon] is way beyond my expectations,” Bezos said during a fireside chat in India in January. “I was hoping to build a company, but not a company like what you see today.”

Link: https://www.cnbc.com/2020/09/03/jeff-bezos-thought-there-was-a-30percent-chance-amazon-would-succeed.html

6
Economics in Business / Dutch disease
« on: September 02, 2020, 07:59:34 PM »
ডাচ ডিজিজ কী?
কোনো দেশের একপ্রকার অর্থনৈতিক অবস্থা হলো ডাচ ডিজিজ। এ অবস্থায় একদিকে দেশের অর্থনীতির একটি বিশেষ ক্ষেত্রের দ্রুত উন্নতি এবং অপরদিকে অন্যান্য ক্ষেত্রের পতন দেখা যায়, যার ফলে দেশীয় মূদ্রার মূল্য স্বাভাবিকের চেয়ে অধিকতর বেড়ে যায়। ডাচ ডিজিজে মূলত প্রাকৃতিক সম্পদভিত্তিক কোনো ক্ষেত্রের উন্নতিকে বোঝানো হয়। দীর্ঘমেয়াদে ডাচ ডিজিজের পরিণাম দাঁড়ায় ভয়াবহ। একটু সহজভাবে বলতে গেলে, ডাচ ডিজিজ হলো এমন একটি অর্থনৈতিক ঘটনা, যা ঘটে যখন কোনো দেশের জন্য ভালো কোনো খবর থাকে; যেমন- কোনো প্রাকৃতিক সম্পদের আবিষ্কার। কিন্তু এর ফলে নিকট ভবিষ্যতে দেশটির অর্থনীতির উপর ইতিবাচক প্রভাব না পড়ে নেতিবাচক প্রভাবেরই প্রসার ঘটে। এক্ষেত্রে এমন কোনো সীমিত পরিমাণের বস্তুর (প্রাকৃতিক সম্পদ) ওপর অধিক নির্ভরশীল হয়ে ওঠে একটি দেশের অর্থনীতি। আর সীমিত কোনো সম্পদের উপর নির্ভরশীলতা কোনো দেশের জন্য সবসময়ই ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

কোনো দেশের অর্থনীতি প্রাকৃতিক সম্পদভিত্তিক ক্ষেত্রের ওপর অতিরিক্ত নির্ভরশীল হয়ে উঠলে বুঝতে হবে যে, নিকট ভবিষ্যতে দেশটি ‘ডাচ ডিজিজ'-এর সম্মুখীন হতে পারে। এই নির্ভরশীলতা কেন হানিকর, তার উত্তর খুব ছোট করে বলা যায়। আপনি নিজেই চিন্তা করুন। যেকোনো দেশের প্রাকৃতিক সম্পদ সীমিত। সুদূর ভবিষ্যতে এর সমাপ্তি ঘটবে, সেটাই স্বাভাবিক। একটি দেশের অর্থনীতি মূল যে ক্ষেত্রের ওপর নির্ভর করে চলছে, সেই ক্ষেত্রের কাঁচামালই যদি না থাকে, তাহলে ক্ষেত্রটা চলবে কী করে আর দেশের সমগ্র অর্থনীতিই বা চলবে কী করে? অর্থাৎ, এক্ষেত্রে দেশটির অর্থনৈতিক অবস্থায় ধ্বস নামা স্বাভাবিক বিষয়। এই ধ্বস তৎক্ষণাৎ না ঘটলেও ভবিষ্যতে ঘটতেই পারে। আবার আরেকদিকে প্রাকৃতিক সম্পদভিত্তিক ক্ষেত্র নয় যেগুলো, সেসব ক্ষেত্রের বা ঐ দ্রব্যগুলোর চাহিদা বিশ্ব বাজারে কমে যাওয়ার কারণে রপ্তানিও কমে যায়। এমন অবস্থায় নির্দিষ্ট একটি ক্ষেত্র থেকে উৎপাদিত দ্রব্য বাদে বাকি দ্রব্যগুলোর জন্য আমদানির উপরই নির্ভরশীল হতে হয়। ফলে, ঐ ক্ষেত্রগুলোতে বিনিয়োগ এবং চাকরির সুযোগ দু'টোরই অভাব দেখা যায়। এতে করে দীর্ঘমেয়াদে বেকারত্ব বাড়তেই থাকে। আর ম্যানুফ্যাকচারিং এবং এ ধরনের শিল্প সংক্রান্ত কাজ চলে যায় নিম্ন-আয়ের দেশগুলোতে। ফলে দেশের মানুষই কাজের অভাবে ভুগতে থাকে। অতিরিক্ত মূদ্রাস্ফীতি, আয়ের দিক থেকে অতিরিক্ত বৈষম্য এবং দেশের আমদানির পরিমাণ বেড়ে যাওয়াটা বারবারই ডাচ ডিজিজের পূর্বাভাস দিতে থাকে।

ডাচ ডিজিজের শুরু
সর্বপ্রথম ১৯৭৭ সালে ‘দ্য ইকোনমিস্ট’ ম্যাগাজিনে ‘ডাচ ডিজিজ’ শব্দের প্রয়োগ করা হয়। ম্যাগাজিনটি মূলত ১৯৫৯ সালে নেদারল্যান্ডসে প্রাকৃতিক গ্যাসের বিশাল এলাকা আবিষ্কৃত হওয়ার পর সেখানে কীরকম পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়, তা ব্যাখা করার জন্য এটি ব্যবহার করে। সেই সময়ে প্রাকৃতিক গ্যাস এবং তেলের অতিরিক্ত রপ্তানি শুরু হয়। ফলে নেদারল্যান্ডসের আয় অতিরিক্ত বেড়ে যায়।

অবশ্য এই বৃদ্ধি মূলত যারা এই নির্দিষ্ট ক্ষেত্রের সাথে জড়িত, তারাই অনুভব করতে পারে। তবে সমস্যা তখন শুরু হয়, যখন অধিক রপ্তানির ফলে ডাচ গিল্ডার তথা ডাচ মুদ্রার মূল্য বেড়ে যায়। মুদ্রাস্ফীতির ফলে যেসব দ্রব্য প্রাকৃতিক গ্যাস কিংবা তেলের সাথে সংযুক্ত নয় সেগুলো বিশ্ব বাজারে কম প্রতিযোগিতামূলক হয়ে দাঁড়ায়। সোজা কথা হলো, ঐ একটি ক্ষেত্র বাদে বাকি ক্ষেত্রগুলো অকেজো হতে শুরু করে।
ডাচ ডিজিজের সাথে তুলনামূলক সুবিধা (কম্পারেটিভ অ্যাডভান্টেজ)-এর বিষয়ের গড়মিল বাঁধে। কম্পারেটিভ অ্যাডভান্টেজ মডেলে বলা হয়, যদি একটি দেশ কোনো একটি বিশেষ সেক্টরে পারদর্শী বা নির্ভরশীল হয় তাহলে তা ঐ দেশের জন্য ভালো। এতে করে অন্যান্য দেশের তুলনায় ঐ সেক্টরের ক্ষেত্রে বাড়তি সুবিধা পাওয়া যাবে। তবে ডাচ ডিজিজের পুরো বিষয়টিই হলো একটি সেক্টরের উপর নির্ভর থাকার নেতিবাচক দিকগুলো নিয়ে। বিশেষ করে সেক্টরটি যদি প্রাকৃতিক সম্পদভিত্তিক হয়। এসব সম্পদের রপ্তানিতে ব্যস্ত অর্থনীতির অন্যান্য সেক্টর, যেমন- কৃষি এবং ম্যানুফ্যাকচারিং সেক্টর অথবা বাকি সেক্টরগুলো উন্নত করার ক্ষেত্রে কারো মাথাব্যথা থাকে না৷
প্রতিরোধের উপায় কী?
রিয়াল এক্সচেঞ্জ রেটকে নিয়ন্ত্রণে রাখা গেলে ডাচ ডিজিজও প্রতিরোধ করা সম্ভব। এখানে উদাহরণস্বরূপ চীনের কথা বলা যায়। চীন নিজের মুদ্রার রিয়াল এক্সচেঞ্জ রেট কম রাখার জন্য ইউএস বন্ড কেনে। আবার দেখা যায়, কোনো দেশে বৈদেশিক বিনিয়োগ বেশি হলে আমদানিও বেশি হয় তথা বাজেট ঘাটতি দেখা যায়। এখন কোনো দেশের অর্থনৈতিক ব্যবস্থাকে ঘাটতি বাজেট থেকে উদ্বৃত্ত বাজেটে আনা গেলে বৈদেশিক বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগ করতে আগ্রহী হবে না। এতে করে সরকারি বন্ড বা মুচলেকা ক্রয়ের তাগিদে দেশে বৈদেশিক মূলধনের প্রবাহও অতিরিক্ত বাড়তে পারবে না তথা নিয়ন্ত্রণে থাকবে। যদি এই মূলধনের প্রবাহ নিয়ন্ত্রণে থাকে, তাহলে এক্সচেঞ্জ রেট (রিয়াল টাইম)-ও নিয়ন্ত্রণে থাকবে। এর ফলটাও হবে ইতিবাচক। আর তা হলো- ডাচ ডিজিজের ঝামেলা থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে।

