Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - masud895

Pages: 1 2 [3] 4 5 6
31
IT Forum / Microsoft Office 365 Features and Benefits
« on: November 09, 2014, 05:53:45 PM »
Moving to the Office 365 cloud comes with some key features and benefits. Namely, your organization gets to continue to use the software you have been using for years, but you now get to shift the burden onto Microsoft. In addition to shifting the burden to Microsoft, there are some other key benefits.

Generate greater productivity with Office 365
Productivity is a great word that management-consultant types love to use. In the real world though, productivity can be summed up in a simple question: Can you do my job easier or not? Microsoft has invested heavily and spent a tremendous amount of time trying to make the user and administrator experiences of Office 365 as easy and simple as possible.
The idea is that increasing simplicity yields greater productivity. Whether it is an administrator setting up a new employee or a business analyst writing policy and procedure documents in Word. When the technology gets out of the way and you can focus on your job, you become more productive. Try using a typewriter instead of a Word processor. Whoever thought copy and paste would be such a game changer?

Access from anywhere with Office 365
Accessing your enterprise software over the Internet has some big advantages. For one, all you need is your computer — desktop, laptop, tablet, or phone — and an Internet connection or phone coverage. Because the software is running in a Microsoft data center, you simply connect to the Internet to access the software.

Another benefit of accessing centrally located data is that you always have a single source of the truth. If you make a change to a document from your tablet at home and then your colleague views the file from their phone, she will see the most up-to-date document. Gone are the days of e-mailing Excel documents between machines with long file names.
With SharePoint Online (part of the Office 365 package) a single file, say Forecast_Q1_2011.xlsx, lives out in the cloud (meaning in Microsoft’s globally distributed billion dollar data centers). Because the document lives in the cloud, the security permissions can be set up to allow anyone in the organization, regardless of geographic location, to view the document.
Security can be as strict or as lenient as desired. For example, you may want everyone in the organization to be able to see a company policy document but only want a select group of individuals to edit the document. In addition, SharePoint takes care of all the versioning and even lets you check out a document to edit so that nobody else can edit it at the same time.
Need to collaborate on the document in real time? No problem. You can do that by using nothing more than your web browse
Work with what you know with Office 365
Microsoft does not always come out with the best software. Remember Windows Vista? Shiver! Instead of running far away and never looking back at Windows again, users simply held their collective breath until Windows 7. And thank you for hurrying Microsoft!
One thing Microsoft did incredibly right is recognize that users don’t want to give up the things that make them comfortable. Office 365 hasn’t changed your favorites one bit. The only difference is that now they are seamlessly connected to the enterprise software living out in the cloud. In other words, your favorite applications are codified.
One of the coolest features about SharePoint 2010 and Office 2010 is that you can work with SharePoint without ever having to leave the Office applications. For example, you can fire up Word, check out a document stored in SharePoint, make some changes, check it back in, review versions, and even leave some notes for your colleagues.
All without even having to know that SharePoint is handling the content management functionality behind the scenes.

Robust security and reliability comes with Office 365
With Microsoft taking on all the responsibility for security and reliability, your IT team can rest on their laurels. Letting Microsoft do the heavy lifting frees up the IT team to do more important things such as helping users get the most out of enterprise software.
Microsoft understands if you aren’t fully comfortable about letting them do the heavy lifting. To address some of the questions, however, Microsoft has extensive service level agreements to help put your mind at ease.

Office 365 provides IT control and efficiency
IT personnel like to know exactly what everyone is doing with their systems at all times. If something goes wrong, then it is probably due to user error. Your systems do what they are supposed to do. Microsoft has gone out of its way to create an unprecedented level of control for administrators. But that is not all. Not only do administrators have control over the environment, but it is also actually designed to be simple in nature and intuitive.

