Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - Mst. Eshita Khatun

Pages: 1 [2] 3 4 ... 9
17
It was 1924, and Cecilia Payne-Gaposchkin was on the verge of a breakthrough. Faint rainbows of starlight, recorded on photographic glass, held secrets to how the universe was put together. If only she could read the starlight’s story.

As with every other challenge in her life, Payne-Gaposchkin would not stop. She once went without sleep for 72 hours, struggling to understand what the stars were telling her.

“It was an impatience with the ordinary — with sleep, meals, even friendships and family — that had driven her as far back as she could remember,” journalist Donovan Moore writes in his book celebrating the life of Payne-Gaposchkin (who added “Gaposchkin” to her name upon marriage in 1934). After her death in 1979, other scientists would go on to remember her as “the most eminent woman astronomer of all time.” During a time when science was largely a men’s club, she had figured out the chemical makeup of the stars.


In What Stars Are Made Of, Moore takes readers on a meticulously researched tour of Payne-Gaposchkin’s remarkable life, drawn from family interviews, contemporary accounts and Payne-Gaposchkin’s own writings. It’s a riveting tale of a woman who knocked down every wall put before her to get the answers she desired about the cosmos.

Growing up in England, her love of science started before she could read. But English society in the early 1900s didn’t know what to do with such a determined girl. Days before her 17th birthday, she was told to leave school after administrators found they couldn’t meet her insatiable need to learn math and science. During physics lectures at the University of Cambridge, she, like all women, had to sit at the front, forced to parade past male students stomping in time with her steps.

And yet, she persisted, becoming a woman of firsts. In 1925, Payne-Gaposchkin became the first person to receive a Ph.D. in astronomy from Radcliffe College in Cambridge, Mass. In 1956, she was the first woman to be promoted to full professor at Harvard and several months later was the first to chair a department at the university.

Her big breakthrough came not long after finding work at Harvard College Observatory in 1923. She had taken it upon herself to analyze the institution’s library of stellar spectra: starlight broken into its component colors, revealing elements in the stars based on which wavelengths of light were missing.

The trouble was, no one had yet combed through the spectra to take a census of the atoms. Doing so required using the new field of quantum physics to identify dozens of element signatures in thousands of spectra — a task to which Payne-Gaposchkin was uniquely suited. The work was grueling and tedious, demanding she harness her keen observational skills, sharp mathematical mind and rigorous physics training.

After roughly two years of nearly unbroken focus, she overturned one of the prevailing thoughts of the day: that stars were chemically similar to Earth. Instead, hydrogen appeared to be a million times as abundant as expected, and helium a thousand times so. Earth, it seemed, was not the template for the universe.

At the time, Payne-Gaposchkin’s findings were largely dismissed as spurious. It wasn’t until the American astronomer Henry Norris Russell came to the same conclusion years later that minds started to change.

While opinions about her work were slow to change, progress in opinions toward women was glacial. Payne-Gaposchkin taught at Harvard for nearly two decades before being listed in the course catalog. Yet, her hunger for knowledge never stopped. A student once marveled at “her views on Italian art, or paleolithic axes, or mosaic woodworking, or the earliest printed edition of Reynard the Fox,” Moore writes.

Payne-Gaposchkin is the lead character of Moore’s book. But the book is also a tale of early 20th century science and the barriers that all women at the time faced. Anyone interested in any of these topics will revel in this book’s detail.

As for Payne-Gaposchkin, while she was aware of these barriers, she didn’t see herself as a feminist pioneer. She was drawn to the stars, and the stars were blind to gender. “She did not consider herself a woman astronomer,” Moore writes. “She was an astronomer.”

Source: https://www.sciencenews.org/article/cecilia-payne-gaposchkin-revealed-stars-composition-broke-gender-barriers

18
Many orb weaver spiders sport yellowish stripes or spots on their undersides, and for a good reason. That color yellow tempts bees and flies into a spider’s web, a new study suggests.

Orb weaver spiders get their name because they spin and sit on circular webs (SN: 8/8/17). But these spiders and their bright colors are a paradox. Why would a predator that relies on stealth for its next meal look so conspicuous? Scientists have hypothesized that bright colors on orb weaver spiders might serve to warn predators, to blend into vegetation or to attract prey.