ডাচ ডিজিজের সময় দেখা যায় যে, হাতে প্রচুর টাকাকড়ি থাকলেও তা ঠিকমতো ব্যয় করা সম্ভব হয় না। অতিরিক্ত মুদ্রাস্ফীতি হলে যা হয় আর কি! এমন অবস্থা দমানোর জন্য তখন সরকারের হস্তক্ষেপের প্রয়োজন হয়। যদি সরকার প্রাকৃতিক সম্পদভিত্তিক সেক্টর থেকে যে পরিমাণ আয় হয়, তার ওপর কর আরোপ করে তাহলে তা আয় নিয়ন্ত্রণ করার সাথে সাথে জনকল্যাণেও কাজে লাগবে। করের মাধ্যমে যে পরিমাণ অর্থ সরকার পাবে তা যদি জনসাধারণের শিক্ষা ব্যবস্থা এবং পরিবহণ ব্যবস্থায় কাজে লাগানো হয়, তবে তা সবার জন্যই কল্যাণকর হবে। তাছাড়া এই অর্থের কিছু অংশ অন্যান্য প্রযুক্তিনির্ভর এবং বাকি সেক্টরগুলোতে ব্যবহৃত হলে সেসব সেক্টরও উন্নতি লাভ করতে পারবে, যা দীর্ঘমেয়াদে ঐ দেশের জন্য কল্যাণ বয়ে নিয়ে আসবে। ম্যানুফ্যাকচারিং সেক্টরের প্রতিযোগিতার যোগ্যতা বৃদ্ধিতেও সহায়ক হবে কর থেকে প্রাপ্ত এই আয়।

ডাচ ডিজিজের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সরকার সার্বভৌম সম্পদ তহবিলেরও ব্যবস্থা করতে পারে। এই পরিকল্পনার ক্ষেত্রে প্রাকৃতিক গ্যাস এবং তেল থেকে যা আয় আসবে, তা খরচ করা হবে না, বরং ভবিষ্যতে প্রয়োজনীয় অর্থের যোগান দেওয়ার জন্য জমিয়ে রাখা হবে। যেমন- নরওয়েতে ডাচ ডিজিজের ঝামেলা রুখতে সরকারি পেনশন তহবিল গঠন করা হয়।

আরো কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করা যেতে পারে। যেমন- বিলাস দ্রব্যের উপর উচ্চ কর আরোপ করা। এই পদক্ষেপ অর্থনীতি যেন বিলাস দ্রব্যের উপর অধিকতর নির্ভরশীল না হয় সেজন্য নেওয়া হয়। কারণ দীর্ঘমেয়াদে এসব দ্রব্যের উপর নির্ভরশীলতা ক্ষতিকর হতে পারে। অভিবাসনে আমজনতাকে অনুপ্রাণিত করার মাধ্যমে এই ব্যাধি থেকে মুক্তি লাভ করা যাবে। এর ফলে বেকারদের বেকারত্বের অভিশাপ ঘুচবে এবং পাশাপাশি সার্ভিস সেক্টরেও দেশটি উন্নতি লাভ করতে পারবে। অর্থাৎ নির্দিষ্ট একটি ক্ষেত্রের উপর নির্ভরশীলতা কিছুটা হলেও কমবে। আর মজুরি বৃদ্ধি (রিয়াল টাইম)-ও নিয়ন্ত্রণে থাকবে।

ডাচ ডিজিজের প্রভাব আরো বেশি ক্ষতি সাধন করে, যখন সম্পদ কিছু মানুষের হাতে পুঞ্জীভূত থাকে। কারণ এতে করে বিলাস দ্রব্য ও সেবার উপর খরচ বেড়ে যায়। অন্যদিকে, টাকার অভাবে বাকিরা কিছু ক্রয় করতে পারে না। অর্থাৎ অর্থনৈতিক বৈষম্যের সৃষ্টি হয়। এক্ষেত্রে ডাচ ডিজিজ প্রতিরোধ করার উপায় হলো এই বৈষম্য দূর করা।

Link: https://roar.media/bangla/main/economy/dutch-disease-not-living-things-but-economys-disease/amp

7
বাংলাদেশে ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হচ্ছে সমুদ্র অর্থনীতি। মিয়ানমার ও ভারতের সঙ্গে সমুদ্র সীমানা নির্ধারিত হওয়ার পর বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অঞ্চলের পরিধি  বেড়ে গেছে। এ অবস্থায় নতুন বেশ কিছু উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার। সমুদ্রে (বাংলাদেশ অংশে) কী পরিমাণ মৎস্য সম্পদ, খনিজ সম্পদ, নৌ চলাচলসহ অন্যান্য কী ধরনের অর্থনৈতিক সম্ভাব্যতা রয়েছে, তা খতিয়ে দেখতে শুরু করেছে ১৯টি মন্ত্রণালয়। এদিকে সমুদ্র সম্পদ আহরণ ও ব্যবস্থাপনা উন্নত করতে ৫টি নির্দেশনা দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। এর মধ্যে সমুদ্র অর্থনীতির বিষয়ে নিজস্ব কর্মপরিকল্পনা দ্রুত পাঠাতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, বিভাগ ও সংস্থাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে সমুদ্রসীমা এলাকায় সমন্বিত সার্ভে ও তেল-গ্যাস অনুসন্ধান কার্যক্রম সম্পর্কে আগামী এক মাসের মধ্যে প্রতিবেদন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠাতে বলা হয়েছে।

অন্যদিকে, সমুদ্র অর্থনীতি বিষয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে সমঝোতা চুক্তি করতে প্রস্তাব দিয়েছে চীন। অবশ্য এরই মধ্যে ভারতের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় চুক্তিও হয়েছে। আগ্রহ রয়েছে জাপানেরও। এছাড়া, হাতে নেওয়া হয়েছে গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণের কাজ। এর বাইরে সমুদ্র উপকূলীয় এলাকায় তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরি হচ্ছে। সব মিলিয়ে আগামী কয়েক বছরের মধ্যেই সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দেবে ব্লু ওসান ইকোনমি বা নীল সমুদ্র অর্থনীতি বা সংক্ষেপে সমুদ্র অর্থনীতি।
এই সমুদ্র অর্থনীতি কার্যকর করতে ইসলামী ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (আইডিবি), মালয়েশিয়া সরকার এবং বাংলাদেশ সরকারের যৌথ অর্থায়নে মালয়েশিয়া থেকে একটি জাহাজ নির্মাণ করে আনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ জাহাজটি দৈর্ঘ্যে ৩৮ মিটার এবং ওজন হবে ১ হাজার ৫০০ টন। জাহাজটি মার্চ মাসেই বাংলাদেশে এসে পৌঁছবে।

