Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Topics - Bipasha Matin

Pages: 1 ... 10 11 [12]
166
Faculty Sections / Nation “Branding”: Propaganda or Statecraft?
« on: November 02, 2016, 03:05:37 PM »
by Simon Anholt

The middle powers, in their struggle for stability, prosperity and recognition, have in recent years developed an intense interest in the question of national image. Nation “branding” is an idea that has gained much currency during the last 10 years, although we are far from reaching any consensus on what such an operation might involve, and indeed whether it really exists outside the realms of pure conjecture and wishful thinking.

Nobody doubts that countries depend on their images much as companies do: With a good national image, attracting tourists, investors and talent, enhancing exports, and winning the approval of other governments and international public opinion is relatively cheap and easy; with a negative or weak image, everything is a struggle. But there is little consensus on whether a good image is merely the natural consequence of successful statecraft, or whether in fact it is possible to address image directly and thus in some way reverse the process: an enhanced image leading to enhanced respect and increased business, and thus an improved reality. Does reality merely produce perceptions as an illness produces symptoms, or can working on the symptoms somehow influence the course of the illness?

These are fascinating questions to ponder, but there is little research or other evidence to help us decide. My own view is that attempting to manipulate perceptions directly, without recourse to the conditions that created those reputations in the first place, is a pretty good definition of propaganda, and what’s more, it doesn’t work. Propaganda depends on a closed society and control over the sources of information reaching the target — two conditions which the forces of globalization have made very difficult to achieve in most countries and starkly impossible in the international sphere.

Trying to operate directly on national reputation is like trying to lose weight by applying creams or vibrating belts to the fat bits: The fat isn’t on the surface but under the skin, and it can only be reduced gradually by taking more exercise and eating less. In the same way, the nation’s reputation isn’t inside the country but deeply buried in the perceptions of countless people around the world — indeed, it is often rooted in their national cultures — and can only be rebuilt slowly and painstakingly by altering its causes. (And my view of the firms that sell logos and slogans to image-conscious countries is that they are even more contemptible than the firms that sell creams and vibrating belts to weight-conscious people.)

In the current climate, some might add that such questions about the images of countries are simply trivial when compared with the harsh facts of economic survival, and that the whole business of understanding and managing public perceptions is a luxury that can only be afforded in times of growth and prosperity. I would argue the opposite: We live in a world where perceptions regularly trump reality — the economic crisis itself is surely proof of that — and today it’s all about the survival of those perceived to be the fittest. Knowing how to deal with intangibles is just as important in such times as traditional military, political or fiscal competence.

Once the decision has been made that “something needs to be done” about the country’s image, there are a number of preliminary questions that really need to be answered and that the governments of the middle powers seldom seem to ask — or at least not in any very rigorous way. Few of these governments, for example, trouble to measure their own country’s reputation, rather unwisely relying on received notions, personal perceptions and hearsay to establish whether there is a problem or not with the way their country is perceived around the world.

Assuming that some measurement and analysis of national reputation has been made, the next most important issue to address is whether and to what extent this reputation is actually deserved. In most cases, this is a foregone conclusion: If people don’t like us, they’re wrong, and if they don’t know us, they’re ignorant. The truth is liable to be a little more complex.

For any country with a weak or negative reputation, the remedy will be very different depending on whether that reputation is deserved or not. If the weakness or negativity is largely deserved, then the country needs to alter its behavior and its offerings in a very substantial way in order to earn a better or stronger reputation. In the rarer event that the negative reputation is largely undeserved, and that it is truly the case that if only people knew the country better they would appreciate it more, then simply encouraging more “product trial” (through tourism arrivals, service and product exports, foreign direct investment, talent and educational recruitment, business and diplomatic visits, major cultural and sporting events, film location promotion, media invitations, and so forth) is likely to be the main aim of any image enhancement program.

If the substance needs to be altered in any significant way, this is clearly going to take far longer and cost far more; if, on the other hand, the reputation is seriously out of kilter with the reality, things can be improved more quickly and more cheaply, and there will be somewhat more emphasis on communication, promotion and incentivizing rather than on policy change, major investment and innovation.

The distinction is easily described but far harder to carry out in any rigorous way. How do you decide whether a country’s image is deserved or not? It is almost impossible for governments or populations to have a sufficiently informed or objective viewpoint on this matter, and since the consequences of making the wrong call are serious, it is very important to get it right. Most people think their own country deserves a better reputation than it has, so such subjective opinions are virtually worthless. (And in my whole career, I have never come across any government, citizen or business that genuinely feels that the reputation of its home country is as good as or better than it deserves.) Patriotism and civic pride are good things, but they do interfere with objectivity, an essential component of any realistic and effective strategy.

Many countries have wasted enormous sums of public money on communications campaigns, based on the assumption that people don’t respect their country simply because they don’t know enough about it. In most cases, they are deluding themselves, and the real reason why their country has a negative reputation is that it doesn’t deserve a positive one.

When we’re talking about the middle powers, the issue is very often one of relevance: Most people don’t care very much about most other countries, especially if they don’t possess a great deal of economic, military, political or cultural clout. Rather than asking themselves “what can we say to make ourselves more famous?” the governments of such countries should be asking “what can we do to make ourselves more relevant?”

The problem is that even if a country truly does deserve a better reputation, simply telling people about it is not enough to alter that reputation. The images of cities and countries scarcely ever change, as the Anholt-GfK Roper Nation Brands Index and Anholt-GfK Roper City Brands Index abundantly prove, and when they do change, they change very slowly as a result of major changes in the city or country and never as a result of more expensive or more imaginative marketing efforts. People are very firmly attached to their views about cities and countries. In general, they will only change them if they simply have no other choice and the evidence is overwhelming.

They don’t generally pay much attention to communications campaigns — especially when there is no “product” or offer, and when the “brand” that is speaking is a government rather than an exciting consumer goods company — so even if a lack of information is indeed the problem, simply providing more information is never the solution.

A reputation can never be constructed through communications, slogans and logos: It needs to be earned.

Simon Anholt is the leading authority on managing and measuring national identity and reputation. He is a member of the UK Foreign Office’s Public Diplomacy Board and has advised the governments of some 30 countries from Chile to Botswana, Korea to Jamaica, and Bhutan to the Faroe Islands. He is Founding Editor of the quarterly journal Place Branding and Public Diplomacy and author of several books. He also publishes two major annual surveys, the Anholt-GfK Roper Nation Brands Index and City Brands Index.