In the new study, researchers examined if yellow colorations on a species of golden orb weaver spider (Nephila pilipes) attract their flying insect prey. Found across Asia, this spider sits on its web day and night with its underside — mottled and striped yellow on black — facing open space. The team found more than 250 wild N. pilipes females in the wild. They removed each female and either left its web vacant or replaced it with a cardboard spider. These cardboard models had paper strips of yellow, blue or black color glued onto them.

After almost 1,800 hours of video recording the faux arachnids, the team found that during the daytime, the yellow-striped model that resembled a real N. pilipes attracted more than twice as many insects, including bees and flies, as any other fake spider or empty web. What’s more, the yellow color worked just as well at night attracting moths, the scientists report online February 11 in Functional Ecology.

The team then scoured online zoological databases for associations between yellow markings and prey attraction in orb weaver spiders. Surveying dozens of distantly related species revealed that yellow stripes or spots were more likely to have evolved in orb weaver spiders that sit on their webs in open, bright spaces, where visual baits may be more effective.

The research “reinforces that the color yellow lures insects,” says Nathalia Ximenes, a behavioral ecologist at the University of São Paulo in Brazil who studies coloration in orb weaver spiders but was not involved in the work. Scientists don’t yet know why insects are attracted to yellow on orb weaver spiders. Perhaps the prey mistake a spider for a yellow-flecked flower, a hypothesis supported by the fact that most prey attracted were pollinators.

Understanding the function of color patterns in animals is a fundamental question for evolutionary biologists, says study coauthor Mark Elgar, an evolutionary biologist at University of Melbourne in Australia. Studying animal colorations, he says, can also inform practical applications. He cites an example of how a team member’s interest in animal colors had led to researching light reflectance with “interesting applied opportunities” in energy storage.

Source: https://www.sciencenews.org/article/bright-yellow-spots-help-some-orb-weaver-spiders-lure-their-next-meal

20
ট্রাইগ্লিসারাইড বা টিজি মূলত একধরনের ফ্যাট। স্থূলতা, ডায়াবেটিস, বেশি শর্করা খাওয়া এবং কম কায়িক শ্রমের কারণে ট্রাইগ্লিসারাইড বেড়ে যেতে পারে। বিপরীতে কমে যায় গুড কোলেস্টেরল বা এইচডিএল। রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা বেড়ে গেলে প্যানক্রিয়াটাইটিস, ফ্যাটি লিভার ইত্যাদি হতে পারে। তবে কিছু সচেতনতা আর খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তনে খুব সহজেই ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ বা কমানো যায়। এ ক্ষেত্রে খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আনাই সবচেয়ে জরুরি।

মনে রাখতে হবে, ট্রাইগ্লিসারাইড কমাতে—

রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইড কমানোর উপায়
ট্রাইগ্লিসারাইড বা টিজি মূলত একধরনের ফ্যাট। স্থূলতা, ডায়াবেটিস, বেশি শর্করা খাওয়া এবং কম কায়িক শ্রমের কারণে ট্রাইগ্লিসারাইড বেড়ে যেতে পারে। বিপরীতে কমে যায় গুড কোলেস্টেরল বা এইচডিএল। রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা বেড়ে গেলে প্যানক্রিয়াটাইটিস, ফ্যাটি লিভার ইত্যাদি হতে পারে। তবে কিছু সচেতনতা আর খাদ্যাভ্যাসের পরিবর্তনে খুব সহজেই ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ বা কমানো যায়। এ ক্ষেত্রে খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আনাই সবচেয়ে জরুরি।

মনে রাখতে হবে, ট্রাইগ্লিসারাইড কমাতে—


• প্রক্রিয়াজাত মাংস, ট্রান্স ফ্যাট খাওয়া বর্জন করতে হবে।

• আঁশযুক্ত খাবার খেতে হবে।

• রিফাইন্ড কার্বস খাওয়া যাবে না।

• খাবারে স্যাচুরেটেড ফ্যাট ৭ শতাংশের কম হতে হবে।

• মদ্যপান বর্জন করতে হবে।

ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা কমাতে যা খাবেন

ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা কমানোর সবচেয়ে উপযোগী ডায়েট হলো মেডিটেরানিয়ান ডায়েট বা ভূমধ্যসাগরীয় খাদ্যাভ্যাস।

• এই ডায়েটে মূল খাবার হিসেবে শাকসবজি, ফল বেশি প্রাধান্য পায়। রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইডের মাত্রা কমাতে খাদ্যতালিকায় প্রতিদিন প্রচুর সবুজ ও রঙিন শাকসবজি এবং তাজা মৌসুমি ফলমূল রাখতে হবে।

