Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - sadia.ameen

Pages: 1 2 [3] 4 5 ... 18
31
Grape for back pain.......new information for me.....Thanks....

33
Public Health / Re: কোমল পানীয় কোমল নয়
« on: December 17, 2013, 01:19:32 PM »
We all know about this harmful effects of soft drinks...but just ignore....:(

34
English / Re: Funny Facts of life..
« on: December 14, 2013, 03:29:18 PM »
 :) :) :) :D :D :D

35
Isaac Newton.........He was a genius!

36
English / Re: Human Beings and Frogs:
« on: December 14, 2013, 12:57:48 PM »
"If we allow people to exploit us physically, emotionally or financially, they will continue to do so. We have to decide when to jump. Let us jump while we still have the strength!"........... cant agree more.......really motivational!!!!!

37
English / Re: Awesome just Awesome
« on: December 14, 2013, 12:56:19 PM »
Agree......Childhood Was The Best Part Of Our Life...
The worst part the days will never return in our life...............

38
English / Re: Let go of your Stresses!
« on: December 14, 2013, 12:55:55 PM »
 interesting post for stress management........

39
Diabetics / Mild depression tied to diabetes complications
« on: December 12, 2013, 02:34:28 PM »
Even mild bouts of depression may worsen the health complications that often go along with type 2 diabetes, according to a new study published in the journal Diabetes Care.
Canadian researchers followed more than 1,000 patients for five years and found that those who experienced multiple episodes of low-level depression were nearly three times more likely than those without depression to have greater disability, such as reduced mobility, poor self care and worse quality of life.

Sodas, other sweet drinks tied to higher risk for endometrial cancer
Older women who drink lots of soda and other sugary beverages may be at higher risk for endometrial cancer, a new study suggests.
Endometrial cancer involves tumors in the lining of the uterus, and typically affects women in their 60s or 70s, according to the U.S. National Cancer Institute (NCI). They found that those who drank the largest amounts of sugar-sweetened beverages had a 78 percent higher risk for a tumor known as estrogen-dependent type I endometrial cancer.
The more sugar-sweetened beverages a woman drank, the greater her risk, according to the study published in the journal Cancer Epidemiology, Biomarkers & Prevention.

40


পুরাকাহিনীর হারানো নগরী আটলান্টিস নিয়ে সাধারণ মানুষের তো বটেই, বিজ্ঞানীদের মনেও রয়েছে অনেক কৌতূহল। কেমন ছিলো সেই নগরী, তা কোথায় অবস্থিত ছিলো আর কেনই বা তা হারিয়ে গেলো? এসব প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে জলের গভীরে অনেক অনুসন্ধান চলেছে। আর সবার এতদিনের প্রতীক্ষা বুঝি এবার সফল হতে চলেছে, আলেক্সান্দ্রিয়া থেকে ২০ মাইল উত্তর-পশ্চিমে সাগরের জল থেকে আবিষ্কৃত হয়েছে এমন এক শহর, যার সাথে আটলান্টিসের ভীষণ মিল, শুধু নামটাই অন্য। কি সেই প্রাচীন শহর? তার নাম হেরাক্লেয়ন। এই নামটি এসেছে গ্রিক বীর হেরাক্লেস বা হারকিউলিসের নাম থেকে।

এতদিন যারা আটলান্টিসের কাহিনীকে নিছক রূপকথা ভেবে উড়িয়ে দিয়েছেন, ভেবেছেন সাগরের অতলে কোনও শহরের অস্তিত্ব থাকা সম্ভব নয়, তাদের চোখ খুলে দিতেই বুঝি নিজের অস্তিত্বের জানান দিলো প্রাচীন এই নগরী। পুরনো কাহিনী থেকে যেমনটা জানা যায় ঠিক তেমনই সমৃদ্ধিশালী এক নগরী ছিলো হেরাক্লেয়ন। আজ থেকে দেড় হাজার বছর আগে সমুদ্র তাকে গ্রাস করে নেয়। এই নগরীর কথা জানা যায় গ্রিক ইতিহাসবিদ হেরোডোটাসের বর্ণনায়। ট্রয়ের রানী হেলেনের কথা বলেন তিনি, যে নিজের প্রেমিক প্যারিসের সাথে হেরাক্লেয়নে ভ্রমন করতে এসেছিলেন। কিন্তু এ সবের কোনও সত্যতা পাওয়া সম্ভব হয়নি। ২০০১ সালে ফরাসি প্রত্নতাত্বিক ফ্র্যাঙ্ক গুডিওর গবেষক দল এমন কিছু নিদর্শন খুঁজে পান যা থেকে এ ব্যাপারে আবারও চিন্তা করতে শুরু করতে হয়। ১৭৯৮ সালের ব্যাটল অফ দ্যা নাইলের সময়কালে নেপোলিয়নের ব্যবহৃত রণতরীর খোঁজ করছিলেন তারা, কিন্তু তার বদলে আলেক্সান্দ্রিয়ার কাছে আরও মুল্যবান এই গুপ্তধন খুঁজে পান তারা। তাদের সাথে যোগ দেয় অক্সফোর্ড সেন্টার ফর মেরিটাইম আর্কিওলজি এবং মিশরের ডিপার্টমেন্ট অফ অ্যান্টিকুইটিজ।

