Show Posts

This section allows you to view all posts made by this member. Note that you can only see posts made in areas you currently have access to.


Messages - Md. Zakaria Khan

Pages: 1 [2] 3 4 ... 22
16
দাঁড়িয়ে পানি পান করলে যা ক্ষতি

 মানুষের জীবনে পানি পানের কোনও বিকল্প নেই। পানি কিডনির মাধ্যমে আপনার শরীরের সব ক্ষতিকারক উপাদান দূর করে দেয়। তবে পানি পান করার নিয়মও আছে। অনেকেই দাঁড়িয়ে পানি পান করে থাকেন। কিন্তু জানেন কী দাঁড়িয়ে পানি পান করলে আপনার নানা ধরনের ক্ষতি হতে পারে। টাইমস অব ইন্ডিয়া অবলম্বনে চলুন জেনে নিই দাঁড়িয়ে পানি পান করলে যেসব ক্ষতি হতে পারে।
১. যখন আপনি দাঁড়িয়ে পানি পান করেন তখন পানি সরাসরি আপনার পাকস্থলিতে চলে যায়। তারপর খুব দ্রুতই প্রস্রাবের মাধ্যমে বের হয়ে যায়। এর মাধ্যমে আপনার কিডনির ক্ষতি হতে পারে।   
২. দাঁড়িয়ে পানি পান করলে আপনার শরীরের  জয়েন্টে ব্যথা হতে পারে।
৩. এই অভ্যাসটি আপনার শরীরের অক্সিজেন সরবরাহকে বাধা দেয়। এতে করে আপনার ফুসফুসের ক্ষতি হতে পারে।
৪. দাঁড়িয়ে পানি খেলে নার্ভে প্রদাহ বেড়ে যায়। ফলে কোনও কারণ ছাড়াই দুশ্চিন্তা এবং মানসিক চাপ বেড়ে যেতে পারে।
৫. বদহজমের সমস্যা হয়।
৬. এসিড লেভেলে তারতম্য ঘটে দাঁড়িয়ে পানি খেলে। দাঁড়িয়ে থাকা অবস্থায় পানি খেলে শরীরে ক্ষরণ হতে থাকা অ্যাসিডকে তরল করতে পারে না। এর ফলে স্বাভাবিকভাবেই নানাবিধ সমস্যা দেখা দেয়।

17
"ইয়া মুকাল্লিবাল কুলুব, সাব্বিত কালবি আলা দ্বীনিক।"
অর্থ:- হে অন্তরসমূহের পরিবর্তনকারী, আমার অন্তরকে তোমার দ্বীনের উপর সুদৃঢ় করে দাও।
[ তিরমিযী - ২১৪০]

18
History / Re: History of Muslim'S
« on: July 27, 2019, 05:22:04 PM »
আল্লাহ বলেন,
“আমি তাকে (রাসূলকে) কবিতা শিখাইনি, তার জন্য তা সমীচীনও নয়। এই কিতাব তো এক স্মারকপত্র আর স্পষ্ট কুরআন। যাতে সে জীবিত (অন্তরবিশিষ্ট ঈমানদার) ব্যক্তিকে সতর্ক করতে পারে এবং (মৃত অন্তরবিশিষ্ট) কাফিরদের বিরুদ্ধে শাস্তির কথা সঠিক প্রমাণ করতে পারে।” [সূরা ইয়াসীন, ৩৬:৬৯,৭০]

19
History / Re: History of Muslim'S
« on: July 09, 2019, 08:31:28 PM »
আযানের সময় জরুরিভাবে যে ৫টি আমল করবেন

আযান অত্যন্ত বড় একটি ইবাদত। এটা শুধু মুয়াযযিনের সাথেই সম্পৃক্ত নয়। আযানে পাঁচটি আমল এমন রয়েছে, যা সকল মুসলমান আদায় করতে পারে। অত্যন্ত সহজ ও সুন্দর সেই পাঁচটি আমল এই-

এক. আযানের শব্দগুলো মুয়াযযিন বলার পর হুবহু উচ্চারণ করা। হযরত আবু সাঈদ খুদরী রাযি. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা. ইরশাদ করেন, ‘তোমরা যখন আযান শুনবে, তখন মুয়াযযিন যা বলবে, তোমরাও তাই বলো।’ (বুখারী শরীফ, হাদীস-৫৭৬)

