Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - mshahadat

Pages: 1 ... 4 5 [6] 7 8 ... 16
76
Success / The 10 Most Common Reasons People Fail
« on: August 10, 2014, 02:45:47 PM »
“Failure is the pillar of success”- A very old and motivational sentence for every human being generates the idea of cut down of your failure. When you fail you can find out your problems there, but if you do not sort out those problems, you are the ultimate loser in a long run.

Let us find out here, the 10 most common reasons of people fails-

Not being a right person for the right job:
A major goal of human resource management is to replace right person for the right job. Such goal has been set from the real life experience. Most of the major cause of failure is the person who is doing the job is not the right person to handle that, as he is not capable to do that. In the other case, right person for the job is also tot taking the actions required.

 
Insufficient development:
Lack of proper knowledge and lack of proper input required for success refers the important issue of insufficient development those are required for a successful completion of doings.

 
Irrelevant planning:
Having no plan or wrong planning refers irrelevant planning. If you do not have a proper planning with the consideration of your all resources to be used, you can not expect to be succeeded.


No Supervision:
As long as you are not a leader of own executions, you are just a worker who does not have any aim, whereas success is nothing but accomplishment of an aim.. For a successful operation without being as a leader you cannot expect to finish your task properly. Leadership contains supervision, which is the critical and core path of succession.

 
Poor stress management:
People must have to know how to do stress management or how to motivate own self. Same as like a corporation a human body also wants to get relief from all the life barriers and pressures, which led him to be stressed and to be unproductive. Suppose, if you reward yourself after doing a task according to your plan, you will feel better and more energetic.

 
Improper stimulation:
A major reason for failure is not receiving proper stimulation by appropriate incentives for the finished work. Such acts demoralize the executors for further productivity.

 
Wrong or no evaluation:
Evaluation to the executions is another most important term for success and failure. There must be evaluation mechanisms to evaluate the individuals according to their merits. Wrong evaluation also may cause of an ultimate failure.

Fear for success or failure:
Most of the people get feared with success or failure thinking, which let them to do lot of mistakes as their concentration breaks down with fears.

People have poor internal programming:
Think of yourself like a computer – whatever you put in affects what you get out. As you set goals and think about achieving them and the actions required achieving them, what thoughts are you “putting in”? What is the internal dialogue you have running? What do you imagine will happen? All of these things – thoughts, words, and your imagination – known as internal programming, affect your real results.

Early give up:
Most of us like to think of ourselves as persistent, the truth is most of us give up just before we’re about to have a breakthrough. We let discouragement and obstacles become barriers, rather than using them as launching pads for the next approach.

 http://www.prothom-alojobs.com/index.php?NoParameter&Theme=article_zone_new&Script=articleviewdetails_new&ArticleID=118

77
Choose Your Career / How healthy is your career
« on: August 03, 2014, 05:26:29 PM »
In the view of its social responsibilities Prothom-alojobs used to arrange Career Clinic. According to the basic assumption "How Healthy Your Career is" Prothom-alo Jobs is supporting people's career and treating them with their basic sickness on career.

On that way of the social duty Prothom-alojobs arranged a seminar on 7th December 2013. MD Monowar Hossain, Country manager of Asutex was the chief delegate there. In that free clinic, many job seekers came for checking up their career. At the starting of the program Ms Humaira Sharmeen, Head of Operations Prothom-alojobs took part in the short speech, described about Prothom-alojobs, and introduced Mr Monowar Hossain on the seminar. Mr Monowar Hossain who was an extra-ordinary speaker took the floor at once and the attention of the new job seekers. On the very first slide of the presentation there was a sentence "All the great men are the same person but they are different with results". He differentiated mind into two parts

1. Conscious mind

2. Subconscious mind

He added that subconscious mind also controls our conscious mind. He discussed about the conscious mind and subconscious mind. The conscious mind is what we do, and sub-conscious mind is what we dream and our aim. Mr Monowar said to put the dream into sub-conscious mind. Then sub-conscious mind will push the conscious mind to do full fill the dreams. In his delicious conversation he said "dream has to be clear with a deadline". Mr Monowar Hossain said, "Put dreams in a printed copy in front of your eye, and try to check it out every morning." In his mellow sound Mr Monowar suggested the participants to find out, positive minded people. Because positive minded people will help to find out any solution easily. He argued that negative minded people use to make way a bit harder and don't welcome anything easily. Frolic way Mr Monowar, the chief delegate discussed about Marshmallow test, which is introduced by American psychologists. This test is to judge a baby, about self potential or self control. Mr Monowar described the whole thing interestingly. Psychologists put down a baby alone with, Marshmallow cake, which is so delicious. They observe how that baby's potential or self commitment is. It can easily take that cake but the Psychologists used a trick that if it doesn't take cake than it will get two instead of one, so to find out the honesty. Warren Buffet employee selection process was also discussed in that career clinic of Prothom-alojobs. Delegate Mr Monowar said Warren Buffet uses to see three qualities in people

1. Intelligence

2. Punctuality

3. Energy

Nothing but if someone has this three qualities he or she could easily achieve his or her dream, said Mr Monowar. He said "from very early in the morning till nightfall when it is bed time then ask your heart about the work done by yourself. Honesty is true and important. To be a corporate delegate on should develop the flowing capabilities.

1. Presentation skill.

2. Communication skill.

3. Leadership skill.

4. Personal branding.

5. Self-discipline.

It was too advised that two years experience with an MBA is very necessary for the apparel sector, Mr Monowar said, "Choosing major which is a bit demanded, will make things better." Over all on the last slide of the mastermind delegate was a comment from Anil Dhirubhai Ambani, "If you don't work for your dream then someone will buy your dream". The Career clinic of December 2013 ends here with huge round of applause from career participant.

http://prothom-alojobs.com/index.php?NoParameter&Theme=article_zone_new&Script=articleviewdetails_new&ArticleID=160

78
Choose Your Career / Being a Banker
« on: August 03, 2014, 05:21:20 PM »
Many students – especially those studying commerce subjects – express an interest to work for a bank or finance company one day. When asked why they want to work in that industry the answer is almost always the same: “the money!”  The first response to that is no one should ever choose a career just for the pay.  It may be hard for a student to realize this when young but working in an industry that may pay well but is unfulfilling in other aspects can lead to a life of misery. This certainly does not mean that banking and finance is not a fulfilling career, but it is vital that students consider all the other aspects of the industry before choosing it.

A large and growing industry

Of course, a career in “banking and finance” certainly does not just mean working in a branch office of a commercial bank. The finance industry covers a multitude of jobs ranging from fund management to pensions, stock broking, insurance, accounting and consultancy - not to mention government work which ranges from the Ministry of Finance to a nation's central bank.  Of course, one can also work in the finance department of a company or as an economist. One can even work in financial journalism or some other analytical position.  Even within banking there is Retail banking, Commercial banking and Investment banking.  Moreover, across all of Asia this is a rapidly growing industry as well. 
And, if nothing else, one of the best pieces of career advice ever is to start out in a growing industry because a declining or “sunset industry” will always be beset by job losses, falling pay with few prospects of promotion, no matter how capable the employee may be.

Tackling myths
The first thing to consider is the income one can earn in banking. While it is certainly true that some people enjoy enormous incomes in finance, the vast majority of employees in the industry toil away at relatively turgid jobs on very modest salaries.  The press and media are full of stories of “millionaire bankers” and huge “bankers' bonuses” but, those starting out in the industry should keep their expectations modest. Like sports and celebrities, such huge rewards are available to the fortunate few.
Banking is of course likely to offer a relatively secure job prospects to the hard working and diligent employee. After all, public demand for financial services is likely to only keep rising and banks will always need reliable, competent people.  No doubt, anyone in the industry will have to be very numerate and literate. However, this does not mean that one needs to be a maths genius. Some of the most successful bankers in the world did their degrees in arts and humanities subjects like history, philosophy or languages.  This is because, at the end of the day, banking is a people business, not a numbers business.  Banking operates on trust and intelligent understanding of risk. While measuring risk does involve the sciences (ie, statistics) at the end of the day it is very much an art.
“C.O.A.”
Furthermore, to reach the top of banking one must be proficient in managing employees and customers.  This does not just mean pouring through balance sheets and Net Present Value calculations, it means understanding people's business, their characters, their family, the competition, the industry and economic and social trends. While good bankers must be intelligent – they must be interesting people as well! The ability to converse easily in subjects such as art and literature, history, travel, etc is vital to developing good long term relationships.
Within the bank, the “fast track” is reserved with those with a good understanding of organizational behavior. That involves knowing how to get along with people, how to manage ones emotions and dealing with “COA”: Complexity, Overload and, above all, Ambiguity! This is where those with just academic ability fall down because few if any of those vital skills comes from a textbook. (Indeed, many academically able people tend to struggle with the constant ambiguity found in business in general and senior management in particular.)
Hard decisions
While good bankers must be empathetic, they must also make hard decisions. This can be a brutal part of the industry and any senior banker will be able to tell you of very regretful decisions they have had to make. Whether it is denying a family a mortgage or shutting down a whole company, watching people weep as their hopes and dreams are wiped out by a lack of credit and funding is a deeply unpleasant aspect of the job.  Of course, a banker's top priority must always be to the institution and its depositors and shareholders and this will undoubtedly mean giving some customers news they really don't want to hear.
The biggest fear most people have is that they will end their days wondering if they wasted their life. While banking and finance can be a fulfilling as well as rewarding career, that is not the case for everyone in the industry. Yes, the incomes earned in the industry are typically above average and the expected growth in the industry makes for good career prospects but one must always think deeply before setting off in a career direction. Do you have the skills, ability, focus, and character for this type of work – or do you just want the money?  If it is just the latter, then you are unlikely to achieve it. The spoils of the industry go to those with the natural professionalism and personality for the hard work the industry requires.

The writer is the Principal of Regent College, Dhaka. Prior to his career in education, he was an investment banker in London for 20 years and was a Senior Vice President at HSBC.

http://prothom-alojobs.com/index.php?NoParameter&Theme=article_zone_new&Script=articleviewdetails_new&ArticleID=173

79
Choose Your Career / RMG sector: Smart career choice
« on: August 03, 2014, 05:20:23 PM »
The textile and clothes sector provides the one aspect supply of financial progress within Bangladesh's speed building overall economy. Exports of materials and garments are classified as the major supply of foreign currency revenue. From 2002, exports of materials, clothes, and ready-made garments (RMG) accounted regarding 77% of Bangladesh's entire products exports.  Through 2013, there is about 5million people working in the industry, which is actually minute simply to Farther east, the actual globe's second-largest outfit's exporter of European brands. 60 % of the upload contracts of European brands are usually having EU consumers and regarding 45 per cent having American consumers. The particular cloth market makes up about 76% of the country's export revenue along with 10% of its GDP. Yet, it is not the first choice of career for most graduates!

