Recent Posts

Pages: [1] 2 3 ... 10
1
Foreign trip gets easier for dollar account holders

Passport endorsement will not be required for those having private currency account or resident foreign currency deposit account

International account holders will no longer have to endorse their international cards on passports while travelling abroad. But for carrying cash, dollar endorsement will be necessary as before, says a circular of the Bangladesh Bank. The central bank's Foreign Exchange Policy Department issued a circular in this regard on Thursday.

The circular issued on Thursday said at present, Bangladeshis who do not hold foreign passports require endorsement in their passports for carrying US dollars in cash or in international cards to meet travel expenses.

However, such endorsement will not be required for those having private currency accounts and resident foreign currency deposit accounts. These account holders include Bangladeshi nationals residing abroad, foreign companies and citizens, diplomats, Bangladeshi nationals working for foreign institutions inside the country.

Diplomats, Privileged persons, UN personnel, government officials travelling on official duties do not require to have their passports endorsed for carrying money.

In case of travel to SAARC countries and Myanmar, a maximum of $5,000 or equivalent amount of currency can be endorsed for one calendar year. Outside of SAARC countries, this amount is $6,000. For children under 12 years of age, the required amount would be half.

For resident Bangladeshi nationals going abroad against a one-way ticket for valid job or migration or study purposes, authorized dealers may release the entire unused foreign exchange of the annual travel entitlement of the person concerned in a calendar year.

Collected
Source- https://tbsnews.net/economy/banking/foreign-trip-gets-easier-dollar-account-holders-189565
2
Career Guidance / Hybrid Jobs and the Hybrid Skills Candidates Need Most
« Last post by doha on Today at 11:17:14 AM »
Hybrid Jobs and the Hybrid Skills Candidates Need Most




The hybridization of jobs in America is a powerful trend that is transforming the job market and changing what employers look for in employees. The rapid expansion of new technology and the digitization of the economy have changed the character of jobs by integrating an element of technology into traditionally non-technical positions.

What Are Hybrid Skills?
Hybrid skills are a combination of technical and non-technical skills. What are considered hybrid skills will vary, depending on the job and the company. For example, very few employers now look for administrative support staff who can simply greet visitors, answer phones, and organize files. Employers need administrative staff with a hybrid skill set that includes social media, updating websites, designing presentation materials, as well as manipulating spreadsheets and database programs.

At the same time, the ever-changing landscape of technology demands that workers in traditionally specialized or technology-based jobs have the softer skills to adapt to, change, and develop new products and services.1

For example, application developers don’t just need coding skills. They must be able to write copy, communicate with designers about visual aspects of applications, solicit and integrate feedback from users, and solve problems as they arise. Developers must also have continual learning skills to update their coding techniques and adapt to new and revised platforms.

Key Skills for Hybrid Jobs
Burning Glass has analyzed a database of nearly 1 billion past and current job ads and deduced that one-in-four jobs show signs of hybridization, and one-in-eight positions are highly hybridized, encompassing more than 250 occupations. Burning Glass reports that the skills that drive hybridization fall into five key areas. Some are new skills and others are traditional skills being applied in new ways:

Big data and analytics
The intersection of design and development
Sales and customer service
Emerging digital technologies
Evolving compliance and regulatory landscape

Workers in traditionally soft-skilled jobs will benefit from cultivating the hard skills that will show employers that they are equipped to keep pace with technological developments in their sector. Job seekers and employees in technology-oriented and specialized jobs can distinguish themselves by enhancing the soft skills that will enable them to add value beyond narrow applications of technology.


LinkedIn has produced a list of the most sought-after soft and hard skills for 2019. The soft skills in highest demand include creativity, persuasion, collaboration, adaptability, and time management.

The hard skills that employers need the most include cloud computing, artificial intelligence, analytical reasoning, people management, UX design, mobile applications development, video production, sales leadership, translation, audio production, natural language processing, scientific computing, game development, social media marketing, animation, business analysis, journalism, digital marketing, industrial design, competitive strategy, customer service systems, software testing, data science, computer graphics, and corporate communications.

Tips: A candidate who has strong hybrid skills will have a mix of both the hard and soft skills required to get hired.


One of the best ways to show employers that you have those skills is to match your credentials to the skills mentioned in the job posting when you're applying for a position, and highlighting them in your resume and cover letters.

Examples of Hybridized Jobs

DIGITAL SECURITY ANALYSTS
must learn to identify complex cyber threats, but they also need communication and persuasive skills to convince management and coworkers to adopt stricter safety protocols.

TECHNICAL RECRUITERS
must possess strong communication, persuasive, and interpersonal skills, while also comprehending the complex technical demands of the positions that they are filling. They must also master data-mining skills to identify appropriate prospects from candidate databases.

GRAPHIC DESIGNERS
need artistic sensibility and creativity to create appealing designs, as well as communication skills to extract customer preferences. They also must have strong technical skills to use computer-aided design systems and web-authoring tools.

PHARMACEUTICAL AND MEDICAL PRODUCT SALES REPRESENTATIVES
must have strong verbal communication and relationship-development skills, as well as fluency in scientific concepts and research methodology regarding drug trials.

BUSINESS AND ECONOMIC JOURNALISTS
must possess strong research, writing, and interviewing skills, and be confident in deciphering complex financial reports and identifying economic trends.

How Hybrid Skills Can Boost Your Salary
Burning Glass provides some illustrations from its research about how the pay for employees with hybrid skills is enhanced:

Marketing managers received an average salary of $71,000, but when they possessed database management competency in SQL their average salary was $100,000, a premium of 41%.
Civil engineers were paid an average of $78,000, but when strong people-management skills were added to the mix, their compensation rose to $87,000, a 12% premium.
Project managers received an average salary of $75,000, but when they were skilled in Tableau they boosted their pay to $85,000, a 13% premium.
General managers earned an average salary of $63,000, but those managers with strong data analysis skills secured an average salary of $81,000, a 29% premium.
Customer service managers were paid an average salary of $49,000, but managers with expertise in CRM earned an average of $60,000, a premium of 22%.

Upgrade Your Skills to Become More Competitive
If your skills need upgrading so that you’re more competitive in the job market, there are many ways you can add to your skill set. There are short-term certificate programs that you can take online. If you’re looking for a career shift, there are certification programs that lead to high-paying jobs.

Also, consider taking free or low-cost online courses to add the specific skills you need to enhance your resume and show you have the hybrid skills employers are seeking.

