Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - nafees_research

Pages: 1 ... 13 14 [15] 16 17 ... 21
211
Top 10 Fintech Accelerators In Southeast Asia And Hong Kong for 2018

n 2017, Asia Pacific attracted the largest amount of investment in fintech with a total of US$14.8 billion, according to a report by PwC and Startupbootcamp Fintech. The region represented 56% of the world’s total fintech funding, highlighting Asia’s growing importance in the global fintech scene.

According to industry experts, Asia’s large pool of underbanked and its growing middle class have been fueling the surge of fintech and the emergence of startups providing new solutions to address their wealth management and banking needs.

The rise of fintech has encouraged the establishment and creation of acceleration programs in the region to help promising startups grow and connect with potential partners and investors.

Here are ten of the top fintech acceleration programs in Southeast Asia and Hong Kong:

1. Facilitated by Accenture, the Fintech Innovation Lab Asia-Pacific is a 12-week mentoring accelerator and incubator program.

The Lab brings together leading financial services institutions, angel investors and venture capital firms across Asia to provide startups with the opportunity to work with future customers, perfect propositions, gain insights to the banking industry and build strong relationships.

The program’s purpose is to nurture early-stage companies from around the world that are developing new technologies for the financial services sector with a particular focus on the Asia-Pacific region. The Lab is supported by Cyberport, which provides workspace for the selected entrepreneurs.
2. SuperCharger is 12-week acceleration program designed for fintech startups and scale-up companies. SuperCharger does not take any equity and the program gives selected startups access to partner institutions and firms, as well as regulators and legal experts.

SuperCharger started in Hong Kong where it sought to leverage on Hong Kong’s traditional strength as Asia’s finance and technology gateway. It began its expansion into ASEAN in late-2017, with Malaysia as the first country of entry. It recently selected the 10 fintech companies to join its first Malaysian cohort.

SuperCharger is backed by prominent partners from the financial services industry including Standard Chartered Bank, and Fidelity International.

3. Startupbootcamp Fintech is one of the leading accelerators focused on fintech in the world. It currently has accelerator programs in five cities: Mexico City, London, Mumbai, Singapore and New York.

Each year, Startupbootcamp Fintech Singapore provides funding, mentorship, office space in the city-state and access to a global network of corporate partners, mentors, investors and VCs, to up to 10 selected fintech startups across the globe.

For over three months, the selected startups collaborate with 400+ mentors, partners, and investors to build world-class fintech products, with the ultimate goal of becoming industry-leading companies.

4. Startupbootcamp Fintech is one of the leading accelerators focused on fintech in the world. It currently has accelerator programs in five cities: Mexico City, London, Mumbai, Singapore and New York.

Each year, Startupbootcamp Fintech Singapore provides funding, mentorship, office space in the city-state and access to a global network of corporate partners, mentors, investors and VCs, to up to 10 selected fintech startups across the globe.

For over three months, the selected startups collaborate with 400+ mentors, partners, and investors to build world-class fintech products, with the ultimate goal of becoming industry-leading companies.

5. Established in February 2016, the OCBC Fintech Accelerator is a 12-week program designed to help entrepreneurs build the fintech companies of the future, faster and more efficiently.

The OCBC Fintech Accelerator is run by a dedicated team from the dedicated space in Singapore, called the Open Vault at OCBC.

Through a combination of guidance from the OCBC Mentors, NEST expertise and the validation of insights through the OCBC data sandbox, the program grooms eight successful startups every year.

6. The FinLab is an accelerator program focused on fintech and a joint venture between SGInnovate (SGI) and the United Overseas Bank Ltd (UOB).

Selected fintech startups get feedback and insights from the FinLab’s mentors to help improve or even pivot their business offering, co-working space in BASH, Singapore’s biggest integrated startup space, as well as access business and VC networks to build contacts into the region and scale their businesses faster. They also get commitment from the Finlab to continue providing access to key fintech events under the Finlab banner, both during and after the acceleration program.

The FinLab has wide connections in ASEAN, Greater China, Europe and the US, providing selected startups with an unparalleled access to the global market for growth and expansion.

7. DBS is partnering with Nest in Hong Kong for the third time for the DBS Accelerator program, which aims to push the financial services industry in Hong Kong forward and spark change.

DBS Accelerator is targeted at fintech-focused startups at the seed through Series B stages, which can address one of the areas of focus: digital channel experience, compliance monitoring, credit digitalization, customer engagement and cybersecurity.

Startups receive mentorship from carefully selected business leaders working in various business units to help them develop their solution and guide them towards a potential pilot.

They also get to be introduced to quality global investors with proven track records and a chance to pitch at Demo Day.

8. The Yes Fintech Accelerator program is one of the most recent programs to be launched in Asia, introduced last year by Indian bank Yes Bank.

The program is targeted at tech-focused startups from India and globally with a minimum viable product along with a growing customer base currently innovating in the areas of payments, lending, trade finance and forex solutions, wealth management, regtech, and fin-education, among others.

Selected startups get access to digital banking infrastructure including 200+ APIs, the opportunity to expand to 18 global markets through the bank’s global ecosystem players, mentorship and scale up support, access to 2 million+ customers, and funding of up to US$1 million.

9. Launched in 2014, the Wells Fargo Startup Accelerator is a hands-on, virtual program which lasts approximately six months. It is designed to advance startups that create solutions for enterprise customers – inside and outside the financial industry.

The program offers coaching and access to mentors, advocates, executives, and investors, and provides direct equity investments of up to US$500,000 for selected companies.

Each successful applicant is paired with a Wells Fargo advocate who provides guidance through the program.

10. Mastercard Start Path Global is a six-month virtual program designed to help startups from around the world scale their businesses.

The program enables companies to gain access to Mastercard’s global ecosystem and to break new markets through relationships with MasterCard and the firm’s customers. It includes two immersion weeks which take place at the launch and three-month point and which are held at different Mastercard and startup hubs around the world.

The program is designed as a hybrid model to help solve key operational challenges for companies, providing immediate access to experts and resources from across the organization.

Source: http://fintechnews.sg/16407/fintech/top-fintech-accelerators-southeast-asia-hk/

212
চিকুনগুনিয়া সংকট: বর্ষার আগে ভরসা কতটা?
[/b]

বাংলাদেশে ২০১৭ সালে যেভাবে চিকুনগুনিয়ার প্রকোপ দেখা গিয়েছিল তা রীতিমত আতঙ্কিত করে তুলেছিল নগরবাসীকে। বিশেষজ্ঞদের অনেকেই একে আখ্যা দিয়েছিলেন 'মহামারী' হিসেবে। যদিও সরকারিভাবে একে মহামারী ঘোষণা করা হয়নি, কিন্তু সেসময় মশা-বাহিত এই রোগটিতে কোনও না কোন সদস্য আক্রান্ত হয়নি - ঢাকা শহরে এমন পরিবার খুঁজে পাওয়া কঠিন।

রোগতত্ত্ব ও রোগনিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের দেয়া সর্বশেষ হিসেবে, গতবছর মে মাস থেকে মাত্র সাড়ে চার মাসে ঢাকায় বিভিন্ন হাসপাতালে চিকুনগুনিয়া সংক্রান্ত চিকিৎসা নিয়েছে ১৩ হাজার আটশোর বেশি মানুষ।

এর বাইরে দুই সিটি কর্পোরেশনে চিকিৎসা সেবা নিয়েছে অনেকে। তবে এমন বহু মানুষ আছে যারা চিকিৎসা নেই জেনে হাসপাতাল বা চিকিৎসকের দ্বারস্থ হয়নি, বলছেন বিশেষজ্ঞরা। এমন প্রেক্ষাপটে বর্ষা মৌসুমকে সামনে রেখে চিকুনগুনিয়ার বিস্তার ঠেকাতে কতটা প্রস্তুতি রয়েছে?

সম্প্রতি ঢাকার দক্ষিণ অংশের বিভিন্ন বাড়িতে অভিযান চালায় ঢাকা সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষ। যে আঠারোটি বাড়িতে তারা গিয়েছিল তার মধ্যে এগারোটি বাড়িতেই এডিস মশার লার্ভা পেয়েছে। এই লার্ভা থেকেই চিকুনগুনিয়া এবং ডেঙ্গুর রোগ-বহনকারী মশার জন্ম হয়।

গত বছর চিকুনগুনিয়া রোগটি নানা বয়সের মানুষের মাঝে যেভাবে ছড়িয়ে পড়ে তা রীতিমত আতঙ্কজনক এক পরিস্থিতির সৃষ্টি করে। একই পরিবারে একাধিক মানুষ এই রোগে আক্রান্ত হয়।

এমনই একজন ঢাকার শাহনাজ পারভিন । তিনি বলেন, "আমি হাঁটতে পারছিলাম না বসতে পারছিলাম নামাজও পড়তে পারছিলাম না। হাতে, আঙ্গুলে, পায়ে, পায়ের তলা, গাঁটে গাঁটে প্রচণ্ড ব্যথা। দাঁড়ালে বসতে পারিনা, বসলে শুতে পারি না এমন অবস্থা।"

"এমনকি প্রস্রাব-পায়খানা করতে কমোডে বা প্যানে বসতেও কষ্ট হচ্ছিল। আমি ভয় পেয়ে গেলাম ভাবলাম আমি কি পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়ে গেলাম?"

পঞ্চাশোর্ধ এই নারী বলছিলেন, চিকুনগুনিয়ার পর সেরে উঠলেও প্রচণ্ড ব্যথা ছিল তার বহুদিন।

"সুস্থ হওয়ার পর যখন রান্না করতে গেলে দেখলাম হাত থেতে হাতা-খুন্তি পড়ে যাচ্ছে।"

উত্তরা এলাকার একজন বাসিন্দা বলছিলেন তার মাকে একমাস আইসিইউতে রাখতে হয়েছিল। আরেকজন পুরুষ বলছিলেন ছয়মাসও পরও তার পায়ে ব্যথার কারণে ওষুধ খেতে হয়েছে।

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা জানান, চিকুনগুনিয়া রোগের প্রথমদিন থেকেই রোগীর অনেক বেশি তাপমাত্রায় জ্বর ওঠে। একই সাথে প্রচণ্ড মাথা ব্যথা, শরীর ব্যথা, বিশেষ করে হাড়ের জয়েন্টে ব্যথা হয়। কারো কারো শরীরে র‍্যাশ ওঠে।

জ্বর ভালো হলেও রোগটি অনেকদিন ধরে রোগীদের দুর্ভোগ পোহাতে হয়। ফলে চিকুনগুনিয়া কর্মক্ষম অনেক মানুষকে দিনের পর দিন বাধ্য করেছিল গৃহবন্দী জীবন কাটাতে। শিশু থেকে বৃদ্ধ কেউ এর কবল থেকে বাদ পড়েননি।

চিকিৎসক এবং নগর কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে পাওয়া তথ্য বলছে, গত বছরের মে, জুন ও জুলাই মাসের দিক থেকে চিকুনগুনিয়ার প্রকোপ তীব্র হয়ে ওঠে । খোদ নগর কর্তৃপক্ষই বলছে, গেল বছর ঢাকার কোনও এলাকা বাদ নেই যেখানে চিকুনগুনিয়া দেখা যায়নি।

তাই এবছরও বর্ষা মৌসুম এগিয়ে আসার সাথে সাথে বিভিন্ন বাড়িতে এডিস মশার লার্ভার পাওয়ার বিষয়টি নিয়ে চিন্তিত ঢাকা সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষও।

কিভাবে ছড়ায় এই চিকুনগুনিয়া? এবং কখন?