• কার্বোহাইড্রেট হিসেবে পূর্ণ শস্যজাতীয় খাবার যেমন লাল চাল, গমের আটা, ভুট্টা, ওটস বা এ ধরনের খাবারকে প্রাধান্য দিতে হবে। মেডিটেরানিয়ান ডায়েটে কার্বোহাইড্রেট খাওয়া নিষেধ নয়, তবে তা অল্প পরিমাণে খেতে হয়। দিনে ৩৫ গ্রামের বেশি কার্বোহাইড্রেট না খাওয়াই উত্তম। আর শর্করাজাতীয় খাবার সেগুলোই বেছে নিতে হবে, যেগুলোয় আঁশ বা ফাইবার বেশি থাকে।

• প্রোটিনের চাহিদা মেটাতে মাছ বা মুরগির মাংস সপ্তাহে ২-৩ দিন খেতে হবে। এ ক্ষেত্রে মাছকে প্রাধান্য দেওয়াই উত্তম। সামুদ্রিক মাছ খুবই উপকারী। এতে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা-৩, ইপিএ, ডিএইচএ থাকে। প্রতিদিন ৪ গ্রাম ইপিএ/ডিএইচএ খেলে তা ২৫ শতাংশ পর্যন্ত রক্তে ট্রাইগ্লিসারাইড কমাতে সাহায্য করে। রেডমিট (গরু, ছাগল বা এই জাতীয় প্রাণীর মাংস) মাসে এক বা দুদিনের বেশি খাওয়া যাবে না।

• খাদ্যতালিকায় প্রতিদিন বাদাম রাখতে হবে। বাদামে প্রচুর ওমেগা-৩ এবং মনো আনস্যাচুরেটেড ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে, যা ট্রাইগ্লিসারাইড কমাতে সাহায্য করে। এ ছাড়া সূর্যমুখী, কুমড়া ও তিলের বীজ খাওয়াও খুব উপকারী।

• ভোজ্যতেল হিসেবে এক্সট্রা ভার্জিন অলিভ অয়েল, বাদামের তেল বা খাঁটি সরিষার তেলকে প্রাধান্য দিতে হবে।

• রান্নায় মসলা হিসেবে পেঁয়াজ, আদা, রসুন, এলাচি, লবঙ্গ, দারুচিনি, পুদিনাপাতা ব্যবহার করতে হবে।

• দুধ, দই, পনির প্রতিদিন ১ থেকে ৩ সার্ভিংস পর্যন্ত খাওয়া যাবে।

• সপ্তাহে ৪টা ডিমের কুসুম খাওয়া যাবে। ডিমের সাদা অংশ খেতে বাধা নেই।

• মেডিটেরানিয়ান ডায়েটের সঙ্গে দরকার নিয়মিত ব্যায়াম করা এবং ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখা।

লেখক: পুষ্টি বিশেষজ্ঞ, ইবনে সিনা কনসালটেশন সেন্টার, বাড্ডা

21
Common Forum / Re: DU puts on hold evening courses
« on: March 01, 2020, 10:30:59 AM »
wow great news.

22
পিসি ও কনসোল কেন্দ্রের মোবাইল ভার্সন লঞ্চ করার নতুন কোনো ধারণা নয়। এবারে নতুন একটি গেম মোবাইল প্ল্যাটফর্মে আসছে। গেম নির্মাতা বিহেভিয়র ইন্টারেক্টিভের ঘোষণা অনুযায়ী, তাদের জনপ্রিয় সারভাইভাল হরর গেম ‘ডেড বাই ডে লাইট’ শিগগিরই মোবাইলে আসছে।

গেম নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটির তথ্য অনুযায়ী, এ বছরের বসন্তেই ‘ডেড বাই ডে লাইট’ গেমটি বাজারে আসতে পারে। গেমটি অ্যাপলের অ্যাপ স্টোর এবং গুগল প্লে স্টোরে আসবে। তবে বাজারে আসার আগেই গেমটির জন্য আগাম নিবন্ধন করে রাখার সুযোগ রাখছে তারা—যাঁরা আগেই নিবন্ধন করে রাখবেন এবং নির্দিষ্টসংখ্যক নিবন্ধনের বিপরীতে উপহার ঘোষণা করা হয়েছে।



