Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Topics - yousuf miah

Pages: 1 ... 8 9 [10] 11
136
জন্ম থেকেই পৃথিবীর আলো দেখেনি তারা। ছোটবেলা থেকেই কোরআন শোনার প্রতি আগ্রহ ছিল দু’জনের। যেখানেই কোরআন তেলাওয়াত হতো সেখানেই ছুটে যেত। চোখে না দেখলেও মন দিয়ে শুনতো কোরআনের সূরাগুলো। আর সেই আগ্রহ থেকেই কোরআনে হাফেজ হলো ৭ বছরের দু’সহোদর।
 
যেমন কণ্ঠস্বর, তেমন মায়াবী চেহারা তাদের। যেন একই বৃন্তে দু’টি ফুটন্ত গোলাপ। দু’ভাইয়ের কণ্ঠে কোরআন তেলাওয়াত শুনে মুগ্ধ ফরিদগঞ্জবাসী। জন্মান্ধ হয়েও শুনে শুনে পবিত্র কোরআন মুখস্ত করেছে ৭ বছরের জমজ দু’ভাই হাসান-হোসাঈন।
 
শনিবার চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড জামে মসজিদের মাহফিলে দু’ভাইয়ের কণ্ঠে কোরআন তেলাওয়াত শুনে মুসলিমরা শুধু মুগ্ধই হননি, পুরস্কৃতও করেন তাদের।
 
ফরিদগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ সাহেবগঞ্জ গ্রামের কামিন উদ্দিন ছৈয়াল বাড়ির মো. আলমগীর হোসেনের জমজ এ দু’সন্তান হাসান-হোসাঈন।
 
দৃষ্টি প্রতিবন্ধী হয়ে জন্ম নেয়ার পর যখন তারা সমাজের চোখে অবহেলিত ছিল, তখন বাবা-মা তাদের কোরআনে হাফেজ করে সমাজের কাছে গ্রহণযোগ্য করার স্বপ্ন দেখলেন।
 
গত এক মাস আগে হাসান-হোসাঈনের বাবা মো. আলমগীর হোসেন তাদের ফরিদগঞ্জ বাসস্ট্যান্ড জামে মসজিদের ইমাম আলহাজ মো. নজরুল ইসলামের কাছে কোরআন শিক্ষার জন্য ভর্তি করিয়ে দিয়ে যান।
 
মাত্র এক মাসে আলহাজ মো. নজরুল ইসলামের নিরলস প্রচেষ্টায় তারা এখন কোরআনে হাফেজ। তারা শুধু কোরআনের সূরাগুলো মুখস্ত বলতেই পারে না। শুদ্ধ তেলাওয়াতও করতে পারে।
 
এ ব্যাপারে আলহাজ মো. নজরুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওরা দু’জনই আমার ছাত্র। ইচ্ছাশক্তি থাকলে অন্ধ থেকেও যে আল্লাহর কালাম শরীফ পবিত্র কোরআন যে কেউ মুখস্ত করতে পারে হাসান-হোসাঈন তার বাস্তব উদাহরণ। আমি আশাবাদী, ওরা আগামীতে আরো ভালো করবে।

137
জৈষ্ঠ্য মাসকে আমাদের দেশে মধুমাস বলা হয়। কারণ এ সময় বাজার নানা রকম দেশীয় ফলে পরিপূর্ণ থাকে, আম, জাম, কাঁঠাল, লিচু আরো কতো কি। এতো ফলের ভিড়ে কেন যেন একটু আড়ালেই থেকে যায় আমাদের অতি চেনা কালো জাম। যদিও বাজারে জামের স্থায়ীকাল অন্যান্য মৌসুমি ফলের তুলনায় কম তারপরও পুষ্টিগুণে এর তুলনা অতুলনীয়।
কালো জামের পুষ্টিগুণ:
       •    ভিটামিন ‘সি’ গরমে ঠান্ডাজনিত জ্বর, কাশি ও টনসিল ফুলে যাওয়া প্রতিরোধ করে। দূর করে জ্বর জ্বর ভাব। আর দাঁত, চুল ও ত্বক সুন্দর করতেও এর অবদান অপরিসীম। জামের ভিটামিন ‘এ’ দৃষ্টিশক্তিকে করে শক্তিশালী।
       •    ক্যানসারের জীবাণু ধ্বংস করার জন্য জামে রয়েছে চমকপ্রদ শক্তি। জাম মুখের ক্যানসার প্রতিরোধে সাহায্য করতে পারে। জামে যে উপাদান রয়েছে ক্যানসার প্রতিরোধে সহায়তা করে -এমনটাই জানালেন আমেরিকার একদল গবেষক।
       •    বৃদ্ধ বয়সে চোখের অঙ্গ ও স্নায়ুগুলোকে কর্মময় করতে সাহায্য করে। গর্ভবতী মা, বাড়ন্ত শিশুদের জন্যও এই ফল ভীষণ উপকারী।
       •    জামে গ্লুকোজ, ডেক্সট্রোজ ও ফ্রুকটোজ রয়েছে, যা মানুষকে জোগায় কাজ করার শক্তি।
       •    বয়স যত বাড়তে থাকে, মানুষ ততই হারাতে থাকে স্মৃতিশক্তি। জাম স্মৃতিশক্তি  প্রখর রাখতে সাহায্য করে।
       •    উচ্চ রক্তচাপ বা হাইব্লাড প্রেসার ও ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য জাম ভীষণ উপকারী। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে ও রক্তে চিনির মাত্রা কমাতে সাহায্য করে জাম।
       •    দীর্ঘ দিন কোষ্ঠকাঠিন্য থাকলে মলদ্বারে টিউমার হওয়ার আশঙ্কা থাকে। জামের বাইরের আবরণে থাকে পর্যাপ্ত পরিমাণে ফাইবার বা আঁশ। আঁশজাতীয় খাবার কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে।  জাম মলদ্বার বা কোলনের ক্যানসার প্রতিরোধ করে।
       •    জামে মধ্যে পাওয়া গেছে ইলাজিক এসিড নামের এক ধরনের এসিডের উপস্থিতি, যা ত্বককে করে শক্তিশালী। তিকর আল্ট্রা ভায়োলেট রশ্মির প্রভাব থেকে ত্বক ও চুলকে রা করে। এই ইলাজিক এসিড তিকর ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া ও ফাঙ্গাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে।   জাম লড়াই করে হৃৎপিন্ডের অসুখ, জরায়ু, ডিম্বাশয়, মলদ্বার ও মুখের ক্যানসারের বিরুদ্ধে।
       •    জামের কচিপাতা পেটের পীড়া নিরাময়ে সাহায্য করে। জামের বীজ থেকে প্রাপ্ত পাউডার বহুমুত্র রোগের ওষুধ হিসেবেও ব্যবহার করা হয়। পাকা জাম বিট লবন মাখিয়ে ৩-৪ ঘন্টা রেখে হাত দিয়ে মেখে নরম কাপড়ে ছেঁকে যে রস বের হয় তা পাতলা পায়খানা, অরুচি ও বমিভাব দূর করে।
এছাড়াও আমরা জাম থেকে রস, স্কোয়াশ ও অন্যান্য সংরক্ষিত খাদ্য তৈরি করে সংরক্ষণ করতে পারি।