এ প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাউসার আহমেদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, আগামী মার্চের মধ্যে মালয়েশিয়া থেকে মিন অনুসন্ধানী নামে একটি জাহাজ আসার কথা রয়েছে। এটি আসলে আমাদের সমুদ্রের মৎস্যসম্পদ কি পরিমাণ আছে তা জরিপ করা সম্ভব হবে। তিনি মনে করেন, সমুদ্র অর্থনীতিকে কার্যকর ও ফলপ্রসু করতে হলে দক্ষ জনশক্তি তৈরি করতে হবে। কিন্তু এই ক্ষেত্রে সরকারের তেমন কোন উদ্যোগ নেই।

এদিকে, সমুদ্র অর্থনীতিকে উজ্জীবিত করতে সরকার সমুদ্র সৈকতের সৌন্দর্যকে ব্যবহার করে কক্সবাজার, সেন্ট মার্টিন এবং কুয়াকাটার পর্যটন শিল্পকে আরো বিকশিত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশে রয়েছে ১২০ কিলোমিটারের পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈতক- কক্সবাজার। এই সমুদ্র সৈকতকে ঘিরে পর্যটন শিল্প গড়ে তুলতে পারলে গোটা বাংলাদেশই বদলে যেতে পারে। আন্তর্জাতিক পর্যটকদের জন্য কক্সবাজার ও প্রবাল দ্বীপ সেন্টর্মাটিনকে আর্কষণীয় করে তুলতে পারলে এ অঞ্চলে বিদেশি পর্যটকের ঢল নামবে।  ধারণা করা হচ্ছে, ২০২০ সাল নাগাদ এ সংখ্যা দাঁডাবে ১৬০ কোটি। পর্যটন বিশেষজ্ঞদের মতে এই বিপুলসংখ্যক পর্যটকের প্রায় ৭৩ শতাংশ ভ্রমণ করবেন এশিয়ার দেশগুলোতে। এছাড়াও বিশ্ব পর্যটন সংস্থার তথ্যমতে, ২০১৮ সালের মধ্যে এ শিল্প হতে ২৯ কোটি ৭০ লাখ লোকের কর্মসংস্থান হবে, যা বিশ্ব অর্থনীতিতে অবদান রাখবে ১০.৫ ভাগ।

সমুদ্র নিয়ে গবেষণা করা বেসরকারী গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেভ আওয়ার সি’র তথ্য অনুযায়ি, সমুদ্র থেকে মাছ ধরে শুধু বিদেশে রফতানি করেই বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার আয় করা সম্ভব। এ ছাড়া মাছ থেকে খাবার, মাছের তেল দিয়ে বিভিন্ন প্রকার ওষুধ, সস, চিটোসান তৈরি করা সম্ভব, যাতে নতুন ধরনের কর্মসংস্থান সৃষ্টির পাশাপাশি তা বিদেশে রফতানি করেও বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব।

এ প্রসঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী পরিচালক আনোয়ারুল হক বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, শুধু সামদ্রিক মাছ ও শৈবাল রফতানী করে বাংলাদেশ বছরে এক বিলিয়ন ডলারের সম পরিমাণ অর্থ আয় করতে পারে। তিনি উল্লেখ করেন, এ মুহূর্তে দরকার সমুদ্রসম্পদের জরিপ করে  বের করা সেখানে কী কী সম্পদ কত পরিমাণ আছে। এরপর এ সম্পদ কিভাবে কাজে লাগনো যাবে তা ঠিক করা। তিনি বলেন, আমাদের সমুদ্রে দুই ধরণের সম্পদ রয়েছে। একটি হচ্ছে প্রাণীজ সম্পদ অন্যটি হচ্ছে খনিজ সম্পদ। তবে দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য যে, আমাদের সমুদ্রে কি পরিমাণ সম্পদ রয়েছে তা এখনও জরিপ করা সম্ভব হয়নি।

সেভ আওয়ার সি’র গবেষণা প্রতিবেদনে দেখা গেছে, বিশ্বে ব্যবহৃত মোট ম্যাগনেসিয়ামের ৫০ শতাংশই আসে সামুদ্রিক উৎস থেকে। সমুদ্র থেকে আহরিত ম্যাগনেসিয়াম লবণ এয়ারক্রাফট নির্মাণে ব্যবহৃত হয়। এছাড়া পটাশিয়াম লবণ সার ও নানা ধরনের রসায়ন শিল্পে ব্যবহার করা হয়। ওষুধ তৈরিতে ব্রোমিন এবং ওয়াল বোর্ড নির্মাণে জিপসাম ব্যবহৃত হয়। সোডিয়াম ক্লোরাইড খাবার লবণ হিসেবে গ্রহণ করা হয়। সমুদ্র থেকে জীবনরক্ষাকারী নানা ধরনের ওষুধ পেতে পারি। এ পর্যন্ত ১০ হাজার কম্পাউন্ড সমুদ্র থেকে পাওয়া গেছে।  প্রতিষ্ঠানটির গবেষকরা মনে করছেন, আগামী প্রজন্মের ওষুধের জোগান আসবে সমুদ্র থেকেই।


সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দেবে সমুদ্র অর্থনীতি
গোলাম মওলা
প্রকাশিত : ০৮:০০, জানুয়ারি ২১, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১০:০৭, জানুয়ারি ২১, ২০১৬
সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দেবে সমুদ্র অর্থনীতি
বাংলাদেশে ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হচ্ছে সমুদ্র অর্থনীতি। মিয়ানমার ও ভারতের সঙ্গে সমুদ্র সীমানা নির্ধারিত হওয়ার পর বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অঞ্চলের পরিধি  বেড়ে গেছে। এ অবস্থায় নতুন বেশ কিছু উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার। সমুদ্রে (বাংলাদেশ অংশে) কী পরিমাণ মৎস্য সম্পদ, খনিজ সম্পদ, নৌ চলাচলসহ অন্যান্য কী ধরনের অর্থনৈতিক সম্ভাব্যতা রয়েছে, তা খতিয়ে দেখতে শুরু করেছে ১৯টি মন্ত্রণালয়। এদিকে সমুদ্র সম্পদ আহরণ ও ব্যবস্থাপনা উন্নত করতে ৫টি নির্দেশনা দিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়। এর মধ্যে সমুদ্র অর্থনীতির বিষয়ে নিজস্ব কর্মপরিকল্পনা দ্রুত পাঠাতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, বিভাগ ও সংস্থাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে সমুদ্রসীমা এলাকায় সমন্বিত সার্ভে ও তেল-গ্যাস অনুসন্ধান কার্যক্রম সম্পর্কে আগামী এক মাসের মধ্যে প্রতিবেদন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠাতে বলা হয়েছে।
সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দেবে ব্লু ওসান ইকোনমি বা নীল সমুদ্র অর্থনীতিঅন্যদিকে, সমুদ্র অর্থনীতি বিষয়ে বাংলাদেশের সঙ্গে সমঝোতা চুক্তি করতে প্রস্তাব দিয়েছে চীন। অবশ্য এরই মধ্যে ভারতের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় চুক্তিও হয়েছে। আগ্রহ রয়েছে জাপানেরও। এছাড়া, হাতে নেওয়া হয়েছে গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণের কাজ। এর বাইরে সমুদ্র উপকূলীয় এলাকায় তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র তৈরি হচ্ছে। সব মিলিয়ে আগামী কয়েক বছরের মধ্যেই সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দেবে ব্লু ওসান ইকোনমি বা নীল সমুদ্র অর্থনীতি বা সংক্ষেপে সমুদ্র অর্থনীতি।
এই সমুদ্র অর্থনীতি কার্যকর করতে ইসলামী ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (আইডিবি), মালয়েশিয়া সরকার এবং বাংলাদেশ সরকারের যৌথ অর্থায়নে মালয়েশিয়া থেকে একটি জাহাজ নির্মাণ করে আনার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ জাহাজটি দৈর্ঘ্যে ৩৮ মিটার এবং ওজন হবে ১ হাজার ৫০০ টন। জাহাজটি মার্চ মাসেই বাংলাদেশে এসে পৌঁছবে।
এ প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমুদ্রবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক কাউসার আহমেদ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, আগামী মার্চের মধ্যে মালয়েশিয়া থেকে মিন অনুসন্ধানী নামে একটি জাহাজ আসার কথা রয়েছে। এটি আসলে আমাদের সমুদ্রের মৎস্যসম্পদ কি পরিমাণ আছে তা জরিপ করা সম্ভব হবে। তিনি মনে করেন, সমুদ্র অর্থনীতিকে কার্যকর ও ফলপ্রসু করতে হলে দক্ষ জনশক্তি তৈরি করতে হবে। কিন্তু এই ক্ষেত্রে সরকারের তেমন কোন উদ্যোগ নেই।