32
IT Forum / What is IPv6 -- Internet Protocol Version 6?
« on: October 26, 2014, 10:28:28 AM »
IPv6 (Internet Protocol Version 6) is also called IPng (Internet Protocol next generation) and it is the newest version of the Internet Protocol (IP) reviewed in the IETF standards committees to replace the current version of IPv4 (Internet Protocol Version 4).

IPv6 is the successor to Internet Protocol Version 4 (IPv4). It was designed as an evolutionary upgrade to the Internet Protocol and will, in fact, coexist with the older IPv4 for some time. IPv6 is designed to allow the Internet to grow steadily, both in terms of the number of hosts connected and the total amount of data traffic transmitted.

IPv6 is often referred to as the "next generation" Internet standard and has been under development now since the mid-1990s. IPv6 was born out of concern that the demand for IP addresses would exceed the available supply.

While increasing the pool of addresses is one of the most often-talked about benefit of IPv6, there are other important technological changes in IPv6 that will improve the IP protocol:

- No more NAT (Network Address Translation)
- Auto-configuration
- No more private address collisions
- Better multicast routing
- Simpler header format
- Simplified, more efficient routing
- True quality of service (QoS), also called "flow labeling"
- Built-in authentication and privacy support
- Flexible options and extensions
- Easier administration (say good-bye to DHCP)

33
After releasing a preview in May, Google is making its free Classroom tool available for anyone with a Google Apps for Education account.
Classroom offers a single dashboard and unified system for Google’s other services, such as Docs, Drive and Gmail, so that teachers can easily deliver classroom materials and assignments with their students.

Lecturers can create new classes and manually add students, or share a unique code so that relevant learners can add quickly add themselves. Likewise, assignments can be set up at any time from the Google Apps dashboard, with all the necessary information (assignment name and synopsis, deadline) and optional work materials linked from Drive, a webpage or YouTube video.
Furthermore, teachers can set the privileges for Docs/Drive files between: Students can view file, Students can edit file, and Make a copy for each student. The latter is particularly important, as it quickly duplicates worksheets, tests and so forth so that students aren’t overwriting each other’s work.
Students have access to a similar d
ashboard and can then work on their assignments in Google Docs. As learners turn in their projects, teachers are able to monitor exactly who has missed (or is likely to miss) the deadline, review work, provide grades and individual feedback.
Since the preview was released, Google says over 100,000 teachers from more than 45 countries have signed up. That initial period has also shaped the product; a number of users said they wanted to be able to collaborate with students while an assignment is ongoing, and Google has responded with updates that allow them to view and comment on work before a deadline.

After releasing a preview in May, Google is making its free Classroom tool available for anyone with a Google Apps for Education account.
Classroom offers a single dashboard and unified system for Google’s other services, such as Docs, Drive and Gmail, so that teachers can easily deliver classroom materials and assignments with their students.
Lecturers can create new classes and manually add students, or share a unique code so that relevant learners can add quickly add themselves. Likewise, assignments can be set up at any time from the Google Apps dashboard, with all the necessary information (assignment name and synopsis, deadline) and optional work materials linked from Drive, a webpage or YouTube video.
Furthermore, teachers can set the privileges for Docs/Drive files between: Students can view file, Students can edit file, and Make a copy for each student. The latter is particularly important, as it quickly duplicates worksheets, tests and so forth so that students aren’t overwriting each other’s work.
Students have access to a similar dashboard and can then work on their assignments in Google Docs. As learners turn in their projects, teachers are able to monitor exactly who has missed (or is likely to miss) the deadline, review work, provide grades and individual feedback.
Since the preview was released, Google says over 100,000 teachers from more than 45 countries have signed up. That initial period has also shaped the product; a number of users said they wanted to be able to collaborate with students while an assignment is ongoing, and Google has responded with updates that allow them to view and comment on work before a deadline.