138
কাঁঠাল গ্রীষ্মকালীন ফল। আমাদের দেশের সর্বত্র কাঁঠাল গাছ পরিদৃষ্ট হয়। কাঁঠাল আমাদের জাতীয় ফল হলেও এই সুস্বাদু ফলের পুষ্টি গুনাগুন সম্পর্কে অনেকেরই সঠিক ধারণা নেই। পাকা কাঁঠালের ক্যালরি মূল্য প্রতি ১০০ গ্রামে প্রায় ৯০ কিলোক্যালরি এবং মোট খনিজ লবণের পরিমাণ প্রায় ০.৯। কাঁচা কাঁঠালের ফাইবারের পরিমাণ পাকা কাঁঠালের চেয়ে বেশ কয়েক গুণ বেশি। তাই ডায়াবেটিক মানুষের জন্য কাঁচা কাঁঠাল উপকারী। রক্তের চিনির মাত্রা স্বাভাবিক রাখার জন্য কাঁচা কাঁঠালের জুড়ি নেই। কাঁচা কাঁঠাল দিয়ে মাছ অথবা মাংসের মজাদার রেসিপি তৈরি করা যায় যা একদিকে যেমন মুখরোচক তেমনি অন্যদিকে স্বাস্থ্যকর। তাই ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য পাকা কাঁঠালের কোয়া পরিমিত পরিমাণে খাওয়া ভালো।
কাঁঠাল কাঁচা ও পাকা উভয় অবস্থাতেই খাওয়া যায়। বসন্তকাল থেকে গ্রীষ্মকাল পর্যন্ত কাঁচা কাঁঠাল ইচোড়’ সবজি হিসেবে খাওয়া হয়। পাকা ফল বেশ পুষ্টিকর, কিন্তু এর গন্ধ অনেকের কাছে ততটা আকর্ষণীয় নয়। তবু মৃদু অম্লযুক্ত সুমিষ্ট স্বাদ ও স্বল্পমূল্যের জন্য অনেকে পছন্দ করেন। কাঁঠালের আঁটি তরকারির সাথে রান্না করে খাওয়া হয় অথবা পুড়িয়ে বাদামের মত খাওয়া যায়। মূলত পাকা কাঁঠালে কোষ খাওয়া হয়, এই কোষ নিঙড়ে রস বের করে তা শুকিয়ে আমসত্বের মত ‘কাঁঠালসত্ব’ও তৈরি করা যায়। এমনটি থাইল্যান্ডে এখন কাঁঠালের চিপস্ তৈরি করা হচ্ছে। কাঁঠালের কোষ খাওয়া পর যে খোসা ও ভুতরো অমরা থাকে তা গবাদি পশুর একটি উত্তম খাদ্য। ভুতরো বা ছোবড়ায় যথেষ্ট পরিমাণে পেকটিন থাকায় তা থেকে জেলি তৈরি করা যায়।
কাঁঠালের পুষ্টিগুণ
প্রতি ১০০ গ্রাম কাঁঠালের থাকে খাদ্যআঁশ ২ গ্রাম, আমিষ ১ গ্রাম, শর্করা ২৪ গ্রাম, চর্বি ০.৩ মিলিগ্রাম, ক্যালসিয়াম ৩৪ মিলিগ্রাম, ম্যাগনেশিয়াম ৩৭ মিলিগ্রাম, পটাশিয়াম ৩০৩ মিলিগ্রাম, ম্যাঙ্গানিজ ০.১৯৭ মিলিগ্রাম, লৌহ ০.৬ মিলিগ্রাম, ভিটামিন এ ২৯৭ আই.ইউ, ভিটামিন সি ৬.৭ মিলিগ্রাম, থায়ামিন (ভিটামিন বি১) ০.০৩ মিলিগ্রাম, রিবোফেবিন (ভিটা বি২) ০.১১ মিলিগ্রাম, নায়াসিন (ভিটা বি৩) ০.৪ মিলিগ্রাম, ভিটামিন বি৬০.১০৮ মিলিগ্রাম ।
কাঁঠালের উপকারীতা
কাঁঠাল পুষ্টি সমৃদ্ধ। এতে আছে থায়ামিন, রিবোফাভিন, ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, আয়রন, সোডিয়াম, জিঙ্ক এবং নায়াসিনসহ বিভিন্ন প্রকার পুষ্টি উপাদান। অন্যদিকে কাঁঠালে প্রচুর পরিমাণে আমিষ, শর্করা ও ভিটামিন থাকায় তা মানব দেহের জন্য বিশেষ উপকারী।
কাঁঠালে চর্বিও পরিমাণ নিতান্ত কম। এই ফল খাওয়ার কারণে ওজন বৃদ্ধির আশংকা কম।
কাঁঠাল পটাশিয়ামের উৎকৃষ্ট উৎস। ১০০ গ্রাম কাঁঠালে পটাশিয়ামের পরিমাণ ৩০৩ মিলিগ্রাম। যারা পটাশিয়াম উচ্চ রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। এ জন্যে কাঁঠালে উচ্চরক্তচাপের উপশম হয়।
কাঁঠালে প্রচুর ভিটামিন এ আছে যা রাতকানা রোগ প্রতিরোধ করে।
কাঁঠালের অন্যতম উপযোগিতা হল ভিটামিন সি। প্রাকৃতিকভাবে মানবদেহে ভিটামিন “সি” তৈরি হয় না। রোগ প্রতিরোধ মতা বৃদ্ধির পাশাপাশি দাঁতের মাড়িকে শক্তিশালী করে ভিটামিন “সি”।
কাঁঠালে বিদ্যমান ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস- আলসার, ক্যান্সার, উচ্চ রক্তচাপ এবং বার্ধক্য প্রতিরোধে সক্ষম।
কাঁঠালে আছে শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা আমাদের দেহকে ক্ষতিকর ফ্রির‌্যাডিকেলস থেকে রা করে। এছাড়াও আমাদেরকে সর্দি-কাশি রোগের সংক্রমণ থেকে রক্ষা করে।
টেনশন এবং নার্ভাসনেস কমাতে কাঁঠাল বেশ কার্যকরী।
বদহজম রোধ করে কাঁঠাল।
কাঁঠাল গাছের শেকড় হাঁপানী উপশম করে। শেকড় সেদ্ধ করলে যে উৎকৃষ্ট পুষ্টি উপাদান নিষ্কাশিত হয় তা হাঁপানীর প্রকোপ নিয়ন্ত্রণে সক্ষম।
চর্মরোগের সমস্যা সমাধানেও কাঁঠালের শেকড় কার্যকরী। জ্বর এবং ডায়রিয়া নিরাময় করে কাঁঠালের শেকড়।
কাঁঠালে আছে বিপুল পরিমাণে খনিজ উপাদান ম্যাঙ্গানিজ যা রক্তে শর্করা বা চিনির পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।
কাঁঠালে বিদ্যমান ম্যাগনেসিয়াম, ক্যালসিয়ামের মত হাড়ের গঠন ও হাড় শক্তিশালী করণে ভূমিকা পালন করে।
কাঁঠালে আছে ভিটামিন বি৬ যা হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়।
কাঁঠালে বিদ্যমান ক্যালসিয়াম কেবল হাড়ের জন্য উপকারী নয় রক্ত সংকোচন প্রক্রিয়া সমাধানেও ভূমিকা রাখে।
ছয় মাস বয়সের পর থেকে মায়ের দুধের পাশাপাশি শিশুকে কাঁঠালের রস খাওয়ালে শিশুর ক্ষুধা নিবারণ হয়। অন্যদিকে তার প্রয়োজনীয় ভিটামিনের অভাব পূরণ হয়।
চিকিৎসা শাস্ত্র মতে প্রতিদিন ২০০ গ্রাম তাজা পাকা কাঁঠাল খেলে গর্ভবতী মহিলা ও তার গর্ভধারণকৃত শিশুর সব ধরনের পুষ্টির অভাব দূর হয়। গর্ভবতী মহিলারা কাঁঠাল খেলে তার স্বাস্থ্য স্বাভাবিক থাকে এবং গর্ভস্থসন্তানের বৃদ্ধি স্বাভাবিক হয়। দুগ্ধদানকারী মা তাজা পাকা কাঁঠাল খেলে দুধের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়।
এই ফল আঁশালো বিধায় কোষ্ঠকাঠিণ্য দূর করে।
কাঁঠালে রয়েছে খনিজ উপাদান আয়রন যা দেহের রক্তাল্পতা দূর করে।
এছাড়া কাঁঠাল গাছের পাতা গবাদি পশুর একটি মজাদার খাদ্য। আবার এ গাছ থেকে তৈরি হয় মুল্যবান আসবাবপত্র। কাঁঠাল ফল ও গাছের আঁঠালো কষ কাঠ বা বিভিন্ন পাত্রের ছিদ্র বন্ধ করার কাজে ব্যবহৃত হয়।

139
Food / শসার আছে নানা গুণ
« on: June 23, 2013, 04:41:20 PM »
শসা খাওয়া সুন্নত। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনি শসা খুব পছন্দ করতেন। তাইতো শসার এত গুণ। পচন্ডে গরমে শরীর ও মন ক্লান্ত হয়ে পড়ে তখন মনে হয় ঠান্ডা কিছু খেতে যদি সেটা হয় শসার তাহলে তো জুড়ি নেই। শসা খেলে শরিরের পানি চাহিদা পুরণ হয় শতকরা ৯৫ভাগ। এটি শরীরের আর্দ্রতা ধরে রাখে এবং শরীরের ভেতরের তাপমাত্রা কে নিয়ন্ত্রণ করে। শরীর শীতল রাখতে সহায়তা করে। শসায় ক্যালরির পরিমাণ খুবই কম। প্রতি ১০০ গ্রাম শসায় আছে মাত্র ১৫ ক্যালরি। এতে কোনো সম্পৃক্ত চর্বি বা কোলেস্টেরল নেই।
সাদাসিধে এই শসার খোসার গুণও খুব একটা কম নয়। খোসাসহ শসা কোষ্ঠকাঠিন্য কে কমিয়ে দেবে অনেক খানি এবং অন্ত্র থেকে দেহের জন্য ক্ষতিকর পদার্থগুলোকে বের করে দিয়ে অন্ত্রের ক্যান্সারের মত রোগ থেকে কিছুটা রক্ষা করে । শসায় উল্লেখযোগ্য পরিমাণে পটাশিয়াম আছে। কারণ এই আয়নটি রক্তচাপ কমিয়ে আনতে বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে। শসায় পানি এবং পটাশিয়ামের পরিমাণ বেশি থাকায় এটি মৃদু মাত্রার মূত্রবর্ধক হিসেবে কাজ করে। যার দরুণ উচ্চরক্তচাপ ও ওজন কমাতে শসার ভূমিকা বেশ উল্লেখযোগ্য। এছাড়া খাদ্যতালিকায় শসাকে নিয়মিত রেখে দেহের ইউরিক এসিডকে নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে কিডনি ও মূত্রথলির কতিপয় পাথর থেকে পেতে পারেন। শসায় বিটা ক্যারোটিন, আলফা ক্যারোটিন, ভিটামিন সি, ভিটামিন এ, ল্যুটেইন প্রভৃতি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে।
এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলো শরীরের সুরায় বিশেষভাবে ভূমিকা রাখে। দেহযন্ত্রের নানাবিধ ক্রিয়া-বিক্রিয়ার ফলে উৎপন্ন হওয়া ক্ষতিকর মুক্তআয়নগুলো থেকে শরীরকে সুরক্ষিত রাখে এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলো। তারুণ্য ধরে রাখতেও এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্টগুলোর জুড়ি নেই।
শুনতে একটু আজব হলেও একথা সত্যি যে শসায় আছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন কে। ভিটামিন কে আমাদের দেহের হাড়গুলোকে সুস্থ রাখতে সব সময় অনবদ্য। শুধু তাই নয় স্নায়ুর ক্ষতিগ্রস্ততাকে কমিয়ে ‘আলঝেইমার ডিজিজ’-এর মত রোগেও নিরীহ শসা ভূমিকা রাখতে পারে বলে সম্প্রতি বিশেষজ্ঞরা মতপ্রকাশ করেছেন। সৌন্দর্য চর্চায়ও আপনার সঙ্গী হতে পারে এই শসা। ত্বকের নানাবিধ সমস্যা, চোখের চারপাশের ফোলাভাবসহ ত্বকের সকল প্রকার ক্লান্তি দূর করে ত্বককে প্রাণবন্ত করে তুলতে শসার ভূমিকা খুব একটা কম নয়। নানারকম গুণে ভরপুর এই শসাকে আপনার প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় শসা রাখুন।