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের রোগ নিয়ন্ত্রণ পরিচালক অধ্যাপক সানিয়া তাহমিনা বলছিলেন, " এডিস মশা বদ্ধ পরিষ্কার পানিতে সাধারণত ডিম পাড়ে। ফ্লটিং ওয়াটারে অর্থাৎ পুকুরে বা নদীর পানিতে হবেনা।আশেপাশে পরিত্যক্ত টায়ার, কন্টেনাইর, পাস্টিক, টবের পানি, এসির বা ফ্রিজের জমে তাকা পানি, বাসা-বাড়িতে ফ্লাওয়ার ভাসে যদি পানি থাকে সেখানে এই মশা ডিম পাড়তে পারে।"

রোগ নিয়ন্ত্রণ ও রোগ তত্ত্ব আইইডিসিআরের ওয়েবসাইটের সর্বশেষ হিসেব অনুসারে, ঢাকা শহরে অবস্থিত বিভিন্ন হাসপাতালের চিকিৎসা নেয়া চিকুনগুনিয়া ও চিকুনগুনিয়া পরবর্তী আর্থ্রালজিয়া রোগীর সংখ্যা ১২ই মে ২০১৭ থেকে ১৮শে সেপ্টেম্বর ২০১৭ পর্যন্ত ১৩ হাজার ৮১৪ জন। ওই সময় পর্যন্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের বাইরের বিভিন্ন জেলার সিভিল সার্জন ও মেডিকেল কলেজ থেকে ১৭টি জেলা থেকে ১৮৫ জনের তথ্য পাঠানো হয়।

তবে বাস্তবতা হল চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত বহু মানুষ চিকিৎসকের শরণাপন্ন হননি।

ফলে ঠিক কত সংখ্যক মানুষ চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছিলেন তার সঠিক পরিসংখ্যান নেই, যেমনটা বলছিলেন অধ্যাপক সানিয়া তাহমিনা।

"আসলে চিকুনগুনিয়া নিয়ে এত ব্যাপক প্রচার-প্রচারণা চালানো হেয়ছে এটার ভ্যাপারে উপসর্গগুলি রোগীরা নিজেরাই ভালো বুঝে গেছিলেন। ফলে পরের দিকে কিন্তু আর আমাদের কাছে রোগী আসেনি। আইইডিসিআরের পরিসংখ্যান অনুসারে ১৩ হাজারের বেশি নিশ্চিতভাবে চিকুনগুনিয়ার চিকিৎসা নিয়েছেন।কিন্তু এর বাইরে আরও অনেক রোগী রয়ে গেছেন সেটা কিন্তু আমরা জানি।কারণ সেবছর প্রচুর রোগ হয়েছিল।"

রোগ নিয়ন্ত্রণ ও রোগ তত্ত্ব কর্তৃপক্ষ বলছে, হঠাৎ ভারী বর্ষণ এবং আসন্ন বর্ষা মৌসুমে এডিস মশার বংশ বিস্তারের কারণে এডিস মশা-বাহিত ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া রোগের প্রকোপ বাড়তে পারে।

অধ্যাপক সানিয়া তাহমিনা বলছিলেন, কোন কোন এলাকা ঝুঁকিপূর্ণ তা জানতে এবছর জানুয়ারি এবং চলতি মে মাসে তারা দুটি জরিপ করা হয়েছে। এ অবস্থায় এই রোগের বিষয়ে আগাম সতর্কতা ও এডিস মশা নির্মূলে প্রতিরোধ ব্যবস্থা নেয়া জরুরি বলে পরামর্শ দিচ্ছেন তারা।

গতবছরের অভিজ্ঞতায় এবছর সতর্কতা বাড়ানোর ওপর জোর দিয়েছে দুই সিটি কর্পোরেশনও।

ঢাকা দক্ষিণের মেয়র সাঈদ খোকন বিবিসি বাংলাকে বলছিলেন, গতবারের মত পরিস্থিতি যাতে না ঘটে সেজন্য তারা এবার বাড়তি সতর্কতায় কি ধরনের উদ্যোগ নিয়েছেন তারা।

সাইদ খোকন বলেন, "গতবছরের অভিজ্ঞতার আলোকে আমরা এবছর একটু আগামভাবেই সতর্ক ইতোমধ্যে মশার প্রজনন-ক্ষেত্র চিহ্নিত করে লার্ভা পাওয়া গেছে। সেকারণে আমরা কিছুটা হলেও চিন্তিত।" এমন প্রেক্ষাপটে সামাজিকভাবে সচেতনতা কার্যক্রম চালানোর কথা জানান মেয়র খোকন।

"আগামী সপ্তাহ ৫৭টি ওয়ার্ডে কমিটি করা হয়েছে। প্রতিটি ওয়ার্ডে কমপক্ষে ১০০টি বাড়িতে ইন্সপেকশন করা হবে। এছাড়া বিভিন্ন টিভিতে বিজ্ঞাপন দেয়া, মাইকিং করা হবে, জুমার নামাজের খুৎবায় ইমামদের মুসুল্লিদের কাছে এর বিস্তারিত তুলে ধরার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এছাড়া সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের মাধ্যমেও এলাকার বাসিন্দাদের সচেতন করা হচ্ছে" জানান মি খোকন।

রাজধানীর গুলশান বনানীর মত সেসব এলাকাতে রোগতত্ত্ব রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ যে পরীক্ষা চালিয়েছে কিছুদিন আগে সেখানে সবচেয়ে মশক প্রবণ বা চিকুনগুনিয়া ও ডেঙ্গুর জন্য ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলোর মধ্যে উঠে এসেছে এসব এলাকার নামও। ফলে উদ্বেগ রয়েছে বিভিন্ন এলাকার মানুষের মাঝে ।

"মশা মারার লোক কয়দিন আসে তারপর আর দেখিনা। এবারও বর্ষা আসছে। আবারও চিকুনগুনিয়া হয় কিনা ভয় লাগতেছে"। আরেকজন বলেন, - "একজন লোক দেখি আসে। মাঝে মাঝে ধোঁয়া দিয়ে যায় যেইটা দিয়ে মশা মারে"।

"আগের চেয়ে মশা কম। আমাদের এলাকায় তো মশারি ছাড়াই ঘুমাই।" "আমার গতবার চিকুনগুনিয়া হয়েছিল। এখনো ব্যথা। সরকার কি কিছু করছে? করলে তো ভালো। এবার যাতে মানুষের আর কষ্ট না হয়"।

উত্তর সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন এলাকার কয়েকজন বাসিন্দা এমনটাই বলছিলেন।

কিন্তু মশার বিস্তার ঠেকাতে আসলে কি করছে ঢাকা উত্তরের কর্তাব্যক্তিরা?

ডিএনসিসির প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জাকির হাসান বলছিলেন, প্রাক-বর্ষা মৌসুমে যেহেতু চিকুনগুনিয়ার বিস্তার দেখা যায় তাই মে মাসের শুরু থেকেই মশা নিধন কাজ শুরু করেছেন অতিরিক্ত জনবল নিয়োগের মাধ্যমে।

"আইইডিসিআর বছরের প্রথমদিকে একটি সার্ভে করে কিছু কিছু এলাকা শনাক্ত করেছিল। যেমন বলা হয়েছিল বনানীতে এডিসের প্রকোপটা বেশি। কিন্তু তার মানে কি এই যে আমার গুলশানে হবে না, মিরপুরে হবেনা? সবগুলো এলাকাকেই কিন্তু গুরুত্ব দিয়ে কাজ করা হচ্ছে। আমরা ৩৬টা ওয়ার্ডের সবগুলোতেই কিন্তু কাজ শুরু করেছি। অতিরিক্ত জনবল নিয়োগ করে কার্যক্রম চলছে।"

গতবছরের অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে ৬ই মে থেকে তারা সচেতনতা বাড়ানোর কাজ শুরু করেছেন বলে জানান প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বিভিন্ন বাড়ির মালিকদেরও চিঠি দেয়া হয়েছে পরিচ্ছন্নতার জন্য।

কিন্তু মশা মারার পর্যাপ্ত কর্মকাণ্ডের অভাব রয়েছে বলে অনেক বাসিন্দাই যে অভিযোগ করে থাকেন সে প্রসঙ্গে প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মি. হাসান বলছিলেন, প্রতিদিন একটি জায়গায় মশা মারবার মতো কোনও ব্যবস্থা তাদের নেই।

"যে ওষুধ দেয়া হয় সেটি তিনদিন/চারদিন কাজ করে।তারা হয়তো ভাবে সিটি কর্পোরেশনের দায়িত্ব তারা এসে প্রতিদিন মশা মেরে যাবে। কিন্তু একটি জায়গায় কিন্তু আমাদের পক্ষে সপ্তাহে দুইদিন কিংবা সবোর্চ্চ তিনদিন ওষুধ ধেয়া হয় তার বেশি সম্ভব না।"

তিনি জানান, কারো অভিযোগ যদি তাকে সংশ্লিষ্ট কাউন্সিলের কাচে যদি জানায় তাহলে কিন্তু একটা ব্যবস্থা নেয়া যেতে পারে।

আবার ফিরে যাওয়া যাক ঢাকার দক্ষিণে।

নানারকম প্রচার-প্রচারণা চালানো হচ্ছে। কিন্তু মশার বিস্তার বা মশা-বাহিত রোগের প্রকোপ কেন নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না?

মেয়র সাইদ খোকনের কাছে। শহরের বাসিন্দাদের সচেতনতার অভাবকে এখানে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে উল্লেখ করেন।

"মানুষকে সচেতন করে তোলা সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। টিভি পত্র পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেয়া, মসজিদে খুৎবায় বলা, সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনকে বলা হচ্ছে। সাধারণ মানুষ সচেতন হলে ৭০%-৮০% কাজ হয়ে যায়।"

যেসমস্ত বাড়িতে মশার লার্ভা বা প্রজনন ক্ষেত্র পাওয়া গেছে সেসব বাড়ি চিহ্নিত করা হবে এবং পরবর্তীতে সেখানে আবার অভিযান চালানো হবে। পুনরায় মশার প্রজনন ক্ষেত্র পেলে প্রয়োজনে ব্যবস্থা নেয়া হবে, জানান মেয়র সাঈদ খোকন।

চিকিৎসকরা বলছেন, চিকুনগুনিয়ার প্রতিষেধক নেই , তাই সচেতনতাই এই ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধের প্রধান উপায়। মশা থেকে সতর্কতা, যেমন মশারি বা ওষুধ ব্যবহার করা এ থেকে রক্ষার সবচেয়ে ভালো উপায়। বৃষ্টির পর যাতে পানি জমে থাকতে না পারে, যেখানে মশা ডিম পাড়তে পারে, সেদিকেও নজর দিতে তারা পরামর্শ দিচ্ছেন।

তবে ঢাকাকে ঘিরে নানারকম প্রস্তুতি এবং সতর্কতামূলক কর্মকাণ্ড নজরে এলেও ঢাকার বাইরে সর্তকতা ও প্রস্তুতির বিষয়ে সন্দিহান বিশেষজ্ঞরা। ঢাকার বাইরে গতবছর চিকুনগুনিয়া প্রকটভাবে দেখা নো গেলেও এবার তা বড় আকারে দেখা যেতে পারে বলেও আশঙ্কা রয়েছে- জানান প্রফেসর সানিয়া তাহমিনা।

Source: https://www.bbc.com/bengali/news-44165339

213
What South Asia can teach us about mobile money[/b]

Mobile money is changing the world. The latest GSMA research, GSMA: The 2018 State of the Industry Report on Mobile Money, shows that in 2017 the industry processed transactions worth US$1 billion dollars a day, generating direct revenues of over US$2.4 billion. Today, there are more than 690 million registered accounts in 90 countries. Mobile money has evolved into the leading payment platform for the digital economy in many emerging markets. In Asia, mobile money allows hundreds of millions of people to store, send and receive money digitally, providing a vital gateway to financial inclusion.

In fact, South Asia is at the forefront of the explosive global growth in mobile money. In 2017, the number of mobile money customers grew by 47% to reach almost 235 million, making South Asia the fastest-growing region globally. This is the first time industry growth was not led by Sub-Saharan Africa. South Asia now represents 34% of the world’s registered accounts, up from just 5.6% five years previously.

Source: https://www.enterpriseinnovation.net/article/what-south-asia-can-teach-us-about-mobile-money-574145669

214
Case Study / Robots threaten Asian jobs
« on: May 21, 2018, 01:45:59 PM »
Robots threaten Asian jobs

Cai Fang did not mince his words. Last month the vice president of the Chinese Academy of Social Sciences called for drastic measures to slow the spread of automation and ward off a possible new era of technologically driven unemployment.

"We must cap the speed and restrict the direction of robotics' development to avoid any bad effects on human beings," he said.

Fang, who is also a standing committee member of China's National People's Congress, joined a growing line of influential figures demanding protection from machines, including Bill Gates, who last year floated a "robot tax" to retrain displaced workers. Yet while such protectionist calls are often alarmist in the industrialised world, there are good reasons to be worried about the rapid spread automation across emerging Asia, especially given its likely effects on employment in the region's crucial manufacturing sectors.

