আদম (আঃ) - এর জীবনী – মানবজাতির সূচনা

Author Topic: আদম (আঃ) - এর জীবনী – মানবজাতির সূচনা  (Read 118 times)

Offline ashraful.diss

  • Full Member
  • ***
  • Posts: 104
  • 'শীঘ্রই রব তোমাকে এত দিবেন যে তুমি খুশি হয়ে যাবে'
    • View Profile
আদম (আঃ) - এর জীবনী – মানবজাতির সূচনা

পরাক্রমশালী আল্লাহ়্ তার নতুন সৃষ্টি – মানব সম্পর্কে ফেরেশতাদের অবহিত করেন

মহান আল্লাহ্‌ তা’আলা জানালেন যে, তিনি পৃথিবীতে এমন এক প্রতিনিধি প্রেরণ করতে চলেছেন, যার সন্তান-সন্ততি হয়ে বংশবিস্তার করবে। তখন ফেরেশতাগণ সর্বশক্তিমান আল্লাহ্‌কে কৌতূহল বশত জিজ্ঞেস করলেন, “আপনি কি সেখানে এমন সম্প্রদায় সৃষ্টি করতে চান যারা পৃথিবীতে ফিৎনা ফ্যাসাদ করবে এবং রক্তপাত ঘটাবে? অথচ আমরা সর্বদা আপনার প্রশংসা এবং উপাসনায় মগ্ন থাকি।” আল্লাহ্‌ জবাবে বললেন, “নিশ্চয়ই আমি যা জানি, তা তোমরা জান না।”

وَاِذۡ قَالَ رَبُّکَ لِلۡمَلٰٓئِکَۃِ اِنِّیۡ جَاعِلٌ فِی الۡاَرۡضِ خَلِیۡفَۃً ؕ قَالُوۡۤا اَتَجۡعَلُ فِیۡہَا مَنۡ یُّفۡسِدُ فِیۡہَا وَیَسۡفِکُ الدِّمَآءَ ۚ وَنَحۡنُ نُسَبِّحُ بِحَمۡدِکَ وَنُقَدِّسُ لَکَ ؕ قَالَ اِنِّیۡۤ اَعۡلَمُ مَا لَا تَعۡلَمُوۡنَ

অর্থঃ আর তোমার পালনকর্তা যখন ফেরেশতাদিগকে বললেনঃ আমি পৃথিবীতে একজন প্রতিনিধি বানাতে যাচ্ছি, তখন ফেরেশতাগণ বলল, তুমি কি পৃথিবীতে এমন কাউকে সৃষ্টি করবে যে দাঙ্গা-হাঙ্গামার সৃষ্টি করবে এবং রক্তপাত ঘটাবে? অথচ আমরা নিয়ত তোমার গুণকীর্তন করছি এবং তোমার পবিত্র সত্তাকে স্মরণ করছি। তিনি বললেন, নিঃসন্দেহে আমি জানি, যা তোমরা জান না। {সূরা আল-বাকারাহ: আয়াত ৩০}

পৃথিবীর বুকে মানব জাতিকে সৃষ্টি করার ব্যাপারে আল্লাহ পাক ফেরেশতাদেরকে ডেকে বললেন, তোমরা কি বল? এতে মানব হৃদয়ে একটা প্রশ্ন দেখা দেয় যে, তাহলে কি আল্লাহ পাক রাব্বুল আলামীন পরামর্শ সাপেক্ষে বিশ্বজগৎ পরিচালনা করে থাকেন?

জবাবঃ তা নয়। বিশ্বজগতে বিদ্যমান কোন ব্যক্তি বা বস্তুকে সৃষ্টি ও পরিচালনা করতে মহান মুনিবের কোন পরামর্শের প্রয়োজন নেই। কারণ তিনি সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী। অতীতে কি হয়েছে, বর্তমানে কি হইতেছে ও ভবিষ্যতে কি হবে তা সবই তিনি জানেন। তদুপরি জিজ্ঞাসা করে তাদের কে সাক্ষী বানিয়ে রাখলেন। আল্লাহ পাক জানেন যে, আমি পৃথিবীর বুকে মানব জাতিকে প্রেরণ করব এবং তাদের মধ্যে আখেরী জামানার রাসূল হিসেবে আমার হাবীব (সাঃ) কে পাঠাব। কিয়ামতের দিন যখন আমার হাবীব (সাঃ) তাঁর উম্মতদেরকে নিয়ে জান্নাতে চলে যাবেন তখন হে ফেরেশতারা! তোমরাই আমার হাবীব (সাঃ) ও তাঁর উম্মতদের খাদেম হয়ে খেদমত করবে কিন্তু তোমাদের তা জানা নেই। এজন্য আল্লাহ বললেন, আমি যা জানি তোমরা তার কিছুই জান না।

এই নশ্বরধরায় মানুষ জাতিকে সৃষ্টি করার পূর্বে আল্লাহ পাক জ্বিন জাতিকে  সৃষ্টি করেছিলেন। কিছু দিন পর্যন্ত আল্লাহর দাসত্ব আদায় করে অবশেষে তারা মারা-মারি,কাটা-কাটি দাঙ্গা-হাঙ্গামা, লুট-তরাজ, অন্যায়-অত্যাচার, যেনা-ব্যাভিচার তথা সর্বপ্রকার খোদাদ্রোহী কর্মকান্ডের সাগরে নিমজ্জিত হয়েছিল। তাফসীরে উসমানীর মধ্যে এসেছে, এভাবে জ্বিন জাতি পৃথিবীর বুকে হাজার হাজার বৎসর ধরে বসবাস করতে ছিল।

অবশেষে তাদের প্রতি নারাজ হয়ে রাব্বুল আলামীন ফেরেশতাদেরকে নির্দেশ দিলেন, জমিনের বুকে যত অবাধ্য জ্বিন রয়েছে তাদেরকে ধ্বংস করে দাও। ফেরেশতারা এই নির্দেশ পেয়ে জমিনের বুকে যত অবাধ্য জ্বিন পেয়েছিল তাদেরকে কতল করে দিল। কিছু কিছু জ্বিন পাহাড়ে-পর্বতে গিয়ে পালাল। কিন্তু জ্বিন সম্প্রদায়ের মধ্যে ছিল এক বিখ্যাত আলেম ও নিতান্ত পরহেজগার জ্বিন। তার নাম ছিল ইবলিস। এই ইবলিস জ্বিন জাতির এই গর্হিত কার্যক্রম খুবই ঘৃণা করত। তার প্রতি ফেরেশতাদের মহব্বত লেগে গেল। অবশেষে আল্লাহর শাহী দরবারে ফেরেশতারা ফরিয়াদ করল, হে দয়াময় খোদা নির্দেশ দিলে আমরা ইবলিস নামক জ্বিনকে কতল করব না। রাব্বুল আলামীন বললেন, ঠিক আছে ইবলিসকে তোমাদের মাঝে রেখে দাও। এভাবে ইবলিস মুক্তি পেয়ে ফেরেশতাদের সাথে জান্নাতে বসবাস করতে লাগল।

« Last Edit: January 30, 2022, 12:18:53 PM by ashraful.diss »
Mufti. Mohammad Ashraful Islam
Ethics Education Teacher, DISS
Khatib, Central Mosque, Daffodil Smart City
Ashuli , Savar, Dhaka