শসার গুণাগুণ সম্পর্কে জানি
* শসা হল কিউকারবিটা সি ফ্যামিলির অন্তর্গত। শসায় প্রায় ৯৫% পানি আছে। এছাড়াও আছে সিলিকা, ম্যাগনেশিয়াম, লিগনেন, পটাশিয়াম, লাইপোজ ইম ইত্যাদি উপাদান। তাই শুধু গরমেই নয়, বছরের যে কোনও সময়ই শসা খাওয়া উচিত।
* শসায় প্রচুর পরিমাণে পানি থাকার জন্য তা রিহাইড্রেট করার পাশাপাশি শরীরকে টক্সিনমুক্ত করে। গরমের সময় শরীর থেকে ঘাম হয়ে প্রচুর পানি বেরিয়ে যায়। এই রিহাইড্রেশন তাই খুবই জরুরি। শসায় থাকা প্রতিটি ভিটামিন ও মিনারেলস প্রতিদিন শরীরের জন্য প্রয়োজনীয়।
* শসায় থাকে এরিপসিন নামে এনজাইম। এই এনজাইম প্রোটিন ব্রেক ডাউন করে। ইউরিক এসিড মেটাবলিজমে সাহায্য করে।
* সিলিকা নামে যে উপাদান শসায় থাকে তা আমাদের হাড়ের ঘনত্ব বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। ফলে হাড়-সংক্রান্ত যে কোনও ধরনের সমস্যা যেমন-আর্থারাইটিস, গাউট প্রতিরোধ-নিয়ন্ত্রণ দুই-ই করা যায়।
* শসায় থাকে পটাশিয়াম এবং ম্যাগনেশিয়াম। এই উপাদানগুলো রক্তের খারাপ কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে। ব্লাডপ্রেশার নিয়ন্ত্রণ করতেও এই দুই উপাদানের বড় ভূমিকা আছে। কাজেই হাইপ্রেশার এবং লোপ্রেশার-দুই ধরনের রোগীই নিশ্চিন্তে শসা খেতে পারে।
* শসার ম্যাগনেশিয়াম এবং সিলিকা স্কিনের জন্যও ভালো। সিলিকা ও ম্যাগনেশিয়াম থাকার জন্যই শসা প্যাক হিসেবে নেওয়া হয়। এতে স্কিনের ইরিটেশন কমে, ত্বকের উজ্বল করতে সাহায্য করে।
* শসার প্যাক নিলে ত্বক পানি ধরে রাখতে পারে। ত্বক সজীব রাখার জন্য শসায় থাকা ক্যাসেইক এসিডের ভূমিকাই প্রধান।
* অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল প্রপার্টি লাইপোজ ইম থাকার জন্য এক টুকরা শসা মুখে রেখে দিলে জীবাণু নষ্ট হয়, দূর হয় মুখের দুর্গন্ধ।
* শসার মধ্যে থাকে ৩ ধরনের লিগনেন। যেমন-ল্যারিসায়ারেসিনল, পাইনোরেসিনল এবং সেকয়সোলারিসায়ারসিনল ইত্যাদি। এই লিগনেনগুলো নানা ধরনের ক্যানসার যেমন-ব্রেস্ট প্রস্টেট, ইউটেরাইন এবং ওভারিয়ান ক্যানসার প্রতিরোধ করে।
* ডায়বেটিক রোগীদের জন্য শসা খুবই উপকারী। শসার মধ্যে থাকা পলিপেপটাইড সি প্যাংক্রিয়াসের ইনসুলিন নিঃসরণে সাহায্য করে।
* শসার জল ও ফাইবার কনটেন্টের জন্য কিডনি-স্টোন প্রতিরোধ করে।  ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতেও।
* ফাটা দাগ বা ভঙ্গুর নখের সমস্যা থেকে দূরে থাকতে সাহায্য করে শসার সিলিকা উপাদান।
* আর সালাদ হিসেবে তো সবারই প্রিয় । তরকারিতেও চমৎকার। -

140
  ‘হে জিন ও মানবকুল, নভোমন্ডল ও ভূমন্ডলের প্রান্ত অতিগম করা
    যদি তোমাদের সাধ্যে কুলোয় তবে অতিগম কর। তবে (আল্লাহ
    তাআলার পক্ষ থেকে) ক্ষমতা ব্যাতিরেকে তোমরা তা অতিগম
    করতে পারবে না। (রহমান, ৫৫ : ৩৩)

এই আয়াতের প্রকৃত অনুবাদ বুঝার জন্যে কিছু ব্যাখ্যার প্রয়োজন। বাংলা
ভাষায় ‘যদি’  শব্দটি এমন একটি শর্ত নির্দেশ করে যা,
হয়তো সম্ভব কিংবা অসম্ভব। আরবি ভাষায় ‘যদি’ বুঝানোর জন্যে
একাধিক শব্দ ব্যবহৃত হয়। যখন ‘লাও’ শব্দ ব্যবহৃত হয়, তা এমন
একটি শর্ত নির্দেশ করে যা অসম্ভব। আর যখন ‘ইন’ শব্দ ব্যবহৃত
হয়, তা এমন একটি শর্ত নির্দেশ করে, যা সম্ভব। উপরিউক্ত আয়াতে
কুরআন মাজিদ ‘ইন’ শব্দ ব্যবহার করেছে। ‘লাও’ শব্দ ব্যবহার
করেনি। অতএব কুরআন মাজিদ ইঙ্গিত করছে, এক্ষেত্রে সম্ভাব্যতা
বিদ্যমান রয়েছে যে, মানুষ একদিন নভোম-ল ও ভূম-লের স্তরসমূহ ভেদ
করতে পারবে। আরও লক্ষণীয় যে, নিম্ন লিখিত আয়াতেও মহাশূন্য ভেদ
করার কথা উল্লেখ করে। কিন্তু তাতে ‘লাও’ ব্যবহৃত হয়েছে


    ‘আর যদি আমি ওদের সামনে আকাশের কোনো দরজাও খুলে দিই, আর
    তারা তাতে দিনভর আরোহনও করতে থাকে, তবুও তারা এ কথাই বলবে,
    আমাদের দৃষ্টির বিভ্রাট ঘটানো হয়েছে, না- বরং আমরা যাদুগ্রস্ত হয়ে
    পড়েছি।’ (হিজর, ১৫ : ১৪-১৫)

এই আয়াতটিতে মক্কার কাফিরদের কথা উল্লেখ করা হয়েছে এবং বলা
হয়েছে, এমনকি যদি তারা নভোম-ল ভেদ করতেও সক্ষম হয়, তারা
মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর বাণীকে বিশ্বাস করবে না।
এই আয়াতে যে শব্দ ব্যবহার করা হয়েছে তা হচ্ছে ‘লাও’ যা এমন
সম্ভাবনার কথা বলে, যা বাস্তবায়িত হওয়ার নয়। ইতিহাস দেখিয়েছে,
মক্কার কাফিররা মুহাম্মদ সাল্লাল্ললাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর
অসংখ্য মুজিজা প্রত্যক্ষ করেছে। তথাপি তারা তিনি যে বার্তা নিয়ে এসেছিলেন
তাতে বিশ্বাস স্থাপন করে নি।

ইতোপূর্বে উদ্ধৃত আয়াত সম্পর্কে আরো একটি বিষয় লক্ষ্য করার আছে।
তাতে আরবি শব্দ ‘তানফুযু’ ব্যবহৃত হয়েছে, যার ক্রিয়ামূল হল
‘নাফাজা’ যার পরে আরবি শব্দ ‘মিন’ এসেছে। আরবি অভিধান
অনুসারে এই বাকরীতির অর্থ হল, ‘সোজা অতিক্রম করা এবং একটি বস্তুর
একদিকে প্রবেশ করে অন্যদিক দিয়ে বেরিয়ে আসা। অতএব এটি নির্দেশ
করে একটি গভীর অনুগমন এবং একটি বস্তুর অপরপ্রান্ত দিয়ে নির্গমন।
এটি হুবহু তা-ই, যে অভিজ্ঞতা বর্তমানে মহাশূন্য বিজয়ের ক্ষেত্রে মানুষ
লাভ করেছে। পৃথিবীর মধ্যাকর্ষণ শক্তি একটি বস্তু ছেড়ে দেয় এবং তা
মহাশূন্যে তার বাহিরে নির্গমন করে। এভাবে কুরআন মাজিদ মহাশূন্য
বিজয়ের বিস্ময়কর ঘটনা বর্ণনার ক্ষেত্রে সর্বাধিক উপযুক্ত শব্দ ব্যবহার
করেছে। অধিকন্তু এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈজ্ঞানিকতথ্য, সর্বাধিক উপযুক্ত
শব্দে, চৌদ্দশ বছরেরও পূর্বের এমন একজন নিরক্ষর মানুষের নিছক কল্পনা
বলে আরোপিত হতে পারে না, যিনি তার পুরো জীবন কাটিয়েছেন একটি
মরুময় এলাকায়।

    অতি পারমানবিক কণিকার উপস্থিতি
    আর কাফিররা বলে, ‘কিয়ামত আমাদের কাছে আসবে না’।
    বলুন, ‘অবশ্যই আমার রবের কসম! যিনি অদৃশ্য সম্পকের্ অবগত,
    তা তোমাদের কাছে আসবেই। আসমানসমূহে ও জমীনে অন ু
    পরিমাণ কিংবা তার চেয়ে ছোট অথবা বড় কিছুই তার অগোচরে
    নেই। বরং সব কিছু সুস্পষ্ট কিতাবে (লিপিবদ্ধ) রয়েছে। (সাবা,
    ৩৪ : ০৩)

এই আয়াতে যে আরবি শব্দটি ব্যবহৃত হয়েছে তা হল, ‘যাররাহ’ ।
আব্দুল্লাহ ইউসুফ আলী ও মারমাডিউক পিকথাল ইংরেজিতে ‘যাররাহ’
শব্দের অনুবাদ করেছেন ‘যাররাহ’ বা পরমাণু শব্দ দ্বারা। যখন এই আয়াত
অবতীর্ণ হয় তখন ‘যাররাহ’ (পরমাণু) ছিল মানুষের জানা মতে সবচেয়ে
ক্ষুদ্র কণিকা। এই আয়াতে কুরআন মাজিদ ‘যাররাহ’র চেয়েও ক্ষুদ্রতর
কণিকার উপস্থিতির কথা বর্ণনা করে।

পদার্থ বিজ্ঞানের সাম্প্রতিক গবেষণা দেখিয়েছে, পরমাণুকে আরও ক্ষুদ্রতর
এককে বিভাজিত করা যেতে পারে। কুরআন মাজিদ এই বিষয়টির স্বীকৃতি
দিয়েছে পদার্থ বিজ্ঞানীরা তা আবিষ্কার করার চৌদ্দশ’ বছরেরও অধিককাল
পূর্বে।

141
 বাল্টিক সাগর পাড়ে ছোট বড় অসংখ্যা লেক আর প্রকৃতি ঘেরা নয়াভিরাম সৌন্দর্য্যের দেশ সুইডেন। সুইডেন হলো পশ্চিম ইউরোপের স্ক্যানডেনেভিয়ান অঞ্চলের একটি দেশ।আয়তনের দিক থেকে এটি ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের তৃতীয় বৃহত্তম একটি দেশ। এর মোট জনসংখ্যা হলো ৯.৫ মিলিয়ন। মাথাপিছু আয়ের দিকে দিয়ে এটি বিশ্বের অষ্টম এবং মানব উন্নয়ন সূচকে বিশ্বের তৃতীয়।
 
