Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - yousuf miah

Pages: 1 ... 6 7 [8] 9 10 ... 12
106
helpful post............

107
Life Style / Re: Keep your Cloths free from Insects
« on: September 05, 2013, 10:34:28 AM »
Thanks for nice information............


Md.Yousuf Miah
Accounts Officer
Daffodil International University

108
Fruit / Benefits of guava fruit
« on: September 04, 2013, 12:36:03 PM »
বর্ষাকাল পেয়ার ফলের উৎকৃষ্ট সময়। এসময় আপনি বাজারে নানা রঙের ফলের পাশাপাশি পেয়ারা দেখতে পাবেন। পিয়ার একটি সুস্বাদু ফল। যা আপনার শরীরের নানা রকম রোগ প্রতিরোধে কাজ করে থাকে। আসুন জেনে নেয়া যাক পিয়ারার উপকারিতা:

১. কাঁচা পেয়ারা হৃদ রোগের উপকার।
২. কাঁচা পেয়ারা লবন দিয়ে খেলে কাশের ভাল উপকার হয়।
৩. কাঁচা পেয়ারা রক্ত বর্ধক।
৪. পেয়ারা বাত পিত্ত কফ নাশক।
৫. শরীর ঠান্ডা রাখার জন্য কাঁচা পেয়ারা অত্যন্ত উপকারী।
৬. হাতে পায়ে জ্বালা দূর করতে কাঁচা পেয়ারা কার্যকরী ভূমিকা রাখে।
৭. পেয়ারা পাতা দাঁতের মাড়ি ব্যথায় উপকারী।
৮. পেয়ারা পাতা সেদ্ধ জল জ্বরের জন্য অত্যন্ত উপকারী।
৯. কাঁচা পেয়ারা আনন্দ দায়ক।
১০. নেশা মুক্তির জন্য কাঁচা পেয়ারার পাতা সেদ্ধ জল যথেষ্ট উপকারী।


Md.Yousuf Miah
Accounts Officer
Daffodil International University

109
Ramadan and Fasting / Ramadan is mercy, and barakatera abahe
« on: July 29, 2013, 11:20:50 AM »
রহমত ও বরকতের মাস রমজান। রমজানে রহমতের আবহে বরকতের স্রোতধারায় মন সজিব হয়ে ওঠে। অনাবিল শান্তি ও কমনীয় ভাব বিরাজ করে সর্বত্র। সুসংবাদ মেলে মাগফিরাত ও নাজাতেরও। এ মাসে অন্যায় অপরাধ অনেক কম হয়। মানুষ তুলনামূলক ইবাদত-বন্দেগি করে বেশি। কারণ রমজানের বরকতে এ মাসে ইবাদতে সওয়াব পাওয়া যায় অনেক বেশি। মুমিনের জীবনে এটি একটি শ্রেষ্ঠ পাওনা।

রহমত ও বরকতের মাস হিসেবে রমজানের গুরুত্ব অপরিসীম। রাসুলুল্লাহ (সা.) এর অসংখ্য হাদিস দ্বারা তা প্রমাণিত। তিনি বলেন, ‘আবু হোরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, হজরত নবী করিম (সা.) বলেছেন, তোমাদের কাছে রমজান মাস সমাগত। তা এক অত্যন্ত বরকতের মাস। আল্লাহতায়ালা এ মাসে তোমাদের প্রতি রোজা ফরজ করেছেন, এ মাসে আকাশের দরজাগুলো উন্মুক্ত হয়ে যায়। জাহান্নামের দরজাগুলো বন্ধ করে দেয়া হয় এবং বড় ও সেরা শয়তানগুলোকে আটক করে রাখা হয়।

আল্লাহর জন্য এ মাসে একটি রাত আছে, যা হাজার মাসের চেয়েও অনেক উত্তম। যে লোক এই রাতের মহাকল্যাণ লাভ থেকে বঞ্চিত থাকল, সে সত্যিই বঞ্চিত ব্যক্তি। (নাসায়ী, মুসনাদে আহমদ) হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) ঘোষণা করেছেন, যে লোক রমজান মাসের রোজা রাখবে ঈমান ও চেতনা সহকারে, তার পূর্ববর্তী ও পরবর্তী গোনাহ (সগিরা) মাফ হয়ে যাবে। (বুখারি ও মুসলিম)

রহমতের আবহে পুরো রমজান মাসে সমগ্র বেহেশতজুড়ে চলতে থাকে উত্সবের আমেজ। এ প্রসঙ্গে একটি হাদিস উল্লেখ করা যায়। হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) হতে বর্ণিত, ‘রাসুলে করিম (সা.) বলেছেন, যখন রমজান শরিফের প্রথম রাত হয়, তখন জান্নাতের দরজাগুলোকে খুলে দেয়া হয়, আর সারা মাসজুড়ে দোজখের দরজাসমূহ বন্ধ থাকে।

এ সময়ের মধ্যে দোজখের কোন একটি দরজাও খোলা হয় না এবং বিদ্রোহী জ্বিনসমূহকে বন্দি করা হয়। আর রমজান মাসের প্রত্যেক রাতে এক আওয়াজদাতা সুবহে সাদেক পর্যন্ত সারা রাত এই আওয়াজ দিতে থাকে যে, হে কল্যাণ ও নেকির অন্বেষণকারী, নেকির সংকল্প কর এবং খুশি হয়ে যাও। আর হে বদকাজের সংকল্পকারী! বদ কাজ হতে ফিরে যাও এবং নিজের অবস্থা সম্পর্কে চিন্তা-ভাবনা কর এবং সেসবের পর্যালোচনা কর।’

পবিত্র মাহে রমজান রহমতের বারি বর্ষণে সিক্ত একটি মাস। দৃষ্টান্ত্তস্বরূপ বলা যায়, এ মাসে প্রত্যেক রাতে ইফতারের সময় ষাট হাজার ব্যক্তি জাহান্নাম থেকে মুক্তি লাভ করে। ঈদুল ফিতরের দিনেও আল্লাহতায়ালা অনুরূপ সংখ্যক ব্যক্তিকে জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেন। রমজান মাসে প্রত্যেক রাতে ছয় লাখ এবং শেষ তারিখ রাতে এক কোটি আশি লাখ ব্যক্তিকে ক্ষমা করে দেন। অর্থাত্ শুধু ঈদুল ফিতরের দিনই আঠার লাখ লোক জাহান্নাম হতে মুক্তি লাভ করে। (আত-তারগিব ওয়াত-তারহিব)

রমজান আল্লাহর পক্ষ থেকে বান্দাকে পুরস্কার বিতরণেরও মাস। এ মাসে উম্মতের জন্য পাঁচটি বিশেষ পুরস্কার রয়েছে। এ প্রসঙ্গে রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেন, ‘আমার উম্মতকে রমজান সম্পর্কিত পাঁচটি বিশেষ পুরস্কার দেয়া হয়েছে, যা পূর্ববর্তী উম্মতগণকে দেয়া হয়নি।’

নিম্নে সেই পুরস্কারের কথা বিবৃত হলো :
এক. রোজাদারের মুখের গন্ধ (যা ক্ষুধার কারণে সৃষ্টি হয়, আল্লাহ তায়ালার কাছে মেশকের চেয়েও বেশি পছন্দনীয়। দুই. তাদের জন্য সমুদ্রের মত্সগুলোও ইফতার পর্যন্ত দোয়া করতে থাকে। তিন. তাদের জন্য প্রত্যহ জান্নাতকে সাজানো হয়, অতপর আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেন, সে দিন দূরে নয় যে, যেদিন আমার বান্দা (দুনিয়ার) দুঃখ-কষ্ট উপেক্ষা করে আমারই দিকে ফিরে আসবে। চার. এ মাসে দুষ্ট শয়তানগুলোকে বন্দি করা হয়। পাঁচ. রমজানের শেষ রাতে রোজাদারদের ক্ষমা করা হয়। (আত-তারগিব ওয়াত-তারহিব)

রমজানের সবচেয়ে বড় ফজিলত হচ্ছে লাইলাতুল কদর। যে রাতের ইবাদত হাজার মাসের চেয়েও উত্তম। তাছাড়া রমজানে প্রত্যেক ইবাদতের সওয়াব বৃদ্ধি করা হয়, যা রমজানেরই বরকতে সাধিত হয়। রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘এ মাসে যে ব্যক্তি কোন প্রকার নফল ইবাদত করবে, তার সওয়াব অন্য মাসের ফরজের সমান উন্নীত করা হয়। এ মাসের একটি ফরজ ইবাদতে অন্য মাসের তুলনায় সত্তরগুণ সওয়াব বৃদ্ধি করা হয়। এ মাসে মানুষের মধ্যে ধৈর্য্য, প্রেম-ভালবাসা, সহযোগিতা, সহানুভূতি ও সহমর্মিতা বেড়ে যায়। ঈমানদারদের রিজিক বৃদ্ধি করা হয়।’

রমজানে রহমত ও বরকতের অনন্য নিদর্শন হলো, এ মাসে মানুষ ইবাদত বন্দেগিতে অংশগ্রহণ বাড়িয়ে দেয়। যার ফলশ্রুতিতে অগণিত অসংখ্য পুরস্কার লাভ সম্ভব হয়। এ প্রসঙ্গে হযরত আবু মালেক আশআরি (রা.) বর্ণনা করেন, রোজাদারকে জান্নাতে পরিস্কার-পরিচ্ছন্ন বালাখানা দান করা হবে। সেগুলোর বাইরে থেকে অন্দরমহল এবং অন্দরমহল থেকে বাইরে দৃষ্টিগোচর হবে। (ইবনে হিব্বান)