প্রথমে সাগরের তলে পলিমাটি চাপা পড়ে থাকা বিশাল সব পাথুরে ভাস্কর্যের ধ্বংসাবশেষ পানির উপরিভাগে আনতে শুরু করেন তারা। এর পর সেই ভাস্কর্যগুলো তীরে নিয়ে আসা সম্ভব হয়। এভাবেই প্রথম আবিষ্কারের ১২ বছর পর মানুষের সামনে উন্মোচিত হয় হেরাক্লেয়নের অমুল্য সব নিদর্শন। এদের মাঝে রয়েছে মিশরীয় দেবী আইসিস, দেবতা হাপি এবং নাম না জানা এক ফারাও এর মূর্তি। কাদার নিচে চাপা পড়ে থাকা এসব মূর্তি মোটামুটি অক্ষত অবস্থাতেই পাওয়া গেছে। এমন ১৬টি বিশাল আকৃতির মূর্তির পাশাপাশি আরও পাওয়া গেছে মিশরের অন্যান্য দেব-দেবীর ছোট আকৃতির শত শত মূর্তি। এই মূর্তিগুলো ছিলো আমুন-গেরেব একটি মন্দিরে যেখানে নীলনদের রানী হিসেবে অভিষিক্ত হয়েছিলেন ক্লিওপেট্রা।

এই আমুন-গেরেব মন্দিরের অনেকগুলো শবাধার পাওয়া গেছে, যাদের মাঝে ছিলো বলি দেওয়া বিভিন্ন প্রাণীর মমি করা দেহ। এদেরকে উৎসর্গ করা হয়েছিলো মিশরের সবচাইতে উচ্চ পর্যায়ের দেবতা আমুন-গেরেব এর উদ্দেশ্যে। ধর্মীয় প্রতীক সম্বলিত অনেক অ্যামিউলেট বা অলংকারও পাওয়া যায় যাতে আইসিস, ওসিরিস এবং হোরাসের মতো দেব-দেবীর প্রতিকৃতি দেখা যায়। এসব অ্যামিউলেট শুধুমাত্র ওই এলাকার অধিবাসীদের জন্য নয় বরং সেখানে আসা দর্শনার্থী এবং ব্যাবসায়িদের জন্যেও তৈরি করা হয়ে থাকতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

শুধু ধর্মীয় নিদর্শন নয়, হেরাক্লেয়নে পাওয়া গেছে ৬৪ টি জাহাজের ধ্বংসস্তূপ। যে কোনও এক স্থানে এতগুলো জাহাজ পাওয়ার নমুনা এই প্রথম। এ ছাড়াও পাওয়া যায় ৭০০টি নোঙর। প্রাচীন পৃথিবীর অর্থনীতির জন্যেও হেরাক্লিয়ন ছিলো গুরুত্বপূর্ণ। এখানে পাওয়া গেছে স্বর্ণ এবং সীসার মুদ্রা এবং এথেন্স থেকে আসা বাটখারা। কন্সট্যান্টিনোপল, রোম এবং এথেন্স সহ বিভিন্ন এলাকায় যাতায়াত করার জন্য তখন ভূমধ্যসাগর ব্যবহৃত হতো এবং গবেষকরা ধারণা করছেন সেখানকার সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ বন্দর নগরী ছিলো হেরাক্লেয়ন। আর যাতায়াতের সুবিধার্থে প্রাকৃতিক জলপথের পাশাপাশি এখানে একটি কৃত্রিম খালও কাটা হয়েছিলো বলে ধারণা করা হয়।

হেরাক্লেয়নের এই আবিষ্কার অতীতের অনেক রহস্য সমাধানে ভুমিকা রাখবে বলে আশা করছেন বিজ্ঞানীরা। তার কারণ হলো এখানে পাওয়া গেছে এমন সব নিদর্শন যা খুবই ভালো অবস্থায় সংরক্ষিত ছিলো। পাওয়া গেছে অক্ষত সব স্লেটের পুঁথি। এমনি এক স্লেটের টুকরো থেকে এক সময়ে হায়ারোগ্লিফের পাঠোদ্ধার করা সম্ভব হয়েছিলো। হেরাক্লেয়নও কি তেমনি কোনও বহু প্রতীক্ষিত রহস্যের দ্বার উন্মোচন করতে সক্ষম হবে? সেই আশাই করছেন গবেষকেরা।