Source : http://thenextweb.com/google/2014/08/12/google-classroom-education-platform-teachers-opens-apps-education-users/

34
IT Forum / New Li-Fi Technology to access internet at high speed
« on: September 03, 2014, 10:16:13 AM »
With the invention of new Li-fi technology, you will soon find light bulbs of your car, light lamps in your room, lights in subway, flashlight of your mobile and any other light source are providing you internet access at very high speed.
Li-fi technology is the milestone in the history of information technology. You have got the idea that Li-Fi Technology is something light. Yes, Li-fi technology or light-fidelity technology transmits data wirelessly at high speeds with the use of light emitting diodes.

Working of Li-Fi Technology

The functioning of new Li-Fi technology is just simple. You will have a light source at one end like a LED and a photo detector (Light Sensor) on the other end. As soon as, LED starts glowing, photo detector or light sensor on other end will detect light and get a binary 1 otherwise binary 0.
                                                       
How can data be transmit via this new Li-F- technology?

Flashing a LED certain times will build up a message to transmit. Flashing of light is detected by the photo detector or light sensor and it will receive a message.
                                                       

Now, think of several LEDs with some different colors, flashing together and building a huge information to transmit. It is observed that green laser with the red laser can transmit data at 1 GBPS

35
IT Forum / Difference between 32 bit and 64 bit?
« on: September 03, 2014, 09:55:27 AM »
: ৩২ বিট প্রসেসর : ::

এ শ্রেণীর প্রোসেসরগুলো ১৯৯০ সালের কম্পিউটারগুলোতে প্রধান প্রোসেসর হিসেবে ব্যবহার করা হত। সে সময় একমাত্র প্রসেসর হিসেবে Intel Pentium ই বাজার দখল করে রেখেছিল। পরবর্তীতে কালক্রমে ৩২ বিটের AMD প্রোসেসের আগমন ঘটে।মূলত ৩২ বিট প্রসেসর-এর অপারেটিং সিস্টেম এবং সফটওয়্যার গুলো ৩২ বিট নির্ভর হয়ে থাকে। যেমন : উইন্ডো ৯৫, ৯৮ এবং এক্সপি হলো ৩২ বিট অপারেটিং সিস্টেম, যা সচারচর ৩২ বিট প্রোসেসরগুলোতে ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

:: ৬৪ বিট প্রসেসর : ::

৬৪ বিট সম্পন্ন কম্পিউটার সকলের হাতে পৌছায় ২০০০ সালের শুরুর দিকে। যদিও ১৯৬১ সালের শুরুর দিকে যখন IBM তাদের IBM 7030 Stretch সুপার কম্পিউটার তৈরীর সময় এই প্রসেসর এর পরিকল্পনা গ্রহণ করে। যার ফলে পরবর্তীতে Microsoft তাদের সর্বাধিক জনপ্রিয় Windows XP অপারেটিং সিস্টেম এর 64-bit ভার্সন বাজারে প্রকাশিত করে যাতে করে 64-bit সম্পন্ন প্রসেসরগুলোতে তা ব্যবহার করা যায়। আর তার পর থেকেই Windows Vista, Windows 7 এবং Windows 8 এর 64-bit ভার্সনগুলো একের-পর এক বাজারে আসতে শুরু করে।শুধু তাই নয়, এছাড়াও অন্যান্য সফটওয়্যারগুলোও 64-bit কম্পিউটারের উপযোগী করে তৈরী করা হয়, যাতে করে ৬৪ বিট কম্পিউটারেও তা সক্ষমভাবে কাজ করতে পারে।
                                         

:: ৩২ বিট আর ৬৪ বিট এ পার্থক্য কি ::