এদিকে, সমুদ্র অর্থনীতিকে উজ্জীবিত করতে সরকার সমুদ্র সৈকতের সৌন্দর্যকে ব্যবহার করে কক্সবাজার, সেন্ট মার্টিন এবং কুয়াকাটার পর্যটন শিল্পকে আরো বিকশিত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বাংলাদেশে রয়েছে ১২০ কিলোমিটারের পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈতক- কক্সবাজার। এই সমুদ্র সৈকতকে ঘিরে পর্যটন শিল্প গড়ে তুলতে পারলে গোটা বাংলাদেশই বদলে যেতে পারে। আন্তর্জাতিক পর্যটকদের জন্য কক্সবাজার ও প্রবাল দ্বীপ সেন্টর্মাটিনকে আর্কষণীয় করে তুলতে পারলে এ অঞ্চলে বিদেশি পর্যটকের ঢল নামবে।  ধারণা করা হচ্ছে, ২০২০ সাল নাগাদ এ সংখ্যা দাঁডাবে ১৬০ কোটি। পর্যটন বিশেষজ্ঞদের মতে এই বিপুলসংখ্যক পর্যটকের প্রায় ৭৩ শতাংশ ভ্রমণ করবেন এশিয়ার দেশগুলোতে। এছাড়াও বিশ্ব পর্যটন সংস্থার তথ্যমতে, ২০১৮ সালের মধ্যে এ শিল্প হতে ২৯ কোটি ৭০ লাখ লোকের কর্মসংস্থান হবে, যা বিশ্ব অর্থনীতিতে অবদান রাখবে ১০.৫ ভাগ।

সমুদ্র নিয়ে গবেষণা করা বেসরকারী গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেভ আওয়ার সি’র তথ্য অনুযায়ি, সমুদ্র থেকে মাছ ধরে শুধু বিদেশে রফতানি করেই বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার আয় করা সম্ভব। এ ছাড়া মাছ থেকে খাবার, মাছের তেল দিয়ে বিভিন্ন প্রকার ওষুধ, সস, চিটোসান তৈরি করা সম্ভব, যাতে নতুন ধরনের কর্মসংস্থান সৃষ্টির পাশাপাশি তা বিদেশে রফতানি করেও বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব।

এ প্রসঙ্গে প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী পরিচালক আনোয়ারুল হক বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, শুধু সামদ্রিক মাছ ও শৈবাল রফতানী করে বাংলাদেশ বছরে এক বিলিয়ন ডলারের সম পরিমাণ অর্থ আয় করতে পারে। তিনি উল্লেখ করেন, এ মুহূর্তে দরকার সমুদ্রসম্পদের জরিপ করে  বের করা সেখানে কী কী সম্পদ কত পরিমাণ আছে। এরপর এ সম্পদ কিভাবে কাজে লাগনো যাবে তা ঠিক করা। তিনি বলেন, আমাদের সমুদ্রে দুই ধরণের সম্পদ রয়েছে। একটি হচ্ছে প্রাণীজ সম্পদ অন্যটি হচ্ছে খনিজ সম্পদ। তবে দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য যে, আমাদের সমুদ্রে কি পরিমাণ সম্পদ রয়েছে তা এখনও জরিপ করা সম্ভব হয়নি।

সেভ আওয়ার সি’র গবেষণা প্রতিবেদনে দেখা গেছে, বিশ্বে ব্যবহৃত মোট ম্যাগনেসিয়ামের ৫০ শতাংশই আসে সামুদ্রিক উৎস থেকে। সমুদ্র থেকে আহরিত ম্যাগনেসিয়াম লবণ এয়ারক্রাফট নির্মাণে ব্যবহৃত হয়। এছাড়া পটাশিয়াম লবণ সার ও নানা ধরনের রসায়ন শিল্পে ব্যবহার করা হয়। ওষুধ তৈরিতে ব্রোমিন এবং ওয়াল বোর্ড নির্মাণে জিপসাম ব্যবহৃত হয়। সোডিয়াম ক্লোরাইড খাবার লবণ হিসেবে গ্রহণ করা হয়। সমুদ্র থেকে জীবনরক্ষাকারী নানা ধরনের ওষুধ পেতে পারি। এ পর্যন্ত ১০ হাজার কম্পাউন্ড সমুদ্র থেকে পাওয়া গেছে।  প্রতিষ্ঠানটির গবেষকরা মনে করছেন, আগামী প্রজন্মের ওষুধের জোগান আসবে সমুদ্র থেকেই।
বাংলাদেশের সমুদ্রসীমা

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ি, বাংলাদেশের প্রায় ৬৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের আমদানি-রফতানি পণ্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রায় ২৬০০ বাণিজ্যিক জাহাজ চট্টগ্রাম ও মংলা সমুদ্র বন্দরের মাধ্যমে আনা-নেয়া করে। ২০০৮ সালে বেসরকারি মালিকানায় বাংলাদেশি সমুদ্রগামী বাণিজ্যিক জাহাজের সংখ্যা ছিল মাত্র ২৬টি। কিন্তু সমুদ্র পরিবহনের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় এখন তা ৭০-এ দাঁড়িয়েছে। ভবিষ্যতে আমদানি-রফতানিতে দেশীয় জাহাজের সংখ্যা বাড়লে এ খাতে বড় ধরনের বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করা সম্ভব বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। এছাড়া অভ্যন্তরীণ নৌ-পরিবহন খাতে ২০০৮ সালে রেজিস্ট্রি করা জাহাজ ছিল চার হাজার। এখন যা নয় হাজারে পৌঁছেছে।

সেভ আওয়ার সি’র তথ্য অনুযায়ি, পণ্য আমদানি-রফতানিতে বাংলাদেশি জাহাজ যুক্ত হওয়ায় দেশে গড়ে উঠেছে শিপিং এজেন্সি, ফ্রেইট-ফরোয়ার্ডিং, ব্যাংক-বীমা খাত। এ খাতে নতুন ধরনের কর্মসংস্থানও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

বেসরকারী এই প্রতিষ্ঠানটির গবেষণায় দেখা গেছে, বর্তমানে ২৫০ জাতের মিঠা পানির মাছ এর বিপরীতে সাগরে রয়েছে অন্তত ৪৭৫ প্রজাতির মাছ। বর্তমানে বঙ্গোপসাগরে প্রতিবছর ৮ মিলিয়ন টন মাছ ধরা পড়ে। এর মধ্যে শূন্য দশমিক ৭০ মিলিয়ন টন মাছ বাংলাদেশের মৎস্যজীবীরা আহরণ করে। যার সঙ্গে উপকূলীয় অঞ্চলের প্রায় ৩০ লাখ মানুষের জীবিকা জড়িত।  প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ি, সারা দেশে মোট মাছের উৎপাদন হচ্ছে প্রায় ৩৩ লাখ মেট্রিক টন। এ পর্যন্ত বিক্ষিপ্ত কিছু জরিপ থেকে জানা যায়, নানা প্রজাতির মূল্যবান মাছ ছাড়াও সমুদ্রসীমায় নানা ধরনের প্রবাল, গুল্মজাতীয় প্রাণী, ৩৫ প্রজাতির চিংড়ি, তিন প্রজাতির লবস্টার, ২০ প্রজাতির কাঁকড়া এবং ৩০০ প্রজাতির শামুক-ঝিনুক পাওয়া যায়।