41
কিছু খাদ্য আমাদের শরীরকে বেড়ে উঠতে সাহায্য করা ও শক্তি প্রদানের কাজটাই কেবল করে না, পাশাপাশি মস্তিষ্ককে আরও সক্রিয় এবং স্মৃতিশক্তিকে প্রখর করে তোলে। এইসব খাদ্য আমাদের মনস্তাত্ত্বিক ব্যাপারগুলোকে নিয়ন্ত্রন করে আমাদের ব্যক্তিত্বে দারুণ প্রভাব ফেলে। অবাক হলেন? অবাক হলেও সত্যি যে বিশেষজ্ঞরা এমন খাবারগুলোর একটি তালিকা করেছেন। আসুন দেখে নেই সেই তালিকায় থাকা ৫টি খাবার। যেগুলো আপনাকে আরও বেশি বুদ্ধিমান ও ব্যক্তিত্ববান করে তুলবে।
তৈলাক্ত মাছ

ইদানিং বিভিন্ন কারণে মানুষের মধ্যে দুর্বল স্মৃতিশক্তির সমস্যা বেশি দেখা যায়। প্রতিদিনের কাজের ফাঁকে ছোটোখাটো অনেক ব্যাপারই অনেকে বেমালুম ভুলে বসে থাকেন। যদি তাই হয় তাহলে মনে করে দেখুন আজকে আপনি দুপুরের খাবারে কি খেয়েছিলেন? আসলেই যদি মনে না করতে পারেন তাহলে বাজারে গিয়ে এখুনি কিনে আনুন তৈলাক্ত কিছু মাছ। নিয়ম করে এই তৈলাক্ত মাছ রাখুন আপনার খাবার তালিকায়। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলেন, তৈলাক্ত মাছের ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড মস্তিস্কের জন্য খুবই ভালো। সপ্তাহে ৩ দিন খাবার তালিকায় সামুদ্রিক তৈলাক্ত মাছ রাখলে স্মৃতিশক্তি হারানো সংক্রান্ত রোগের আক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।
শাক সবজি

শাক সবজি খাওয়ার কথা বললেই অনেকে ঠোঁট উল্টে ফেলেন। কিন্তু এই শাক সবজিতে লুকিয়ে আছে বুদ্ধিমান হওয়ার অসাধারন উপাদান। গবেষণায় মস্তিস্কের বিকাশে সর্বোত্তম খাদ্যের তালিকায় শাক সব্জিকে স্থান দেয়া হয়েছে। বিভিন্ন ধরনের শাক ও ব্রকোলিতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যেমন ভিটামিন সি ও বিটা ক্যারোটিন, যা আমাদের মস্তিস্ক ও দেহের জন্য অত্যন্ত জরুরী। এছাড়া শাক সবজিতে রয়েছে ফলেইট যা আমদের মস্তিস্ককে সক্রিয় করে। গবেষকরা বলেন, ফলেইট আমাদের অ্যানালাইটিক্যাল ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে। সুতরাং খাদ্য তালিকায় শাক সবজিকে স্থান দিন।
ডিম

বিভিন্ন প্রকার ভিটামিন ও মিনারেলে ভরপুর ডিমের রয়েছে মস্তিস্ককে স্টিমুলেট করার ক্ষমতা। আয়রন, আয়োডিন ও ভিটামিন বি-১২ সমৃদ্ধ ডিম আপনার খাদ্যের একটি নিয়মিত জায়গায় স্থান করে নিলে মস্তিস্কের পাশাপাশি দেহকে রোগ প্রতিরোধী করে তুলবে। ডিমে বিদ্যমান আয়রন রক্তে সাদা রক্ত কোষের ভারসাম্য বজায় রাখে। এই সাদা রক্ত কোষ মস্তিষ্কে অক্সিজেন বহন করে যা আপনাকে সব সময় সতর্ক থাকার ক্ষমতা দেয়। এবং আয়োডিন সমস্যা সমাধানের ক্ষমতা উন্নত করে।
চকলেট

ফ্ল্যাভোনয়েডে ভরপুর চকলেট কাজ করার দক্ষতা ও জ্ঞান ধারন ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। বিশেষজ্ঞরা বলেন, মধ্যম পরিমাণে ডার্ক চকোলেট খাওয়া মস্তিস্কের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। চকলেটের ফ্ল্যাভোনয়েড মস্তিস্কে নতুন নিউরন গঠন করে। নতুন নিউরন নতুন স্মৃতি ধরে রাখে। এই নতুন নিউরন মস্তিস্কে রক্ত প্রবাহ উন্নত করে ও স্মৃতিশক্তি ভালো করে।
গ্রিন টি (সবুজ চা)

