ফের চ্যাম্পিয়ন দিদার বলী

Author Topic: ফের চ্যাম্পিয়ন দিদার বলী  (Read 752 times)

Offline Md. Alamgir Hossan

  • Hero Member
  • *****
  • Posts: 934
  • Test
    • View Profile
আবদুল জব্বার স্মৃতি কুস্তি প্রতিযোগিতায় মঙ্গলবার বিকেলে উখিয়ার শামসু বলীকে হারিয়ে শিরোপা পুনরুদ্ধার করেছেন রামুর দিদার বলী। ১৭ মিনিটের দ্বৈরথ শেষে তিনি চ্যাম্পিয়ন হন। চ্যাম্পিয়ন হয়ে জব্বারের বলীখেলা থেকে অবসরের ঘোষণা দেন দিদার বলী।
চট্টগ্রামের লালদীঘি মাঠে প্রতিবছর আবদুল জব্বার স্মৃতি কুস্তি প্রতিযোগিতা বা বলীখেলা অনুষ্ঠিত হয়। এবার ছিল ঐতিহ্যবাহী এই বলীখেলার ১০৮তম আসর। কক্সবাজারের রামুর দিদার বলী এই বলীখেলায় এবারসহ মোট ১১ বার চ্যাম্পিয়ন হলেন।
দিদার বলেন, ‘জব্বারের বলীখেলায় এটি আমার শেষ প্রতিযোগিতা। প্রথম এসে এখানে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলাম। আজ শেষবারও চ্যাম্পিয়ন হলাম। এতে আমি খুশি।
তবে জব্বারের বলীখেলা থেকে অবসর নিলেও অন্যান্য প্রতিযোগিতায় অংশ নেবেন বলে জানান দিদার। ২০০৩ সালে তিনি প্রথমবার এসেই চ্যাম্পিয়ন হন।
আজকের ফাইনালের আগে দিদার বলী মিরসরাইয়ের লিয়াকতকে মাত্র আধা মিনিটের মধ্যে হারান। অন্যদিকে গতবারের চ্যাম্পিয়ন শামসু বলী সেমিফাইনালে কুমিল্লার রাসেলকে হারান। পরে দুজন ফাইনালে মুখোমুখি হয়।
চ্যাম্পিয়ন হয়ে পুরস্কার হিসেবে ট্রফি ও নগদ ২০ হাজার টাকা পান মুদি দোকানি দিদার। পেশায় কাঠমিস্ত্রি শামসু পান নগদ ১৫ হাজার টাকা ও পদক। প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়া মোট ৩৭ জনকে পুরস্কৃত করা হয়।
ঢোল ও নানা বাদ্যযন্ত্রের তালে তালে দর্শকদের তুমুল হর্ষধ্বনির মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হয় বলীখেলা। বলী এবং দর্শকদের মাঝে থাকে টান টান উত্তেজনা।
বলীখেলায় দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে বলীরা অংশ নিয়েছেন। বেশির ভাগই শখের বশে গ্রামীণ এই খেলাটি খেলেন।
এবারের বলীখেলা স্পনসর করে রবি। প্রধান অতিথি হিসেবে বেলুন উড়িয়ে বলীখেলার উদ্বোধন করেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মাসুদ উল হাসান। এ ছাড়া অতিথি হিসেবে আরও উপস্থিত ছিলেন রবির ক্লাস্টার মার্কেটিং ডিরেক্টর নাজির আহমেদ ও রবির চট্টগ্রাম অঞ্চলের ব্যবস্থাপক আশরাফুল কবির। পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ওয়ার্ড কাউন্সিলর এবং মেলা কমিটির সভাপতি জহরলাল হাজারী।
১৯০৯ সালে বকশিরহাটের ব্যবসায়ী আবদুল জব্বার সওদাগর ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে তরুণদের উদ্বুদ্ধ করতে এই বলীখেলার আয়োজন করেছিলেন। সেই থেকে এটি জব্বারের বলীখেলা নামে পরিচিত।