প্রসঙ্গত, সমুদ্র সম্পদ আহরণ ও সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা করতে ২০১৪ সালের ২০ আগস্ট প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে বৈঠকে ১৮টি সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এসব সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের অগ্রগতি জানতে ২ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় সমুদ্র সম্পদ সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়, প্রশিক্ষণ সংশ্লিষ্ট বিষয়ভিত্তিক কোর্স শুরু করতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে বলা হয়েছে। এক্ষেত্রে মেরিটাইম অ্যাফেয়ার্সের সচিবের সঙ্গে পরামর্শ করে পরিবেশ ও বন, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ, কৃষি এবং প্রবাসীকণ্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সমন্বয়পূর্বক পদক্ষেপ গ্রহণের কথা বলা হয়েছে। এছাড়া, অর্জিত সমুদ্রসীমায় নিরাপত্তা রক্ষা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে জিএসবি, কোস্টগার্ড, নৌবাহিনী এবং সশস্ত্র বাহিনী বিভাগের প্রতিনিধি সমন্বয়ে পৃথক সভা করার কথাও বলা হয়েছে।

এদিকে আঞ্চলিক অর্থনীতির উন্নয়নে সমুদ্র অর্থনীতি বা ‘ব্লু ইকোনোমি’ বাস্তবায়নে জাতীয়, উপ-আঞ্চলিক ও আঞ্চলিক পর্যায়ে ফলপ্রসূ নীতি প্রণয়নের আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। সম্প্রতি রাজধানীতে ইন্ডিয়ান ওশান নেভাল সিম্পোজিয়ামের (আইওএনএস)

পঞ্চম দ্বি-বার্ষিক সম্মেলনের উদ্বোধনকালে তিনি বলেন, “সমুদ্র সম্পদের দক্ষ ব্যবহারের মাধ্যমে ‘ব্লু ইকোনমি’ কার্যকর বাস্তবায়ন এখন সময়ের দাবি।

প্রসঙ্গত, মিয়ানমার ও ভারতের সঙ্গে সমুদ্র বিরোধ নিষ্পত্তির পর বাংলাদেশ  বঙ্গোপসাগরে এক লাখ ১৮ হাজার ৮১৩ বর্গকিলোমিটারের বেশি রাষ্ট্রাধীন সমুদ্র (টেরিটোরিয়াল সি), ২০০ নটিক্যাল মাইল একচ্ছত্র অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং চট্টগ্রাম উপকূল থেকে ৩৫৪ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত মহীসোপানের তলদেশে সব ধরনের প্রাণিজ ও অপ্রাণিজ সম্পদের ওপর সার্বভৌম অধিকার প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছে।

এ প্রসঙ্গে অধ্যাপক কাউসার আহমেদ বলেন, সমুদ্রের তলদেশের প্রাণিজ ও অপ্রাণিজ সম্পদ ব্যবহার করতে হলে যে পরিমাণ দক্ষ জনশক্তি দরকার, বর্তমানে বাংলাদেশে সেই পরিমাণ জনশক্তি নেই। আবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে সমুদ্র বিজ্ঞান বিভাগ থাকলেও প্রয়োজনীয় বাজেট না থাকার কারণে এই দুটি প্রতিষ্ঠানও সঠিকভাবে কাজ করতে পারছে না।

গবেষণা প্রতিবেদনে তথ্য অনুযায়ী, বঙ্গোপসাগরের বিশাল মৎস্য সম্পদের ১ শতাংশও বাংলাদেশের জেলেরা ধরতে পারছেন না উন্নত ধরনের জাহাজ ও প্রযুক্তির অভাবে। দক্ষ জনশক্তি  ও প্রযুক্তির অভাবের বিষয়টি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত স্বীকার করেছেন। তিনি বলেছেন উপকূল ও সমুদ্র সম্পদ আহরণ এবং ব্যবহার করার প্রযুক্তি ও বিজ্ঞান এখনো আমাদের নেই। প্রয়োজনীয় মানবসম্পদও নেই। এক্ষেত্রে আমরা পিছিয়ে আছি।’ সম্প্রতি রাজধানীর খামার বাড়ির কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ মিলনায়তনে দু’দিনব্যাপী বাংলাদেশের উপকূল ও সামুদ্রিক পরিবেশ বিষয়ক বিশেষ সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) বাংলাদেশ পরিবেশ নেটওয়ার্ক (বেন) আয়োজিত সম্মেলনে তিনি বলেন, সমুদ্র সম্পদ আহরণে আমরা এখনো উপযুক্ত নই। মানবসম্পদের উন্নয়নের মাধ্যমে আমাদের এই যোগ্যতা অর্জন করতে হবে। এজন্য পরিকল্পিত পরিকল্পনা গ্রহণ করা দরকার।

বিশ্বমানের জাহাজ হচ্ছে বাংলাদেশে: বিশাল সমুদ্রকে ঘিরেই দেশে এখন বিশ্বমানের জাহাজ তৈরি হচ্ছে। জাহাজ তৈরি শিল্পে এশিয়ায় বাংলাদেশের অবস্থান ১৩তম। বিশ্বে জাহাজভাঙা শিল্পে বাংলাদেশের অবস্থান তৃতীয়। পৃথিবীর মোট জাহাজ ভাঙার ২৪.৮ শতাংশ বাংলাদেশে সম্পাদিত হয়। দেশের দীর্ঘ উপকূলীয় অঞ্চল বিশেষত চট্টগ্রাম ও কক্সবাজারের উপকূলীয় অঞ্চল এ শিল্পের জন্য কাজে লাগাতে পারলে জাতীয় অর্থনীতিতে তা আরো গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে ।

লবণ রফতানি : সমুদ্রের লোনা পানিকে আটকে সূর্যের তাপ ব্যবহার করে প্রতিবছর প্রায় ১৫ লাখ টন লবণ উৎপাদন করে দেশের চাহিদা মেটানো হচ্ছে। লবণ চাষে উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করে লবণ বিদেশেও রফতানি করা সম্ভব বলেও মনে করছেন অর্থনীতিবিদরা।  এ প্রসঙ্গে অধ্যাপক কাউসার আহমেদ বাংলা ট্রিবিউনকে আরও বলেন, বিশ্বের অনেক দেশই সমুদ্রের জোয়ারভাটা বা ঢেউকে ব্যবহার করে বাণিজ্যিকভিত্তিতে বিদ্যুৎ উৎপাদন করছে। ভারত সমুদ্রের ঢেউকে ব্যবহার করে প্রচুর পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপাদন করছে। ভারতে মোট ২ লাখ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদিত হয়। এর মধ্যে ২০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আসে সমুদ্রের ঢেউ এবং বাতাস ব্যবহার করে। আমাদের বিদ্যুৎ ঘাটতি পূরণে সমুদ্র নানাভাবে সহায়তা করতে পারে।

জানা গেছে, বাংলাদেশ এবং চীনের মধ্যে মেরিটাইম সহযোগিতা বিষয়ক জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন এবং ব্লু ইকোনমি সহায়তার ব্যাপারে সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) সইয়ের বিষয়ে গত ২০ ডিসেম্বর সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থা ও বিভাগের সঙ্গে বৈঠক করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মেরিটাইম অ্যাফেয়ার্স ইউনিট। ওই বৈঠকের কার্যবিবরণী সম্প্রতি বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। কার্যবিবরণী পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, বৈঠকে মেরিটাইম সহায়তার আওতায় বঙ্গোপসাগরে জলজ উদ্ভিদ ও মাছ সংরক্ষণে মেরিন অ্যাকুরিয়াম এবং কক্সবাজারে সামুদ্রিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে চীনের সহায়তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এ ছাড়া সমুদ্র অর্থনীতি (ব্লু ইকোনমি) সহায়তা খাতে নবায়নযোগ্য শক্তি, মেরিন বায়ো টেকনোলজি, ইকো টুরিজম, সমুদ্র দূষণ, বনায়নসহ সমুদ্র সম্পদ আহরণ ও গবেষণার ব্যাপারে চীনের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করার ব্যাপারে ইতিবাচক মতামত দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ঢাকা সফরকালে দুই দেশের মধ্যে সামুদ্রিক অর্থনীতি রক্ষা এবং সম্পদ আহরণে সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষরের পরপরই একই ধরনের এমওইউ স্বাক্ষরের প্রস্তাব দেয় চীন।

Link: https://www.banglatribune.com/business/news/71361/%E0%A6%B8%E0%A6%AE%E0%A7%8D%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%AC%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%A6%E0%A7%81%E0%A7%9F%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%96%E0%A7%81%E0%A6%B2%E0%A7%87-%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%AC%E0%A7%87-%E0%A6%B8%E0%A6%AE%E0%A7%81%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%B0-%E0%A6%85%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%A5%E0%A6%A8%E0%A7%80%E0%A6%A4%E0%A6%BF

8
The current population of Earth is more than 7 Billion.
The statistics can tell us the numbers, the distribution, various races and other information of the population.