আপনি জানেন কি, আমাদের মস্তিস্কের ৮০% তরল দ্বারা গঠিত? আমাদের সব সময় মস্তিস্কের এই তরলের ভারসাম্য বজায় রাখতে হয়। এইজন্য স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা দিনে ৮ গ্লাস পানি পানের পরামর্শ দেন। মস্তিস্কের তরলের ভারসাম্য রক্ষায় গ্রিন টি অতি কার্যকরী একটি পানীয়। গবেষকরা বলেন দিনে ১ কাপ গ্রিন টি মস্তিস্কের তরলের ভারসাম্য বজায় রাখে, স্মৃতিশক্তি উন্নত করে ও মস্তিষ্ককে সতর্ক রাখে। গ্রিন টি-স্মৃতিশক্তি বিষণ্ণতা দূর করে প্রাণবন্ত ব্যক্তিত্ব পেতে সহায়তা করে।

42
খেতে বসে খাবারের সাথে একটি মরিচ না নিলে অনেকের খাওয়াই অসম্পূর্ণ থেকে যায়। খাবারে ঝালের মাত্রা বেশি হলে খেতে পছন্দ করেন অনেকেই। ঝাল-প্রেমী সবারই অভিমত খাবারে একটু-আধটু ঝাল না থাকলে কিছু খাবারের স্বাদই নাকি বোঝা যায় না। এমনকি যারা ঝাল পছন্দ করেন না, তারাও ফুচকা কিংবা চটপটিতে ঝাল খেতে পছন্দ করেন, বাইরে কোথাও খেতে গেলে মুরগির ঝাল ফ্রাই খোঁজেন। সত্যিই কিছু কিছু খাবারের স্বাদই ঝালের মাত্রায়।

কিছুদিন আগেও গবেষকরা ঝালের বিরোধিতা করে বলেছেন, ঝাল খাবার স্বাস্থ্যের জন্য খারাপ। অবশ্যই মাত্রাতিরিক্ত ঝাল স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। কিন্তু ঝাল খাবার স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। সম্প্রতি গবেষকরা তাদের গবেষণায় প্রমান করেন যে ঝাল খাবারের স্বাস্থ্য উপকারিতাও আছে। আসুন দেখে নেই ঝাল খাবারের অজানা উপকারিতাগুলো।
ক্যান্সার প্রতিরোধ করে

শুনে অবাক হলেও সত্যি যে মরিচের রয়েছে ক্যান্সার প্রতিরোধের ক্ষমতা। সম্প্রতি একটি গবেষণায় দেখা গেছে মরিচ ‘ক্যাপ্সাইসিন’ নামক একটি যৌগে সমৃদ্ধ। ক্যাপ্সাইসিন এমন একটি যৌগ যা ক্যান্সারের কোষ ধ্বংস করতে সক্ষম। যত বেশি পরিমাণে এই যৌগটি দেহে জমা থাকবে ক্যান্সারে আক্রান্তের ঝুঁকি ততোটাই কমবে। তবে এর মানে এই নয় যে আপনি মাত্রাতিরিক্ত ঝাল খাবেন। প্রতিদিন পরিমিত পরিমাণ ঝালযুক্ত খাবার আপনাকে ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থেকে বাঁচাবে।
হার্টের সমস্যার সমাধান করে

মরিচের ঝাল কার্ডিওভাসকুলার রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমায়। মরিচে বিদ্যমান ‘ক্যাপ্সাইসিন’ শরীরে এলডিএল কোলেস্টেরলের(লো ডেনসিটি লিপ্রোপ্রোটিন কোলেস্টেরল) মাত্রা কমায়। এলডিএল কোলেস্টেরল হার্ট অ্যাটাক ও ব্রেইন স্ট্রোকের অন্যতম প্রধান কারন। পরিমিত পরিমাণে মরিচের ঝাল দেহে এলডিএল কোলেস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে দিয়ে এইসব রোগের হাত থেকে হার্টকে দূরে রাখতে সাহায্য করে।
ব্লাড প্রেসার কমাতে সাহায্য করে

আশ্চর্যজনক হলেও সত্যি যে ঝাল খাবার উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত ব্যক্তির জন্য ভালো। মরিচের ‘ক্যাপ্সাইসিন’ যৌগটির আরও একটি গুন হল এটি হাইপারটেনশন দূর করে। ফলশ্রুতিতে ব্লাড প্রেসার কমে। সম্প্রতি চীনের একটি গবেষণায় দেখা গেছে যাদের দেহে মরিচের ‘ক্যাপ্সাইসিন’ এর প্রভাব রয়েছে তারা অন্যান্যদের তুলনায় কম হাইপারটেনশনে ভোগেন। যেসব খাবার উচ্চ রক্তচাপের জন্য ক্ষতিকর সেসব খাবার বাদ দিয়ে অন্যান্য খাবারে ঝালের মাত্রা একটু বাড়িয়ে অনায়াসে উচ্চ রক্ত চাপ নিয়ন্ত্রনে রাখতে পারবেন।
ওজন কমাতে সাহায্য করে