১। ৩২ বিট এর চেয়ে ৬৪ বিটে উইন্ডোজের নিরাপত্তা ব্যবস্থা বেশি, বিশেষ করে Kernel Patch Protection অনেক বেশি শক্তিশালী হয় ৬৪ বিটে। Kernel হল প্রসেসর, হার্ডওযার, ডিভাইস ড্রাইভার এর সাথে অন্যান্য সফটওয়ারের সমন্বয় রক্ষা করে চলার একটি পদ্ধতি যার উপর ভিত্তি করে অপারেটিংস সিস্টেম তৈরি হয়। একেক অপারেটিং সিস্টেমে একেক ধরনের Kernel ব্যবস্থা ব্যবহার করা হয়।
২। ৬৪ বিট উইন্ডোজে ডিজিটাল সাইন ছাড়া ড্রাইভার ইন্সটল করা যায় না। ডিজিটাল সাইনটা এক প্রকার কোম্পানির সীলের মত। যখন ঐ সফটওয়ারটাকে ভাইরাস আক্রমন করে বা এর মধ্যে কোন পরিবর্তন হয় তখন ডিজিটাল সাইনটি পরিবর্তিত হয়ে যায় যাকে হিসেবে উইন্ডোজ ধরে নেয়। ৩২ বিটেও ডিজিটাল সাইন ছাড়া ড্রাইভার ইন্সটল না করার অপশন আছে তবে এটি ডিফল্ট সেটিংস নয়। কিন্তু ৬৪বিটে উইন্ডোজ Digital Sign Broken কে অনুমোদন করে না।
৩। ৬৪ বিট প্রসেসরে ৬৪ বিট এবং ৩২ বিট দুই ধরনের উন্ডোজই (অপারেটিং সিস্টেম) ব্যবহার করা যায়। তবে ৩২ বিট প্রসেসরে শুধু মাত্র ৩২ বিট উন্ডোজই ব্যবহার করা যায়। সুতরাং ৬৪বিট উইন্ডোজ ব্যবহার করতে চায়লে ৬৪বিট প্রসেসরই লাগবে।
৪। ৬৪বিট উইন্ডোজে কিছু কিছু ৩২বিটের সফওয়ার, আর ড্রাইভার রান করা গেলেও অনেক সময় সমস্যা দেখা দেয়, সঠিকভাবে কাজ করে না। তবে ৩২বিট উইন্ডোজে ৬৪বিট সফটওয়ার বা ড্রাইভার কোনটাই কাজ করে না। অর্থাৎ সঠিকভাবে কাজ করার জন্য ৬৪বিটের জন্য ৬৪বিটের সফটওয়ার আর ড্রাইভার যেমন দরকার তেমন ৩২ বিটের জন্যও ৩২বিটের সফটওয়ার আর ড্রাইভার দরকার। আবার ১৬বিট প্রোগ্রামগুলো ৩২বিটে কাজ করলেও ৬৪বিটে কাজ করে না। ৬৪ বিটের প্রোগ্রামগুলো ৩২বিটের চেয়ে পারফরমেন্স ভাল দেখায়। যেমন ক্রাশ করা বা এরকম অন্যান্য সমস্যাগুলো থেকে ৬৪বিট প্রোগ্রামগুলো মুক্ত বললেই চলে।
৫। ৬৪বিট প্রসেসর সাধারণত x64 এবং ৩২বিট প্রসেসর সাধারণত x86 গতিতে চলে।
৬। ৩২ বিটের জন্য সাধারণত 512MB থেকে 4 GB পর্যন্ত RAM Recommend করা হয় যেখানে ৬৪বিটের জন্য 4 GB recommend করা হয়। এর চেয়ে কম হলেও চলে।

36
IT Forum / How to use DIU IT Support E-Help Portal
« on: May 22, 2014, 04:07:56 PM »
Visit DIU IT Support E-Portal and Submit you Ticket for IT related issues DIU IT Support Team will response in a short time. Check you current status in your user portal.

