ঘরোয়া টুকিটাকিতে ঝলমলে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুল

Author Topic: ঘরোয়া টুকিটাকিতে ঝলমলে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুল  (Read 586 times)

Offline chhanda

  • Sr. Member
  • ****
  • Posts: 298
    • View Profile
চুলের জন্য আমরা অনেকেই অনেক কিছু করে থাকি। নানান ধরনের হেয়ার প্রোডাক্ট দিয়ে চুলকে সুন্দর ও স্বাস্থ্যোজ্জ্বল করে তোলার ব্যর্থ চেষ্টা করে থাকি প্রতিদিনই। আসলেই কী উন্নতি দেখতে পাই আমাদের চুলে? মনে হয় না।
আসুন জেনে নিই ঘরের টুকিটাকির ব্যবহারে স্বাস্থ্যোজ্জ্বল চুল পাবার কিছু চমৎকার উপায়।

*চুলের শুষ্কতা ও ক্ষতি রোধে কলা*

কলার মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে পটাশিয়াম যা চুলের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য ধরে রাখার কাজে ব্যাবহার হয়। পটাশিয়ামের কারনে চুলের ইলাস্টেন ঠিক থাকে।
পদ্ধতিঃ

একটি গোটা কলা ছিলে বাটিতে নিন (চুলের দৈর্ঘ্য অনুযায়ী বেশি লাগতে পারে)। এবার একটি কাঁটা চামচ দিয়ে কলাটি পিষে নিন। সাথে যোগ করতে পারেন মধু বা অলিভ অয়েল। এরপর এই পেষানো কলা পুরো চুলে লাগিয়ে নিন। আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত ভালো ভাবে। এভাবে চুলে রেখে দিন ১৫ মিনিট। এরপর শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে অন্তত ১ বার এই পদ্ধতি ব্যাবহার করুন। চুলের শুষ্কতা দূর করতে কলার জুড়ি নেই। এর সাথে সাথে আগের সব ক্ষয় ক্ষতি দূর করে চুলকে ভেতর থেকে স্বাস্থ্যবান করে তুলবে কলা।

*নরম মসৃণ চুলের জন্য ডিম*

ডিমের কুসুমের প্রোটিন চুলকে প্রাকৃতিক ভাবে কন্ডিশন্ড করে। এতে করে চুল হয় নরম ও মসৃণ। যে কোন ক্যামিকেল কন্ডিশনারের চেয়ে ভালো এই প্রাকৃতিক কন্ডিশনার।

পদ্ধতিঃ
এর জন্য আপনার লাগবে ৩ টি ডিমের কুসুম, ১ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল, ১ টি ভিটামিন ই ক্যাপস্যুল। একটি বাটিতে ভিটামিন ই ক্যাপস্যুল ভেঙ্গে নিয়ে তার সাথে ডিমের কুসুম ও অলিভ অয়েল দিয়ে ভালো ভাবে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি মাথার ত্বকে ঘষে লাগিয়ে নিন। ১০ মিনিট রাখুন। ১০ মিনিট পরে শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন। সপ্তাহে ১ দিন ব্যাবহারে আপনার চুল হবে নরম ও মসৃণ।

*খুশকি রোধ ও মাথার ত্বকের সুস্থতায় লেবুর রস*

লেবুর রসের অ্যান্টিইনফ্লেমেটরি উপাদান খুশকি থেকে মাথার ত্বককে দূরে রাখে। মাথার ত্বকের স্বাস্থ্য ঠিক রাখতে অনেক হারবাল উপাদানেই লেবুর রস ব্যাবহার করা হয়ে থাকে। আপনি ঘরে বসেই প্রাকৃতিক ভাবে লেবুর রসের মাধ্যমে মাথার ত্বককে সুস্থ রাখতে পারেন স্বাস্থ্যউজ্জ্বল চুলের জন্য।

পদ্ধতিঃ
একটি লেবুর রস, ১/২ টেবিল চামচ নারকেল তেল, ১ টি ভিটামিন ই ক্যাপস্যুল। সবকটি উপাদান একসাথে একটি বাটিতে মিশিয়ে নিন। এরপর মাথার ত্বকে বিশেষ করে খুশকি আক্রান্ত স্থানে ভালো করে লাগান এই মিশ্রণ। ১ ঘণ্টা রেখে ধুয়ে ফেলুন। মাথার ত্বকে চিড়বিড়ে অনুভুতি হলে ভয় পাবেন না। লেবুর রসের সাইট্রিক অ্যাসিড মাথার ত্বকের সংক্রামক রোগ দূর করে ও খুশকি মুক্ত করে।

*চুলের আগা ফাটা ও চুল ভাঙ্গা রোধে অলিভ অয়েল*

অলিভ অয়েল চুলের জন্য অত্যন্ত কার্যকরী। অলিভ অয়েলের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট চুলের সংক্রামক রোগ রোধে কাজ করে। এতে করে চুলের গোঁড়া থেকে পুষ্টি যোগায় ও চুলের আগা ফাটা রোধ করে ও চুলের ভঙ্গুরতা কমায়।

পদ্ধতিঃ
চুলের দৈর্ঘ্য অনুযায়ী ৪/৫ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল নিয়ে এতে ১ টি ভিটামিন ই ক্যাপস্যুল ভেঙ্গে নিয়ে মিশিয়ে নিন। এরপর একে হালকা গরম করে মাথার ত্বকে ভালভাবে লাগান। ৩০ মিনিট রেখে চুল ধুয়ে ফেলুন। সবথেকে ভালো ফলাফল পেতে পুরোরাত এই মিশ্রণটি লাগিয়ে রেখে সকালে চুল ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ২/৩ বার ব্যাবহারে চুলের আগা ফাটা ৭০-৮০% কমে যাবে।

collected