মরিচের ঝাল ওজন কমানোতে সহায়তা করে। ‘ক্যাপ্সাইসিন’ নামক যে যৌগটি মরিচের ঝালের জন্য দায়ী সেই যৌগটিই ওজন কমানোতে সাহায্য করে। গবেষণায় দেখা যায় ঝাল খাদ্য গ্রহণের সময় ও গ্রহণের পর ‘ক্যাপ্সাইসিন’ শরীরে একটি প্রভাব ফেলে, যাকে ‘থারমোজেনিক’ প্রভাব বলে। এই থারমোজেনিক প্রভাব দেহে যতক্ষণ পর্যন্ত থাকে ততোক্ষণ পর্যন্ত শরীরের চর্বি ক্ষয় হতে থাকে। সুতরাং আপনি ততোক্ষণ ঝাল খাবার খাবেন ও এই ঝালের প্রভাব যতক্ষণ থকবে ততোক্ষণ আপনি বিনা পরিশ্রমে ক্যালোরি ক্ষয় করে ওজন কমাতে পারেন।
রাগের মাত্রা কম করে

রাগ উঠেছে চট করে একটি মরিচ খেয়ে ফেলুন। এতে রাগের মাত্রা কমে যাবে। রাগ কমানোর ভালো পদ্ধতিগুলোর মধ্যে অন্যতম হচ্ছে ঝাল খাওয়া। গবেষকদের মতে মরিচের ঝাল খাওয়ার সময় আমাদের মস্তিষ্কে সেরোটোনিন উৎপন্ন হয়। সেরোটোনিন নামক এই হরমোনটি মন ভালো থাকার সময় আমাদের মস্তিষ্কে নিঃসরণ হয়। তো পরবর্তীতে রাগ উঠলে প্রথমেই ঝাল কিছু খেয়ে রাগ কমিয়ে নিন। শুধুমাত্র রাগের মাত্রা কমানোই নয় বিষণ্ণতা রোগেরও ভালো একটি ওষুধ ঝাল খাবার।
http://www.priyo.com/2013/12/04/43951.html#sthash.5rFCOjJI.dpuf

43
চিংড়ি মাছ খেতে পছন্দ করেন না এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া মুশকিল। এমনকি যাদের চিংড়িতে অ্যালার্জি আছে, তাদেরও মনটা আটকে থাকে ওই চিংড়ির স্বাদেই। গলদা চিংড়ি আর কুচো চিংড়ি যাই হোক না কেন, রান্নায় চিংড়ি মানেই স্বাদের মাত্রা বহুগুন বেড়ে যাওয়া। আর যদি তা হয় এমন শীতের সন্ধ্যায় চায়ের সাথে চিংড়ির মুচমুচে পাকোড়া, তা হলে তো কথাই নেই। চায়ের সাথে দারুন জমে জিভে জল আনা মজাদার এই প্রন পাকোড়া। তৈরিও হবে মাত্র ১০ মিনিটে!
উপকরন

চিংড়ি মাছ ( মাঝারি সাইজ ) – ১০ টি
ডিম – ১ টি
রসুনবাটা – আধা চা চামচ
আদা বাটা – আধা চা চামচ
গোল মরিচের গুঁড়া – আধা চা চামচ
কাচা মরিচ কুচানো – ২ টি
লবন – স্বাদ মতো
হলুদ গুঁড়া – সামান্য
বেকিং পাউডার – আধা চা চামচ
ময়দা – আধা কাপ
সয়াবিন তেল – ভাজার জন্য
প্রনালী–

    -চিংড়ি মাছের মাথাগুলো ফেলে গরম পানি দিয়ে মাছ ভাল করে ধুয়ে নিন।
    -মাছগুলো হালকা থেঁতো করে নিন।
    -এবার একটি বাটিতে চিংড়ি মাছের সাথে একে একে আদা বাটা , রসুন বাটা , গোল মরিচের গুঁড়া , কাঁচা মরিচ কুচি ও হলুদ গুঁড়া মেশান । স্বাদ মতো লবন দিয়ে ভাল করে মাখিয়ে নিন ।
    -এবার এর সাথে ১ টি ডিম , ময়দা ও বেকিং পাউডার মিশিয়ে ম্যারিনেট হতে দিন ৫ মিনিট।
    -ম্যারিনেট করা হয়ে গেলে পুরো মিশ্রণটি ছোট ছোট বলের আকারে গড়ে সয়াবিন তেলে হালকা আঁচে সোনালী করে ভেজে তুলুন ।
    -সস ও সালাদ দিয়ে গরম গরম পাকোড়া পরিবেশন করুন ।
http://www.priyo.com/2013/12/04/43884.html#sthash.DlXnmyCe.dpuf