তবে ‘হাইয়া আলাস সালাহ’ এবং ‘হাইয়া আলাল ফালাহ’ বলার পর ‘লা হাওলা ওয়ালা কুওয়াতা ইল্লা বিল্লাহ’ বলতে হবে।বুখারী শরীফে অন্যত্র বর্ণিত আছে, হযরত মুআবিয়া ইবনে আবু সুফিয়ান রাযি. বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সা.-এর থেকে এমনটিই শুনেছি। (বুখারী শরীফ, হাদীস-৫৭৮)

দুই. আযান শেষ হবার পর রাসূলুল্লাহ সা.-এর ওপর দরূদ শরীফ পাঠ করা। হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আমর রাযি. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা. ইরশাদ করেন,

‘মুয়াযযিনের আযান শুনে তোমরা হুবহু শব্দগুলো বলো। এরপর আমার ওপর দরূদ পাঠ করো। যে ব্যক্তি আমার ওপর একবার দরূদ পাঠ করবে, আল্লাহ তাআলা তার ওপর দশটি রহমন বর্ষণ করবেন।’ (মুসলিম শরীফ, হাদীস-৫৭৭)

তিন. রাসূলুল্লাহ সা.-এর জন্য ‘উসিলার মর্যাদা’ প্রত্যাশা করা। পূর্বে উল্লেখিত হাদীসের শেষাংশে বর্ণিত আছে, রাসূলুল্লাহ সা. বলেন, সবশেষে তোমরা আল্লাহ তাআলার কাছে আমার জন্য ‘উসিলা’ চাও। ‘উসিলা’ জান্নাতের মধ্যে একটি মর্যাদাবার স্থান।

কেউ তা পাবে না আল্লাহর একজন বান্দা ছাড়া। আমি আশা করি, সেই বান্দা আমিই। সুতরাং যে ব্যক্তি আমার জন্য ‘উসিলা’ চাইবে, তার জন্য আমার শাফায়াত জরুরী হয়ে যাবে।’ (মুসলিম শরীফ, হাদীস-৫৭৭)

চার. তাওহীদের সাক্ষি দেয়া, আল্লাহ, তাঁর রাসূল ও দ্বীনে ইসলামের প্রতি সন্তুষ্টির ঘোষণা দেয়া। হযরত সাদ ইবনে আবি ওয়াক্কাস রাযি. থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সা. ইরশাদ করেন, মুয়াযযিনের আযান শুনে যে ব্যক্তি বলবে,

أَشْهَدُ أَنْ لَا إِلَهَ إِلَّا اللَّهُ وَحْدَهُ لَا شَرِيكَ لَهُ وَأَنَّ مُحَمَّدًا عَبْدُهُ وَرَسُولُهُ، رَضِيتُ بِاللَّهِ رَبًّا وَبِمُحَمَّدٍ رَسُولًا وَبِالْإِسْلَامِ دِينًا
(উচ্চারণ) আশহাদু আল-লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়াহ দাহু, লা শারীকা লাহু, ওয়া আন্না মুহাম্মাদান আবদুহু ওয়া রাসূলুহু, রযীতু বিল্লাহি রব্বাও ওয়া বিমুহাম্মাদিন রাসূলাও ওয়া বিল ইসলামি দ্বীনা, তার সকল গুনাহ মাফ করে দেয়া হবে।’ (মুসলিম শরীফ, হাদীস-৫৭৯)

পাঁচ. আল্লাহ তাআলার নিকট যে কোন দুআ করা। আযানের পর দুআ কবুল হয়। হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আমর রাযি. থেকে বর্ণিত, এক ব্যক্তি রাসূলুল্লাহ সা.কে বলল, ইয়া রাসূলাল্লাহ!

মুয়াযযিনগণ আযান দিয়ে আমাদের চেয়ে বেশি ফযীলতপ্রাপ্ত হচ্ছে, আমরা কী করব? রাসূলুল্লাহ সা. বললেন, হুবহু মুয়াযযিনের মত তুমিও বলো। আযান শেষ হলে আল্লাহ তাআলা কাছে চাও, তোমার দুআ কবুল করা হবে। (আবু দাউদ শরীফ, হাদীস-৪৪০)