 
গ্রীষ্মকালে এখানকার সৌন্দর্য্য চোখে পড়ার মত। ঠান্ডা আবহাওয়ার কারনে মানুষগুলো অনেক শান্ত, ভদ্র।
মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলোর সাথে সুইডেনের বাণিজ্যিক ও রাজনৈতিক সম্পর্ক অনেক দিনের। ১৭ ও ১৮ শতকে অটোমান শাসকদের সাথে সুইডেনের সম্পর্ক ছিলো উল্লেখ করার মতো। অটোমান রাজ্য ছিলো ইউরোপের মধ্যে অনেক শক্তিশালী। সুইডিস রাজারা তাদের আনুকুল্য লাভের জন্য সেই সময়ে তুর্কিতে তাদের রাষ্ট্রদুত নিয়োগ করে। তখন থেকে মুসলিম সংষ্কৃতির সাথে সুইডেনের পরিচয় ঘটতে থাকে। তবে সুইডেনে মুসলিমদের উপস্থিতি সাম্প্রতিক ঘটনা।
 
 
সুইডেনে সর্বপ্রথম ১৯৩০ সালে ১৫ জন ব্যক্তি নিজেদের মুসলিম বলে চিহ্নিত করে। তারাই প্রথম মুসলিম যারা প্রাথমিক ভাবে বাল্টিক তাঁতারদের মধ্য থেকে এসেছিলো। বর্তমানে সুইডেনে মুসলিমদের সংখ্যা প্রায় ৪ লক্ষ। সুইডিশ কমিশন ফর স্টেইট গ্রান্ট টু রেলিজিয়াস কম্যুনিটিস এর জরিপ অনুযায়ী প্রাকটিসিং মুসলিমের সংখ্যা হলো মধ্যে ১১০০০ জন । তাদের জরিপ অনুযায়ী  ইসলাম অনুসারীদের  প্রকৃত সংখ্যা আরো বেশি হবে। তাদের গণনা অনুযায়ী এর সংখ্যা ১৫০০০০ জন এর কাছাকাছি। সান্ডার স্বীকার করেন যে, মুসলিম শব্দটি সুইডেন এর ক্ষেত্রে সংজ্ঞায়িত করা সমস্যা। তিনি চারটি ক্যাটেগরিতে মুসলিমদের সংজ্ঞায়িত করার চেষ্টা করেন  এথনিক-,সংষ্কৃতিক-,ধর্মীয়, এবং রাজনৈতিক মুসলিম। একজন এথনিক মুসলিম বলতে যেকোন মুসলিম কে বুঝায়, যারা এমন স্থানে জন্মগ্রহন করেছে যেখানকার পরিবেশ মুসলিম সংষ্কৃতির প্রথার আধিপত্য রয়েছে এবং যারা এমন নাম বহন করে যেটি সেই প্রথার সাথে যুক্ত; এছাড়া এই শ্রেনীর অংশ তারা, যারা নিজেদের এই পরিবেশের অংশ মনে করে বা যারা চিহ্নিত হয়। এই সংজ্ঞাটি সংষ্কৃতিক যোগ্যতা, ধর্মীয় বিশ্বাস, ধর্মীয় প্রথা অনুযায়ী সক্রিয় অংশগ্রহন, এবং ব্যক্তির ইসলামের প্রতি মনোভাব বা চিন্তা হতে মুক্ত। এভাবে তিনি বিভিন্নভাবে মুসলিমদের সংজ্ঞায়িত করেন।
 
 
পশ্চিম ইউরোপ এর মধ্যে সুইডেন হলো একটি মিশ্রিত মুসলিম জনগোষ্ঠির দেশ। ৪০ টির ও বেশি দেশ থেকে মুসলিমরা সুইডেন এ এসেছে। প্রথম গ্রুপটি আসে ১৯৬০ সালে তুর্কি থেকে গেষ্ট শ্রমিক হিসেবে, সম্ভবত সুইডেনে থাকার তাদের কোন ইচ্ছে ছিলোনা। কিন্তু তাদের অনেকেই থেকে যায় এবং তাদের পরিবার আসা শুরু করে ১৯৭০ ও ১৯৮০ সালের দিকে। সংষ্কৃতি এবং ধর্মকে ধরে রাখা এবং সংরক্ষনের জন্য প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার প্রয়োজন অনুভব শুরু হতে থাকে। ফলে আস্তে আস্তে কিছু মুসলিম স্কুল প্রতিষ্ঠা লাভ করে।
 
 
১৯৮০ সালে দিকে মুসলিম রিফিউজির সংখ্যা বাড়তে থাকে এবং তখন থেকে তুর্কি মুসলিমরা আর সংখ্যা গরিষ্ঠ থাকেনা। সবচেয়ে বেশি প্রভাবশালী গ্রুপ আসে ইরাক, ইরান, সোমালিয়া, বলকান এবং পাকিস্তান থেকে। এছাড়াও বাংলাদেশ, নেপাল, মায়ানমার থেকে অনেক মুসলিম আসা শুরু করে ৭০ এর দশকের পর থেকে।
 
 
মুসলিমদের সংখ্যা বাড়তে থাকায় বর্তমানে ইসলাম দ্বিতীয় অফিসিয়াল ধর্ম হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। অধিকাংশ সূউডিশ মুসলিমরা তিনটি বড় শহরে বসবাস করে -স্টকহোল্ম, মালমো, এবং গোথেনবার্গ এ। তাদের বেশির ভাগ ই আবার বাস করে শহরতলিতে যেমন স্টকহোল্মের রিংকেবি, টেনেস্তা এবং খারহোলমেন, গোথেনবার্গের হাম্মারকুল্লেন এবং ইয়ালবো, এবং মালমোর রোজেনগর্ড।
 
 
ইসলামী সংগঠন
সুইডেনের প্রথম ইসলমাই সংগঠন হলো FIFS (Förenade Islamiska Församlingar i Sverige) যেটি ১৯৭৩-১৯৭৪ সালে যাত্রা শুরু করে। এরপর সংগঠনটি ১৯৮২ ও ১৯৮৮ সালে অন্তর্দ্বন্দ্ব, সংষ্কৃতিক বিভিন্নতা, ব্যক্তিগত দ্বন্দ্ব ও ফান্ডের সমস্যার কারনে দুভাগে বিভক্ত হয়ে SMF (Svenska Muslimska Förbundet) and ICUS, today IKUS (Islamska Kulturcenterunionen i Sverige) নামে দুটি সংগঠন তৈরী করে। এছাড়া আর জাতিয় সংগঠন গুলো হচ্ছে BHIRF (Bosnien-Hercegovinas Islamiska riksförbund), যা বসনিয়ান রিফিউজিদের দ্বারা 1995 সালে প্রতিষ্ঠিত হয়, IRFS (Islamiska Riksförbundet), প্রতিষ্ঠিত হয় 1995 সালে, এবং রাষ্ট্রদূত মুহাম্মদ নুত বার্নস্ট্রম ২০০০ সালে একটি ভবিষ্যত ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য SIA (Svenska Islamiska Akademin) গঠন করে, SIA February 2001 থেকে মিনারেত নামে একটি পিরিওডিকাল প্রকাশ করে আসছে।
 
 
এছাড়া আরো কিছু অন্যান্য স্থানীয় ছোট ছোট সংগঠন রয়েছে যেগুলো মূলত কিছু নির্দিষ্ট গ্রুপের মানুষকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে। এগুলোর মধ্যে SMUF, বর্তমানে SUM (Sveriges Unga Muslimer) নামে পরিচিত। এটি মূলত মুসলিম যুবকদের নিয়ে গড়ে উঠা সবচেয়ে বড় সংগঠন যা ১৯৮৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। মহিলাদের নিয়ে গঠিত সংগঠন IKF (Islamiska Kvinnoförbund i Sverige), এছাড়া যবকদের IUF (Islamiska Ungdomförbundet i Sverige) এবং ঈমামদের SIR (Sveriges Imamråd)। সাম্প্রতিক সময়ে সুইডেনে ইসলামিক ফোরাম অফ ইউরোপ এর শাখা চালু করা হয়, ফলে বাঙ্গালীদের দ্বারা গঠিত একমাত্র ইসলামি সংগঠন সুইডেনে কাজ শুরু করে। ধীরে ধীরে এর পরিসর বাড়ছে।
 
 
সরকারিভাবে ধর্মান্তরিত মুসলিমদের কোন সঠিক পরিসংখ্যান পাওয়া যায় না, তবে মালমো কলেজের ইতিহাসবিদ আন সোফি রোয়াল্ড এর মতে ১৯৬০ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৩৫০০ জন খ্রীষ্টান মুসলিমে ধর্মান্তরিত হয়েছে। সাম্প্রতিক মসয়ে মুসলিম অভিবাসীদের সংখ্যা বাড়ার ফলে ইসলাম ধর্ম গ্রহন করার হার এখন আগের চেয়ে অনেক বেশি বেড়েছে। তবে অপরদিকে কিছু মুসলিম ও অন্যধর্ম বিশেষ করে খ্রীষ্টান ধর্মে দীক্ষিত হয়। অভিবাসী মুসলিমদের মধ্যে ইরানী মুসলিমদের অবস্থা খুবই খারাপ। সুইডিস ইরানীদের প্রতি ৫ জনের মধ্যে একজন নিজেকে মুসলিম বলে অস্বীকার করে। সুইডিশ ধর্মান্তরিত মুসলিমদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন প্রখ্যাত পেইন্টার ইভান আগুয়েলি যিনি তার মুসলিম নামে (আব্দুল হাদি আল মাগরিবি) বেশি পরিচিত, এছাড়া মুহাম্মদ নুত বার্নস্ট্রম যিনি ১৯৮৮ সালে সুইডিস ভাষায় কুরআন অনুবাদ করেন।
শেষে একটি কথায় বলা যায় যে, সুইডেনে মুসলিম ও ইসলামের ভবিষ্যত অনেক উজ্জ্বল।
 