37
টেকজায়ান্ট গুগলের তৈরি বহুপ্রতীক্ষিত মডিউলার স্মার্টফোন বাজারে আসছে ২০১৫ সালে। ‘স্মার্টফোন’ বললেই যে ছবিটা আমাদের চোখে ভাসে, মাথার ভেতর চলতে থাকে যে র‌্যাম, রম আর পিক্সেলের হিসেব তার সবকিছুই পাল্টে দিতে পারে গুগলের প্রজেক্ট আরার মডুলার স্মার্টফোন।

কী এই মডিউলার স্মার্টফোন? এর বিশেষত্বই-বা কী? প্রজেক্ট আরার মডিউলার স্মার্টফোনটির সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য ফিচারটিই হচ্ছে-- ইচ্ছেমতো এর হার্ডওয়্যার বদলে নেওয়া যাবে। স্মার্টফোনটির হার্ডওয়্যারের গঠনটাই এমন হবে যে, ক্রেতা নিজেই পুরনো ব্যাটারি বা ক্যামেরা খুলে নিজের পছন্দমতো নতুন হার্ডওয়্যার লাগিয়ে নিতে পারবেন।

সময়ের সঙ্গে ‘তাল’ মেলাতে অনেক ক্রেতাই বছর বছর পাল্টাচ্ছেন স্মার্টফোন। এই তো সেদিন বাজারে এল স্যামসাংয়ের গ্যালাক্সি এস৫, এর মধ্যেই গ্যালাক্সি এস৪ স্মার্টফোন বেচে দিয়ে গ্যালাক্সি এস৫ কেনার কথা ভাবছেন অনেকেই।

এই দৃশ্যপট হয়ত অনেকটাই পাল্টে দিতে পারে মডিউলার স্মার্টফোনগুলো । পুরনো স্মার্টফোন বিক্রি করে দিয়ে আবারও বেশি খরচ করে নতুন স্মার্টফোন কেনার ঝক্কি পোহাতে হবে না, প্রয়োজন আর পছন্দমতো হার্ডওয়্যার দিয়ে পুরনো স্মার্টফোনকে ‘কাস্টোমাইজ’ করে নিতে পারবেন ক্রেতা। ফলে মডুলার স্মার্টফোনগুলো হালের মোবাইল ফোনগুলোর থেকে  তুলনামুলকভাবে লম্বা সময় ব্যবহারের সুযোগ থাকবে।

সিএনএন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, প্রজেক্ট আরার অংশ হিসেবে গুগলের প্রথম প্রজন্মের মডিউলার স্মার্টফোন বাজারে আসবে ২০১৫ সাল নাগাদ। আর মডেলভেদে স্মার্টফোনগুলোর দাম হতে পারে ৫০ ডলার থেকে ৫০০ ডলার‌ পর্যন্ত। ক্যালিফোর্নিয়ার সান্তা ক্লারায় অনুষ্ঠিত ডেভেলপার্স কনফারেন্সে গুগল প্রজেক্ট আরার প্রথমিক স্তরের অগ্রগতি দেখিয়েছে এই সপ্তাহেই।

তিনটি ভিন্ন আকারের মডেল দিয়ে বাজারে যাত্রা শুরু করবে গুগলের মডিউলার ফোন। এর মধ্যে পকেটে সহজে পুরে নেওয়ার মতো ‘পকেট সাইজ’ থেকে শুরু করে থাকবে ফ্যাবলেট নামে পরিচিত বড় ডিসপ্লের মডেলও। মডিউলার স্মার্টফোনগুলোর প্রতিস্থাপনযোগ্য অংশগুলোকে একসঙ্গে ধরে রাখবে বিশেষ ম্যাগনেটিক ফ্রেম ‘এন্ডো’।