Developing New Skills and Job Opportunities, please visit www.Skill.jobs

Source:ALISON DOYLE | Balance Career
 
3
Job Satisfaction & Skills / The Top Hard Skills Employers Seek
« Last post by doha on Today at 10:07:21 AM »
The Top Hard Skills Employers Seek


If you’ve ever spoken with a career counselor or spent much time learning about the job search process, you’ve probably heard of hard skills.

But what exactly are hard skills, and how are they different from soft skills? What are the most in-demand hard skills that employers look for?


Hard Skills Defined
Hard skills are part of the skill set that is required for a job. They include the expertise necessary for an individual to successfully do the job. They are job-specific and are typically listed in job postings and job descriptions.1


Hard skills are acquired through formal education and training programs, including college, apprenticeships, short-term training classes, online courses, and certification programs, as well as on-the-job training.

Types of Hard Skills
Hard skills include the specific knowledge and abilities required for success in a job. These types of skills are learned and can be defined, evaluated, and measured.

They are most commonly used during the hiring and interview process to compare candidates for employment.

Note: In some industries, employers may even test candidates’ hard skills to make sure that they can really do what their resume claims they can do.

Once you have the job, your employer may evaluate your hard skills again, if you’re up for a promotion or a transfer.

Top Hard Skills Employers Want
LinkedIn reported on the hard skills that are in greatest demand in 2020:22

Blockchain
Cloud Computing
Analytical Reasoning
Artificial Intelligence
UX Design
Business Analysis
Affiliate Marketing
Sales
Scientific Computing
Video Production


More Examples of Hard Skills
The following are examples of some of the hard skills required for different occupations:

Accounting
Administrative
Analytics
Auditing
Automotive Technology
Banking Operations
Bookkeeping
Budgeting
Carpentry
Construction
Database Management
Design
Editing
Electrical
Engineering
Financial
Hardware
Healthcare
Java Script
Languages
Legal
Manufacturing Technology
Marketing Research
Mechanical
Medical Diagnosis
Nursing
Optimization
Pharmaceutical Coding
Pipefitting
Python Programming
Project Management
Proposal Writing
Reporting
Science
Software
Social Media Marketing
Spreadsheets
Teaching
Technical Writing
Testing
Translation
Transcription
Word Processing


Types of Soft Skills
Conversely, soft skills are attributes and personality traits that impact interpersonal interactions and productivity. While different, they are equally as important as hard skills in the workforce.

LinkedIn rated the following five soft skills as most valued in the workplace:
Creativity
Persuasion
Collaboration
Adaptability
Emotional Intelligence


The Importance of Skills in the Workplace
Both hard skills and soft skills are important in the workplace, and the top skills employers look for will depend on what the employer is seeking for a particular position.

The main difference between hard skills and soft skills is that hard skills can usually be taught in a series of concrete steps. From an instructor’s or a manager’s perspective, teaching someone how to code is a more easily defined process than teaching them to listen and communicate effectively with a client.

Soft skills can’t be learned by rote, and they involve emotional intelligence and empathy, which often makes them more complicated to impart to a student.

The bottom line is that both hard and soft skills are important to career readiness. Once you have both, you’ll be able to do your job well in the real world, where it’s essential to know what you’re talking about—and be able to talk about it so that other people can understand.5

Focus on Your Most Relevant Skills
When job searching, it’s important to include the skills the employer is seeking in your resume and job applications. The desired skills (both hard and soft) will be listed in the requirements section of job postings and help wanted ads.

Highlight the Skills That Qualify You for the Job: Start by highlighting the skills that are the closest match to the job requirements in your job application materials.

Match Your Qualifications to the Job: But while you need to match your qualifications to a job, there is more to it than just looking for keywords in the listing. It’s also essential to go beyond the job posting.

Tips: Go to the employer’s website to see if their listing provides additional information that might not have made it onto a job board or a referral from a friend.

Source: ALISON DOYLE | The Balance
4
Is it safe to bring students back to campuses? App helps gauge risk

A new tool designed by Harvard researchers models COVID-19's likely spread in settings unique to colleges.

COVIDU models the spread of COVID-19 in college settings

Colleges and universities are confronting a pressing question: How do they safely bring students back to campus amid a surging, world-wide pandemic? The decision involves careful consideration of a range of factors, from shared housing to testing capabilities to the likelihood of asymptomatic spread among students and staff. With death rates climbing to devastating levels and more contagious variants of the virus emerging, that choice has become even more consequential.

To help inform some of those decisions, a team of Harvard researchers that includes Gary King, the director of the Institute for Quantitative Social Science (IQSS), and Rochelle Walensky, the incoming director of the Centers for Disease Control and Prevention, have launched a new disease-modeling app that simulates what different transmission and mitigation scenarios can look like in university settings.

Called COVIDU, the app is an interactive tool that factors several important conditions  — community transmission, external infection, testing cadence, student population, and other social settings unique to campus communities — in modeling the spread of COVID-19 on a hypothetical campus and estimating the likelihood of different potential outcomes.

The easy-to-use tool allows users to fully customize the range of conditions on which the system bases its calculations. This helps to better mimic the users’ own campus community. It also considers the behavior of students and potential visitors, including how many might flout rules and attend social gatherings. The app even models super-spreader events and their fallout.

“The app essentially creates hypothetical people that would mirror what actually happens in the real world as closely as possible.”
— Gary King


“It models how often do students interact with each other? How often might they just not follow exactly the public health recommendations? How often will we have a visitor from somewhere else that maybe shouldn’t be there? How often may somebody who’s helping undergraduates [like a staff member] come on campus with the disease and spread it to somebody else?” said King, the Albert J. Weatherhead III University Professor. “The app essentially creates hypothetical people that would mirror what actually happens in the real world as closely as possible.”

The app can also account for different epidemiological conditions in its predictions, like a surge in infections in the surrounding area or more aggressive mutations of the virus. For instance, Harvard administrators used the system recently to model how the new U.K. variant could impact the campus community.

The idea for the app came from the modeling work done by Harvard’s evidence-based decision-making subcommittee over the summer. Along with King and Walensky, who’s also chief of Massachusetts General Hospital’s Division of Infectious Diseases and professor of medicine at Harvard Medical School, the group included Christopher Avery, the Roy E. Larsen Professor of Public Policy at HKS; James Stock, the Harold Hitchings Burbank Professor of Political Economy in the Faculty of Arts and Sciences; and David Paltiel, professor of public health at Yale University.