 
মসজিদ
সুইডেনে ছোটবড় প্রায় ২৫০ অনেক মসজিদ আছে। তবে বেশির ভাগ মসজিদই বিল্ডিংয়ের বেইসমেন্টে এক বা দুটি রুম নিয়ে গঠিত। নির্মিত মসজিদ হলো মোট ৭ টি। এর মধ্যে পাচটি সুন্নি মসজিদ স্টকহোল্ম, উপশালা, মালমো ও ভাসতারাসে, একটি শিয়া মসজিদ ট্রলহাত্তানে এবং একটি আহমদিয়া মসজিদ গোথেনবার্গে অবস্থিত। সুন্নি বড় মসজিদ গুলো হলো, মালমো মসজিদ (১৯৮৪), স্টকহোল্ম মসজিদ (২০০০), উপশালা

142
Zakat / Spend in the way of Allah
« on: June 19, 2013, 10:07:05 AM »
 পবিত্র আল কুরআনে সূরা বাকারার ২৪৫ নাম্বার আয়াতে আছে "এমন কে আছে যে আল্লাহকে উত্তম ঋণ দিতে সম্মত? তাহলে আল্লাহ তাকে অনেক গুণ বাড়িয়ে দেবেন। আর আল্লাহকে ঋণ দিয়ে অভাবে পড়ে যাবে এ ভয় করো না কেননা অভাব ও স্বচ্ছলতা আল্লাহরই দান"। আরও আছে "যদি তোমরা আল্লাহকে ঋণ দাও তাহলে তিনি তোমাদের জন্য সম্পদ বাড়াতেই থাকবেন এবং তোমাদের ক্ষমা করে দেবেন, আর আল্লাহ তো বড় দানকারী (ইখলাছের সংগে হলে সামান্য দানও তিনি খুশী হয়ে গ্রহণ করবেন)।
 
 
তিনি অতি সহনশীল। তিনি গোপন ও প্রকাশ্য সমস্ত বিষয় সম্পর্কে পূর্ণ অবগত, মহাপরাক্রমশালী, অসীম প্রজ্ঞার অধিকারী (সূরা তাগাবুন-১৭)। একবার দু'বার নয় আল্লাহতায়ালা বিভিন্ন আয়াতে বিভিন্নভাবে তাকে ঋণ দেয়ার কথা উল্লেখ করেছেন। কুরআনে এসব আয়াত আমরা প্রতিনিয়ত তেলাওয়াত করি কিন্তু এর অর্থ বুঝি না। কুরআন শরীফের কোন্ আয়াতে কি বলা হচ্ছে কি আদেশ করা হচ্ছে তা অর্থসহ পড়লে তারপর বুঝতে পারা যায়। অর্থ বুঝে পড়লে কুরআন তেলাওয়াতের সওয়াবও পাওয়া যায় আবার আল্লাহ আমাদের কি আদেশ-নিষেধ করছেন সে সম্পর্কে জানা যায় এবং আমল করা যায়।
 
 
আল্লাহ আমাদের প্রতি অনেকভাবে দয়া করেছেন। আল্লাহ বলেছেন তোমরা আমাকে ঋণ দাও আমি তোমাদের তা অনেকগুণ বাড়িয়ে দেব। আল্লাহ অভাবমুক্ত, আল্লাহর কোন কিছুর অভাব নেই, তারপরও আল্লাহ বান্দার সুযোগের জন্য তাদের কাছে ঋণ চাইছেন। সৃষ্টি জগতের এবং মানুষের যত রকম চাহিদা রয়েছে এবং সব প্রয়োজন তা তো তিনিই পূর্ণ করেন। তাহলে আল্লাহকে ঋণ দেয়ার অর্থ কি? আল্লাহকে ঋণ দেয়ার অর্থ আল্লাহর দ্বীনের কাজে অর্থ ব্যয় করা উত্তম শিক্ষার জন্য ব্যয় করা, সংগ্রামের জন্য ব্যয় করা, গরীবকে দান করা, অসহায়কে আর্থিক সাহায্য করা।
 
 
 কুরআনের অন্য এক আয়াতে আল্লাহ বলেছেন 'নি:সন্দেহে আল্লাহ মুমিনদের কাছ থেকে তাদের জান এবং মাল জান্নাতের বিনিময়ে ক্রয় করছেন (সূরা তাওবা ১১২)। মানুষের অর্থ সম্পদ সবই আল্লাহর দান। আল্লাহ যাকে চান তাকে অনেক রিযিক বা অর্থ দান করেন। আল্লাহ তার দেয়া জিনিষ ক্রেতা হয়ে তা আবার মানুষের কল্যাণের জন্য ব্যয় করছেন। মানুষ তার ক্রয় করা জিনিষ নিজের কাছে নিয়ে নেয়, কিন্তু দেখুন আল্লাহ তার ক্রয় করা জিনিষ বান্দাকে ভোগ করতে বা ব্যবহার কতে দিচ্ছেন। আল্লাহ বলছেন আমি কিনে নিলাম তবে তোমার জান মাল তোমার কাছেই থাক তুমিই তা ব্যবহার করো এবং ভোগ করো তবে আমার হুকুম মতো করো, কিছু কিছু জানমাল আমার খুশির জন্য আমার রাস্তায় খরচ করো।
 
 
 আল্লাহ কত দয়াবান কত মেহেরবান আল্লাহ আমাদের কত সুযোগ দিচ্ছেন আল্লাহর দেয়া জান মাল আমরা নির্ধিদ্বায় ব্যবহার করবো শুধু আল্লাহর খুশির জন্য, নিজেদের কল্যাণের জন্য, অনন্তকালের বেহেশত সবার জন্য, আমরা আমাদের সম্পদ থেকে কিয়দাংশ আল্লাহর রাস্তায় খরচ করবো। মাল খরচ করাতো বুঝা গেল কিন্তু জান খরচ করার অর্থ কি? জান খরচ করার অর্থ হলো ইলমের পেছনে, আমলের পেছনে এবং দাওয়াতের পেছনে সময় ব্যয় করা।
 
 
তাই উচিত্ হলো আল্লাহকে উত্তম ঋণ দিয়ে আল্লাহর কাছ থেকে উত্তম স্থান বেহেশত ক্রয় করে নেয়া। যার যার সামর্থ অনুযায়ী আমরা সারাজীবন আল্লাহকে উত্তম ঋণ দিতে থাকব। হোক তা সামান্য একটা রুটি, একটা খেজুর বা দুই-পাঁচ টাকা যার কাছে যা থাকে তা দিয়ে গরীবকে সাহায্য করবো। আখেরাতে যখন নিজের চোখে দেখবেন যে, আল্লাহ আপনার এই দুই টাকা বাড়িয়ে অনেক গুণ বৃদ্ধি করে দেবেন এবং সারা বছরের এই ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র দান বেড়ে বেড়ে লক্ষ লক্ষ কোটি টাকা হয়েছে যার বিনিময়ে আল্লাহ জান্নাত দান করবেন তখন আনন্দের আর সীমা থাকবে না। আর বলবেন দুনিয়াতে যদি আরও বেশি আল্লাহকে ঋণ দিতাম তবে আল্লাহ আমাদের আরও বেশি নেয়ামত দান করতেন।
 
 
রসূল (স.) বলেন, যে ব্যক্তি খালেস নিয়তে হালাল রুযি হইতে একটি খেজুর পরিমান আল্লাহর রাস্তায় খরচ করলেন আল্লাহ তার ঐ দান নিজে হাতে নিয়ে যত্ন সহকারে বর্ধিত করে থাকেন, এমনকি উহা একটি পাহাড়ের সমানও হতে পারে তবে জেনে রেখো, আল্লাহ তায়ালা পাক পবিত্র ও হালাল জিনিষ ব্যতিরেকে অন্য জিনিষ কবুল করেন না (মুসলিম)। আল্লাহতায়ালা বলেন, বেহেশত সাজিয়ে রাখা হইয়াছে, তাদের জন্য যারা আল্লাহর ভয় অন্তরে রাখে এবং সুখে দু:খে সর্বাবস্থায়ই আল্লাহর রাস্তায় দান বা খরচ করে (সূরা ইমরান-৩৩) অন্য আয়াতে আল্লাহ বলেন, মুসলমানগণ অল্প বা অধিক যা কিছু দান করেন বা আল্লাহর রাস্তায় যতটুকু ময়দান অতিক্রম করে সবই আল্লাহ তায়ালা পুরস্কার দেয়ার জন্য লিখে রাখেন (সূরা তওবা-১২১) আল্লাহর কুরআন শরীফে আরও অনেক আয়াত আছে তার রাস্তায় দান করার উদ্দেশ্যে বলা হয়েছে।
 
 
 এসব আমরা তেলাওয়াত করি এবং অর্থসহ বুঝে পড়ে সে অনযায়ী আল্লাহকে উত্তম কর্য বা ঋণ দিয়ে আল্লাহর কাছ থেকে পরম সুখের স্থান অনন্তকালের জন্য জান্নাত কিনে নেব। আল্লাহ আমাদের সবাইকে তার রাস্তায় খরচ করার তাওফীক দিন, আমীন।

143
বাজারে যে লিচু বিক্রি করা হয়, তাতে মেশানো হয় বিষাক্ত রাসায়নিক। এ লিচু মানবদেহের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। বিশেষ করে শিশুদের জন্য খুবই বিপজ্জনক। শিশু বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকরা বলেছেন, বিষাক্ত রাসায়নিক মেশানো লিচু আর বিষ খাওয়ার মধ্যে কোন পার্থক্য নেই। এ লিচু খেলে ক্যান্সার, কিডনি ও লিভারে জটিল ব্যাধি বাসা বাঁধতে পারে।

রাজধানীর বাদামতলী, যাত্রাবাড়ী ও কাওরান বাজারের ১০টি ফলের আড়তে গিয়ে ব্যবসায়ী এবং শ্রমিকদের সঙ্গে ক্রেতা সেজে আলাপকালে তারা জানান, লিচু কিংবা ফলে ফরমালিন না মেশালে বেশিদিন রাখা যায় না। ব্যবসায়ী ও শ্রমিকরা জানান, ফরমালিন মেশানো ড্রামে লিচু একবার চোবালেই আর পচন ধরবে না। লিচু থাকবে তরতাজা ও টাককা। ক্রেতারা মনে করবে এই মাত্র গাছ থেকে লিচু পেড়ে আনা হয়েছে। তারা ঘুণাক্ষরেও বুঝতে পারবে না, এ লিচু এক সপ্তাহ কিংবা এক মাস আগে গাছ থেকে পাড়া হয়েছে।