38
বর্তমানে প্রায় সবাই এ্যান্ড্রয়েড ফোনটি নিরাপদ রাখার জন্য পাসওয়ার্ড বা প্যাটার্ন লক ইউস করি। অনেক সময় আমরা পাসওয়ার্ড টা ভুলে যাই, ফোনটিকে পুনরুদ্ধার করার জন্য ফ্ল্যাশ বা পুনরায় অপারেটিং সেটআপ দিতে হয় ।
কিন্তু, আপনি ইচ্ছা করলে নিজে থেকেই কাজটি করতে পারেন-
১. ফোনটি অফ করে নিন,
২. এরপর ভলিউমের বাটন দুটি চেপে ধরুন,
৩. পাওয়ার বাটনটি চেপে ধরে রাখুন, যতক্ষণ না পর্যন্ত ফোনটি চালু হয়,
৪. এরপর দেখবেন চারটি অপশন আসবে,
৫. রিসেট ফ্যাক্টরি সেটিংস্-এ চাপুন ।
(এটি করার জন্য ভলিউমের এবং পাওয়ার বাটনটি ইউস করুন)
৪. এরপর কিছুক্ষন অপেক্ষা করতে হবে, ফোনটি রিস্টার্ট হওয়া পর্যন্ত ।

39
ডেটা ট্রান্সফারে ব্যবহৃত ইউএসবি কেবলের পরিবর্তন আসতে সম্ভবত আর বেশি দেরি নেই। ১৯৯০ সালে প্রথম ব্যবহৃত হওয়া ইউএসবি পোর্টের আকার ও আকৃতির পরিবর্তন নিয়ে ধারণা প্রকাশ করেছে বিবিসি।

জুলাই নাগাদ নতুন ইউএসবি পোর্টের ডিজাইন চূড়ান্ত হতে পারে। এতে একই ইউএসবি কেবলের মাধ্যমে সহজে ইলেক্ট্রনিক্স ডিভাইস কম্পিউটারের সঙ্গে সংযুক্ত করা যাবে।

কম্পিউটারের সঙ্গে ক্যামেরা কিংবা স্মার্টফোন যুক্ত করতে গিয়ে পোর্টের পজিশন নিয়ে বাড়তি বিড়ম্বনাও কমবে বলে জানিয়েছেন নির্মাতারা। নতুন ইউএসবি কেবলের দুপ্রান্তের সংযোগমুখ থাকবে একই ধরনের। যেমনটি রয়েছে টেক জায়ান্ট অ্যাপলের লাইটিং কেবলে।

নতুন ইউএসবি কেবলকে বলা হচ্ছে টাইপ থ্রি স্ট্যান্ডার্ড ইউএসবি সিস্টেম। এটি ব্যবহার করে সেকেন্ডে ১০ গিগাবিট পর্যন্ত গতিতে ডেটা আদান-প্রদান করা যাবে, যা বর্তমানে ব্যবহৃত ইউএসবি কেবলের ক্ষমতার দ্বিগুণ।

Source : http://bangla.bdnews24.com/tech/article767774.bdnews

40
Request a free voucher to take exam 74-409, which gets you a certification in Server Virtualization with Windows Server Hyper-V and System Center. Earn this certification if you are an IT professional who is responsible for designing, implementing, managing, and maintaining a virtualization infrastructure and/or want proof of your skills on current Microsoft virtualization technologies.

The number of free exams is limited, so be sure to schedule your appointment to lock-in your free exam. Vouchers expire and all exams must be taken by June 30, 2014. To register for your exam, go to http://www.register.prometric.com and, when prompted, use your voucher code to schedule your exam.

Link : http://www.microsoftvirtualacademy.com/offers/virtualizationsquaredoffer#?fbid=QpFLoOlsJPY

41
Ready to prove your expertise with the globally recognized MCSD (Microsoft Certified Solutions Developer) certification? Get started today by requesting your free MCSD ‘3-for-1’ exam voucher.

When you schedule and pay for the first exam using your personal voucher code, you’ll get the next 2 exams for free, valid on exams for any of the following certifications:

MCSD Windows Store Apps-HTML5
MCSD Web Applications
MCSD SharePoint Applications
MCSD Windows Store Apps-C#
MCSD Application Lifecycle Management

This offer includes:
3-for-1 exam voucher
Register today to receive your free MCSD ‘3-for-1’ exam voucher.