167
Faculty Forum / সময় এখন জামদানীর...
« on: October 31, 2016, 11:58:57 AM »
সময় এখন জামদানীর...

বিপাশা মতিন, শিক্ষক, ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়


বাংলাদেশের মানুষ যদি বাংলাদেশের কোন পন্য নিয়ে গর্ব করে থাকে সেখানে জামদানীর অবস্থান হবে কোন সন্দেহ ছাড়াই, প্রথম। উৎসব ও বিশেষ দিনগুলোতে জামদানীর ব্যবহার হয়ে আসছে আদিকাল হতেই। জামদানি মানে তো কেবল ছয় গজের শাড়িই নয়, বরং এর সঙ্গে জড়িয়ে আছে ইতিহাস, ঐতিহ্য এবং আভিজাত্য।

রূপগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদীর পাড়ের বাতাসে আছে অন্যরকম জাদু। সেই জাদুর পরশেই তৈরি হয়েছে বিশ্ব মাতানো জামদানি। শীতলক্ষ্যার পানি, আবহাওয়া, জলবায়ুর ও তাঁতির পরম আবেগের ছোঁয়ার অদ্ভুত মিলনই বিস্ময়কর এই কাপড় তৈরির অনুঘটক হিসেবে কাজ করেছে। বাংলাদেশের ভৌগলিক নির্দেশক আইন ২০১৩ পাশ হওয়ার পর সরকার বাংলাদেশের এর রেজ্জিস্ট্রেশনের সকল প্রকার প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বলেই খোঁজ পেয়েছি। ইতোমধ্যেই, বিজি প্রেসের জার্নালে জামদানীর রেজিস্ট্রেশনের কথা প্রকাশ করার প্রক্রিয়া চলছে। প্রকাশের ২ মাস অপেক্ষার পর “অনুমোদিত ব্যবহারকারী” হিসেবে বাংলাদেশের পক্ষে, বিসিক, এই রেজিস্ট্রেশন নিবে যদি অন্য কোন পক্ষ হতে কোন প্রকার কোন বিরোধিতা না আসে।     

সরকারের এরকম সময়োপযোগী উদ্যোগকে সাধুবাদ না জানালে অন্যায় হয়ে যাবে।
রেজিস্ট্রেশনের পর, বাংলাদেশ, ভারতের নিকট তাদের জামদানি নিবন্ধন বাতিলের জন্য ভারতীয় ভৌগলিক নির্দেশক আইনের ২৭ ধারা মোতাবেক আবেদন করতে পারবে।
ভারতে আইনি যুদ্ধ বাংলাদেশ যদি কোনো সন্তোষজনক ফলাফল না পায়, বা ভারত যদি জামদানী নিবন্ধন বাতিল না করে তাহলে বাংলাদেশ পরবর্তি ফয়সালার জন্য ডব্লিউটিও এর উরংঢ়ঁঃব ঝবঃঃষবসবহঃ ইড়ফু (উঝই)'র নিকট বিরোধ ফয়সালার আবেদন জানাতে পারবে। 

এই পর্যায়ে শুধু সাহস আর দেশের প্রতি অগাধ ভালোবাসাই পারবে জামদানীকে বাংলাদেশের করে ফিরিয়ে আনতে। সরকার পর্যায় তো অবশ্যই, তবে নাগরিক পর্যায়েও আনতে হবে সচেতনতা।   

ঐতিহ্য ফিরিয়ে এনে বসে থাকলে হবেনা। যারা জামদানী নিয়ে কাজ করছেন, তাদের উদ্দেশ্যেই বলা, জামদানীর স্বকীয়তা বজায় রাখাও কিন্তু ঐতিহ্য রক্ষার সামিল। জামদানীর ব্যবহার বাড়াতে হবে আরো বেশি। তবে তাই বলে জামদানীর গুনাগুনের সাথে কোনরকম আপোষ করা যাবেনা। অক্ষুন্ন রাখতে হবে জামদানীর বিশেষ জ্যামিতিক প্যাটার্ন।

রাষ্ট্রীয় সফরে বিভিন্ন অতিথিরা এলে বাংলাদেশ সরকারের তরফ থেকে যেসব স্মারক শুভেচ্ছা দেওয়া হয় তার মধ্যে জামদানি শাড়ি প্রধান। তবে সেই জামদানী যারা তৈরি করছেন তাদের ছেলে-মেয়েরা এই শিল্পে কাজ করতে অনাগ্রহ প্রকাশ করছেন এমনকি অনেকেই তাদের বাপ-দাদার এই শিল্প বিক্রি করে দিয়ে অন্য ব্যবসায়ে মনোযোগ দিচ্ছেন। ব্যাপারটি এরকম, একদিকে আমরা জামদানীর স্বত্ব নিয়ে কথা বলছি, অন্যদিকে এই জামদানী নিচ্ছিহ্ন করতেও আমাদের অবদান কম না।

সময় এখন তারুন্যের। আর তাই এই দেশের তরুণ প্রজন্মকেই এগিয়ে আসতে হবে এই ঐতিহ্য রক্ষার স্বার্থে। জামদানী নিয়ে গবেষণা, মার্কেটিং, প্রমোশন, ক্রিয়েটিভ ডিজাইন এসবই সম্ভব তরুণদের দিয়ে।

বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায় থেকে এইসব কর্মকান্ডের শুরু হতে পারে। ‘ইন্ডাস্ট্রি ভিজিট’-এ অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ই এখন বিসিকের ‘জামদানী পল্লী’ কে বেছে নিচ্ছেন। ঘুরে দেখছেন ‘জামদানী পল্লী’, তাঁতিদের কাজ, জীবন কিংবা জামদানী নিয়ে ব্যবসায়িক মনোভাবের শুরুও হতে পারে এসকল কার্যক্রম। তরূণদের মধ্যে জামদানীর প্রতি ভালোবাসা তৈরি করতে পারলে অনেক কাজই সহজ হয়ে যাবে।   

খুব সহজ কথা, প্রচার না করলে প্রসার হবেনা। বিসিকের উদ্যোগে বাংলাদেশে ‘জামদানী মেলা’ আয়োজন ছাড়াও আন্তর্যাতিক পর্যায়ে ‘জামদানী মেলা’ করা যেতে পারে। এতে প্রসার যেমন বাড়বে তেমনি বাড়বে ব্যবসায়িক সুযোগও।

পরিশেষে, সর্বজন সমাদৃত জামদানীর মিইয়ে যাওয়া নাম-ডাক ফিরিয়ে আনতে সকলকেই এগিয়ে আসতে হবে। একে অপরকে দোষ দিয়ে নয়, সময় এসেছে একসাথে কাজ করার, সময় এখন তরুণদের।

সময় এখন জামদানীর।   

লেখাটি বিসিক জামদানী মেলার ২০১৬-এর বার্ষিক প্রকাশনীতে প্রকাশিত হয়েছে।

168
Faculty Sections / Discovering the Voice Within by Elita Karim
« on: February 16, 2016, 12:43:23 PM »
This is a story of Bipasha Matin and how she and her friends helped pass a law in Bangladesh.]

In the year 2012, when India patented the art of making Jamdani-- an age old Bangladeshi traditional form of making sarees-- as their own, many in Bangladesh were left thunderstruck. Bipasha Matin, a student of Dhaka University, however, thought of doing something about it. "As soon as I read that India patented Jamdani, I immediately sat online to find out all about it," says Bipasha, now a lecturer of Marketing at Daffodil International University.

