চাকরি যখন সোনার হরিণ

Author Topic: চাকরি যখন সোনার হরিণ  (Read 490 times)

Offline faruque

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 655
    • View Profile
চাকরি যখন সোনার হরিণ
« on: December 10, 2014, 11:59:41 AM »
চাকরি যখন সোনার হরিণ



অনেক সময় আশানুরূপ চাকরি না পেয়ে হতাশায় ভুগতে পারেন। তবে হতাশ হলে চলবে না। হতাশ হয়ে বসে থাকলে এগিয়ে যাওয়া সম্ভব হবে না সামনের দিকে। তাই প্রয়োজন ধৈর্য। এ ধৈর্যই পারে আপনার চাহিদা অনুযায়ী চাকরির খবরটি দিতে। বর্তমান প্রেক্ষাপটে চাকরি বাজারের প্রতিযোগিতা দিন দিন বেড়েই চলেছে। জানা গেছে, এ প্রতিযোগিতায় প্রতি বছরই প্রায় দুই লাখ শিক্ষিত তরুণ-তরুণী প্রবেশ করছে। কিন্তু সেই সঙ্গে চাকরির ক্ষেত্র খুব একটা বাড়ছে না। আধুনিকতার ছোঁয়া লেগেছে বাংলাদেশের অধিকাংশ প্রতিষ্ঠিত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানেই। আগে যে পরিমাণ কাজ তিন ব্যক্তি করত এখন এক ব্যক্তিকেই সেই কাজ করতে হয়। ফলে প্রতিষ্ঠানকেন্দ্রিক চাকরির পদসংখ্যা কমছেই। কিন্তু তাই বলে যে আপনাকে হতাশ হতে হবে তা নয়। নিজেকে যোগ্য করে তুলুন প্রতিষ্ঠানের চাহিদানুযায়ী।


আমাদের দেশে এখনো চাকরি খোঁজার ক্ষেত্রে অনেকে শুধু পত্রিকার ওপর নির্ভর করে। কিন্তু পরিবর্তিত আধুনিকতার স্পর্শে চাকরি খুঁজতে হলে শুধু পত্রিকার উপর নির্ভর না করে সেই সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নিন বেশকিছু পদ্ধতির সঙ্গে।

জব সাইট : প্রযুক্তির এ যুগে সচেতন তরুণ-তরুণী মাত্রই ইন্টারনেটভিত্তিক অনলাইন জব সাইটগুলো নিয়মিত ভিজিট করা উচিত। এক্ষেত্রে আপনাকে মনে রাখতে হবে, প্রযুক্তির উন্মেষ ঘটিয়ে বাংলাদেশে এখন চাকরির অনেক বিজ্ঞাপন প্রচার করা হয়ে থাকে অনলাইনভিত্তিক জব সাইটগুলোতে। চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য থাকে কর্মমূল্যে যেন তাদের প্রতিষ্ঠানের চাকরির বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা যায়। এক্ষেত্রে অনলাইন জব সাইটগুলো তাদের পত্রিকার তুলনায় অনেক সাশ্রয়ী মূল্যে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের সুযোগ করে দিয়েছে। তবে বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠিত প্রায় সব প্রতিষ্ঠানই পত্রিকায় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রদান করে থাকে। সেই সঙ্গে অনলাইনের জব সাইটেও তাদের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। আপনাকে চাকরি খুঁজে নিতে হলে নিজের আগ্রহেই চাকরির বিজ্ঞপ্তি খুঁজে নিতে হবে। 

পরিচিত মাধ্যম : আমাদের দেশে চাকরির বিজ্ঞপ্তি অনেক সময়ই প্রতিষ্ঠান কর্তৃক ঘোষণা করা হয় না। কেননা পদসংখ্যা কম থাকায় এবং আমাদের দেশে চাকরিপ্রার্থী অত্যধিক থাকায় প্রতিষ্ঠানগুলো চাকরির নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশে আগ্রহী হয় না। তবে এ বিষয়টি কেবল বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমূহের ক্ষেত্রেই হয়ে থাকে। তাই আপনার পরিচিত ব্যক্তিবর্গ যেসব প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রয়েছেন সেসব প্রতিষ্ঠানে একটি সিভি জমা রাখা। প্রতিষ্ঠানের প্রয়োজন হলে এবং তাদের কাঙ্ক্ষিত পদের বিপরীতে আপনাকে যোগ্য মনে করলে তারা অবশ্যই আপনাকে চাকরির ইন্টারভিউয়ের জন্য মনোনীত করবে। তবে এর মানে এ নয়, তারা আপনাকে চাকরির সুযোগ করে দেবে।

প্রতিষ্ঠান নির্বাচনে মনোযোগী হোন : আমাদের দেশে অনেকের মধ্যেই বদ্ধমূল ধারণা রয়েছে, যে কোনো প্রতিষ্ঠানে যে কোনো ধরনের চাকরিই তার জন্য যথেষ্ট। কিন্তু এখানে একটি বিষয় আপনাকে মনে রাখতে হবে, বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানই তার পদের বিপরীতে যোগ্য বক্তিকেই মনোনয়ন দিয়ে থাকে। ফলে আপনাকে শিক্ষাগত যোগ্যতা এবং অভিজ্ঞতার আলোকে কোন ধরনের প্রতিষ্ঠানে আপনার কাজ করার সুযোগ রয়েছে তা আগ থেকেই স্থির করে নিতে হবে। সেই সঙ্গে সেসব প্রতিষ্ঠানে আপনার কাঙ্ক্ষিত পদের বিপরীতে কী গুণাবলী প্রয়োজন সেসব বিষয়ে ধারণা নেওয়ার চেষ্টা করুন।

বাস্তবতা উপলব্ধি করুন : অনেকেই চাকরির বিজ্ঞপ্তিতে প্রতিষ্ঠান কর্তৃক প্রদেয় বিজ্ঞপ্তির সেরা পদসমূহে আবেদন করে থাকে। কিন্তু আপনি যদি সদ্য পড়ালেখার পাঠ চুকিয়ে চাকরির আবেদন করে থাকেন, তবে আপনাকে মনে রাখতে হবে সেসব পদে আপনার চেয়ে বেশি যোগ্য ও অভিজ্ঞতাসম্পন্ন ব্যক্তি চাকরির জন্য আবেদন করে থাকে। ইন্টারভিউ লেটার পাওয়ার ক্ষেত্রে আপনার থেকে তারা অনেকাংশেই এগিয়ে থাকে। ফলে বাস্তবতার নিরিখে মানিয়ে নিন এবং প্রস্তুতি নিয়ে আবেদন করুন।

 

- See more at: http://www.bd-pratidin.com/cariar/2014/12/10/48904#sthash.sLlQt0HG.dpuf