20
রাসূল ﷺ বলেছেন, “হে যুব-সম্প্রদায়! তোমাদের মধ্যে যে বিবাহের সামর্থ্য রাখে, সে যেন বিবাহ করে। কারণ বিবাহ চক্ষুকে অবনমিত করে এবং লজ্জাস্থানকে হেফাজত করে। আর যে ব্যক্তি ওই সামর্থ্য রাখে না, সে যেন রোজা রাখে। কেননা তা তার জন্য ঢালস্বরূপ (অর্থাৎ, কামভাব প্রশমনকারী)।” [সাহীহ বুখারী, হা/৫০৬৬; সাহীহ মুসলিম, হা/১৪০০]

21
History / Re: History of Muslim'S
« on: July 04, 2019, 05:43:44 PM »
শায়খ আব্দুল আযিয আত-তারিফি (হাফি)- এর একটা উক্তি । উনি বলেছেন,
"আল্লাহ কোন জালিমকেও উঁচুতে তুলে ধরতে পারেন। কিন্তু এর কারণ জালিমের প্রতি আল্লাহর ভালোবাসা নয়। বরং তাকে উঁচু জায়গা থেকে আছড়ে ফেলাটাই উদ্দেশ্য। সুতরাং কোন জালিমকে বেশি বাড়তে দেখে বিভ্রান্ত হবেন না। তার পতন আসন্ন।"

আল্লাহ তা'আলা তাই কুরআনে বলেছেন,
"আমি তাদেরকে এ জন্যে সুযোগ দিয়েছি যেন তাদের পাপ বৃদ্ধি পায়। আর তাদের জন্যে রয়েছে লাঞ্ছনাকর শাস্তি।" (সূরা আলে ইমরান ৩:১৭৮)

22
আল্লাহপাক স্পষ্ট ভাষায় বলেন অনুমানকারীরা ধ্বংস হোক ।
(সুর যারিয়াত ১০)
তোমরা মন্দ ধারণা থেকে বেঁচে থাকো। কেননা মন্দ ধারণাই হচ্ছে সবচেয়ে জঘন্য মিথাচার।’-সহিহ মুসলিম শরিফ, হাদিস নং : ৬৭০১
‘হে মুমিনগণ! তোমরা অধিকাংশ (অহেতুক) অনুমান থেকে দূরে থাক। কারণ (অহেতুক) অনুমান কোনো কোনো ক্ষেত্রে পাপ। (সুরা হুজরাত : আয়াত ১২)
অহেতুক মানুষের প্রতি কু-ধারণা পোষণ করার ফলে পরস্পরের প্রতি বিরূপ মনোভাবের সৃষ্টি হয়; সামাজিক সুসম্পর্ক ছিন্ন হয়। ব্যক্তি, পরিবার ও সমাজে পারস্পরিক ঐক্য, সাম্য ও সম্প্রীতি নষ্ট হয়। আর এ অহেতুক ধারণা থেকেই মিথ্যার সৃষ্টি হয়।

23
|| রোগী দেখতে যাওয়ার অপরিসীম ফযিলত ||
.
হযরত সাওবান (রা) হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (স) বলেন,
.
"কোন মুসলিম যখন তার অসুস্থ ভাইকে দেখতে যায়, সে ফিরে না আসা পর্যন্ত জান্নাতের 'খুরফা' আহরণ করতে থাকে।
.
"জিজ্ঞেস করা হলঃ "জান্নাতের খুরফা কি??"
.
রাসূলুল্লাহ (স) উত্তরে বলেন, "এর (জান্নাতের) ফলমূল।"
.
[মুসলিম, রিয়াদুস সালেহীন, ৩য় খন্ড, হাদিস নং- ৮৯৮]
.
হযরত আলী (রা) হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ (স) বলেন,
"কোন মুসলিম সকাল বেলা তার অসুস্থ ভাইকে দেখতে গেলে সন্ধ্যা পর্যন্ত ৭০ হাজার ফেরেশতা তার জন্য দোয়া করতে থাকে। আর সন্ধ্যায় কোন অসুস্থ ভাইকে দেখতে গেলে সকাল পর্যন্ত ৭০ হাজার ফেরেশতা তার জন্য দোয়া করতে থাকে। আর তার জন্য জান্নাতে ১টি ফলের বাগান নির্ধারিত করে দেয়া হয়।"
.
[তিরমিযী, রিয়াদুস সালেহীন, ৩য় খন্ড, হাদিস নং- ৮৯৯]