Link : http://www.microsoftvirtualacademy.com/offers/MCSD-3-for-1?prid=WWLex_LeXHomepage#?fbid=QpFLoOlsJPY


42
IT Forum / Android 4.4 Kit Kat Features
« on: March 11, 2014, 04:25:18 PM »
Hello friends today i am going to describe about the latest Android 4.4 kit Kat . The Android 4.4 Kit Kat update is coming soon in the very near future for Samsung galaxy S4 ,S3, Note 3 and Note 2 users according to new leaks out this week. Many of the companies announced the update dates for Android kit kat last year, however, Samsung users were left in the dark as the company remained silent on the plans for the rollout of Android kit kat.

Many peoples are waiting for it shared Android 4.4 test firmware for the samsung galaxy s4 on friday. The Android 4.4.2 build version I9505XXUFNA1, available for download for the GT I9505 model of Galaxy S4, is said to be relatively stable with few bugs.

Features of android kit kat:-

Are you tired of touching that grimy screen to perform searches, send texts, get directions or play your favorite tunes ? If so, or if you're just lazy, there's now voice control capabilities. Simply say ''ok google'' and the command will start.

There will be unlimited home screen panels.

Kitkat comes with a feature that will hide everything while reading or watching a movie. If you want to get back the status bar and navigate buttons swipe the edge.

Kit kat ccme with web browser available based on open-source layout engine, coupled with chrome's V8 javascript engine.The browser scores 100/100 on the acid3 test on android 4.0.

Multitasking of applications, with unique handling of memory allocation, is available.

Android supports capturing a screenshot by pressing the power button and volume-down buttons at the same time.

43
মজিলা ফাউন্ডেশন বিশ্বের সবচেয়ে কম দামের স্মার্টফোন আনছে—এ তথ্য এরই মধ্যে সবাই জেনে গেছেন। ফায়ারফক্স অপারেটিং সিস্টেমচালিত (ওএস) ২৫ মার্কিন ডলার দামের এ স্মার্টফোন নিয়ে নানা জল্পনা-কল্পনা চলছে সবার মধ্যে। চীনা চিপ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান স্প্রিডট্রামের সঙ্গে অংশীদারির মাধ্যমে কম দামের এই মোবাইল ফোনসেট বাজারে আসবে। এখন পর্যন্ত পাওয়া তথ্য অনুযায়ী এই স্মার্টফোনে থাকবে ৩.৫ ইঞ্চি স্ক্রিন, যার রেজুলেশন হবে ৩২০ বাই ৪৮০ পিক্সেল।

মজিলা ফাউন্ডেশনের তৈরি ব্রাউজার ফায়ারফক্সের জনপ্রিয়তার পাশাপাশি ইতিমধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন দামে মজিলা ফোন পাওয়া যাচ্ছে। ফায়ারফক্স ওএসচালিত এই স্মার্টফোন বেশ জনপ্রিয়তাও পেয়েছে।

পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, এই ফোনে আরও থাকবে ওয়াই-ফাই, ব্লুটুথ, এফএম রেডিও ও অন্যান্য সুবিধা। এই ফোনের রিয়ার ক্যামেরা হবে ২ মেগাপিক্সেলের। ফোনের ডিফল্ট ব্রাউজার হিসেবে থাকবে মজিলা ফায়ারফক্স, এতে এইচটিএমএল৫ সুবিধাও পাওয়া যাবে।

সবচেয়ে কম দামের এই ফোনের বিষয়ে মজিলার পক্ষ থেকে এখনো কোনো আনুষ্ঠানিক ঘোষণা না এলেও বাংলাদেশে এই ফোন নিয়ে আসছে টেলিনর ডিজিটাল। টেলিনর ডিজিটালের চিফ স্ট্র্যাটেজিক অফিসার অ্যান্ডার্স হ্যালিন এ তথ্য জানিয়েছেন। [/size]
Source : Prothom Alo