How the wage is: The wage of Garments sector (although under discussion) still is less than the corporate character. Most of the corporate garments or apparel firms argued that they are paying a bit higher salary to their workers. Now, there are two sections within a company. The ones who are working in the production line, and the ones who are running the management. There is no actual measuring standard scale to count the difference between the two employee's salaries. The salary structure of the product line workers is a whole different issue. For the management, salary range is pretty high and satisfactory. Sadly, the highly paid positions are for people with 10-15 years of experience. So, there is less chance for the fresh graduates to get in there at the very beginning. They can eventually get there for sure. But it doesn't work like magic at all. To summarize, the fresh graduates need to be patient in order to get there. They will probably have to walk past the lucrative MNC salary structure at the beginning of their career. Well, it's not always about the salary you withdraw. In this sector, you are investing your time to get better, to be irreplaceable, only if you don't give up in the first few years that is.

How to build a career in RMG sector: Readymade garments industry can be the vast and biggest sector for the job seekers. Normally, the students who want to grow their career in apparel sector need to know about the process to be successful in this field. Generally, they always want people who've studied in a related field- Merchandising, Textile Engineering, Finance, Marketing, Human Resource etc. These are some opportunities for the job seekers to qualify in order to get the job in future. Trainings and course work are also helpful to get jobs in the RMG sector.

How to apply: Although prior experience is preferred in the sector, there are opportunities for fresh graduates as well. The industry demands people who are dynamic, hard working, and ambitious. Also, there are other departments like finance, sale where graduates can easily achieve their goal of working in the apparel sector. Generally apparel sector job circular publishes in newspaper and job portal. But according to the present situation, most of the garment industry jobs are being given based on references. Experts suggest that you make better connection with people who are working in the garment industry. This can always increase your chances. I mean that's how it works in every industry!
Most of the garment industries are trying to develop a positive relationship between the employees and employers. Office environments are changing.

The Professionals' View: Asking about the future of the graduates having zero experience in the apparel sector, Mr Nurul Islam, chairman of the Well Group says, “Opportunity, of course, is there. The job seekers should create their chances by connecting to the employers. Websites such as Linkedin can be of tremendous help. While connecting to the professionals already working in the sector, they should have the idea to about the field.” He also added, “There is a huge need of talent and the young generation in this field.” Because of the unwillingness of the recent generation in the industry, people are hired to work. Mr Sayed Nurul Islam also added, “we are not getting perfectly trained people who can bid this place instead of the foreigners.” He has requested the universities, both public and private, to open up some courses, which are relevant to the garments industry. According to Mr Md Monowar Hossain, country manager of Asutex, Corporate MBA holders always gets preference because they are likely to understand the nature of different businesses.

Despite a few drawbacks, the RMG sector can be a perfect and smart choice for the job seekers. You only have to be able to see it through.

Shakil Chowdhury Arnob

http://prothom-alojobs.com/index.php?NoParameter&Theme=article_zone_new&Script=articleviewdetails_new&ArticleID=174

80
তরুণেরা কি শুধু নিজেদের কথাই ভাবেন? তাঁরা কি আত্মকেন্দ্রিক হয়ে যাচ্ছেন? নিজের পেশাগত উন্নতিই কি তাঁদের কাছে অগ্রাধিকার—এই প্রজন্মের তরুণদের নিয়ে বড়দের কাছ থেকে প্রায়ই কিছু কথা শোনা যায়। আবার দেখা যায়, রানা প্লাজার মতো দুর্ঘটনায় মানুষের পাশে গিয়ে দাঁড়িয়েছেন তরুণেরা। জরিপ পরিচালনাকারী প্রতিষ্ঠান কোয়ান্টাম কনজ্যুমার সলিউশন লিমিটেড তরুণদের নিয়ে একটি জরিপ পরিচালনা করে। তাতে তরুণদের ভাবনা-চিন্তার কিছু ইঙ্গিত পাওয়া যায়। এ প্রতিবেদনে তার সারসংক্ষেপ থাকছে। তাছাড়া এ সময়ের তারুণ্যের বৈশিষ্ট্য কী, কী ভাবছেন তাঁরা, তাঁদের সম্পর্কে অভিজ্ঞদের ধারণাই বা কী—এসব নিয়ে অধুনার পক্ষ থেকে প্রশ্ন করা হয়েছিল সফল কয়েকজন তরুণ এবং বিভিন্ন ক্ষেত্রের বিশিষ্টজনের কাছে। থাকল তাঁদের মতামতও।

জীবনবোধের পরিবর্তন এসেছে

আমি যেহেতু সংগীতের মানুষ, তাই অন্য বিষয়ে না বলে শুধু সংগীতেই সীমাবদ্ধ থাকতে চাই।
এখন সংগীতকলা একধরনের ‘শো বিজনেজ’-এ পরিণত হয়ে গেছে। এর সঙ্গে প্রচুর অর্থের ব্যাপার ওতপ্রোতভাবে জড়িত। পেশা হিসেবেও তাই জনপ্রিয়। ফলে আমাদের তরুণেরাও স্বাভাবিকভাবে সেই প্রবাহে গা ভাসিয়েছেন। পরিণতিতে ব্যাহত হচ্ছে সৃজনশীলতার মান। অবশ্য এর জন্য তরুণদের ঢালাওভাবে দায়ী করাটা যথার্থ হবে না। বর্তমান সময়কেও ভাবনায় আনতে হবে। বর্তমান পৃথিবীর সামগ্রিক জীবনযাত্রা এবং জীবনবোধের যে পরিবর্তন এসেছে, তা থেকে আমাদের তরুণেরা আলাদা কেউ নয়।
শিল্পচর্চা মানুষের মহৎ কর্মেরই একটি অংশ। সেই মহৎ কর্মে অবশ্যই বিনোদন থাকতে পারে। সেই বিনোদন থেকে অর্থও আসতে পারে। এটা তো ভালো লক্ষণ! কিন্তু শুধু অর্থের জন্য যদি বিনোদনকে ভাবা হয়, তবে তো নষ্ট হয়ে যায় শিল্পের শিল্পমান। আমাদের অগ্রজদের দেখেছি শিল্পের সৃজন দিয়ে তাঁরা দর্শক-শ্রোতাকে অনায়াসে মুগ্ধ করেছেন। শ্রোতাকে তাঁরা নিজের কাছে টেনে নিয়েছেন। কিন্তু নিজেকে শ্রোতার কাছে নামিয়েনিয়ে যাননি। সেই কারণে হয়তো তাঁদের শেষবেলায় এসে দুস্থ শিল্পী হিসেবে মৃত্যুবরণ করতে হয়েছে। কিন্তু এখনো তাঁরা মানুষের মনে শিল্পী হিসেবেই বেঁচে আছেন। বর্তমান সময়ের তরুণ সম্প্রদায় হয়তো সেই আদর্শের অনুসারী নয়। পেশা নিয়ে সচেতন হোক বা আত্মকেন্দ্রিক হোক কিংবা দ্রুত সফলতা চাওয়াই হোক, আসলে তরুণেরা কী করবেন? এখন অর্থ উপার্জন নাকি সৃজনশীলতা—কোনটি বেছেনেবেন তা তাঁদেরকেই নিতে হবে।

সৈয়দ আবদুল হাদী, সংগীতশিল্পী
নিজেকে নিয়ে ভাবাটা দোষের নয়

আমার মনে হয়, তরুণদের এই ভাবনার ধরনটা এখন ভিন্ন। তাঁরা নিজের দক্ষতা বাড়ানো, আত্মিক উন্নয়ন—এসব নিয়ে ভাবেন। তাঁর নিজের উন্নতি মানে কিন্তু দেশের উন্নতি। তাই নিজেকে নিয়ে ভাবাটা দোষের নয়। তবে নিজের উন্নয়নের জন্য যদি অন্যের ক্ষতি হয়, তবে সেটা দোষের। বর্তমানে অনেক তারুণ্যনির্ভর সংগঠন গড়ে উঠেছে দেশে। তারা কিন্তু কাজ করছে দেশের জন্য, সমাজের জন্য। অনেক তরুণ শুরু করতে চাইলেও নানা বাধায় হতাশ হয়ে হাল ছেড়ে দিচ্ছেন। আমরা কি সেটাকে আত্মকেন্দ্রিক হয়ে যাওয়া বলব? আমার মনে হয় সেটা ঠিক হবে না। বরং বড়দের উচিত তাঁকে উৎসাহ দেওয়া। আমাদের অনেকেই নতুন সব ধারণার জন্ম দিচ্ছেন। সেটাকে কীভাবে কাজে লাগানো যায়, অভিভাবকেরা যদি সেদিকে উৎসাহ দেন, তাহলে তরুণেরা আরও বেশি কাজে লাগবেন। বড়দের উচিত তাঁর ভাবনাগুলোকে সম্মান দেখানো, সেখানে অনেক অসংগতি থাকতে পারে, সেটা আপনারা ঠিক

করভী রাখসান্দ, প্রতিষ্ঠাতা, জাগো ফাউন্ডেশন
তারুণেরা ঝুঁকে পড়েছেন সহজের দিকে

সম্প্রতি একটি সংকট আমাকে দারুণভাবে ভাবিয়ে তুলেছে। সেটি হচ্ছে, তরুণদের বিকাশের সংকট। শিশু থেকে তরুণ—বেড়ে ওঠার এই প্রক্রিয়াটি এখন খানিকটা জটিল হয়ে পড়েছে। ফলে দেখা যায়, তারুণেরা ঝুঁকে পড়েছেন সহজের দিকে। তাঁরা আত্মকেন্দ্রিক হয়ে পড়ছেন। এর পেছনে অনেক কারণ। যেমন শিক্ষাব্যবস্থার কথা বলা যেতে পারে। পেশাভিত্তিক শিক্ষার প্রতি নজর দেওয়া হচ্ছে বেশি। অন্যদিকে, সাহিত্য জ্ঞান থেকে বিচ্যুত হয়ে যাচ্ছেন তরুণেরা। তারপর যোগাযোগপ্রযুক্তি এতই হাতের নাগালে! খুব সহজেই তাঁরা অধরাকে ধরে ফেলছেন। দেখে ফেলছেন অদেখাকে। ফলে লোপ পাচ্ছে সাধনামূল্য। পারস্পরিক সম্পর্কগুলো বিবেচিত হচ্ছে অর্থমূল্যে। মানবিক সম্পর্কের মতো অমূল্য সম্পদটির গুরুত্ব কমে যাচ্ছে। মহৎ কর্ম ও শিল্পকলার প্রতি কমে যাচ্ছে তাঁদের আগ্রহ। তরুণদের নিয়ে অনেক স্বপ্ন দেখা সম্ভব। সম্প্রতি বেঙ্গলের আয়োজনে ঢাকায় উচ্চাঙ্গ সংগীত অনুষ্ঠানে তরুণদের সরব উপস্থিতি তো তা-ই প্রমাণ করে। তারপর গণজাগরণ মঞ্চের কথা তো আছেই। আমি আশা করি, এই সংকটগুলো একদিন কেটে যাবে। আমাদের তরুণেরা হয়ে উঠবেন জাতির ভবিষ্যৎ পথচলার দিশারি।