24
বর্তমান বিশ্বে ‘ড্রোন’ অত্যন্ত আলোচিত একটি শব্দ। মানবহীন পাখিসদৃশ এই যন্ত্রবিশেষ চালাতে কোনো পাইলটের প্রয়োজন হয় না। দূর থেকেই তারহীন নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থার মাধ্যমে অথবা আগে থেকে নির্ধারিত প্রগ্রামিং দ্বারা স্বয়ংক্রিয়ভাবে ড্রোন নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। প্রতিরক্ষা থেকে শুরু করে ব্যক্তিগত নানা কাজে ড্রোনের ব্যবহার লক্ষণীয়। বর্তমানে বিভিন্ন নিরাপত্তা সংস্থা তাদের অফিস থেকেই বিভিন্ন ভবনের ছাদ এবং অন্যান্য উঁচু ভবন ড্রোনের মাধ্যমে প্রত্যক্ষ নজরদারির আওতায় রাখছে।

বর্তমানে গুগল, অ্যামাজনের মতো বড় বড় কম্পানি পণ্য পরিবহন, যোগাযোগ রক্ষা, তথ্য পরিবহনসহ নানা কাজে সার্থকতার সঙ্গে ড্রোনকে কাজে লাগাচ্ছে। মিসাইল প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায়ও আজকাল ড্রোন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। এ ছাড়া সিনেমা, নিউজ ও বিভিন্ন ডকুমেন্টারি তৈরি করতে মিডিয়াগুলোও ড্রোন ব্যবহার করছে। বাংলাদেশেও প্রতিরক্ষাসহ নিরাপত্তাজনিত নানা কাজে দিন দিন ব্যবহার বাড়ছে পাখিসদৃশ এই যন্ত্রটির।

বিশ্ব শাসনকারী নবী হজরত সুলাইমান (আ.)-এরও একটি পাখি ছিল, যার নাম হুদহুদ। পাখিটি ছিল বর্তমান যুগের ড্রোনের চেয়েও শক্তিশালী। এ যুগের এআই (কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা) আমাদের কাঙ্ক্ষিত ফলাফল দিতে না পারলেও হুদহুদের ছিল আল্লাহ প্রদত্ত পূর্ণ বুদ্ধিমত্তা। আল্লাহ প্রদত্ত শক্তিশালী জিপিএস সিস্টেমের মাধ্যমে হুদহুদ এনে দিতে পারত সুলাইমান (আ.)-এর বিশাল রাজ্যের খোঁজখবর। শুধু তা-ই নয়, মহান আল্লাহ এই পাখিটিকে এমন সেন্সর দান করেছেন, যার মাধ্যমে সে ভূগর্ভের বস্তুসমূহ এবং ভূগর্ভে প্রবাহিত পানি হাজার ফুট ওপর থেকে শনাক্ত করতে পারত। তার চোখগুলো ছিল বর্তমান যুগের ডিজিটাল ক্যামেরার চেয়ে হাজার গুণ শক্তিশালী। সুলাইমান (আ.) তাঁর বিশাল সেনাবাহিনী নিয়ে যে এলাকায় থাকতেন, সেখানে যেহেতু পানি ছিল না, তাই হজরত তিনি সব সময় পানির খোঁজখবর রাখার জন্য ওই পাখি কাছে রাখতেন। পবিত্র কোরআনের সুরা নামলে এই পাখির বর্ণনা পাওয়া যায়। সেখানে পাখিটি হজরত সুলাইমান (আ.)-কে তাঁর অগোচরে বেড়ে ওঠা শক্তি ‘সাবা’ রাজ্যের সংবাদ দিয়েছিল।

ঐতিহাসিক এই পাখিটি একবার দেখলেই চোখ জুড়িয়ে যায়। ২০০৮ সালের মে মাসে পাখিটিকে দেশের জাতীয় পাখির স্বীকৃতি দিয়েছে ইসরায়েল। (ওয়াইনেট নিউজ)