To understand why, consider a new research report from the Paris-based Organization for Economic Cooperation and Development think tank. Released in March, it suggested that 14% of jobs across 32 industrial economies were "highly automatable," ranging from mechanical robots replacing cleaners to artificial intelligence software taking over from translators and data analysts. That sounds scary, but the 14% figure is in fact much lower than in many other comparable studies, including a famous 2013 paper by Oxford economists Carl Frey and Michael Osborne, which examined around seven hundred jobs and concluded that 47% in the U.S. were "at risk" over the coming decades.

Rather than examining jobs alone, the OECD's researchers also looked at particular tasks within jobs, trying to find those involving the kind of creative and social intelligence that is least susceptible to automation. Lots of seemingly routine jobs actually did include such tasks, they discovered, from dealing with customers to negotiating with colleagues. In turn, this suggested both that fears of automation hollowing out highly-skilled white collar professions may have been overdone, and that some lower skilled jobs are likely to be resistant as well.

These new findings ought to be reassuring for western employees but they remain disconcerting for workers in "factory Asia," given the study also identified low-skill industrial roles as among the most susceptible to automation. "What they have in common is that large part of their job content is interacting with machines," the authors suggest, pointing to everything from plant operators to metal workers.

This represents an obvious threat to employment in sectors that make up the backbone of export-focussed economies like China, Malaysia or Thailand. But it is even more worrisome for countries in an earlier stage of development, such as Cambodia and Myanmar, and perhaps most notably India -- all of whom are struggling to build large-scale, labor-intensive manufacturing sectors.

Put another way, automation does not merely threaten to replace existing Asian manufacturing jobs. It also means that companies in low-income nations may decide never to create these kind of jobs in the first place, investing in robots instead. The effect could be profound, removing the first rung on a economic ladder that has long been climbed by workers leaving farms and entering factories across Asia, in turn helping their economies move from poverty and into middle income status.

Potential automation does not mean it will actually happen. Robotics studies tend merely to identify "at risk" jobs. Companies might decide to automate slowly, not least given the expense and complexity of bringing cutting-edge technologies into emerging markets. For all the hype, automation is also still at an early stage in most emerging Asian countries. China had 631 industrial robots per 10,000 employees, just a third of the level in America and a tenth of South Korea, according to the International Federation of Robotics.

Even so, there are signs the robot's march is accelerating. Taiwanese iPhone maker Foxconn, the trading name of Hon Hai Precision Industry, has begun a drive to replace tens of thousands of factory workers with machines, disproving the idea that fiddly work on smartphone assembly lines would prove hard to mechanise. Innolux, a Foxconn subsidiary making LCD panels, announced plans in February to automate one in five of its jobs. There are then particular worries about industries like garmenting, where new equipment -- including so-called "sew-bots" -- may prove to be especially threatening to textile workers in countries like Bangladesh and Vietnam

Governments worried about this face few good options. Some degree of automation is inevitable. What matters is managing its advance to balance the benefits it provides to companies with the costs it imposes on workers, in particular by providing help to those most severely affected.

As Fang said, speaking to the South China Morning Post: "We have to figure out in what aspects human beings are better than robots -- emotional quotient, judgment or creative thinking? Then we can make a plan to compensate the weakest group of people -- workers replaced by robots and those who will never get another job."

Flexible labor market regulations are important here, especially in countries like India where notoriously fiddly employment rules encourage companies to install machines rather than hire workers. New programmes to retrain displaced workers are needed too, as well as steps to push companies to change the nature of manufacturing jobs, allowing even routine workers to undertake tasks that involve even some kind of creative or social intelligence.

For now, few governments are likely to consider the more drastic steps suggested by Fang and Gates, not least because they fear that such draconian restrictions will encourage manufacturers to move production facilities abroad. But if Asia's governments fail to help their workers adapt, and the onward march of automation accelerates, calls for more radical anti-robot measures will only grow louder.

Source: https://asia.nikkei.com/Opinion/Robots-threaten-Asian-jobs2

215
Business Administration / Industry 4.0 in Southeast Asia
« on: May 21, 2018, 12:17:58 PM »
Industry 4.0 in Southeast Asia

Top 15 Innovations of the Fourth Industrial Revolution –

Industry 4.0 or the “Fourth Industrial Revolution” can be defined as the fusion and the proliferation of emerging technology developments in industries that vary from artificial intelligence to renewable energy. The vigour and influence of these technologies is multiplied by the rapidly burgeoning connectivity between billions of people through enhanced mobility and the ease of accessing the growing nexus of data and knowledge.

A non-exhaustive list of fundamental technologies within the Industry 4.0 realm can be listed as the following:

Big Data
Smart Cities
Blockchain/Bitcoin
Artificial Intelligence
Renewable Energy/Clean-tech
FinTech
E-Commerce
Robotics
3D Printing
Virtual/Augmented Reality
Shared Economies
IoThings
Nanotechnology/2D Materials
Biotechnology/Genetics & Agricultural Innovation
Desalination and Enhanced Waste Management


The Fourth Industrial Revolution is not something of the distant future, indeed it is already here. Through the widespread adoption of Industry 4.0 practices, the world’s most dynamic region, Southeast Asia, has the potential to leapfrog ahead of other developing regions, such as the Middle East and Africa, by not only embracing but also contributing to the new technologies which will transform how people work, live and communicate.

Singapore is for example already a landmark in the globe for its cutting edge technological hub status across the board from smart urban planning to desalination and high-end engineering practices. Malaysia on the other hand is taking over the shared economy in the transportation scene in South East Asia with its rapidly growing “Grab” platform. Indonesia is successfully powering luxury properties located in natural resorts at Bali by building High Temperature Gas Reactors (HTGR), utilising advanced and clean technologies as a business model. The trend is not exclusive to these countries in the region and is apparent especially in infrastructural and agricultural areas.

The further assumption of Industry 4.0 technologies in Southeast Asia will allow large populations to bypass current structural constraints and leapfrog into greater efficiency in energy use and value production. If harnessed effectively and allocated for the public good, the changes will significantly improve the income levels, quality of life and even gender equality within the population due to increased mobility and democratisation of occupational platforms. Although, it must be noted that such developments will also bringing disastrous results to people involved in industries that will be phased out. It will also bring technology even further into our routines, potentially increasing addiction to devices and their negative health effects. Therefore both the positive and negative sides of the issue must be addressed with the same importance level.

Southeast Asian economies are forecast to grow at least 5% annually until 2020, exceeding global growth of 3.5%. The urban population in Southeast Asia is growing rapidly by almost 2.5% annually and the middle income population is set to increase by 70 million to 194 million by 2020. Such demographic trends, coupled with the increased interconnectivity between the numerous technologies will serve as multipliers in the rate of success of the Fourth Industrial Revolution in South East Asia.

Source: https://richtopia.com/emerging-technologies/industry-4-0-southeast-asia

216
How Enhanced Technology is Changing the Fundamental Nature of Business

In working over 20 years in the tech industry and acting as the founder and CEO of a robotics company (that integrates both innovative technology and luxury design), I have witnessed firsthand the evolution of technology and its impact on the day-to-day dealings of a modern business.

The Use Of Technology As The Expediter

The technology available to us today has changed the way we think and progress in almost every field imaginable. From medicine to science, to travel and beyond, technology has greatly impacted (paywall) the process of design, thinking conceptualization and product development. The tools available for design today allow concepts to be produced into end products faster than we could have ever imagined. For example, 20 years ago, architects and designers around the world could not design, visually manipulate and interact with their creation in the way they are able to today. Additionally, our smartphones have more computing power than the sum of about 50 desktop computers in the 1990s.

Today, an object can be designed and — in a matter of seconds — uploaded to another part of the world, where a project manager responsible for manufacturing can view that object three-dimensionally via their smartphone. The project manager can then further delete, enhance or alter certain features directly on their smartphone. And minutes later, these suggestions can be uploaded to a prototyping facility thousands of miles away and initiate the process of machining. Be it a tablet, smartphone or computer that connects us, technology is now allowing product manufacturing to occur on an international scale.


In my company, our utilization of 3-D printed prototypes — to speed up processes in manufacturing — has significantly increased the overall product development sequence. Our advanced software also allows us to view a product in 3-D while it is being modeled and make changes while traveling on a plane thousands of miles away. These newfound advantages were never before possible.

The Rise Of Contractual Talent

With these expanding technologies and new innovations, the total conceivable number of growing industries and specialized companies is similarly rising. For example, a refrigerator of the past would have most likely been designed by a group of engineers and product designers working for one company. Today’s refrigerator is infinitely more complex; with new sensors, LED lighting, digital temperature control and other integrated technological features, it seems no longer logical to bring those specialties in-house. Instead, an on-demand workforce and partnerships are utilized.

Further, the expansion of specialized technology in everyday products and the complexity of their systems often don't allow corporations to remain isolated and in complete control of every facet of production. For example, while designing and creating my product, I saw how companies are now hyper-specializing (paywall) and innovating in fields such as sensors and lighting, at a pace I believe is often faster than a corporation could hire an internal team.

Source: http://www.bbc.com/news/business-11428889

217
পাঁচ বছর পর খুলল ভিক্টোরিয়ান যুগের বিশ্বের সবচেয়ে বড় গ্রিন হাউজ

লন্ডন শহরের বিস্ময়কর এক বাগানের নাম রয়াল বোটানিক গার্ডেনস ইন কিউ বা সংক্ষেপে কিউ গার্ডেন। এখানেই রয়েছে ভিক্টোরিয়ান যুগে নির্মিত বিশ্বের সবচেয়ে বড় গ্রিন হাউজ। শতাব্দী প্রাচীন কাচের এ ভবনটি এখনো বহু মানুষের বিস্ময়।

টেম্পারেট হাউজ নামে গ্রিন হাউজটি চালু করা হয়েছিল ১৮৫৯ সালে। এরপর থেকে এটি প্রায়ই সংস্কার করা হলেও বেশি সময়ের জন্য বন্ধ ছিল না। তবে গত পাঁচ বছর আগে এটির সংস্কারকাজ শুরু হয়। পাঁচ বছর সময় নিয়ে সংস্কার করার পর শনিবার এটি ফের দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে।

শুধু এই গ্রিন হাউজটিই নয়, অসাধারণ সব গাছ ও ইতিহাসের পাতায় ঠাঁই করে নেয়া প্রাসাদ, ভবন ও নিদর্শন আছে এ পার্কে। বিশ্বের সবচে বড় ইনডোর গাছটিও এখানে। এমন অনেক গাছ এখানে আছে যা অন্য কোথাও আর সন্ধান মেলে না।

গ্রিন হাউজটিতে রয়েছে প্রায় ১০ হাজার গাছ। বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে বহু বছর ধরে এখানে নিয়ে আসা হয়েছে গাছগুলো।

এবার সংস্কার করার সময় গ্রিন হাউজটির ১৫ হাজার কাচ প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। এছাড়া এতে ৫,২৮০ লিটার রং ব্যবহৃত হয়েছে। ৪০০ কর্মী ১,৭৩১ দিন ধরে এর সংস্কারে অক্লান্ত পরিশ্রম করেন। এতে ব্যয় হয়েছে প্রায় ৪১ মিলিয়ন পাউন্ড।

Source: http://www.kalerkantho.com/online/miscellaneous/2018/05/05/632737

218
ফেসবুক ছোট উদ্যোগগুলোকে আটকে দিচ্ছে

আরেকটা ফেসবুক বা এর প্রতিদ্বন্দ্বী তৈরির কথা ভাবছেন? ফেসবুক কখনোই তা হতে দেবে না। ছলে-বলে-কৌশলে আপনাকে আটকে দেবেই। টাকার জোরে কিনে নেবে, না হয় নকল করবে। কী করতে পারবেন আপনি?