মামুনুর রশীদ, নাট্যব্যক্তিত্ব

তরুণরা আত্মকেন্দ্রিক এ ধারণা ঠিক নয়

আমাদের তরুণেরা আগের চেয়ে আরও বেশি বহির্মুখী। এই সময়ের তরুণেরা আত্মকেন্দ্রিক, এ ধারণা বেশির ভাগ ক্ষেত্রে একদমই ঠিক নয়। আজকাল হয়তো নানা ধরনের প্রযুক্তির সুবিধার কারণে অনেকে বাইরে কম বেরোচ্ছেন। তাই বলে তাঁরা শুধু নিজেকে নিয়ে ভাবছেন না। ফেসবুকে তরুণেরা মতামত দিচ্ছেন নানা বিষয়ে, নানা ধরনের সামাজিক কাজ হচ্ছে ফেসবুকের মাধ্যমে। একজন রোগীর জন্য জরুরি রক্তের প্রয়োজন জানানো থেকে শুরু করে সামাজিক সমস্যা, রাষ্ট্র, খেলা, উৎসবসহ সব বিষয়েই তাঁরা সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোয় জানাচ্ছেন নিজের মতামত। তাহলে আত্মকেন্দ্রিকতা কোথায়? সমাজের প্রয়োজনে আন্দোলনে নেমে যাচ্ছেন তরুণেরা। বাড়ছে তরুণদের সামাজিক কার্যক্রমভিত্তিক সংগঠনের সংখ্যা। তারা কাজ করছে দেশের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে।

অর্পিতা হক, ভর্তি পরীক্ষায় প্রথম (২০১২), খ ইউনিট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
সময় ও বাস্তবতার কারণে এমন হচ্ছে

এখনকার তরুণদের নিয়ে কথা হলে এ প্রসঙ্গগুলো আসে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে সত্যতাও রয়েছে। তবে এর জন্য শুধু তরুণদের দোষ দেওয়া যাবে না। কেননা সময় ও জীবনবোধ প্রতি মুহূর্তে পরিবর্তন ঘটায় মানুষের চিন্তা ও ভাবধারায়। এই পরিবর্তন কখনো নেতিবাচক, আবার কখনো ইতিবাচকও হয়। তাই বলে তরুণেরা স্বপ্ন দেখবেন না, সেটা তো হতে পারে না।
স্বপ্ন না দেখলে বিশ্বসেরা ক্রিকেটার সাকিব আল হাসান হতো না। শুধু খেলায় নয়, অন্য সব ক্ষেত্রেও তরুণেরা তাঁদের যোগ্যতা প্রমাণ করছেন।
এই প্রজন্মকে সারা বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হচ্ছে। সংগত কারণেই হয়তো তারা নিজেকে নিয়ে অতি মাত্রায় সচেতন। এর ফলে হয়ে উঠছে আত্মকেন্দ্রিক। এটি সময় ও জীবন বাস্তবতার কারণেই হচ্ছে। চাইলেই আমরা এ অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে পারি।

গাজী আশরাফ হোসেন লিপু, সাবেক অধিনায়ক, বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দল

আত্মকেন্দ্রিক হওয়ার জন্য পরিবার দায়ী

এখানে দুটি দিকই আছে বলে আমার মনে হয়। তরুণদের কিছু অংশ আগের চেয়ে অনেক বেশি সামাজিক কাজে অংশ নিচ্ছে। আবার আরেক অংশ শুধু নিজেকে নিয়েই ব্যস্ত। মুঠোফোন, কম্পিউটার ও সামাজিক যোগাযোগের নানা মাধ্যমের ফলে এটা ঘটছে। আমরা যদি একটা পরিবারে যাই, তাহলে দেখব সেখানে চারজন মানুষ থাকলে চারজন মুঠোফোনে চারভাবে ব্যস্ত। পরিবারের মধ্যেও পারস্পরিক যোগাযোগ কমে গেছে। তাই আত্মকেন্দ্রিক হওয়ার জন্য পরিবারও সমানভাবে দায়ী। অনেক অভিভাবক চান সন্তান সবকিছুতেই প্রথম হোক। সারাক্ষণ একটা প্রতিযোগিতার মুখে ঠেলে দেওয়া হয় সন্তানকে। ফলে ছোটবেলা থেকেই সে নিজেকে গুটিয়ে নিচ্ছে শুধু নিজের লাভের কথা ভেবে।
আবার আমাদের তরুণেরাই রানা প্লাজাধসের পরে উদ্ধারকাজে মুখ্য ভূমিকা রেখেছেন। নানা ধরনের সামাজিক কাজের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে এই সময়ের তারুণ্য। তাই সব ধরনের প্রতিযোগিতা বা প্রথম হওয়ার প্রথা তুলে দিলে আমাদের তরুণেরা আরও বেশি দেশ বা সমাজ নিয়ে ভাববেন।

মাহমুদুল হাসান, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, রকমারি ডটকম
তরুণদের হাত ধরে পরিবর্তন ঘটবে

অনেকের ভাবনা আমাদের তরুণ প্রজন্মকে নিয়ে। কেউ বলেন তাঁরা আত্মকেন্দ্রিক। কেউ বলেন এই প্রজন্ম উচ্ছন্নে গেছে। এমনই নানা ভাবনার জায়গা থেকে আমরা ২০১২ সালে একটা জরিপ চালাই তরুণদের ওপর। বাংলাদেশের পাঁচটি স্থানে আমরা জরিপটা পরিচালনা করি ‘কোয়ালিকেটিভ রিসার্চ’-পদ্ধতি অবলম্বন করে। যেটা আলোচনাভিত্তিক জরিপ। এখানে প্রতিজন তরুণ বা তরুণীর সঙ্গে আলোচনা ও তাঁর আচরণ পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে জরিপকাজ চালানো হয়। ‘জেন জেড’ শিরোনামের এই জরিপে আমরা তুলে এনেছি বর্তমান সময়ের তরুণদের নানা দিক। যেটা পর্যবেক্ষণ করে দেখা যায়, বাংলাদেশে একটা বড় পরিবর্তন ঘটাচ্ছেন তরুণেরা। সেটা যে দুম করে ঘটে যাচ্ছে তা নয়, ঘটছে একটা নির্ধারিত প্রক্রিয়ার মাধ্যমে। ধনী-গরিব, ক্ষমতাধর-সাধারণ—সব ধরনের তরুণদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে এই জরিপে।

আমরা জানতে চেয়েছি বর্তমান তরুণদের সম্পর্ক, চাহিদা, খাদ্য, সমাজ, দেশ, আদর্শ ইত্যাদি নিয়ে। তাঁদের ভাবনার নানা দিক সরাসরি উঠে এসেছে এই জরিপে। দেখা গেছে, তাঁরা সব বিষয়ে সরাসরি কথা বলতেই পছন্দ করেন। ফ্যাশন-সচেতনতা বেড়েছে প্রায় সব তরুণের মধ্যে। তাঁরা অনেক বেশি আড্ডা দিতে ভালোবাসেন। যেকোনো নতুন প্রযুক্তি বিষয়ে জ্ঞান রাখায় আগ্রহী। প্রযুক্তির মাধ্যমেই দেশের বড় পরিবর্তন ঘটতে পারে বলে তাঁরা মনে করেন। বাড়িতে তাঁরা একধরনের আচরণ করেন, আবার বাড়ির বাইরে তাঁদের সম্পূর্ণ ভিন্ন রূপে দেখা যায়। সারাক্ষণ উচ্ছল আর আনন্দে থাকাটা পছন্দ। নিজেদের প্রকাশ করার ইচ্ছা প্রবল তাঁদের। যে কারণে তাঁরা ফেসবুক, ব্লগ, মুঠোফোনে কথা বলে নিজেদের মতামত প্রকাশ করতে পছন্দ করেন। স্বাস্থ্য না ফিটনেসের দিকে তাঁদের নজর বেশি। কীভাবে নিজেকে সুন্দর রাখা যায়, সেই প্রচেষ্টা আছে। ফাস্টফুড খাবারের প্রতি ঝোঁক আছে, পাশাপাশি নিজের ফিটসেন নষ্ট হলে সেটা কম করতে আগ্রহী।

গণমাধ্যমের কাছ থেকে তাঁরা অনেক কিছু শিখতে চান, জানতে চান। অনেক ক্ষেত্রে বইয়ের চেয়ে তাঁরা গণমাধ্যমকে গুরুত্ব দেন। অনেক বেশি আশাবাদী এই তরুণেরা। সবাই দেশের পরিবর্তন চান। তাঁরা অন্যের ওপর নির্ভর করতে চান না, নিজেরাই নিজের উন্নয়ন বা পরিবর্তন ঘটাতে চান। তরুণেরা একটা নিজস্ব শক্তি নিয়ে এগিয়ে আসছেন। যার মাধ্যমে বাংলাদেশে একটা বড় ধরনের পরিবর্তন আসবে বলে আমার ধারণা।

রুহিনা হালিম, ভাইস প্রেসিডেন্ট (রিসার্চ), কোয়ান্টাম কনজ্যুমার সলিউশন লিমিটেড

তরুণেরা দেশের কথা ভেবে কাজ করে

আমার এটা মনে হয় না যে তরুণেরা এখন আত্মকেন্দ্রিক। আমার তো মনে হয়, তারা আরও বেশি শক্তিশালী হয়ে কাজ করছে। আমি যেহেতু একজন ফুটবল খেলোয়াড়, তাই আমার ভাবনায় সব সময় খেলা থাকে। তাই বলে এই না যে আমি দেশ, পরিবার বা সমাজ নিয়ে ভাবি না। আমরা যেখানে যে অবস্থায় থাকি, দেশটা থাকে আমাদের হূদয়ে। আমাদের ভাবনায় থাকে পরিবার বা সমাজও। আমাদের ভালো কিছু করার যে লক্ষ্য, সেটা তো দেশের জন্যই। আমরা যখন একসঙ্গে থাকি, তখন একজন আরেকজনের কাজ নিয়ে আলোচনা করি। কেউ কোনো ভুল করলে সেটা নিয়ে আলোচনা করি, পরামর্শ দিই। এই সময়ের তরুণেরা নানা ধরনের কাজ করছে। নিজেরা নতুন কিছু করার চেষ্টা চালাচ্ছে। এসব তো শুধু নিজের উন্নয়নের কথা ভেবে নয়; দেশের, পরিবারের বা সমাজের জন্যই তো এসব কাজ।

সুই নু প্রু মারমা, অধিনায়ক, বাংলাদেশ জাতীয় মহিলা ফুটবল দল

http://prothom-alojobs.com/index.php?NoParameter&Theme=article_zone_new&Script=articleviewdetails_new&ArticleID=176

81
its a collective effort and achievement of excellence and honour for the University.

82
Guidance for Job Market / How to Face interview board
« on: August 03, 2014, 05:07:18 PM »
Prothom-alo Jobs is supporting the individual's occupation in addition, treating all of them  according  to their fundamental health issues in occupation. Within the  connection with its societal obligations, Prothom-alo jobs arranged Career Clinic on 25th January 2014. G. Sumdany Don, Manager consumer engagement at Philip Morris International, was the speaker there. A lot of job seekers  arrived intending for examining way up the profession delegate presently there.