আমাদের উচিত, এ মাসে সর্বপ্রকার গোনাহ থেকে পবিত্র-পরিচ্ছন্ন হয়ে রমজানের সুফল লাভ করা। আমলের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়া। রহমত ও বরকতের সঞ্জীবনী শক্তিতে বেহেশতের শ্রেষ্ঠ মাকামে নিজেদের স্থান করে নেযা। সর্বোপরি আল্লাহর দিদার লাভে ধন্য হওয়া।


Md.Yousuf Miah
Accounts Officer
Daffodil International University

110
Ramadan and Fasting / Ramadan blessings and monajata
« on: July 29, 2013, 11:09:19 AM »
রমজান দোয়া কবুল ও পুণ্য অর্জনের মাস। এ মাসে অবারিত রহমত-বরকতের পাশাপাশি দোয়া-মোনাজাতের মাধ্যমে নিজেকে পাক-সাফ করে নেয়া যায়। মানবজাতির কল্যাণ ও মুক্তির জন্য এবং যে কোনো বিপদ-মসিবত থেকে উত্তরণে দোয়ার বিকল্প নেই। আমাদের ওপর আল্লাহতায়ালার পক্ষ থেকে এটা এক বড় ধরনের নিয়ামত ও অনুগ্রহ যে, তিনি আমাদের তাঁর কাছে দোয়া করার অনুমতি দিয়েছেন এবং দোয়া কবুলেরও ওয়াদা করেছেন। এ মর্মে পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘আমার কাছে দোয়া কর, আমিই তোমাদের দোয়া কবুল করব।’ (সুরা মুমিন : ৬০)

রমজানে দোজখের দরজাগুলো বন্ধ এবং বেহেশতের দরজাগুলো খোলা থাকে। শান্তির সুবাতাস বইতে থাকে চারদিকে, যার ফলে সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে সবার হৃদয়-মন হয় বিগলিত ও ইবাদতপ্রবণ। গোনাহ কম হয়, পুণ্যের কাজে অংশগ্রহণ বেড়ে যায়। সেইসঙ্গে আল্লাহতায়ালার করুণার বারি বর্ষণ মানুষকে বিনয়, সহানুভূতিশীল ও অহঙ্কারমুক্ত করে তোলে, যার ফলে অন্যের মঙ্গল কামনা ও সমবেদনায়ও মন আকুল হয়ে যায়, কায়মনে দোয়ার উচ্চারণ মুখ দিয়ে বেরিয়ে আসে। তার এ দোয়া আল্লাহতায়ালা ব্যর্থ মনোরথে ফেরত দেন না। কারণ রমজানের পুরো সময়েই রহমতের আবহ বইতে থাকে। এ সময়ের তারাবি, তাহাজ্জুদ, সাহরি ছাড়াও ইফতারে দোয়া কবুল হয়।

হাদিসে তিন ব্যক্তির দোয়া কবুল হওয়ার কথা এসেছে, তার একটি হলো রোজাদারের ইফতারের আগ মুহূর্তের দোয়া। রমজানে মহানবী (সা.) বেশি বেশি আল্লাহর দরবারে দোয়া ও প্রার্থনার তাগিদ দিয়েছেন। দোয়ার মাধ্যমেই তার নৈকট্য হাসিল করা সহজ। তাই দোয়াকে শুধু আনুষ্ঠানিকতার রূপ না দিয়ে ইবাদত মনে করতে হবে। একটি হাদিসে রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, ‘আদ্দুআ-উ হুয়াল ইবাদাহ’ অর্থাত্ দোয়াই ইবাদত। এ ছাড়াও তিনি দোয়াকে সর্বোত্তম ইবাদত ও ইবাদতের সার-নির্যাস বলেছেন।

আরও বলেছেন, দোয়া হচ্ছে মুসলমানদের হাতিয়ার ও দীন ইসলামের স্তম্ভস্বরূপ এবং আসমান-জমিনের নূরময় আলো, আল্লাহর কাছে দোয়ার চেয়ে অধিক সম্মানিত কোনো কিছু নেই। আল্লাহ যখন বান্দাকে দোয়া করার অনুমতি দেন, তখন তার জন্য রহমতের দ্বার খুলে যায়। কেননা, দোয়ার কারণে কেউ ক্ষতিগ্রস্ত ও ধ্বংস হতে পারে না। এ মর্মে পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘(হে নবী!) আমার বান্দা যদি আপনার কাছে আমার সম্পর্কে জিজ্ঞেস করে তবে তাদের বলে দিন, আমি তাদের অতি কাছে। আমাকে যে ডাকে আমি তার ডাক শুনি এবং তা কবুল করি।’ (সুরা বাকারা : ১৮৬)

যখন দোয়াকারী ব্যক্তি হালাল খাবার গ্রহণ করে উপযুক্ত সময়ে দোয়ার শর্তাবলি মেনে প্রাপ্তির আশা-ভরসা, নাজাতের প্রত্যাশা ও দোজখের শাস্তির ভয় নিয়ে কায়মনোবাক্যে এবং চোখে অশ্রু ও মনে পরম আকুতিসহ দোয়া করে, তখন দোয়া কবুলের সম্ভাবনা থাকে। পক্ষান্তরে যে আল্লাহর সামনে বিনীত হতে লজ্জাবোধ করে, লোকলজ্জায় দোয়া করে না, দোয়ায় অন্যমনষ্ক ও উদাসীনতা বিরাজ করে কিংবা গর্ব ও অহঙ্কারে দোয়া-মোনাজাত এড়িয়ে যায়, তার শাস্তি প্রসঙ্গে আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেন, ‘যারা গর্ব ও অহঙ্কারে নিমজ্জিত হয়ে আমার ইবাদত করা থেকে বিমুখ থাকে, তারা সত্বরই লাঞ্ছিত ও অপমানিত হয়ে জাহান্নামে প্রবেশ করবে।’ অন্যত্র বলেছেন, তার জন্য আল্লাহর কোনো দায়দায়িত্বই নেই। ইরশাদ হয়েছে, ‘(হে নবী!) বলুন, তোমরা যদি আল্লাহকে না ডাক তোমাদের ব্যাপারে আমার প্রতিপালকের কী প্রয়োজন পড়েছে?’ (সুরা ফুরকান : ৭৭)

আম্বিয়ায়ে কেরাম (আ.) এবং আউলিয়ায়ে কেরাম (রহ.) আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কাছে বেশি বেশি দোয়া ও কান্নাকাটি করতেন। দোয়া, কান্নাকাটি ও অনুনয়-বিনয় এবং এর মাধ্যমে আল্লাহতায়ালার নৈকট্য অর্জনই ছিল তাদের প্রকৃত চাওয়া-পাওয়া। শুধু রমজানে নয়, সারা বছর তাদের দৈনন্দিন আমলি জিন্দেগিতে অজিফা, জিকর, দোয়া ও মোনাজাত রুটিন কাজ ছিল।

আমাদেরও উচিত রমজানে দোয়া ও মোনাজাতের মাধ্যমে নিজেদের গোনাহখাতা মাফ করিয়ে নেয়া। মহানবীর (সা.) উচ্চারণ, ‘রমজানে যে ব্যক্তি নিজের গোনাহ মাফ করাতে পারে না, তার চেয়ে হতভাগ্য আর নেই।’ এ ধমকি থেকে যেন রেহাই পেয়ে যাই। দীন-দুনিয়ার তাবত্ কল্যাণে যাতে কাজ করে যেতে পারি, আল্লাহর কাছে সেই তাওফিক কামনা করছি।



Md.Yousuf Miah
Accounts Officer
Daffodil International University

111
ওজন নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন, এত কষ্ট করেন তবু কমছে না কিছুতেই?? কিংবা নিজের খাদ্যাভ্যাসের ওপরে নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারছেন? যতই ব্যায়াম করুন না কেন, যদি খাদ্যাভ্যাস নিয়ন্ত্রণ করা না যায় তাহলে কিন্তু ওজন কমবে না কিছুতেই। ওজন কমাবার সফলতা নির্ভর করে ৬০% ভাগ খাদ্যাভ্যাস নিয়ন্ত্রণের ওপরে, বাকি ৪০ ভাগ ব্যায়াম ও সঠিক জীবনযাত্রা। তবে খাদ্যাভ্যাস নিয়ন্ত্রণ মানে কিন্তু এই নয় যে না খেয়ে থাকা। বরং পরিমিত খেতে হবে ও সঠিক খাবারটি খেতে হবে।

ওজন দ্রুত বেড়ে যাওয়ার প্রধান কারণ হচ্ছে প্রয়োজনের চাইতে বেশি খেয়ে ফেলা ও সাথে নিম্ন মেটাবোলিজম হার। মেটাবোলিজম হার কম হওয়ার কারণে খাবার হতে প্রাপ্ত ক্যালোরি শরীরে মেদরূপে জমতে থাকে এবং ওজন বৃদ্ধি হয়। অনেকে দেখবেন আপনার চাইতে অনেকটাই বেশি খাচ্ছেন, কিন্তু তবু খুব হ্যাংলা পাতলা। তখন ঈর্ষা লাগে না খুব? সেটা সম্ভব হয় মূলত উচ্চ মেটাবোলিজম হারের কারণেই। আচ্ছা, যদি এমন কিছু পাওয়া যায় যাতে কিনা বৃদ্ধি পাবে মেটাবোলিজম হার আর সেই সাথে কমে যাবে বাড়তি খাবার গ্রহণের প্রবণতা? এবং বিনা শ্রমে কমবে ওজন? বেশি না, প্রতিদিন খেতে হবে মাত্র এক চামচ।

ভাবছেন সেটা কোন জিনিস?