Last summer, the subcommittee was tasked with amassing evidence and doing modeling and statistical analyses to inform decisions about bringing Harvard’s students back to campus for the fall and spring semesters. Working with IQSS, the group designed a system that combined classic epidemiological modeling with on-campus dynamics like shared housing, transmission rates in the surrounding community, student interactions, and a mass testing and isolation system. The system built on a similar COVID model for campuses that Walensky and Paltiel helped create earlier in the summer.

The researchers modeled the Harvard community with the new system and used it to come up with a recommendation for how many students could be brought back to campus and to decide the right level of testing to keep the community safe.

The COVIDU app expands that model and generalizes it so that other universities and organizations can use it. “You can set the parameters to reflect whatever conditions are appropriate to your campus or other campus-like environments, and then you can run the app and it’ll make any predictions from there,” said Zagreb Mukerjee, a research data scientist at the IQSS who helped design the system.

Users can also generate reports with graphs and tables on the scenarios they model and ones comparing different circumstances and consequences. The researchers hope the app will help improve understanding of COVID-19 transmission and mitigation strategies on college campuses, even among those without a background in modeling or epidemiology.

“By putting this out there, we’re hoping to get feedback from other scientists so that the underlying science can get better through collaboration. Of course, we also hope other campuses will benefit as well,” Mukerjee said.

Source: The Harvard Gazette
5
সুন্দর জীবনের জন্য চাই সুস্বাস্থ্য। করোনা মহামারি আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছে, স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার পাশাপাশি নিয়মিত শরীরচর্চার বিকল্প নেই। শরীরচর্চার ক্ষেত্রে প্রথমেই প্রয়োজন সঠিক পুষ্টি ও ব্যায়ামের পরিকল্পনা করা। প্রতিটি মানুষের ক্ষেত্রে এগুলো আলাদা। কারণ, নিউট্রেশন ও ওয়ার্কআউট প্ল্যান তৈরি করতে হয় একটি মানুষের জীবনযাপন, খাদ্যাভ্যাস, শারীরিক গঠন, উচ্চতা, ওজন ইত্যাদি বিষয়কে প্রধ্যান্য দিয়ে।

সুস্বাস্থ্য ও সুগঠিত শরীরের জন্য চাই শরীরচর্চা
সুতরাং বলা যায়, একজনের জন্য কেনা জুতা যেমন অপর একজনের পায়ে ফিট হবে না। ঠিক তেমনই শরীরচর্চার ক্ষেত্রেও সবার ওয়ার্কআউট ও ডায়েট প্ল্যানও আলাদা। পাশাপাশি খেয়াল রাখতে হবে, জিমের ব্যায়ামের সরঞ্জাম ব্যবহার এবং জুতার প্রতি। এই সিরিজ চারটি পর্বে ভাগ করা হয়েছে। যেখানে প্রথম দুই পর্বে থাকছে শরীরের উপরিভাগের ব্যায়াম এবং শেষ দুই পর্বে দেখানো হবে শরীরের নিম্নভাগের ব্যায়াম। প্রথম পর্বে দেখানো হয়েছে চেস্ট, শোল্ডার ও ট্রাইসেপের ব্যায়াম।

প্রথম ওয়ার্কআউট ইনক্লাইন ডাম্বেল প্রেস। শুরুতেই অনেক বেশি ওজনের ডাম্বেল ব্যবহার করা যাবে না। এ জন্য এখানে নেওয়া হয়েছে আডাই কেজি ওজনের ডাম্বেল। এই ব্যায়ামের ক্ষেত্রে খেয়াল রাখতে হবে চোখ যেন সব সময় ডাম্বেলের দিকে থাকে। এ ক্ষেত্রে শরীরের মোশন যেন সঠিক থাকে। তাহলেই যেসব পেশিকে কেন্দ্র করে ব্যায়ামগুলো করা হচ্ছে, সেই পেশিগুলোর সংকোচন–প্রসারণ সঠিক থাকবে।

সুস্বাস্থ্য ও সুগঠিত শরীরের জন্য চাই শরীরচর্চা
পরবর্তী ওয়ার্কআউট ডাম্বেল ফ্লাই। এটিও একটি চেস্টের ব্যায়াম। এ ক্ষেত্রেও ডাম্বেলের ওজন নেওয়া হয়েছে আড়াই কেজি। এই ওজন যার যার স্বাচ্ছন্দ্য অনুযায়ী নিতে হবে। শুধু খেয়াল রাখতে হবে পেশিগুলোর সংকোচন–প্রসারণ সঠিকভাবে হয়। পেশিতে অতিরিক্ত চাপ না পড়ে। এই ব্যায়ামের ফলে আমাদের শরীরের উপরিভাগে অর্থাৎ কাঁধ ও বুকের ওপরের অংশে পেশিগুলো সুগঠিত হবে। সুগঠিত পেশিতে যেকোনো ধরনের পোশাকই মানানই।

এরপর শোল্ডারের ওয়ার্কআউটের জন্য ব্যবহার করা হয় শোল্ডার মেশিন প্রেস। তিনটি সেটে এই ওয়াকআউট করা হবে। প্রথম সেটে ১৫ বার শোল্ডার মেশিন প্রেস ওঠানামা করতে হবে। পরে আরও দুই সেটে মোট ১২ বার এই ব্যায়াম করতে হবে। এই ওয়াকআউট করতে হবে ফুল রেঞ্জ অব মোশনে। এ ক্ষেত্রে শোল্ডার মেশিন প্রেস ব্যবহারের কিছু কৌশল রয়েছে। যেমন এটি ওঠানোর সময় দ্রুত ওঠাতে হবে। অর্থাৎ এক সেকেন্ডের মধ্যে উঠিয়ে ফেলতে হবে।

সুস্বাস্থ্য ও সুগঠিত শরীরের জন্য চাই শরীরচর্চা
কিন্তু নামানোর সময় একটু ধীরে ধীরে নামাতে হবে। অর্থাৎ অন্তত তিন সেকেন্ড ধরে নামাতে হবে। এবং মনে রাখতে হবে, এই ওঠানামার সময় হাতের কনুই যেন সামনের দিকে থাকে। অনেকে ব্যায়াম করার সময় শ্বাস নেওয়া এবং ছাড়া নিয়ন্ত্রণ করতে বলেন। তবে আমি মনে করি, শ্বাস গ্রহণের প্রক্রিয়াটি স্বাভাবিকভাবেই করা উচিত। কারণ, আমাদের শরীর অল্প সময়ের মধ্যেই এই প্রক্রিয়া নিজের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়।