At the starting of the program, Shams Jahan Farhat and Shakil Chowdhury Arnob who are Brand development executive of Prothom-alo Jobs, represented the functions of Prothom-alo jobs  and introduced the delegate over the crowd of career concern people.

G. Sumdany Don, who is an excellent motivator took the floor of the program. On the eve of the discussion, Mr Sumdani pointed out some misconception about facing interview board.  He showed his first slide, where he gave the idea about the count of students enter the job market each and every year, but less than 40% can reach their dream position. Only unique people, can get the chance to get their expected jobs, among the millions. He added. Mr G. Sumdani talked about the importance of holding good CGPA alongside with some volunteer works may add as an extra plus point for job applications. Delegate Mr Sumdani told the job seekers to follow the job portals like Prothom-alo jobs, which uses to update everyday with new job circulars. He also said, the audiences that CV writing is one of the important strategies facing the interview board. Writing CV in a right way is so important, he argued.

“For fresh Graduates two pages CV is ok, for the mid level 3 pages are standard,”Sumdani said. One audience asked a question, which was,“If asking about a fresh graduate, but why most of the companies require minimum one year experience.”  Frolic way, Mr Sumdani answered that normally companies expect corporate culture among the employee, so having no idea about it doesn’t make a sense. He added, part-time work can help in that case. Mr Sumdani then derived the whole discussion summarizing as few points, they are

    Fresh yourself washing mouth before facing an interview board

    Try to be well dressed

    Try to be normal on the interview board

    Before coming study the function and all information about the job stuffs

    Don’t dare, becoming damn smart and dumb

    Come upon with well organize CV

    Put a cover letter on the front page of the CV

    Show your volunteer activities and work done before

    Try to be unique on the interview board

Overall on the last slide of the presentation, in his mellow sound Mr Sumdani thanks all the audience, coming from the different part, for the career development. The Career clinic on January 14 ends here with a huge round of applause from career participant.

http://prothom-alojobs.com/index.php?NoParameter&Theme=article_zone_new&Script=articleviewdetails_new&ArticleID=182

83
গুগলে চাকরি পেতে পরীক্ষায় বেশি জিপিএ থাকতে হবে, এ ধারণা করা ঠিক নয়। গুগলে চাকরি পেতে জিপিএ কিংবা পরীক্ষায় খুব ভালো নম্বর পাওয়ার বিষয়টির তেমন কোনো গুরুত্বই নেই। কারণ পরীক্ষার ফল দেখে কারও সম্পর্কে ধারণা করা যায় না—এ কথাগুলো নিউইয়র্ক টাইমসকে এক সাক্ষাত্কারে জানিয়েছেন গুগলের মানবসম্পদ বিভাগের ভাইস প্রেসিডেন্ট লাজলো বক।
লাজলোর মতে, ধীরে ধীরে প্রচলিত শিক্ষাগত যোগ্যতা হিসেবে বিশ্ববিদ্যালয় বা কোনো প্রাতিষ্ঠানিক ডিগ্রি ছাড়া গুগলকর্মীর সংখ্যা বাড়ছে। গুগলের কিছু কিছু টিমে ১৪ শতাংশ কর্মীর প্রাতিষ্ঠানিক কোনো ডিগ্রি নেই। এ অবস্থায় অনেকেই জিজ্ঞাসা করেন গুগলের মতো প্রতিষ্ঠানে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার গুরুত্ব না থাকলে চাকরি মিলবে কীভাবে? এ বিষয়ে লাজলো বকের মুখ থেকেই আমরা শুনব গুগলে চাকরি পাওয়ার শর্তগুলো।

‘আমাকে ভুল বুঝবেন না’ লাজলো শুরু করেন এভাবেই। পরীক্ষায় কেউ ভালো ফল করলে বা ভালো গ্রেড পেলে চাকরি পাওয়ার ক্ষেত্রে কোনো সমস্যা নেই। তবে গুগলে চাকরি পেতে গণিত ও কম্পিউটিং, বিশেষ করে কোড লেখার দক্ষতা জরুরি। যদি কেউ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পরীক্ষায় ভালো গ্রেড অর্জন করে এবং সত্যিকারের দক্ষতা দেখাতে পারে, তারা গুগলে চাকরির জন্য অবশ্যই আবেদন করতে পারে। গণিত আর কোড এ দুটি দক্ষতা চাকরিপ্রার্থীর জন্য একটা বাড়তি সুবিধা করে দিতে পারে। তবে এ দুটির বাইরে গুগলে চাকরি পেতে আরও অনেক দক্ষতাই অর্জন করতে হবে।

লাজলো বক ব্যাখ্যা করে বলেন, গুগলে চাকরির জন্য পাঁচটি বিষয়কে গুরুত্ব দেওয়া হয়। যদি চাকরির পদটি কোনো কারিগরি বিষয় হয়, তবে জোর দেওয়া হয় কোডিং দক্ষতার ওপর। গুগলে চাকরির প্রায় অর্ধেকই অবশ্য কারিগরি শ্রেণীতেই পড়ে। প্রতিটি চাকরির ক্ষেত্রেই যে মূল বিষয়টি বিবেচনায় রাখা হয় তা হচ্ছে সাধারণ জ্ঞানের দক্ষতা। এ বিষয়টিতে আইকিউয়ের সঙ্গে মিলিয়ে ফেলা ঠিক হবে না। এখানে সাধারণ জ্ঞান বলতে বোঝানো হচ্ছে, কোনো বিষয় শেখার দক্ষতা, দ্রুত শেখার ক্ষমতা এবং তা কাজে লাগানোর ক্ষমতা।

এই দক্ষতা হচ্ছে অতিসূক্ষ্ম জিনিসের মধ্যে পার্থক্য করার ক্ষমতা। গুগলে চাকরির জন্য সাক্ষাত্কার নেওয়ার সময় আচরণগত এ বিষয়গুলো খুব ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করা হয়।

লাজলো বক মনে করেন, গুগলে চাকরি পেতে হলে দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হচ্ছে নেতৃত্বগুণ। প্রচলিত নেতৃত্বের পরিবর্তে প্রয়োজনীয় মুহূর্তে সমস্যা সমাধান করার নেতৃত্ব গুণকে গুরুত্ব দেয় গুগল। বক উদাহরণ দিয়ে বলেন, দাবা ক্লাবের আপনি একজন প্রেসিডেন্ট ছিলেন কিংবা বিপণন বিভাগের প্রধান ছিলেন? আপনি কত দ্রুততার সঙ্গে সেই পদে উন্নীত হয়েছেন, গুগল সে বিষয়টি দেখে না; বরং প্রয়োজনের মুহূর্তে আপনার টিমকে আপনি কতটা সমর্থন দিয়েছেন এবং আপনার কাজ কতটা টেনে নিয়েছেন, সেটি দেখে। সমস্যায় পড়লে নেতৃত্ব গুণে সমাধান করার বিষয়টি বিবেচনা করে গুগল। সমস্যা জটিল হলে আপনার ভূমিকা কী হয়, সে বিষয়টিও পর্যবেক্ষণ করে গুগল।

গুগলে চাকরি পেতে গেলে আরও দুটি ভালো গুণ অর্জন করা জরুরি। এর একটি হচ্ছে নম্রতা আর অন্যটি কোনো জিনিসকে দ্রুত নিজের করে নেওয়ার ক্ষমতা। গুগলের মানবসম্পদ বিভাগের কর্মকর্তা লাজলোর মতে, গুগলে উগ্র স্বভাবের মানুষের চাকরি পাওয়া কঠিন। লাজলো বলেন, দায়িত্বজ্ঞানসম্পন্ন হতে হবে এবং প্রতিষ্ঠানের কাজকে নিজের কাজ ভাবতে হবে, নিজের প্রতিষ্ঠান ভাবতে হবে। কোনো কিছুতেই রেগে যাওয়া চলবে না। কোনো কাজ নিজে সমাধান করতে না পারলে ভদ্রভাবে অন্যকে তা ছেড়ে দিতে হবে। অন্যদের ভালো পরামর্শগুলো গ্রহণ করতে হবে। গুগল সব সময় কাজের শেষে কী অর্জন করা হলো, সে বিষয়টি দেখে। কীভাবে একত্রে বা দলগতভাবে সমস্যা সমাধান করা যাবে—এ বিষয়টিকেই গুগল গুরুত্ব দেয়।

বক বলেন, গুগলের কর্মীর দায়িত্ব হলো নিজের কাজটুকু ঠিকভাবে করা এবং অন্যের জন্য তার কাজের সুযোগ করে দেওয়া।

গুগলে ভদ্রতা বলতে অন্যকে কাজের সুযোগ করে দেওয়া নয়; বরং এটিকে বলা চলে বুদ্ধিবৃত্তিক নম্রতা। এই নম্রতা বা অন্যকে সম্মান দেখানোর মানসিকতা তৈরি না হলে কর্মীদের পক্ষে নতুন কিছু শেখা সম্ভব নয়। গবেষকদের প্রসঙ্গ টেনে লাজলো বলেন, অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ের উচ্চতর ডিগ্রিধারীদের আধিক্য দেখা যায়। অধিকাংশ সফল ও মেধাবীর ক্ষেত্রে ব্যর্থতার হার খুব কম থাকে, তাই তারা ব্যর্থতার থেকে কীভাবে শিক্ষা নিতে হয়, সেই বিষয়টিই শিখতে পারে না।

শিক্ষাক্ষেত্রে যাঁরা অধিকতর ভালো ফল নিয়ে গুগলে চাকরির জন্য আসেন, তাঁরা অনেকেই নিজের গুণের পরিচয় দিতে ভুল করে বসেন। যখন তাঁদের কাছ থেকে ভালো কিছু ফল পাওয়া যায়, তাঁরা গর্ব করে বলে বসেন, আমি অসাধারণ বলেই এটি সম্ভব হয়েছে। কিন্তু আবার যখন তাঁরা খারাপ করেন, কিছুতেই এর দায় নিতে চান না—এ কথা বলেন লাজলো বক।

গুগলে চাকরি পাওয়ার জন্য যেসব পরীক্ষায় অধিকতর ভালো ফলাফল করা প্রার্থীরা আবেদন করেন, তাঁরা নিজেদের যোগ্যতা নিয়ে অহেতুক তর্ক করেন। তাঁরা নিজেদের যুক্তি থেকে একচুল নড়তে চান না। তাঁরা একধরনের গোঁড়ামি করেন। তাঁদের সামনে নতুন তথ্য উপস্থাপন করা হলে তখন তাঁরা হয়তো মেনে নেন। তাই গুগলে চাকরি পেতে হলে একজন মানুষের মধ্যে প্রয়োজনে ছোট হওয়া বা প্রয়োজনে বড় হওয়া দুটি গুণই থাকতে হবে।