হোয়াটসঅ্যাপের কথাই ধরুন। হোয়াটসঅ্যাপ সবচেয়ে জনপ্রিয় মেসেজিং অ্যাপ্লিকেশন। ২০০৯ সালে জ্যান কউম ও ব্রায়ান অ্যাক্টনের হাত ধরে যাত্রা শুরু করেছিল হোয়াটসঅ্যাপ। বার্তা আদান–প্রদানের ক্ষেত্রে ফেসবুকের চেয়ে এগিয়ে যাওয়ার সব সুযোগ ছিল। কিন্তু ২০১৪ সালে ১ হাজার ৯০০ কোটি মার্কিন ডলারে হোয়াটসঅ্যাপকে অধিগ্রহণ করে নেয় ফেসবুক। মাত্র চার বছরের মধ্যেই হোয়াটসঅ্যাপের সঙ্গে ফেসবুকের ঝামেলার সুর শোনা যাচ্ছে। বিবিসি বলছে, নিজের প্রতিষ্ঠা করা হোয়াটসঅ্যাপ থেকে সরে যেতে হচ্ছে এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জ্যান কউমকে। তিনি ফেসবুকে সে ঘোষণা দিয়েছেন। ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ সেখানে এক মন্তব্যে কউমের প্রশংসা করেছেন। ব্যস, এখানেই একজন উদ্যোক্তার বিদায়! অবশ্য এর আগেই ফেসবুকের অধীনে থাকা হোয়াটসঅ্যাপ ছেড়েছেন আরেক সহপ্রতিষ্ঠাতা অ্যাক্টন। এখন তাঁরা ফেসবুকবিরোধী প্রচার চালাচ্ছেন।

এ তো গেল ফেসবুকের অধীনে যাওয়া কোম্পানির চিত্র; কিন্তু এর বাইরে থাকা উদ্যোগগুলোর হাল কী? মোবাইল লোকেশনভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট ফোরস্কয়ারের সহপ্রতিষ্ঠাতা নাভিন সালভাদুরি মনে করেন, ২০১০ সালে তাঁর কোম্পানিসহ সামাজিক যোগাযোগের কয়েকটি উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান, যেমন: টুইটার, টাম্বলার, পাথের পক্ষে ফেসবুকের সমকক্ষ হয়ে ওঠা সম্ভব ছিল। কিন্তু ফেসবুকের পরিকল্পনা ছিল ভিন্ন। ওই বছরেই ফেসবুক ‘চেক ইন’ নামের একটি ফিচার আনল, যাতে কোনো স্থানে গেলে তা চিহ্নিত করা যায়। এটি ছিল ফোরস্কয়ার অ্যাপের প্রধান ফিচার, যা সরাসরি নকল করে বসল ফেসবুক।

কী করার ছিল এই উদ্যোক্তাদের? এর জবাবে সালভাদুরি ফেসবুকবিরোধী একটি জোটে নাম লেখালেন। তিনি পাথ, ইনস্টাগ্রাম, টুইটারে থাকা বন্ধুদের সঙ্গে টিকে থাকার কৌশল নিয়ে আলোচনা করলেন। এই উদ্যোগগুলো সরাসরি ফেসবুকের হুমকির মুখে ছিল। এসব উদ্যোগের সব মূল ফিচারই নকল করে ফেসবুকে আসার হুমকি ছিল।

সালভাদুরি বলেন, ‘এটা খুব সাধারণ জ্ঞান। ফেসবুক তখন কোনো প্রতিষ্ঠানকে বলত যে আমাদের সঙ্গে যোগ দাও, তা না হলে আমরা তোমার নকল করে ছেড়ে দেব।’

সালভাদুরির মতে, উন্মুক্ত ইন্টারনেটের বদলে দেয়ালঘেরা বাগান গড়ে তুলেছিল ফেসবুক। যাকে তারা পছন্দ করত না, তার ক্ষতি করত। যা লাখো মানুষের কাছে পৌঁছাতে সক্ষম—এমন বিষয়গুলোকে তারা নিজেদের করে নিত। এর বিপক্ষে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছিলেন সালভাদুরি ও ফেসবুকবিরোধী জোটের উদ্যোক্তারা।

সাম্প্রতিক কালে ফেসবুকের নকলের সবচেয়ে বেশি শিকার হয়েছে স্ন্যাপচ্যাট। স্ন্যাপচ্যাটের স্টোরিজ ফিচারটি এর উদাহরণ হতে পারে। অনেক দিন ধরেই স্ন্যাপচ্যাটকে বাগে আনার চেষ্টা করেছেন জাকারবার্গ। ২০১৩ সালে প্রায় ৩০০ কোটি ডলার দিয়ে স্ন্যাপচ্যাট কিনতে চেয়েছিল ফেসবুক। কিন্তু মার্ক জাকারবার্গের কাছে নিজেদের বিক্রি করতে রাজি হননি স্ন্যাপচ্যাটের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী ইভান স্পিগেল। বরং আকর্ষণীয় সব ফিচারে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ফেলেন ফেসবুককে। এরপরই শুরু হয় স্ন্যাপচ্যাটের নানা বিষয় নকল করার কাজ।

উইয়ার্ড ম্যাগাজিনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ফেসবুকবিরোধী জোট গড়েও খুব বেশি দূর এগোনো যায়নি। ২০১২ সালেই মাত্র ১০০ কোটি মার্কিন ডলারে ইনস্টাগ্রামকে কিনে নেয় ফেসবুক। পরেই বছরেই ১১০ কোটি মার্কিন ডলারে টাম্বলারকে কিনে নেয় ইয়াহু। পাথের জনপ্রিয়তায় ধস নামে এবং পরে বিক্রি হয়ে যায়। ফোরস্কয়ার স্বাধীন থাকলেও এর অ্যাপটি দুভাগ করে নতুন পরিকল্পনা নিয়ে কোনোরকমভাবে এগিয়ে চলেছে।

২০১২ সালে সালভাদুরি ফোরস্কয়ার ছেড়ে দেন। তাঁর প্রতিষ্ঠানের খুঁড়িয়ে চলার পেছনে কতগুলো কারণের কথা বলেন তিনি। তাঁর মতে, আগে মানুষ নিজের অবস্থানের কথা জানাতে কুণ্ঠিত ছিল না। বিভিন্ন ইন্টারনেট পণ্য তৈরির বিষয়টি উপভোগ্য ছিল। কিন্তু এখন তা কঠিন হয়ে গেছে। কারণ, এখন বড় খেলোয়াড়েরা এখন আরও বড় হয়ে উঠেছে।

অবশ্য, ফেসবুককে এখন বেশ ঝড়ঝাপটা সামলাতে হচ্ছে। বিশেষ করে কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা কেলেঙ্কারির পর। সারা পৃথিবীতে ফেসবুকের যে বাড়বাড়ন্ত হয়েছে, সে ব্যাপারে সামাজিক মাধ্যমটির সহপ্রতিষ্ঠাতা ঠিক স্বস্তিতে নেই। কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা কর্তৃক ফেসবুকের তথ্য ব্যবহার নিয়ে যে কেলেঙ্কারি ঘটেছে, তার ব্যাপারে মার্ক জাকারবার্গ দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডোনাল্ড ট্রাম্পের শিবিরের পক্ষে কাজ করা কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা ফেসবুক ব্যবহারকারী ও তাঁদের বন্ধুদের তথ্যভান্ডারে ঢোকার সুযোগ পেয়েছিল। ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলছে, তাদের ভুল বুঝিয়ে গবেষণার নামে তারা এসব তথ্যের নাগাল পায়। তারা দাবি করেছিল, এসব তথ্য শুধু গবেষণার কাজে লাগানো হবে। এতে মানুষের নাম, অবস্থান, লিঙ্গ, তাদের পছন্দ-অপছন্দের তথ্য ছিল। এ ঘটনা কেমব্রিজ অ্যানালিটিকা কেলেঙ্কারি হিসেবে পরিচিত হয়ে উঠেছে।

এ ঘটনার পর প্রাইভেসি বিষয়ে ফেসবুকের বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্রের নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠানগুলো মনে করছে, ফেসবুক অনেক বিশাল ও শক্তিশালী হয়ে উঠেছে। সবচেয়ে বড় বিষয় হচ্ছে ‘আস্থার সংকট’ তৈরি হয়েছে ব্যবহারকারীদের মনে। বিভিন্ন মিডিয়া ফেসবুকে তাদের কনটেন্ট ঠিকমতো দেখানো হচ্ছে না বলে অভিযোগ তুলছেন। তবে সবচেয়ে বড় অভিযোগ করছেন সিলিকন ভ্যালির উদ্যোক্তারা। তাঁরা অভিযোগ করছেন, ফেসবুকের আগ্রাসী পরিকল্পনা উদ্ভাবনকে বাধাগ্রস্ত করছে।

২০১২ সাল থেকে যেসব সামাজিক যোগাযোগের অ্যাপ জনপ্রিয় হওয়া শুরু করছিল, তা থেকেই নকল করার অভিযোগ রয়েছে ফেসবুকের বিরুদ্ধে। এরপর তো ইনস্টাগ্রাম কিনে নেওয়া বা হোয়াটসঅ্যাপকে অধিগ্রহণ করার বিষয়টি সামনে এল। ৩০০ কোটি মার্কিন ডলারে স্ন্যাপকে কিনতে চাইলেও তা সম্ভব হয়নি। কিন্তু কমপক্ষে ১০ বার এর মূল ফিচারগুলো নকল করেছে ফেসবুক। এমনকি কিশোরদের উপযোগী অ্যাপ টিবিএইচকেও ছাড় দেয়নি।

ফেসবুক তার সম্ভাব্য শত্রুর খোঁজ ঠিকই রাখে। ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, কোন অ্যাপ ফেসবুকের প্রতিদ্বন্দ্বী হতে পারে বা কোন অ্যাপকে কিনে নিতে হবে, তা ঠিক করার একটি উপায় ফেসবুকের হাতেই আছে। ২০১৩ সালে ফেসবুক অনাভো নামের একটি ইসরায়েলের উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান কিনেছিল। ওই উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠানটি এমন একটি অ্যাপ তৈরি করেছে, যা মোবাইল তথ্য ব্যবহার পরিমাপের সুযোগ দেয়। ফেসবুক অনাভোকে কেনার পর ওই লাখো ব্যবহারকারীর তথ্য বিশ্লেষণ করে কোন অ্যাপ জনপ্রিয় হচ্ছে, শুরুতেই তার একটি ধারণা পায় ফেসবুক। অনাভোর তথ্য-উপাত্ত দেখেই ফেসবুক কর্তৃপক্ষ হোয়াটসঅ্যাপসহ লাইভ ভিডিও স্ট্রিমিং সেবা পেরিস্কোপ ও মিরাক্যাট কেনার সিদ্ধান্ত নেয়।

অবশ্য, ফেসবুককে একাধারে দোষারোপ করা ঠিক নয়। সিলিকন ভ্যালির সব বড় প্রতিষ্ঠান ছোট ছোট উদ্যোগকে গেলার জন্য বসে আছে। আমাজন আর গুগলের কথা না বললেই নয়। তবে লক্ষ্য নির্ধারণের গতিতে ফেসবুকের ধারেকাছে নেই তারা। ফেসবুকের অর্থ খরচের ইচ্ছা ও প্রকাশ্যে নকলের ক্ষেত্রে অন্যরা পিছিয়েই বলা চলে।

প্রযুক্তি খাতের পর্যবেক্ষকেরা মনে করেন, প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলো মনে করছে তাদের কেউ না কেউ কিনে নেবে। এ ছাড়া ব্যক্তিগত পর্যায়ে বিনিয়োগকারীরা আর সামাজিক যোগাযোগের খাতের কোনো উদ্যোগে বিনিয়োগ করতে উৎসাহী নন। কারণ, আর কোনো হোয়াটসঅ্যাপ তৈরির সম্ভাবনা কম। আর কেউ মাথা তুলে দাঁড়ালেই ফেসবুক হয় তাকে কিনে নেবে বা তাকে টিকতে দেবে না।

বাজার গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিবি ইনসাইটসের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৪ সাল থেকেই ধীরে ধীরে ইন্টারনেট ও মোবাইল খাতের সামাজিক যোগাযোগের উদ্যোগগুলোতে বিনিয়োগ কমছে। কিছু কিছু উদ্যোক্তা মনে করেন, ফেসবুকের কাছে বিক্রি হওয়া তাদের অবশ্যম্ভাবী।

ফেসবুকের সাবেক কর্মী জোশ লি এ বিষয়ে টুইটে কৌতুক করে বলেছেন, কারও দাতব্য তহবিল করা উচিত যাতে উদ্যোক্তারা ফেসবুকের অফার ফিরিয়ে দেন।