এ ছাড়া জিমের ইকুইপমেন্টগুলো ব্যবহারের সময় সতর্ক থাকতে হবে। কেননা, এগুলো তৈরি করা হয় শরীরের আলাদা আলাদা অংশের ব্যায়ামের জন্য। পরের ধাপের ওয়ার্কআউটটিও আমাদের শোল্ডারের জন্য। তবে এটি শোল্ডারের পেছনের অংশের পেশিকে সুগঠিত করবে। এ জন্য এই ওয়ার্কআউটকে আমরা বলব রেয়ার মেশিন ফ্লাই। তিনটি সেটে এই ওয়াকআউটটি শেষ করব আমরা। প্রতি সেটে ১৫ বার রেয়ার মেশিন ফ্লাইটি সামনে–পেছনে টানতে হবে।

সুস্বাস্থ্য ও সুগঠিত শরীরের জন্য চাই শরীরচর্চা
রেয়ার মেশিন ফ্লাইয়ের ইকুইপমেন্ট ব্যবহারেও কিছু কৌশল অবলম্বন করতে হবে। টেনে পেছনে নেওয়া এবং ছেড়ে দেওয়ার কাজটি তিন সেকেন্ড সময় ধরে করতে হবে। এবং টেনে পেছনে নিয়ে এক সেকেন্ড ধরে রাখতে হবে, তারপর ছেড়ে দিতে হবে। এই পর্বের শেষ ওয়াকআউটটি আমরা করব ট্রাইসেপ প্রেস ডাউন। এই ওয়ার্কআউটও করতে হবে তিনটি সেটে। সব মিলিয়ে তিন সেটে ১০০ বার প্রেস ডাউন করতে হবে। প্রতি সেটের মাঝে অন্তত ১০ সেকেন্ড বিরতি নিতে হবে। এই ওয়াকআউট করার সময় শরীরের ভঙ্গিমা ঠিক রাখতে হবে। দাঁড়াতে হবে পায়ের পাতা ও হাঁটুর ওপর ভর করে, কিছুটা সামনে ঝুঁকে। কাঁধ ও বুক সামনে টান করে দাঁড়াতে হবে।

টিপস
১. যেকোনো ধরনের ওয়ার্কআউট শুরুর আগে ভালোভাবে ওয়ার্মআপ করে নিতে হবে।
২. ওয়ার্কআউটের সময় সঠিক নিয়ম ও শারীরিক ভঙ্গিমা অনুসরণ করতে হবে।
৩. ওয়ার্কআউট শেষে পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিতে হবে।

Ref: https://www.prothomalo.com/life/health/%E0%A6%B8%E0%A7%81%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%A5%E0%A7%8D%E0%A6%AF-%E0%A6%93-%E0%A6%B8%E0%A7%81%E0%A6%97%E0%A6%A0%E0%A6%BF%E0%A6%A4-%E0%A6%B6%E0%A6%B0%E0%A7%80%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%9C%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%AF-%E0%A6%9A%E0%A6%BE%E0%A6%87-%E0%A6%B6%E0%A6%B0%E0%A7%80%E0%A6%B0%E0%A6%9A%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%9A%E0%A6%BE
6
Common Forum / আর্ট অব লিভিং
« Last post by Mohammad Nazrul Islam on January 20, 2021, 08:56:41 PM »

শুনার মত কান না হলে, শুধুই মাত্র গান শুনা
কেমনে করিব নিগুর কথা বর্ননা, রে.. মনা।।

গুপ্ত ছিল অসীম শক্তি, নূ`রে মতলব হয় বসতি
হেমায়েতগঞ্জ পুষিধা‘তে জাতে মতলব দেয় হানা ।

গুপ্ত কি আর থাকতে পারে-গল কূ`তে বাহির করে,
অহেদ` আল অযু‘দের পরে-নাম প্রচারে রাব্বানা।।

রবে ঘিরা নূর মুহাম্মদ- জিন্দা সেই হাইয়ুণ সেফাত
“হু আল হাইয়ুম কাইয়ুম’’ পুস্তকে যায় জানা।।

রব-রহমান নাম করলেন গোপন-মালেক নামটি ধরলেন তখন
কলম কে করিলেন সৃজন- লিখতে নিজের কল্পনা।।

তিন লাখ বছর কলম- লিখে আরশের ঐ তাঁকে তাঁকে
“লাইলাহা ইল্লাহ’  আকেঁ কি সুন্দর এক নমুনা।।

কলম কেঁদে হয় জারে জার- মালিক মাওলা ‘হে পরোয়া
তুমার নামের পাশে নামটি কাহার, জানতে বড় বাসনা।।

কু‘সির উপর কাদের গণি- মিম, হে, দাল-এর গিলাব টানি
ঘিরেছে এক লামের ছানি- কুদরতের নাই তুলনা।।

সিঁজদাতুল মুনতাহার যথা-গুপ্ত লীলার প্রকাশ তথা
জ্ঞান বিহীন বিদ্যাবৃথা, খুলেনা যার জ্ঞানের দ্বার।।

7


আজকের স্বপ্নবাজ তরুণ যারা নিজের প্যাশনকে ফলো করে চারপাশে ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে চায়, তাদের জন্য নতুন প্ল্যাটফর্ম ক্লেমন স্কুল অব ফ্রেশনেস। শুরু হতে যাচ্ছে ক্লেমন স্কুল অব ফ্রেশনেসের প্রথম সিজনের দ্বিতীয় চ্যাপ্টার, যেখানে তরুণ উদ্যোক্তাদের জন্য থাকবে পরামর্শ ও বাস্তব অভিজ্ঞতার উদাহরণ। এই সিজনে উদ্যমী তরুণ যারা নিজের স্বপ্নকে বাস্তবায়ন করে হতে চায় সফল উদ্যোক্তা, তাদের পরামর্শ দেবেন রাইড শেয়ারিং প্রতিষ্ঠান ‘পাঠাও’–এর সহপ্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হুসেইন মোহাম্মদ ইলিয়াস। ক্লেমন স্কুল অব ফ্রেশনেসের এই চ্যাপ্টারের উদ্বোধনী আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রথম আলোর যুব কার্যক্রম ও ইভেন্টসের প্রধান মুনির হাসানের সঙ্গে কথোপকথনে তিনি এ কথা বলেন।   