She read about the Geographical Indication Act (the GI Act), according to which a country patents or registers its resources, artwork, services and so on with the World Trade Organisation (WTO). As a result, the country enjoys various advantages in the global business market. "For instance, if Mayanmar wants to import Katari Bhog rice to its country, all they would have to do is place this request with the Word Trade Organisation," says Bipasha. "Katari Bhog is actually a Dinajpur specialty and if Bangladesh would patent or register this particular crop, the WTO would automatically suggest Dinajpur as the best place for trade with Myanmar. Not only is there an opportunity created for trade, but the country is also being branded on the global platform in a positive way."

Since 1990 many countries began to patent their respected resources and pass the GI Act. "In 1994, Bangladesh was also sent an application to do so as well," says Bipasha. "In 2003, the government had decided to work on the GI bill and patent resources. In 2007, a draft proposal was made by the government to proceed with the GI Act. Since then, for many years, this draft proposal was left the way it was. I found it on a website while doing my research."

Bipasha then went to the Ministry of Industries and even managed a conference with Dilip Barua, the then minister. "My friends from university and I had gone to meet with him. I remember we had to miss class to do so and the professor had deducted 10 marks each!"

Young Bipasha and her friends spoke to the minister regarding the research that they had done and also how so many of our resources should be patented, for instance the Ilish (Hilsa) fish, Royal Bengal Tiger and so much more. "We also asked him how Jamdani was never patented by Bangladesh. What is this GI Act -- was the first question that he asked," says Bipasha. "He had no idea! After we explained to him, Mr Barua called the registrar of Department of Patent, Design and trademark, Bangladesh. The registrar claimed that the department was taking public opinion before patenting the products, a required step before registering with the WTO. How could the department be taking public opinions for seven years?! I could not help asking in front of everyone." 

The minister then promised to place the issue on the priority list and take the matter to the parliament in September that year. "In addition, we decided to organise public forums so that we could gather public opinions ourselves," says Bipasha. "On October 11, 2012, we organised an open panel discussion in Dhaka University, where we invited representatives from the Taanti Associtaion, Jamdani Association, BGMEA, including the academia. This is because the draft proposal, which would soon be a law, should be included in the syllabus and everyone should be familiar with it in Bangladesh."

Three kinds of goods can be patented with the World Trade Organisation -- agricultural goods, natural goods and manufactured good. "A mere student group cannot go up to the WTO and tell them that Jamdani belongs to Bangladesh or that the famous Yogurt from Bagura, popularly known as Bagurar Doi, Mezbani mangsho (meat) from Chittagong and Rajshahi silk, amongst many more, need to be patented as well," explains Bipasha. "The government needs to provide databases dating back to 3-4 generations at least, with strong historical proof."

While the government worked on passing the law, Bipasha and her friends worked on getting databases. "We included many young students from different parts of the country and asked them to provide names of goods, famous in the respective areas," says Bipasha.
On 6 November 2013, Bipasha got a call from the ministry. "It was the day the GI Act law would be passed in the parliament," she says. "I was invited to be present there! It was a proud moment for me. That's when I realised that I had a voice and it mattered! The task was not easy but then again, it was not impossible."

Link: http://www.thedailystar.net/discovering-the-voice-within-50365

169
The terms ‘image’ and ‘identity’ are often confused.

Brand image relates to how the brand is perceived from the customer’s point of view, while brand identity is the unique set of visual, auditory and other stimuli that express the brand and shapes its image.  Each must be deeply rooted in the foundations of the brand. 

Think of brand identity as being like the identity of a friend, comprised of his or her name, appearance, personality, speech, ethnicity, and personal style among many other elements.  Image, on the other hand, comes from the external view and in this context relates to what people may think of your friend. It is their perceptions and therefore their reality of who that person is and what they represent.

Strong brands are built on trust. There must be alignment between what the brand promises and the reality of the actual experience. If the two are out of sync the brand will not be sustainable unless there are plans - and resources - to bridge the gap. In the case of a city, if its performance is of a high standard and its image is bad or non-existent, then it has a deficient brand strategy and may need increased or more accurate communications.

A city has a real image challenge when people outside of it do not accurately know the reality of the place. The imbalance between the internal identity and the external image of many places limits their development. This often happens when the city is projecting itself as one thing, but the reality is much different. For example, the city promotes itself as a place for romantic beach getaways, but visitors find that restaurant service is a nightmare, hotels are substandard, and that after-hour beach walkways are hard to find or poorly lit. Strong, successful brands don’t display this kind of dissonance. Destination managers must constantly monitor customer satisfaction and “test drive” the services and experiences in their own city to ensure that they the images matches the reality and is aligned with the promises that they are making.

170
Having spent some time observing the rise and fall of brands across many different categories and countries, I have come to the conclusion that brands fail not because they lose market share, but because they lose pricing power. Through the company’s own inaction or competitive action, the brand fails to command any price premium—and once lost, that premium is very difficult to recover. So why do so many companies ignore their brands’ pricing power?

What makes the failure to manage price so strange is that the classical definition of a brand’s value used to be the price that the brand could command over a generic competitor. Today, however, marketers appear to have become fixated on driving sales irrespective of price paid. Lower prices, in the form of in-store discounts and online incentives, have become a widespread mechanism used to generate more sales without regard for profitability.

Even stranger is that, in parallel to this shift, it has become legitimate to include brands as assets on the company’s balance sheet. Companies now regularly add brand acquisitions to their financial statements, and three major rankings of brand value have come into existence. However, only Millward Brown’s BrandZ Top 100 Most Valuable Global Brands ranking actually takes consumer opinion into account in order to determine that value. Again, somehow the power of the brand seems to have become decoupled from its origins: the ability to create and sustain a long-term flow of profit by making people want to buy the product or service, and to pay a good price for it.

In Brand Premium: How Smart Brands Make More Money, I demonstrate how consumers’ brand attitudes impact three important outcomes that drive financial performance: willingness to buy, perceptions that the price asked is worth paying, and future growth potential. I show how Millward Brown’s power, premium and potential metrics relate not just to value market share, but also to operating profit. Brands that scored high on both power and potential returned a profit margin 31% higher than brands that scored low on both measures.

I would argue that the additional margin returned by a strong brand is, in large part, due to the pricing power that it commands. The evidence that consumer attitudes matter, particularly in relation to price paid, has continued to build. In 2014, Millward Brown integrated its attitudinal survey data with behavioral purchasing data from Colmar Brunton’s NZ Fly Buys shopper panel and found that consumers pay more on average for brands that they consider meaningfully different from the competition. Based on survey data alone, a premium score was calculated for each brand for each respondent in the survey. Brands that people believed were meaningful (met their needs and were more appealing than the competition) and different (unique or trendsetting) had a higher premium score. The higher an individual’s premium score for a brand, the more likely the individual is to pay a premium for that brand. On average, people paid 39% more for high premium brands (the top third of premium scores compared with the bottom third).