লির মতে, বিভিন্ন উদ্যোক্তা নতুন নতুন উদ্যোগ তৈরি করলে মানুষ বিভিন্ন ধরনের সেবা পাবে যা প্রযুক্তি খাতে নতুন সম্ভাবনা তৈরি করবে। তা না হলে উদ্ভাবনের পথ রুদ্ধ হয়ে যাবে। এ ক্ষেত্রে স্ন্যাপ দারুণ উদাহরণ হতে পারে। এতে ভুয়া খবরের প্রাধান্য নেই কিংবা লাইক দিয়ে কনটেন্টের স্থান নির্ধারণ হয় না। নতুন চিন্তার মূল্য বোঝাতে পারে এটা।

ফেসবুকের বেড়ে চলার যে প্রত্যাশা তাতে এ ধরনের বৈচিত্র্য কি আশা করা যায়? ফেসবুক এখন খবর, ভিডিও, ভারচুয়াল রিয়্যালিটি, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, পেমেন্ট, গ্রাহক সেবা, ই-কমার্স, ড্রোন, ইন্টারনেট সেবার মতো বিভিন্ন ক্ষেত্রে শাখা–প্রশাখা বাড়িয়ে চলেছে। ফেসবুক এসব খাতে আধিপত্য বিস্তার করতে একই কৌশল নিতে পারে বলেই অনুমান করা যায়। উদ্যোক্তাদের সাবধান হওয়ার সময় এসেছে। তা না হলে ফেসবুকের আড়ালেই হারিয়ে যাবে সবকিছু।

Source: http://www.prothomalo.com/technology/article/1480836/%E0%A6%AB%E0%A7%87%E0%A6%B8%E0%A6%AC%E0%A7%81%E0%A6%95-%E0%A6%9B%E0%A7%8B%E0%A6%9F-%E0%A6%89%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A7%8B%E0%A6%97%E0%A6%97%E0%A7%81%E0%A6%B2%E0%A7%8B%E0%A6%95%E0%A7%87-%E0%A6%86%E0%A6%9F%E0%A6%95%E0%A7%87-%E0%A6%A6%E0%A6%BF%E0%A6%9A%E0%A7%8D%E0%A6%9B%E0%A7%87

219
বাংলাদেশে পাস্তুরিত দুধে যেভাবে জীবাণু ঢুকছে

বাংলাদেশে ঢাকায় অবস্থিত আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র আইসিডিডিআর,বি-র বিজ্ঞানীরা তাদের এক গবেষণার ফলাফলে বলছেন বাণিজ্যিভাবে প্যাকেটজাত পাস্তুরিত দুধের ৭৫ শতাংশের বেশি জীবাণু-সংক্রমিত এবং তা সরাসরি পান করার জন্য অনিরাপদ।

তারা দেখেছেন খামারে গাভী দোয়ানোর পর্যায় থেকে শুরু করে বিক্রির দোকান পর্যন্ত প্রতিটি স্তরে দুধ মাইক্রোব বা অণুজীবাণু দ্বারা দূষিত, যা আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী গ্রহণযোগ্য নয়।

বাংলাদেশের ১৮টি উপজেলা ও ঢাকা থেকে সংগ্রহ করা প্রায় পাঁচশ পাস্তুরিত দুধের নমুনা পরীক্ষা করে বিজ্ঞানীরা দেখেছেন তাতে ই-কোলাইসহ স্বাস্থ্যের জন্য হুমকিস্বরূপ মলবাহিত নানা ব্যাকটেরিয়া রয়েছে।

দুধ পাস্তুরিত করার প্রক্রিয়া কী?
দুধকে একটা নির্দিষ্ট তাপমাত্রায় সুনির্দিষ্ট সময় ধরে উষ্ণ করার পর তা দ্রুত ঠাণ্ডা করার প্রক্রিয়াকে বলা হয় পাস্তুরায়ন।

সাধারণত দুধ গরম করা হয় ১০০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কম তাপাঙ্কে - তবে ৭০ ডিগ্রি তাপাঙ্কের উপরে। ৩০ সেকেণ্ডের কম দুধকে এই তাপমাত্রায় রাখার পর তা দ্রুত ঠাণ্ডা করে ফেলা হয় ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে।

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল পাস্তুরিত দুধকে সবসময় ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে রাখা।

ফরাসী বিজ্ঞানী লুই পাস্তুর ১৮৮০র দশকে তরল খাদ্যকে জীবাণুমুক্ত করার এই পদ্ধতি উদ্ভাবন করেন।

কাঁচা দুধে খুব দ্রুত জীবাণুর সংক্রমণ ঘটে। দুধ একটা নির্দিষ্ট তাপমাত্রার উপরে পৌঁছলে নানাধরনের অণুজীবাণু তাতে দ্রুত বিস্তারলাভ করে।

পাস্তুরায়ন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে অণুজীবাণুর বিস্তার ঠেকানো সম্ভব।

বিবিসি বাংলায় আরও পড়তে পারেন:

বাংলাদেশি হিন্দুদের নিয়ে আপত্তি আসামে

বাংলাদেশে রোজা পালনকারীর জন্য জরুরী ১১টি পরামর্শ

জাপানে ২৫ সেকেণ্ড আগে ট্রেন ছাড়ায় শোরগোল

বাংলাদেশে সরকারের নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ বলছে বাংলাদেশে অস্বাস্থ্যকর, অপরিচ্ছন্ন পরিবেশে খাদ্য উৎপাদন একটা বড় সমস্যা।

সংস্থাটির চেয়ারম্যান মাহফুজুল হক বলছেন গাভী দোয়ানোর সময় থেকে শুরু করে প্যাকেটজাত পাস্তুরিত দুধ খদ্দেরদের হাতে তুলে দেওয়া পর্যন্ত প্রত্যেকটি ধাপে সংক্রমণ ঘটছে।

তিনি বলছেন বিষয়টিতে তারা খুবই উদ্বিগ্ন এবং দুধ দোয়ানো থেকে শুরু করে দুধ কালেকশান কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া- সেন্টারে প্যাকটজাত করা - বাজারে নেয়া - অর্থাৎ এই প্রক্রিয়ায় যুক্ত গোটা সরবরাহ চেইন তারা পরীক্ষা করে দেখছেন।

কীভাবে সংক্রমণ হচ্ছে?

আইসিডিডিআর,বি-র গবেষকরা তাদের নমুনা সংগ্রহ করেছিলেন দুধের খামার, আড়ত, হিমাগার, দুধ বিক্রেতা ও উৎপাদনকারীসহ বিভিন্ন স্থান থেকে।

সেসব নমুনায় খামারীদের কাছ থেকে নেয়া ৭২ ভাগ দুধই ছিল ব্যাকটেরিয়া সংক্রমিত।

আর শীতলীকরণ কারখানা বা হিমাগার ও আড়ত থেকে নেওয়া শতভাগ দুধেই কোন না কোনভাবে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ হয়েছে।

এছাড়া গবেষণায় ব্যবহার করা পাস্তুরিত দুধের নমুনার মধ্যে ৩৭ ভাগ দুধ পাওয়া যায় ব্যাকটেরিয়া সংক্রমিত।

আইসিডিডিআর,বি-র সহযোগী বিজ্ঞানী ও ফুড মাইক্রোবায়োলজি ল্যাবরেটরির প্রধান এবং এই গবেষণার প্রধান তত্ত্বাবধায়ক ড. মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম তাদের প্রতিবেদনে বলেছেন, তাদের গবেষণাগুলোয় তারা দেখেছেন দুধের প্রাথমিক উৎপদানকারী পর্যায়ে এর দূষণের সাথে গরুর প্রজনন প্রক্রিয়া, গরুর দ্বারা উৎপাদিত দুধের পরিমাণ, দুধ দোয়ানোর সময়, এবং যিনি দুধ দোয়ান তার হাত ধোয়ার অভ্যাসের মতো বিভিন্ন বিষয় জড়িত।

তিনি বলছেন স্বাস্থ্যকরভাবে দুধ দোয়ানো, সংগ্রহ ও সরবরাহ, সংরক্ষণ এবং পাস্তুরিত করার বিষয়ে যত্নবান হওয়া দরকার।

পানের জন্য দুধকে নিরাপদ রাখতে দুধ উৎপাদনের স্থান থেকে ভোক্তার টেবিল পর্যন্ত প্রতিটি পর্যায়ে পাস্তুরিত দুধকে নিরবচ্ছিন্নভাবে শীতল রাখার পদ্ধতি অনুসরণ করা জরুরি।

আইসিডিডিআর,বি পরামর্শ দিয়েছে বাজারের পাস্তুরিত কাঁচা দুধে উচ্চমাত্রায় রোগ সৃষ্টিকারী জীবাণুর উপস্থিতির কারণে এসব দুধ খুব ভালোভাবে না ফুটিয়ে খাওয়া উচিত নয়।

Source: https://www.bbc.com/bengali/news-44152121

220
Motivation / পরিশ্রম করতেই হবে
« on: May 21, 2018, 11:20:03 AM »
পরিশ্রম করতেই হবে

যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা স্পেসএক্সের তৈরি ‘ফ্যালকন-৯’ রকেটে চড়ে মহাকাশে পৌঁছেছে বাংলাদেশের স্যাটেলাইট (কৃত্রিম উপগ্রহ)—বঙ্গবন্ধু ১। ইলন মাস্ক এই প্রতিষ্ঠানটির প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী। ২০১৪ সালে ইউনিভার্সিটি অব সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়ার সমাবর্তনে তরুণদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য দিয়েছিলেন তিনি। বলেছেন একটি সফল প্রতিষ্ঠান গড়ার সূত্র।

শুরুতে আপনাদের ধন্যবাদ জানাই। আমি বোধ হয় কথা বলার জন্য পাঁচ থেকে ছয় মিনিট সময় পাব। চেষ্টা করব এই সময়টুকু কাজে লাগাতে। চারটি বিষয় নিয়ে বলব। এর কোনো কোনোটা শুনে মনে হতে পারে যেন আপনারা এগুলো আগেও শুনেছেন। তবে এসব কথা আবারও নতুন করে গুরুত্ব পাওয়ার দাবি রাখে।

প্রথম কথাটি হলো: আমাদের কাজ করতে হবে। তবে এই কাজের পরিমাণ নির্ভর করবে আমরা কতটা ভালো করতে চাই তার ওপর। আমরা যদি একটা প্রতিষ্ঠান শুরু করতে চাই সে ক্ষেত্রে বাড়তি পরিশ্রম দরকার। কিন্তু বাড়তি পরিশ্রম মানে কী? যেমন আমি আর আমার ভাই যখন আমাদের প্রথম প্রতিষ্ঠানটি চালু করি, সেই সময় একটা অ্যাপার্টমেন্ট নেওয়ার বদলে আমরা শুধু একটা ছোট্ট অফিস ভাড়া করেছিলাম। তখন ঘুমাতাম কাউচে এবং স্নান করতাম ওয়াইএমসিএতে। আমাদের পুঁজি এতই কম ছিল যে একটি মাত্র কম্পিউটার দিয়েই কাজ চালাতে হতো। ফলে দিনের বেলায় ওয়েবসাইটটি চালু থাকত আর রাতে সেই ওয়েবসাইটের জন্য আমি কোডিং করতাম। এভাবেই কাজ করেছি সপ্তাহে সাত দিন, দিনরাত।

প্রচুর পরিশ্রম করতে হবে, বিশেষত আপনি নিজেই যদি একটা প্রতিষ্ঠান শুরু করতে চান। একটা সহজ হিসাব দিয়ে বুঝিয়ে বলি। অন্য একটা প্রতিষ্ঠানের কর্মীরা যদি সপ্তাহে পঞ্চাশ ঘণ্টা কাজ করেন, তাহলে তাঁরা যেটুকু কাজ সম্পন্ন করতে পারবেন, ১০০ ঘণ্টা কাজ করতে পারলে আমরা নিশ্চয়ই তাঁদের চেয়ে দ্বিগুণ কাজ শেষ করতে পারব।