ক্লেমন সব সময় সতেজতা ও নতুনত্বকে প্রচার করে। বাংলাদেশের পরিপ্রেক্ষিতে পাঠাও রাইড শেয়ারিংয়ের ভাবনাটাও সতেজ বা নতুন ছিল। কীভাবে এই ভাবনা এসেছিল ইলিয়াসের মাথায়? ইলিয়াস বলেন, নতুন আইডিয়া নিয়ে ব্যবসায় শুরু করতে হবে বা উদ্যোক্তা হতে হবে—এমনটা ভেবে কাজ করা যায় না। উদ্যোক্তা হতে হলে আগে নিজেদের জীবনের কিছু বড় সমস্যা খুঁজে বের করতে হয় এবং সেই সমস্যার সমাধানটাই আসলে নতুন উদ্যোগের আইডিয়া হয়ে যায়। মাথায় অনেক নতুন আইডিয়া থাকলেই সফল উদ্যোক্তা হওয়া যায় না। সমস্যার সমাধান দিতে পারলেই উদ্যোগ সফল হয়।

ইলিয়াস আরও বলেন, ‘প্রথমে সমস্যা নিয়ে চিন্তা করেছিলাম যেমন রাস্তায় অনেক ট্র্যাফিক, যাতায়াতের সমস্যা এটার সমাধান কীভাবে করা যায়। তখন রাইড শেয়ারিংয়ের ভাবনা মাথায় আসে। শুরুতেই আমাদের মোবাইল অ্যাপ ছিল না। একটা ভিজিটিং কার্ডে ফোন নম্বরে কল করে রাইড শেয়ার করা হতো। সীমিত রিসোর্স নিয়েই কাজ শুরু করতে হয়েছিল।’

ইলিয়াসের কাছে জানতে চাওয়া হয়, পাঠাওয়ের শুরুর দিকের অবস্থা কেমন ছিল? এমন কোনো বিষয় কি আছে, যেটা এখনো মানুষের অজানা? ইলিয়াস বলেন, ‘পাঠাও শুরুর প্রথম এক-দেড় বছর খুব কষ্টের ছিল। তখনো পাঠাওকে কেউ চিনত না। মানুষ রাইড শেয়ারিং ধারণার সঙ্গে পরিচিত ছিল না। মোটরসাইকেলে একজনের পেছনে বসে এক জায়গায় যাবে—এ মানসিকতা ছিল না। তারপর লোকজন মোবাইলে অ্যাপ ইনস্টল করতে চাইত না। হয়তো তারা সার্ভিসটাকে পছন্দ করছে, কিন্তু প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মেলাতে পারছে না। এ রকম অনেক বাধার মধ্য দিয়ে আমাদের আসতে হয়েছে।’

সমস্যার সমাধান করতে একটা আইডিয়া নিয়ে মাঠে নেমে পড়লেই কি সফল উদ্যোক্তা হওয়া যাবে? ইলিয়াস তাঁর অভিজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, পাঠাও আসলে তাঁর ৫ নম্বর ভেঞ্চার। শুরুর দিকের আইডিয়াগুলো সফল হয়নি। বারবার পরিকল্পনাকে বাজারের চাহিদা অনুসারে পরিবর্তন ও পরিমার্জন করেই ৫ নম্বরে এসে পাঠাও সফল হয়।

অনেকেই ভাবেন অনেক ফান্ডিং বা অর্থ না থাকলে স্টার্টআপ শুরু করা যায় না। আসলেই কি তাই? হুসেইন মোহাম্মদ ইলিয়াস বলেন, ‘উদ্যোক্তা হতে গেলে আসলে অনেক বেশি ফান্ডিং বা রিসোর্সের দরকার নেই। শুধু সঠিক পরিকল্পনা, সঠিক সমস্যার সঠিক সমাধান, সঠিক কর্মী ও দল নিয়ে কাজ করলেই সফল হওয়া যায়। পাঠাও শুরু হয়েছিল মাত্র চারজন কর্মী নিয়ে। পাঠাওয়ের প্রথম ১০ জন কাস্টমার ছিল আসলে আমাদের বন্ধু বা পরিচিত লোকজনের মধ্য থেকেই।’

আজকের তরুণ-তরুণী যারা নতুন উদ্যোক্তা হতে চায়, তাদের জন্য পরামর্শ হিসেবে হুসেইন মোহাম্মদ ইলিয়াস বলেন, প্রথমে সমস্যা খুঁজে তার একটা সঠিক সমাধান বের করতে হবে। এরপর ভাবতে হবে সমাধানটা কোনো পথে মানুষের কাছে পৌঁছে দেওয়া যায়, সেটার জন্য কি মোবাইল অ্যাপ লাগবে, নাকি কল সেন্টারের মাধ্যমে করা যাবে, সেসব ভেবে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আর অবশ্যই ধৈর্য ধরে লেগে থাকতে হবে, অবস্থা বুঝে পরিকল্পনায় পরিবর্তন আনতে হবে। শুরুটা করতে হবে নিজের বন্ধু বা পরিচিতজনদের সঙ্গেই। প্রথম কাস্টমারও হবে বন্ধুদের মধ্য থেকেই। এভাবেই ছোট পরিসরে শুরু করে ধীরে ধীরে সফল হওয়া যাবে।

এভাবেই আড্ডা এগিয়ে চলে। ক্লেমন স্কুল অব ফ্রেশনেসের এই সিজনে হুসেইন মোহাম্মদ ইলিয়াস পরামর্শ দেবেন এবং অভিজ্ঞতা জানাবেন আজকের তরুণদের, যারা উদ্যোক্তা হতে চায়। কীভাবে একটা স্টার্টআপের আইডিয়া করা যায়, কীভাবে একটা দল তৈরি করা যায়, কীভাবে ফান্ডিং করতে হয়, কী করা উচিত এবং কী করা উচিত নয়—এসব বিষয় নিয়ে আগামী পর্বগুলোয় কথা বলবেন ইলিয়াস। ক্লেমন স্কুল অব ফ্রেশনেসের আগামী পর্বগুলো দেখতে এবং আরও সতেজ আপডেট জানতে চোখ রাখুন ক্লেমন এবং প্রথম আলোর ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে।

8
বিশ্বব্যাপী মরণব্যাধিগুলোর মধ্যে একটি হলো ক্যানসার। আর পাকস্থলীর ক্যানসার তার মধ্যে অন্যতম। বাংলাদেশেও এটি মৃত্যুহারের জন্য দায়ী রোগগুলোর তালিকায় রয়েছে। তাই এ ক্যানসার যাতে প্রাথমিক পর্যায়েই প্রতিরোধ করা যায়, সে জন্য এর উপসর্গ সম্পর্কে যথেষ্ট ধারণা রাখতে হবে। কারণ পাকস্থলীর ক্যানসার খুবই মারাত্মক। তবে আশার কথা হলো প্রাথমিক পর্যায়ে এ রোগ শনাক্ত করে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা গ্রহণ করলে জটিলতা এড়ানো যায়। অর্থাৎ ক্যানসার পুরোপুরিভাবে প্রতিরোধ করা না গেলেও এর ঝুঁকির কারণগুলো জানা থাকলে আমরা সচেতন হতে সক্ষম হব। ফলে এর ঝুঁকি থেকে কিছুটা হলেও রক্ষা পেতে পারব।