44
বর্তমান যুগে ক্যান্সার মহামারী আকার ধারন করছে। প্রতিদিনই ক্যান্সারের মরণ ফাঁদে যোগ হচ্ছে মানুষ। কিন্তু দুর্ভাগ্য হলেও সত্যি যে এখন পর্যন্ত কোন বিজ্ঞানীর পক্ষে ক্যান্সারের প্রতিষেধক তৈরি করা সম্ভব হয়ে উঠেনি। তাই সব থেকে ভাল পথ হচ্ছে ক্যান্সারকে প্রতিরোধ করা। ক্যান্সার যাতে শরীরে বাসা বাঁধতে না পারে তার জন্য শরীরকে প্রস্তুত করা।

বিশ্বব্যাপী পরিচালিত অনেক গবেষণা অনুযায়ী বলা হয় ক্যান্সারকে প্রতিরোধ করতে হলে ২ ধরনের প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহন করা যেতে পারে। প্রথমত, ডায়েট ও দ্বিতীয়ত, ব্যায়াম। গবেষকরা বলেন, কিছু নির্দিষ্ট খাবারের মধ্যে ক্যান্সার প্রতিরোধের গুন রয়েছে। সেগুলো প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় রাখলে ও নিয়মিত ব্যায়াম করলে ক্যান্সারকে দূরে রাখা সম্ভব। আসুন দেখে নিই প্রতিদিনকার খাদ্য তালিকায় কোন কোন খাদ্য যোগ করলে ক্যান্সারের হাত থেকে আপনি নিজেকে ও নিজের পরিবারকে রক্ষা করতে পারবেন।
চীনাবাদাম

চীনাবাদাম ভিটামিন ই এর সবথেকে ভালো উৎস। ভিটামিন ই সমৃদ্ধ চীনাবাদাম কোলন, ফুসফুস, যকৃত, এবং অন্যান্য ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। সকালে কিংবা বিকালের নাস্তায় চীনাবাদাম রাখুন। এ ছাড়াও এক চামচ চীনাবাদামের মাখন লাগানো এক টুকরো পাউরুটি আপনার শরীরকে ক্যান্সার থেকে দূরে রাখতে পারে।
জাম্বুরা

জাম্বুরা, কমলালেবু , ব্রোকলি এই সব কিছুতে রয়েছে ভিটামিন সি। ভিটামিন সি ক্যান্সার হওয়ার জন্য দায়ী নাইট্রোজেন যৌগের গঠন রোধ করে। জাম্বুরা, কমলালেবু, ব্রকলী এবং ভিটামিন সি সমৃদ্ধ অন্যান্য ফল খাদ্যনালী, মূত্রাশয়, স্তন ক্যান্সার, সার্ভিকাল ক্যান্সার, এবং পেট ও কোলন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। তাই প্রতিদিন আপনার খাদ্যতালিকায় ভিটামিন সি সমৃদ্ধ ফল ও শাকসবজি রাখুন।
মিষ্টি আলু

মিষ্টি আলু বিটা ক্যারোটিন সমৃদ্ধ একটি সবজি। গবেষণায় দেখা যায় উচ্চ মাত্রায় বিটা ক্যারোটিন শরীরে থাকলে তা কোলন, স্তন, পেট ও ফুসফুসের ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়। গবেষণায় আরও প্রমানিত হয়, যে মহিলারা মিষ্টি আলুর মত বিটা ক্যারোটিন সমৃদ্ধ সবজি তাদের খাদ্য তালিকায় প্রতিদিন রাখেন তাদের স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি প্রায় অর্ধেক কমে যায়।
হলুদ

হলুদের মধ্যে বিদ্যমান সবথেকে সক্রিয় একটি উপাদান যা ‘কারকিউমিন’ নামে পরিচিত প্রদাহজনিত সমস্যা বিরোধী এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উভয় হিসাবে কাজ করে। এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট মানব দেহের টিস্যুর মধ্যে প্রবেশ করে ভেতর থেকে দেহকে ক্যান্সার প্রতিরোধী করে তোলে। শরীরকে ক্যান্সার প্রতিরোধী করতে চাইলে কাঁচা হলুদ খেতে পারেন অথবা মাছ ও মাংসের তরকারিতে প্রয়োজন মত ব্যাবহার করতে পারেন।
চা

চায়ে রয়েছে ক্যাটচীন নামক একটি যৌগ। এই যৌগটি মানবদেহকে ক্যান্সারের আক্রমণ থেকে রক্ষা করে। সম্প্রতি চীনের একটি গবেষণায় দেখা গেছে যারা চা পান করেন তাদের ফুসফুস, প্রস্টেট, কোলন এবং স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি যারা চা পান করেন না তাদের থেকে অনেক কম। চায়ের মধ্যে সবুজ চা (গ্রিন টী) ক্যান্সার প্রতিরোধের জন্য সবথেকে কার্যকরী।
ডালিম