অলিভ অয়েল! হ্যাঁ, প্রতিদিন সকালে খালিপেটে খেয়ে নিন এক চামচ এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল। যে কোনো ব্রান্ডের, যে কোনো দেশের। এই অলিভ ওয়েল বৃদ্ধি করবে আপনার মেটাবোলিজম হার, এবং সেই সাথে কমাবে বাড়তি খেয়ে ফেলার প্রবণতা।

অলিভ অয়েল হচ্ছে ৮৫% oleic acid.। হজমের সময়ে এই oleic acid. রূপান্তরিত হয় OEA (oleoylethanolamine) তে, যা কিনা একটি প্রাকৃতিক উপাদান যা হজম প্রক্রিয়া তরান্বিত করে। একই সাথে এটা হচ্ছে সেই উপাদান যা আপনার মস্তিষ্ককে এই সিগনাল দেয় যে পেট ভরে গিয়েছে, আর খাদ্য গ্রহণের প্রয়োজন নেই। দিনের শুরুতে এক চামচ অলিভ অয়েল আপনার হজম প্রক্রিয়া যেমন তরান্বিত করবে, তেমনই খাদ্য গ্রহণের প্রবণতা নিয়ন্ত্রণ করবে। আর কিছু বুঝে ওঠার আগেই দেখবেন কমতে শুরু করেছে ওজন।

রোজার দিনে ইফতারির সময়ে খালিপেটে প্রয়োগ করতে পারেন এই টিপস। দিনের যে কোনো সময়েই খাওয়া সম্ভব, তবে খালি পেট হতে হবে।



Md.Yousuf Miah
Accounts Officer
Daffodil International University

112
Ramadan and Fasting / Bisbanabira of Ramadan (SM) speech
« on: July 11, 2013, 10:29:43 AM »
“হে মানুষ! নিঃসন্দেহে তোমাদের সামনে রয়েছে আল্লাহর বরকতপূর্ণ মাস। এ মাস বরকত, রহমত বা অনুগ্রহ ও ক্ষমার মাস। এ মাস মহান আল্লাহর কাছে শ্রেষ্ঠ মাস। এ মাসের দিনগুলো সবচেয়ে সেরা দিন, এর রাতগুলো শ্রেষ্ঠ রাত এবং এর ঘণ্টাগুলো শ্রেষ্ঠ ঘণ্টা। এ মাস এমন এক মাস যে মাসে তোমরা আমন্ত্রিত হয়েছ আল্লাহর মেহমান হতে তথা রোজা রাখতে ও প্রার্থনা করতে। তিনি তোমাদেরকে এ মাসের  ভেতরে সম্মানিত করেছেন। এ মাসে তোমাদের প্রতিটি নিঃশ্বাস মহান আল্লাহর গুণগান করার  বা জিকরের (সওয়াবের) সমতুল্য; এ মাসে তোমাদের ঘুম প্রার্থনার সমতুল্য, এ মাসে তোমাদের সৎকাজ এবং প্রার্থনা বা দোয়াগুলো কবুল করা হবে। তাই মহান আল্লাহর কাছে আন্তরিক ও (পাপ ও কলুষতামুক্ত) পবিত্র চিত্তে প্রার্থনা করো যে তিনি যেন তোমাদেরকে রোজা রাখার এবং কোরআন তেলাওয়াতের তৌফিক দান করেন।
 
নিঃসন্দেহে সে ব্যক্তি প্রকৃতই দুর্ভাগা বা হতভাগ্য যে রমজান মাস পেয়েও মহান আল্লাহর ক্ষমা হতে বঞ্চিত হয়। এ মাসে ক্ষুধা ও তৃষ্ণার মাধ্যমে কিয়ামত বা শেষ বিচার দিবসের ক্ষুধা ও তৃষ্ণার কথা স্মরণ কর। অভাবগ্রস্ত ও দরিদ্রদেরকে সাহায্য কর ও সদকা দাও। বয়স্ক ও বৃদ্ধদেরকে সম্মান কর এবং শিশু ও ছোটদেরকে আদর কর। (রক্তের সম্পর্কের) আত্মীয় স্বজনের সাথে সম্পর্ক ও যোগাযোগ রক্ষা কর।  তোমাদের জিহ্বাকে অন্যায্য বা অনুপযোগী কথা বলা থেকে সংযত রাখ, নিষিদ্ধ বা হারাম দৃশ্য দেখা থেকে চোখকে আবৃত রাখ, যেসব কথা শোনা ঠিক নয় সেসব শোনা থেকে কানকে নিবৃত রাখ। এতীমদেরকে দয়া কর যাতে তোমার সন্তানরা যদি এতীম হয় তাহলে তারাও যেন দয়া পায়।
 
গোনাহর জন্যে অনুতপ্ত হও ও তওবা কর এবং নামাজের সময় মোনাজাতের জন্যে হাত উপরে তোলো, কারণ নামাজের সময় দোয়া কবুলের শ্রেষ্ঠ সময়, এ সময় মহান আল্লাহ তাঁর বান্দাদের দিকে রহমতের দৃষ্টিতে তাকান, এ সময় কেউ তাঁর কাছে কিছু চাইলে তিনি তা দান করেন, কেউ তাঁকে ডাকলে তিনি জবাব দেন, কেউ কাকতি-মিনতি করলে তার কাকতি মিনতি তিনি গ্রহণ করেন।
 

 হে মানুষ! তোমরা তোমাদের বিবেককে নিজ কামনা-বাসনার দাসে পরিণত করেছো, আল্লাহর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করে একে মুক্ত করো। তোমাদের পিঠ গোনাহর ভারে ভারাক্রান্ত হয়ে আছে, তাই সেজদাগুলোকে দীর্ঘ করে পিঠকে হালকা করো। জেনে রাখ মহান আল্লাহ নিজ সম্মানের শপথ করে বলেছেন, রমজান মাসে নামাজ আদায়কারী ও সেজদাকারীদেরকে জবাবদিহিতার জন্য পাকড়াও করবেন না না এবং কিয়ামতের দিন তাদেরকে দোযখের আগুন থেকে রক্ষা করবেন।
 

হে মানুষেরা! তোমাদের মধ্যে কেউ যদি কোনো মুমিনের জন্য ইফতারের (দিনের রোজা শেষে যে খাদ্য গ্রহণ করা হয়)  আয়োজন করে তাহলে আল্লাহ তাকে একজন গোলামকে মুক্ত করার সওয়াব বা পুণ্য দান করবেন এবং তার অতীতের সব গোনাহ মাফ করবেন। বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ (সা.)'র সাহাবিরা প্রশ্ন করলেন: কিন্তু আমাদের মধ্যে সবাই অন্যদেরকে ইফতার  দেয়ার সামর্থ্য রাখেন না।
 

বিশ্বনবী (সা.) বললেন: তোমরা নিজেদেরকে দোযখের আগুন থেকে রক্ষা কর, যদিও তা সম্ভব হয় একটি মাত্র খুরমার অর্ধেক অংশ কিংবা তাও যদি না থাকে তাহলে সামান্য পানি অন্য রোজাদারকে ইফতার হিসেবে আপ্যায়নের মাধ্যমে।
 

হে মানুষেরা! যে কেউ এই মাসে সত আচরণের চর্চা করবে তথা নিজেকে সুন্দর আচরণকারী হিসেবে গড়ে তুলবে সে পুলসিরাত পার হওয়ার সৌভাগ্য অর্জন করবে সেই বিশেষ দিনটিতে তথা কিয়ামতের দিন যেদিন পাগুলো পিছলে যেতে চাইবে। (পুলসিরাত হল এমন এক সেতু যা দোযখের প্রান্ত বা ওপর দিয়ে বেহেশতের সঙ্গে যুক্ত)  যে কেউ এই মাসে তার অধীনস্থ কর্মীদের কাজের বোঝা কমিয়ে দেবে আল্লাহ পরকালে তার হিসাব-নিকাশ সহজ করবেন এবং যে কেউ এই মাসে অন্যকে বিরক্ত করবে না মহান আল্লাহ তাকে কিয়ামত বা বিচার-দিবসের দিন নিজের ক্রোধ থেকে নিরাপদ রাখবেন। যে কেউ  কোনো রমজান মাসে  কোনো এক এতীমকে সম্মান করবে ও তার সঙ্গে দয়ার্দ্র আচরণ করবে মহান আল্লাহও বিচার-দিবসে তার প্রতি দয়ার দৃষ্টি দেবেন। যে এই মাসে নিজের আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে ভালো আচরণ করবে, মহান আল্লাহও বিচার-দিবসে তার প্রতি দয়া করবেন, আর যে এই মাসে আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে খারাপ আচরণ করবে আল্লাহও তাকে নিজ দয়া বা রহমত থেকে দূরে রাখবেন।
 