লিচুর জন্য প্রসিদ্ধ দিনাজপুর, পাবনা, ঈশ্বরদী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ এবং রাজশাহী এলাকার বাগান মালিক এবং চাষীরা জানান, ঢাকার ও স্থানীয় ব্যবসায়ীরা লিচু মওসুমের এক বছর আগেই বাগান কিনে ফেলে। আবার গাছে লিচু ধরার পর আরেক দল ব্যবসায়ী, আড়তদার ও ফড়িয়ারা লিচু বাগান কিনেন। মুনাফালোভী ব্যবসায়ীরা মুকুল আসার পর থেকে ফল পাড়ার আগ পর্যন্ত ভারতীয় বিষ ইতোফোন গ্রুপের বাইজার, হারবেস্ট, প্রমাড ও ক্রমপমেক্স, ম্যালথান গ্রুপের কীটনাশক কট, টিভো, ফাইটার, ম্যানকোজের গ্রুপের ভায়াথেন অথবা কার্বন্ডাজিন গ্রুপের নইন পাউডার, এনটাকল, ব্যাপিস্টিন, ফ্লোরা, টিডো প্রিমিয়ার ও ইন্টারফলসহ ১৬ প্রকার কীটনাশক মেশায়। সর্বশেষ সেই লিচু পচন রোধে ও টাটকা রাখতে ফরমালিন মেশানো হয়।

ফার্মাসিউটিক্যালস সোসাইটির সভাপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ওষুধ প্রযুক্তি বিভাগের অধ্যাপক আবম ফারুক, বিশিষ্ট কিডনি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. হারুন অর রশীদ, ঢাকা শিশু হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মনজুর হোসেন ও মহাখালী ক্যান্সার ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক ডা. গোলাম মোস্তফা বলেন, লিচু ও অন্যান্য ফল খাওয়ার কারণে দেশে মরণব্যাধি আশংকাজনক হারে বাড়ছে। বিষ মেশানো লিচু খাওয়া থেকে মানুষকে বিরত থাকার জন্য তারা আহ্বান জানিয়েছেন। বিষাক্ত ফল কেনা বন্ধ করলে মুনাফালোভী ব্যবসায়ীদের টনক নড়বে বলে তারা জানিয়েছেন।

144
কিডনি ফেইলুর বা রেনাল ফেইলুর শরীরের এক নীরব ঘাতক, প্রায় প্রতিটি পরিবারেরই কেউ না কেউ এই ভয়াবহ রোগে আক্রান্ত। তাই আমরা সকলেই কমবেশী জানি এ রোগের ভোগান্তি কতটা নির্মম; কিন্ত আমরা কি জানি কিছু সাবধানতা অবলম্বন করলে সহজেই এই রোগ এড়িয়ে যাওয়া সম্ভব। আসুন জেনে নেই কিভাবে সহজেই আপনার কিডনিকে সুস্থ্য রাখা সম্ভব,

১। কর্মঠ থাকুনঃ নিয়মিত হাটা,দৌড়ানো,স্লাইকিং করা বা সাতার কাটার মতো হাল্কা ব্যায়াম করে আপনার শরীরকে কর্মঠ ও সতেজ রাখুন। কর্মঠ ও সতেজ শরীরে অন্যান্য যেকোন রোগ হবার মতো কিডনি রোগ হবার ঝুকিও খুব কম থাকে।

২। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে রাখুনঃ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত রোগীর শতকরা ৫০ জনই কিডনি রোগে আক্রান্ত হন। রক্তের সুগার নিয়ন্ত্রনে না থাকলে কিডনি নষ্ট হবার ঝুকি আরো বেড়ে যায়। তাই ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রনে রাখুন,নিয়মিত আপনার রক্তের সুগার পরীক্ষা করিয়ে দেখুন তা স্বাভাবিক মাত্রায় আছে কিনা, না থাকলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। শুধু তাই নয় অন্তত তিন মাস পরপর হলেও একবার আপনার কিডনি পরীক্ষা করিয়ে জেনে নিন সেটা সুস্থ্য আছে কিনা।

৩। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে রাখুনঃ অনেকেরই ধারনা যে উচ্চ রক্তচাপ শুধু ব্রেইন স্ট্রোক (stroke) আর হার্ট এটাকের (heart attack) এর ঝুকি বাড়ায়,তাদের জেনে রাখা ভালো যে কিডনি ফেইলুর হবার প্রধান কারণ হলো অনিয়ন্ত্রিত উচ্চ রক্তচাপ। তাই এ রোগ থেকে বাঁচতে অবশ্যই আপনার রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে রাখতে হবে। কোন কারনে তা ১২৯/৮৯ মি,মি, এর বেশী হলে সাথে সাথে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। নিয়মিত অসুধ সেবন এবং তদসংক্রান্ত উপদেশ মেনে চললেই সহজেই রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে রাখা যায়।

৪। পরিমিত আহার করুন এবং ওজন নিয়ন্ত্রনে রাখুনঃ অতিরিক্ত ওজন কিডনির জন্য ঝুকিপূর্ণ,তাই সুস্থ্য থাকতে হলে ওজন কমিয়ে স্বাভাবিক মাত্রায় নিয়ে আসতে হবে। পরিমিত স্বাস্থ্যকর খাবার খেলে কিডনি রোগ হবার ঝুকি অনেক কমে যায়।অন্য দিকে হোটেলের তেলমশলা যুক্ত খাবার,ফাষ্টফুড,প্রক্রিয়াজাত খাবার খেলে রোগ হবার ঝুকি অনেকাংশে বেড়ে যায়। মানুষের দৈনিক মাত্র ১ চা চামচ লবন খাবার প্রয়োজন আছে -খাবারে অতিরিক্ত লবন খাওয়াও কিডনি রোগ হবার ঝুকি বাড়িয়ে দেয়। তাই খাবারে অতিরিক্ত লবন পরিহার করুন।

৫। ধুমপান পরিহার করুনঃ অধুমপায়ীদের তুলনায় ধুমপায়ীদের কিডনি ক্যান্সার হবার সম্ভাবনা শতকরা ৫০ গুণ বেশী। শুধু তাই নয় ধুমপানের কারণে কিডনিতে রক্তপ্রবাহ কমে যেতে থাকে এবং এর ফলে কিডনির কর্মক্ষমতাও হ্রাস পেতে শুরু করে। এভাবে ধুমপায়ী একসময় কিডনি ফেইলুর রোগে আক্রান্ত হয়ে যায়।

৬। অপ্রয়োজনীয় অসুধ সেবনঃ আমাদের মাঝে অনেকেরই বাতিক রয়েছে প্রয়োজন / অপ্রয়োজনে দোকান থেকে অসুধ কিনে খাওয়া। এদের মধ্যে ব্যথার অসুধ (NSAID) রয়েছে শীর্ষ তালিকায়। জেনে রাখা ভাল যে প্রায় সব অসুধই কিডনির জন্য কমবেশী ক্ষতিকর আর এর মধ্যে ব্যথার অসুধ সবার চেয়ে এগিয়ে। নিয়ম না জেনে অপ্রয়োজনীয় অসুধ খেয়ে আপনি হয়তো মনের অজান্তেই আপনার কিডনিকে ধংস করে যাচ্ছেন -তাই যে কোন অসুধ ব্যবহারের আগে অবশ্যই নিবন্ধিত চিকিৎসকের কাছ থেকে জেনে নিন তা আপনার ক্ষতি করবে কিনা।

৭। নিয়মিত কিডনি পরীক্ষা করানঃ আমাদের মাঝে কেউ কেউ আছেন যাদের কিডনি রোগ হবার ঝুকি অনেক বেশী, তাদের অবশ্যই নিয়মিত কিডনি পরীক্ষা করানো উচিত। কারো যদি ডায়াবেটিস এবং / অথবা উচ্চ রক্তচাপ থাকে,ওজন বেশী থাকে (স্থুলতা / Obesity),পরিবারের কেউ কিডনি রোগে আক্রান্ত থাকে তাহলে ধরে নিতে হবে তার কিডনি রোগে আক্রান্ত হবার ঝুকি অনেক বেশী। তাই এসব কারন থাকলে অবশ্যই নিয়মিত কিডনি পরীক্ষা করাতে হবে।

কিডনি ফেইলুর হয়ে গেলে ভালো হয়ে যাবার কোন সুযোগ নেই, ডায়ালাইসিস কিংবা প্রতিস্থাপন (Renal Transplant) করে শুধু জীবনকে দীর্ঘায়িত করা সম্ভব। তাই এই রোগ এড়িয়ে যাবার চেষ্টা চালিয়ে যাওয়াটা প্রতিটি সুস্থ্য মানুষের জন্য বুদ্ধিমানের কাজ হবে।




145
বাঙ্গালির অতিপ্রিয় ফল আমের পচন রোধে ফরমালিন মেশানো হচ্ছে! গাছে মুকুল আসার পর থেকে পাকা পর্যন্ত বাগানে, আড়তে দফায় দফায় আমে দেয়া হচ্ছে সায়ানাইড, ফরমালিনসহ নানা ধরনের কেমিক্যাল। আমের রাজধানী বলে খ্যাত চাঁপাইনবাবগঞ্জ ছাড়াও মেহেরপুর, রাজশাহী, নাটোর ও অন্যান্য জেলায় এই অসাধু কার্যক্রম চালাচ্ছেন সংশ্লিষ্ট বাগান মালিক, চাষী থেকে শুরু করে স্থানীয় ফল ব্যবসায়ীরা। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে কোথায়, কখন, কিভাবে আমে বিষ মেশানো হয় সে সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানা গেছে।

জানা গেছে, মধ্যস্বত্বভোগী, অতি মুনাফালোভী, ফড়িয়া, ব্যবসায়ী ও বাগান মালিক এবং আড়তদাররা আমে বিষাক্ত কেমিক্যাল ও ফরমালিন মিশিয়ে বছরের পর বছর বাজারজাত করছে। মূলত তাদের হাতেই দেশের ফল ব্যবসা নিয়ন্ত্রিত হয়। বাজারে ৯৫ ভাগ আমের মধ্যেই বিষাক্ত কেমিক্যাল রয়েছে। তার বাস্তব প্রমাণও মিলছে। প্রায় প্রতিদিনই মোবাইল কোর্ট অভিযানে নেমে টনে টনে কেমিক্যাল যুক্ত আম ধ্বংস করে সংশ্লিষ্টদের জরিমানা করছেন। কিন্তু অজানা কারণে আমে বিষ মেশানো বন্ধ হচ্ছে না।