আমার দ্বিতীয় কথা: নতুন কোম্পানি গড়ি কিংবা কোনো কোম্পানিতে যোগ দিই; উভয় ক্ষেত্রেই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো অসাধারণ সব লোক জোগাড় করা। কোথাও যোগ দিতে হলে সেরকম একটি ব্যতিক্রম দলেই আমার যাওয়া উচিত, যারা আমার সম্মান পাওয়ার যোগ্য। একটি প্রতিষ্ঠান হচ্ছে এমন কিছু লোকের একটি দল, যারা এক জোট হয়েছে কোনো একটি পণ্য তৈরির বা সেবা প্রদানের লক্ষ্যে। আর সেই দলের লোকজন কতটা প্রতিভাবান ও পরিশ্রমী এবং সঠিক পথে তারা কতটা সুন্দরভাবে এগোচ্ছে, এসবের ওপরেই নির্ভর করবে প্রতিষ্ঠানের সাফল্য। কাজেই প্রতিষ্ঠান তৈরি করতে হলে অসাধারণ কিছু মানুষ পাওয়ার জন্য যা যা করার দরকার, সবই আমাদের করতে হবে।

তিন: আওয়াজ তোলার চেয়ে কাজের দিকে বেশি মনোযোগ দিন। অনেক প্রতিষ্ঠানই এই দুটি বিষয়কে গুলিয়ে ফেলে। তারা এমন সব ক্ষেত্রে কাঁড়ি কাঁড়ি টাকা খরচ করে যেগুলো তাদের পণ্যের মান উন্নয়নে আসলে কোনো কাজে আসে না। এখানে আমাদের কোম্পানি টেসলার উদাহরণ দেওয়া যায়। আমরা কখনোই বিজ্ঞাপনের পেছনে টাকা খরচ করি না। আমরা আমাদের সব পুঁজি খাটাই গবেষণা ও উন্নয়নের কাজে, উৎপাদন ও নকশার কাজে, যেন আমাদের পণ্যটা আরও ভালো করা যায়। আমি মনে করি এভাবেই এগোনো উচিত। যেকোনো প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রেই এই প্রশ্নটি সব সময় সামনে রাখতে হবে, ‘এই যে এত উদ্যোগ, এত যে অর্থ ব্যয়, এসবের ফলে কি আমাদের পণ্য বা সেবার মান বাড়ছে?’ এই প্রশ্নের উত্তর যদি নেতিবাচক হয়, তাহলে এই সব উদ্যোগ বন্ধ করে দিতে হবে।

সবশেষের কথাটি হচ্ছে, কেবল গতানুগতিক পথ ধরে হাঁটতে থাকলেই চলবে না। আপনারা হয়তো আমাকে এই কথা বলতে শুনেছেন যে পদার্থবিদ্যার সূত্র অনুযায়ী চিন্তাভাবনা করাটা ভালো। প্রথম শর্ত হলো, অন্য কিছুর সঙ্গে তুলনার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেওয়ার চেয়ে যুক্তি দিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া উত্তম।

একদম গভীরে গিয়ে আগে সমস্যাটা বুঝুন। তারপর যুক্তি দিয়ে সিদ্ধান্ত নিন। আমার কাজ আসলেই অর্থবহ হলো নাকি অন্য সবাই যা করছে আমিও তা-ই করলাম, যাচাই করার এটি একটি ভালো পন্থা। অবশ্যই এ কথা ঠিক যে এভাবে চিন্তাভাবনা করা খুব কঠিন এবং সব ক্ষেত্রে সম্ভবও নয়। এর জন্য অনেক চেষ্টার দরকার। তবে আমি যদি নতুন কিছু করতে নামি তাহলে এটাই হবে চিন্তার সর্বোত্তম ধারা। পদার্থবিদেরা এই কাঠামোটা উদ্ভাবন করেছেন গতানুগতিকতার বাইরে বা ঊর্ধ্বে নতুন কিছু পাওয়ার জন্য। যেমন, কোয়ান্টাম পদ্ধতি। এটি খুবই শক্তিশালী একটি পদ্ধতি।

পরিশেষে, একটা বিষয়ে আপনাদের উৎসাহ দিতে চাই। ঝুঁকি নেওয়ার এটাই সময়। আপনাদের কারও ছেলেপুলে নেই, তেমন কোনো পিছুটান নেই। কিন্তু বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আপনাদের দায়িত্বের পরিধিও বাড়তে থাকবে। যখন আপনাদের পরিবার হবে, তখনো অবশ্য আপনারা ঝুঁকি নেওয়া শুরু করতে পারেন। শুধু নিজের জন্য নয়, পরিবারের জন্যও। কিন্তু সেরকম পরিস্থিতিতে পরিকল্পনা ঠিকভাবে কাজ না করলে আপনি বিপদে পড়বেন। সে কারণেই ওই কাজগুলো করে ফেলার এখনই সময়, দায়দায়িত্বের বোঝা ঘাড়ে চাপার আগেই। আমি আপনাদের ঝুঁকি নেওয়ার এবং সাহসী কোনো পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানাব। বিশ্বাস রাখুন, পস্তাবেন না। ধন্যবাদ।

আমি জানি না কথাগুলো আপনাদের কোনো কাজে লাগল কি না।

Source: http://www.prothomalo.com/we-are/article/1492821/%E0%A6%AA%E0%A6%B0%E0%A6%BF%E0%A6%B6%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%AE-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A6%A4%E0%A7%87%E0%A6%87-%E0%A6%B9%E0%A6%AC%E0%A7%87

221
30 Non-Financial Use Cases of Blockchain Technology

While financial use cases of blockchain technology are at the spotlight due to the significant interest of powerful parties – banks, investors, and even governments– non-financial use cases of DLT are of equally significant importance to a number of industries. Along with banks and FinTech startups, non-financial players have been paying attention and looking for ways to leverage the opportunities that DLT opens. Let’s look at some interesting examples of the applications of blockchain technology beyond financial services:

Authorship and ownership: Bitproof, Blockai, Stampery, Verisart, Monegraph, OriginalMy, Crypto-Copyright, Proof of Existence, Ascribe, Po.et

Birth and death certificates: Khanections, LLC

Blockchain-as-a-Service (BaaS): Ethereum Blockchain as a Service by Microsoft Azure, Rubix by Deloitte, IBM Blockchain on Bluemix

Compliance and security: Chainalysis, Third Key Solutions, Tradle, Vogogo, Elliptic, Coinalytics, Sig3, BlockSee,CryptoCorp, Blockverify

Content management/distribution: Brave, Bittunes, PeerTracks, JAAK, Paperchain

Data management: Factom

Data integrity and security: PeerNova, Guardtime

Decentralized social network: Datt, DECENT, Diaspora*, AKASHA, Synereo

Diamonds: Everledger

Digital identity, identification, and authentication: Keychain, 2WAY.IO, ShoCard, Guardtime, BlockVerify, HYPR,Onename, Civic, UniquID Wallet, Identifi, Evernym, BanQu, AID:Tech, SolidX

Energy: Energy Blockchain Labs, Grid Singularity, TransActive Grid by LO3 Energy

Enterprise-grade solutions and development platforms (infrastructure): XNotes Alliance, Tymlez, Symbiont, Sofocle,Pragmatic Coders, OTCXN, Openchain, Nuco, Monax, Libra Enterprise, Interbit, Credits, Colu, Ciphrex, ChromaWay,ChainThat, Chain Reactor, Chain, Bloq, BlockCypher, Blockchain Foundry, BigchainDB, Avalanchain, Applied Blockchain, AlphaPoint Distributed Ledger Platform

Esports: FirstBlood

E-voting: Follow My Vote, Estonia’s e-Residency platform

Gaming and gambling: Etheria, First Blood, Etheramid, FreeMyVunk, CoinPalace, Etheroll, Rollin, Ethereum Jackpot

Government and organizational governance: BITNATION, Advocate, Borderless, Otonomos, BoardRoom, Colony

Internet of Things (IoT): Databroker DAO, Chronicled, Filament, Chimera, Filament, Stock.it

Job market: Verbatm, Appii, Satoshi Talent, Coinality

Land registry: The Dubai Land Department (DLD)

Licensing: license.rocks

Media: Publiq

Mining: Waves

Network infrastructure: Ethereum, ChromaWay

Open organization/business-related collaboration: Colony

Operating system: BloqEnterprise by Bloq, BOLOS by Ledger, EOS by block.one, DeOS by Razormind, GemOS by Gem, Vault OS by ThoughtMachine

Real estate recording: UBITQUITY, Silvertown

Reputation verification and ranking: The World Table (Open Reputation), ThanksCoin

Ride-share: Arcade City, La ‘Zooz

Supply chain management: Skuchain, Factom

Traceability of food products and supply chain audit: Provenance

A more comprehensive overview of financial and non-financial use cases of blockchain technology can be found in the MEDICI report titled Blockchain Use Cases: Comprehensive Analysis and Startups Involved. Information on over 400 blockchain-focused startups operating around the world can be found in MEDICI, FinTech’s global knowledge network.

Source: https://gomedici.com/30-non-financial-use-cases-of-blockchain-technology-infographic/

222
30 Non-Financial Use Cases of Blockchain Technology

While financial use cases of blockchain technology are at the spotlight due to the significant interest of powerful parties – banks, investors, and even governments– non-financial use cases of DLT are of equally significant importance to a number of industries. Along with banks and FinTech startups, non-financial players have been paying attention and looking for ways to leverage the opportunities that DLT opens. Let’s look at some interesting examples of the applications of blockchain technology beyond financial services:

Authorship and ownership: Bitproof, Blockai, Stampery, Verisart, Monegraph, OriginalMy, Crypto-Copyright, Proof of Existence, Ascribe, Po.et

Birth and death certificates: Khanections, LLC

Blockchain-as-a-Service (BaaS): Ethereum Blockchain as a Service by Microsoft Azure, Rubix by Deloitte, IBM Blockchain on Bluemix

Compliance and security: Chainalysis, Third Key Solutions, Tradle, Vogogo, Elliptic, Coinalytics, Sig3, BlockSee,CryptoCorp, Blockverify

Content management/distribution: Brave, Bittunes, PeerTracks, JAAK, Paperchain

Data management: Factom

Data integrity and security: PeerNova, Guardtime

Decentralized social network: Datt, DECENT, Diaspora*, AKASHA, Synereo

Diamonds: Everledger

Digital identity, identification, and authentication: Keychain, 2WAY.IO, ShoCard, Guardtime, BlockVerify, HYPR,Onename, Civic, UniquID Wallet, Identifi, Evernym, BanQu, AID:Tech, SolidX

Energy: Energy Blockchain Labs, Grid Singularity, TransActive Grid by LO3 Energy

Enterprise-grade solutions and development platforms (infrastructure): XNotes Alliance, Tymlez, Symbiont, Sofocle,Pragmatic Coders, OTCXN, Openchain, Nuco, Monax, Libra Enterprise, Interbit, Credits, Colu, Ciphrex, ChromaWay,ChainThat, Chain Reactor, Chain, Bloq, BlockCypher, Blockchain Foundry, BigchainDB, Avalanchain, Applied Blockchain, AlphaPoint Distributed Ledger Platform

Esports: FirstBlood

E-voting: Follow My Vote, Estonia’s e-Residency platform

Gaming and gambling: Etheria, First Blood, Etheramid, FreeMyVunk, CoinPalace, Etheroll, Rollin, Ethereum Jackpot

Government and organizational governance: BITNATION, Advocate, Borderless, Otonomos, BoardRoom, Colony

Internet of Things (IoT): Databroker DAO, Chronicled, Filament, Chimera, Filament, Stock.it

Job market: Verbatm, Appii, Satoshi Talent, Coinality

Land registry: The Dubai Land Department (DLD)

Licensing: license.rocks

Media: Publiq

Mining: Waves

Network infrastructure: Ethereum, ChromaWay

Open organization/business-related collaboration: Colony

Operating system: BloqEnterprise by Bloq, BOLOS by Ledger, EOS by block.one, DeOS by Razormind, GemOS by Gem, Vault OS by ThoughtMachine

Real estate recording: UBITQUITY, Silvertown

Reputation verification and ranking: The World Table (Open Reputation), ThanksCoin

Ride-share: Arcade City, La ‘Zooz

Supply chain management: Skuchain, Factom

Traceability of food products and supply chain audit: Provenance

A more comprehensive overview of financial and non-financial use cases of blockchain technology can be found in the MEDICI report titled Blockchain Use Cases: Comprehensive Analysis and Startups Involved. Information on over 400 blockchain-focused startups operating around the world can be found in MEDICI, FinTech’s global knowledge network.