যে রমজান মাসে  (এ মাসের জন্য) নির্দেশিত বা নির্দিষ্ট ইবাদতগুলো করবে আল্লাহ তাকে  দোযখের আগুন থেকে রক্ষা করবেন। যে এই মাসে ফরজ বা অবশ্য পালনীয়  ইবাদত বা দায়িত্বগুলো পালন করবে তাকে অন্য মাসে ওই একই কাজের পুরস্কারের চেয়ে সাতগুণ বেশি পুরস্কার দেয়া হবে। যে রমজান মাসে আমার ওপর সালাওয়াত বা দরুদ পাঠাবে আল্লাহ বিচার দিবসে তার ভাল কাজের পাল্লা ভারী করে দেবেন, অথচ অন্যদের পাল্লা হাল্কা থাকবে।
 

যে এই মাসে পবিত্র কুরআনের মাত্র এক আয়াত তিলাওয়াত করবে আল্লাহ তাকে  এর বিনিময়ে এত সওয়াব দেবেন যে তা অন্য মাসে পুরো কুরআন তিলাওয়াতের সমান হবে।
 
হে মানুষেরা! বেহেশতের দরজাগুলো এই মাসে তোমাদের জন্য খোলা থাকবে। আল্লাহর কাছে এমনভাবে প্রার্থনা কর যাতে তা তোমার জন্য বন্ধ হয়ে না যায়। রমজান মাসে দোযখ বা নরকের দরজাগুলো বন্ধ রয়েছে, আল্লাহর সমীপে এমনভাবে প্রার্থনা কর যাতে তা তোমার জন্য কখনও খুলে না যায়। এই মাসে শয়তানগুলোকে হাতকড়া পরিয়ে বন্দী রাখা হয়েছে, আল্লাহর কাছে এমনভাবে প্রার্থনা কর যাতে তারা তোমাদের ওপর কর্তৃত্ব করতে না পারে।"
 
 
 এ পর্যায়ে আমীরুল মুমিনিন হযরত আলী (আ.)বললেন : আমি প্রশ্ন করলাম, " হে আল্লাহর রাসূল, এই মাসে সবচেয়ে ভাল আমল বা কাজ কী?"
তিনি জবাবে বললেন, " হে আবুল হাসান, এই মাসে সবচেয়ে ভাল আমল বা কাজ হল আল্লাহ যা যা নিষিদ্ধ বা হারাম করেছেন তা থেকে দূরে থাকা।"
 
 
 এরপর আমীরুল মুমিনিন হযরত আলী (আ.)প্রশ্ন করলেন: " হে আল্লাহর রাসূল, আপনি কেন কাঁদছেন? এর জবাবে বিশ্বনবী (সা.) বহু বছর পর রমজান মাসে হযরত আলী (আ.)'র মর্মান্তিক শাহাদতের ভবিষ্যদ্বাণীর কথা উল্লেখ করলেন। রাসূল (সা.) বললেন, "হে আলী, এই মাসে তোমার ওপর যা আপতিত হবে তার জন্য আমি কাঁদছি। (আমি নিজেকে কল্পনা করছি) তোমার স্থানে যখন তুমি আল্লাহর সমীপে প্রার্থনা করছ এবং সামুদ জাতির কাছে পাঠানো (খোদায়ী) উটের পা (উটটি ছিল হযরত সালেহ -আ. 'র নবুওতি মিশনের সপক্ষে খোদায়ী মোজেজা) কর্তনকারী লোকটির মতই মানব ইতিহাসের সবচেয়ে নিকৃষ্ট ব্যক্তিটি তোমার মাথার ওপর আঘাত হানবে এবং তোমার দাড়ি তাতে (রক্তে) রঞ্জিত হবে।"
 
 নিজের শাহাদতের ভবিষ্যদ্বাণীর কথা শুনে সব কিছুর আগে আমীরুল মুমিনিন হযরত আলী (আ.)'র মনে যে চিন্তাটির উদয় হয়েছিল তা এই বস্তু-জগত সম্পর্কিত ছিল না, বরং তা ছিল নিজের ঈমান সম্পর্কিত। তাই তিনি প্রশ্ন করলেন: " হে আল্লাহর রাসূল, সে সময় কী আমার ঈমান নিরাপদ থাকবে? (অর্থাত আমি কী ঈমানের ওপর অবিচল থাকব?)" রাসূল (সা.) বললেন: " হ্যাঁ, সে সময় তোমার ঈমান নিরাপদ থাকবে।"
 
বিশ্বনবী (সা.) আরো বলতে লাগলেন, আর তাঁর সাহাবিরা শুনছিলেন বিস্মিত হয়ে।
 
 রাসূল (সা.) বললেন: " হে আলী, যে তোমাকে হত্যা করে সে (বাস্তবে) আমাকে হত্যা করল, যে তোমাকে বিরক্ত করে সে আমাকে বিরক্ত করল এবং যে তোমার অবমাননা করল সে আমার অবমাননা করল, কারণ তুমি আমার আত্মা বা প্রাণের সমতুল্য। তোমার ও আমার মানসিকতা এবং স্বভাব অভিন্ন। নিঃসন্দেহে প্রশংসিত ও গৌরবান্বিত আল্লাহ প্রথমে আমাকে সৃষ্টি করেছেন এবং এরপর সৃষ্টি করেছেন তোমাকে, তিনি প্রথমে বেছে নিয়েছেন আমাকে এবং এরপর বেছে নিয়েছেন তোমাকে। আল্লাহ আমাকে নবুওতের জন্য মনোনীত করেছেন, আর তোমাকে মনোনীত করেছেন ইমামতের জন্য। আর যে তোমার ইমামতকে অস্বীকার করবে সে (কার্যত) আমার নবুওতকে প্রত্যাখ্যান করল। হে আলী, তুমি আমার উত্তরাধিকারী এবং আমার সন্তানদের (নাতী-নাতনীর) পিতা এবং আমার কন্যার স্বামী এবং আমার উম্মতের জন্য আমার জীবদ্দশায় ও আমার মৃত্যুর পর আমার প্রতিনিধি বা খলিফা। তোমার নির্দেশ হল আমারই নির্দেশ এবং তোমার নিষেধাজ্ঞা হল আমারই নিষেধাজ্ঞা। সেই শক্তির শপথ করে বলছি যেই শক্তি আমাকে নবুওত দান করেছেন এবং আমাকে শ্রেষ্ঠ সৃষ্টি হিসেবে তৈরি করেছেন, তুমি হচ্ছ সৃষ্টিকুলের জন্য হুজ্জাতুল্লাহ বা আল্লাহর নিদর্শন এবং তাঁর রহস্যগুলোর আমানতদার বা ট্রাস্টি ও সৃষ্টিকুলের ওপর আল্লাহর খলিফা।"
 
 
 (সূত্র: এই বিখ্যাত ও পবিত্র হাদিসটি বর্ণনা করেছেন বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মাদ-সা.'র পবিত্র আহলে বাইতের সদস্য ও অষ্টম ইমাম হযরত ইমাম রেজা-আ.। হাদিসটির বর্ণনাকারীদের ধারাবাহিকতা সূচিত হয়েছে আমিরুল মুমিনিন হযরত আলী –আ.'র মাধ্যমে যিনি সরাসরি রাসূল-সা.'র এই ভাষণ শুনেছিলেন। ভাষণটি বিশ্বনবী-সা. দিয়েছিলেন কোনো এক শাবান মাসের শেষ শুক্রবারে)





Md.Yousuf Miah
Accounts Officer
Daffodil International University

113
Ramadan and Fasting / Iftar: rojadarera Award
« on: July 10, 2013, 11:07:49 AM »
সারাদিন উপোস থাকার পর ইফতার আনন্দের একটি মুহূর্ত। ইফতারের মাধ্যমে রোজার পূর্ণতা আসে। এ সময়টি আল্লাহ মুমিনের পুরস্কারের জন্য নির্ধারণ করেছেন। নানা ধরনের খাবার সামনে পড়ে থাকা সত্ত্বেও আল্লাহর বিধান না থাকায় খাচ্ছে না-এটা আল্লাহর কাছে খুবই পছন্দের। রাসুল সা. বলেছেন, রোজাদারের খুশির মুহূর্ত দুটি :

এক. ইফতারের মুহূর্ত,
দুই. তাকে যেদিন জান্নাতে স্বাগত জানানো হবে।
 
বান্দা যখন ইফতার সামনে নিয়ে বসে থাকে, আল্লাহ তখন ফেরেশতাদের কাছে গর্ব করেন। ইফতারের সময় দোয়া করলে তা কবুল হওয়ার বিশেষ সম্ভাবনা থাকে। ইফতারের কোনো দোয়া বৃথা যায় না। হাদিসে আছে, রাসুল সা. বলেছেন, ‘‘আল্লাহ তায়ালা রমজান মাসে প্রতিদিন ইফতারের সময় দশ লাখ লোককে জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেন।’’
 
ইফতারের সময় এ দোয়াটি পড়ার কথা হাদিসে আছে : ‘আল্লাহুম্মা লাকা সুমতু ওয়া আলা রিজকিকা আফতারতু।’ ‘হে আল্লাহ! আমি তোমার জন্যই রোজা রেখেছিলাম এবং তোমার রিজিক দ্বারাই ইফতার করলাম।’
 
রোজাদারকে ইফতার করানোর মধ্যেও বিশেষ সওয়াব রয়েছে। রাসুল সা. বলেছেন, ‘‘যিনি কোনো রোজাদারকে ইফতার করাবেন, তা তার অপরাধ ক্ষমা এবং জাহান্নাম থেকে মুক্তির কারণ হবে। তিনি রোজাদারের সমান সওয়াব পাবেন।’’ তবে রোজাদারের সওয়াব থেকে সামান্যও কমানো হবে না। সামান্য খেজুর বা পানি দিয়ে ইফতার করালেও পুরো সওয়াব পেয়ে যাবে।
 