As the population is so large, a purely statistical report, for most people, would not make meaningful sense. Therefore, someone has produced this set of statistical report condensing the 7 billion in the world into 100 persons, and then into various percentage statistics. The resulting analysis is relatively much easier to comprehend.

Out of 100:

11 are in Europe
5 are in North America
9 are in South America
15 are in Africa
60 are in Asia

49 live in the countryside
51 live in cities

12 speak Chinese
5 speak Spanish
5 speak English
3 speak Arabic
3 speak Hindi
3 speak Bengali
3 speak Portuguese
2 speak Russian
2 speak Japanese
62 speak their own language.

77 have their own houses
23 have no place to live.

21 are over-nourished
63 can eat full
15 are under-nourished
1 ate the last meal, but did not make it to the next meal.

The daily cost of living for 48 is less than US$2.

87 have clean drinking water
13 either lack clean drinking water or have access to a water source that is polluted.

75 have mobile phones
25 do not.

30 have internet access
70 do not have conditions to go online

7 received university education
93 did not attend college.

83 can read
17 are illiterate.

33 are Christians
22 are Muslims
14 are Hindus
7 are Buddhists
12 are other religions
12 have no religious beliefs.

26 live less than 14 years
66 died between 15 - 64 years of age
8 are over 65 years old.

If you have your own home,
Eat full meals & drink clean water,
Have a mobile phone,
Can surf the internet, and
have gone to college,
you have little reason to complain.

Amongst 100 persons in the world,
only 8 can live or exceed the age of 65.

If you are over 65 years old be content & grateful. 
Cherish life, grasp the moment. You did not leave this world before the age of 64 years like the 92 persons who have gone before you. You are already blessed amongst mankind (Collected)

9
Daffodil Institute of Languages (DIL) / Demand of Foreign Language
« on: September 02, 2020, 07:28:32 PM »
The current population of Earth is more than 7 Billion
The statistics can tell us the numbers, the distribution, various races and other information of the population.

As the population is so large, a purely statistical report, for most people, would not make meaningful sense. Therefore, someone has produced this set of statistical report condensing the 7 billion in the world into 100 persons, and then into various percentage statistics. The resulting analysis is relatively much easier to comprehend.

Out of 100:

11 are in Europe
5 are in North America
9 are in South America
15 are in Africa
60 are in Asia

49 live in the countryside
51 live in cities

12 speak Chinese
5 speak Spanish
5 speak English
3 speak Arabic
3 speak Hindi
3 speak Bengali
3 speak Portuguese
2 speak Russian
2 speak Japanese
62 speak their own language.

77 have their own houses
23 have no place to live.

21 are over-nourished
63 can eat full
15 are under-nourished
1 ate the last meal, but did not make it to the next meal.

The daily cost of living for 48 is less than US$2.

87 have clean drinking water
13 either lack clean drinking water or have access to a water source that is polluted.

75 have mobile phones
25 do not.

30 have internet access
70 do not have conditions to go online

7 received university education
93 did not attend college.

83 can read
17 are illiterate.

33 are Christians
22 are Muslims
14 are Hindus
7 are Buddhists
12 are other religions
12 have no religious beliefs.

26 live less than 14 years
66 died between 15 - 64 years of age
8 are over 65 years old.

If you have your own home,
Eat full meals & drink clean water,
Have a mobile phone,
Can surf the internet, and
have gone to college,
you have little reason to complain.

Amongst 100 persons in the world,
only 8 can live or exceed the age of 65.

If you are over 65 years old be content & grateful. 
Cherish life, grasp the moment. You did not leave this world before the age of 64 years like the 92 persons who have gone before you. You are already blessed amongst mankind (Collected)

10
Blue Tourism / Blue Economy
« on: September 02, 2020, 01:09:03 PM »
বাংলাদেশে ধীরে ধীরে জনপ্রিয় হচ্ছে সমুদ্র অর্থনীতি। মিয়ানমার ও ভারতের সঙ্গে সমুদ্র সীমানা নির্ধারিত হওয়ার পর বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অঞ্চলের পরিধি  বেড়ে গেছে। এ অবস্থায় নতুন বেশ কিছু উদ্যোগ নিচ্ছে সরকার। সমুদ্রে (বাংলাদেশ অংশে) কী পরিমাণ মৎস্য সম্পদ.

বিস্তারিত জানতে Attached ফাইল ক্লিক করুন ....

11
Online Travel Agency(OTA) তরুন উদ্যোক্তা বা স্টার্টআপদের জন্য উদ্যোক্তা হওয়ার একটি ভালো প্লাটফর্ম হতে পারে। Online Travel Agency হলো ওয়েব সাইড বেইস ট্রাভেল প্রোডাক্টস যা সরাসরি কাষ্টমারের কাছে পৌছে দেওয়া যায়। উদাহারণ: টিকিট বুকিং, হোটেল বুকিং, কার রেন্টাল, ফ্লাইট বুকিং, ভিসা প্রসেসিং, হজ্জ ও উমরা প্যাকেজ ইত্যিদি। Online Travel Agency এর ভালো উদাহারন হতে পারে- Booking.com, Expedia, Skyscornner, KiWi.com, Priceline.com, TripAdviser, MakeMy Trip, AirGorilla, Elong, Yatra ইত্যাদি।

গ্লোবাল মার্কেট সাইজ:
Online Travel Agency এর গ্লোবাল মার্কেট সাইজ ২.৫ $ ট্রিলিয়ন মার্কিন ডলার। যা ২০২০ সালে মার্কেট সাইজ হবে ৮১৭ $ বিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং ২০২৬ সালে ১৯৫৫ $ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

কেন বাংলাদেশ?
বাংলাদেশ সরকার বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে "ট্রুরিজম সেক্টর " কে সম্ভাবনাময় সেক্টর হিসাবে চিন্হিত করেছেন। অনলাইন বেইজ তথ্য অনুসারে দেখা গিয়েছে, বাংলাদেশে প্রায় ১১ মিলিয়ন বাংলাদেশী দেশের বাইরে কাজ করেছেন(সূএ-ILO)। ২০১৯ সালে ৫৯ লক্ষ ৮৪ হাজার ১৫৫ বার দেশের ভিতরে এবং বাইরে এয়ার ট্রান্সপোর্ট ব্যবহার করেছেন এবং ২০২০ সালে ১ লক্ষ ৩৭ হাজার জন হজ্জ সম্পন্ন করবেন।

OTA Startups এর আয়ের পরিমান(২০১৮-১৯):
১. Booking.com(USA/1996)- 14.53$ billion Sales
২. Expedia.com(USA)- 11.22$ billion Sales
৩. Ctrip.com(China)- 4.54$ billion Sales
৪. Skyscanner.net(Scotland/2001)- 337$ million
৫. kiwi.com(Czech/2012)- 1.1 billion euros
৬. Priceline.com(USA/1997)- 88$ billion sales
৭. CheapAir.com(USA/1989)- 5$ billion sales

তথ্যসূত্রে:মো: হুমায়ুন কবীর পলাশ
www.venture.com.bd

12
Career Plan - Life & Beyond / Biodata
« on: February 10, 2019, 08:42:18 PM »
Biodata is an abbreviated term that means Biographical Data. It is a document which contains all factual information about an individual, including personal facts such as date of birth, father’s name, gender, marital status, height, complexion, etc.


What to Include?

Basic Information:
Start with your name. This should be the first thing you write. Assume that the people reading the bio know nothing about you. Give your full preferred name (avoid nicknames). For example (Hari Sharma).