সর্বশেষ গত বৃহস্পতিবার কাওরান বাজারে ১০টি আমের আড়তে র‌্যাবের ম্যাজিস্ট্রেটের আনোয়ার পাশার নেতৃত্বে অভিযান চালানো হয়। রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে এসব আড়তে সরাসরি আম আনা হয় বলে দাবি করা হয়। বিশেষজ্ঞরা ৬টি আড়তে মালিকদের উপস্থিতিতে আম পরীক্ষা করে তাতে মাত্রাতিরিক্ত কেমিক্যাল থাকার প্রমাণ পান। এ কারণে প্রত্যেক আড়ত মালিককে দুই লাখ টাকা করে জরিমানা এবং ৪ হাজার টন আম জব্দ করে মোবাইল কোর্ট। পরে সেই আম ধ্বংস করা হয়।

মহাখালীর ক্যান্সার ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক ডা. গোলাম মোস্তফাও জানান, ‘সায়ানাইড’ দিয়ে আম পাকানো হয়। দীর্ঘদিন রেখে বিক্রির জন্য সে আমে মেশানো হয় ফরমালিন। এই দুটি কেমিক্যালেই মানবদেহে মরণব্যাধি ক্যান্সার হওয়ার আশংকা শতভাগ। দেশে ক্যান্সার রোগ আশংকাজনকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ার পেছনে বিষাক্ত আমসহ অন্যান্য খাদ্যসামগ্রী দায়ী। ক্যান্সার ইনস্টিটিউটে প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে বিপুল সংখ্যক রোগী চিকিত্সার জন্য আসেন। তা সামাল দেয়া চিকিত্সকদের পক্ষে দুঃসাধ্য হয়ে পড়ছে বলে তিনি জানান।
- See more at: http://dhakanews24.com/?p=176421#sthash.OeBNzgME.dpuf

146
জাবির বিন সামুরা [রা:] থেকে বর্ণিত । তিনি বলেন- রাসুলুল্লাহ [সা:] আমাদের কাছে এসে বলেলেন: ফেরেশতা মন্ডলী যেমন তাদের প্রভুর সামনে কাতারবদ্ধ হয় তোমরা কি তেমন কাতারবদ্ধ হবে না ? আমরা জিজ্ঞাসা করলাম: হে আল্লাহর রাসুল ! ফেরেশতা মন্ডলী তাদের প্রভুর সামনে কিভাবে কাতারবদ্ধ হয় ? তিনি বললেন: তারা আগের কাতারগুলো পূর্ণ করে এবং মাঝখানে ফাঁক না রেখে মিলিতভাবে দাড়ায় । [মুসলিম-৪৩০]

147


আমীরুল মু’মিনীন আবূ হাফস উমার বিন খাত্তাব (রা:) থেকে বর্ণিত । তিনি বলেন: আমি রাসুলুল্লাহ (সা:) কে বলতে শুনেছি যে, সকল কাজের পরিণাম নিয়ত অনুযায়ী হবে । প্রত্যেক ব্যক্তি যে নিয়ত নিয়ে কাজ করবে সে তাই পাবে । সুতরাং যার হিজরত আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে হয়েছে, তার হিজরত আল্লাহর ও তাঁর রাসুলের সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে হয়েছে বলেই ধরা হবে । পক্ষান্তরে যার হিজরত দুনিয়া লাভ বা কোন মেয়েকে বিয়ে করার নিয়তে হয়েছে তার হিজরত উক্ত উদ্দেশ্যে হয়েছে বলেই পরিগণিত হবে । [ বুখারী-৬৬৮৯. মুসলিম-১৯০৭ ]

আবু হুরাইরা আবদুর রাহমান বিন শাখর (রা:) থেকে বর্ণিত । তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা:) বলেছেন: মহান আল্লাহ তোমাদের শরীর এবং আকৃতির দিকে দেখেন না, বরং তোমাদের অন্তর ও কর্মের দিকে দেখেন । [ মুসলিম-২৫৬৪ ]

148
 আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তায়ালার দান করা মাসগুলোর মধ্যে কিছু মাস বিশেষভাবে মর্যাদাপ্রাপ্ত। তার মধ্যে রমজান সবার ওপরে। এ সময় তার পরে জিলহজ্ব। তারপর রমজানের প্রস্তুতির মাস হিসাবে শাবান মাসকে রসূল (স.) বিশেষ মর্যাদা দিয়েছেন। তাঁর ইবাদত বন্দেগীতে পরিবর্তন পরিলক্ষিত হয়েছে। রসূল (স.) বলেছেন, রমজান হলো আল্লাহর মাস আর শাবান হলো আমার মাস। যার দৃষ্টান্ত স্বরূপ তিনি প্রচুর ইবাদত করতেন। প্রত্যেক আরবি মাসের (রমজান ছাড়া) ১৩, ১৪ ও ১৫ তারিখে আইয়ানে বীজের রোজা রাখতেন প্রিয় নবী (স.)। কিন্তু যখন শাবান মাস আসতো রসূল (স.) প্রায় পুরো শাবান মাস সংযমব্রত পালন করতেন। আর নফল ইবাদত বন্দেগী করতেন সবই অধিক পরিমাণ। তাছাড়া একটি দোয়া বারবার তার মুখে ধ্বনিত-প্রতিধ্বনিত হতো। তাহলো "আল্লাহুম্মা বারিকলানা ফি রজাবা ওয়া শাবানা ওয়া বাল্লিগনা রমজানা অর্থাত্ হে আল্লাহ, রজব ও শাবানে আমাকে বরকত দিন এবং আমাকে রমজান পর্যন্ত পৌঁছে দিন।
 
হযরত আয়শা (রা.) বলেন, যখন শাবান মাস আসতো তখন রসূল (স.) অন্যান্য মাসের তুলনায় অধিক গুরুত্ব দিতেন ও রোজা রাখতেন। মাঝেমধ্যে একাধারে রোজা পালন করে শাবানের শেষ দিনটি বিরতি দিয়ে আবার রমজানের রোজা পূর্ণাঙ্গভাবে পালন করতেন। সেই কারণে যারা রসূল (স.) এর সত্যিকারের উম্মত হতে চায় তাদের প্রত্যেকের উচিত হলো রসূলের (স.) এই সুন্নতের সম্পূর্ণরূপে পরিপালন করা। কেননা রসূল (স.) বলেছেন, মান তামাসসাকা সুন্নাতি ইন্দা ফাসাদান উম্মাতি ফালাহু আজরুহু মিয়াতাশ শাহিদ অর্থাত্ যদি কেউ আমার কোনো হারিয়ে যাওয়া সুন্নতকে উজ্জীবিত করে তাহলে তাকে একশত শহীদের দরজা দান করা হবে। অন্যস্থানে বলেছেন, মান তরাকা সুন্নতি ফালাইছা মিন্না অর্থাত্ যে ব্যক্তি (ইচ্ছাকৃতভাবে) আমার কোনো সুন্নতকে পরিহার করবে সে আমার উম্মত নয়, আর রসূলের উম্মত না হলে বেহেশত পাওয়া আদৌ সম্ভব নয়। কারণ রসূল (স.) বলেছেন, কুল্লু উম্মাতুই ইয়াদ খুলুনাল জান্নাহ ইল্লা মান আবা কিলা মান আবা ইয়া রসূলুল্লাহ (স.)? মান আতাআনি ফাদাখালাল জান্নাহ, অমান আসানি ফাক্বদ আবা অর্থাত্ আমার প্রত্যেক উম্মত বেহেশতে যাবে কেবল মাত্র অসম্মত ছাড়া।
 
সাহাবীরা বললেন, কে অসম্মত হে রসূল (স.)? তিনি বললেন, যারা আমার অনুসরণ করবে তারা বেহেশতে যাবে। আর যারা আমার সুন্নতের অবজ্ঞা করবে তারাই অসম্মত। সেই কারণে যারা রসূল (স.) এর উম্মত হয়ে জান্নাত হাসিল করতে চায়, তাদের প্রত্যেকের উচিত হলো রসূলের প্রতিটি সুন্নতের অনুসরণে দৈনন্দিন জীবন অতিবাহিত করা। আর সেই লক্ষ্যে এই শাবান মাসেই নিজেকে পাঁচ ওয়াক্ত ফরজ নামাজ জামায়াতে আদায় করা, সুন্নত নামাজ, নফল নামাজ ও ইবাদত বন্দেগী করা অতীব প্রয়োজন। আল্লাহ আমাদের সকলকে সেই তাওফীক দান করুন, আমীন।

149
চান্দ্রবর্ষের অষ্টম মাস পবিত্র শাবান মাস। এ মাস অত্যন্ত ফজিলত ও তাৎপর্যপূর্ণ। বিভিন্ন হাদিসে এ মাসের বিশেষ ফজিলত ও তাৎপর্য বর্ণিত হয়েছে। এ মাসে মুসলিম উম্মাহর কিছু করণীয়ও রয়েছে। পবিত্র শাবান মাসের পরের মাসই হচ্ছে মহিমান্বিত রমজান মাস। রহমত, বরকত, মাগফিরাত ও নাজাতের মহান মাস রমজান। অধিক ইবাদতের মাস রমজান, এ জন্য পবিত্র শাবান মাস থেকেই রমজানের জন্য প্রস্তুতি নেওয়া প্রত্যেক মুসলমানেরই কর্তব্য। হজরত মুহাম্মদ (সা.) শাবান মাস থেকেই পবিত্র রমজানের জন্য প্রস্তুতি নিতেন বলে হাদিসে উল্লেখ পাওয়া যায়। হজরত মুহাম্মদ (সা.) পবিত্র শাবান মাস থেকেই রমজানের জন্য অধীর আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করতেন। আর এ কারণেই তিনি পবিত্র শাবান মাসের দিন-তারিখের খুব গুরুত্ব দিয়ে হিসাব রাখতেন। হজরত আয়েশা (রা.) বলেন, হজরত মুহাম্মদ (সা.) পবিত্র শাবান মাসের দিন-তারিখের এত হিসাব রাখতেন যতটা হিসাব অন্য মাসের রাখতেন না, (আবু দাউদ ১/৩১৮)। সুতরাং পবিত্র শাবান মাসের দিন-তারিখের হিসাব রাখা সুন্নাত। মুসলমানদের করণীয়। পবিত্র শাবান মাসে অধিক হারে নফল রোজা রাখা উত্তম। হজরত উম্মে সালামা (রা.) থেকে বর্ণিত। তিনি জানান, আমি হজরত নবী করিম (সা.)-কে শাবান ও রমজান ব্যতীত দুই মাস একাধারে রোজা রাখতে দেখিনি। হজরত আয়েশা (রা.) বলেন, আমি হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে শাবান মাসের মতো এত অধিক নফল রোজা রাখতে অন্য কোনো মাসে আর দেখিনি। এ মাসের অল্প কিছু দিন ব্যতীত বরং বলতে গেলে সারা মাসই তিনি নফল রোজা রাখতেন। (তিরমিজি-১/১৫৫)পবিত্র শাবান মাসের ১৪ তারিখ দিবাগত রাত অর্থাৎ ১৫ শাবান রাত হচ্ছে শবেবরাত। এ রাতের অশেষ ফজিলতও হাদিসে বর্ণিত হয়েছে। বছরের পাঁচটি শ্রেষ্ঠ রজনীর অন্যতম এ শবেবরাত। এ রাতের করণীয় সম্পর্কে রাসূল (সা.) ইরশাদ করেন, ১৫ শাবান রাতে তোমরা জেগে থেকে ইবাদত কর এবং পরদিন রোজা রাখ। এ জন্য শবেবরাতে জেগে থেকে ইবাদত করা এবং পরদিন রোজা রাখা বিশেষ সওয়াবের কাজ। সর্বোপরি পবিত্র শাবান মাসের পরই যেহেতু পবিত্র রমজান মাস তাই শাবান মাসেই পবিত্র রমজানের জন্য পূর্ণ প্রস্তুতি নিতে হবে।