সময় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ইফতার করে নেয়া সুন্নত। অযথা ইফতারে দেরি করতে নেই। তবে সূর্যাস্থের বিষয়টি অবশ্যই নিশ্চিত হয়ে নিতে হবে। কেউ যদি সময় হয়ে গেছে মনে করে সময়ের আগেই খেয়ে ফেলে তার রোজা ভেঙে যাবে। তাকে এ রোজার কাজা করতে হবে।
 
ইফতারের মুহূর্তে অযথা গল্প-গুজবে লিপ্ত না হওয়াই ভালো। এ সময় মনে মনে জিকির ও তওবা করা উচিত। অনেকে এক সঙ্গে ইফতার করলে সম্মিলিতভাবে দোয়াও করা যেতে পারে।





Md.Yousuf Miah
Accounts Officer
Daffodil International University

114
Ramadan and Fasting / Seheri eat circumcision
« on: July 10, 2013, 10:58:37 AM »
রোজার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অন্যতম আমল সেহেরি। রোজার নিয়তে সেহেরি খাওয়া সুন্নত। রাসুল সা. বলেছেন, “সেহেরি খাও, তাতে বরকত আছে।’’ সেহেরি পেট ভরে খাওয়া জরুরি নয়। সামান্য খেলেও সেহেরির সুন্নত আদায় হয়ে যাবে। শেষ সময়ে সেহেরি খাওয়া মুস্তাহাব। তবে লক্ষ রাখতে হবে, সময় যেন পার না হয়ে যায়।
 
ইহুদি-খৃস্টানদের রোজায় সেহেরির বিধান ছিল না। ইসলামের প্রথম যুগেও সেহেরি ছাড়াই রোজা রাখা হতো। পরবর্তী সময়ে রাসুল সা. সেহেরি খাওয়ার বিধান নির্ধারণ করেছেন। তিনি বলেন, ‘‘আমাদের রোজা ও আহলে কিতাবদের (ইহুদি-খৃস্টান) রোজার মধ্যে পার্থক্য হলো সেহেরি খাওয়া।’’
 
সেহেরি সুবহে সাদিকের আগেই খেতে হয়। এরপর কিছু খেলে রোজা হবে না। অনেকে মনে করেন, ফজরের আজান পর্যন্ত সেহেরির সময় থাকে। এটা ঠিক নয়। কেউ যদি সেহেরির সময় আছে মনে করে খেয়ে ফেলে আর বাস্তবে সময় না থাকে তাহলে তাকে রোজা কাজা করতে হবে।
 
সেহেরির সময়টি আল্লাহর রহমত ও বরকত লাভের বিশেষ সময়। এ সময়ের ইবাদত-বন্দেগি আল্লাহর কাছে কবুল হয় বেশি। সম্ভব হলে সেহেরির সময় কয়েক রাকাত তাহাজ্জুদ নামাজ আদায় করে নেয়ার কথা হাদিসে আছে। সেহেরি খাওয়ার আগে-পরে সময়টুকু ইবাদতে কাটানো উচিত।





Md.Yousuf Miah
Accounts Officer
Daffodil International University

115
Ramadan and Fasting / Ramadan: Some masayala
« on: July 10, 2013, 10:54:19 AM »
রোজা ইসলামের অন্যতম ফরজ বিধান। এর পালনে কিছু বিধি-বিধান রয়েছে। প্রত্যেক রোজাদারের জন্য এগুলো জানা থাকা অপরিহার্য:

রোজা ভেঙে যায় ও কাজা-কাফফারা ওয়াজিব হয় যে কারণে
১. ইচ্ছাকৃত কিছু খেলে বা পান করলে
২. স্ত্রী সহবাস করলে
৩. কোনো বৈধ কাজ করার পর রোজা ভেঙে গেছে মনে করে ইচ্ছাকৃত খেলে।

রোজা ভেঙে যায় ও কাজা ওয়াজিব হয় যে কারণে
১. কানে বা নাকে ওষুধ ঢুকালে।
২. ইচ্ছা করে মুখ ভরে বমি করলে অথবা অল্প বমি আসার পর তা গিলে ফেললে।
৩. কুলি করার সময় অনিচ্ছাকৃত গলার ভেতরে পানি চলে গেলে।
৪. কামভাবে কাউকে স্পর্শ করার পর বীর্যপাত হলে।
৫. খাদ্য না এমন বস্তু খেলে, যেমন : কাঠ, কয়লা, লোহা ইত্যাদি।
৬. ধূমপান করলে।
৭. আগরবাতি ইত্যাদির ধোঁয়া ইচ্ছা করে নাকে ঢুকালে।
৮. সময় আছে মনে করে সুবহে সাদিকের পর সেহেরি খেলে।
৯. ইফতারের সময় হয়ে গেছে মনে করে সময়ের আগেই ইফতার করে ফেললে।
১০. দাঁত দিয়ে বেশি পরিমাণ রক্ত বেরিয়ে তা ভেতরে চলে গেলে।
১১. জোর করে কেউ রোজাদারের গলার ভেতরে কিছু ঢুকিয়ে দিলে।
১২. হস্তমৈথুন দ্বারা বীর্যপাত ঘটালে।
১৩. মুখে পান রেখে ঘুমালে এবং সে অবস্থায় সেহেরির সময় চলে গেলে।
১৪. রোজার নিয়ত না করলে।
১৫. কানের ভেতরে তেল ঢুকালে।
১৬. এক দেশে রোজা শুরু হওয়ার পর অন্য দেশে চলে গেলে।
 
যেসব কারণে রোজা মাকরুহ হয়
১. বিনা প্রয়োজনে কোনো কিছু চিবালে।
২. তরকারির লবণ টেস্ট করে ফেলে দিলে।
৩. মাজন, কয়লা, গুল বা পেস্ট দিয়ে দাঁত মাজলে। (তবে সামান্য ভেতরে  গেলেও রোজা ভেঙে যাবে)
৪. রাতে ফরজ হওয়া গোসলসহ সারাদিন অতিবাহিত করলে।
৫. রোজা অবস্থায় রক্তদান করলে।
৬. পরনিন্দা, কুৎসা, অনর্থক কথা ও মিথ্যা বললে।
৭. ঝগড়া, ফাসাদ ও গালমন্দ করলে।
৮. ক্ষুধা ও পিপাসার কারণে অস্থিরতা প্রকাশ করলে।
৯.  মুখে থুথু জমা করে গিলে ফেললে।
১০. স্ত্রীকে কামভাবের সঙ্গে স্পর্শ করলে।
১১. মুখে কিছু চিবিয়ে শিশুকে খাওয়ালে।
১২. লিপস্টিক লাগালে (যদি তা ভেতরে যাওয়ার আশঙ্কা থাকে।)
১৩. বুটের কণার চেয়ে ছোট কিছু দাঁতের ফাঁক থেকে বের করে গিলে ফেললে।

যেসব কারণে রোজা ভাঙে না
১. ভুলে কিছু খেলে বা পান করলে।
২. অনিচ্ছাকৃত বমি করলে।
৩. রোজা অবস্থায় স্বপ্নদোষ হলে।
৪. অসুস্থতাজনিত কারণে বীর্যপাত হলে।
৫. স্বামী-স্ত্রী চুম্বন ও আলিঙ্গন করলে।




Md.Yousuf Miah
Accounts Officer
Daffodil International University

116
Fruit / Plum nutrient
« on: July 08, 2013, 12:11:28 PM »
বাংলাদেশে বহুল প্রচলিত এবং জনপ্রিয় একটি ফল হচ্ছে আমড়া। এই ফলটি তার সহজলভ্যতা ও কচমচে স্বাদের জন্য খুব সহজেই সকলের মনে স্থান করে নিতে পেরেছে। বর্ষাকাল হচ্ছে আমড়া ফলের শ্রেষ্ঠ সময়। কারণ এ সময়েই এই ফল বাজারে আসা শুরু করে। সাধারণ ফল বিক্রেতাদের কাছে তো বটেই, ভ্রাম্যমাণ ফল ও আচার বিক্রেতাদের কাছেও মেলে এই ফল।

পরিপক্ব কিন্তু কাঁচা আমড়াই ফল হিসেবে সবাই বেশি ভালোবাসে। কারণ পেকে গেলে এর কচকচে ভাবটা কমে যায়। আমড়া লবণ-মরিচের গুঁড়ো দিয়ে মেখে খেতে খুবই চমত্‍কার লাগে। আমড়া ফল হিসেবে তো বটেই আচার বানিয়েও খাওয়া যায়। এছাড়াও আমড়া দিয়ে চাটনি, ভর্তা, তরকারি ইত্যাদিও তৈরি করা হয়। আসুন জেনে নিই প্রতি ১০০ গ্রাম আমড়ার পুষ্টিগুণ :

খাদ্যশক্তি- ৪৬ কিলোক্যালরি

আমিষ- ০.২ গ্রাম

চর্বি- ০.১ গ্রাম

শর্করা- ১২.৪ গ্রাম

ক্যালসিয়াম- ৫৬ মিলিগ্রাম

ফসফরাস- ৬৭ মিলিগ্রাম

আয়রন- ০.৩ মিলিগ্রাম

ক্যারোটিন- ২০৫ আইইউ

থায়ামিন- ০.০৫ মিলিগ্রাম

রিবোফ্লেভিন- ০.০২ মিলিগ্রাম

ভিটামিন সি- ৩৬ মিলিগ্রাম

উপকারিতা:

প্রয়োজনীয় খাদ্য উপাদানে সমৃদ্ধ আমড়া আমাদের শরীরের বিভিন্ন উপকার সাধন করে। যেমন -



আমড়া রক্তে ক্ষতিকর কোলেস্টেরলের মাত্রা কমায়। স্ট্রোক ও হৃদরোধ প্রতিরোধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।


আমড়াতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি ও ক্যালসিয়াম। মাঢ়ি ও দাঁতের বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধে আমড়া সাহায্য করে।


এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে আঁশ, যা বদহজম ও কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধে সাহায্য করে।


খিঁচুনি, পিত্ত ও কফ নাশক হিসেবে আমড়ার ব্যবহার রয়েছে।


এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা ক্যান্সারসহ বিভিন্ন রোগ প্রতিরোধে সহায়তা করে।


অরুচি ও শরীরের অতিরিক্ত উত্তাপকে নিষ্কাশনে সাহায্য করে আমড়া।


ত্বক, নখ ও চুল সুন্দর রাখে আমড়ার গুণাগুণ। ত্বকের নানা রোগও প্রতিরোধ করে।
[


Md.Yousuf Miah
Accounts Officer
Daffodil International University

117
Fruit / The unique taste and quality of guava
« on: July 08, 2013, 12:05:17 PM »
পেয়ারা, আমাদের অতি পরিচিত একটি ফল। গ্রীষ্মের শেষ থেকে শুরু করে পুরো বর্ষাকাল জুড়ে এই ফল দেখা যায় পুরো নগরজুড়ে। ফলের দোকানে দোকানে তো বটেই, রাস্তার ধারে ফুটপাতেও পেয়ারা নিয়ে বসে যান বিক্রেতারা।

আমাদের দেশে পেয়ারার প্রজাতি খুব বেশি না থাকলেও বিশ্বে প্রায় এর ১০০টিরও বেশি প্রজাতি রয়েছে। তাই গুণী ফল হিসেবে পেয়ার স্বীকৃতি রয়েছে বিশ্বজুড়ে। কারণ এতে রয়েছে কমলার চেয়ে চার গুণ বেশি ভিটামিন সি। পেয়ারার খোসায় রয়েছে আরো বেশি ভিটামিন সি, কমলার চেয়ে পাঁচ গুণ বেশি!

বাংলাদেশে বিভিন্ন প্রজাতির পেয়ারা চাষ করা হয়। যেমন কাজী পেয়ারা, বাউ পেয়ারা, বারি পেয়ারা, পলি পেয়ারা, আঙুর পেয়ারা ইত্যাদি।

পেয়ারা সহজলভ্য বলে অনেকেই একে পাত্তা দিতে চান না। কিন্তু পেয়ারা মোটেও ফেলনা ফল নয়। পুষ্টিগুণের কথা বিচার করলে পেয়ারা বিশ্বের সেরা ফলগুলোর মধ্যে একটি। পেয়ারার খাদ্যযোগ্য ১০০ প্রতি গ্রাম অংশে রয়েছে -

খাদ্যশক্তি- ৬৮ কিলোক্যালরি

শর্করা- ১৪.৩২ গ্রাম

চিনি- ৮.৯২ গ্রাম

খাদ্যআঁশ- ৫.৪ গ্রাম

চর্বি- ০.৯৫ গ্রাম

আমিষ- ২.৫৫ গ্রাম

ভিটামিন এ- ৩১ আইইউ

বিটা ক্যারোটিন- ৩৭৪ আইইউ

থায়ামিন- ০.০৬৭ মিলিগ্রাম

রিবোফ্লেভিন- ০.০৪ মিলিগ্রাম

প্যানটোথেনিক অ্যাসিড- ০.৪৫১ মিলিগ্রাম

নিয়াসিন- ১.০৮৪ মিলিগ্রাম

ভিটামিন বি৬- ০.১১ মিলিগ্রাম

ফোলেট- ৪৯ আইইউ

ভিটামিন সি- ২২৮.৩ মিলিগ্রাম

ভিটামিন কে- ২.২ মিলিগ্রাম

ক্যালসিয়াম- ১৮ মিলিগ্রাম

আয়রন- ০.২৬ মিলিগ্রাম

ম্যাগনেসিয়াম- ২২ মিলিগ্রাম

ম্যাংগানিজ- ০.১৫ মিলিগ্রাম

ফসফরাস- ৪০ মিলিগ্রাম

পটাশিয়াম- ৪১৭ মিলিগ্রাম

সোডিয়াম- ২ মিলিগ্রাম

জিংক- ০.২৩ মিলিগ্রাম

লাইকোপেন- ৫২০৪ আইইউ

পেয়ারা ফল হিসেবে খাওয়া তো হয়ই, তৈরি করা হয় নানান খাবারও। পেয়ারায় প্রচুর পেকটিন থাকায় পেয়ারা দিয়ে চমত্‍কার জ্যাম, জেলী, চাটনি ইত্যাদি তৈরি করা যায়। পেয়ারার জুস ক্যারিবীয় অঞ্চল ও হাওয়াইতে খুবই জনপ্রিয়।



পেয়ারার পুষ্টিগুণের পাশাপাশি রয়েছে ভেষজগুণও। যেমন শ্বাসকষ্ট, অ্যাজমা, ঠান্ডাজনিত হাঁচি-কাশি প্রতিরোধে পেয়ারা খুবই উপকারী। এছাড়া খিঁচুনি ও এপিলেপসি প্রতিকারে পেয়ারা সহায়তা করে।


কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে ও মুখের রুচি বাড়াতে পেয়ারা খুবই উপকারী।


পেয়ারায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, লাইকোপেন ও খাদ্যআঁশ, যা ব্রেস্ট ক্যান্সার প্রতিরোধে সাহায্য করে।


দাঁতের ব্যথায় পেয়ারার পাতা চিবুলে ব্যথা কমে যায়। এছাড়া ক্ষতে পেয়ারা পাতা পিষে প্রলেপ দিলে ক্ষত সেরে যায়।


গাছের বাকল ও শেকড় আমাশয় ও কলেরার ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করা হয়।


দাঁতের ব্যথা, মুখের ঘা সারাতে পেয়ারা খুবই কার্যকর। স্কার্ভি রোগ প্রতিরোধেও পেয়ারা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।




Md.Yousuf Miah
Accounts Officer
Daffodil International University

118
Namaj/Salat / Zooma, the day phayilata
« on: July 06, 2013, 01:15:15 PM »
প্রত্যেক ধর্মেই সপ্তাহে একটি দিনকে পবিত্র দিন ঘোষণা করে সেদিন বিশেষ প্রার্থনার ব্যবস্থা করা হয়ে থাকে। মুসলমানদের জন্য সপ্তাহের এমন দিনটি হল শুক্রবার বা জুম`আর দিন। হাদীস শরীফে এই দিনের বহু ফযিলত ও মর্তবা বর্ণনা করা হয়েছে।

 

জুম’আর নামাজের ফযীলত ও তা আদায়কারীদের জন্য ঘোষিত পুরষ্কার-

১। কুরবানী করার সমান সওয়াব অর্জিত হয়ঃ

জুমার দিনে আগে ভাগে মসজিদে গেলে দান-খয়রাত বা পশু কুরবানী করার সমতুল্য সওয়াব পাওয়া যায়। আবু হুরায়রা (রাঃ) বর্ণিত এক হাদীসে রাসুল (সাঃ) বলেছেন,

“যে ব্যাক্তি জু’আর দিন ফরজ গোসলের মত গোসল করে প্রথম দিকে মসজিদে হাজির হয়, সে যেন একটি উট কুরবানী করল, দ্বিতীয় সময়ে যে ব্যাক্তি মসজিদে প্রবেশ করে সে যেন একটি গরু কুরবানী করল, তৃতীয় সময়ে যে ব্যাক্তি মসজিদে প্রবেশ করল সে যেন একটি ছাগল কুরবানী করল। অতঃপর চতুর্থ সময়ে যে ব্যাক্তি মসজিদে গেল সে যেন একটি মুরগী কুরবানী করল। আর পঞ্চম সময়ে যে ব্যাক্তি মসজিদে প্রবেশ করল সে যেন একটি ডিম কুরবানী করল। অতঃপর ইমাম যখন বেরিয়ে এসে মিম্বরে বসে গেলেন খুৎবার জন্য, তখন ফেরেশতারা লেখা বন্ধ করে খুৎবা শুনতে বসে যায়।” (বুখারীঃ ৮৮১, ইফা ৮৩৭, আধুনিক ৮৩০)

২। মসজিদের দরজায় দাঁড়িয়ে ফেরেশতারা অগ্রগামীদের নাম তালিকাভুক্ত করেনঃ

জুম’আর সালাতে কারা অগ্রগামী, ফেরেশতারা এর তালিকা তৈরি করে থাকেন। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন,