Source: https://gomedici.com/30-non-financial-use-cases-of-blockchain-technology-infographic/

224
টিফিন বক্স ছাড়াই কারখানায় আসেন তাঁরা

দুপুরে রান্না হয়েছে ৭ হাজার ৫০০টি ডিম, ১ হাজার ৫২৫ কেজি চালের ভাত, ১৫০ কেজি ডাল। ডিম, সবজি ও ডালসহ রান্নায় তেল লেগেছে ১০৪ কেজি। গত ২৬ এপ্রিল রান্নায় এক বেলায় খরচ হয়েছে ১ লাখ ৭৫ হাজার ১৭৭ টাকা। ঢাকার ধামরাইতে স্নোটেক্স আউটার ওয়্যার লিমিটেডের স্টাফ এবং শ্রমিকদের জন্য এই রান্না হয়। রান্না করা এই খাবার তাঁরা খান বিনা মূল্যে। স্টাফ ছাড়া কারখানাটিতে শুধু পোশাকশ্রমিকের সংখ্যা ৭ হাজার ৩০০।

২০১৫ সাল থেকে কারখানাটি খোলা থাকলে প্রতিদিনই দুপুরের চিত্র এটি। প্রথমে শুধু ডাল, ভাত এবং সবজি দেওয়া হতো। শ্রমিকদের স্বাস্থ্য ও পুষ্টির কথা চিন্তা করে সম্প্রতি তাতে ডিম ও মুরগি যোগ হয়েছে। রান্নার জন্য নিয়োজিত জনবলের বেতন, সিলিন্ডার গ্যাসের খরচসহ কারখানামালিকের মাসে খরচ হয় প্রায় ৬০ লাখ টাকা। শ্রম আইনে শুধু দুপুরের খাবার বিরতি এক ঘণ্টা হবে বলে উল্লেখ থাকলেও বিনা মূল্যে খাবার দেওয়ার কথা বলা হয়নি।

ধামরাইয়ের ধুলিভিটায় অবস্থিত আটতলা ভবনের অষ্টম তলায় কারখানার যে ডাইনিং তাতে একসঙ্গে ১ হাজার ৪০০ শ্রমিক বসে খেতে পারেন। কারখানা ভবনের একটু দূরেই রয়েছে স্টোর ও বিশাল রান্নাঘর। বিশেষ লিফটে করে খাবার পৌঁছে যায় এই তলায়। আট হাজার মানুষের জন্য রয়েছে আলাদা প্লেট।

কারখানার শ্রমিকেরা জানালেন, অন্য কারখানার মতো এই কারখানায় তাঁদের টিফিন ক্যারিয়ার বহন করতে হয় না। দুপুরে রান্নার জন্য নারী শ্রমিকদের বাড়তি সময় ব্যয় করতে হয় না। বাসা থেকে আনা খাবার নষ্ট হয়ে গেল কি না, তা-ও চিন্তা করতে হয় না। দুপুরে হেঁটে বাসায় গিয়ে খাবার খাওয়া বা বাড়তি দাম দিয়ে দোকান থেকে খাবার কিনে খেতে হয় না। এক বেলা খাবারের টাকাটা সাশ্রয় হচ্ছে। গরম খাবার খাচ্ছেন বলে শ্রমিকেরা অসুস্থও হন কম।

ইউনাইটেড স্টেট গ্রিন বিল্ডিং কাউন্সিল এবং অ্যাকর্ডের সনদপ্রাপ্ত কারখানাটির মালিক এস এম খালেদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘খুব কমসংখ্যক কারখানা শ্রমিকদের দুপুরের খাবার দিচ্ছে। তবে অনেকেই বেতনের টাকা থেকে টাকা কেটে নিচ্ছে বা প্যাকেট খাবার দিচ্ছে। আমার কারখানায় শ্রমিকদের গরম খাবার দেওয়া হচ্ছে, রান্নার দায়িত্ব কোনো ঠিকাদারকে দেওয়া হয়নি। রান্নার মান ঠিক আছে কি না, তা জানতে এবং বুঝতে কারখানায় গেলে আমি নিজেও শ্রমিকদের জন্য রান্না করা খাবার খাই। খাবারের পেছনে আমার ভালোই খরচ হচ্ছে। তবে এতে শ্রমিকদের অন্য কারখানায় চলে যাওয়ার হার কমানো গেছে। আমার উৎপাদন খরচও কমে গেছে।’

কারখানাটির কার্যক্রম শুরু হয়েছে ২০১৪ সালে। সবুজ কারখানা হিসেবে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ লিড গোল্ড স্বীকৃতিপ্রাপ্ত কারখানাটি চলতি বছরে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ‘পেশাগত স্বাস্থ্য ও সেফটি উত্তম চর্চা পুরস্কার’ পেয়েছে। গত বছর বাংলাদেশে তৈরি পোশাক কারখানায় উত্তম চর্চার অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা আইএলও যে পাঁচটি কারখানাকে স্বীকৃতি দেয় তাতেও কারখানার নাম আছে। চলতি বছরে পোশাক কারখানার খবর পরিবেশনকারী আরএমজি টাইমসের ‘আরএমজি টাইমস বেস্ট প্র্যাকটিস অ্যাওয়ার্ড’ও পেয়েছে কারখানাটি।

কারখানাটিতে শ্রমিকদের খাবার দেওয়ার জন্য সিভিল সার্জনের কাছ থেকে সনদ নেওয়া হয়েছে। এখানে রান্নাঘরের স্টোরের দায়িত্বে থাকা সাইদুল ইসলাম ২৬ এপ্রিলের বাজারের ফর্দ উল্লেখ করে জানালেন, ওই দিন সবজির জন্য পেঁপে ছিল ১৮৭ কেজি, চালকুমড়া ৫৮৫ কেজি, কাঁচা কলা ৬০ কেজি, চিচিঙ্গা ১০৬ কেজি এবং আলু লেগেছে ৩০০ কেজি। শুধু পেঁয়াজই লেগেছে ৮০ কেজি। কারখানায় উপস্থিতির ভিত্তিতে কেজির পরিমাণে কিছুটা হেরফের হয়। এ রান্নার দায়িত্বে আছেন ৬ জন মূল বাবুর্চিসহ মোট ১৮ জন বাবুর্চি। আর বাবুর্চিসহ রান্নার কাজে সহায়তা করা মোট জনবলের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৮ জন।

কারখানাটির ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার এ এইচ এম কামরুজ্জামান চৌধুরী (কমপ্লায়েন্স) বলেন, এ কারখানার নীতি হচ্ছে ‘সুখী হই সুখী করি’। শ্রমিক ও কর্মীদের পেছনে দুপুরের খাবার দিতে কারখানার যে খরচ হচ্ছে, তাকে বিনিয়োগ হিসেবেই দেখা হচ্ছে।

২৬ এপ্রিল সকালের দিকে কারখানায় পৌঁছে দেখা যায়, শ্রমিকেরা আপনমনে কাজ করছেন আর শ্রমিকদের বিনোদনের জন্য প্রতি ফ্লোরে গান বাজানো হচ্ছে। দুপুরের খাবারের সময় দেখা গেল, শ্রমিকদের কেউ মাঠে বসে চুল আঁচড়াচ্ছেন, কেউ ফোনে দরকারি কথা সেরে নিচ্ছেন। অনেকে নিজেদের মধ্যে গল্পে মেতেছেন। আর ডাইনিং রুমে একসঙ্গে খেতে বসেছেন ১ হাজার ৪০০ শ্রমিক। কোনো হুড়োহুড়ি নেই। লম্বা বেসিনে বিশুদ্ধ খাবার পানি ও হাত ধোয়ার পানির ব্যবস্থা আছে। লাইন করে সবজি এবং ডিমের তরকারি নিয়ে কয়েকজন কর্মী দাঁড়ানো। শ্রমিক প্লেট নিয়ে প্রথমে সবজি নিচ্ছেন পরে ডিমের ঝোল বা মুরগি থাকলে তা নিয়ে যেখানে খালি জায়গা পাচ্ছেন সেখানেই বসে যাচ্ছেন। টেবিলে গরম ধোঁয়া ওঠা ভাত ও ডাল। যাঁর যতটুকু লাগছে নিজেরাই নিয়ে খাচ্ছেন। খাওয়া শেষে প্লেট ধোয়ার জন্যও আছে নির্দিষ্ট জনবল।

কারখানার অন্য কর্মকর্তা ও কর্মচারীরাও এই একই ভাত ও ডাল খাচ্ছেন, তবে এর পাশাপাশি নিজেরা মাসিক ৭০০ টাকা করে জমা দিচ্ছেন। কারখানা কর্তৃপক্ষের ডিম বা মুরগির জন্য দেওয়া বরাদ্দের সঙ্গে কিছু টাকা যোগ করে নিজেদের মতো করে একেক দিন একেক মেন্যু খাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। তবে খাবারের মান ঠিক আছে কি না, তা যাচাইয়ের জন্য সপ্তাহে এক দিন শ্রমিকদের জন্য যে খাবার, তা খেতে হয় স্টাফদের।

কারখানাটি শ্রমিকদের উৎসাহ দেওয়ার জন্য আইনের বাইরে নানান কার্যক্রম পরিচালনা করছে। শ্রমিকেরা মজুরি পাচ্ছে ওই মাসের শেষ কর্মদিবসে। নতুনদের কাজে সহায়তার জন্য শ্রমিকদের মধ্য থেকেই ‘সাহায্যকারী বন্ধু’, শ্রমিকদের প্রতিভা বিকাশে স্নোটেক্স বার্তা প্রকাশ, কর্মীরা কেমন আছেন, তার জন্য ‘সুখ’ জরিপ করছে। অন্তঃসত্ত্বা মায়েদের বিশেষ সহায়তা দেওয়ার জন্য তাঁদের হাতে লাগানো হয় বিশেষ রঙের কাপড়, দেওয়া হয় হালকা কাজ। নারী শ্রমিকদের কম মূল্যে প্রতি মাসে দেওয়া হচ্ছে স্যানিটারি ন্যাপকিন।

‘টাইগার’ নিয়ে লড়াই

কারখানার প্রতি ফ্লোরে একটি করে কাপড়ের তৈরি ‘টাইগার’ বা বাঘ বসে আছে। যে লাইন বা যে ফ্লোর সবচেয়ে ভালো কাজ করে, ‘টাইগার’ চলে যায় তাদের দখলে। এর জন্য লাইন বা ফ্লোর পাচ্ছে ৭০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে নানান অঙ্কের টাকা। এ টাকা সবার মধ্যে ভাগাভাগি হচ্ছে। কর্মীদের বৃষ্টির হাত থেকে বাঁচানোর জন্য রেইনকোট এবং ইউনিফরম দেওয়া হচ্ছে বিনা মূল্যে। হাজিরা বোনাস, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের কাজের সুবিধা, প্রভিডেন্ট তহবিলসহ মোট ২২ ধরনের প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে। শ্রমিকেরা শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্র, বাজারমূল্য থেকে কম মূল্যে পণ্য কেনার জন্য ক্যানটিন-ব্যবস্থা এবং ক্লিনিকে গিয়ে সেবা নেওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন।

কারখানাটির মালিক এস এম খালেদের মতে, এ সুবিধাগুলো হচ্ছে শ্রমিকদের জন্য ‘একটু বাড়তি’ দেওয়া। এই বাড়তি দেওয়ার কারণেই কারখানার আয়তন ১০ বিঘা থেকে ৩০ বিঘা করা সম্ভব হয়েছে। দেশে ও বিদেশে বিভিন্ন কারখানার সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে টিকে থাকা সম্ভব হচ্ছে। তিনি জানালেন, কারখানায় আধুনিক রান্নাঘর তৈরির প্রস্তুতি চলছে। চলতি বছর থেকে কারখানার যে লাভ, তার ৫ শতাংশের অংশীদার হবে শ্রমিকেরা। যাতে শ্রমিকেরা নিজেকে কারখানার একজন বলে মনে করতে পারেন।

Source: http://www.prothomalo.com/bangladesh/article/1486791/%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%AB%E0%A6%BF%E0%A6%A8-%E0%A6%AC%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B8-%E0%A6%9B%E0%A6%BE%E0%A7%9C%E0%A6%BE%E0%A6%87-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%96%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A7%9F-%E0%A6%86%E0%A6%B8%E0%A7%87%E0%A6%A8-%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%81%E0%A6%B0%E0%A6%BE