লাজলো বক বলেন, গুগলে চাকরি পাওয়ার জন্য আরেকটি দক্ষতা  থাকতে হবে আর তা হচ্ছে—কোনো কাজের ওপর ন্যূনতম অভিজ্ঞতা। ন্যূনতম অভিজ্ঞতাসম্পন্ন কাউকে কাজে নেওয়া হলে তাঁর শেখার আগ্রহ, যোগাযোগ দক্ষতা, নেতৃত্ব দেওয়ার আগ্রহ থাকে।

বকের কথার সংক্ষেপ করলে দেখা যাবে, মানুষের মেধা বিভিন্ন ধরনের হতে পারে এবং এই মেধাকে প্রচলিত ধারার বাইরেও নানাভাবে কাজে লাগানো যেতে পারে। তাই চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠান ও নিয়োগকারী হিসেবে দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাকে শুধু নামকরা কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের দিকে চেয়ে থাকলেই হবে না। কারণ, স্কুল থেকে ঝরে পড়া অনেক মানুষই তাঁদের পথ খুঁজে নিয়ে বিশ্বে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন। যদিও তাঁরা ব্যতিক্রম হিসেবে বিবেচিত হন। এই ব্যতিক্রমী মানুষদেরই আমাদের খুঁজে বের করা উচিত।

বক বলেন, অনেক নামকরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান আছে কিন্তু সেখান থেকে তাদের প্রতিশ্রুতি মতো স্নাতকদের বের করতে পারে না। তারা জীবনের জন্য অতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো শিক্ষা দিতে ব্যর্থ হয়। এটা মানুষের কৈশরকেই কেবল বিলম্বিত করে।

গুগল যে কাজটি করে তা হচ্ছে প্রচলিত জিপিএ বা প্রচলিত শিক্ষার বাইরের মেধাগুলোকে কাজে লাগানোর চেষ্টা করে। যদিও অধিকাংশ তরুণ এখন স্কুল-কলেজের শিক্ষা নিতে যাচ্ছেন, তার পরও তাঁদের প্রচলিত শিক্ষার পাশাপাশি ভবিষ্যতে ক্যারিয়ার গড়তে যে বিষয়গুলো কাজে লাগবে তা শেখাটাই মূল বিষয়।

বক বলেন, আপনি কতটুকু জানেন এবং আপনার জানার পরিধি কাজে লাগিয়ে কী করতে পারেন, বর্তমান বিশ্ব সে বিষয়টিকেই গুরুত্ব দেবে এবং আপনার সেই মেধার মূল্য শোধ করবে।

বর্তমান উদ্ভাবনী বিশ্বে নেতৃত্ব, নম্রতা, সহযোগিতা ও সহজে গ্রহণ করা, শিখতে ভালো এবং বারবার শিখতে চাওয়ার মতো দক্ষতাগুলোকে গুরুত্ব দেওয়া হবে। আর এ বিষয়গুলো শুধু গুগলে চাকরি পেতেই নয়, যেখানেই কাজ করতে যান না কেন সেখানেই কাজে লাগবে।

http://prothom-alojobs.com/index.php?NoParameter&Theme=article_zone_new&Script=articleviewdetails_new&ArticleID=186

84
Interviews are no longer that one time defining experience for most people. With the market the way it is, interviews are more or less an every-other-day event many of us has to go through. Be that job interviews, or a University Club Interview, or the tense first conversation between a private home tutor and the parents of his prospective student. Interviews are where we have a chance to prove our worth to our potential employees and show them why they must hire. Once in a while, a candidate does quite the opposite. Like any other thing we do, Interviews are all about a calm head, some preparation and avoiding certain mistakes discussed below.

Do not go unprepared
The last thing any company wants is someone who just walked in clueless about his surroundings. Do all the necessary background checks about the company and the job. Make sure you can fit in the role and the place.

Do not come dressed or made up inappropriately
How you dress really tells a lot about you. A work environment, needless to say, is not somewhere you turn up in Disco attire with fake afros and glittery pants. You need to dress in a way that reflects you have qualities employees are looking for. Formal attire is generally an implicit requirement for work interviews, and even University admission interviews. Dress sharp, stay clean. Avoid too much make up.

Keep your phone switched off or on silent mode
Ringing phones can be a source of some serious nuisance. I have personally had a rather unsavory experience in that department where the ringtone nearly gave the person interviewing me a heart attack. Thankfully it was not a job interview, but my point is, I was not accepted. You don't want that happening in interviews that matter. Even if the phone (which has to be on silent mode) does buzz, you either ignore it, or you answer and calmly tell the caller you are busy then get back to the interview.

Do not give overly general answers
People who carry out interviews have a rather tiring task of keeping up with clichéd answers. For example, “I am a hard worker” or “I am a team player”. General answers only indicate lack of creativity. “The whole point of an interview is to use the chance at a face to face interaction to stand out from the rest. You can rest assured that the rest of them will claim to have the same strengths as you do” says Ruhul Arif Amit. It's better to back up your claims with facts, Back qualities with your achievements.
“Claiming that you directly helped increase sales for a certain company is more effective than just calling yourself a hard worker. Make it even more measurable with numbers.” says Mohi Zaman. “It's best to make credible claims because your potential employers will look to verify them.”
Do not give too long or too short answers
Last thing any interviewer, who has to sit through numerous interviews per day, wants  is a candidate who either goes on ranting about irrelevant and unnecessary things forever or says nothing at all. Be precise, concise and to the point when giving answers. But do not be too minimalistic either. After all, you need enough to create the right impression. You also need to be wise about the things you say. For example, criticizing your former bosses may not create the best impression.

Do not look at your CV every other minute
It is generally discouraged, but it varies from person to person whether you should or should not do it. Opinions do vary on this subject, whereas many prefer to play it safe and diplomatic to not appear too keen on that matter.
According to Zeehad Usayed Islam from Airtel, “Personally that's a plus in my book. It shows that he's willing to look at things critically. Let's accept the fact that people work for themselves primarily. If I am not an employer of choice and I want to get top talent, I need the person in question to understand what exactly he gets out of it.”
These are what you need to be aware of to give a good interview. We all have had bad interviews once in a while. Just avoid making the mistakes mentioned, be cool, composed and confident. A good interview does not guarantee that you will be hired, considering other employees may give better interviews too. But a bad interview makes the chances tons of a lot bleaker, so watch out and play it safe.

http://prothom-alojobs.com/index.php?NoParameter&Theme=article_zone_new&Script=articleviewdetails_new&ArticleID=190

85
‘ক্লাসে শিক্ষকেরা আমাদের কত-কী শিখিয়েছেন৷ মোটা মোটা বই পড়ে একেকটা পরীক্ষায় পাস করেছি৷ আর এখন আমাকে কিনা সকাল নয়টা থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত বসে বসে চেকের ওপর সিল মারতে হয়৷ এই যদি হয় কাজ, তাহলে এত কিছু পড়লাম কেন?’ মন খারাপ করা গলায় বলছিলেন সোহেল (ছদ্মনাম)৷ বিশ্ববিদ্যালয়ে শেষ বর্ষের ছাত্র তিনি৷ শিক্ষানবিশ অর্থাৎ ইন্টার্ন হিসেবে যোগ দিয়েছেন একটি বেসরকারি ব্যাংকে৷ শিক্ষানবিশি প্রতিবেদন ঠিকভাবে শেষ হলেই মাথায় পরবেন সমাবর্তনের টুপি৷

ব্যবসায় প্রশাসন, প্রকৌশলবিদ্যা, চিকিৎসাবিজ্ঞান, সাংবাদিকতাসহ এখন অনেক বিষয়েই স্নাতক পর্যায়ের শেষভাগে কোনো না কোনো প্রতিষ্ঠানে শিক্ষানবিশি করতে হয়৷ আসলে এটা কর্মজীবনে বাস্তব অভিজ্ঞতা নেওয়ার একটা সুযোগ৷ কোনো প্রতিষ্ঠানে একজন শিক্ষানবিশের কাজের ধরন কেমন হতে পারে? তাঁর প্রতি অফিসের অন্য কর্মকর্তাদের আচরণই বা কেমন হওয়া উচিত? এসব নিয়ে কথা হলো সংশ্লিষ্ট কয়েকজনের সঙ্গে৷

শিক্ষানবিশদের জন্য
গ্রো এন এক্সেলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও মুখ্য পরামর্শক এম জুলফিকার হোসেন বলেন, শিক্ষানবিশ হিসেবে কাজ করার প্রধান উদ্দেশ্য হলো শেখা৷ হতাশ হয়ে আপনি যদি শেখার আগ্রহ হারিয়ে ফেলেন, দিন শেষে ক্ষতিটা কিন্তু আপনার৷ অনেক শিক্ষানবিশ কর্মী অভিযোগ করেন, অফিসে তাঁদের দিয়ে ফটোকপি করিয়ে আনার মতো ছোটখাটো কাজ করানো হয়৷ মনে রাখতে হবে, কোনো কাজই ছোট নয়৷ প্রতিটি কাজ গুরুত্ব সহকারে করতে হবে৷
গুরুত্ব দিয়ে কাজ করার সুফল শোনা হলো সুমাইয়া আফরিনের কাছ থেকে৷ একটি মুঠোফোন কোম্পানিতে শিক্ষানবিশ হিসেবে কাজ করেছিলেন৷ এখন সেখানেই নিয়োগ পেয়েছেন৷ বললেন, ‘প্রথম দিকে আমার তেমন কোনো কাজ ছিল না৷ সহকর্মীরা বোধহয় গুরুত্বপূর্ণ কোনো কাজ দিতে ঠিক ভরসা পেতেন না৷ কিন্তু আমি আশপাশের সবার কাজ খুব ভালোভাবে লক্ষ করতাম৷ না বুঝলে জিজ্ঞেস করে জেনে নিতাম৷ এভাবে দেখা গেল অনেক কিছু শিখে গেছি৷ এখন তো চাকরিও স্থায়ী হয়ে গেছে৷’

মনে রাখতে হবে, শিক্ষানবিশ বলে কাজে হেলাফেলা করার কোনো সুযোগ নেই৷ দ্রুত কর্মদক্ষতা অর্জনের পাশাপাশি অফিসের আদবকেতাও শিখে নিতে হবে৷ চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে নিজের সেরাটুকু দেওয়ার মানসিকতা থাকতে হবে৷ শিক্ষানবিশি প্রতিবেদন তৈরির সময়ও তত্ত্বীয় ও ব্যবহারিক জ্ঞান, দুটিরই প্রয়োগ থাকা জরুরি৷

শিক্ষানবিশদের প্রতি আচরণ
শিক্ষানবিশ হিসেবে কাজে যোগ দিয়েছেন বলে একটি প্রতিষ্ঠান কাউকে হেলাফেলা করতে পারে না৷ কর্মকর্তাদের সচেতন হতে হবে৷ একজন শিক্ষানবিশকে যেভাবে দায়িত্ব বুঝিয়ে দিতে হবে, তেমনি তাঁকে শেখানোর দায়িত্বও অফিসে সিনিয়রদের নিতে হবে৷ এমন মত এম জুলফিকার হোসেনের৷ তিনি মনে করেন, শিক্ষানবিশ কর্মীকে মাঝেমধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কাজ দিয়ে নিজেকে প্রমাণ করার সুযোগ দেওয়া উচিত৷ তবে অবশ্যই সমন্বয়ক হিসেবে সঙ্গে কাউকে থাকতে হবে, যেন কাজটি ঠিকভাবে হয়, আবার নতুন লোকটিও কাজের চাপে অসহায় বোধ না করেন৷ অফিসের একজন নতুন কর্মীকে শুরুতেই কাজের চাপে ফেলে ঘাবড়ে দেওয়া ঠিক নয়৷ অফিসে পুরোনোদের উচিত শেখানোর মানসিকতা নিয়ে একজন শিক্ষানবিশ কর্মীকে সহযোিগতা করা৷

সূত্র: প্রথমআলো

86
Animals and Pets / স্তন্যপায়ী মাছ!
« on: August 03, 2014, 01:15:57 PM »

স্তন্যপায়ী মাছ!