The finding that meaningfully different brands can command a significant price premium helps explain why many brands find themselves trading margin for sales volume. The underlying problem usually originates from weak consumer demand. People either simply do not want to buy the brand, or are not willing or able to pay the price asked, even if they still find the brand desirable. New competitive innovation often leaves these brands seeming outdated and outmoded. Unless the brand can boost perceptions of positive differentiation, people will only buy at lower prices. Particularly when retailers or resellers are involved, there is huge pressure to maintain sales volume, and one of the easiest ways of doing so is to discount the brand.

When brands resort to discounting, sales and market share often remain stable. In fact, sales may well increase as lower prices may attract new, price-sensitive buyers who previously regarded the brand as too expensive. Brand managers may get lured into a false sense of security because many attitudinal metrics also will reflect the size and salience of the brand. Unfortunately, however, these big brands are not strong brands. Purchase is supported by habit and low prices—not real attitudinal loyalty—and is vulnerable to competitive action.

Take the case of one big brand leader: Rather than offering an improved brand experience or adapting its offer to be more relevant to fend off new competition within its category, it resorted to price discounting. Perceptions that the brand had something different to offer fell, undermining its ability to justify its price point. Five years later, sales were flat and the operating margin was less than a fifth of what it had been.

Sadly, this example is far from uncommon. Brand attitudes affect more than whether people will choose a brand. They affect how much people are willing to pay for it, as well. Unless a brand is seen to be different in some way that resonates with consumers, it will become commoditized. Marketers would do well to ensure that their brand is seen as meaningfully different from its competition if they wish to maintain its long-term profitability.

Link: http://blog.ama.org/pricing-power-a-brands-most-valuable-but-under-valued-asset/?utm_content=bufferd26d4&utm_medium=social&utm_source=facebook.com&utm_campaign=buffer

171
Faculty Sections / Could You Draw Brand Logos From Memory?
« on: October 20, 2015, 05:04:23 PM »
We Asked People in Times Square to Give It a Shot Survey says even Apple's mark can be a challenge.

Many of the world's most recognizable brands have the world's most recognizable logos. And a successful visual identity of a brand can, even without showing the brand name, make consumers name it instantly. But does that translate when regular people try to draw said logos themselves?

The answer is "no," according to a UCLA study published earlier this year. Researchers asked 85 UCLA students to draw the Apple logo from memory. The results? Only one student was able to accurately reproduce the logo.

An explanation for this, the researchers found, might be that "our brains have learned it is not important to remember specific details. An efficient memory system does not need to store the details of a corporate logo."

We tested this out this week in Times Square—arguably the most corporate-logo-laden location in New York—where we asked unsuspecting strangers to draw some of the world's most memorable brand logos.

172
জামদানীর গল্প
বিপাশা মতিন, শিক্ষক, ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়, জামদানির প্যাটেন্ট নিয়ে কাজ করছেন।

জামদানীর সাথে আমার স¤পর্ক একদিনের না, খুব নতুন ও না। সেই ছোটবেলা থেকেই নাচের প্রয়োজনে শাড়ি পরা হোত। খেয়াল করতাম, আম্মু সব শাড়ি পরতে দিলেও বিশেষ এই শাড়িটি দিতোনা। মন খারাপ লাগতো খুব। একদিন খুব করে বায়না করাতে আম্মু বলল, “এইটা জামদানী, অনেক দামী শাড়ি, যত্ন করে রাখতে হয়, এইটা পরতে দেয়া যাবেনা”। তাই বলে এতো যত্ন?

অনেক অপেক্ষার পরে খালার বিয়েতে শাড়িটি আমার পরা হয়। সে কি আনন্দ আমার! সে কি উচ্ছাস!
 

যেমনি একদিনে জামদানির প্রতি আমার এই উচ্ছাস প্রকাশ পেয়েছিল, ঠিক তেমনি, ২০১২ সালের এপ্রিলের কোন এক সকালে খবরের কাগজ পড়তে গিয়ে আমার সেই উচ্ছাসে পড়ে হঠাত ভাটা!   
খবরটা অনেকটা এ রকম 'ইন্ডিয়া নাকি জামদানির পেটেন্ট (স্বত্ব) দাবি করেছে   আমাদের নাকি চড়া দামে (কর) জামদানি কিনতে হবে, জামদানি নাকি আর বাংলাদেশের থাকবে না।

খবরটা শুনে মনে হয়েছিলো আমার শাড়ির আঁচলে কে যেন টান দিলো!
না, আমার অস্তত্বিে বোধহয় টান পড়েছে!

খবরটির যৌক্তিকতা খুজতে গিয়ে দেখি, ভৌগোলিক নির্দেশক আইন (জিওগ্রাফিক্যাল ইনডিকেটর বা জিআই অ্যাক্ট) এর আওতায় কিছুদিন আগে ভারত ‘কালনা’ জামদানি এবং ‘উপাধা’ জামদানি নামে দুটি শাড়ির নিবন্ধন চেয়ে আবেদন করেছে। সেই তালিকায় বাংলাদেশের আরো কিছু প্রসিদ্ধ ও ঐতিহ্যবাহী পন্য, যেমন, ফজলি আম, নকশীকাঁথা, শীতলপাটি ও আছে।

অথচ আমাদের দেশে ঐতিহ্যবাহী নিজস্ব পণ্য সংরক্ষণে দীর্ঘদিন কোনো আইন না থাকায় এসব পণ্যের মালিকানা চলে গেছে ভারতের হাতে। 

একটা গল্প শুনেছিলাম, এক দেশে ছিল দুই বোন। বড় বোন ছিল খুব আদরের। বড় বোনের প্রশংসায় পুরো পরিবার গর্বিত। সে ছিল বিশাল স¤পদ। একদিন কোন এক দূর্যোগে বড় বোনহারিয়ে গেলে ছোটবোনটি ধীরে ধীরে বড় হতে থাকে। বড় বোনের আদলে ছোট বোন যেন নতুন রূপে নিজেকে বিকাশ করেছে । পরিবারে ছোটবোনটিও হয়েছে প্রশংসিত এবং প্রসিদ্ধ। এই দুই বোন আর কেউ নয়, আমাদের এই বাংলা পরিবারের অনেক বড় দুটি শিল্প-স¤পদ মসলিন ও জামদানি।

কথিত আছে, ১৭৫৭ সালে ইস্ট ইন্ডিয়া কো¤পানীর হাতে দেশের শাসনভার চলে যাওয়ায় মসলিন শিল্পের বিলুপ্তি ঘটে। ব্রিটিশরা মসলিন কারিগরদের বৃদ্ধাঙ্গলি কেটে দেওয়ায় এ শিল্প হতে তারা দূরে সরে গিয়ে কৃষিকাজে যুক্ত হয়।
ধ্বংস হয়ে যায় হাজার বছরের পুরোনো বাংগালি ঐতিহ্য মসলিন।

এদিকে, মসলিনের অনুপস্থিতিতে জামদানি হয়ে উঠে বাংলার প্রধান বস্ত্রশিল্প। নারায়ণগঞ্জ এর যেই স্থানগুলো একসময় মসলিন তৈরি করে পৃথিবীকে অভিভূত করে ফেলেছিলো, সেখানেই গড়ে উঠেছে আজকের জামদানি পল্লী। আমাদের জামদানি পল্লী।  জামদানির খানদানি গল্প শুরু রাজা বাদশাহর আমল থেকেই।