Current address and phone number with area code (where you can be reached now)
For example: 32- Gordon Road, Southall, UB2 4AL
Your e-mail address (If applicable)
For example: harisharma@gmail.com


Objectives
Including an objective in this type of resume is optional. Career objective should answer this question, “What do you want to do?” Your objectives should be specific and realistic. For example:

Objectives: Specific to the Job

Administrative assistant – I am seeking a position in the travel industry focusing on sales, customer care and office management.

Education – I am a dedicated person who wants to use her skills and education to help students achieve using both traditional and modern approaches.

Education administration – I want to obtain a position as a program director within an adult education setting.

Engineering– I want to share my high level of skills on most machines and work on automobiles or electronics.

Executive management– I am seeking a senior position in the financial services industry focusing on operational management and process improvements.

Financial– Secure a position with a leading organization that will lead to a long term career relationship.

Manager– Seeking a position with a well established company where I can maximize my program development and training skills.

Marketing– I am looking for a position in marketing where I will use my skills and experience in SEO and social media to increase site traffic and propel your company’s growth.

Mechanical engineer– I want to use my many years of experience to carry out my tasks with efficiency, professionalism and cost effectiveness.

Medicine– Seeking a position as a clinical practice assistant using my skills in research and leadership.

Receptionist– I am looking for a receptionist position where I will use my skills in data entry and switchboard as well as my experience with Microsoft Office and Excel.

Retail Manager– I am looking for a management position with a growing company where I can apply my experience to increase the company’s reputation and profitability.

Sales– I am seeking a position as sales associate with a fast-growing company.

Technical– I am looking for a position as a project manager for a software or internet company.

University professor– Seeking a position as a law professor with a focus on real estate and land use law.


Educational Background:
The education section tells an employer if you meet the educational requirements for a particular position. All resumes should include an education section, regardless of the level of education you have achieved.

To highlight your education, put this section directly below your career objective or summary of qualifications. You are requested to add the below things in your educational back ground.

Institution
City, Country
Dates attended or graduation date
Degree or certification obtained with percentage or CGPA
Major area
Relevant coursework
Specialized instruction


Experience:
This part of your resume may include several sections such as work experience, volunteer experience (internships, community service, and student teaching), campus leadership and any other area in which you may have significant experience, such as computer knowledge.

Briefly describe for each position:
Title, dates, organization name, location

Responsibilities
Use action words and verbs in active form to describe situations and achievements
Include scope of responsibilities
Concretely outline any outstanding results

Special Skills:
Front load these with those most important or most pertinent to your objective. You may want to use specific headings such as professional organizations, computer skills, and leadership positions. Include any honors, scholarships or recognition awards that you’ve received. If you were actively involved in any clubs, teams or committees while in college, those may be included also. The key to this section is keep it brief. If you feel you need more detail, use the guidelines for Experience and make it a complete section.


Interests:
List some your interest which shows you as an interesting and well-rounded person. For example reading books & Novels, Playing Games (Indoor or Outdoor games) etc.


Writing quality:
Should be clear and short (easy to read & understand).
Should be consistent, using similar style throughout.
Variety of action can be used which denotes the situation and action.
There should be no any spelling errors or grammatical errors while typing.
Uses appropriate tense (usually past, unless currently in activity).


Link: https://kangarooedu.com/resource/bio-data-2/

13
ICT / How mobile apps have changed our lives
« on: April 20, 2017, 11:07:16 AM »


In this day and age, one thing that we all consider an indispensable part of our lives is smartphones. This device allows us to stay in touch by calling and texting our loved ones, brainstorm by browsing the web, get work done by managing teams, and stay fit by tracking how we move. Undoubtedly, almost anything and everything can be done using smartphones. But what make these devices so useful are apps. Apps are, in a way, the heart and soul of every smartphone. People around the world wake up and open one of the numerous apps installed on their phones.

It is clear that apps have changed the way we live our lives. However, it is entirely possible to overlook the profound impact apps have on our lives. Let's have a look at how these apps impact our lives.

According to the 106-page report published by Hoot suite and We Are Social, more than one-third of the world's population has access to mobile apps.  That's 2.549 billion people. And this figure has gone up by 30 percent since last year, which is an additional 581 million. The most amazing part is: out of the 2.549 billion app users of the world, 1.441 billion reside in the Asia Pacific region.

Coming down to the specifics. How much time do people spend on different types of apps? According to a study conducted by Flurry Analytics, the amount is bewildering. Users spend a whooping three hours and 40 minutes on apps – the majority of which is spent on social media (nearly 27 percent). You might think that since so many people use apps, there would be a wide variety in usage. Sadly, you couldn't be more wrong. Out of nearly four million apps on the Apple and Google Stores combined, only 36 apps are being installed by a regular user; out of those 36, only 26 are being used regularly. By regularly we mean apps that are being used at least once a month. But if we look into apps that are being used daily, the number won't cross 10-12. Of the 36 installed apps, 25 percent will be used once per six months. All these figures suggest one very simple thing: we are way too much reliant on a handful of apps for our day-to-day activities.

So how do apps play their part in daily life? According to a study conducted by University of Washington, the average tech savvy user has up to 349 encounters with apps in 18 hours, assuming six hours of sleep. And this starts every morning since the first thing that a user does after waking up is pick up their phone. 93.8 percent of the case subjects responded that they open their phone's email and calendar app in the very first hour of their day. Then they put on music through a streaming app, call for cabs or rides using apps, and check their social media updates during the entire commute. The app encounter rate slows down when the user enters the office, but slowly picks up as the day goes by. By evening, when everyone is leaving the office, the app encounter rate skyrockets and stays that way till around three in the night.

These app encounters have essentially changed the way we lead our lives. People who never used to go on walks are now installing health tracker apps and keeping tabs on their activity. People who never liked playing games outdoor now walk miles to find a rare Pokémon. And people who were too lazy to cook their own food now resort to apps to have healthy, home-cooked food delivered to their doorsteps.

In Bangladesh, we have seen people mostly using apps for social media and email or even chatting. But slowly and steady that trend is changing. We now have an increased volume of YouTube views in the last couple of years. Moreover utility and productivity based app are also more frequently being used. Starting from ride hailing services like Uber or Pathao to food delivery services like Hungry Naki or Food Panda to balance recharging apps like Udoy or Easy.com.bd – all are being plugged in to our daily app ecosystem. Banking and billing services are quite popular too. Most of the prominent banks now have app of their own using which you can do the very basic stuff. Some has advance features including inter-bank transfer, balance sheet management, auto-debit instruction option etc. With apps like Tonic, Doctorola or even Rx71 you can setup appointment with doctors. You can also see what medicines to subscribe, pay for your medical insurance and get health tips on a regular basis.

If you want to keep yourself entertained, they you need not to look much further. Even without YouTube there is thousands of local app that are dedicated for this purpose only. Most of the operators now have music & video streaming apps with a rich content library. Though local mobile gaming industry is at a very nascent stage, still there are some promising local games that have garnered quite a fan base.

To be honest, if you look back even just couple years back, you won't find this sort of app dependence. Truly, apps now has changed the way how we lead our lives.

