বিমা ক্ষতি জরিপে নতুন মাশুল

Author Topic: বিমা ক্ষতি জরিপে নতুন মাশুল  (Read 532 times)

Offline mustafiz

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 524
  • Test
    • View Profile
বিমা জরিপকারী (সার্ভেয়ার) কোম্পানিগুলোর জরিপ মাশুল পুনর্নির্ধারণ করে দিয়েছে বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ)। এতে জরিপকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর আয় বাড়বে।
এ জন্য নতুন একটি তফসিল নির্ধারণ করে আইডিআরএ সম্প্রতি তা জরিপকারী কোম্পানি এবং সাধারণ বিমা (নন-লাইফ) কোম্পানিগুলোকে চিঠি দিয়ে জানিয়ে দিয়েছে।
আইন অনুযায়ী, বিমা পলিসির আওতায় ক্ষয়ক্ষতির দাবি পরিশোধে বাধ্যতামূলকভাবে জরিপকারী কোম্পানির প্রতিবেদন থাকতে হয়।
বাংলাদেশ ইনস্যুরেন্স সার্ভেয়ার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিআইএসএ) সূত্রে জানা গেছে, দেশে বর্তমানে ১৫০টি বিমা জরিপকারী কোম্পানি রয়েছে। এতে কর্মরত রয়েছেন আড়াই হাজার লোক। কিছু বিদেশি কোম্পানিও আছে।
বিআইএসএর সাধারণ সম্পাদক কে এন এম খোরশেদ আলম আইডিআরএর এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে প্রথম আলোকে বলেন, নতুন হার জরিপ পেশায় মেধাবীদের আকৃষ্ট করবে।
মাশুলের বিভিন্ন হার: অগ্নি এবং প্রকৌশল, বিবিধ ও অন্যান্য শ্রেণীর জন্য মাশুলের একই হার নির্ধারণ করা হয়েছে। ক্ষতির তারিখ ও সময় অনুযায়ী প্রতিটি অগ্নিবিমা পলিসির নিরূপিত মোট ক্ষতিকে ভিত্তি ধরে জরিপকারী কোম্পানি মাশুল পাবে ক্ষয়ক্ষতির প্রথম ছয় লাখ টাকা পর্যন্ত ৪ শতাংশ হারে এবং বাকি প্রতি লাখ ৩ শতাংশ হারে। আগে এই হার ছিল প্রতি চার লাখ টাকা পর্যন্ত ৩ শতাংশ এবং বাকি প্রতি লাখ ২ শতাংশ।
তবে নতুন মাশুল হবে সর্বোচ্চ ৭৫ হাজার টাকা এবং সর্বনিম্ন সাত হাজার ৫০০ টাকা। আগে সর্বোচ্চ জরিপ মাশুল ছিল ৫০ হাজার টাকা এবং সর্বনিম্ন পাঁচ হাজার টাকা।
মোটর দাবি শ্রেণীতে মাশুলের পরিমাণ নির্ধারিত সাত হাজার ৫০০ টাকা করা হয়েছে। আগে সব শ্রেণীর মোটর ক্ষতির জরিপের ক্ষেত্রে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত মাশুল তিন হাজার এবং ১০ হাজার টাকার বেশি হলে পাঁচ হাজার টাকা ছিল।
আইডিআরএ আরও বলেছে, অগ্নিবিমা পলিসির আওতায় ক্ষতির পরিমাণ ২০ লাখ টাকা এবং বিবিধ ও নৌ-হালে (ইনল্যান্ড) ক্ষতি ১০ লাখ টাকার বেশি অনুমিত হলে বিমাকারী কর্তৃক বাধ্যতামূলক দ্বিতীয় জরিপকারী নিয়োগ করতে হবে। আগে এই বিধান বাধ্যতামূলক ছিল না।
নৌ দাবির ক্ষেত্রে কার্গো শ্রেণীতে প্রতিটি চালানে জরিপকারীকে প্রতি পিরিয়ডের (প্রতি আট ঘণ্টা) জন্য তিন হাজার এবং পরবর্তী প্রতি পিরিয়ডে দেড় হাজার টাকা মাশুল দেওয়া হবে। আগে ছিল প্রথম তিন দিন পর্যন্ত প্রতি পিরিয়ড এক হাজার ২০০ ও পরবর্তী প্রতি পিরিয়ডে ৬০০ টাকা। হালের ক্ষেত্রে প্রতিটি মোট ক্ষতির জরিপ মাশুল সাত হাজার ৫০০ ও প্রতিটি কনস্ট্রাকটিভ মোট ক্ষতির মাশুল নয় হাজার টাকা করা হয়েছে।
প্রাক্-ঝুঁকির ক্ষেত্রে বিমা অঙ্ক পাঁচ থেকে ৪০ কোটি টাকা পর্যন্ত মাশুল ১৫ হাজার ও ৪০ কোটির বেশি হলে মাশুল ৩০ হাজার টাকা। মূল্যায়নের মাশুল করা হয়েছে নিরূপিত মূল্যের ওপর দুই পয়সা হারে। তবে তা সর্বোচ্চ দুই লাখ ৫০ হাজার টাকা এবং সর্বনিম্ন ১০ হাজার টাকার মধ্যে থাকবে।
যাতায়াত খরচ স্থানীয় ক্ষেত্রে জিপিও থেকে ৫০ কিলোমিটার (কিমি) পর্যন্ত প্রতি কিমি মাশুল ১৫ টাকা। আগে ছিল ৩০ কিমি পর্যন্ত প্রতি কিমি ১০ টাকা। আর দূরপাল্লার ক্ষেত্রে ১০ টাকা করা হয়েছে। জরিপকারীদের ভাতাও দ্বিগুণ হয়েছে।