খ্রিষ্টপূর্ব যুগে জামদানির বিকাশ ঘটে। ফারসি শব্দ থেকে আসা জামদানি নামটির ব্যবচ্ছেদ করলে দাঁড়ায়, “জামা” এবং “দানি”। জামা শব্দের অর্থ কাপড় এবং দানি শব্দের অর্থ বুটি। অর্থ্যাৎ জামদানি শব্দের আভিধানিক অর্থ হলো, বুটিযুক্ত কাপড়। রুবি গজনবীর মতে ফরাসি অপর শব্দ জাম-দার অর্থাৎ ফুলকরা বা বুটি দ্বারা খচিত করা (ঊসনড়ংংবফ) থেকে জামদানীর নামকরণ।জামদানি প্রসিদ্ধ হয়েছে তার বিখ্যাত জ্যামিতিক ডিজাইনের কারনে। জামদানির ব্যাপারে আরো একটি বিষয় না বললেই নয়, সেটি হল, জামদানী তৈরির পেছনের কাহিনী। বিশিষ্ট ফ্যাশন ডিজাইনার, বিবি রাসেল, আমাকে একদিন বলেছিলেন, জামদানি তৈরিতে এদেশের মাটি ও আবহাওয়া ও বিশেষ ভূমিকা রাখে। অনেকেই এই জামদানি রুপগঞ্জ ছাড়াও অন্য অনেক জায়গায় বোনার চেষ্টা করেছিলেন। একই সূতা, একই খাটিয়া, একই তাঁতি, কিন্তু স্থান ভিন্ন। হয়নি বোনা জামদানি, পারেনি বুনতে সেই জ্যামিতিক ডিজাইনের জামদানি।

আমার দেশের জামদানির এটি একটি অন্যতম বৈশিষ্ট্য। যা একেবারেই বাংলাদেশের নিজস্ব। যা কখনই অনুকরন করা যাবেনা। সেখানে ভারতের জামদানির প্যাটেন্ট দাবী করা পুরোই অযৌক্তক। বিষয়টি নিয়ে সরকারকে দোষারোপ করার চাইতে আমাদের উদাসীনতাকেও বিবেচনায় আনা উচিত। আমরা কেন ভুলে যাই, আমরাই তো এই দেশের সরকার? আমরা সবাই মিলেই তো এই দেশ, বাংলাদেশ।

আমি তাই-ই বিশ্বাস করি বলেই বিষয়টি জানার পর পরই সরকারের সমালোচনাতে ব্যতিব্যস্ত না হয়ে সরকারের সাথে আলোচনা করতে গিয়েছিলাম। জানতে চেয়েছিলাম, কি পদক্ষেপ নিচ্ছে সরকার জামদানির প্যাটেন্ট নিয়ে? কেন সাত বছরেরও বেশি সময় ধরে থমকে আছে ভৌগোলিক নির্দেশক আইন (জিওগ্রাফিক্যাল ইনডিকেটর বা জিআই অ্যাক্ট) এর খসড়া? কিভাবে নেয়া হচ্ছে জনগনের মতামত? আদৌ নেয়া হচ্ছে কিনা? মনে অনেক প্রশ্ন ছিলো আমার। অনেক না জানা বিষয় জানার আগ্রহ ছিল আমার।
বাংলাদেশের যদি গর্ব করার মতো কোন কিছু থাকে, জামদানি তাদের মধ্যে অন্যতম। আমার বিদেশি অনেক বন্ধুদের আমি জামদানি দিয়ে বাংলাদেশকে চেনাই। জামদানি বাংলাদেশের প্রান, প্রেরণা ও পরিচয়।

তৎকালীন শিল্পমন্ত্রি দিলীপ বড়ুয়া আমাদের স¤পূর্ন কথা ও অভিযোগ খুব মনোযোগ দিয়ে শুনলেন। খুব অবাক ও হলেন এরকম একটি বিষয় নিয়ে আমাদের উদ্বেগ দেখে। আশ্বাস দিলেন আইনটি দ্রুত সংসদে পাশ করানোর।

আশ্বাস পেয়ে আমার কাজের গতি আরো বেড়ে যায়। জামদানি ছাড়াও অন্যান্য দেশীয় সকল প্রসিদ্ধ ও ঐতিহ্যবাহী পন্যের তথ্য সংগ্রহে নেমে পড়ি মাঠে।
দেখতে দেখতে কেটে গেল প্রায় নয় মাস। প্রতি সপ্তাহে শিল্প মন্ত্রণালয়ে ঢুঁ মারা আমার রুটিন হয়ে গিয়েছিল। মন্ত্রণালয়ে আমার নাম হয়ে গিয়েছিল, “জামদানি আপা”।

অবশেষে, ২০১৩ সালের ৬ নভেম্বর, জাতীয় সংসদে আইনটি পাশ হয় এবং সেদিন সংসদে মন্ত্রির বিশেষ দাওয়াত আমাকে আরো আবেগাপ্ল“ত করে তোলে।
‘যাক, এইবার বোধহয় জামদানি আমার বাংলাদেশের প্রমান করা যাবে’। কিন্তু, হায়!, এখনো যে বিধিমালা তৈরি বাকি!

খবর নিয়ে জানলাম, আইন প্রনয়ণের পর সেই আইনের বিধিমালা করতে হয়। ভৌগোলিক নির্দেশক আইন (জিওগ্রাফিক্যাল ইনডিকেটর বা জিআই অ্যাক্ট) এর বিধিমালার কাজ এখন প্রায় শেষ পর্যায়ে। বিধিমালা পাওয়া মাত্র এক মুহূর্ত দেরী না করে আমাদের দেশের ভৌগলিক নির্দেশক আইনের আওতায় জামদানীকে নিবন্ধন করতে হবে।  বাংলাদেশ, তারপর, ভারতের নিকট তাদের জামদানি নিবন্ধনের বাতিলের জন্য ভারতীয় ভৌগলিক নির্দেশক আইনের ২৭ ধারা মোতাবেক আবেদন করবে। ভারতে আইনি যুদ্ধ বাংলাদেশ যদি কোনো সন্তোষজনক ফলাফল না পায়, বা ভারত যদি জামদানী নিবন্ধন বাতিল না করে তাহলে বাংলাদেশ পরবর্তি ফয়সালার জন্য ডব্লিউটিও এর উরংঢ়ঁঃব ঝবঃঃষবসবহঃ ইড়ফু (উঝই)'র নিকট বিরোধ ফয়সালার আবেদন জানাতে পারবে।
আরো একটি বিষয়, মার্কেটিং-এর শিক্ষক হিসেবে আমি বলতে চাই। জামদানী আভিজাত্যের প্রতীক। এই শাড়ির বিশেষ একটি সেগমেন্ট বা বাজার আছে। খুব সহজে বলতে গেলে জামদানী একটি প্রিমিয়াম বা অভিজাত পন্য। কিন্তু বর্তমানে, জামদানির বাজার বৃদ্ধি ও অধিক মুনাফা অর্জনের জন্য নাইলনের সুতায় মেশিনে তৈরি শাড়ি জামদানির নামে অবাধে বিক্রি হচ্ছে। যা কিনা দামেও অনেক কম।