ডালিমে রয়েছে ‘এলাজিক অ্যাসিড’। এই এলাজিক অ্যাসিড শরীরে ক্যান্সারের জন্য দায়ী যৌগকে নিস্ক্রিয় করে ও ক্যান্সার কোষ বৃদ্ধি বন্ধ করে। যেকোনো উপায়ে পরিবারের সবাইকে আজকে থেকেই ডালিম বা ডালিম জাতীয় ফল যেমন বেদানা খাবার জন্য উৎসাহী করুন। সালাদ, জুস, মিল্কশেক অথবা সরাসরি যেকোনো উপায়ে ডালিম খেতে পারেন সবাই।
টমেটো

ক্লিনিক্যাল অনকোলজি জার্নালে ২০০৯ সালে প্রকাশিত একটি গবেষণায় দেখা যায় টমেটো ‘লাইকোপিন’ নামক ক্যান্সার প্রতিরোধকে সমৃদ্ধ। লাইকোপিন দেহকে প্রস্টেট ক্যান্সার সহ অন্যান্য ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। তাই পুরুষ ও মহিলা প্রত্যেকের সপ্তাহে অন্তত তিনটি টমেটো খাদ্য তালিকায় রাখা অত্যন্ত জরুরী।
বেরি

ক্যান্সার প্রতিরোধে যে খাবারগুলো তালিকা করা হয় তার মধ্যে বেরিস শীর্ষে। রাস্পবেরি, ব্লুবেরি, ক্র্যানবেরি এবং স্ট্রবেরির মধ্যে রয়েছে ক্যান্সার প্রতিরোধের ক্ষমতা। ‘পটেরস্টিলবেন’ নামক একটি অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট বেরিকে দেয় ক্যান্সার প্রতিরোধের এই ক্ষমতা। প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় মৌসুম অনুযায়ী বেরি রাখা অত্যন্ত জরুরী দেহকে ক্যান্সার প্রতিরোধী করে তোলার জন্য।
http://www.priyo.com/2013/12/04/43785.html#sthash.cyIF29ya.dpuf

45
চা পান প্রতিদিনের রুটিনে পরিনত করেননি এমন মানুষ কমই আছেন। সকালে উঠে এক কাপ ধোঁয়া ওঠা চা শরীরকে ঝরঝরে করে তোলে সারাদিনের জন্য। বিকেলের আড্ডায় চায়ের প্রাধান্য সবখানেই দেখা যায়। শুধুমাত্র শরীরের জড়তা কাটিয়েই চায়ের গুনাগুন শেষ হয়ে যায় না। চায়ের মধ্যে রয়েছে স্ট্রোক, বাত, দাঁতের ক্ষয় রোধ এবং এমনকি ক্যান্সারের মত রোগকে রুখে দেবার মতন ক্ষমতা। চায়ের রয়েছে আরও একটি গুন। সম্প্রতি বিজ্ঞানীরা চায়ে এমন একটি যৌগ খুঁজে পেয়েছেন যেটি চর্বি শোষণের ক্ষমতা রাখে। এর অর্থ চায়ের এতসব গুনাগুনের সাথে আরও একটি গুন যোগ হল, আর তা হচ্ছে শরীরের চর্বি শোষণ করে আপনাকে স্লিম রাখার ক্ষমতা। আসুন চিনে নেয়া যাক সেই ৫ ধরনের চা যা আপনাকে স্লিম রাখতে সাহায্য করবে।
পুদিনা চা

ক্যালোরি দ্রুত ক্ষয় করতে সহায়ক আরেকটি চা হচ্ছে পুদিনার চা বা মেন্থল চা। এই চায়ের মধ্যে রয়েছে পটাসিয়াম, ক্যালসিয়াম এবং ভিটামিন বি যা আপনার ইমিউন সিস্টেমের জন্য অত্যন্ত জরুরি। ছোট বড় সবাই এই চা পান করতে পারেন, হজমের সমস্যার দূর করতেও অত্যন্ত কার্যকর। খুব সহজেই পুদিনার চা তৈরি করতে পারেন। তাজা হলে তো চমৎকার, তাজা পাতা সবসময় না পেলেও সমস্যা নেই। কয়েক টেবিল চামচ শুকনো পুদিনা পাতা ফুটন্ত গরম পানিতে চার/পাচ মিনিট জাল দিয়ে নিন। এর পর এতে প্রয়োজন মত মধু মিশিয়ে নিন। এই চা ঠাণ্ডা ও গরম দুই ভাবেই পান করা যায়। পুদিনার চা খুবই হালকা একটি পানীয় যা নিমিষেই আপনাকে চাঙ্গা করে তুলবে, এছাড়াও আপনার শরীরের চর্বি শোষণ করে স্লিম হতে সাহায্য করবে।
রাশি মৌরির চা