বলো তো দেখি মাছ ডিম পাড়ে, নাকি বাচ্চা দেয়? কিছু মাছ ডিম পাড়ে আবার কিছু মাছ বাচ্চা দেয়। আর বাচ্চাদের জন্মের পরে মা মাছ কী করে বলো তো!

মা মাছ বাচ্চাদের সঙ্গে নিয়ে ঘুরে বেড়ায়, খেতে শেখায়, খেলতে শেখায়। শুধু কি তাই! যাতে অন্য কোনো প্রাণী বাচ্চাদেরকে খেয়ে না ফেলে সে দিকেও যে খেয়াল রাখে মা মাছ। কিন্তু যদি বলি মাছেরাও তাদের বাচ্চাদেরকে দুধ খাওয়ায়!

শুনতে খুবই আশ্চর্য লাগছে? যতই আশ্চর্য লাগুক, সত্যি কোনো কোনো মাছ তাদের বাচ্চাদের দুধ খাওয়ায়। তাদের এই দুধ খাওয়ানোর বিষয়টি অবশ্য একটু আলাদা। স্থলচর স্তন্যপায়ী প্রাণীরা তাদের বাচ্চাদেরকে জন্মের পরে দুধ খাওয়ায়। কিন্তু এই মাছেরা তাদের বাচ্চাদেরকে দুধ খাওয়ায় জন্মানোর আগেই। মায়ের পেটে থাকা অবস্থায়ই এই মাছের ছানারা দুধ খেয়ে বড় হতে থাকে। এরপর যখন উপযুক্ত হয়ে যায় ছানারা তখনই তারা জন্ম নেয়। এক কথায় বলা যায় এই মাছের বাচ্চারা শক্তপোক্ত হয়েই জন্ম নেয়।

নিশ্চয়ই জানতে ইচ্ছে করছে এই মাছের নাম! এদের নাম এলপাউট। মাছগুলো ইউরোপের বিভিন্ন সমুদ্রের তীরবর্তী এলাকায় দেখা যায়। বিশেষ করে ইংলিশ চ্যানেলের কাছে তো অনেক বেশি দেখা যায়। এদের চেহারা দেখতে অনেকটাই ঈল মাছের মতো। হ্যা, এই মাছেরই ছানাগুলো মায়ের পেটের মধ্যেই বড় হয়ে তারপর জন্ম নেয়।

এলপাউট মাছের মায়েরা একবারে ৩০ থেকে ৪০০ টি পর্যন্ত পোনা ছাড়ে। আর জন্মের সময় একেকটি ছানা ৩ থেকে ৫ ইঞ্চি পর্যন্ত বড় হয়। মায়ের পেটেই ডিম বড় হয়। তারপর পেটের মধ্যেই জন্ম নেয় খুদে খুদে ছানারা। কিন্তু মায়ের পেট থেকে বের হয়না। পেটের ভিতরে থেকেই দুধ খায় আর বড় হয়। যখন ছানাগুলোর মনে হয় তারা যথেষ্টই বড়ো হয়ে গেছে তখন তারা বেরিয়ে আসে। এভাবে মায়ের পেটে ছয়মাস পর্যন্ত কাটিয়ে দেয় এলপাউটের পোনাগুলো।

বড় হলে ছানারা পেট থেকে বের হয়ে আসে ঠিকই তবে সবসময় আবার তারা বের হয় না। তারা মায়ের পেট থেকে বের হবার জন্য শীতকাল পর্যন্ত অপেক্ষা করে। পানি যখন অনেক শীতল হয়ে বরফের কাছাকাছি আসে তখনই কেবল পোনাগুলো বের হয়ে আসে।

বড় এলপাউট মাছ সর্বোচ্চ ২০ ইঞ্চি পর্যন্ত লম্বা হয়। আর ওজন হয় ৫ কেজিরও বেশি। এই মাছ বাস করে সমুদ্রের কিনারায় পাথরের তলায়। পাথরের গায়ে লেগে থাকা বিভিন্ন শৈবাল এবং অন্যান্য জলজ উদ্ভিদ এই মাছগুলোর প্রধান খাবার।

এলপাউট মাছেরা কিন্তু পানি ছাড়াও বেঁচে থাকতে পারে। পাথরের নীচে কোনো স্যাঁতসেঁতে স্থান বা সমুদ্রের কোনো আগাছার নীচেও চুপটি করে বসে থাকতে পারে। মাঝে মাঝে পানিতে থাকতে ভালো না লাগলেই হয়েছে। সঙ্গে সঙ্গে তারা বের হয়ে আসে পানি ছেড়ে। তাই বলে কি তাদের কোনো সমস্যা হয়? হয় না। কেন বল তো? কারণ তারাও তো স্থলচর প্রাণীদের মতোই মায়ের দুধ খেয়ে বড় হয়।

দেখতে ইচ্ছে করছে এই মাছগুলোকে? তাহলে তো তোমাকে যেতে হবে সেই ইউরোপে। আজকে নাহয় এর গল্প শুনে আর সঙ্গের ছবি দেখেই আশ মেটাও। পরে কখনো সময় সুযোগ হলে সামনাসামনি দেখে এসো এলপাউট মাছের ছানাদের।


http://bangla.bdnews24.com/kidz/2014/07/21/-2

87

আমাদের মাঝেই অনেক জিনিয়াস আছে। তবে সেই সব জিনিয়াসদের কেউ কেউ ছোটবেলা থেকেই তাদের প্রতিভা দেখাতে শুরু করেন। আজ তোমাদের জন্য থাকছে তেমনই কয়েকজন শিশু-জিনিয়াসের গল্প।

১. কিম উং ইয়ং

১৯৬২ সালে অসাধারণ প্রতিভাবান এক শিশু জন্মগ্রহণ করে দক্ষিণ কোরিয়ায়। কয়েকবছরের মধ্যেই বিশ্বের সবচেয়ে মেধাবী শিশু হিসেবে পরিচিত হতে শুরু করে সে। অবিশ্বাস্য শোনালেও সত্যি যে মাত্র চার বছর বয়সেই শিশুটি জাপানিজ, কোরিয়ান, জার্মান এবং ইংরেজি ভাষা আয়ত্ব করে। পঞ্চম জন্মদিনের পরপরই সে জটিল সব ডিফারেনসিয়াল এবং ইন্টিগ্রাল ক্যালকুলাস সমাধান করতে শুরু করে। সে সময় এক জাপানিজ টিভি অনুষ্ঠানে চাইনিজ, স্প্যানিশ, ভিয়েতনামিজ, টাগালগ, জার্মান, ইংরেজি, জাপানিজ ও কোরিয়ান ভাষায় সে পারফর্ম করে দেখায়। এরপর খু্ব দ্রুতই সে বিশ্বের সবচেয়ে বুদ্ধিমান শিশু হিসেবে গিনেজ বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস-এ নাম লেখায়। সেখানে তার আইকিউ লেভেল দেখানো হয় ২১০। যেখানে একজন গড়পরতা সাধারণ মানুষের আইকিউ লেভেল ৭০ থেকে ১৩০ এর মধ্যে।

কিম হ্যানইয়াং বিশ্ববিদ্যালয়ে সে গেস্ট স্টুডেন্ট হিসেবে ৩ বছর বয়সে ভর্তি হয়। ৬ বছর বয়স পর্যন্ত পদার্থবিজ্ঞানে লেখাপড়া করে। নাসা যখন তাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আমন্ত্রণ জানায় তখন তার বয়স মাত্র ৭। কলোরাডো স্টেট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পদার্থবিজ্ঞানে পিএইডি শেষ করার সময় তার বয়স ছিল ১৫ থেকে কিছুটা কম। এই লেখাপড়া চালিয়ে যাওয়ার সময়ই সে নাসাতে নানা গবেষণামূলক কাজ চালিয়ে যেতে থাকে। পরবর্তীতে দেশে ফিরে সে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়েও পিএইচডি করে। বর্তমানে কিম চুমবাক ন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনায় যুক্ত আছেন।

২. গ্রেগরি স্মিথ

‘মাত্র দুই বছর বয়সেই যে পড়তে শিখেছিল সে ১০ বছর বয়সে বিশ্ববিদ্যালয়ে ঢুকবে, তাতে অবাক হওয়ার কী আছে?’- এমন মন্তব্য ১৯৯০ সালে যুক্তরাষ্ট্রে জন্ম নেওয়া গ্রেগরি স্মিথের স্বজনদের। সত্যিই তাই। তবে অবাক হওয়ার পালা এখানেই শেষ নয়। গ্রেগরি মাত্র ১৪ বছর বয়সেই বিশ্ব শান্তি এবং শিশুদের অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে শু্রু করে এক বিশ্ব ভ্রমন। এর আওতায় সে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন, মিখাইল গর্ভাচেভ, নোবেল বিজয়ী আয়ারল্যান্ডের বেটি উইলিয়ামস, দক্ষিণ আফ্রিকার আর্চবিশপ ডেজমন্ড টুটু, পূর্ব তিমুরের জোসে রামোসসহ আরও অনেক বিশ্ব নেতার সঙ্গে সাক্ষাত করে। জাতিসংঘে শিশুদের অধিকার নিয়ে বক্তৃতাও করে গ্রেগরি। এছাড়াও সে আরও অসংখ্য কাজ করেছে, যা বলে শেষ করা যাবে না।

এ ধরনের সামাজিক কার্যকলাপের জন্য নোবেল শান্তি পুরস্কার পাওয়ার প্রাথমিক তালিকায় এ পর্যন্ত চারবার তার নাম উঠেছে। তবে শেষ পর্যন্ত পুরস্কারটা তার পাওয়া হয় নি। গ্রেগরি বলেন, ‘আমি কিন্তু পুরস্কার পাওয়ার জন্য কাজ করছি না।’ আসলেই তো, বিশ্বে যদি সত্যিই শিশুদের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়, সেটাই তো হবে গ্রেগরির জন্য সবচেয়ে বড় পুরস্কার।