আমার সোজা কথা, জামদানি রক্ষা করতে গিয়ে আমরা আমাদের জামদানি হারিয়ে ফেলছি নাতো? সবার জন্য জামদানি, বা গঅঝঝ গঅজকঊঞওঘএ করতে গিয়ে জামদানির বিশেষ সেই সেগমেন্ট (প্রিমিয়াম) থেকে সরে আসছি নাতো? নকশার পরিবর্তন বা ভিন্নতা আনতে গিয়ে জামদানির সেই বিশেষ  জ্যামিতিক নকশা বা মোটিফ হারিয়ে যাচ্ছে না তো? দাম কমিয়ে সবার ব্যভারের উপযোগী করতে গিয়ে জামদানীর কোয়ালিটির সাথে আপোষ করছি নাতো?

আমার মা বলতেন, ‘সবাইকে খুশি রাখতে গেলে কাউকেই খুশি রাখতে পারবেনা’। একই কথা পড়েছিলাম, মার্কেটিং পড়তে গিয়েও। তাই, যারা জামদানির নকশা ও তাঁতিদের সাথে কাজ করছেন, তাদের কাছে আমার জোরালো আবেদন, জামদানিকে শুধু মুনাফা অর্জনের পন্য হিসেবে না দেখে, দেশের স¤পদ হিসেবে দেখুন।

থাকনা এই জামদানি বিশেষ একটি সেগমেন্টের জন্য? হোকনা জামদানি শুধু বিশেষ একটি দিনে পড়ার জন্য? থাকুক না জামদানি তৈরি শুধু হাতে বোনায় সীমাবদ্ধ? দাম ও মান কমিয়ে দিলে মসলিনের মত জামদানিও বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারে। মসলিনের মতো জামদানি হয়তো একদিন শুধু জাদুঘরেই দেখতে পাবো। এই ক্ষেত্রে, ভৌগোলিক নির্দেশক আইন (জিওগ্রাফিক্যাল ইনডিকেটর বা জিআই অ্যাক্ট) জামদানিকে দিতে পারে এই সুরক্ষা।

কিছু পরিকল্পনা করা যেতে পারে এখন থেকেই, যেমন,

১। মেশিনে জামদানী তৈরি করা বন্ধ করতে হবে।
২। শুধুমাত্র দাম কমানোর জন্য জামদানির সুতোয় অন্য সুতোর মিশ্রণ হবে শিল্পটিকে হত্যা করানোর মতন। আর তাই, জামদানির সুতা ব্যবহারে সুতার গুনাগুনে কোন আপোষ না করা।
৩। জামদানিকে সহজলভ্য করতে গিয়ে জামদানির গুনাগুন নষ্ট না করা। বরং শিল্পটিকে একই রকম রেখে এক্সক্লুসিভভাবেই ক্রেতার সামনে আনতে হবে এবং কিনতে উৎসাহী করাতে হবে।
৪। উৎসব ও বিশেষ দিনগুলোতে জামদানীর ব্যবহার বৃদ্ধি করা, হতে পারে, সেটা বিয়ের দিনই। সেক্ষেত্রে যদি দেশের জনপ্রিয় ফ্যাশন হাউজ এবং ফ্যাশন ডিজাইনাররা জামদানি দিয়ে এক্সক্লুসিভ শাড়ি বানায়- তাহলে অনেক নারীই তার বিয়ের শাড়ি হিসেবে জামদানিকেই বেছে নিতে পারে। জামদানি মানে তো কেবল ছয় গজের শাড়িই নয়, বরং এর সঙ্গে জড়িয়ে আছে ইতিহাস ও ঐতিহ্য।
৫। জামদানির ব্যবহার শুধু শাড়িতে সীমাবদ্ধ না রেখে, শার্ট, ফতুয়া, স্কার্ফ, ব্যাগ, ওয়ালম্যাট ও করা যেতে পারে। এবং সেটা অবশ্যই জামদানির নিজস্ব প্যাটার্ন অক্ষুণè রেখে।
৬। দেশ ও বিদেশের বিভিন্ন মিডিয়াতে বিভিন্নভাবে তুলে ধরতে হবে জামদানিকে। ভুলে গেলে চলবেনা, প্রচারেই প্রসার। এর ফলে একদিকে যেমন আমাদের আগ্রহ সৃষ্টি হবে, তেমনি অন্যদিকে জামদানি শিল্পীরাও ভালো থাকতে পারবেন।
৭। আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রায়ই দেশের বাইরে গেলে নিজে জামদানি পড়েন এবং উপহার হিসেবে জামদানিকেই প্রাধান্য দেন। ঠিক তেমনি, জামদানির প্রচারের জন্য এরকম কিছু ‘ব্র্যান্ড’ অ্যাম্বাসেডার তৈরি করতে হবে।
৮। জামদানির গল্প ও ইতিকথা বিদ্যালয়ের পাঠ্যপুস্তকে অর্ন্তভুক্ত করতে হবে। পরবর্তি প্রজন্মের কাছে মসলিনের মতো, জামদানি কোন ইতিহাস না বরং গর্বের বিষয় হোক।
৯। জামদানি নিয়ে ডকুমেন্টারি করে মিডিয়া ছাড়াও বিভিন্ন ইভেন্ট করে প্রচারনা চালানো যেতে পারে।
১০। জামদানির জন্য জাদুঘর না বরং দেশ-বিদেশে জামদানির এক্সিবিশন দরকার যেখানে জামদানির বিভিন্ন নকশা, সুতা, শাড়ির ও জামদানি নিয়ে করা অন্যান্য পন্য প্রদর্শন করা যেতে পারে। প্রতি বছর জামদানি মেলা আয়োজন করে বিসিক এক্ষেত্রে খুব ভালো একটি ভূমিকা রাখছে। বিদেশেও এরকম জামদানি মেলা আয়োজন করলে প্রচার হবে আরো বেশি।
১১। সবশেষে, সরকার ও ব্যক্তিগত পর্যায়ে জামদানি তাঁতিদের বিশেষ সুবিধার ব্যবস্থা করতে হবে। সেটা হতে পারে সুতার ব্যবস্থা, খুদ্র ঋণের ব্যবস্থা, তাঁতিদের ট্রনেংি এর ব্যবস্থা এবং বিশেষ সম্মাননা দয়ো, জাতীয় পর্যায়ে বেস্ট ডিজাইনার বা বেস্ট সেলারকে পুরস্কৃত করা, তাঁতিদের ছেলেমেয়েদের পড়ালেখা নিশ্চিত করা ইত্যাদি। তা না হলে এই তাঁতিরাই তাদের পরবর্তি প্রজন্মকে এই শিল্পে আনতে আগ্রহী হবেনা। বিসিকের উদ্যোগে ‘জামদানি পল্লী’ করা হয়েছে। আমরা চাই, সেই জামদানি পল্লীর মাধ্যমে নতুনদের এই শিল্পে আগ্রহী করে তোলা হোক। 
১২। তাঁতি ছাড়াও দেশের নবীন ডিজাইনারদের এই শিল্পে আগ্রহী করে তুললে এই শিল্পের প্রসার হবে ব্যাপক।
১৩। সরকারি বা বেসরকারি পর্যায়ে জামদানির একটি বিশেষ ‘ব্র্যান্ড’ তৈরি করতে হবে। দেশি ও বিদেশি বিভিন্ন ফ্যাশন প্রতিযোগিতা আয়োজন করে এই ‘ব্র্যান্ড’ পরিচিত করতে হবে বিশ্বের দরবারে।
১৪। ভৌগোলিক নির্দেশক আইন (জিওগ্রাফিক্যাল ইনডিকেটর বা জিআই অ্যাক্ট) এর বিধিমালা পাওয়া মাত্র এক মুহূর্ত দেরী না করে আমাদের দেশের ভৌগলিক নির্দেশক আইনের আওতায় জামদানীকে নিবন্ধন করতে হবে। ভারতের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে নিজস্ব মালিকানা পুনরুদ্ধারের চেষ্টা করতে হবে।