225

টিফিন বক্স ছাড়াই কারখানায় আসেন তাঁরা

দুপুরে রান্না হয়েছে ৭ হাজার ৫০০টি ডিম, ১ হাজার ৫২৫ কেজি চালের ভাত, ১৫০ কেজি ডাল। ডিম, সবজি ও ডালসহ রান্নায় তেল লেগেছে ১০৪ কেজি। গত ২৬ এপ্রিল রান্নায় এক বেলায় খরচ হয়েছে ১ লাখ ৭৫ হাজার ১৭৭ টাকা। ঢাকার ধামরাইতে স্নোটেক্স আউটার ওয়্যার লিমিটেডের স্টাফ এবং শ্রমিকদের জন্য এই রান্না হয়। রান্না করা এই খাবার তাঁরা খান বিনা মূল্যে। স্টাফ ছাড়া কারখানাটিতে শুধু পোশাকশ্রমিকের সংখ্যা ৭ হাজার ৩০০।

২০১৫ সাল থেকে কারখানাটি খোলা থাকলে প্রতিদিনই দুপুরের চিত্র এটি। প্রথমে শুধু ডাল, ভাত এবং সবজি দেওয়া হতো। শ্রমিকদের স্বাস্থ্য ও পুষ্টির কথা চিন্তা করে সম্প্রতি তাতে ডিম ও মুরগি যোগ হয়েছে। রান্নার জন্য নিয়োজিত জনবলের বেতন, সিলিন্ডার গ্যাসের খরচসহ কারখানামালিকের মাসে খরচ হয় প্রায় ৬০ লাখ টাকা। শ্রম আইনে শুধু দুপুরের খাবার বিরতি এক ঘণ্টা হবে বলে উল্লেখ থাকলেও বিনা মূল্যে খাবার দেওয়ার কথা বলা হয়নি।

ধামরাইয়ের ধুলিভিটায় অবস্থিত আটতলা ভবনের অষ্টম তলায় কারখানার যে ডাইনিং তাতে একসঙ্গে ১ হাজার ৪০০ শ্রমিক বসে খেতে পারেন। কারখানা ভবনের একটু দূরেই রয়েছে স্টোর ও বিশাল রান্নাঘর। বিশেষ লিফটে করে খাবার পৌঁছে যায় এই তলায়। আট হাজার মানুষের জন্য রয়েছে আলাদা প্লেট।

কারখানার শ্রমিকেরা জানালেন, অন্য কারখানার মতো এই কারখানায় তাঁদের টিফিন ক্যারিয়ার বহন করতে হয় না। দুপুরে রান্নার জন্য নারী শ্রমিকদের বাড়তি সময় ব্যয় করতে হয় না। বাসা থেকে আনা খাবার নষ্ট হয়ে গেল কি না, তা-ও চিন্তা করতে হয় না। দুপুরে হেঁটে বাসায় গিয়ে খাবার খাওয়া বা বাড়তি দাম দিয়ে দোকান থেকে খাবার কিনে খেতে হয় না। এক বেলা খাবারের টাকাটা সাশ্রয় হচ্ছে। গরম খাবার খাচ্ছেন বলে শ্রমিকেরা অসুস্থও হন কম।

ইউনাইটেড স্টেট গ্রিন বিল্ডিং কাউন্সিল এবং অ্যাকর্ডের সনদপ্রাপ্ত কারখানাটির মালিক এস এম খালেদ প্রথম আলোকে বলেন, ‘খুব কমসংখ্যক কারখানা শ্রমিকদের দুপুরের খাবার দিচ্ছে। তবে অনেকেই বেতনের টাকা থেকে টাকা কেটে নিচ্ছে বা প্যাকেট খাবার দিচ্ছে। আমার কারখানায় শ্রমিকদের গরম খাবার দেওয়া হচ্ছে, রান্নার দায়িত্ব কোনো ঠিকাদারকে দেওয়া হয়নি। রান্নার মান ঠিক আছে কি না, তা জানতে এবং বুঝতে কারখানায় গেলে আমি নিজেও শ্রমিকদের জন্য রান্না করা খাবার খাই। খাবারের পেছনে আমার ভালোই খরচ হচ্ছে। তবে এতে শ্রমিকদের অন্য কারখানায় চলে যাওয়ার হার কমানো গেছে। আমার উৎপাদন খরচও কমে গেছে।’

কারখানাটির কার্যক্রম শুরু হয়েছে ২০১৪ সালে। সবুজ কারখানা হিসেবে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ লিড গোল্ড স্বীকৃতিপ্রাপ্ত কারখানাটি চলতি বছরে শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের ‘পেশাগত স্বাস্থ্য ও সেফটি উত্তম চর্চা পুরস্কার’ পেয়েছে। গত বছর বাংলাদেশে তৈরি পোশাক কারখানায় উত্তম চর্চার অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা আইএলও যে পাঁচটি কারখানাকে স্বীকৃতি দেয় তাতেও কারখানার নাম আছে। চলতি বছরে পোশাক কারখানার খবর পরিবেশনকারী আরএমজি টাইমসের ‘আরএমজি টাইমস বেস্ট প্র্যাকটিস অ্যাওয়ার্ড’ও পেয়েছে কারখানাটি।

কারখানাটিতে শ্রমিকদের খাবার দেওয়ার জন্য সিভিল সার্জনের কাছ থেকে সনদ নেওয়া হয়েছে। এখানে রান্নাঘরের স্টোরের দায়িত্বে থাকা সাইদুল ইসলাম ২৬ এপ্রিলের বাজারের ফর্দ উল্লেখ করে জানালেন, ওই দিন সবজির জন্য পেঁপে ছিল ১৮৭ কেজি, চালকুমড়া ৫৮৫ কেজি, কাঁচা কলা ৬০ কেজি, চিচিঙ্গা ১০৬ কেজি এবং আলু লেগেছে ৩০০ কেজি। শুধু পেঁয়াজই লেগেছে ৮০ কেজি। কারখানায় উপস্থিতির ভিত্তিতে কেজির পরিমাণে কিছুটা হেরফের হয়। এ রান্নার দায়িত্বে আছেন ৬ জন মূল বাবুর্চিসহ মোট ১৮ জন বাবুর্চি। আর বাবুর্চিসহ রান্নার কাজে সহায়তা করা মোট জনবলের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫৮ জন।

কারখানাটির ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজার এ এইচ এম কামরুজ্জামান চৌধুরী (কমপ্লায়েন্স) বলেন, এ কারখানার নীতি হচ্ছে ‘সুখী হই সুখী করি’। শ্রমিক ও কর্মীদের পেছনে দুপুরের খাবার দিতে কারখানার যে খরচ হচ্ছে, তাকে বিনিয়োগ হিসেবেই দেখা হচ্ছে।

২৬ এপ্রিল সকালের দিকে কারখানায় পৌঁছে দেখা যায়, শ্রমিকেরা আপনমনে কাজ করছেন আর শ্রমিকদের বিনোদনের জন্য প্রতি ফ্লোরে গান বাজানো হচ্ছে। দুপুরের খাবারের সময় দেখা গেল, শ্রমিকদের কেউ মাঠে বসে চুল আঁচড়াচ্ছেন, কেউ ফোনে দরকারি কথা সেরে নিচ্ছেন। অনেকে নিজেদের মধ্যে গল্পে মেতেছেন। আর ডাইনিং রুমে একসঙ্গে খেতে বসেছেন ১ হাজার ৪০০ শ্রমিক। কোনো হুড়োহুড়ি নেই। লম্বা বেসিনে বিশুদ্ধ খাবার পানি ও হাত ধোয়ার পানির ব্যবস্থা আছে। লাইন করে সবজি এবং ডিমের তরকারি নিয়ে কয়েকজন কর্মী দাঁড়ানো। শ্রমিক প্লেট নিয়ে প্রথমে সবজি নিচ্ছেন পরে ডিমের ঝোল বা মুরগি থাকলে তা নিয়ে যেখানে খালি জায়গা পাচ্ছেন সেখানেই বসে যাচ্ছেন। টেবিলে গরম ধোঁয়া ওঠা ভাত ও ডাল। যাঁর যতটুকু লাগছে নিজেরাই নিয়ে খাচ্ছেন। খাওয়া শেষে প্লেট ধোয়ার জন্যও আছে নির্দিষ্ট জনবল।

কারখানার অন্য কর্মকর্তা ও কর্মচারীরাও এই একই ভাত ও ডাল খাচ্ছেন, তবে এর পাশাপাশি নিজেরা মাসিক ৭০০ টাকা করে জমা দিচ্ছেন। কারখানা কর্তৃপক্ষের ডিম বা মুরগির জন্য দেওয়া বরাদ্দের সঙ্গে কিছু টাকা যোগ করে নিজেদের মতো করে একেক দিন একেক মেন্যু খাওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন। তবে খাবারের মান ঠিক আছে কি না, তা যাচাইয়ের জন্য সপ্তাহে এক দিন শ্রমিকদের জন্য যে খাবার, তা খেতে হয় স্টাফদের।

কারখানাটি শ্রমিকদের উৎসাহ দেওয়ার জন্য আইনের বাইরে নানান কার্যক্রম পরিচালনা করছে। শ্রমিকেরা মজুরি পাচ্ছে ওই মাসের শেষ কর্মদিবসে। নতুনদের কাজে সহায়তার জন্য শ্রমিকদের মধ্য থেকেই ‘সাহায্যকারী বন্ধু’, শ্রমিকদের প্রতিভা বিকাশে স্নোটেক্স বার্তা প্রকাশ, কর্মীরা কেমন আছেন, তার জন্য ‘সুখ’ জরিপ করছে। অন্তঃসত্ত্বা মায়েদের বিশেষ সহায়তা দেওয়ার জন্য তাঁদের হাতে লাগানো হয় বিশেষ রঙের কাপড়, দেওয়া হয় হালকা কাজ। নারী শ্রমিকদের কম মূল্যে প্রতি মাসে দেওয়া হচ্ছে স্যানিটারি ন্যাপকিন।

‘টাইগার’ নিয়ে লড়াই

কারখানার প্রতি ফ্লোরে একটি করে কাপড়ের তৈরি ‘টাইগার’ বা বাঘ বসে আছে। যে লাইন বা যে ফ্লোর সবচেয়ে ভালো কাজ করে, ‘টাইগার’ চলে যায় তাদের দখলে। এর জন্য লাইন বা ফ্লোর পাচ্ছে ৭০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে নানান অঙ্কের টাকা। এ টাকা সবার মধ্যে ভাগাভাগি হচ্ছে। কর্মীদের বৃষ্টির হাত থেকে বাঁচানোর জন্য রেইনকোট এবং ইউনিফরম দেওয়া হচ্ছে বিনা মূল্যে। হাজিরা বোনাস, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের কাজের সুবিধা, প্রভিডেন্ট তহবিলসহ মোট ২২ ধরনের প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে। শ্রমিকেরা শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্র, বাজারমূল্য থেকে কম মূল্যে পণ্য কেনার জন্য ক্যানটিন-ব্যবস্থা এবং ক্লিনিকে গিয়ে সেবা নেওয়ার সুযোগ পাচ্ছেন।

কারখানাটির মালিক এস এম খালেদের মতে, এ সুবিধাগুলো হচ্ছে শ্রমিকদের জন্য ‘একটু বাড়তি’ দেওয়া। এই বাড়তি দেওয়ার কারণেই কারখানার আয়তন ১০ বিঘা থেকে ৩০ বিঘা করা সম্ভব হয়েছে। দেশে ও বিদেশে বিভিন্ন কারখানার সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে টিকে থাকা সম্ভব হচ্ছে। তিনি জানালেন, কারখানায় আধুনিক রান্নাঘর তৈরির প্রস্তুতি চলছে। চলতি বছর থেকে কারখানার যে লাভ, তার ৫ শতাংশের অংশীদার হবে শ্রমিকেরা। যাতে শ্রমিকেরা নিজেকে কারখানার একজন বলে মনে করতে পারেন।

Source: http://www.prothomalo.com/bangladesh/article/1486791/%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%AB%E0%A6%BF%E0%A6%A8-%E0%A6%AC%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%B8-%E0%A6%9B%E0%A6%BE%E0%A7%9C%E0%A6%BE%E0%A6%87-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%96%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A7%9F-%E0%A6%86%E0%A6%B8%E0%A7%87%E0%A6%A8-%E0%A6%A4%E0%A6%BE%E0%A6%81%E0%A6%B0%E0%A6%BE

Pages: 1 ... 13 14 [15] 16 17 ... 21