৩. অক্রিত জেসওয়াল

ভারতে জন্ম নেওয়া অক্রিতের আইকিউ লেভেল ১৪৬। সে কারণেই তাকে ১২০ কোটি মানুষের দেশ ভারতে সবচেয়ে বুদ্ধিমান শিশু হিসেবে ধরে নেওয়া হয়।

২০০০ সালে অক্রিত সবার নজরে আসে যখন তার বয়স মাত্র ৭ বছর। প্রতিবেশি এক মেয়ের হাত আগুনে মারাত্মকভাবে পুড়ে গিয়েছিল। চিকিৎসার খরচ না থাকার কারণে সে ডাক্তারের কাছে যেতে পারছিল না। আগুনে মেয়েটির হাতের আঙুল একটির সাথে অন্যটি জোড়া লেগে যাচ্ছিল। অক্রিতের কোনো চিকিৎসা সনদ কিংবা অভিজ্ঞতা না থাকার পরেও মেয়েটির হাতে সফল অস্ত্রোপচার করে আঙুলগুলো ঠিক করে দিতে পেরেছিল।

শুধু কী তাই? ১২ বছর বয়সে এক ধরনের ক্যান্সার প্রতিকারের পদ্ধতি আবিস্কার করে সে রীতিমতো সাড়া ফেলে দিয়েছিল। কিছুদিন আগে সে চন্ডিগড় কলেজে বিজ্ঞান বিষয়ে অনার্স কোর্স শেষ করেছে। সারা ভারতে অনার্স কোর্সে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে অক্রিতই ছিল সবচেয়ে কম বয়সী।

৪. ফ্যাবিয়ানো লুইগি ক্যারুয়ানা

১৯৯২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডায় জন্ম নেওয়া এই বিস্ময় শিশু একইসঙ্গে ইতালিরও নাগরিক। ছোটবেলা থেকেই দাবাখেলায় আগ্রহ ছিলো তার। সুযোগ পেলেই দাবার বোর্ড নিয়ে বসে পড়ত বন্ধুদের সঙ্গে। ফ্যাবিয়ানোর কাছে বারবার হারার কারণে একসময় বন্ধুরাও আর খেলতে চাইত না। তখন ভরসা ছিল কম্পিউটারের দাবা সফটওয়্যারগুলো। সেখানেও অনায়াসেই জিতে যেত ফ্যাবিয়ানো।

এভাবে একে একে জিততে জিততে মাত্র ১৪ বছর ১১ মাস ২০ দিনে সে অর্জন করল গ্র্যান্ড মাস্টার খেতাব। ইতালি এবং আমেরিকার ইতিহাসে সবচেয়ে কম বয়সী গ্র্যান্ড মাস্টার বনে গেলেন ফ্যাবিয়ানো। ২০০৯ সালে ইলো রেটিংয়ে ২৬৪৯ নম্বর অর্জন করেন তিনি, যা ১৮ বছরের নীচে কারও অর্জন করা সবচেয়ে বেশি নম্বর।

৫. ক্লিওপেট্রা স্ট্রাটন

মলডেভার চিসিনাউয়ে ২০০২ সালের ৬ অক্টোবর জন্মগ্রহণ করে ক্লিওপেট্রা। তার ঠিক ৩ বছর পরের কথা। রোমানিয়ায় লাইভ কনসার্টের আয়োজন করা হয়েছে। টানা দুই ঘন্টা গান গাইবে ক্লিওপেট্রা। প্রতি গানের জন্য আয়োজকদের সঙ্গে চুক্তি অনুসারে ক্লিওপেট্রা পাবে ১০০০ পাউন্ড, বাংলাদেশী মুদ্রায় প্রায় ১ লাখ ২৯ হাজার টাকা!

সত্যিই তাই, এত কম বয়সে এত টাকা উপার্জনকারী বিশ্বের একমাত্র শিশু গায়িকা ক্লিওপেট্রা। তার বাবা মলডোভান রোমানিয়ান গায়ক পাভেল স্ট্রাটন। তিন বছর বয়সেই ক্লিওপেট্রা বাজারে আনে ‘লা ভার্সটা ডি ট্রি এ্যানি’ শিরোনামের এ্যালবাম-- যার অর্থ ‘তিন বছর বয়সে’। সবচেয়ে কম বয়সে এমটিভি মিউজিক এ্যাওয়ার্ড পাওয়া এই শিশু রোমানিয়ার সিংগার চার্ট অনুসারে এক সময় এ#১ স্কোর করেছিলেন।

৬. মাইকেল কেভিন

১৯৮৪ সালে যুক্তরাষ্ট্রে জন্ম নেওয়া কেভিন মাত্র চার মাস বয়সেই তার বাবাকে ‘ড্যাডি’ ডেকে সবাইকে চমকে দেয়। ছয় মাসের সময় যখন সে অভিযোগ করে ‘আমার বাম কানে ইনফেকশন হয়েছে’ তখন উপস্থিত সবাই হতবাক হয়ে যান। কেভিন পড়তে শেখে ওর বয়স যখন মাত্র দশ মাস। চার বছর বয়সে কেভিন জন হপকিনস প্রিকোসিয়াস ম্যাথ প্রোগ্রামের জন্য পরীক্ষা দেয় এবং সর্বোচ্চ নাম্বার পেয়ে নির্বাচিত হয়। ৬ বছর বয়সে হাইস্কুল এবং ১০ বছর বয়সে সান্তা রোজা জুনিয়র কলেজ থেকে গ্রাজুয়েশন শেষ করে সে। এ সময় সবচেয়ে কম বয়সী বিশ্ববিদ্যালয় গ্রাজুয়েট হিসেবে গিনেজ বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস-এ নাম উঠে যায় তার।

এভাবে একের পর এক অর্জন করতে করতে শেষ পর্যন্ত কোটিপতি হয়ে গেছেন তিনি। ‘হু ওয়ান্টস টু বি আ মিলিওনিয়ার’ অনুষ্ঠানে সব প্রশ্নের সঠিক জবাব দিয়ে অর্জন করেন ১০ লাখ ডলার বা ৮ কোটি ৮৬ লাখ টাকা।

http://bangla.bdnews24.com/kidz/2014/08/02/

88


অনেকে ভাবতে পারেন বড় হয়ে নতুন বন্ধু খোঁজার কী দরকার! পুরানরাই তো আছে।

তবে একবার ভাবুন তো— নতুন অফিসে চাকরি নিয়েছেন বা, বদলি সূত্রে গিয়েছেন অন্য জায়গায়। তখন সময় কাটাতে বন্ধুর দরকার হতেই পারে। আবার বিয়ের পর সংসারী হয়ে যাওয়ায় পুরান বন্ধুরা আর সময় দিতে পারে না। আপনি হয়তো বিয়ে করেননি বা, যে কোনো কারণে সংসার ভেঙেছে! তখনতো নতুন বন্ধুর দরকার হতেই পারে।

আর এসব বিষয়ের উপর গবেষণা করে মার্কিন মনোবিজ্ঞানি ও অধ্যাপক ড. অ্যান্ড্রিয়া বোনার ‘ফ্রেন্ডশিপ ফিক্স: দ্য কমপ্লিট গাইড টু চুজিং, লুজিং অ্যান্ড কিপিং আপ উইথ ইউর ফ্রেন্ডস’ নামের একটি বই রচনা করেছেন।

সাইকোলজি টুডে ডটকমে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে ড. বোনার বলেন, “বইটি লেখার আগে গবেষণা করতে গিয়ে দেখেছি, বন্ধু তৈরির ক্ষেত্রে বেশিরভাগ প্রাপ্তবয়ষ্কদের সমস্যা একই রকম।”

আর এই সমস্যাগুলো একত্র করতে সাহায্য করেছেন ‘গার্লফ্রেন্ডসার্কেলস’-এর প্রতিষ্ঠাতা সাস্তা নেলসন। যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক এই সংগঠনের কাজ হচ্ছে বন্ধু বিহীন মহিলাদের বন্ধু খুঁজে দেওয়া।

সাইকলজি টুডে ডটকমে প্রকাশিত এইসব সমস্যা মোটেই মেয়েলি নয়। বরং প্রাপ্তবয়ষ্ক সবার জন্যই প্রযোজ্য। আর এইসব সমস্যার সহজ সমাধান দেওয়ার চেষ্টা করেছেন ড. বোনার।

বন্ধু দিবসে যারা নতুন বন্ধু তৈরি করতে আগ্রহী, তাদের কাজেও লাগতে পারে এসব পরামর্শ।

সমস্যা ১

আমি শহরে নতুন এসেছি/ নতুন চাকরিতে যোগ দিয়েছি। আমার বর্তমান সামাজিক জীবন নিয়ে আমি বিব্রত ও একাকীত্বে ভুগছি। ঠিক কোন উপায়গুলোর মাধ্যমে আমি মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ সহজে শুরু করতে পারব?

পরামর্শ

প্রথমে প্রতিবেশী/সহকর্মীদের সঙ্গে পরিচিত হোন। সময় কাটান তাদের সঙ্গে। এ বিষয়ে প্রয়োজন পড়লে ফেইসবুকের সাহায্য নিন। ফেইসবুক বন্ধুদের বলতে পারেন, তাদের পরিচিতদের সঙ্গে আপনাকে পরিচয় করিয়ে দিতে। হঠাৎ করে কাউকে দুপুরের খাবারে নিমন্ত্রণ করাটা হয়ত কঠিন, তবে সঙ্গে যদি দুজনেরই সুপরিচিত কেউ থাকে তাহলে তা অনেকটাই সহজ। আর এভাবেই অপরিচিতদের সঙ্গে পরিচিত হোন, সময় কাটানোর চেষ্টা করুন। দেখবেন তাদের মধ্য থেকেই কারও কারও সঙ্গে আপনার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে উঠছে।

সমস্যা ২

প্রচণ্ড ব্যস্ততার কারণে আমার আগের বন্ধুদের ঠিকমতো সময় দিতে পারছি না। একা থাকার চাইতে বরং নতুন বন্ধু তৈরি করা ভালো। আর সবচেয়ে গুরুত্বের বিষয় হচ্ছে কেনো আমি নুতন বন্ধু খুঁজব? কীভাবেই বা বন্ধুত্ব শুরু করব?

পরামর্শ

আমাদের মধ্যে অনেকেই অনেককে চেনেন। তবে তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখেন না। বিষয়টি নিয়ে তারা নিজেই নিজের মধ্যে অনুতপ্ত থাকেন। অন্যদিকে যাদের একাধিক বন্ধু সার্কেল থাকে তাদের চেয়ে যারা একটি সার্কেলের সঙ্গে চলাফেরা, যোগাযোগ বজায় রাখেন তাদের কাছের বন্ধু বেশি থাকে। সুতরাং একটি সার্কেল রাখার চেষ্টা করুন। আর বন্ধুত্ব মানে এই নয় যে ‘যদি সময় থাকত তাহলে খুব ভালো হত’ বরং সুখী, সুস্থ এবং অর্থপূর্ণ জীবনের জন্য বন্ধুত্ব খুবই জরুরি। সেজন্যই ‘বন্ধু’ প্রয়োজন।

সমস্যা ৩

যখনই আমি নতুন কারও সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে যাই, তখনই মনে হয় আমার সঙ্গে মানুষ কেনো বন্ধুত্ব করবে? বা, আমার কথা শুনতে কি বোকা বোকা লাগে? আমি কীভাবে এই ভয় কাটাবো?