সবশেষে, জামদানির ইতিহাস বাংলাদেশের এটি অস্বীকার করার কোন উপায় নেই। জামদানির বিপ্লব শুধু জাতীয় পর্যায়ে নয় বরং ব্যক্তিগত পর্যায়ে শুরু করতে হবে। কেবল বাঙালি উৎসবে নয়- যেকোন উৎসবে জামদানি হয়ে উঠুক বাঙালির পোশাক- আমি শুরু করেছি, আমার বিয়েতে বিদেশি শাড়িকে না বলে, জামদানি পরে। ঠিক তেমনি বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিভিন্নভাবে অভিজাত এই জামদানির ব্যবহার জামদানিকে করতে পারে বাংলাদেশের একটি ‘ব্র্যান্ড’।

173
Inspiration / Charactereristics of Losers@!
« on: July 12, 2015, 05:02:04 PM »

174
‘গেল গেল, দেশটা রসাতলে গেল’। ‘জামদানির প্যাটেন্ট ভারত নিয়ে গেছে’—খবরটি পড়ার পর আমিও এই কথাটি বলতে পারতাম। সেদিন সকালে খবরের কাগজ পড়ে যখন ভৌগোলিক নির্দেশক আইন সম্পর্কে জানতে পারলাম, তখন অন্য সবার মতো দেশটা নিয়ে আক্ষেপ করে আমিও বলতে পারতাম, এই দেশের কিচ্ছু হবে না। খবরের কাগজটি ছুড়ে ফেলে বিরক্তি ভরে চায়ের কাপে চুমুক দিয়ে দেখতে পারতাম দেশটা ছেড়ে বিদেশে চলে যাওয়ার স্বপ্ন। কিন্তু না।