ডেড বাই ডেলাইট গেম
ডেড বাই ডেলাইট গেম
পিসি ও কনসোল কেন্দ্রের মোবাইল ভার্সন লঞ্চ করার নতুন কোনো ধারণা নয়। এবারে নতুন একটি গেম মোবাইল প্ল্যাটফর্মে আসছে। গেম নির্মাতা বিহেভিয়র ইন্টারেক্টিভের ঘোষণা অনুযায়ী, তাদের জনপ্রিয় সারভাইভাল হরর গেম ‘ডেড বাই ডে লাইট’ শিগগিরই মোবাইলে আসছে।

গেম নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটির তথ্য অনুযায়ী, এ বছরের বসন্তেই ‘ডেড বাই ডে লাইট’ গেমটি বাজারে আসতে পারে। গেমটি অ্যাপলের অ্যাপ স্টোর এবং গুগল প্লে স্টোরে আসবে। তবে বাজারে আসার আগেই গেমটির জন্য আগাম নিবন্ধন করে রাখার সুযোগ রাখছে তারা—যাঁরা আগেই নিবন্ধন করে রাখবেন এবং নির্দিষ্টসংখ্যক নিবন্ধনের বিপরীতে উপহার ঘোষণা করা হয়েছে।


‘ডেড বাই ডে লাইট’ গেমটির পিসি এবং কনসাল মিলিয়ে দেড় কোটি সক্রিয় ব্যবহারকারী রয়েছে। হরর বা থ্রিলার ঘরানার মাল্টিপ্লেয়ার গেমটিতে এক হত্যাকারী চার বন্ধুকে হত্যার চেষ্টা করে। ওই চার বন্ধুকে হত্যাকারী থেকে টিকে থাকতে হয়। পালানোর জন্য নানা কৌশল নিতে হয়। মোবাইল সংস্করণে বিশেষ অপটিমাইজড মোড এবং কন্ট্রোল দেওয়া হচ্ছে গেমারকে যাতে ছোট স্ক্রিনেও গেমার ভালো অভিজ্ঞতা পেতে পারেন। গেমটি নিয়ন্ত্রণে টাচ সুবিধাও পাবেন গেমার। তথ্যসূত্র: গ্যাজেটস নাউ

23
Common Forum / উল্কাবৃষ্টির রহস্য
« on: March 01, 2020, 10:24:52 AM »
বৃষ্টি তো পানির ফোঁটা, আকাশের মেঘ থেকে মাটিতে পড়ে। তাহলে উল্কাবৃষ্টি আবার কী? এটাও আকাশ থেকে পড়ে, বৃষ্টির মতোই, কিন্তু সেটা দেখা যায় শুধু রাতে। আকাশে আলোর বিচ্ছুরণ ঘটে। দেখলে মনে হয় আকাশ থেকে আতশবাজি নেমে আসছে। আকাশের তারা বুঝি খসে পড়ছে মাটিতে। ইংরেজিতে সে জন্যই এদের বলা হয় ‘শুটিং স্টার’। মাটির কাছাকাছি আসতেই নিভে যায়। তবে মাঝেমধ্যে দু–একটা জ্বলন্ত অবস্থাতেই মাটিতে পড়ে। সেটা আবার বিপজ্জনক পরিণতি ডেকে আনতে পারে। সে কথায় পরে আসছি।

উল্কা হলো আমাদের এই সৌরজগতেরই আকাশে ছড়িয়ে–ছিটিয়ে থাকা কিছু বস্তুখণ্ড। এই বস্তুখণ্ডগুলো আসে ধূমকেতু থেকে। ধূমকেতু মাঝেমধ্যে আকাশে দেখা দেয়। সূর্যের চারপাশে এক চক্কর দিয়ে আবার দূরে চলে যায়। এদের চলার পথ অনেকটা ডিমের আকৃতির মতো (ইলিপটিক)। হ্যালির ধূমকেতুর কথা আমরা জানি। একবার সূর্য প্রদক্ষিণ করে আবার প্রায় ৭৬ বছর পর ফিরে আসে। এ ধরনের আরও কিছু ধূমকেতু সূর্যকে প্রদক্ষিণ করে। এ সময় ধূমকেতুর মূল অংশের কিছু জমাট বাঁধা মহাজাগতিক ধূলিকণা ও অন্যান্য বস্তু আকাশে ছড়িয়ে–ছিটিয়ে থেকে যায়। পৃথিবী তার কক্ষপথে চলার সময় এসব বস্তুখণ্ডের কাছাকাছি এলে ওগুলো পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণের প্রভাবে মাটির দিকে পড়তে থাকে।