এর মধ্যে কিছু রয়েছে, যার ওপর আমাদের নিয়ন্ত্রণ নেই, আবার কিছু রয়েছে যেগুলো আমরা জীবনযাত্রার সঙ্গে পরিবর্তন করতে পারি। আর এর জন্য প্রয়োজন জনসচেতনতা বৃদ্ধি করা। নিয়মমাফিক চলাফেরার মাধ্যমে ক্যানসার অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে রাখা যায়।

এই লক্ষ্যে এসকেএফ অনকোলজি নিবেদিত ‘বিশ্বমানের ক্যানসার চিকিৎসা এখন বাংলাদেশে’ অনুষ্ঠানের ১৬তম পর্বে অতিথি হিসেবে যোগ দেন ডা. অসীম কুমার সেনগুপ্ত, কনসালট্যান্ট, ক্লিনিক্যাল অ্যান্ড রেডিয়েশন অনকোলজি, ক্যানসার কেয়ার সেন্টার, ইউনাইটেড হাসপাতাল লি., গুলশান, ঢাকা এবং ডা. সামিয়া আহমেদ, সহকারী অধ্যাপক, ক্যানসার বিশেষজ্ঞ, জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল, মহাখালী, ঢাকা। এ অনুষ্ঠানের আলোচ্য বিষয় ‘পাকস্থলীর ক্যানসার’।

ডা. অসীম কুমার সেনগুপ্ত বলেন, ‘সারা বিশ্বে ক্যানসারের পরিসংখ্যান অনুযায়ী পাকস্থলীর ক্যানসারের স্থান পঞ্চম এবং আমাদের দেশেও এটি তৃতীয় বা চতুর্থ স্থানেই সব সময় অবস্থান করে। এশিয়ান অঞ্চলগুলোয় এর প্রকোপ বেশি। আমাদের দেশেও পাকস্থলীর ক্যানসারে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা পশ্চিমা দেশগুলোর তুলনায় অনেক বেশি। নারী ও পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রেই পাকস্থলীর ক্যানসারের ঝুঁকি রয়েছে, তবে নারীদের তুলনায় পুরুষদের ঝুঁকি কিছুটা বেশি। পৃথিবীর সব দেশে এর ব্যাপ্তি সমান নয়, ঝুঁকির ক্ষেত্রেও তারতম্য রয়েছে।’

সাধারণত পাকস্থলীর ক্যানসার প্রাথমিক পর্যায়ে তেমন কোনো উপসর্গ থাকে না। অথবা উপসর্গ থাকলেও সেটি খুব সামান্য হয়ে থাকে। মূলত হজমে সমস্যা, অ্যাসিডিটি, ওজন কমে যাওয়া, ক্ষুধা মন্দা, গলা জ্বলা, বমি বমি ভাব,মলের রং কালো হওয়া কিংবা পেটে ব্যথা হতে পারে। এ ছাড়া অ্যাডভান্সড স্টেজে যেসব উপসর্গ দেখা দেয়, সেগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো জন্ডিসে আক্রান্ত হওয়া। আর তখন ক্যানসার শরীরের অন্যান্য অংশে ছড়িয়ে যেতে পারে। অনেক সময় পাকস্থলীর ক্যানসার লিভার, ফুসফুস ও মস্তিষ্কে ছড়িয়ে পড়ে।

ডা. সামিয়া আহমেদ বলেন, ‘পাকস্থলীর ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার পেছনে বেশ কিছু কারণ রয়েছে। এর মধ্যে কিছু আছে, যেগুলো খাদ্যাভ্যাস ও জীবনযাত্রার কারণে হয়ে থাকে। আর কিছু পারিবারিক কারণেও হয়ে থাকে। যেমন, আমরা আজকাল তাজা ফল ও শাকসবজি কম খাচ্ছি, বরং প্রসেসড ফুড, সল্টেড ফুড, স্মোকড মিট বা পিকল্ড ফুড বেশি খাচ্ছি। এ ছাড়া কারও হেলিকো ব্যাকটর পাইলোরি ইনফেকশন, নাইট্রাইডস, কিংবা ফ্যামিলিয়াল পলিপসিস বা লিঞ্চ সিন্ড্রোম হলে সে ক্ষেত্রে তার পাকস্থলীর ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি অনেকাংশে বেড়ে যায়। ধূমপান ও মদ্যপান করলেও এর ঝুঁকি বেড়ে যায়। আবার শরীরে অতিরিক্ত মেদ জমার কারণেও পাকস্থলীর ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেশি থাকে।’

পাকস্থলীর ক্যানসারে আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে অনেকেই থাকেন, যাঁরা নিম্ন আয়ের জনগোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত। এ ক্ষেত্রে সচেতনতা গড়ে তোলা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। দেখা যায়, তাঁরা বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দীর্ঘ সময় ধরে গ্যাস্ট্রিক আলসারে আক্রান্ত কিংবা অ্যাডভান্সড স্টেজে বিভিন্ন জটিল উপসর্গ নিয়ে আসেন। বর্তমানে আমাদের দেশেও পাকস্থলীর ক্যানসারের উন্নত চিকিৎসাব্যবস্থা রয়েছে। তাই উপসর্গ দেখামাত্রই দ্রুত অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা গ্রহণ করতে হবে।

Video Link: https://www.facebook.com/watch/?v=415659543195608
Ref: https://www.prothomalo.com/life/health/%E0%A6%AA%E0%A6%BE%E0%A6%95%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%A5%E0%A6%B2%E0%A7%80%E0%A6%B0-%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%A8%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%96%E0%A7%81%E0%A6%AC%E0%A6%87-%E0%A6%AE%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%AE%E0%A6%95
9
দাঁতের সমস্যার কোনো বয়স নেই। পাঁচ বছরের শিশু থেকে শুরু করে ৬০ বছরের বৃদ্ধেরও এ ব্যথা হতে পারে।

দাঁতের গোড়া বা স্নায়ু ক্ষতিগ্রস্ত হলে মারাত্মক যন্ত্রণা হয়। ব্যথা থেকে মাথা, চোখব্যথাও শুরু হয়ে যায়।