এসব কিছুই ভাবিনি, বলিনি বা করিনি আমি; বরং ব্যাপারটা কী, তা জানতে বসে পড়ি ইন্টারনেটে। খোঁজ নিয়ে দেখলাম, ভৌগোলিক নির্দেশক আইন একটি বিশেষ আইন, যার আওতায় একটি দেশ তার ঐতিহ্যবাহী প্রসিদ্ধ পণ্যগুলোর স্বত্ব নিশ্চিত করতে WTO-এর TRIPS চুক্তির আওতায় রেজিস্ট্রেশন নিয়ে থাকে। বাংলাদেশও আইনটি করার উদ্যোগ নিয়েছিল, খসড়া আইন হয়ে গেছে, তারপর কোনো কারণে সব স্থবির হয়ে আছে। আইনটি সাত বছরেরও বেশি সময় ধরে শিল্প মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে রাখা ছিল জনমত যাচাইয়ের জন্য। কিন্তু এত দিন লাগবে কেন জনমত নিতে?
চলে গেলাম সরাসরি শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়ুয়ার (তৎকালীন) কাছে। সত্য কথা বলতে বাংলাদেশের মন্ত্রীদের সম্পর্কে খুব একটা ভালো ধারণা আমার ছিল না। সে রকমই না-বাচক মনোভাব নিয়ে কোনো ধরনের কোনো অ্যাপয়েন্টমেন্ট ছাড়াই তাঁর সাক্ষাৎ চেয়ে বসি। তিনিও দেখা করলেন। জানাই বিষয়টি নিয়ে আমাদের গভীর উদ্বেগের কথা। আসলে সেদিন কোত্থেকে এত সাহস পেয়েছিলাম আমি জানি না, তবে সাহসটি যে দেশের প্রতি টান থেকেই এসেছিল, তাতে কোনো সন্দেহ নেই।
আর তা না হলে আমার পড়াশোনার বিষয় না, অ্যাসাইনমেন্টও না, রিসার্চও না, শুধু শুধু কেন বিষয়টা নিয়ে এত উৎকণ্ঠা আমার? ব্যাপারটি তখন ‘ঘরের খেয়ে বনের মোষ তাড়ানোর মতো বিষয়’।
যা-ই হোক, একজন মন্ত্রী যখন কনফেস করেই ফেলেন, তখন আর কিছুই বলার থাকে না। কিন্তু তার পরও চাপা একটি ক্ষোভ ছিল তাঁদের ওপর, যাঁরা বিষয়টির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন। সরকারকে দোষারোপ না করে কেন তাঁরা নিজেরা উদ্যোগ নিলেন না? কেন সাত বছরের বেশি সময় ধরে সরকারি টেবিলে ঘুরছিল আমার দেশের ঐতিহ্য, সংস্কৃতি বিষয়ের আইনের খসড়াটি? দেশটি নিয়ে গর্ব করার মতো আছেই বা কী? এই ঐতিহ্যবাহী পণ্য বা সংস্কৃতিই তো। না? তাহলে এসব নিয়ে কেন আমাদের এত অবহেলা?
আমাদের সমস্যাটা কোথায় জানেন? এই দেশের কোনো কিছুকেই আমরা আমাদের করে ভাবতে পারি না, নিজের বাঁধা কাজ ছাড়া অন্য কোনো কাজকে আমার কাজ বলে মনে হয় না। আর এ কারণেই কোথায় যেন থমকে আছে দেশটি।
আমার উদ্দেশ্য ছিল শুধু জামদানি নয়, দেশের সব ঐতিহ্যবাহী ও প্রসিদ্ধ পণ্যগুলোর প্যাটেন্ট নিশ্চিত করা। কাজটা খুব একটা সহজ ছিল না। আমি প্রথমেই যা করলাম, তা হলো আমার বন্ধুদের উদ্বুদ্ধ করা। মজার ব্যাপার, আমার বন্ধুরা ছিল আমার মতোই পাগলাটে। হাসিব ভাই, মশিউর, তুহিন, ফারহানা, তৃষা, ফুজায়েল—সবাই একবাক্যে রাজি হয়ে গেল। আমার মনে আছে, মন্ত্রীর সঙ্গে যেদিন সাক্ষাৎ করি, সেদিন আমরা সবাই ক্লাস মিস করেছিলাম। আমার অন্য বন্ধুরা আবার বন্ধুত্বের পরিচয় দিতে গিয়ে সবার প্রক্সি দিয়ে দেয়। ধরাও খেয়ে যাই স্যারের হাতে। শাস্তি হিসেবে সবার ১০ নম্বর করে কেটে নেওয়া হয়। কিন্তু সেদিন কারও চোখেমুখে আমি সেই নম্বরের জন্য আফসোস দেখিনি। মন্ত্রীর সাক্ষাৎ পেয়েছি, কাজ এগোচ্ছে, এতেই তারা খুব খুশি! কী হবে এই নম্বর দিয়ে? খুব ভালো সিজিপিএ? ভালো একটা চাকরি? কিন্তু এখানে তো দেশের ব্যাপার। কোনো আপস না, কোনো ছাড় না।
মন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের পর আমরা যখন তাঁকে বলি, জনসম্মুখে তাঁকে ব্যাপারটা খোলাসা করতে হবে, প্রমিজ করতে হবে যে খুব শিগগির আইনটি সংসদে পাস করানো হবে, তিনি একবাক্যে রাজি হয়ে গেলেন। এর পর থেকেই আসলে আমাদের কাজ শুরু হয়। মন্ত্রী নাহয় আইন পাস করাবেন, কিন্তু WTO-তে তো ডেটাবেইস উপস্থাপন করতে হবে, প্রমাণ করতে হবে জামদানিসহ এসব পণ্য একমাত্র বাংলাদেশেই বিখ্যাত। নেমে পড়ি তথ্যভান্ডার তৈরির কাজে। দেশের পরিস্থিতি তখন ভালো না। আমি ২০১৩ সালের মার্চ-এপ্রিলের কথা বলছি। পুরোদমে তখন হরতাল-অবরোধ চলছে। এত সব বাধা থাকা সত্ত্বেও আমাদের কাজ থেমে থাকেনি। সারা বাংলাদেশের সাতটি বিভাগ থেকে ৪০টিরও বেশি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ৭০টিরও বেশি পণ্যের তালিকা সংগ্রহ করি। পরিকল্পনা হলো, এই তথ্যভান্ডার আমরা শিল্প মন্ত্রণালয়ে জমা দেব, যাতে সংসদে আইনটি পাসের সঙ্গে সঙ্গে বাংলাদেশ WTO-তে এসব পণ্যের বিস্তারিত পাঠিয়ে স্বত্ব দাবি করতে পারে।
এর মধ্যে প্রতি সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার শিল্প মন্ত্রণালয়ে হানা দেওয়াও আমার রুটিন হয়ে গিয়েছিল। প্রথম প্রথম তাঁরা বিরক্ত হলেও একটা পর্যায়ে আমার এই হানা দেওয়ার প্রতি অভ্যস্ত হয়ে পড়লেন তাঁরা। ‘জামদানি আপা’ বা ‘জি-আই আপা’ বলে ডাকতেন অনেকে। তবে অনেকে এ কথাও বলতেন, ‘পড়ালেখা নাই তোমাদের?’ হেসে উত্তর না দিয়ে উল্টো জিজ্ঞেস করতাম, আইন পাসের কাজ কত দূর এগোল?
অবশেষে এল সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। ৬ নভেম্বর ২০১৩ সাল। সকালে শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে ফোন এল। বলা হলো, ‘আজ আইনটি সংসদে উত্থাপন করা হবে, মন্ত্রী মহোদয় আপনাকে সংসদে থাকার আমন্ত্রণ জানিয়েছেন’। আমি খুব অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলাম, ‘আমি কেন?’ বলা হলো, ‘আইনটি পাস হচ্ছে আপনার তোড়জোড়ে, আর আপনি থাকবেন না? নিজ চোখে দেখবেন না আপনার কাজের ফল?’
দৈনিক একটি পত্রিকায় আমার দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে বলেছিলাম, ‘আমার স্বপ্ন, আমি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হতে চাই’। সেদিন সংসদে বসে, অনেকটা সেই স্বপ্নই বাস্তব হচ্ছে—এ রকম মনে হচ্ছিল। আমি আসলেই সেদিনের অনুভূতি বলে বা লিখে বোঝাতে পারব না। শুধু বলতে পারব, মাননীয় স্পিকার যখন তিনবার বললেন, ‘হ্যাঁ জয়যুক্ত হয়েছে, হ্যাঁ জয়যুক্ত হয়েছে, হ্যাঁ জয়যুক্ত হয়েছে,’ সঙ্গে সঙ্গে আমার গায়ের সব লোম দাঁড়িয়ে গিয়েছিল এবং চোখ দিয়ে টপ টপ করে পানি পড়ছিল। খুব শক্ত ধরনের মেয়ে আমি, এত সহজে কেঁদে ফেলব বুঝতে পারিনি। কিন্তু কীইবা করব? চোখের সামনে দেখছি ইতিহাস।
সেদিন প্রথম অদ্ভুত এক ভালো লাগা এবং আত্মবিশ্বাস আমার মনে জন্মেছিল। আমি আগে ভাবতাম, এই দেশে সাধারণ মানুষের বলার কোনো ভয়েস নেই, যতই গণতান্ত্রিক দেশ বলুক না কেন, আমরা জনগণেরা নয়, এই দেশের সরকার বা নেতারাই ঠিক করেন—কী হবে না হবে। কিন্তু সেদিন প্রথম আমি বিশ্বাস করি, আমি একটি গণতান্ত্রিক দেশে বাস করছি, যেখানে আমার বলার অধিকার আছে, আমার কথার মূল্য আছে। শুধু বিশ্বাস রাখতে হবে নিজের প্রতি এবং এই দেশটার প্রতি।
আইনটি পাস হয়েছে। আমার স্বপ্ন এখানেই শেষ হতে পারত। কিন্তু না। এখনো আইনের বিধিমালার কাজ বাকি, তারপর চ্যালেঞ্জ করা বাকি। বাকি আরও অনেক কাজ। শুরু যেহেতু করেছি, শেষটাও দেখে ছাড়ব।
দেশটার জন্য আরও অনেক দেশপ্রেমিক যোগ্যতাসম্পন্ন কারিগর তৈরি করতে শিক্ষকতা পেশা বেছে নিয়ে বর্তমানে ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা শুরু করেছি।
আমার স্বপ্ন এখানেও থেমে থাকবে না। দেশের অন্য অনেক সমস্যা নিয়ে কাজ করার ইচ্ছা আমার। আর তাই নিজের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন শুরু করেছি। কাজ আমি করবই। আমার সঙ্গে থাকবেন তো সবাই?

বিপাশা মতিন: শিক্ষক, জামদানি প্যাটেন্ট নিয়ে কাজ করছেন।

Pages: 1 ... 10 11 [12]