44
IT Forum / PDF e-book creator software free download
« on: December 30, 2013, 09:55:22 AM »
আমি আজ আপনাদের সামনে একটা গুরুত্বপূর্ণ উইন্ডোজ সফটওয়্যার শেয়ার করবো। আমরাতো জীবনে কত পি ডি এফ পড়লাম।কিন্তু আমাদের ভিতর অনেকেই আছেন যারা এই ডকুমেন্ট বানাতে পারেন না। যারা পারেন আমি তাদের কথা আমি বলছিনা।যারা এটা তৈরি করতে পারেন না তাদের জন্য এই সফটওয়্যার।আর সফটওয়্যার লাভাররা এটা সংগ্রহ করে রাখতে পারেন। সফটওয়্যারটার নাম ডু পি ডি এফ। এটি ব্যবহার করে আপনি খুব সহজেই যে কোন অফিস ডকুমেন্ট যেমন (docs) থেকে  পি ডি এফ বানাতে পারবেন । এটির কাজ খুব সহজ। আপনারা একটু ট্রাই করে দেখলেই পারবেন বলে আশা করি। এখন যাদের যাদের এই সফটওয়্যারটা লাগবে তারা   ডাউনলোড করেনিন

Click the download Link

http://www.solidfiles.com/d/4b093fa752/ 

45
প্রথাগত ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কের জনপ্রিয়তা যত বাড়ছে, তার সঙ্গে যেন পাল্লা দিয়ে কমছে গতি। ওয়াই-ফাই নেটওয়ার্কের সেই ঝামেলা এড়াতে চীনের সাংহাইয়ের ফুডান ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীরা আবিষ্কার করেছেন রেডিও ওয়েভের বদলে আলোকে মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করে ডেটা ট্রান্সফারের নতুন এক প্রযুক্তি-- ‘লাই-ফাই।’ প্রথাগত ওয়াই-ফাইয়ের তুলনায় ১০গুণ দ্রুত ডেটা ট্রান্সফার করা সম্ভব এই প্রযুক্তিতে।

প্রযুক্তি সংবাদবিষয়ক সাইট ম্যাশএবল এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, রেডিও ওয়েভের মতো আলোও ইলেকট্রোম্যাগনেটিক ওয়েভ, যার কম্পাঙ্ক ওয়াই-ফাইয়ের তুলনায় এক লাখ গুণ বেশি। বছর দুই আগে প্রথমবারের মতো লাই-ফাই প্রযুক্তির কথা বলেন বিজ্ঞানীরা। দুই বছরে অনেকটাই এগিয়েছে এই প্রযুক্তি।

এ প্রযুক্তিতে প্রথমে ডেটা ট্রান্সফার করা হয় একটি এলইডি বাল্বের সাহায্যে। বাল্বটি সেকেন্ডে কয়েক কোটি বার জ্বলে-নেভে, তার মাধ্যমেই সংকেত ট্রান্সফার করে (সাধারণ ফ্লুরোসেন্ট বাল্ব প্রতি সেকেন্ডে ১০ হাজার থেকে ৪০ হাজার বার জ্বলে নেভে, যা খালি চোখে বোঝা যায় না)।

লাই-ফাই প্রযুক্তির সবচেয়ে বড় সীমাবদ্ধতা হচ্ছে, কম্পিউটার বা মোবাইল ডিভাইসের রিসিভারটি থাকতে হবে ডেট্রা ট্রান্সফার করা এলইডি বাল্ববের আলোর সীমানার মধ্যে। এক ঘর থেকে অন্য ঘরে গেলেই বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে লাই-ফাই সংযোগ। তবে এই সীমাবদ্ধতা অতিক্রম করতে পারলে পাল্টে যেতে পারে ওয়াই-ফাই প্রযুক্তি ব্যবহারের ইতিহাস।


Source : http://bangla.bdnews24.com/tech/article687359.bdnews

Pages: 1 2 [3] 4 5 6