এই পড়ন্ত বস্তুগুলো পৃথিবীর কাছাকাছি এলে বাতাসের সঙ্গে ঘর্ষণে জ্বলে ওঠে। তখন আকাশে ওদের দেখে মনে হয় আলোকোজ্জ্বল তারা আকাশ থেকে পড়ছে। যেন আতশবাজির বৃষ্টি পড়ছে। এটাই উল্কাবৃষ্টি।


উল্কাপিণ্ডগুলো ঘণ্টায় প্রায় ২৫ হাজার থেকে দেড় লাখ মাইল বেগে পৃথিবীর দিকে ছুটে আসে। ফলে বায়ুমণ্ডলের সঙ্গে ঘর্ষণে এরা জ্বলে ওঠে। সাধারণত মাটিতে পড়ার আগেই জ্বলেপুড়ে ছাই হয়ে যায়। কিন্তু উল্কা খণ্ড খুব বড় হলে সবটা জ্বলে নিঃশেষ হয়ে যাওয়ার আগেই মাটিতে পড়তে পারে। এ রকম উল্কার আঘাতে মাঝেমধ্যে বেশ ক্ষয়ক্ষতি হয়। প্রায় সাড়ে ছয় কোটি বছর আগে এ ধরনের বিশাল এক উল্কাখণ্ড বা গ্রহাণুর (অ্যাস্টেরয়েড) আঘাতে পৃথিবী থেকে ডাইনোসর বিলুপ্ত হয়েছিল বলে বিজ্ঞানীরা বলেন। তবে ভিন্নমতও রয়েছে। এ বিষয়ে বিজ্ঞানীরা এখনো গবেষণা করছেন।

চাঁদের মহাকর্ষ বল পৃথিবীর তুলনায় কম। সেখানেও কিছু উল্কাখণ্ড পড়ে, কিন্তু তাকে উল্কাবৃষ্টি বলা যাবে না। কারণ চাঁদের কোনো বায়ুমণ্ডল নেই। তাই চাঁদে যেসব উল্কাখণ্ড পড়ে, সেগুলো পাথরের কণা বা জমাট বাঁধা মহাজাগতিক ধূলিকণা হিসেবেই পড়ে। এদের আঘাতে চাঁদের মাটিতে ছোট ছোট গর্ত সৃষ্টি হয়। চাঁদের আকাশে কখনো উল্কাবৃষ্টি হয় না।

পৃথিবীর আকাশে সব সময় উল্কা দেখা যায় না। কোনো ধূমকেতু আকাশের যে পথে সূর্য প্রদক্ষিণ করে, সেখানে রাতের আকাশে উল্কাবৃষ্টি বেশি হয়। কারণ, সেখানেই আকাশে ধূমকেতুর ফেলে যাওয়া বস্তুখণ্ড বেশি থাকে। তাই পৃথিবী তার কক্ষপথে সূর্য প্রদক্ষিণ করার সময় ওই এলাকায় এলে আকাশে উল্কাবৃষ্টি দেখা যায়। সাধারণত জুলাই-আগস্ট মাসে বেশি উল্কাপাত ঘটে। অবশ্য বছরের অন্য সময়েও মাঝরাতের পর বিচ্ছিন্নভাবে উল্কা পড়তে দেখা যায়।

আব্দুল কাইয়ুম, মাসিক ম্যাগাজিন বিজ্ঞানচিন্তার সম্পাদক

24
Thanks

26
Helpful Information for all...

27
দক্ষিণ কোরিয়ায় করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে বেসরকারি সফটওয়্যার নির্মাতারা ওয়েবসাইট এবং অ্যাপের মাধ্যমে হালনাগাদ তথ্য সরবরাহ করছে। মূলত দেশটিতে দ্রুত এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতেই তারা এই উদ্যোগ নিয়েছে। ওয়েবসাইট ও অ্যাপের এই হালনাগাদ তথ্য সাধারণ মানুষকে করোনাভাইরাস আক্রান্তের ঘটনা শনাক্ত করতে এবং সেই স্থানগুলো থেকে দূরে থাকতে সাহায্য করছে।