“জুম’আর দিন মসজিদের দরজায় ফেরেশতা এসে হাজির হয়। সেখানে দাঁড়িয়ে তারা সর্বাগ্রে আগমনকারীদের নাম লিখতে থাকে। প্রথম ভাগে যারা মসজিদে ঢুকেন তাদের জন্য উট, দ্বিতীয়বারে যারা আসেন তাদের জন্য গরু, তৃতীয়বারে যারা আসেন তাদের জন্য ছাগল, চতুর্থবারে যারা আসেন তাদের জন্য মুরগী, ও সর্বশেষ পঞ্চমবারে যারা আগমন করেন তাদের জন্য ডিম কুরবানী বা দান করার সমান সওাব্ব লিখে থাকেন। আর যখন ইমাম খুৎবা দেওয়ার জন্য মিম্বরে উঠে পড়েন ফেরেশতারা তাদের এ খাতা বন্ধ করে খুৎবা শুনতে বসে যান।” (বুখারী ৯২৯, ইফা ৮৮২, আধুনিক ৮৭৬)

৩। দশ দিনের গুনাহ মাফ হয়ঃ

জুম’আর দিনের আদব যারা রক্ষা করে তাদের দশ দিনের গুনাহ মাফ করে দেওয়া হয়। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন,

‘যে ব্যাক্তি ভালভাবে পবিত্র হল অতঃপর মসজিদে এলো, মনোযোগ দিয়ে খুৎবা শুনতে চুপচাপ বসে রইল, তার জন্য দুই জুম’আর মধ্যবর্তী এ সাত দিনের সাথে আরও তিনদিন যোগ করে মোট দশ দিনের গুনাহ মাফ করে দেওয়া হয়। পক্ষান্তরে খুৎবার সময় যে ব্যক্তি পাথর, নুড়িকণা বা অন্য কিছু নাড়াচাড়া করল সে যেন অনর্থক কাজ করল।’ (মুসলিমঃ ৮৫৭)

৪। জুম’আর আদব রক্ষাকারীর দশ দিনের গুনাহ মুছে যায়ঃ

রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন,

“জুম’আর সালাতে তিন ধরনের লোক হাজির হয়। (ক) এক ধরনের লোক আছে যারা মসজিদে প্রবেশের পর তামাশা করে, তারা বিনিময়ে তামাশা ছাড়া কিছুই পাবে না। (খ) দ্বিতীয় আরেক ধরনের লোক আছে যারা জুম’আয় হাজির হয় সেখানে দু’আ মুনাজাত করে, ফলে আল্লাহ যাকে চান তাকে কিছু দেন আর যাকে ইচ্ছা দেন না। (গ) তৃতীয় প্রকার লোক হল যারা জুম’আয় হাজির হয়, চুপচাপ থাকে, মনোযোগ দিয়ে খুৎবা শোনে, কারও ঘাড় ডিঙ্গিয়ে সামনে আগায় না, কাউকে কষ্ট দেয় না, তার দুই জুম’আর মধ্যবর্তী ৭ দিন সহ আরও তিনদিন যোগ করে মোট দশ দিনের গুনাহ খাতা আল্লাহ তায়ালা মাফ করে দেন।” (আবু দাউদঃ ১১১৩)

৫। প্রতি পদক্ষেপে এক বছরের নফল রোজা ও এক বছরের সারারাত তাহাজ্জুদ পড়ার সওয়াব অর্জিত হয়ঃ

যে ব্যাক্তি আদব রক্ষা করে জুম’আর সালাত আদায় করে তার প্রতিটি পদক্ষেপের বিনিময়ে তার জন্য পুরো এক বছরের রোজা পালন এবং রাত জেগে তাহাজ্জুদ পড়ার সওয়াব লিখা হয়।

আউস বিন আউস আস সাকাফী (রাঃ) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন,

“জুমা’আর দিন যে ব্যাক্তি গোসল করায় (অর্থাৎ সহবাস করে, ফলে স্ত্রী ফরজ গোসল করে এবং) নিজেও ফরজ গোসল করে, পূর্বাহ্ণে মসজিদে আগমন করে এবং নিজেও প্রথম ভাগে মসজিদে গমন করে, পায়ে হেঁটে মসজিদে যায় (অর্থাৎ কোন কিছুতে আরোহণ করে নয়), ইমামের কাছাকাছি গিয়ে বসে, মনোযোগ দিয়ে খুৎবা শোনে, কোন কিছু নিয়ে খেল তামাশা করে না; সে ব্যাক্তির প্রতিটি পদক্ষেপের জন্য রয়েছে বছরব্যাপী রোজা পালন ও সারা বছর রাত জেগে ইবাদত করার সমতুল্য সওয়াব।” (মুসনাদে আহমাদঃ ৬৯৫৪, ১৬২১৮)

৬। দুই জুম’আর মধ্যবর্তী সময়ের গুনাহের কাফফারাঃ

জুম’আর সালাত জুম’আ আদায়কারীদের জন্য দুই জুম’আর মধ্যবর্তী গুনাহের কাফফারা স্বরূপ। রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন,

“পাঁচ বেলা সালাত আদায়, এক জুম’আ থেকে পরবর্তী জুম’আ, এক রমজান থেকে পরবর্তী রমজানের মধ্যবর্তী সময়ে হয়ে যাওয়া সকল (সগীরা) গুনাহের কাফফারা স্বরূপ, এই শর্তে যে, বান্দা কবীরা গুনাহ থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে রাখবে।” (মুসলিমঃ ২৩৩)




Md.Yousuf Miah
Accounts Officer
Daffodil International University

119
Ramadan and Fasting / Call of Ummah Ramadan
« on: July 06, 2013, 12:21:25 PM »
চন্দ্রবর্ষের নবম মাস রমজান। এ মাসে পশ্চিম দিগন্তে উদিত এক ফালি চাঁদ মুসলিম উম্মাহর জন্য নিয়ে আসে রহমত, মাগফেরাত ও নাজাতের অমিয় বার্তা। বছরে পশ্চিশ আকাশে এ ধরনের বারোটি উদয় ঘটে। কিন্তু অন্যান্য উদয়ের মধ্যে উম্মাহর জন্য তেমন কোনো বার্তা বহন করে না। থাকে না মুক্তির কোনো পয়গাম। এ জন্য রমজানের বাঁকা চাঁদের উদয় অন্য যে কোনো বারের উদয় থেকে একটু আলাদা। শাবানের অমাবস্যার ঘোর কাটতেই পশ্চিম আকাশে রমজানের বাঁকা চাঁদ উঁকি দেয়। মুসলিম উম্মাহর দুয়ারে দুয়ারে পৌঁছে দেয় তার অঘোষিত আহ্বান।

আল্লাহতায়ালা রমজানের চাঁদ উদয়ের মাধ্যমে মানব জাতির কাছে যে বার্তা পৌঁছে দেন তা হচ্ছে, 'হে কল্যাণের প্রতীক অগ্রসর হও, আর হে অমঙ্গলের হোতা, তুমি তোমার কুকর্মের রাস টেনে ধর।' যারা কল্যাণ চায়, মুক্তির সন্ধান চায়, তাদের জন্য রমজানে রয়েছে অবারিত সুযোগ। রমজান তাদের হাতছানি দিয়ে ডাকছে সে সুযোগ গ্রহণ করতে। এ মাসে মুমিনের প্রতিটি আমল তাদের কাক্সিক্ষত সফলতার দিকে এক ধাপ এগিয়ে দেয়। সৎ কাজে প্রতিযোগিতার মাধ্যমে তারা ভূষিত হতে পারে মহাপুরস্কারে। সে পুরস্কার হলো অফুরন্ত নেয়ামতের আধার চিরসুখের জান্নাত। যারা পাপাচারের মাধ্যমে জীবনটাকে অতিষ্ঠ করে তুলেছেন, তাদের প্রতি রমজানের আহ্বান হচ্ছে- একটু ক্ষান্ত হওয়ার। নিজের ওপর নিজের জুলুমের মাত্রা না বাড়ানোর। যারা দীর্ঘ এগারো মাস পাপাচারে লিপ্ত থেকে অন্তরটিকে কলুষিত করেছেন তারা এ মাসে স্বচ্ছতার পরশ বুলিয়ে অন্তরা�াকে নিষ্কলুষ করতে পারেন। আ�িক উৎকর্ষ সাধন করে পৌঁছে যেতে পারেন সফলতার শিখরে।

রমজানের বাঁকা চাঁদ আহ্বান জানায় রমজানের দাবি যথার্থভাবে আদায় করতে। শুধু না খেয়ে থাকাই রোজার চাহিদা নয়। এর প্রকৃত চাহিদা হচ্ছে সংযম। প্রতিটি কাজে-কর্মে, আচার-আচরণে সংযমী হতে পারলেই কেবল রমজানের হক আদায় করা সম্ভব। প্রতিটি অঙ্গ-প্রত্যঙ্গে রোজার ছাপ ফুটে উঠতে হবে। কোনো ধরনের অন্যায় তো দূরে থাক, এর কল্পনা করাও পাপ। রাসূল (সা.) বলেন, যে ব্যক্তি রোজা রেখে মিথ্যা কথা, অগোচরে নিন্দা তথা পাপ কাজ থেকে বিরত রইল না, তার রোজা অর্থহীন উপবাস ছাড়া আর কিছুই নয়। আমাদের উপোস যেন অর্থহীন না হয়, নিছক ফ্যাশন ও লোক দেখানো না হয়- সেদিকে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে হবে। রমজানের চাঁদ উদয় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের চিরশত্র� ইবলিশকে শিকলবদ্ধ করে দেওয়া হয়। সে জন্য পাপ কাজ থেকে বেঁচে থাকতে পরিবেশ অনুকূলে থাকে। রমজানে ব্যক্তিত্বের উন্নয়ন ঘটানো যেমন অপরিহার্য, তেমনি মাখলুকের প্রতি সদয় দৃষ্টি দেওয়াও কর্তব্য। বান্দা না খেয়ে থাকলে আল্লাহর বিন্দুমাত্রও স্বার্থ নেই।

