২০১৬ সালের মধ্যে ১ বিলিয়ন এলটিই ব্যবহারকা&#2

Author Topic: ২০১৬ সালের মধ্যে ১ বিলিয়ন এলটিই ব্যবহারকা  (Read 632 times)

Offline arefin

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 1173
  • Associate Professor, Dept. of ETE, FE
    • View Profile
বিশ্বব্যাপী চতুর্থ প্রজন্মের মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর বর্তমান সংখ্যা প্রত্যাশাকে ছাড়িয়ে গেছে। মাত্র তিন বছর আগে চালু হওয়া স্বত্বেও এই মোবাইল প্রযুক্তিটি দ্রুত আকাশ ছুঁতে সক্ষম হয়েছে। ২০১০ সালে যেখানে বিশ্বব্যাপী এই সুবিধা গ্রহণকারীর সংখ্যা ছিল মাত্র ৬ লক্ষ; ২০১২ সালের শেষে এসে তা ১০০ মিলিয়ন এ এসে দাঁড়িয়েছে।

বাজার গবেষণাধর্মী সংস্থা আইএইচএস আইসাপ্লি ২০১৩ সালের মধ্যে এ সংখ্যা দ্বিগুণ এবং ২০১৬ সালের মধ্যে তা ১ বিলিয়নের কাছাকাছি এসে পৌঁছুবে বলে মনে করছে।

সংস্থাটির বেতার যোগাযোগ বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিশ্লেষক ওয়েন ল্যাম এক বিবৃতিতে বলেন, "এলটিই বিশ্বব্যাপী প্রযুক্তি স্ট্যান্ডার্ড হিসেবে রূপান্তর হচ্ছে, এর ইকো-সিস্টেম চ্যালেঞ্জ এবং সুযোগ সৃষ্টি করছে, দ্রুত বাস্তবায়ন ডিজাইন ক্ষেত্রে আনবে নতুন উদ্ভাবন। বিশেষ করে স্মার্টফোন ক্ষেত্রে, কিন্তু তরঙ্গ বিভাজনের মত বিষয়গুলো এলটিই শিল্পকে পিছিয়ে দিবে। এই সমস্যাটির দিকে আশু দৃষ্টি দেয়া উচিত। তবে সামগ্রিকভাবে এলটিইকে আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে হলে বিভাজন অপেক্ষা ভিত্তি স্থাপনের দিকে অধিক নজর প্রদান করা উচিত।"



২০১৫ সালের মধ্যে এলটিই ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৩০০ মিলিয়ন এ পৌঁছুবে বলে ২০১০ সালে বিশ্লেষকেরা আশা প্রকাশ করেন। কিন্তু বর্তমানে এই বেতার প্রযুক্তির জনপ্রিয়তা এত দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে যে ২০১৪ সালের মধ্যে এই লক্ষ্যমাত্রাকে ছাড়িয়ে যাবে বলে মনে করছে আইসাপ্লি। গত বছর এলটিই ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৫৯৯% বৃদ্ধি পেয়ে ২০১১ সালের ১৩.২ মিলিয়ন থেকে ২০১২ সালে ৯২.৩ মিলিয়নে এসে দাঁড়ায়। ২০১৩ সালের মধ্যে এই সংখ্যা ১৯৮.১ মিলিয়নে এসে দাঁড়াবে বলে মনে করা হচ্ছে।

যেহেতু স্মার্টফোন প্রযুক্তি এবং অ্যাপ্লিকেশনগুলো জটিল এবং দ্রুত ফলাফল দিতে সক্ষম হয় উঠেছে বেতার অবকাঠামোটিকে এর সাথে তাল মিলিয়ে চলতে সক্ষম হতে হবে। আর এক্ষেত্রে ফোরজি এলটিই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকেরা।
“Allahumma inni as'aluka 'Ilman naafi'an, wa rizqan tayyiban, wa 'amalan mutaqabbalan”

O Allah! I ask You for knowledge that is of benefit, a good provision and deeds that will be accepted. [Ibne Majah & Others]
.............................
Taslim Arefin
Assistant Professor
Dept. of ETE, FE
DIU