Link: http://www.thedailystar.net/bytes/how-mobile-apps-have-changed-our-lives-1392175

14
গণিতে ১ পেয়েছিলাম : জ্যাক মা
২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭, ১২:১৫ 
স্বনামধন্য চীনা ব্যবসায়ী জ্যাক মা। তিনি অনলাইনভিত্তিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আলিবাবার প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান। দারুণ বক্তা জ্যাক। বিভিন্ন উদ্যোক্তা সম্মেলনে তাঁর কথায় অনুপ্রাণিত হয়েছেন বহু তরুণ। ২০১৫ সালের ২ ফেব্রুয়ারি হংকংয়ে অনুষ্ঠিত ‘অ্যান ইভিনিং উইথ জ্যাক মা’ অনুষ্ঠানে তরুণ উদ্যোক্তাদের উদ্দেশে বক্তব্য দিয়েছিলেন তিনি।
জ্যাক মা
জ্যাক মা
আমি যেটা ভাবি, সেটাই যে সব সময় ঠিক তা নয়। তরুণদের আমি কিছু শেখাতে চাই না। কী করা উচিত আর কী করা উচিত নয়, আমি মনে করি এই পরামর্শ তাদের প্রয়োজন নেই। আমি বরং তোমাদের আমার কিছু অভিজ্ঞতার কথা বলব, স্রেফ একজন বড় ভাইয়ের মতো।

১৫ বছর আগে আমি ব্যবসা শুরু করেছি। প্রথমত কখনোই ভাবিনি, এ রকম একটা মঞ্চে নিজের ব্যবসায়িক অভিজ্ঞতা নিয়ে কথা বলার সুযোগ হবে। যখন আমি ব্যবসা শুরু করার সিদ্ধান্ত নিলাম, আমার ২৪ জন বন্ধুকে বাসায় নিমন্ত্রণ করেছিলাম। পাক্কা দুই ঘণ্টা আমার ভাবনাটা ওদের বোঝানোর পর আমি বুঝতে পারলাম, ওরা কিছুই বোঝেনি! ২৪ জনের মধ্যে মাত্র ১ জন আমার পাশে থাকতে রাজি হয়েছিল।

আজকালকার তরুণদের যেসব যোগ্যতা থাকে, আমার সেসবের কিছুই ছিল না। লোকে আমাকে বলত, ‘কী যোগ্যতা আছে তোমার? তুমি কখনো অ্যাকাউন্টিং শেখোনি, ম্যানেজমেন্ট শেখোনি। এমনকি কম্পিউটার সম্পর্কেও তেমন কিছু জানো না। তুমি কেন ব্যবসা করবে?’ সবাই জানে, বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় প্রথমবার গণিতে আমি ১ পেয়েছিলাম। তিনবার পরীক্ষা দিয়েও ভালো কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পাইনি। শেষ পর্যন্ত যেই বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছি, সেটার তেমন কোনো নাম ছিল না—হ্যাংঝোউ নরমাল ইউনিভার্সিটিকে তখন ‘চতুর্থ শ্রেণির’ বিশ্ববিদ্যালয় ধরা হতো। কিন্তু এখন অনুভব করি, হ্যাংঝোউ আমার কাছে হার্ভার্ডের চেয়েও বড়! এসবই প্রমাণ করে, ব্যবসা করার তেমন কোনো যোগ্যতা আমার ছিল না। যারা শিক্ষাগত যোগ্যতার দিক দিয়ে পিছিয়ে আছে, অনেক সময় তাদের জন্যই উদ্যোক্তা হওয়া সহজ।

সে জন্যই আমাদের মতো কিছু মানুষ, যাদের অন্য অনেক কিছু করার যোগ্যতা নেই, তারা উদ্যোক্তা হয়। অনেকে ভেবেছিল আমরা ভাগ্যক্রমে সাফল্য পেয়ে গেছি। ব্যাপারটা কিন্তু তা নয়। ১৫ বছর ধরে আমরা টিকে আছি। এটা ঠিক আলিবাবা প্রতিষ্ঠিত হওয়ার আগে চার বছর আমি চায়না ইয়েলো পেজেস-এ কাজ করেছি। বৈদেশিক বাণিজ্য ও অর্থনীতি মন্ত্রণালয়েও ছিলাম প্রায় ১৩ মাস। আমি যে পরিমাণ ভুল করেছি, তা তোমরা কল্পনাও করতে পারবে না।

১৮ জন সহপ্রতিষ্ঠাতাকে সঙ্গে নিয়ে আমার বাসায় আলিবাবার যাত্রা শুরু হয়েছিল। সেদিন আমি খুব পরিষ্কারভাবে বলেছিলাম, আমরা যদি সফল হই, এর অর্থ হলো চীনের শতকরা আশি ভাগ তরুণের পক্ষেই সফল হওয়া সম্ভব। কেউ আমাদের পেছনে বিনিয়োগ করেনি। না ছিল ক্ষমতা, না কোনো সামাজিক অবস্থান। সম্বল বলতে তেমন কিছুই ছিল না। আমরা ১৮ জন ৫ লাখ আরএমবি করে বিনিয়োগ করেছিলাম। ঠিক করেছিলাম, অন্তত ১২ মাস এই টাকায় ব্যবসাটা চালিয়ে নেব। এর মধ্যে যদি কিছু আয় হয়, তবে ব্যবসা চলবে। নতুবা অন্য কিছু ভাবতে হবে। কিন্তু অষ্টম মাসেই আমাদের হাত খালি হয়ে গেল। আমাদের নিয়ে কারও কোনো আশা ছিল না।

স্পষ্ট মনে আছে, বর্তমান নির্বাহী ভাইস প্রেসিডেন্ট জো সাইকে নিয়ে যখন সিলিকন ভ্যালিতে গেলাম, ৩০ জন বিনিয়োগকারী আমাদের ফিরিয়ে দিয়েছিলেন। আমরা ছাড়া আর কারও কাছেই পরিকল্পনাটা ভালো মনে হচ্ছিল না। একটা পরিকল্পনা করাই মুখ্য নয়। মুখ্য হলো, তুমি যা করছ সেটার ওপর তোমার বিশ্বাস আছে কি না। আলিবাবার সঙ্গে এই যাত্রায় অনেকেই জেনেছে স্বপ্ন, সত্য আর কল্পনার মধ্যে পার্থক্য কী।

তরুণ বয়সে সবার একটা স্বপ্ন থাকে। অনেক মা-বাবা আমাকে বলেন, ‘জ্যাক, আমার ছেলে বা মেয়েটার স্বপ্ন কদিন পরপরই বদলে যাচ্ছে। আজ সে হতে চায় এক, কাল আরেক।’ আমি বলি এটাই তো স্বাভাবিক। কোনো স্বপ্ন না থাকার চেয়ে অন্তত কদিন পর পর স্বপ্ন বদল হওয়া ভালো। আমার ইচ্ছে ছিল পুলিশ হব কিংবা আর্মিতে যোগ দেব। এমনকি কেএফসিতে কাজের জন্যও আবেদন করেছিলাম। ২৪ জন আবেদনকারীর মধ্যে ২৩ জনই নিয়োগ পেয়েছিল। ১ জন পায়নি—সেই মানুষটা আমি। যখন পুলিশের চাকরির জন্য আবেদন করলাম, প্রতি ৫ জনে ৪ জন চাকরি পেয়েছিল, আমি পাইনি।

স্বপ্ন থাকা ভালো। কিন্তু বাস্তবতা কী? বাস্তবতা হলো, একদল লোক ভিন্ন ভিন্ন পরিকল্পনা, অনুশীলন আর কার্যক্রম নিয়ে এগোতে এগোতে একসময় বুঝতে পারে, তারা সবাই আসলে একই লক্ষ্যের পেছনে ছুটছে। যখন আলিবাবার যাত্রা শুরু হয়, এটা স্বপ্ন বা কল্পনা কোনোটাই ছিল না। আমি এমন বহু মানুষ দেখেছি যারা কল্পনায় ডুবে থাকে। অবাস্তব, অসম্ভব সব কল্পনা। তবু তারা ভাবে যে অন্য সবাই ভুল, শুধু তারাই ঠিক। আলিবাবায় আমরা ১৮ জন মানুষ শুধু এটাই ঠিক করেছিলাম, আমরা আমাদের বিশ্বাসে অটল থাকব। চড়াই-উতরাইগুলো একসঙ্গে পাড়ি দেব। আমাদের স্বপ্ন বা কল্পনা ছিল না, ছিল আশা।

অতএব নিজেই নিজেকে প্রশ্ন করো, তোমার যদি কোনো স্বপ্ন থাকে, তুমি তোমার স্বপ্ন পূরণে অটল কি না। তোমার যদি কোনো লক্ষ্য থাকে, সেই লক্ষ্য পূরণের সাথি হতে তুমি আরও একদল মানুষকে আমন্ত্রণ জানাবে কি না। নিঃসঙ্গ যাত্রা খুবই ক্লান্তিকর। নিজের কাজটা ঠিকভাবে করলেই একটা ব্যবসা দাঁড়িয়ে যায় না। এর জন্য একদল মানুষের মধ্যে একটা ভালো বোঝাপড়ার দরকার হয়।

Link: http://m.prothom-alo.com/we-are/article/1090105

Pages: [1]