এর দ্বারা তিনি তার নির্দেশ পালনে বান্দা কতটুকু আন্তরিক তা যেমন নিরূপণ করেন তেমনি বনী আদমের পারস্পরিক সুখ-দুঃখের অনুভূতি জাগানোও উদ্দেশ্য। যারা প্রাচুর্যের মধ্যে বাস করেন তারা এ মাসে দুর্গতদের দুঃখকষ্টের কথা কিছুটা অনুধাবন করতে পারেন। রমজানের আহ্বান হচ্ছে তাদের প্রতি করুণার হাত প্রসারিত করা। আল্লাহর সৃষ্টির প্রতি মমতা দেখানো। রমজান মুমিনের আমলের বসন্তকাল। মুমিনের জীবনে গতি আনাই রমজানের অন্যতম লক্ষ্য। দীর্ঘ এগারো মাসে সৃষ্ট মরীচিকা দূর করতেই রমজানের সব প্রয়াস। এ জন্য আমলি পরিবর্তন সাধন না করা গেলে রমজানের দাবি উপেক্ষিত থেকে যায়।





Md.Yousuf Miah
Accounts Officer
Daffodil International University

120
Ramadan and Fasting / Ramadan barakata way to profits
« on: July 06, 2013, 12:14:42 PM »
আসছে সপ্তাহে রোজা শুরু হবে। সর্বত্রই চলছে মাহে রমজানকে বরণ করার প্রস্তুতি। রমজান মাস বছরের বাকি এগারো মাস অপেক্ষা অধিক মর্যাদাশীল ও বরকতপূর্ণ। আল্লাহতায়ালা ইরশাদ করেন, 'রমজান মাসই হলো সে মাস যাতে নাজিল করা হয়েছে কোরআন, যা মানুষের জন্য হেদায়াত।' -সূরা বাকারা : ১৮৫
পবিত্র হাদিস শরিফে এসেছে, 'যখন রমজানের আগমন হয় তখন জান্নাতের দরজাগুলো খুলে দেওয়া হয় এবং জাহান্নামের দরজাগুলো বন্ধ করে দেওয়া হয়। আর শয়তানদের শৃ�খলবদ্ধ করা হয়।' -বুখারি
অন্য হাদিসে এসেছে, 'আল্লাহতায়ালা প্রত্যহ ইফতারের সময় অসংখ্য ব্যক্তিকে জাহান্নাম থেকে মুক্তি দিয়ে থাকেন।'- মুসনাদে আহমদ
উপরোল্লিখিত আয়াত ও হাদিস এ কথাই প্রমাণ করে যে, এ মাস হচ্ছে হেদায়েত লাভের মাস, আল্লাহতায়ালার রহমত লাভের মাস এবং জাহান্নাম থেকে নাজাত অর্জনের মাস। সুতরাং বেশি বেশি ইবাদতের মাধ্যমে আল্লাহতায়ালার নৈকট্য অর্জনের চেষ্টা করা এবং তাওবা-ইস্তেগফারের মাধ্যমে মুক্তির সনদ লাভে সচেষ্ট হওয়া কর্তব্য। এ মাসের রোজাকে আল্লাহতায়ালা ফরজ করেছেন। তাই প্রত্যেক সুস্থ ও প্রাপ্ত বয়স্ক মুসলিম নর-নারীর জন্য রোজা রাখা অপরিহার্য। বলাবাহুল্য যে, ফরজ ইবাদতের মাধ্যমেই বান্দা আল্লাহতায়ালার সর্বাধিক নৈকট্য অর্জন করে। রমজানের দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ আমল হচ্ছে তারাবির নামাজ। রমজানের বরকতময় রজনীতে বিশ রাকাত তারাবির নামাজ আদায়ে যত�বান হওয়া উচিত। রমজান মাস হচ্ছে কোরআন নাজিলের মাস। তাই কোরআন মজিদ শ্রবণের জন্য এবং এ পুণ্যময় রজনীতে আল্লাহর সান্নিধ্যে দণ্ডায়মান হওয়ার জন্য তারাবি নামাজের প্রতি অত্যধিক গুরুত্ব দেওয়া কর্তব্য। অন্য সময়ও ব্যক্তিগতভাবে অধিক পরিমাণে কোরআন মজিদ তেলাওয়াত করা উচিত। আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে- তাহাজ্জুদ নামাজ। এ মাসে যেহেতু সেহরি খাওয়ার সুবাদে সুবহে সাদিকের আগেই সবাইকে উঠতে হয়, তাই এ সুযোগে তাহাজ্জুদের অভ্যাস করে নেওয়া সহজ। হাদিস শরিফে তাহাজ্জুদের অনেক ফজিলত বর্ণিত হয়েছে। তদ্র�প সাধ্যমতো দান-সদকা করা উচিত। হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) এ মাসে অনেক বেশি দান-সদকা করতেন। এসব নেক আমলের পাশাপাশি গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার চেষ্টা করাও অপরিহার্য। রমজান মাস হচ্ছে তাকওয়া ও পরহেজগারী অর্জনের মাস। আল্লাহতায়ালা রোজাকে ফরজ করেছেন তাকওয়া অর্জনের জন্য। হাদিস শরিফ থেকে জানা যায় যে, গুনাহ থেকে সর্বতোভাবে বেঁচে থাকা ছাড়া রোজা পূর্ণাঙ্গ হয় না। তাই রোজাকে নিখুঁতভাবে আদায়ের উদ্দেশ্যে মুমিন যখন গুনাহ থেকে বেঁচে থাকার চেষ্টা করে তখন আল্লাহতায়ালা নিজ অনুগ্রহে তাকে তাকওয়া ও পরহেজগারীর শক্তি দান করেন। এ জন্য সব গুনাহ থেকে, বিশেষ করে গিবত, শেকায়েত, কুদৃষ্টি, কুচিন্তা, হারাম পানাহার ইত্যাদি থেকে বেঁচে থাকা প্রত্যেক মুসলিমের একান্ত কর্তব্য।
আরেকটি কথা মাহে রমজানের আগমনে আল্লাহপাকের পক্ষ থেকে রোজাদারদের ওপর মেঘবর্ষণের মতো রহমত নাজিল হতে থাকে এবং প্রকৃত রোজাদারের জন্য আল্লাহর পক্ষ থেকে কয়েকটি পুরস্কার রয়েছে। বেহেশতের আটটি দরজা। এর মধ্যে একটির নাম রাইয়ান (তৃপ্তি)। এ দরজা দিয়ে বেহেশতে প্রবেশ করার সৌভাগ্য লাভ করবেন শুধু রোজাদাররা। প্রত্যেক রোজাদারের জন্য দুটি আনন্দ রয়েছে- একটি ইফতারের সময় এবং অপরটি হলো আল্লাহপাকের দিদার লাভ। রোজাদারের আগের সব গুনাহ মাফ হয়ে যায়। রোজাদারের নিদ্রাও ইবাদত এবং তার চুপ থাকা তসবিহস্বরূপ গণ্য হবে।
হজরত সালমান ফারসি (রা.) থেকে বর্ণিত যে, হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) শাবান মাসের শেষ তারিখে আমাদের নসিহত করেছেন যে, তোমাদের মাঝে মোবারক মাস রমজান ছায়াস্বরূপ আসছে, যার মধ্যে লাইলাতুল কদর নামে একটি রাত আছে যা হাজার মাস থেকে উত্তম। আল্লাহতাআলা তোমাদের ওপর রোজা ফরজ করেছেন এবং রাত্রি জাগরণ অর্থাৎ তারাবি পড়াকে তোমাদের জন্য পুণ্যের কাজ করে দিয়েছেন। যে ব্যক্তি এ মাসে নফল আদায় করল সে যেন রমজানের বাইরে একটি ফরজ আদায় করল; যে ব্যক্তি এ মাসে একটি ফরজ আদায় করল সে যেন অন্য মাসে সত্তরটি ফরজ আদায় করল। হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) আরও বলেন, এটা সবরের মাস এবং সবরের বিনিময়ে আল্লাহপাক জান্নাত রেখেছেন। এ মাসে মুমিন বান্দাদের রিজিক বৃদ্ধি করে দেওয়া হয়।
আমরা প্রতি বছরই অত্যন্ত উৎসাহ-উদ্দীপনার সঙ্গে রোজা পালন করে থাকি। অর্থাৎ যথারীতি পানাহার ও জৈবিক লালসা চরিতার্থ করা থেকে বিরত থাকি। কিন্তু সর্বক্ষণের জন্য যা হারাম ও অবৈধ, যার পঙ্কিলতা থেকে মুক্তিদান করাই রোজার এ মহান প্রশিক্ষণ, তা আমরা মোটেই পরিত্যাগ করতে পারি না। রোজার প্রকৃত উপকারিতা পেতে হলে মিথ্যা বলা, গিবত, কুদৃষ্টি, হারাম উপার্জন, অশ্লীল গানবাজনাসহ যাবতীয় গুনাহ থেকে আমাদের বিরত থাকতে হবে, আর এটাই প্রকৃত রোজা। আল্লাহ আমাদের সবাইকে প্রকৃত রোজা পালানে তাওফিক দান করুন। আমীন।




Md.Yousuf Miah
Accounts Officer
Daffodil International University

Pages: 1 ... 6 7 [8] 9 10 ... 12