অতীতে এ ধরনের ভাইরাস মোকাবিলায় দক্ষিণ কোরীয় সরকারের নেওয়া পদক্ষেপগুলো নিয়ে অনেক সমালোচনা হয়েছে। সে অভিজ্ঞতা থেকেই দেশটির সরকার এবার প্রাথমিকভাবে নিশ্চিত হওয়া ঘটনাগুলোর বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করছে। যার মধ্যে রয়েছে বয়স, লিঙ্গ এবং সংক্রমিত ব্যক্তিটির সংক্রমিত হওয়ার আগের প্রতিদিনের যাতায়াতের পথের যাবতীয় তথ্য।


যদিও এতে কারও পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি, তবে এই তথ্যগুলো ওয়েবসাইট নির্মাতাদের রোগীদের গতিবিধি অনুসরণ করে বিশদ মানচিত্র তৈরি করতে সাহায্য করেছে।

পরিচয় প্রকাশে অনিচ্ছুক এক স্বাস্থ্যকর্মী বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, ‘আমরা পাঁচ বছর আগে এমইআরএস প্রাদুর্ভাবের সময় ব্যাপক সংক্রমণ হওয়ার পর জনসাধারণের প্রতিক্রিয়া অনুভব করেছিলাম। কারণ, আমরা তখন সংক্রমিত ব্যক্তিদের কোথায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, সে বিষয়ে জনসাধারণকে অবহিত করিনি।’

করোনাম্যাপডটলাইভ নামের একটি ওয়েবসাইটে ‘আমি নিরাপদ কি না’ শীর্ষক একটি বোতাম রয়েছে। এক ক্লিকেই ব্যবহারকারীরা দেখতে পারে যে তাদের আশপাশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত কোনো রোগী রয়েছে কি না।
অনেকে দক্ষিণ কোরীয় এই ওয়েবসাইটগুলোতে লগ-ইন করছে। কেউ কেউ বলছে যে সংক্রমিত হতে পারে এ ধরনের ভয় নিয়ে একটি অনলাইন মানচিত্র দেখা খুবই মর্মান্তিক। এই তথ্যগুলোই তাদের বাইরে যেতে বাধা দেয়। সূত্র: রয়টার্স

Source: https://www.prothomalo.com/technology/article/1641852/%E0%A6%85%E0%A6%A8%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%87%E0%A6%A8%E0%A7%87-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%AD%E0%A6%BE%E0%A6%87%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%B8-%E0%A6%B8%E0%A6%82%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%AE%E0%A6%A3%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%A4%E0%A6%A5%E0%A7%8D%E0%A6%AF

28
নতুন ফ্রিল্যান্সারদের কাজের খাতিরে বিভিন্ন রকম প্রিমিয়াম টুল ব্যবহারের প্রয়োজন। বাংলাদেশে এখনো পেপ্যাল নেই। তবে বাংলাদেশ থেকে কীভাবে সহজে টাকা দিয়ে কিনে এসব প্রিমিয়াম টুল ব্যবহার করা যাবে, তা অনেকেই জানতে চান।

আমাদের দেশে পেপ্যাল না থাকলেও প্রিমিয়াম টুল বা অনলাইনে লেনদেন করার জন্য বেশ কিছু মাধ্যম রয়েছে। এর মধ্যে প্রথমেই আসে পেওনিয়ারের মাস্টারকার্ড, যেটি আপনি তাদের ওয়েবসাইটে গিয়ে অ্যাকাউন্ট খুলে ফরমাশ জানাতে পারবেন। এই কার্ডের মাধ্যমে আপনি অধিকাংশ অনলাইন পেমেন্ট করতে পারবেন।

এরপর আপনি চেষ্টা করতে পারেন ডুয়েল কারেন্সি ক্রেডিট কার্ড, যেটি আমাদের দেশে বেশ কিছু বেসরকারি ব্যাংক ইস্যু করে থাকে। আপনি চাইলে ডলার এনডোর্স করতে পারেন এবং এর মাধ্যমে অনলাইনে লেনদেন করতে পারেন।

Source: https://www.prothomalo.com/technology/article/1641767/%E0%A6%AA%E0%A7%87%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%B2-%E0%A6%9B%E0%A6%BE%E0%A7%9C%E0%A6%BE-%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B6-%E0%A6%A5%E0%A7%87%E0%A6%95%E0%A7%87-%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B6%E0%A7%87-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BF%E0%A6%AE%E0%A6%BF%E0%A6%AF%E0%A6%BC%E0%A6%BE%E0%A6%AE-%E0%A6%9F%E0%A7%81%E0%A6%B2-%E0%A6%95%E0%A7%87%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%B0

30
Thanks for sharing.

Pages: 1 [2] 3 4 ... 9