পরামর্শ

সবার মধ্যেই নিরাপত্তাহীনতা কাজ করে। সবাই প্রত্যাখ্যানকে ভয় পায়। এ ভয়ে আপনি একা ভীত নন। সবচেয়ে ভালো মানুষটিও মনে করে, সে স্বয়ংসম্পূর্ণ নয়। তার মানে এই নয় যে আমরা থেমে যাব। এই ভয় চিরতরে দমানো সম্ভব না হলেও অন্যরা একই সমস্যায় ভুগে থাকে এটি মনে করে ভয়কে মোকাবেলা করার সাহস আনতে হবে। আর এটা করতে পারলেই দেখবেন সমস্যাগুলো আর থাকছে না।

সমস্যা ৪

অন্যান্য মানুষের মুখে শুনি তারা অনলাইনে বন্ধু খুঁজে পেয়েছে। তবে ঠিক বুঝতে পারছি না কোথা থেকে শুরু করা উচিত। নিজের বিষয় মানুষকে জানানোর ক্ষেত্রে একটু ধীরগতিতে এগোতে পছন্দ করি। আর অনলাইন বিষয়বস্তুতে বিশ্বাসী নই। আমার মতো মানুষদের জন্য কি কোনো ধরনের ওয়েবসাইট আছে?

পরামর্শ

সত্যি বলতে, অনলাইনেই বরং ধীরগতিতে একজনের সঙ্গে আরেকজনের বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে। ঠিক যেমনটি আপনি চান। তবে একটা বিষয় মনে রাখা উচিত বন্ধু-সম্পর্কিত ওয়েবসাইটগুলো শুধুই একটি মাধ্যম। এগুলো অনেকটা অপরিচিতদের আড্ডা বা টেলিফোন বুথের মতো। সুতরাং এগুলোর মাধ্যমে মানুষকে বিচার না করাটাই ভালো। পরে তাদের সঙ্গে আপনার কথাবার্তার ভিত্তিতে বিষয়গুলো চিন্তা করবেন।

অনলাইনে এ ধরনের বিভিন্ন সাইট আছে, সেগুলোতে চেষ্টা করে দেখতে পারেন। আর অনলাইনেই যে বন্ধু পেতে এমন তো কোনো বাধ্যবাধকতা নেই। এর বাইরেও খুঁজে পেতে পারেন আপনার কাঙ্ক্ষিত বন্ধু।

ছবি: সাকিব-উল-ইসলাম
http://bangla.bdnews24.com/lifestyle/article830379.bdnews

89
Marine resources in our maritime boundary
Shykh Seraj

THE sea is a mystery to most people of Bangladesh. The waves, fish and ships are the ornaments of the sea. People love being at the sea beach and enjoy bathing in the sea and hearing the sound of the mighty waves. Bangladesh has won legal battles over the Bay of Bengal but how far do we comprehend the victory? How much do the common people know about it to cheer the achievements? 

On July 7, the International Arbitration court in the Netherlands awarded Bangladesh 19,467 sq km of area out of the estimated total disputed area of 25,602 sq km.  Bangladesh could finally establish its sovereign rights on more than 118,813 sq kms of territorial sea, 200 nautical miles (nm) of Exclusive Economic Zone (EEZ) and all kinds of animal and non-animal resources under the continental shelf up to 354 nm from the Chittagong coast.

This is a great achievement. When there was no fixed maritime boundary, we couldn't properly measure what we had within the boundary. Bangladesh's marine waters cover an area of roughly 166,000 km2, of which the EEZ accounts for 141,000 km2. Many believe that the verdict went in favour of Bangladesh and we could win more area. But not everyone thinks like that. My opinion is that the issue has been resolved and dispute finally ended. We can now start planning about the resources, prospects and proper maritime management.     

How aware are we of the animal and non-animal resources of the sea? What data do we get from scientists, experts, the government, and public and private and international organisations? Do we really know or care about the resources? The Bay of Bengal has principally four categories of resources: fisheries, mineral, water plantains and other water resources. We don't know exactly how much resources are there beneath the sea as no surveys have been conducted during the last three decades.             

In 1975, FAO Consultant Dr. W. B. West conducted a survey which said the Bay of Bengal had around 264,000 to 374,000 metric tons (mt) of fish and 9,000 mt of shrimps. As per West's survey, the sea had 467 varieties of fish and 36 shrimp varieties. In 2009, with assistance from Asiatic Society, a database showed that there were approximately 402 varieties of fish. During 1977-1980, research showed that Bangladesh had a reserve of 160,000 mt of fish. Later, it declined to 157,000 mt as per joint research conducted by the Bangladesh government and FAO. Since then, no surveys or research have been conducted. 

As per the government and FAO, a report shows that there are 32 shrimp trawlers, 28 mixed fish trawlers and 31 fish catching trawlers in the Bay of Bengal -- 91 in all. But, further investigation showed that the number of trawlers was only 73. It was suggested that the numbers should not be increased anymore because of the amount of fish resources in the Bay. However, the number of trawlers kept on increasing. Some trawlers were caught and resold at an auction because of illegal fishing. We still don't know how many varieties of fish, number of trawlers and the exact amount of marine resources there are in the Bay of Bengal.   

Recently, I went to Cox's Bazar fish landing station to film a documentary featuring marine fish resources. I was extremely frustrated. There was no fish at the landing station. The number of fish is decreasing alarmingly. I talked with Scientific Officer Ehsanul Karim of Marine Fisheries & Technology Station in Cox's Bazar. He believes there are still around 110 marine fish species in the sea. If that is true, it's very upsetting news for fisheries resources. This situation was brought about by too much fishing and global warming. As per Department of Fisheries, there are 167 mechanised and 206,859 engine-run trawlers in the sea. Also, there are 233,029 engine-run boats, 43,907 boats, and 218,581 nets and fishing rods.

Advertisement

As per the Marine Fisheries Ordinance 1983, wooden trawlers can go to fishing up to 40 metre depth at best. Only commercial trawlers can go beyond 40 metres. People are catching fish freely from any depth of water, although there are policies and regulations for catching and using equipments. But who cares to abide by the rules and who is the ruler?   

Eight years ago, I went to Thailand to work on fish catching and processing. I was really amazed to see their marine management and how they use the marine resources. Thailand, with a population of just above 60 million, has utilised its natural resources and gone forward. Yearly export earning from fisheries is around $5 billion, which is around Tk. 36,000 crore.   

South-East Asian Fisheries Development Centre was established by 11 South-East Asian countries in 1967 in Thailand. They have facilities for marine fisheries development and have diversified training for the member countries. As Bangladesh is not a member, we're deprived of effective training, which could have certainly developed our fisheries sector. Although Bangladesh is engaged with Bimstec and international fisheries research and development organisations and projects, it rarely plays a role at these key operational and influential authorities and organisations.   

The sea is a golden hub of fish. However, it can be ruined by either natural or man-made disasters. We might fall far behind if we fail to utilise our resources properly. We are already getting the deadly signal. There are no regulations for fish catching. The research organisations that are working on marine resources are almost without work and there is no productivity. There is no project, equipment, monitoring or accountability -- there are only infrastructure and authoritative body. They need to be given proper guidance and mobilised, now. 

We had marine resources in the past, we still have them, and the verdict delivered by the International Permanent Court of Arbitration (PCA) is a means to allow us to utilise the marine prospects we actually have. Before anything, what we need is a comprehensive and pragmatic survey of marine resources. That can well unveil the vastness of marine resources to the whole nation. I firmly believe that the government will immediately conduct a research, based on international information technology and knowledge, and tell the people what resources we have in the sea.   

http://www.thedailystar.net/op-ed/marine-resources-in-our-maritime-boundary-34593

90
Success:More to the Picture than Meets the Eye

Rock stars are all around us. They don't shine in music only. They exist everywhere you look. Their light makes the world glow from the spotlight where they stand. It's from this spotlight we see them. The newspaper, the television and the social media beam lights from this very spotlight. After seeing these rock stars, isn't it easy to feel motivated? You can become one too? When we see a phenomenon, there's almost always more to the picture than meets the eye. When we fail to see the story behind the story, we tend to overestimate the story we actually see.

JK Rowling and Paulo Coelho are two of the biggest authors of our time. Their books sell in the millions. Behind every successful author there are hundreds who will never sell. You'll never notice their books. Behind every author who has published, there are tens of thousands who submitted a manuscript that was never accepted. Behind these authors there are two more groups. The first got their dreams off the ground. They started writing a manuscript, but got lost somewhere in the plot. The second group consists of dreamers. They have a wonderful plot in their mind, but that's where the story starts and that's where it ends. As we focus more and more on Rowling and Coelho, we tend to forget that they are the exceptions, not the rule. Successful people are the best among the set of good. Those who didn't succeed may not have been the best, but were certainly better than the good and the ones beneath them. When we see the best over and over again, we may over-appreciate their success.

Cult figures in one generation became legends in the next. Their stories of success became more and more romanticised. The human race has always had a natural love for success. Denying the agonies of failure, the sweetness of success has always thrilled us. This blind spot in our thinking also leads to another blind spot. Is success a result of hard work and talent or does success depend on luck? Apparently, it's both, but hard work does come first.

In experimental sciences, when many scientists examine the same phenomenon, some of the studies will be statistically significant through sheer coincidence. We tend to see these statistically significant studies more because they tend to draw the attention of the academia and the media. Other equally good studies may escape our attention. However, all the experiments required hard work to execute. A different, but similar bias can occur in another type of science.

Albert Einstein was a celebrated scientist of his time. He would give the impression of a mad genius who was one of the many phantoms who graced the Fine Hall of mathematics at Princeton University. You'd think Einstein knew the answer to every question. Indeed, he did know the answers to questions others struggled at, but finding answers did take time. His two articles on relativity that changed the face of theoretical physics were published in a time span of 11 years, between 1905 and 1916. If you still think Einstein was a genius, you're correct. If you think he emerged overnight, you're not thinking clearly. Success with Einstein and many others was not by coincidence, but from years of 'aradhana'.

A successful image is the one we notice. The ones behind it also repeatedly worked hard. The difference that separates them: some images succeed more than others. The many images that didn't attract our attention weren't failures. They were equally good. Each year the Nobel Committee declares a maximum of three candidates for each of its various genres. Think twice. There were many other bright academics on the short-list who didn't make it. We'll never know them, will we? One thing is clear, though. When you repeatedly do what you do, your act then becomes a habit. When it comes to success, there's always more to the picture than meets the eye.

Source: The Art of Thinking Clearly by Rolf Dobelli. Sceptre Books. 2013.

http://www.thedailystar.net/shout/success-br-more-to-the-picture-than-meets-the-eye-34391

Pages: 1 ... 4 5 [6] 7 8 ... 16