কিছু ঘরোয়া উপায় আছে, যা অবলম্বন করলে দাঁতের ব্যথা থেকে অনেকটাই মুক্তি মেলে।

১. এক গ্লাস কুসুম গরম পানিতে ১ টেবিল চামুচ লবণ মিশিয়ে মুখে নিয়ে ১ মিনিট রাখুন। এভাবে দিনে তিনবার কুলি করলে করুন ব্যথা কমে যায়।

২. ১ টেবিল চামুচ লবণ অল্প সরিষার তেলের সঙ্গে অথবা লেবুর রসের সঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে মাড়িতে ম্যাসাজ করুন কয়েক মিনিট। তার পর কুসুম গরম পানি দিয়ে কুলি করে নিন। এভাবে ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস হবে।

৩. রসুন ঘরোয়া অ্যান্টিবায়োটিক। রসুন দাঁতে তৈরি হওয়া ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়াকে ধ্বংস করে ও ব্যথা উপশমেও সহায়ক। একটি-দুটি রসুনের কোয়া নিয়ে থেঁতলে সামান্য লবণ মিশিয়ে ব্যথার জায়গায় লাগান। রসুন চিবিয়েও খেতে পারেন। যন্ত্রণা কম না হওয়া পর্যন্ত প্রতিদিন লাগাতে পারেন।

৪. অ্যালোভেরায় থাকে অ্যান্টি-ব্যাকটেরিয়াল উপাদান, যা দাঁতের জীবাণুকে নষ্ট করে দেয়। অ্যালোভেরা জেল নিয়ে ব্যথার জায়গায় লাগাতে পারেন।

৫. কমানোর করার জন্য হাইড্রোজেন পার অক্সাইড দারুণ কাজ করে। এটি দাঁতে থাকা ব্যাকটেরিয়াকে মেরে ফেলে। এ ছাড়া দাঁতের যন্ত্রণা থেকে দ্রুত মুক্তি দেয়, মাড়ি থেকে রক্তপড়াও আটকায় হাইড্রোজেন পার অক্সাইড। পানি ও হাইড্রোজেন পার অক্সাইড সমপরিমাণ নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। ওই মিশ্রণ দিয়ে কুলকুচি করুন। তবে কোনোভাবেই গিলে ফেলা যাবে না। কুলকুচির পর পরিষ্কার পানি দিয়ে মুখ ভালো করে ধুয়ে নিন।

তবে দাঁতে অতিরিক্ত ব্যথা হলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

 তথ্যসূত্র: বোল্ডস্কাই
10


সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে রাজধানীর জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসনকেন্দ্রের (পঙ্গু হাসপাতাল) অস্ত্রোপচারকক্ষের সামনের করিডরে গত শনিবার চিকিৎসাধীন ছিলেন ২৬ জন। প্রত্যেককে জিজ্ঞাসা করে জানা গেল, ১২ জনই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন। অন্যদিকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, সড়কে আহত হয়ে চিকিৎসা নিতে যাওয়া ব্যক্তিদের বড় অংশই এখন মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার শিকার।

সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে কাজ করা গবেষকেরা বলেছেন, মোটরসাইকেল দুর্ঘটনাগুলো মূলত ঘটে বেপরোয়া গতি, ওভারটেকিংয়ের চেষ্টা, বারবার লেন পরিবর্তন, ট্রাফিক আইন না মানা ও চলন্ত অবস্থায় মুঠোফোনে কথা বলার কারণে। হেলমেট ব্যবহার না করা ও নিম্নমানের হেলমেটের কারণে দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বাড়ছে।

মোটরসাইকেলের বেপরোয়া গতির কারণে পথচারীদেরও দুর্ঘটনার কবলে পড়তে হয়। তেমনই একজন পরিকল্পনা কমিশনের সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সদস্য শামসুল আলম। গত শনিবার সন্ধ্যায় তিনি জাতীয় সংসদ ভবনের পাশের ক্রিসেন্ট লেক এলাকায় হাঁটতে গিয়ে দুর্ঘটনায় পড়েন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, রাস্তা পার হওয়ার সময় তাঁকে একটি বেপরোয়া মোটরসাইকেল ধাক্কা দেয়। এ ঘটনায় তাঁর ডান পা ভেঙেছে।

সরেজমিন পঙ্গু হাসপাতাল

হাড়ভাঙা চিকিৎসায় দেশের সবচেয়ে বড় প্রতিষ্ঠান পঙ্গু হাসপাতাল। এর পুরো নাম জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতাল ও পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠান (নিটোর)। হাসপাতালটির জরুরি বিভাগে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত শনিবার বেলা একটা পর্যন্ত সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়ে ৩৪ জন চিকিৎসা নেন। তাঁদের ১৬ জনই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার শিকার। কেউ চালক, কেউ আরোহী এবং কেউ পথচারী।

জরুরি বিভাগের পাঁচটি নিবন্ধন বই ঘেঁটে জানা গেল, নতুন বছরের প্রথম ১৬ দিনে পঙ্গু হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন ২ হাজার ৪৮২ জন। এর মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার ৫৮৫ জন। তাঁদের কতজন মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত, তা উল্লেখ নেই। তবে নিটোরের পরিচালক অধ্যাপক আবদুল গণি মোল্লাহ প্রথম আলোকে বলেন, নিটোরে দুর্ঘটনায় আহত হয়ে চিকিৎসা নিতে যাওয়া প্রায় ৩৫ শতাংশই মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার শিকার। তিনি বলেন, রাজধানীর বাইরে থেকে রোগী বেশি আসে। সম্প্রতি শরিকি যাত্রা বা রাইড শেয়ারিংয়ে থাকা মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত মানুষ আসার সংখ্যাও বাড়ছে।

হাত ভেঙে নিটোরে রোববার চিকিৎসা নিতে গিয়েছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নাইমুল ইসলাম। এই তরুণ অকপটে স্বীকার করেন, শনিবার রাতে বন্ধুর সঙ্গে দ্রুতগতিতে মোটরসাইকেল চালাতে গিয়ে দুর্ঘটনায় পড়েছেন। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, গতি বেশি ছিল। তবে তা নিয়ন্ত্রণ করা যায়নি রাস্তায় বালুর কারণে।