রাশি মৌরি, একটি ছোট্ট চিরহরিৎ গাছ। এটি প্রধানত চীনের স্থানীয় ফল। পরিপাক যন্ত্রণার যেমন পেট খারাপ, ডায়রিয়া, বমি বমি ভাব ইত্যাদির চিকিত্সার জন্য এই ফলটি ব্যবহার করা হয়। রাশি মৌরির চা হজমের সকল সমস্যার উপশম করে। হজমের সমস্যা সমাধান করে এই চা আপনাকে শারীরিক দিক থেকে প্রতিটি খাদ্য থেকে পুষ্টি যোগানোতে সহায়তা করে। এতে করে শারীরিক গঠন ঠিক হয়। রাশি মৌরির চা তৈরি অত্যন্ত সহজ। রাশি মৌরি ফলটির একটি সম্পূর্ণ শুঁটি থেকে এই চা তৈরি করা হয়ে থাকে। একটি সম্পূর্ণ শুঁটি ১০ মিনিটের জন্য এক কাপ গরম পানিতে ডুবিয়ে রাখা হয়। ১০ মিনিট পরে এতে মধু মিশিয়ে নেয়া হয়। ব্যস তৈরি হয়ে গেল স্বাস্থ্যকর মৌরি চা।
সবুজ চা (গ্রিন টী)

গবেষণায় দেখা যায় শরীরের বিপাক ক্রিয়া দ্রুত সম্পন্ন করার জন্য যে রাসায়নিক ইজিসিজি দরকার তা পাওয়া যায় সবুজ চায়ে। এই রাসায়নিক মানুষের শরীরের ক্যালোরি ক্ষয়ে সহায়তা করে। দিনে প্রায় ৭০ ক্যালোরি পর্যন্ত ক্ষয় করার ক্ষমতা রাখে সবুজ চা। গবেষকরা বলেন, যদি আপনি এক বছরে ৫০,০০০ ক্যালোরি ক্ষয় করতে অর্থাৎ ১৫ পাউনড ওজন কমাতে চান, তবে যে কোমল পানীয় পান করেন তার বদলে ১-২ কাপ সবুজ চা পান করুন। সবুজ চা বছরে ৫০,০০০ ক্যালোরি (১৫ পাউন্ডের বেশি ওজন )ক্ষয় করতে সক্ষম। এছাড়াও সবুজ চা শরীরের অ্যান্টিঅক্সিডেন্টসমূহের স্তর ঠিক রাখে। ক্যান্সার সেল উৎপাদনকে নিস্ক্রিয় করতে সবুজ চায়ের ভূমিকা রয়েছে।
ওলং চা

ওলং চা চীনাদের ঐতিহ্যবাহী একটি চা। এটি ক্যামেলিয়া ফুল গাছের পাতা, কুঁড়ি ও ডালপালা থেকে তৈরি বিশেষ ধরনের চা। ওলং চা চিন্তা, দক্ষতা এবং মানসিকতার উন্নতিতে ব্যবহৃত হয়। এটি ক্যান্সার, দাঁতের ক্ষয় , অস্টিওপরোসিস রোগ , এবং হৃদরোগ প্রতিরোধ করতেও ব্যবহৃত হয়। এছাড়াও ইমিউন সিস্টেম উন্নত করতে, স্থুলতা কমাতে, ধমনীতে রক্ত সঞ্চালনের কাজে, উচ্চ কলেস্টেরল কমাতে এই চা বিশেষ ভাবে উপযোগী। স্থুলতা কমাতে এর ভূমিকা সবুজ চায়ের থেকেও বেশি। প্রতিদিন প্রায় ২ কাপ ওলং চা পান করলে স্থুলতা কমবে, ফ্যাট বার্ন হবে।
গোলাপের চা

তাজা গোলাপের পাপড়ি এবং চায়ের কুঁড়ি মিশ্রিত এই গোলাপের চা পৃথিবীর প্রাচীনতম মসলা চা। এই চায়ের রয়েছে মানব দেহের উপর উল্লেখযোগ্য থেরাপিউটিক প্রভাব। এই চা শরীরের টক্সিন দূর করে এবং ত্বককে উজ্জ্বল ও কমনীয় করে। এছাড়া গোলাপের চায়ে বিদ্যমান চা ভিটামিন এ, B3, সি, ডি এবং ই যে কোন ধরনের সংক্রামকের বিরুদ্ধে কাজ করে। এটি কোষ্ঠকাঠিন্য প্রতিরোধ করে এবং ওজন হারাতে সাহায্য করে। এই চা তৈরি করতে আপনার লাগবে কিছু তাজা গোলাপের পাপড়ি ও তাজা চায়ের কুঁড়ি। ফুটন্ত গরম পানিতে তাজা গোলাপের পাপড়ি ও তাজা চায়ের কুঁড়ি ৫-৬ মিনিট জ্বাল দিন। এরপর এতে মধু মিশিয়ে পান করুন। ওজন কমানোর সাথে সাথে এই চা আপনার ত্বকও উজ্জ্বল করবে।
- See more at: http://www.priyo.com/2013/12/01/43303.html#sthash.zG3JiceH.dpuf

Pages: 1 2 [3] 4 5 ... 18