150
 তাওয়াক্কুল আরবি শব্দ। এর অর্থ হলো,আল্লাহর ওপর নির্ভরতা,আল্লাহর কাছে নিজেকে সোপর্দ করা এবং তারই ওপর ভরসা করা। ঈমানদার মানুষের একটি বড় গুণ হচ্ছে, আল্লাহর ওপর তাওয়াক্কুল করা। সব কাজের ক্ষেত্রেই আল্লাহর ওপর নির্ভরতা অর্থাৎ চূড়ান্ত ফয়সালার ক্ষমতা যে আল্লাহর হাতে, তা মনেপ্রাণে স্বীকার করাই হচ্ছে, আল্লাহর ওপর তাওয়াককুল করা। আরেকটু ব্যাখ্যা করে বলা যায়, একজন ঈমানদার ব্যক্তি, ভালো ও কল্যাণকর বিষয় অর্জনের জন্য নিজের সাধ্যমত চেষ্টা করবে এবং ফলাফলের জন্য আল্লাহতাআলার উপর ভরসা করবে ও  তাঁর প্রতি দৃঢ় আস্থা রাখবে। আর এর মধ্যেই রয়েছে ইহকালীন ও পরকালীন কল্যাণ।
 
 
আল্লাহর ওপর ভরসার নানা পর্যায় রয়েছে। অনেকেই কেবল মুখে আল্লাহর ওপর নির্ভর করার কথা বলেন। আবার কেউ কেউ সুনির্দিষ্ট কিছু ক্ষেত্রে আল্লাহর ওপর ভরসা করেন। আল্লাহর ওপর নির্ভরতার ক্ষেত্রে কারো কারো মনে দ্বিধা-সন্দেহ ও উদ্বেগও কাজ করে। এগুলো সর্বোচ্চ পর্যায়ের তাওয়াক্কুল নয়। আল্লাহর ওপর সর্বোচ্চ পর্যায়ের তাওয়াক্কুলকে মায়ের প্রতি শিশুর নির্ভরশীলতার সঙ্গে তুলনা করা যেতে পারে। যেমন- একটি শিশু শুধু তার মাকেই একান্ত আপন বলে জানে, মায়ের ওপরই সে ভরসা করে, তার যত আবদার মায়ের কাছেই। সে কখনোই মা থেকে আলাদা হয় না। মায়ের অনুপস্থিতিতে কোনো বিপদ ঘটলে শিশুর মনে প্রথমেই যে বিষয়টি আসে এবং যে শব্দটি মুখে উচ্চারিত হয়, তাহলো- মা। কারণ শিশু তার মাকেই একমাত্র আশ্রয়স্থল বলে জানে। তাওয়াক্কুলের সর্বোচ্চ পর্যায় হচ্ছে- মানুষের জীবনের সব কিছুর শৃঙ্খলা বিধানকারী হিসেবে আল্লাহকে স্বীকার করে নেয়া। এভাবেই আল্লাহর ওপর তাওয়াক্কুলের মাধ্যমে মানুষের মাঝে কাজের শক্তি ও স্পৃহা সৃষ্টি হয় এবং চিন্তাগত প্রতিবন্ধকতা দূর হয়। পার্থিব ভয়-ভীতির অবসান ঘটে। কারণ ঈমানদার ব্যক্তির শতভাগ বিশ্বাস হলো- আল্লাহই হচ্ছে শক্তির একমাত্র উৎস।
 
 
নবী-রাসূলরা ছিলেন আল্লাহর ওপর নির্ভরতার ক্ষেত্রে সর্বোত্তম আদর্শ। হজরত ইব্রাহিম (আ.)’কে আগুনে নিক্ষেপের ঘটনা এ ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য। মূর্তি ভাঙার পর হজরত ইব্রাহিম (আ.)-কে আগুনে নিক্ষেপ করার সিদ্ধান্ত নেয় জালিম রাজা নমরুদ। এ পরিস্থিতিতে হজরত ইবরাহিম (আ.) আল্লাহর ওপর তাওয়াক্কুল করেন এবং একমাত্র আল্লাহকেই স্মরণ করতে থাকেন। আর আগুন হজরত ইব্রাহিম (আ.)-র জন্য ফুলের বাগানে পরিণত হয়। আল্লাহর ওপর নির্ভর করাটা মানুষের জন্য এতোটাই গুরুত্বপূর্ণ যে, বিশ্বনবী হজরত মুহাম্মদ (সা.) বারবারই তার অনুসারীদেরকে আল্লাহর ওপর তাওয়াক্কুল করার কথা বলেছেন। সবাইকে তিনি এ জন্য উৎসাহিত করেছেন। ইমাম জাফর সাদেক  (আ.) এ সম্পর্কে বলেছেন, যেখানে তাওয়াক্কুল থাকে, সেখানে সম্মান-মর্যাদা প্রতিষ্ঠা পায়। অন্যভাবে বলা যায়, যে ব্যক্তি আল্লাহর ওপর তাওয়াক্কুল করে, সে সম্মান ও প্রাচুর্য্যের অধিকারী হয়।
 
 
তবে তাওয়াক্কুল বস্তুবাদীদের জন্য একটি অভাবনীয় বিষয়। কাজ-কর্ম সম্পন্ন করার পর ফলাফলপ্রাপ্তির জন্য আল্লাহর ওপর নির্ভর করতে হবে, এটা বস্তুবাদীদের কাছে বোধগম্য নয়। চর্মচক্ষু দিয়ে যে আল্লাহকে দেখা যায় না, তাকেই সব ক্ষমতার উৎস হিসেবে মেনে নিতে হবে- এমন বক্তব্য বস্তুবাদীদের কাছে গ্রহণযোগ্য নয়। কিন্তু বাস্তবতা হলো- অদৃশ্যের ওপর বিশ্বাসই ঈমানদারদের জীবনের চলিকাশক্তি। আর এ কারণেই তাওয়াক্কুলের ফজিলতও সীমাহীন। পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে, 'যে ব্যক্তি আল্লাহর ওপর ভরসা করে, আল্লাহই তার জন্য যথেষ্ট।’
 
 
তাওয়াক্কুলের নীতি অবলম্বনকারী ব্যক্তি কখনো হতাশ হয় না। আশা ভঙ্গ হলে মুষড়ে পড়ে না। বিপদ-মুসীবত, যুদ্ধ-সংকটে ঘাবড়ে যায় না। যে কোনো দুর্বিপাক, দুর্যোগ, সঙ্কট ও বিপদ-মুসীবতে আল্লাহর উপর দৃঢ় আস্থা রাখে। জুলুম, অত্যাচার, নির্যাতন-নিপীড়নের যে ঝড়ই উঠুক না কেনো, ঈমানদার ব্যক্তি আল্লাহ ছাড়া কাউকে ভয় করে না। এ ধরনের মানুষ সব সময়ই ভবিষ্যতের বিষয়ে আশাবাদী।
 
 
রাসুলুল্লাহ (সা.)’র পুরো জীবনকাল এবং তার পরিবারের সবার জীবন ছিল আল্লাহর প্রতি নির্ভরতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। খোদাদ্রোহীদের অত্যাচার-নির্যাতনে, ক্ষুধা-দারিদ্র্য মোকাবিলায় এবং অনুসারীদের অভিযোগ-অনুযোগে সর্বাবস্থায় তিনি তাওয়াক্কুলকে একমাত্র অবলম্বন হিসেবে গ্রহণ করেছেন। পবিত্র কুরআনের সূরা আত-ত্বালাকের ৩ নম্বর আয়াতে আল্লাহতায়ালা বলেছেন, 'যে ব্যক্তি আল্লাহর ওপর ভরসা করে, আল্লাহই তার জন্য যথেষ্ট। আল্লাহ তার কাজ সম্পন্ন করে দেবেন, তিনি সব কিছুর একটি পরিমাণ স্থির করে রেখেছেন।'
 
 
আসলে তাওয়াক্কুল হলো, মহান আল্লাহর দ্বায়িত্বাধীন হওয়ার সর্বোত্তম উপায়। এ প্রসঙ্গে ইরানের বিখ্যাত লেখক ও চিন্তাবিদ ড. হোসেইন এলাহি কুমশেয়ির একটি দোয়া এখানে তুলে ধরা যেতে পারে। তিনি তার কিমিয়া বা পরশমনি শীর্ষক বইয়ে লিখেছেন, ‘আমি শক্তিহীন এক পরগাছা। আমার নিজের কোনো শেকড় নেই। কোনো গাছকে অবলম্বন না করে গজিয়ে ওঠার ও পল্লবিত হওয়ার ক্ষমতাও আমার নেই। কিন্তু হে আল্লাহ, যতক্ষণ পর্যন্ত আপনার সঙ্গে নিজেকে জড়াই ও আপনার ওপর তাওয়াক্কুল করি, ততক্ষণ আমার ভেতর কোনো ভয়-ভীতি থাকে না।’
 

Pages: 1 ... 8 9 [10] 11