উপমহাদেশে পাখিটি বেশি দেখা যায়। মধ্যপ্রাচ্যের প্রতিটি দেশ, মিসর, চাদ, মাদাগাস্কার, এমনকি ইউরোপের কোনো কোনো দেশেও এর দেখা পাওয়া যায়। পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত এবং আমাদের দেশেও মাঝেমধ্যে এই পাখির দেখা পাওয়া যায়। আমাদের দেশের মানুষ এটিকে মোহনচূড়া বা কাঠকুড়ালি হিসেবে চেনে। যেহেতু হুদহুদ পাখির অনেক উপপ্রজাতি আছে, তাই আমাদের দেশের মোহনচূড়াই সুলাইমান (আ.)-এর হুদহুদ কি না তা নিয়ে সংশয় আছে। ইংরেজিতে একে হুপো বা হুপি বলে ডাকা হয়। আরবি ও উর্দুতে একে ডাকা হয় হুদহুদ নামে।

পাখিটির শরীর বাদামি এবং ডানা ও লেজে সাদা-কালো দাগ রয়েছে। মাথায় আছে রাজমুকুটের মতো সুন্দর একটি ঝুঁটি। সেই ঝুঁটির হলদে-বাদামি পালকের মাথাটা কালো রঙের।

সাধারণত এই পাখিটি ২৫ থেকে ৩২ সেন্টিমিটার (৯.৮ থেকে ১২.৬ ইঞ্চি) পর্যন্ত লম্বা হয়। এদের পাখাগুলো ছড়ালে বিস্তৃত হয় ৪৪ থেকে ৪৮ সেন্টিমিটার (১৭ থেকে ১৯ ইঞ্চি) পর্যন্ত। ওজন ৪৬ থেকে ৮৯ গ্রাম পর্যন্ত। এরা সাধারণত মরুভূমিসংলগ্ন এলাকায় থাকতে ভালোবাসে। মাটিতে ঠোঁট ঢুকিয়ে পোকা খেয়ে জীবন ধারণ করে। এদের পর্যবেক্ষণক্ষমতা অসাধারণ।

লেখক : আলেম ও সাংবাদিক

muftimortoj a@gmail.com

25
Common Forum / Re: গজল
« on: May 16, 2019, 04:05:17 PM »
Alhamdulillah

26
Common Forum / Re: ভালবাসা-
« on: May 14, 2019, 11:11:55 AM »
Excellent  poem

27
রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এরশাদ করেন, আল্লাহর নিকট সর্বাধিক পছন্দনীয় আমল হল ওয়াক্তমত নামায় আদায় করা।- বোখারী

28

রাসূল সা.-এর পানিপান বিধান
রাসুলুল্লাহ সা.-এর নির্দেশিত পানিপানের বিধান হলো : ১. বসে পান করা। ২. পানির পেয়ালা ডান হাতে নিয়ে পান করা। ৩. কমপক্ষে তিন শ্বাসে পান করা। ৪. পানি পানে কোনো সোনা-রুপার পাত্র ব্যবহার না করা। ৫. মাটির মাত্র যদি এমন হয়, যার ভেতরটা নজরে না আসে, তবে সেটার মুখে মুখ লাগিয়ে পান না করা (কারণ, তাতে বিষাক্ত ও অখাদ্য কিছু থাকতে পারে)। ৬. বিসমিল্লাহ বলে পান করা এবং পান করে আলহামদুলিল্লাহ বলা।
মহানবী সা.-এর পানিপান বিধি অত্যন্ত স্বাস্থ্যসম্মত ও পরিপূর্ণ কল্যাণদায়ী। আমরা তার পানিপান বিধি অনুসরণ করলে সুস্বাস্থ্য ও সার্বিক কল্যাণের অধিকারী হতে পারব। রাসুল সা.-এর এই গুরুত্বপূর্ণ সুন্নত পালনের তাওফিক আল্লাহ আমাদের সবাইকে দান করুন, এই কামনা করি।

29
"আর আল্লাহকে যে ভয় করবে, তিনি তার পাপরাশি মোচন করবেন এবং তাকে দেবেন মহাপুরস্কার।"

--[সূরা তালাক ৬৫, আয়াত ৫]

30
আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রাঃ) হইতে বর্ণিত আছে যে, নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলিয়াছে- কোন মোসলমান অপর মোসলমানকে গালি দিলে, সে ফাসেকের কাজ করিল বলিয়া সাব্যস্ত হয় এবং কোন মোসলমান অন্য মোসলমানের সঙ্গে যুদ্ধ-বিগ্রহ, মারামারি, কাটাকাটি করিলে সে কাফেরের কাজ করিল বলিয়া সাব্যস্ত হয়।
বোখারী শরীফ - ১ম খণ্ড - হাদিস নং -৪৪

Pages: 1 [2] 3 4 ... 22