বেপরোয়া চালনা নিয়ে সাধারণ মোটরসাইকেলচালকেরাও চিন্তিত। অফিস থেকে রাতে বনানী থেকে মিরপুরের বাসায় ফেরেন বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা মো. নাঈম হাসান। তিনি বলেন, মোটরসাইকেল ও গাড়ি গতির প্রতিযোগিতায় নামে। সাধারণ মোটরসাইকেলচালকদের জন্য এটি বড় একটি ভয়ের কারণ।

কত যান, কত দুর্ঘটনা

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) তথ্য বলছে, দেশে নিবন্ধিত মোটরসাইকেলের সংখ্যা ৩১ লাখের বেশি, যা মোট যানবাহনের ৬৮ শতাংশ। শুধু ঢাকাতেই নিবন্ধিত মোটরসাইকেল ৮ লাখের মতো। এর বাইরে একটি বড় অংশের মোটরসাইকেল অনিবন্ধিত। বিপণনকারী কোম্পানিগুলোর হিসাবে, দেশে বছরে প্রায় ৫ লাখ নতুন মোটরসাইকেল বিক্রি হয়।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত দুর্ঘটনার খবর সংকলন করে বুয়েটের এআরআই ও নিসচা। নিসচার হিসাবে, ২০২০ সালে দেশে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে ৩ হাজার ২৩২টি, যার ১ হাজার ১২৭টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা। এর মধ্যে ২৯ শতাংশ ট্রাক ও ২২ শতাংশ বাস দুর্ঘটনার। বুয়েটের এআরআইয়ের হিসাবে, ২০১৬ সালে ২৮৮টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ৩৩৬ জন মারা যান। ২০২০ সালে দুর্ঘটনার সংখ্যা দাঁড়ায় ১ হাজার ৮টিতে, মারা যান ১ হাজার ৯৭ জন।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) ২০০৬ সালের একটি গবেষণা বলছে, ভালো মানের একটি হেলমেট পরলে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় মারাত্মক আহত হওয়ার ঝুঁকি কমে ৭০ শতাংশ। আর মৃত্যুঝুঁকি কমে ৪০ শতাংশ। বড় শহরের বাইরে হেলমেট না পরার প্রবণতার বিষয়ে পুলিশ সদর দপ্তরের মুখপাত্র ও সহকারী মহাপরিদর্শক (মিডিয়া ও জনসংযোগ) মো. সোহেল রানা বলেন, হেল‌মেট না পরার কার‌ণে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হ‌চ্ছে। পাশাপা‌শি নানা স‌চেতনতামূলক কর্মসূচি নেওয়া হ‌চ্ছে।

শরিকি যাত্রা বেড়েছে

ঢাকায় কয়েক বছরে মোটরসাইকেল রাইড শেয়ারিং ব্যাপকভাবে বেড়েছে। এ খাতের কোম্পানিগুলোর নিবন্ধনের বাইরে অনেকে মোটরসাইকেলে যাত্রী পরিবহন করেন।

বুয়েটের এআরআই ২০২০ সালে রাইড শেয়ারিংয়ের ৪৫০ মোটরসাইকেলের চালক ও আরোহীর ওপর একটি জরিপ করে। এতে উঠে আসে, ৫০ শতাংশ আরোহী চালকের চালানো নিয়ে অনিরাপত্তায় ভোগেন। একই সংস্থার করা আরেক জরিপে এসেছে, চালকের ৩০ শতাংশ অতি নিম্নমানের হেলমেট পরেন। মাত্র ২ শতাংশ ক্ষেত্রে আরোহীদের ‘ফুলফেস’ হেলমেট দেওয়া হয়। এআরআইয়ের পর্যবেক্ষণ বলছে, রাইড শেয়ারিং মোটরসাইকেলের চালকদের প্রতিযোগিতা ও ফাঁক গলে আগে যাওয়ার প্রবণতা দুর্ঘটনার অন্যতম একটি কারণ।

রাইড শেয়ারিং অ্যাপের বাহনগুলোর দুর্ঘটনার সংখ্যা কত, তা জানতে তিনটি রাইড শেয়ারিং অ্যাপ কর্তৃপক্ষের কাছে গত রোববার ই-মেইল পাঠায় প্রথম আলো। উবার দুর্ঘটনার সংখ্যা না জানালেও প্রশ্নের উত্তর দিয়েছে। তারা বলেছে, দুর্ঘটনায় মৃত্যু ও স্থায়ী পঙ্গুত্বের জন্য ২ লাখ টাকা ও হাসপাতালে ভর্তি হলে সর্বোচ্চ ১ লাখ টাকা বিমা–সুবিধা দেওয়া হয়। উবার জানিয়েছে, তারা সেরা মানের হেলমেট ব্যবহারে উৎসাহ দেয়।

পাঠাও ই-মেইলের উত্তর দেয়নি। তবে সহজ ডটকমের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মালিহা মালেক কাদির মুঠোফোনে প্রথম আলোকে বলেন, রাইড শেয়ারিং অ্যাপে ব্যবহার করা চালকদের দুর্ঘটনা ঘটেছে, এমন তথ্য তাঁদের কাছে নেই।

হেলমেটের নামে প্লাস্টিকের বাটি!

বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ডস অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশনের (বিএসটিআই) পরিচালক (মান) সাজ্জাদুল বারি গতকাল প্রথম আলোকে বলেন, বিএসটিআইয়ে হেলমেটের মান পরীক্ষা করার সুবিধা আপাতত নেই।
যদিও বাজারে বিক্রি হওয়া সব হেলমেট বিএসটিআইয়ের নির্ধারিত মান অনুযায়ী উৎপাদন ও আমদানি হওয়ার কথা। বিএসটিআইয়ের নজরদারি না থাকায় বাজারে হেলমেটের বদলে বিক্রি হওয়া একাংশ মূলত প্লাস্টিকের বাটি।

সার্বিক বিষয়ে বুয়েটের এআরআইয়ের পরিচালক মো. হাদিউজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, চালক ও আরোহীর ভালো মানের হেলমেট পরা, রাইড শেয়ারিংয়ে চালকদের প্রতিযোগিতা কমানো, সচেতনতা বাড়ানো এবং ট্রাফিক আইন কঠোরভাবে প্রয়োগই সড়কে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা কমাতে পারে।


Source: https://www.prothomalo.com/bangladesh/%E0%A6%A6%E0%A7%81%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%98%E0%A6%9F%E0%A6%A8%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A7%A9%E0%A7%AB-%E0%A6%AE%E0%A7%8B%E0%A6%9F%E0%A6%B0%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A6%87%E0%A6%95%E0%A7%87%E0%A6%B2%E0%A7%87
Pages: [1] 2 3 ... 10